ডিমলায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

ডিমলায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : আরজিনা নামে এক দুই সন্তানের জননীকে হত্যা করে লাশ হাসপাতালে ফেলে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শুক্রবার সকালে ঘটনাটি ঘটে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলা সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট পাথরখুড়া গ্রামে।  দুপুরে হাসপাতাল থেকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।জানা যায়, টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের পূর্ব খড়িবাড়ী গ্রামের শুকুর আলী কন্যার সাথে ১৪ বছর পূর্বে ডিমলা সদর ইউনিয়নের বাবুরহাট গ্রামের মৃত মোসলেম উদ্দিনের পুত্র জাহিদুল ইসলামের বিয়ে হয়।     ার সংসারে মনির হোসেন (১২) ও জাহিমা বেগম (৬) নামে দুটি সন্তান রয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাতে আরজিনাকে পরকীয়ার অভিযোগ তুলে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন মারধর করে। সারারাত নির্যাতনের কারণে তার মৃত্যু হলে সকালে মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে হাসপাতালে এনে ভর্তির চেষ্টা করে। কর্তব্যরত চিকিৎসক এ সময় দেখতে পায় তার মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হয়ে লাশ হাসপাতালে বারান্দায় ফেলে স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন পালিয়ে যায়। হাসপাতালে আরজিনার মা সালেহা বেগম অভিযোগ করে বলেন, তার  মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ দুপুরে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশের ময়না তদন্ত আজ শনিবার জেলার মর্গে সম্পন্ন করা হবে। এখনও কোন অভিযোগ করেনি নিহতের পরিবার। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়ের করা হয়নি।