অভিষেক টেস্ট ভেন্যুতে জয় উদযাপন করতে চান মাহমুদুল্লাহ

অভিষেক টেস্ট ভেন্যুতে জয় উদযাপন করতে চান মাহমুদুল্লাহ

স্পোর্টস রিপোর্টার : বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে লড়াই দিয়ে   টেস্ট অভিষেক হচ্ছে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের। স্মরণীয় এই টেস্টকে জয় দিয়ে উদযাপন করতে চান বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টের আগে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানান মাহমুুদুল্লাহ। সংবাদ সম্মেলনে মাহমুদুল্লাহকে করা প্রশ্ন-উত্তর পর্বটি তুলে ধরা হলো।
প্রশ্ন : সাকিবের অনুপস্থিতিতে টেস্টে অধিনায়কত্বৃ
মাহমুদুল্লাহ : প্রথমত বিষয়টি অনাকাঙ্খিত। কারণ, সাকিব থাকলে অবশ্যই আমাদের দলের জন্য ভালো। আমাদের দলের অপরিহার্য একজন খেলোয়াড় সে। আশা করছি ও দ্রুতই ফিরে আসবে। আমি আমার শতভাগ দিয়ে চেষ্টা করবো যেনো পজিটিভ রেজাল্ট নিয়ে আসতে পারি। দলের সবাই ভালো মুডে আছে। ওয়ানডে সিরিজ আমরা জিতেছি এবং যে আত্মবিশ্বাস নিয়ে আছি সেই আত্মবিশ্বাসটা নিয়ে আমরা যাচ্ছি টেস্ট সিরিজে। তারপরও প্রতিপক্ষকে তাদের প্রাপ্য সম্মানটুকু দেওয়া উচিত। তারা যথেস্ট ভালো দল। টেস্ট ক্রিকেট এমন একটা ফরম্যাট যেখানে প্রতিটি সেশনে চ্যালেঞ্জ আসবে। ওই চ্যালেঞ্জগুলো বুঝতে পারা এবং সে অনুযায়ী খেলাটা গুরুত্বপূর্ণ। ছোট ছোট অনেক কাজগুলো প্রত্যেক দিন আমাদের করতে হবে।
প্রশ্ন : ব্যক্তিগতভাবে অধিনায়কত্ব কেমন উপভোগ করছেন?
মাহমুদুল্লাহ : অধিনায়কত্ব করা প্রত্যকটি খেলোয়াড়ের জন্য ভালো লাগার একটা বিষয়। এটা একজন খেলোয়াড়কে তার দেশের প্রতিনিধিত্বের সুযোগ তৈরি করে দেয়। পাশাপাশি অধিনায়কত্ব একটা দায়িত্ব। এই দায়িত্বের কথাও মাথায় রাখতে হবে।
প্রশ্ন : বিশ্বকাপের আগে এমন টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে কি ভাবছেন?
মাহমুদুল্লাহ : অবশ্যই বিশ্বকাপের কথা কম-বেশি আমরা সবাই জানি। খুব সন্নিকটে বিশ্বকাপ। তারপরও যেহেতু এখন টেস্ট ক্রিকেট আমাদের সামনে, শেষ টেস্টে ওয়েস্ট ইন্ডিজে আমরা ভালো করতে পারিনি। এটা আমাদের জন্য দারুণ একটা সুযোগ। আমরা যেনো আমাদের হোম কন্ডিশন কাজে লাগিয়ে দু’টো টেস্ট ম্যাচই জিততে পারি এটা আমাদের প্রথম টার্গেট। পাশাপাশি আমাদের ছোটো ছোটো অনেকগুলো গোল থাকে সেগুলো ঠিকমতো অর্জন করতে পারলে আপনি টেস্ট ক্রিকেটে ভালো করতে পারবেন। আমরা এখন প্রথম টেস্ট নিয়ে চিন্তা করছি। বিশ্বকাপ ওটা ডিফারেন্ট ফরম্যাট। যখন আসবে তখনই আমরা বিশ্বকাপ নিয়ে চিন্তা করবো।
প্রশ্ন : টেস্ট দলে সুযোগ পাওয়া নতুন খেলোয়াড়রাৃ
মাহমুদুল্লাহ : আমার মনে হয় ওরা যেভাবে পারফরম্যান্স করছে, টেস্ট স্কোয়াডে তাদের একটা সুযোগ প্রাপ্য। অপু-মিথুন দুজনই সাম্প্রতিক সময়ে বেশ ভালো ফর্মে আছে। ওই আত্মবিশ্বাসটা যদি টেস্ট ক্রিকেটে নিয়ে আসতে পারে এবং ভালো পারফর্ম করতে পারে, তবে খুবই ভালো।
প্রশ্ন : সিরিজে প্রথম টেস্টে জয় নিয়েৃ
মাহমুদুল্লাহ : প্রথমে যেটা বললাম, ওয়েস্ট ইন্ডিজে আমরা আশানুরূপ, আসলে আশানুরূপ নাৃ আমরা ভালো করতে পারিনি। আমাদের এখানে অনেক সুযোগ আছে উন্নতি করার। সামনে ওদের বিপক্ষে আমাদের হোম কন্ডিশনে একটা সিরিজ আছে। আমার মনে হয় এটা আমাদের জন্য ভালো একটা সুযোগ এই দুই ম্যাচে। আমরা যদি প্রথম ম্যাচে আমাদের স্কিলগুলোকে কাজে লাগিয়ে একটা ভালো ফল আনতে পারি তাহলে ওই আত্মবিশ্বাস নিয়ে আমরা সেকেন্ড টেস্টে যেতে পারব। যদি বড় লক্ষ্যের কথা চিন্তা করি সামনে আমাদের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ আছে ওটা আমাদের মূল লক্ষ্য থাকবে। তারপরও জিম্বাবুয়ে খুবই ভালো দল। আপনি যদি ওয়ানডের তিনটা ম্যাচের পারফরম্যান্স দেখেন আমরা অবশ্যই ভালো ক্রিকেট খেলেছি। ওরাও ভালো ক্রিকেট খেলেছে। আমরা ওদের থেকে ভালো খেলে হোম সিরিজটা জিতেছি। তো ওই সুযোগটা যদি না দেই এবং আমাদের সুযোগ আছে টেস্ট ক্রিকেটে ভালো করার। সেটা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে।
প্রশ্ন : অধিনায়কত্ব নিয়ে পরিকল্পনা, প্রস্তুতি কেমন?
মাহমুদুল্লাহ : এটা ঠিক যে অধিনায়কত্ব আমাকে আমার খেলায় বাড়তি চ্যালেঞ্জ দেয়। আমাকে প্রভাবিত করে এবং বাড়তি দায়িত্ব এনে দেয় যে আমি যেন আমার বেস্ট আউটপুট টিমের জন্য দিতে পারি। আমার মনে হয় যদি অধিনায়কত্ব করি কিংবা না করি আমার কাছে মনে হয় আমাকে আগে খেলোয়াড় হিসেবেও চিন্তা করতে হবে যে দলকে কিভাবে সার্ভিস দিচ্ছি। এটাও চিন্তা করি। এ দায়িত্বটা আসলে উপভোগ করি এবং চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে পছন্দ করি। আমার মনে হয় এটা আমাকে খেলায় ও সাহায্য করে।
প্রশ্ন : সাকিব-তামিমকে ছাড়া সেরা একাদশ নির্বাচন করা কি কঠিন?
মাহমুদুল্লাহ : সাকিব সব সময় আপনাকে ভারসাম্য এনে দেয়। সাকিব যেহেতু নেই তাই আমাদের এক্সট্রা ব্যাটসম্যান বা বোলার নিয়ে খেলতে হবে। তো সাকিব থাকলে টিমের ভারসাম্য নিয়ে বেশি চিন্তা করতে হয় না। বাট এখন যেটা সব থেকে বড় সুযোগৃ বারবার এ কথাটা বলি এটা তরুণদের জন্য এবং আমাদের সবার জন্য প্রপার একটা সুযোগ যেন আমরা ভালো পারফর্ম করতে পারি। তামিম-সাকিব যেহেতু নেই সবার জন্য এটা সমান সুযোগ। আমার জন্যও তাই। আমরা ওই সুযোগটিকে কিভাবে দেখছি এবং আমরা কতটুকু উদগ্রীব আছি পারফর্ম করার জন্য। এই চ্যালেঞ্জ গুলো আমাদের নিতে হবে। খেলোয়াড়রা সবাই সুযোগের অপেক্ষা আছে এবং সবাই ভালো পারফরম্যান্সের জন্য অপেক্ষায় আছে।
প্রশ্ন : প্রথম টেস্টে দল নিয়ে পরীক্ষা-নীরিক্ষা হবে কি?
মাহমুদুল্লাহ : প্রথম ম্যাচে হয়তো আমরা তেমন পরীক্ষা নিরীক্ষা নাও করতে পারি। আমরা সেরা একাদশ নিয়েই খেলবো। কারণ প্রথম ম্যাচটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি-২০ যে ফরম্যাটই হোক, প্রথম ম্যাচটি সবসময়েই গুরুত্বপূর্ণ। আর আমরা সবসময় বিশ্বাস করি যে আমাদের শুরুটা যখন ভাল হয় আমরা আমাদের আত্মবিশ্বাস অনেক দূর পর্যন্ত নিয়ে যেতে পারি। তো সেরা একাদশটিই খেলার সুযোগ পাবে এবং আশা করি সবাই সেই সুযোগের অপেক্ষাতেই আছে।