শিক্ষার্থীদের দাবি না মেনে নির্যাতনের পথে সরকার: রিজভী

শিক্ষার্থীদের দাবি না মেনে নির্যাতনের পথে সরকার: রিজভী

শিক্ষার্থীদের আন্দোলন সরকারি সহিংসতার ছোবলে রক্তাক্ত বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবি মেনে না নিয়ে এখন নির্যাতনের পথ বেছে নেওয়া হয়েছে। চলছে নানা ধরনের নাটক ও প্রহসন।

বুধবার (৮ আগস্ট) দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে রিজভী এ কথা বলেন। গত ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বেপরোয়া বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় এর প্রতিবাদে এবং নিরাপদ সড়কের দাবিতে উত্তাল হয় রাজপথ। আন্দোলনে নামে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। তবে সরকার দাবি মেনে নেওয়ার প্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীরা ঘরে ফিরলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অভিযোগ, আন্দোলনে জলঘোলা করতে চেয়েছিল বিএনপি-জামায়াত।

রিজভী বলেন, আন্দোলন শুরু হওয়ার দু’দিন পর (অাওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক) ওবায়দুল কাদের সাহেব বললেন- এবার মাঠে নামবে ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগকে কী কারণে মাঠে নামানো হলো তার নমুনা দেশবাসী দেখেছেন। নিরস্ত্র শিক্ষার্থীদের ওপর সশস্ত্র হামলা করতে ও সাংবাদিকদের ওপর হামলা করতেই তাদের নামনো হয়েছিল। রক্তাক্ত শরীরে ভয়ার্ত আর্তনাদে ছোটাছুটি করতে দেখা গেছে কোমলমতি শিক্ষার্থী আর সাংবাদিকদের।

আন্দোলন দমাতে এখন সরকারি সহিংসতার পাশাপশি নির্বিচারে মিথ্যা মামলা দিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বিএনপি নেতাদের বাড়িতে বাড়িতে হামলা চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন রিজভী। বিএনপির এ নেতা বলেন, স্কুল-কলেজ পড়ুয়াদের আন্দোলনে বিএনপিকে জড়াতে হীন কৌশল নিয়ে সে পথে প্রথম থেকেই এগিয়েছে তারা। এখন সেটা জোরে-শোরে শুরু করেছে ঢাকার বিভিন্ন থানায়। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের অরাজনৈতিক আন্দোলনকে রাজনৈতিক রূপ দেওয়ার জন্যই এ মিথ্যা মামলা।

রিজভী বলেন, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাহববুল হক নান্নু, নির্বাহী কমিটির সদস্য মেহেরুন্নেছা হক, অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট মাহাদী আরজান ইভান, রাজন বেপারী, ফাতেমা খানম, শান্ত ইসলাম জুম্মন, ফেনীর সোনাগাজী উপজেলা ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক মেজবাহ উদ্দিন পিয়াস ও যুবদল নেতা টিপু সুলতান মজুমদারকে অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমি অবিলম্বে  আটক নেতাদের মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।

‘কোথায় কী হচ্ছে আমরা জানি, দেশে যখন শান্তিময় অবস্থা বিরাজ করছে, ঠিক সে সময়ে ১/১১ এর কুশীলবরা আবার রাজনৈতিক অঙ্গনে নেমে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অশুভ খেলায় মেতে উঠেছে’- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এ বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আমার প্রশ্ন ১/১১ এর কুশীলব কারা? তাহলে আপনারা কে? আপনাদের আন্দোলনের ফসলই তো ১/১১। আপনিই তো ১/১১ এর প্রক্রিয়াকে মহিমান্বিত করে তা ‘পাঠশালা’হিসেবে আখ্যায়িত করেছিলেন। আপনাদের আন্দোলনের ফসলের বিরুদ্ধে এখন বিরূপ মন্তব্য করছেন কেন? তারা আপনাদের এতো প্রিয় ছিল যে, তাদের সব অপরাধ ও বেআইনি কাজ বৈধ করে দেবেন বলেছিলেন এবং ক্ষমতায় এসে তা করেছেন। তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় ১০ বছর আপনারা ক্ষমতায়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, প্রকাশনা সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম হাবিব, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-দফতর সম্পাদক মুনির হোসেন প্রমুখ।