সিলেটে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়রের দায়িত্ব নিলেন আরিফুল

সিলেটে দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়রের দায়িত্ব নিলেন আরিফুল

সিলেট সিটি করপোরেশনের দ্বিতীয় মেয়াদে মেয়র হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নিয়েছেন আরিফুল হক চৌধুরী। সিটি করপোরেশনের সচিব মো. বদরুল হকের কাছ থেকে সোমবার বিকেলে তিনি দায়িত্ব বুঝে নেন।

দ্বায়িত্ব নিয়ে আরিফুল বলেন, “নির্বাচনী ইশতেহার অনুসারে নতুন সিলেট গড়ার চ্যালেঞ্জ নিয়েছি। গত মেয়াদের অসমাপ্ত কাজ শেষ করতে চাই সবার আগে।

“দলমতের ঊর্ধ্বে থেকে পরিচ্ছন্ন, যানজটমুক্ত ও প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক সিলেট গড়তে সকল মহলের সহযোগিতা চাই।”

গত ৩০ জুলাই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকে ৬ হাজার ১৯৬ ভোটে পরাজিত করে মেয়র হিসেবে দ্বিতীয়বার মত জয়লাভ পান আরিফুল। গত ৫ সেপ্টেম্বর তাকে শপথ পড়ান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নির্বাচনে আরিফুল পেয়েছেন মোট ৯২ হাজার ৫৮৮ ভোট। তার নিকট প্রতিদ্বন্দ্বী ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী বদর উদ্দীন আহমদ কামরান পান ৮৬ হাজার ৩৯২ ভোট।

আরিফ বলেন, “সবাই মিলে পরিকল্পনামাফিক কাজ করলে নতুন সিলেট গড়া  সম্ভব। এই নতুন সিলেট হবে পরিচ্ছন্ন। থাকবে না কোনো যানজট। থাকবে না তারের জঞ্জাল। তার যাবে আন্ডারগ্রাউন্ড দিয়ে।

“নতুন সিলেটে থাকবে খোলা উদ্যান, থাকবে বহুতলবিশিষ্ট পার্কিং ভবন। থাকবে সিলেট টাওয়ার। উঁচুতম এই স্থানকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হবে অন্যরকম এক আবহ, যেখানে উপস্থাপিত হবে সিলেটের ঐতিহ্য আর সংস্কৃতি। সিলেট টাওয়ারের ওপর দাঁড়িয়ে পর্যটকরা শুধু সিলেটের উঁচু-নিচু টিলা আর সবুজ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখেই মুগ্ধ হবেন না, তাদের জন্য সেখানেই থাকবে এক টুকরো মিনি সিলেট।”

সিলেট নগরীকে সম্পূর্ণ জলাবদ্ধতামুক্ত করা, ছড়া-খাল দখলমুক্ত রাখা, সুপেয় ও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা, ওয়াইফাই নগরী গড়ে তোলা, ফুটপাত দখলমুক্ত রাখা ও হকারদের পুনর্বাসন, টাউন বাস চালু করা এবং পরিচ্ছন্ন পর্যটন নগর গড়ে তোলার  ক্ষেত্রেও চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করবেন বলে জানান বিএনপি নেতা আরিফুল হক চৌধুরী।