এবার ক্ষমতায় যেতে হবে: রওশন

এবার ক্ষমতায় যেতে হবে: রওশন

স্বামীর সঙ্গে সুর মিলেয়ে জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ কো চেয়ারম্যান রওশন এরশাদও বলেছেন, এককভাবে ক্ষমতায় যাওয়াই এবার তাদের লক্ষ্য।

শনিবার ঢাকার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জাতীয় পার্টির তৃণমূল ও কেন্দ্রীয় নেতাদের যৌথ সভায় তিনি বলেছেন, “এবারের সংগ্রাম ক্ষমতায় যাওয়ার সংগ্রাম। এবারের সংগ্রামে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের সংগ্রাম।”

সেনাপ্রধান হিসেবে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে জাতীয় পার্টি গঠন করে রাজনীতিতে সক্রিয় এরশাদ আওয়ামী লীগের সঙ্গে মিত্রতা স্থাপন করে নিজে এখন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত, তার দল রয়েছে সংসদে বিরোধী দলের আসনে। সেইসঙ্গে মন্ত্রিসভায় পদ নিয়ে সরকারেরও অংশীদার হয়েছে জাতীয় পার্টি।

সম্প্রতি কয়েকটি সমাবেশে এরশাদ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমালোচনা করে বলেছেন, জনগণ এখন তাদের ক্ষমতায় দেখতে চায়।

শনিবারের অনুষ্ঠানেও তিনি বলেন, “জাতীয় নির্বাচনের লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। এখন আমাদের আর পিছিয়ে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই।

“আমি ক্ষমতা ছাড়ার ২২ দিনও হয়নি। শুরু হয়ে গিয়েছিল গুম, খুন, হত্যা, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি। আমি সুদিন ফিরিয়ে আনতে চাই, শান্তি ফিরিয়ে আনতে চাই, ফিরিয়ে আনতে চাই শৃঙ্খলা।”

সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন বলেন, “জাতীয় পার্টির শাসনামলে যেসব উন্নয়ন হয়েছে, তা আর কোনো সরকারের আমলে হয়নি। বাংলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের লক্ষ্যে যেসব কাজ করেছি, তৃণমূলের নেতাদের, কর্মীদের সেসব সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। নতুবা তারা ভুলে যেতে পারে।”

জাতীয় পার্টির সামনে ক্ষমতাসীন হওয়ার ‘সুযোগ এসেছে’ দাবি করে তিনি এখন দলকে শক্তিশালী করে তুলতে নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানান।

বক্তব্যের শেষে রওশন ‘নতুন বাংলাদেশ গড়ব মোরা’ গানও গেয়ে শোনান।

সমাবেশে এইচ এম এরশাদের সঙ্গে কথা বলছেন রওশন এরশাদ

সমাবেশে এইচ এম এরশাদের সঙ্গে কথা বলছেন রওশন এরশাদ

জাতীয় পার্টির কো চেয়ারম্যান জি এম কাদের দলাদলি না করে চেয়ারম্যান এরশাদের পরামর্শে কাজ করতে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

একাদশ সংসদ নির্বাচনে আলাদাভাবে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি রাখলেও এরশাদ নিজেই বলেছেন, বিএনপি ভোটে এলে আগের মতো আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট বাঁধবেন তারা।

আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট করলে তাদের কাছ থেকে জাতীয় পার্টিকে ‘ন্যায্য হিস্যা বুঝে নিতে’ অনুরোধ জানান দলটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সালমা ইসলাম।

সকাল ১০টায় রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে শুরু হয় জাতীয় পার্টির যৌথ সভা। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে সমাবেশে যোগ দেন।

মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলদার ছাড়াও এতে উপস্থিত আছেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও পরিবেশমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, এস এম ফয়সাল চিশতি, সুনীল শুভ রায়, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, ঢাকা দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবুল হোসেন বাবলা, কাজী ফিরোজ রশীদ, সালমা ইসলাম, মীর আবদুস সবুর, সেলিম ওসমান।

এরশাদ নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটভুক্ত ইসলামিক ফ্রন্টের মহাসচিব এম এ  মতিন, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাহফুজুল হক, বিএনএর সভাপতি সেকান্দার আলী, ইসলামী মহাজোটের সভাপতি আবু নাসের ওয়াহেদ ফারুকও সমাবেশে রয়েছেন।