মিয়ানমারকে চাপ দিন

 মিয়ানমারকে চাপ দিন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণকারী রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক গ্রুপের (আইএসডিবিজি) প্রতি আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ জোরপূর্বক বা¯ুÍচ্যুত বিপুল রোহিঙ্গা জনস্রোতের নজিরবিহীন এক মানবিক সংকটে অত্যন্ত সক্রিয়ভাবে সাড়া দিয়ে সীমান্ত উন্মুক্ত রেখে তাদের প্রবেশ করতে দিয়েছে। কিন্তু আমরা তাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে চাই। মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী যখন জাতিগোষ্ঠী নির্মূলের মুখোমুখি, তখন আইডিবি নিশ্চুপ থাকতে পারে না। গত রোববার হোটেল র‌্যাডিসনে ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক গ্রুপের (আইএসডিবিজি) ঢাকাস্থ। ‘রিজিওনাল হাব’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। আমরাও চাই বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থী তাদের নাগরিকত্ব সহ মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করে মিয়ানমারে ফিরে গিয়ে শান্তিতে বসবাস করুক। ঐতিহ্যগতভাবে রোহিঙ্গাদের  প্রতি এ দেশের মানুষের সহানুভূতি রয়েছে।

তবে অতিরিক্ত শরণার্থীর ভার বহনের ক্ষমতা বাংলাদেশের নেই। মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের একটি প্রত্যাবাসন চুক্তি হয়েছে। সেটিকে বাস্তবায়ন করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জোরালো সমর্থন দরকার। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে বাংলাদেশের পর সম্প্রতি জাতিসংঘের সঙ্গেও মিয়ানমার চুক্তি করেছে। সেসব চুক্তির প্রতি মিয়ানমার সম্মান প্রদর্শন করুক এবং প্রত্যাবাসন দ্রুততর করতে জাতিসংঘও কার্যকর ভূমিকা পালন করুক। মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন ও নিপীড়ন বন্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সোচ্চার হতে হবে। মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগ করেই এই সংকট থেকে উত্তরণের পথ বের করতে হবে। বাংলাদেশ এখনো দ্বি-পক্ষীয় আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যার একটি স্থায়ী ও সম্মানজনক সমাধান আশা করে।