পোলার্ডের ৫৪ বলে ১০৪

পোলার্ডের ৫৪ বলে ১০৪

আগের ম্যাচে ২৩ বলে খেলেছিলেন অপরাজিত ৬৫ রানের ঝোড়ো ইনিংস। কাইরন পোলার্ডের ইনিংসটা ম্লান হয়ে গিয়েছিল দল হেরেছিল বলে। ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান অলরাউন্ডার আগের ইনিংস ছাপিয়ে এবার করলেন ৫৪ বলে ১০৪। দীর্ঘ জয়-খরা কাটল তার দল সেন্ট লুসিয়া স্টারসেরও।

সেন্ট লুসিয়ার ড্যারেন স্যামি আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে আজ বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টসের বিপক্ষে ৫৪ বলে ৮ ছক্কা ও ৬ চারে ১০৪ রানের ইনিংসটি সাজান পোলার্ড। ৩১ বছর বয়সি এই ব্যাটসম্যানের এটিই প্রথম টি-টোয়েন্টি সেঞ্চুরি। আগের সর্বোচ্চ ছিল অপরাজিত ৮৯।

পোলার্ডের ১০৪ ও আন্দ্রে ফ্লেচারের ৮০ রানের সুবাদে ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২২৬ রান তোলে সেন্ট লুসিয়া। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) ইতিহাসে সর্বোচ্চ স্কোরের নতুন রেকর্ড এটি। সপ্তাহ খানেক আগে পোর্ট অব স্পেনে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে ২২৪ রান তাড়ায় জ্যামাইকা তালওয়াসের ২২৫ রান ছিল আগের রেকর্ড।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে সেন্ট লুসিয়া ৫৭ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর উইকেটে এসেছিলেন পোলার্ড। ফ্লেচারকে সঙ্গে নিয়ে বার্বাডোজের বোলারদের তুলোধুনা করেন ডানহাতি ব্যাটসম্যান। ৩৩ বলে তুলে নেন ফিফটি। পরের পঞ্চাশ করতে লেগেছে মাত্র ২০ বল!

রেইফারকে ছক্কা হাঁকিয়ে পোলার্ড ৫৩ বলে স্পর্শ করেন তিন অঙ্ক। পরের বলেই অবশ্য আউট হয়ে যান। তার সঙ্গে চতুর্থ উইকেটে ১৪৮ রানের জুটি গড়ার পথে ৫২ বলে ৬টি করে চার ছক্কায় ৮০ রান করেন ওপেনার ফ্লেচার।

বড় লক্ষ্য তাড়ায় ডোয়াইন স্মিথের ৪৫ বলে ৫৮ ছাড়া বার্বাডোজের আর কেউই ত্রিশ ছুঁতে পারেননি। তাদের ১৮৮ রানে থামিয়ে সেন্ট লুসিয়া ম্যাচ জিতেছে ৩৮ রানে।

১৫ ম্যাচ পর জয় পেল সেন্ট লুসিয়া। দিনের হিসাবে ৭৪৭ দিন পর!