সিলেটে স্থগিত ২ কেন্দ্রে পুনঃভোট শনিবার

সিলেটে স্থগিত ২ কেন্দ্রে পুনঃভোট শনিবার

সিলেট প্রতিনিধি : মেয়র পদের ফল আটকে থাকা সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থগিত দুই কেন্দ্রে শনিবার নতুন করে ভোটগ্রহণের সব প্রস্ততি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। এ দুই কেন্দ্র ছাড়াও ভোটের ফলাফল সমান হয়ে যাওয়ায় সংরক্ষিত ৭ ন¤॥^র (১৯, ২০ ও ২১) ওয়ার্ডের ১৪টি কেন্দ্রে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদেও পুনঃভোট হবে। এ নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বলেন, ভোট সুষ্ঠু করতে নিরাপত্তা জোরদার করার পাশাপাশি সব ধরনের প্রস্তুতিই তারা নিয়েছেন। তিনি বলেন, ভোটারদের নিরাপত্তায় পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার সদস্যরা মাঠে থাকবেন; পাশাপাশি দুই প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ২০ থেকে ২৫ জন সদস্য) বিজিবি মোতায়েন করা হবে। এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতেৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত থাকবে ভোটের মাঠে। গত ৩০ জুলাই সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কেন্দ্র দখল ও ব্যালটবাক্স ছিনতাইয়ের ঘটনায় গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হবিনন্দী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। ১৩৪ কেন্দ্রের মধ্যে ১৩২ কেন্দ্রের ফলাফল হাতে পাওয়ার পর দেখা যায়, বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী তার প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের চেয়ে ৪ হাজার ৬২৬ ভোটে এগিয়ে আছেন।

 গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটার ২ হাজার ২২১ জন; আর হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটার ২ হাজার ৫৬৬ জন। সব মিলিয়ে এই দুই কেন্দ্রে ভোটের চার হাজার ৭৮৭ জন। ১৩২টির ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী আরিফুল ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৯০ হাজার ৪৯৬ ভোট। আর বদরউদ্দিন নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৮৭০ ভোট। কিন্তু দুই প্রার্থীর ভোটের ব্যবধান স্থগিত কেন্দ্রের ভোটের চেয়ে কম হওয়ায় ওই দুই কেন্দ্রে পুনঃভোটের এই আয়োজন করতে হচ্ছে। এদিকে বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী বৃহস্পতিবার ঢাকায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে দেখা করে দুই কেন্দ্রের পুনঃভোটে কোনোভাবেই যেন মৃত ও প্রবাসীদের ভোট না পড়ে সে বিষয়ে নজর দেওয়ার অনুরোধ জানান। সিলেটে যে সকল ভোটার মৃত্যুবরণ করেছেন এবং প্রবাসে আছেন তাদের নামের একটি তালিকাও তিনি কমিশনে জমা দেন। এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বলেন, নির্বাচনের আগে কাউকে বিজয়ী ঘোষণা করার কথা আইনে নেই। ভোটার তালিকা নিয়ে কথা বলাও আমার এখতিয়ার বর্হিভূত। ভোটের ব্যবধান আর স্থগিত দুই কেন্দ্রের ভোটার বিবেচনায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের জয়ের আশা একেবারেই ক্ষীণ। তারপরও গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে ভোটে অংশ নেওয়ার কথা বলেছেন তিনি। কামরান বলেন, আওয়ামীলীগ গণতান্ত্রিক ধারাকে বিশ্বাস করে। এ ধারা অব্যাহত রাখতে আমি ভোটে অংশ নেব। আশা করছি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট হবে।