কৃষি জমিতে পানি ব্যবস্থাপনা

 কৃষি জমিতে পানি ব্যবস্থাপনা

খাওয়ার পানি নিরাপদ রাখতে নানা ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করা হলেও কৃষি জমি, মাছ, গবাদি পশু বা হাঁস মুরগির খামারে ব্যবহৃত পানি নিরাপদ কিনা সেদিকে তেমন নজর না থাকায় উদ্বিগ্ন জনস্বাস্থ্যবিদরা। তারা বলছেন ওই সব খাতে পানি নিরাপদ হলে তা খাদ্যচক্রের মাধ্যমে মানুষের শরীরে ঢুকে ভয়ানক রোগ ব্যাধির জন্ম দেয়। এ ক্ষেত্রে প্রধানত দায়ী করা হয় হেভিমেটাল বা ভারি ধাতব দ্রব্যকে। দেশে ক্যান্সার, কিডনি ও লিভারের রোগ এবং স্নায়ুবিক রোগ বাড়ার পেছনে অন্যান্য কারণের সঙ্গে জোরালো হয়ে উঠছে খাদ্য চক্রের বিষাক্ত উপাদান ছড়ানোর কারণটিও। ভারি ধাতু মিশ্রিত বিষাক্ত পানিই মূলত খাদ্যচক্রকে বিষাক্ত করছে।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, সার্বিকভাবে ভারি ধাতু গ্রহণে শরীরের বৃদ্ধি ও উন্নয়নে ব্যাঘাত, অঙ্গহানি, ক্যান্সার, স্নায়বিক দুর্বলতা বা ক্ষতিসাধন এবং কিছু ক্ষেত্রে মৃত্যু পর্যন্ত ঘটাতে পারে। কিছু ভারি ধাতু, বিশেষ করে পারদ ও শিসা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, কিডনির রোগ সহ শরীরের সঞ্চালন ও স্নায়বিক পদ্ধতিকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। তারা বলছেন, অনেক ভারি রাসায়নিক আছে যা আগুনের তাপে নষ্ট হয় না। পানি ফুটিয়ে সাধারণত জীবাণুমুক্ত করা গেলেও হেভিমেটালের দূষণমুক্ত করা যায় না। তাই খাদ্যে পানি বাহিত হেভিমেটাল পরিস্থিতি নিয়ে আরো গবেষণা ও নজরদারি জরুরি।