বিকাল ৩:৫৯, রবিবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ সিলেট

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেট নগরীতে শিা ও পরিবেশ উন্নয়নে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বারিত হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে সিলেট সার্কিট হাউজে এ সমঝোতায় স্বার করেন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শাহ মো. আমিনুল হক, সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এনামুল হাবিব এবং ভারতের পে ঢাকায় তাদের হাই কমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা।  এ সময় বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশের আর্থসামাজিক খাতে টেকসই উন্নয়নে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ২০১৩ সালে স্বারিত সমঝোতা স্মারকের বাস্তবায়ন হিসেবে এ চুক্তি স্বারিত হলো। এর আগে রাজশাহীতেও এ ধরনের সমঝোতা স্মারক স্বরিত হয়েছে।

এর আওতায় সিলেট নগরীতে একটি পাঁচতলা কিন্ডারগার্টেন, একটি উচ্চ বিদ্যালয় ভবন, পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য একটি ছয়তলা কলোনিসহ ধোপা দিঘীর পাড় এলাকায় কিছু উন্নয়ন কাজ হবে। এসব প্রকল্পে ভারত সরকার ২৪ কোটি ২৮ লাখ টাকা দেবে।এ সময় হর্ষবর্ধন শ্রিংলা বলেন, “নগরীতে পরিচ্ছন্নতা কাজে নিয়োজিতদের জন্য ভবন নির্মাণে বাংলাদেশ সরকারের উদ্যোগে আমরা খুশি। যারা আমাদের আশপাশের পরিবেশকে বাসযোগ্য রাখে তাদের প্রতি আমাদের যতœবান হওয়া উচিত।

তিনি বলেন, রাজশাহীতেও একই ধরনের টেকসই উন্নয়ন কাজের জন্য ভারত সরকার ২১ কোটি ৯৫ লাখ টাকা খরচ করবে। এ ব্যাপারে ইতিমধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বারিত হয়েছে। এছাড়া খুলনা নগরীতে উন্নয়নে তাদের সরকার ১২ কোটি ৮ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে শিগগিরই একটি সমঝোতা স্মারক স্বারিত হবে।

 

আজ বাড়ি ফিরবেন সিলেটের খাদিজা

সিলেটে ছাত্রলীগ নেতার হামলায় আহত কলেজ ছাত্রী খাদিজা আক্তার নার্গিস আজ শুক্রবার বাড়ি ফিরবেন বলে সিআরপি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে মেডিকেল সার্ভিসেস উইং এর প্রধান সাইদ উদ্দিন হেলাল এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, সিআরপিতে ভর্তির পর আট সদস্যের দল গঠন করে বিভিন্ন থেরাপি ও কাউন্সেলিংয়ের মাধ্যমে খাদিজার চিকিৎসা শুরু হয়। প্রাায় তিন মাসের চিকিৎসার পর খাদিজা এখন স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। ফলে শুক্রবার খাদিজা বাড়ি ফিরে যেতে পারবেন বলে এ চিকিৎসক জানান। গত ৩ অক্টোবর সিলেটের এমসি কলেজ কেন্দ্রে স্নাতক পরীক্ষা দিয়ে বের হয়ে হামলার শিকার হন সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের স্নাতক (পাস কোর্স) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী খাদিজা। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলমের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার মাথার খুলি ভেদে করে মস্তিষ্কও জখম হয়। হামলার পর ঢাকায় এনে স্কয়ার হাসপাতালে ৪ অক্টোবর বিকালে খাদিজার অস্ত্রোপচার করে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। পরে ১৩ অক্টোবর তার লাইফ সাপোর্ট খোলার পর ‘মাসল চেইন’ কেটে যাওয়া তার ডান হাতে অস্ত্রোপচার করা হয়। এরপর ২৮ নভেম্বরের সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতাল থেকে সিআরপিতে নেওয়া হয়। সিআরপির নিউরলজি বিভাগের ক্লিনিক্যাল ফিজিও থেরাপিস্ট সুলক্ষনা শ্যামা বিশ্বাস বলেন, খাদিজা শুরুতে ওঠা বসা ও চলাফেরায় পরিবারের উপর নির্ভরশীল ছিল।এখন সে সম্পূর্ণ নিজে নিজে চলাচলে সক্ষম। পিচ অ্যান্ড ল্যাঙ্গুয়েজ থেরাপি বিভাগের থেরাপিস্ট তাহমিনা সুলতানা বলেন, শুরুতে খাদিজার মুখের মাংস পেশি ও জিহ্বা নড়াচড়াতে দুর্বলতা থাকায় তার কথায় জড়তা ছিল।

নিয়মিত থেরাপি দেওয়া পর বর্তমানে খাদিজা স্পষ্টভাবে কথা বলতে পারে, অন্যের কথা ভালভাবে বুঝতে পারে। তার স্মৃতিশক্তি ও মনোযোগ আগের থেকে অনেক উন্নত হয়েছে। খাদিজা বলেন, ‘আমি এখন পুরোপুরি সুস্থ্। যখন সিআরপিতে আসি তখন উচ্চস্বরে কথা বলতে পারতাম না, হুইল চেয়ারে চলাফেরা করতাম। আর এখন স্বাভাবিকভাবে সব কাজ করতে পারছি।’ আবার লেখাপড়া শুরু করবেন বলে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের জানান খাদিজা। সংবাদ সম্মেলনে সিআরপির থেরাপিস্টরা ছাড়াও খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া উপস্থিত ছিলেন।

মাধবপুরে জামাইয়ের হাতে শ্বশুর খুন

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় জামাইয়ের হাতে শ্বশুর কামাল মিয়া (৫৫) খুন হয়েছেন।  শনিবার ভোরে উপজেলার রতনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কামাল মিয়া রতনপুর গ্রামের বাসিন্দা।
মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোকতাদির হোসেন  জানান, পূর্ব বিরোধের জের ধরে জামাই সাজু মিয়ার (৩০) সঙ্গে শ্বশুর কামাল মিয়ার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তাদের মারামারি হয়। এসময় সাজুর মিয়ার আঘাতে কামাল মিয়া ঘটনাস্থলেই মারা যান।

সাজার বিরুদ্ধে আপিল করেছেন রাগীব আলী

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের তারাপুর চা-বাগান দখলে ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতি মামলায় ১৪ বছরের কারাদ-ের বিরুদ্ধে আদালতে আপিল আবেদন দাখিল করেছেন ব্যবসায়ী রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাই। আসামিদের আইনজীবীরা  বৃহস্পতিবার সিলেট মহানগর দায়রা জজ আকবর হোসেন মৃধার আদালতে এ আবেদন দাখিল করেন বলে জানান পিপি মফুর আলী। তিনি বলেন, আগামী ৮ মার্চ আপিল গ্রহণের বিষয়ে শুনানির দিন ঠিক করেছে আদালত।

গত দুই ফেব্রুয়ারি সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরো দন্ডবিধির চারটি ধারায় রাগীব আলী ও তার ছেলেকে মোট ১৪ বছরের কারাদন্ডাদেশ দেন। রাগীব আলী ও আবদুল হাইকে দন্ডবিধির ৪৬৬ ধারায় ছয় বছর, ৪৬৮ ধারায় ছয় বছর, ৪৭২ ধারায় এক বছর ও ৪২০ ধারায় এক বছরের কারাদন্ডাদেশ দেওয়া হয়। পিপি মফুর বলেন, আপিল আবেদন দাখিলের পাশাপাশি তাদের জামিন আবেদনও করা হয়। শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে আদেশ দিয়েছেন।

পাথর কোয়ারিতে নিহতের ঘটনায় হত্যা মামলা, গ্রেফতার ২

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটে ঝুঁকিপূর্ণ কোয়ারিতে পাথর উত্তোলনের কাজে লাগিয়ে তিন শ্রমিক হত্যা ও লাশ গুম চেষ্টার অভিযোগে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাতে গোয়াইনঘাট থানা পুলিশ বাদি হয়ে ৫ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। আসামিরা হলেন- পাথর ব্যবসায়ী বিছানাকান্দির বাছির মিয়া, আজাদ মিয়া, কামাল হোসেন, চট্টগ্রামের জাহিদ মিয়া ও লক্ষ্মীপুরের রাজু মিয়া ওরফে জাহিদ হাসান।

গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেলোয়ার হোসেন  এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, আসামিদের মধ্যে জাহিদ মিয়া ও রাজু মিয়া ওরফে জাহিদ হাসানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টায় বিছনাকান্দি কুলুমছড়া পাথর কোয়ারিতে ঝুকিঁপূর্ণ গর্তে পাথর উত্তোলনকালে মাটিচা পড়ে তিন শ্রমিক নিহত হন। নিহতরা হলেন- সুনামগঞ্জ সদরের গুলেরগাঁওয়ের জাকির হোসেন (২০) ও তোলা মিয়া (২৫), নেত্রকোনার খালিয়াজুড়ি এলাকার পরিমল (৩২)। কিন্তু কোয়ারি মালিক রাতেই গুম করার উদ্দেশ্যে মরদেহ সরিয়ে ফেলেন। পরে তাদের মরদেহ উদ্ধারের পর স্ব স্ব জেলা সদর হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে শনিবার নিহত শ্রমিকদের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ।

সিলেটে আবার মাটিচাপায় তিন শ্রমিক নিহত


সিলেট প্রতিনিধি : তিন সপ্তাহর মধ্যে সিলেটে আবারও পাথর তোলার সময় মাটিচাপায় তিন শ্রমিকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। গোয়াইনঘাট থানার ওসি দেলোয়ার হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার রাত আড়াইটার দিকে বিছানাকান্দি পাথর কোয়ারির বাদেপাশায় তিনজন মাটিচাপা পড়েন। পুলিশ তাদের নাম-পরিচয় জানাতে পারেনি। গত ২৩ জানুয়ারিও সিলেটে একইভাবে পাঁচ শ্রমিকের মৃত্যু হয়।

 

ওসি দেলোয়ার  বলেন, বাদেপাশা খেয়াঘাট সংলগ্ন বাছিত মিয়ার মালিকানাধীন গর্ত থেকে রাতের আঁধারে অবৈধভাবে পাথর তুলছিল স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র। এ সময় মাটি ধসে পড়লে তিন শ্রমিক মারা যান বলে খবর আসে। পাথরখেকোরা প্রাণহানির ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য শ্রমিকদের লাশ রাতের আঁধারেই সরিয়ে ফেলেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে জানিয়ে ওসি বলেন, ‘আমরা লাশ উদ্ধারে কাজ শুরু করেছি।’ এর আগে গত ২৩ জানুয়ারি সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার শাহ আরপিন টিলায় একইভাবে গর্ত করে পাথর তোলার সময় মাটিচাপায় পাঁচ শ্রমিকের মৃত্যু হয়। তাদের তিনজনের লাশ প্রভাবশালীরা সরিয়ে ফেলে। পরে নেত্রকোনা থেকে উদ্ধার করা হয়।

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য উদাহারণ: প্রধান বিচারপতি

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য উদাহারণ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। তিনি বলেন, এ দেশে গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত থাকবে।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটায় হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার জয়পুরে শ্রী শ্রী শচী অঙ্গন ধামে আয়োজিত চার দিনব্যাপী ৩৬তম বার্ষিক মহোউৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। অধ্যাপক নিখিল ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য এম এ মুনিম চৌধুরী বাবু, জেলা প্রশাসক (ডিসি) সাবিনা আলম ও পুলিশ সুপার (এসপি) জয়দেব কুমার ভদ্র প্রমুখ।

লাখাইয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে যুবক নিহত

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার বামৈ গ্রামে রাস্তা নির্মাণকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে সাগর মিয়া (২৬) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় অভিযান চালিয়ে তানভির (২৮) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাতে বামৈ গ্রামের মুক্তার হোসেনের সঙ্গে বাড়ির রাস্তা নির্মাণকে কেন্দ্র করে একই গ্রামের তানভীর ও তার মা মিতফুল বেগমের বাকবিত-া হয়। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় প্রতিপক্ষের লাঠির আঘাতে সাগর গুরুতর আহত হন। এ অবস্থায় স্থানীয়রা সাগরকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোজাম্মেল হক  জানান, খবর পেয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

‘সুরঞ্জিতদাকে’ শেষ শ্রদ্ধা সিলেটবাসীর

প্রবীণ রাজনীতিবিদ আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছে সিলেটবাসী।

সোমবার বেলা ১১টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এই শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে সমবেত হাজারো মানুষের মধ‌্যে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও প্রশাসনের জ‌্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা যেমন ছিলেন, তেমনি এসেছিলেন বিএনপি নেতারাও।

জাতীয় সংসদে সাতবার সুনামগঞ্জের মানুষের প্রতিনিধিত্ব করা সুরঞ্জিত পুরো সিলেট অঞ্চলেই রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের কাছে পরিচিত ছিলেন ‘দাদা’ হিসেবে।

আইন, বিচার ও সংসদ-বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত রোববার ভোর রাত ৪টা ১০ মিনিটে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। বিকালে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় তার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় হেলিকপ্টারে করে ঢাকা থেকে সিলেটে নিয়ে আসা হয় সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মরদেহ। পরে শহীদ মিনারে তার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান তার রাজনৈতিক সহকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ।

চীফ হুইপ আসম ফিরোজ, সরকারি দলের হুইপ শাহাব উদ্দিন, সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, পঙ্কজ দেবনাথ, মজিদ খান, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, আহমদ হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা রফিকুল ইসলাম, সিলেট জেলা পরিষদের চেয়ারম‌্যান লুৎফুর রহমান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান এবং বরখাস্ত মেয়র বিএনপি নেতা আরিফুল হক শহীদ মিনারে এসেছিলেন ‘দাদার প্রতি’ ‌শ্রদ্ধা জানাতে।

পঙ্কজ দেবনাথ বলেন, “একজন অসাস্প্রদায়িক রাজনীতিবিদকে হারানোর পর সিলেটসহ দেশে যে সংকট তৈরি হল, তা সহসা পূরণ হবে না।”

মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, “তার মৃত্যুতে দেশ রাজনীতির এক দিকপালকে হারাল। দেশের যে কোনো সংকটে দূরদর্শী ভূমিকা রাখার যে গুণাবলী, তা তার মধ‌্যে ছিল।”

সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন, সিলেট জেলা প্রশাসন, সিটি করপোরেশন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক সংগঠনের নেতারা ফুল দিয়ে এই রাজনৈতিক নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ছেলে সৌমেন সেনগুপ্তও উপস্থিত ছিলেন সিলেট শহীদ মিনারে।

সত্তরের প্রাদেশিক পরিষদে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ছিলেন অন্যতম কনিষ্ঠ সদস্য; দেশের প্রথম সংবিধান প্রণয়ন কমিটির এ সদস্য নবম সংসদে পঞ্চদশ সংবিধান সংশোধন কমিটির কো-চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি।

এক ঘণ্টার শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানের পর বেলা ১২টায় সিলেট থেকে সুরঞ্জিতের কফিন নিয়ে সুনামগঞ্জের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয় একটি অ‌্যাম্বুলেন্স।

সুনামগঞ্জ থেকে মরদেহ নেওয়া হবে প্রয়াত এই সংসদ সদস‌্যের নির্বাচনী উপজেলা শাল্লায়। পরে জন্মস্থান দিরাইয়ে তার শেষকৃত্য হবে।

 

সিলেটে রাগীব আলীর বিরুদ্ধে রায় আজ

সিলেট প্রতিনিধি : ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতির ঘটনায় শিল্পপতি রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে করা মামলার রায় দেয়া হবে আজ বৃহস্পতিবার।  বুধবার সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরোর আদালত শুনানি শেষে এই রায়ের দিন ধার্য করে। এ মামলায় একটি চা বাগানের জমি আত্মসাতের জন্য ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক (চিঠি) জাল করার অভিযোগ আনা হয়েছে রাগীব আলী ও তার ছেলের বিরুদ্ধে। ৭৮ বছর বয়সী রাগীব আলী বেসরকারি সাউথইস্ট ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান। ওই ব্যাংকের ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, চা বাগান থেকে শুরু করে আর্থিক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা ও মিডিয়াতে ছড়িয়ে আছে তার ব্যবসা। সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, চা বাগানের ব্যবসার লাভের কিছু অংশ দান করে রাগীব আলী সিলেটে ‘দাতা’র খ্যাতি পান। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রেখে ‘শিক্ষানুরাগী’ নামও কুড়ান।

গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির পর সিলেটের এই ধনাঢ্য ব্যক্তি পালিয়ে ভারতে চলে গেলেও গতবছর শেষদিকে তাকে ফিরিয়ে এনে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। এ আদালতের অতিরিক্ত পিপি মাহফুজুর রহমান জানান, গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। ১১ জনের সাক্ষ্য ও জেরার পর শুরু হয় যুক্তিতর্ক।  বুধবার দুপুরে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণা হবে বলে আদেশ দেন। তারাপুর চা বাগান নিয়ে অভিযোগ ওঠার পর ১৯৯৯ সালে ভূমি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি রাগীব আলীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে। ২০০৫ সালে ভূমি মন্ত্রণালয় ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক (চিঠি) জালিয়াতি ও প্রতারণার অভিযোগে কোতোয়ালি থানায় দুটি মামলা করে। এর বিরুদ্ধে রাগীব আলী উচ্চ আদালতে গেলে দীর্ঘদিন পর চলতি বছরের শুরুতে তার নিষ্পত্তি হয়। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ গত ১৯ জানুয়ারি রাগীব আলীর বিরুদ্ধে মামলা পুনরায় চালুর নির্দেশ দেয়। সেই সঙ্গে তারাপুর চা-বাগান দখল করে গড়ে ওঠা সব স্থাপনা ছয় মাসের মধ্যে সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়। ওই আদেশের পর ১৫ মে চা-বাগানের বিভিন্ন স্থাপনা ছাড়াও ৩২৩ একর ভূমি সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্তকে বুঝিয়ে দেয় জেলা প্রশাসন। মামলা হওয়ার ১১ বছর পর সিলেটে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবি আই) অতিরিক্ত সুপার সারোয়ার জাহান গত ১০ জুলাই ওই দুই মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেন। এর মধ্যে ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক (চিঠি) জালিয়াতির মামলায় রাগীব আলী ও তার ছেলেকে আসামি করা হয়। আর প্রতারণা মামলায় রাগীব আলী, তারাপুর চা-বাগানের সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্ত, রাগীব আলীর আত্মীয় মৌলভীবাজারের রাজনগরের বাসিন্দা দেওয়ান মোস্তাক মজিদ, রাগীব আলীর ছেলে আবদুল হাই, জামাতা আবদুল কাদির ও মেয়ে রুজিনা কাদিরকে আসামি করা হয়।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, ৪২২ দশমিক ৯৬ একর জমির ওপর গড়ে ওঠা তারাপুর চা-বাগান পুরোটাই দেবোত্তর সম্পত্তি। ১৯৯০ সালে ভুয়া সেবায়েত সাজিয়ে বাগানটির দখল নেন রাগীব আলী। ওই দুই মামলায় গত ১০ আগস্ট রাগীব আলী ও তার একমাত্র ছেলে আবদুল হাইসহ ছয় জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে সিলেটের আদালত। ওই দিনই জকিগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে সপরিবারে ভারতে পালিয়ে যান তিনি। গতবছর ১২ নভেম্বর ভারত থেকে বাংলাদেশে ফেরার পথে রাগীব আলীর ছেলে আব্দুল হাইকে গ্রেপ্তার করে জকিগঞ্জ ইমিগ্রেশন পুলিশ। ভিসার মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ায় লুকিয়ে দেশে ফেরার চেষ্টার সময় ২৪ নভেম্বর ভারতে গ্রেপ্তার হন রাগীব আলী। ওই দিনই তাকে দেশে এনে কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিচার। রাগীব আলীর স্মারক জালিয়াতি মামলা বিচার কার্যক্রম শেষে রায়ের পর্যায়ে এলেও তার বিরুদ্ধে ভূমি আত্মসাতের মামলায় এখনো সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়নি। এ মামলার আসামিদের মধ্যে রাগীব আলী, আবদুল হাই ও মোস্তাক মজিদ আটক রয়েছেন। জামিনে আছেন সেবায়েত পঙ্কজ কুমার গুপ্ত। আর রাগীবের জামাতা আবদুল কাদির ও মেয়ে রুজিনা পলাতক।

 

মৌলভীবাজারে ১২ নারী পকেটমার আটক

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় ১২ ছদ্মবেশধারী নারী পকেটমার আটক করেছে পুলিশ। শ্রীমঙ্গল থানার ওসি কে এম নজরুল ইসলাম জানান, উপজেলার ভুনবীর ইউনিয়নের রোস্তমপুর গ্রামের  তমালতলা মন্দির প্রাঙ্গণ থেকে মঙ্গলবার সন্ধ্যার একটু আগে তাদের আটক করা হয়। ভুনবীর ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য দক্ষিণারঞ্জন বিশ্বাস বলেন, তমালতলা মন্দিরে হরিনাম কীর্তন উৎসব চলছিল। এ সময় এক হরিভক্ত নারীর গলা থেকে সোনার চেইন নেওয়ার চেষ্টা করেন এক তরুণী, কিন্তু অন্য ভক্তরা তাকে হাতেনাতে ধরে ফেলেন। পরে নারী ছিনতাইকারী চক্রের আরও ১২ জনকে আটক করে পুলিশে দেওয়া হয়। আটক একজনের সঙ্গে দুই বছরে একটি মেয়ে, একজনের সঙ্গে দেড় বছরের একটি মেয়ে, আরেকজনের সঙ্গে আট মাসের একটি ছেলে রয়েছে। ওসি নজরুল বলেন, তারা এর আগেও মন্দিরে ঢুকে সোনার চেইন ছিনতাইকালে আটক হয়েছিল। তাদের সবার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে।

সিলেটে ছাত্রদলের মিছিলে ছাত্রলীগের ধাওয়া

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে ছাত্রদলকে মিছিল করতে দেয়নি ছাত্রলীগ।  সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নবগঠিত ছাত্রদলের কলেজ শাখা মিছিল করার জন্য ক্যাম্পাসে প্রস্তুতি নিলে ছাত্রলীগের একদল কর্মী প্রকাশ্যে দা ও রড উঁচিয়ে ধাওয়া করে তাদের ক্যাম্পাসছাড়া করে।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের ভাষ্য, সম্প্রতি এমসি কলেজ ও সরকারি কলেজে ছাত্রদলের নতুন কমিটি হয়। সকাল ১০টার দিকে সরকারি কলেজ কমিটি নিজেদের ক্যাম্পাসে মিছিল করে। এরপর ওই মিছিলে নেতৃত্ব দেওয়া ছাত্রদলের সাবেক ও বর্তমান নেতাদের একটি পক্ষ পাশের এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে ঢোকার চেষ্টা করলে ছাত্রলীগের বাধার মুখে পড়ে। এ সময় এমসি কলেজে ছাত্রদলের নতুন কমিটির ব্যানারে মিছিল করার প্রস্তুতি চলছিল। কিন্তু ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা তাদেরও প্রকাশ্যে দা, রডসহ দেশীয় অস্ত্র উঁচিয়ে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস ছাড়া করেন। এমসি কলেজ ছাত্রদলের সভাপতি বদরুল আজাদ রানা বলেন, ছাত্রদলের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশের উপস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা হামলার চেষ্টা করেছেন। অন্যদিকে, এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে থাকা ছাত্রলীগের জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক কামরুল ইসলাম দাবি করেন, বহিরাগতদের নিয়ে এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে ঢুকে ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছিলেন। এ খবর পেয়ে বহিরাগতদের কলেজ ক্যাম্পাসের বাইরে থেকেই ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে ধাওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। তবে পুলিশের উপস্থিতিতে এ ধাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন শাহপরান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজাহান মুন্সি। তিনি বলেন, প্রধান ফটকসহ ক্যাম্পাসে সব সময়ই পুলিশ থাকে। এ ঘটনার পর অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 

ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সংযোগ ৪ সপ্তাহে

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : বাংলাদেশে ব্যবসার পরিবেশের উন্নতি ঘটাতে বাণিজ্িযক প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার সময় এক ধাক্কায় ২৮ দিনে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। হবিগঞ্জের বাহুবলে শনিবার বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) এক কর্মশালায় বিদ্যুৎ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব আহমদ কায়কাউসকে নতুন সংযোগের আবেদন করা উদ্যোক্তাদের চার সপ্তাহের মধ্যে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার প্রতিশ্রতি দেন।

বিশ্ব ব্যাংকের ‘ব্যবসায় পরিবেশ সূচক’ প্রকাশ করে গতবছর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে গড়ে সময় লাগে ৪২৮ দশমিক ৯ দিন। আর যে টাকা খরচ হয়, তা মাথাপিছু আয়ের ২৮৬০ দশমিক ৯ শতাংশের সমান। সর্বশেষ সূচকে ১৯০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান দেখানো হয়েছে ১৭৬ নম্বরে। কেবল যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান ছাড়া সার্কভুক্ত সব দেশের অবস্থানই বাংলাদেশের উপরে। মোট ১১টি ক্ষেত্রের পরিস্থিতি বিবেচনা করে তৈরি এ সূচকে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রাপ্তির সুযোগের দিক দিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান আরও পেছনে, ১৮৭ নম্বরে। ২০২১ সালের মধ্যে এই সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ৭৬ ধাপ এগিয়ে কী করে প্রথম ১০০ দেশের তালিকায় আনা যায়, তার কর্মপরিকল্পনা সাজাতে এই কর্মশালার আয়েজন করেছে বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা হবিগঞ্জের একটি রিসোর্টে এই কর্মশালায় অংশ নিচ্ছেন।

বিডার এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বিদ্যুৎ সচিব বলেন, এই কর্মশালা তাদের ‘চোখ খুলে’ দিয়েছে। ব্যবসা করার ক্ষেত্রে আমাদের এখানে এতো অসুবিধা, তা আগে আমরা বুঝিনি। এখানে এসে আলোচনা ও হিসাব করে আমরা দেখলাম, বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার সময় আমরা ২৮ দিনে কমিয়ে আনতে পারি। ঢাকা গিয়েই আমরা এর বাস্তবায়নে কাজ শুরু করব। কর্মশালার সঞ্চালক বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম বিদ্যুৎ সচিবের ঘোষণাকে সাধুবাদ দিয়ে বলেন, এতে একটি ইতিবাচক পরিবর্তনের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। বিদ্যুৎ সচিব অবশ্য বলেছেন, তিনি যে ২৮ দিন সময়ের কথা বলেছেন, তার গণনা শুরু হবে আবেদনকারীর সব কাগজপত্র পাওয়ার পর। এ জন্য আবেদনকারীদের প্রয়োজনীয় সব কাগজপত্র আগেই জমা দিতে বলেন তিনি। বিডার উদ্যোগের পর সংযোগ দেওয়ার সময় ৯৫ ভাগ কমিয়ে আনা যাবে বলে আশা প্রকাশ করলেও বাংলাদেশের বিদ্যুৎ সংকটের কথাও স্মরণ করিয়ে দেন তিনি। তিনি বলেন, চাহিদার তুলনায় সরবরাহে এখনও ‘বিশাল ঘাটতি’ রয়েছে।

সিলেটে টিলা ধস শ্রমিক নিহতের ঘটনা তদন্তে দুই কমিটি

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে পাথর তোলার সময় টিলা ধসে চার শ্রমিক নিহতের ঘটনা তদন্তে দুইটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুজ্ঞান চাকমা জানান, সোমবার রাতে পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তিনি বলেন, পুলিশের তিন সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল হাসনাতকে। এ কমিটিকে পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। আর জেলা প্রশাসনের পক্ষে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাসিস্ট্রেট আবু সাফায়াৎ মুহম্মদ শাহেদুল ইসলাম ঘটনার তদন্ত করবেন বলে জেলা প্রশাসক জয়নাল আবেদীন জানান। তিনি জানান, দুই দিনের মধ্যে শাহেদুলকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 

অন্যের হয়ে জেল খাটা ভুট্টোই এখন আসামি

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটে টাকার বিনিময়ে অন্যের হয়ে জেল খাটা রিপন আহমদ ভুট্টো এখন নিজেই আসামি।  সোমবার দুপুরে ভুট্টোসহ চারজনের বিরুদ্ধে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার সগির মিয়া বাদী হয়ে প্রতারণার মামলা করেছেন বলে জানিয়েছেন সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি সোহেল আহমদ।
মামলায় টাকার লোভে স্বেচ্ছায় বদলি সাজা ভোগকারী ভুট্টো ছাড়াও আইনজীবী শাহ আলম, শিক্ষানবিশ আইনজীবী ও মূল আসামি ইকবাল হোসেন বকুলের ভাই শামীম আহমেদ এবং বিআরটিএ অফিসের দালাল লিয়াকত হোসেনকে আসামি করা হয়েছে। বদলি সাজা ভোগের ঘটনা জানাজানির পর একটি হত্যায় যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত আসামি বকুলের হয়ে ভুট্টো দুই বছর ধরে সাজা খাটছিলেন বলে বিচার বিভাগীয় তদন্তে প্রমাণ মিলেছে। তদন্তে প্রমাণের পর রোববার তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করতে নির্দেশ দেন সিলেটের জেলা ও দায়রা জজ মনির আহমদ পাঠোয়ারী। ওই কমিটির প্রধান সিলেটের মুখ্য বিচারিক হাকিম কাজী আব্দুল হান্নান বলেন, সেইসঙ্গে রিপনকে হত্যামামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে মূল আসামি বকুলকে গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত বকুলের বদলি হয়ে এসে বন্দি হন রিপন। পরে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নিদের্শ দেওয়া হয়। তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রিপন টাকার লোভে স্বেচ্ছায় বদলি সাজা ভোগ করছেন। তাকে প্ররোচিত করেন অন্য তিনজন। সিলেটের সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নের চানপুর গ্রামের আলোচিত আলী আকবর সুমন হত্যা মামলার আসামি ছিলেন বকুল, যার হয়ে সাজা খাটছিলেন ভুট্টো। মূল আসামি বকুল বর্তমানে সৌদি আরবে রয়েছেন বলে জানান হাকিম আব্দুল হান্নান। ২০১২ সালের ২০ জুন সুমন হত্যা মামলার রায় দেন সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক দিলীপ কুমার দেবনাথ। মামলায় অভিযোগপত্রভুক্ত নয় আসামির মধ্যে বকুলসহ তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয়। বকুল (২৬) সদর উপজেলার হাউসা গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে। তার সঙ্গে দন্ডিত অন্য দুজন দরাছ মিয়া ওরফে গয়াছ (৩৪) ও তার স্ত্রী রুজিনা বেগমও (৩২) একই গ্রামের।

 

সিলেটে টিলা ধসে দুই শ্রমিক নিহত

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে পাথর উত্তোলনের সময় টিলা ধসে দুই শ্রমিক নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছে পুলিশ।  সোমবার সকাল ১০টার দিকে শাহ আরপিন সংলগ্ন মটিয়া টিলায় একটি গর্ত খুঁড়ে পাথর উত্তোলনের সময় টিলা ধসে ঘটনাস্থলেই দুই শ্রমিকের মৃত্যুর খবর পেয়েছেন বলে জানান সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুজ্ঞান চাকমা।

স্থানীয়রা এ ঘটনায় নেত্রকোণার পূর্বধলা উপজেলার আল হাদি (৩৬) ও আব্দুল কাদিরের (৩৫) মারা যাওয়ার খবর জানালেও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কারো লাশ পায়নি বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা। তাছাড়া সে সময় আরও চারজন আহত হওয়ার খবর পাওয়া যায় বলে জানালেও তাদের পরিচয়ও জানাতে পারেনি পুলিশ। এ ব্যাপারে সুজ্ঞান চাকমা বলেন, এলাকাটি দুর্গম হওয়ায় পুলিশের ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে দেরি হয়। ফলে তারা গিয়ে কারো লাশ পায়নি। আর আহতরাও কোনো হাসপাতালে ভর্তি হয়নি। তবে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে রফিক নামে এক আহত শ্রমিকের সন্ধান পান এ প্রতিনিধি। সেখানে চিকিৎসাধীন রফিক  বলেন, সকালে ওই টিলার কাছে ১৫ থেকে ২০ জন শ্রমিক পাথর তোলার কাজ করছিল। এ সময় টিলা ধসে পড়লে তিনিসহ বেশ কয়েকজন আহত হন। পরে অন্যন্য শ্রমিকদের সহায়তায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়ে জানান তিনি। কেউ মারা গেছে কি না জানতে চাইলে রফিক বলেন, এ ঘটনায় ৩/৪ জন শ্রমিক মারা গেছে বলে শুনেছি। যারা আহত হয়েছে তাদের অনেকে হাসপাতালে চিকিৎসাও নিয়েছে। তবে শ্রমিকদের লাশ বা আহত শ্রমিকরা কোথায় আছে সে বিষয়ে তার কাছে কোনো তথ্য নেই বলে রফিক জানান।

অন্যের হয়ে জেল খেটে এখন নিজেই হচ্ছেন আসামি

সিলেট প্রতিনিধি : টাকার লোভে আরেকজনের সাজা খাটতে গিয়ে ধরা পড়ে এখন নিজেই মামলার আসামি হচ্ছেন সিলেটের রিপন আহমেদ ভুট্টো। রিপনের বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করতে গতকাল রোববার নির্দেশ দিয়েছে সিলেটের একটি আদালত। এই মামলায় দোষি সাব্যস্ত হলে নিজের দন্ডই খাটতে হবে তাকে। রিপন একটি হত্যামামলার আসামি ইকবাল হোসেন বকুলের হয়ে দুই বছর ধরে সাজা খাটছিলেন বলে বিচার বিভাগীয় তদন্তে প্রমাণ মিলেছে।
এই প্রতারণার জন্য  রিপনের সঙ্গে আসামি বকুলের ভাই ও শামীম আহমেদ, আইনজীবী শাহ আলম এবং বিআরটিএ অফিসের দালাল লিয়াকত হোসেনের বিরুদ্ধেও মামলা করতে জেল সুপারকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। ওই তদন্ত কমিটির প্রধান সিলেটের মুখ্য বিচারিক হাকিম কাজী আব্দুল হান্নান জানান, জেলা ও দায়রা জজ মনির আহমদ পাঠোয়ারী তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রতারণার এই মামলা দায়েরের নির্দেশ দেন। আইনের সঙ্গে প্রতারণা করায় আইনজীবী শাহ আলম ও শিানবিশ আইনজীবী শামীম আহমেদের বিরুদ্ধে আইনজীবী সমিতিকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে রিপনকে হত্যা মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে মূল আসামি ইকবাল হোসেন বকুলকে গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। আদালত চত্বর এবং জেলা প্রশাসন অফিসের আশেপাশে থাকা দালালদের নির্মূল করতে জেলা প্রশাসকসহ অন্যান্য সংস্থাকে নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর রিপনের বিষয়টি তদন্তে সিলেটের মুখ্য বিচারিক হাকিম কাজী আব্দুল হান্নানকে প্রধান করে বিচার বিভাগীয় কমিটি গঠন করা হয়। গত মঙ্গলবার তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করে। গণমাধ্যকমের খবর অনুযায়ী, সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন দ-প্রাপ্ত বকুলের বদলি হয়ে এসে বন্দি হন রিপন। টাকার বিনিময়ে রিপনের জেলে যাওয়ার বিষয়টির প্রমাণ পেয়েছেন বলে জানান তদন্ত কমিটি প্রধান আব্দুল হান্নান। তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রিপন টাকার লোভে স্বেচ্ছায় বদলি সাজা ভোগ করছেন। তাকে প্ররোচিত করেন অন্যজ তিনজন। সিলেটের সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়নের চানপুর গ্রামের আলোচিত আলী আকবর সুমন হত্যা মামলার আসামি ছিলেন বকুল, যার হয়ে সাজা খাটছিলেন ভুট্টো। মূল আসামি বকুল বর্তমানে সৌদি আরবে রয়েছেন বলে জানান হাকিম আব্দুল হান্নান। ২০১২ সালের ২০ জুন সুমন হত্যা মামলার রায় দেন সিলেটের দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক দিলীপ কুমার দেবনাথ। মামলায় অভিযোগপত্রভুক্ত নয় আসামির মধ্যে বকুলসহ তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয়। বকুল (২৬) সদর উপজেলার হাউসা গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে। তার সঙ্গে দন্ডিত অন্যা দুজন দরাছ মিয়া ওরফে গয়াছ (৩৪) ও তার স্ত্রী রুজিনা বেগমও (৩২) একই গ্রামের।

 

সিলেটে প্রবাসীর ছেলেকে কুপিয়ে জখম

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের জকিগঞ্জে আহমদ হোসেন (২২) নামে এক প্রবাসীর ছেলেকে কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপরে লোকজন। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টায় এই ঘটনা ঘটে। আহত হোসেন জামুরাইল গ্রামের প্রবাসী আব্দুল জলিলের ছেলে। হোসেনের চাচা আব্দুশ শহিদ  বলেন, হোসেনকে তার চার চাচা আব্দুল লতিফ, আব্দুল বাসিত, আব্দুল মুনিম ও আব্দুল হাসিব ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে পুকুর পাড়ে ফেলে দেয়। ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে জকিগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। রাত ১২টার দিকে তার কয়েক দফা অস্ত্রোপচার করা হয়েছে বলে হাসপাতাল থেকে জানিয়েছেন শহিদ। চিকিৎসকের বরাত দিয়ে শহিদ বলেন, হোসেনের মাথায়, হাতে, পায়ে ও পিঠে ধারালো দায়ের কোপের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। জকিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান হাওলাদার বলেন, আহত হোসেনকে অ্যাম্বুলেন্সে সন্ধ্যায় সিলেট ওসমানী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামি ধরতে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়েছে। তবে পুলিশের অবস্থান টের পেয়ে ঘরে তালা দিয়ে আসামিরা পালিয়ে যায়। আসামিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান ওসি।

সিলেটে কলেজছাত্রী ঝুমাকে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় প্রধান আসামি বাহার গ্রেফতার

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলায় কলেজছাত্রী ঝুমা আক্তারকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জকিগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে মির্জার চক এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আটক বাহার উদ্দিন (২২) উপজেলার রসুলপুর গ্রামের আব্দুল গফুরের ছেলে। এ ঘটনায় বাহারের বড় ভাই নাসির উদ্দিনকেও (৩৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার নাসিরকে তিন দিন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের অনুমতি পেয়েছে পুলিশ। উপজেলার ইছামতী ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ঝুমা আক্তার রোববার সকালে বাড়ি থেকে বের হয়ে গ্রামের পথে হামলার শিকার হন। তিনি একই উপজেলার রসুলপুর গ্রামের মুসলিম উদ্দিনের মেয়ে। হামলার ঘটনায় সোমবার রাতে ঝুমার মা করিমা বেগম বাদী হয়ে মামলা করেন। ওসি হাবিবুর  বলেন, মামলায় ছুরিকাঘাতকারী হিসেবে বাহার উদ্দিনকে প্রধানসহ আরও তিন-চারজনকে আসামি করা হয়েছে। ঝুমার মায়ের অভিযোগ, ‘বাহার তিন বছর ধরে ঝুমাকে উত্ত্যক্ত করে আসছে। সম্প্রতি বিয়ের প্রস্তাব দিলে ঝুমা রাজি না হওয়ায় এই হামলার ঘটনা ঘটায়।’ ঝুমাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। হাসপাতালের চিকিৎসক মাসুদ হোসেন জানিয়েছেন, ঝুমার অবস্থা উন্নতির দিকে। তিনি এখন আশঙ্কামুক্ত।

সিলেটে কলেজছাত্রীকে কোপানোর ঘটনায় মামলা

সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার মানিকপুরের রসুলপুর গ্রামে কলেজছাত্রী ঝুমাকে (১৮) কোপানোর ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত সোমবার রাতে বখাটে বাহারকে প্রধান আসামি করে জকিগঞ্জ থানায় মামলাটি দায়ের করেন ঝুমার মা করিমা বেগম। মামলায় বাহার ছাড়াও আরও ৩-৪ জনকে আসামি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জকিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাবিবুর রহমান হাওলাদার। প্রসঙ্গত, বিয়ানীবাজার কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী ঝুমা আক্তার সুমাকে গত রোববার কুপিয়ে আহত করে বাহার। ঝুমা বর্তমানে ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

কমার্স ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদেও পরিবর্তন আসছে: অর্থমন্ত্রী

সিলেট প্রতিনিধি: ইসলামী ব্যাংকের পর এবার কমার্স ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদেও পরিবর্তন আনা হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ।
সোমবার দুপুরে সিলেটের লাক্কাতুরা চা বাগানে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা জানান। অর্থমন্ত্রী বলেন, ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে পরিবর্তন এসেছে। এখন কমার্স ব্যাংকে পরিবর্তন আসবে। মালিকানা, পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় কয়েক ধাপে পরিবর্তন আনার মধ্যেএ গত বৃহস্পতিবার ইসলামী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ২৪০তম সভায় শীর্ষ পদে বড় পরিবর্তন আনা হয়। এর মধ্যে সিলেটে এ অনুষ্ঠানে কমার্স ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদে পরিবর্তনের কথা জানালেন অর্থমন্ত্রী। দেশে এবার রেকর্ড পরিমাণ ৮৫ লাখ কিলোগ্রাম চা উৎপাদন হয়েছে; যা দেশের চাহিদার সমতুল্য বলে জানান তিনি। অর্থমন্ত্রী বলেন, এখন আমরা দেখছি এটা কোনো কারণে হয়েছে; না কি রিয়েল ইমপ্রুভমেন্ট। তাই বিদেশ থেকে চা আমদানি এখনই বন্ধ করা যাবে না। এ উৎপাদন সাস্টেইনেবল হলে বিদেশ থেকে চা আমাদানি করা হবে না। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি একে আব্দুল মোমেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রামভজন কৈরী ও বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন সিলেট ভ্যালী কার্যকরী পরিষদের সভাপতি রাজু গোয়ালা প্রমুখ।

সাক্ষ্য দিতে আদালতে যাচ্ছেন না খাদিজা

সিলেট প্রতিনিধি : শারীরিক অবস্থা অবনতি হওয়ায় সাক্ষ্য দিতে আজ রোববার আদালতে হাজির হচ্ছেন না সিলেটে ছাত্রলীগ নেতার হামলায় আহত কলেজছাত্রী খাদিজা বেগম নার্গিস। সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে সাক্ষ্য দেওয়ার কথা থাকলেও সাভার সিআরপিতে চিকিৎসাধীন খাদিজার শারীরিক অবস্থা অবনতি হওয়ায় আদালতে হাজির হবেন না বলে জানিয়েছেন তার চাচা আব্দুল কুদ্দুস। তিনি বলেন, খাদিজার মাথায় পানি জমে যাওয়া ও বাম পা এখনও অবশ থাকায় মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে সিলেট আনা হবে না।

গত ১৫ ডিসেম্বর খাদিজা হত্যা চেষ্টা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে খাদিজাকে সাক্ষ্য দিতে রোববার (৮ জানুয়ারি) আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরো। আলোচিত এ মামলায় ৩৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ইতোমধ্যে ৩৩ জনের সাক্ষ্য নেওয়া হয়েছে। আদালত খাদিজার সাক্ষ্য নিয়ে এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করবে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পিপি মাহফুজুর রহমান। গত ২৯ নভেম্বর আদালতে ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলমের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে  এ মামলার বিচার কাজ শুরু হয়। গত ৫ ডিসেম্বর শুরু হয় সাক্ষ্যগ্রহণ। সিলেটের এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে গত ৩ অক্টোবর খাদিজাকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলম। এ ঘটনায় পরদিন খাদিজার চাচা আব্দুল কুদ্দুস বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় মামলা করেন। গত ৮ নভেম্ব^র ছাত্রলীগ নেতা বদরুলকে একমাত্র আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ।

ভূমিকম্পে মৌলভীবাজারে জমি ফেটে পানি- বালি

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : ত্রিপুরার ভূমিকম্পে মৌলভীবাজারে শতাধিক ভবনে ফাটল দেখা দিয়েছে, ভেঙে গেছে অসংখ্য মাটির দেয়াল ও সীমানা প্রাচীর; বিভিন্ন জায়গায় জমি ফেটে বেরিয়ে এসেছে পানি ও বালি-কাদা। দেয়াল ধসে, ভবনের ইট পড়ে ও বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।   

মঙ্গলবার বিকাল ৩টা ৯মিনিটে ওই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল ঢাকা থেকে ১৭০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্ব এবং আগরতলা থেকে ৭৬ কিলোমিটার পূর্বে। উপকেন্দ্র ছিল ত্রিপুরার আম্বাসা এলাকায়, ভূপৃষ্ঠের ৩৬ কিলোমিটার গভীরে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৫। ভূমিকম্পের পরপরই শহরের কুদরত উল্লাহ সড়কের সৈয়দ আকবর আলী টাওয়ারে একটি মোবাইল ফোন কোম্পানির টাওয়ারের নিয়ন্ত্রণ কক্ষে আগুন ধরার খবর মেলে। তাৎক্ষণিকভাবে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

শ্রীমঙ্গলে পাওয়ার গ্রিডের জাম্পার আলগা হয়ে গেলে কয়েক ঘণ্টার জন্য শতাধিক গ্রামের অধিবাসীরা বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন থাকেন। জেলা পরিষদের ৫০০ আসনবিশিষ্ট মিলনায়তনের পূর্ব দিকের বারান্দা দেড় ফুট দেবে গেছে, ভবনজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য ফাটল। ভবনটির ভেতরে ইট ও বাইরের সিলিং থেকে আস্তর খসে পড়েছে। কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জুয়েল আহমদ জানান,  ভূমিকম্পে পৌর ভবনসহ শতাধিক বাড়িঘরে ফাটল দেখা দিয়েছে। উপজেলার ফুটবল খেলার মাঠসহ বিভিন্ন স্থানের জমি ফেটে পানি ও বালি বের হয়ে এসেছে। পৌর এলাকার ছয় নম্বর ওয়ার্ডে মুহিবুর রহমানের জমি ফেটে ভূগর্ভস্থ বালু ও পানি বেরিয়ে এসেছে। কান্দিগাঁও গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীনের বাড়ি ও রান্নাঘরে দেখা দিয়েছে ফাটল। হেরেংগা বাজারের পশ্চিমে বনগাঁও রাস্তায় ধলাই নদির পাড়ে, পৌর এলাকার কুমড়াকাপন গ্রামের রাস্তা, রানীরবাজার এলাকার একটি রাস্তাসহ বিভিন্ন জায়গায় ফাটল দেখা দিয়েছে। ভানুগাছ বাজারের গাউছিয়া আরমান হার্ডওয়ার নামের একটি দোকানে রাখা লক্ষাধিক টাকার কাচ ও টাইলস ভেঙে গেছে। ওই বাজারের ১৫-২০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে ভানুগাছ পৌর বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. সানোয়ার হোসেন জানিয়েছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুল হক জানান, ভানুগাছ ছাড়াও উপজেলার নছরতপুর, পশ্চিম বালিগাঁও, শিমুলতলা, হীরামতি, রায়নগর, মাধবপুর, কুমড়াকাপন, চৈতন্যগঞ্জ, নারাইনপুর, চিৎলিয়া, রানীরবাজার, জালালপুর, রামপুর, কান্দিগাঁও, পতনঊষার, আদমপুরসহ বিভিন্ন গ্রামের শতাধিক ভবন ও দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে। কোনো কোনো স্থানে ফাটল ১০ থেকে ৪০ ফুট পর্যন্ত দীর্ঘ। ফাটল ধরা ভবনগুলোর বাসিন্দারা আতঙ্কে আছেন। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে কর্মকর্তারা ক্ষয়ক্ষতি নিরুপনের কাজ করছেন বলে মাহমুদ জানিয়েছেন। শ্রীমঙ্গলে সরকারি শিশু পরিবারের ভবন, পৌরসভার নিয়ন্ত্রানাধীন কাঁচাবাজার ভবন, লালবাগ এলাকার সুলতান আহমদের বাসা, সুব্রত চক্রবর্তীর বাড়ির সীমানা প্রাচীরে ফাটল ধরেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদুল হক জানান, ভূমিকম্পের পর শিশু পরিবারের ভবনটি গণপূর্ত বিভাগের লোকজন দেখে গেছেন। গণপূর্ত বিভাগের মতে ফাটলটি নিয়ে এই মুহূর্তে ভয়ের কারণ নেই।

তবে আবার ভূমিকম্প হলে ক্ষতি হতে পারে। গ্র্যান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গলফ ভবনের প্লাস্টার ভূমিকম্পের সময় খসে পড়েছে বলে জানিয়েছেন রিসোর্টের কর্মকর্তা পলাশ চৌধুরী। তিনি বলেন, প্রকৌশলীরা পুরো ভবন দেখে গেছেন। বড় কোনো ক্ষতি হয়নি বলে তারা জানিয়েছেন। মৌলভীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম (টেকনিক্যাল) আবু সায়েম জানান, ভূমিকম্পের সময় শ্রীমঙ্গলের পাওয়ার গ্রিডের একটি জাম্পার আলগা হয়ে গেলে বেশ কিছু এলাকায় সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। পরে তা মেরামত করে পুনরায় বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করা হয়। ভূমিকম্পে দেয়াল ভেঙে, ইটের আঘাতে ও বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে মৌলভীবাজারে অন্তত ১৫ জনের আহত হওয়ার খবর মিলেছে। এদের মধ্যে শমশেরনগর ইউনিয়নের ভরতপুর গ্রামের মরিয়ম বেগম (৪০), কমলগঞ্জ পৌরসভার বড়গাছ এলাকার আমিন মিয়া (৪৫), আদমপুর ইউনিয়নের উত্তর ভানুবিল গ্রামের উজ্জ্বল সিংহকে (২০) কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন জালাল মিয়া (১০), রবি ভট্টাচার্য্য (৫০), আরিফ মিয়া (৭০), সোনিয়া (৪০), নার্গিস বেগম (১৮), ফখরুল ইসলাম (৩০), জনি বেগম (৩৩), মেহেদী হাসান (৭০) আব্দুস সোবান (৭৭), রেহেনা বেগম (১৬), রোজিনা বেগম (৩৩) ও রেজাক মিয়া (২২)। 

মৌলভীবাজারে ট্রাক খাদে, নিহত ২

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের জুড়িতে একটি ট্রাক রাস্তার পাশে খাদে পড়ে গিয়ে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ভুয়াইনগর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জুড়ি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সামছুল ইসলাম জানিয়েছেন। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি। তিনি  জানান, জুড়ি থেকে কুলাউড়ার দিকে ট্রাকটি যাচ্ছিল। ভুয়াইনগর এলাকায় ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদের পানিতে পড়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তিন জনকে উদ্ধার করে কুলাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। রাত ১০টার দিকে তাদের মধ্যে দুই জন মারা যায়।

মৌলভীবাজারে ট্রাক খাদে, নিহত ২

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের জুড়িতে একটি ট্রাক রাস্তার পাশে খাদে পড়ে গিয়ে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ভুয়াইনগর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জুড়ি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সামছুল ইসলাম জানিয়েছেন। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের পরিচয় জানা যায়নি। তিনি  জানান, জুড়ি থেকে কুলাউড়ার দিকে ট্রাকটি যাচ্ছিল। ভুয়াইনগর এলাকায় ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদের পানিতে পড়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তিন জনকে উদ্ধার করে কুলাউড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। রাত ১০টার দিকে তাদের মধ্যে দুই জন মারা যায়।

মৌলভীবাজারে শত ভরি সোনা ডাকাতির অভিযোগ

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজলোয় বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আওয়ামী লীগ নেতার বাসায় প্রায় শত ভরি সোনার গয়নাসহ দেড় লাখ টাকা ডাকাতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। শ্রীমঙ্গল থানার ওসি মাহবুবুর রহমান জানান, রোববার রাত সাড়ে ৩টার দিকে আবু শহীদ আব্দুল্লার শহরতলির বারিধারা আবাসিক এলাকার বাসায় ডাকাতি হওয়ার অভিযোগ পেয়েছে পুলিশ।

আবু শহীদ আব্দুল্লা মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর উপ-সম্পাদক এবং প্রাণসহ আরও কয়েকটা প্রতিষ্ঠানের শ্রীমঙ্গল উপজেলার পরিবেশক বলে তিনি নিজে  জানান। তিনি বলেন, ১০-১২ জনের একদল ডাকাত জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্রের মুখে সবাইকে জিম্মি করে। আমাকে, আমার স্ত্রী, ছেলে ও ছেলের স্ত্রীসহ নাতিদের হাতমুখ বেঁধে রাখে। তারা প্রায় এক ঘণ্টা ধরে বাসার সব জিনিসপত্র তছনছ করে। আলমারি ভেঙে প্রায় ১০০ ভরি ওজনের সোনার গয়না ও দেড় লাখ টাকা নিয়ে পলিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে জানিয়ে ওসি মাহবুবুর বলেন, মালপত্র উদ্বারসহ ডাকাত ধরার জন্য জোর তৎপরতা চালানো হবে।

সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত থাকতে হবে: সিলেটে প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশের অভ্যন্তরীণ ও বহিঃশক্তি হুমকি মোকাবিলা এবং সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সেনাবাহিনীকে সবসময় প্রস্তুত থাকতে হবে।  এ বাহিনীর উন্নয়নের জন্য যা করা প্রয়োজন সরকার তা করবে। বাংলাদেশ আজ অনেক এগিয়ে গেছে, এগিয়ে যাবে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে।’

আজ বুধবার সিলেটের জালালাবাদ সেনানিবাসে ১৭ পদাতিক ডিভিশনের অধীনস্থ নবগঠিত সদর দফতরে ১১ পদাতিক ব্রিগেডসহ ৮টি ইউনিটের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে বেলা ১১টায় বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইট বিজি নং-১৬০১ করে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর প্রথমে তিনি হযরত শাহজালাল (রহ.) এর মাজারে ও ১১টা ৪৫মিনিটে হযরত শাহপরান (রহ.) এর মাজারে যান। সেখানে মাজার জিয়ারত শেষে পৌনে ১টায় জালালাবাদ সেনানিবাসে ১৭ পদাতিক ডিভিশন সদর দপ্তরে ১১ পদাতিক ব্রিগেডসহ ৮টি ইউনিটের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে যোগ দেন শেখ হাসিনা।

‘শেখের বেটির উপহার পাইছি’

ঘড়ির কাটায় তখন রাত ১১টা। মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শীতার্ত রোগীদের জন্য প্রায় দেড়শতাধিক কম্বল নিয়ে ছুটলেন সিলেট ও হবিগঞ্জের সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে কম্বল পেয়ে খুশি সবাই। সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এই প্রথম সরকারি ত্রাণ তহবিল থেকে শীতার্ত রোগীদেরকে কম্বল উপহার দেওয়া হয়েছে বলে বাংলা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের উপ পরিচালক বিগ্রেডিয়ার ডা. আব্দুস সবুর মিঞা।

ষাটোর্ধ্ব সিলেটের জগন্নাথপুরের জদু চন্দ্র। হাসপাতালে মেডিসিন ওয়ার্ডের বারান্দায় চিকিৎসাধীন তিনি।  কম্বল পেয়ে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সরকার থাকি অউ পয়লা (প্রথম) আমি দেখলাম আসপাতালর (হাসপাতাল) রোগীর লাগি কম্বল দেওয়া অইছে’। হুনছি শেখের বেটি সিলেট আইরা (আসছেন) এর লাগিনি কম্বল দেয়া অইল (হলো)।

এমপি কেয়া নিজের হাতে হাসপাতালেরর পুরুষ ওয়ার্ড, শিশু মেডিসিন ওয়ার্ড, সার্জারি বিভাগ, বার্ণ ইউনিটসহ কয়েকটি ওয়ার্ডে কম্বল বিতরণ করেন।

প্রায় একমাস ধরে হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন মাদ্রাসা ছাত্র তামিম কম্বল পেয়ে খুবই খুশি। এ সময় সে সাংসদ কেয়ার কাছে পড়াশুনা চালিয়ে যাওয়ার প্রতিজ্ঞা করে।

কম্বল বিতরণের সময় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদেরকে এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে এগুলো নিয়ে আমি আপনাদের কাছে এসেছি। এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য সবার কাছে দোয়া কামনা করেন।

সিলেট ওসমানী হাসপাতালের উপ পরিচালক বিগ্রেডিয়ার ডা. আব্দুস সবুর মিঞা জানান, এই প্রথম সরকারি ত্রাণ তহবিল থেকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শীতার্ত রোগীদের জন্য কম্বল আসল। যা হাসপাতালের জন্য মাইলফলক।

সিলেটে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে ৩ হাজার পুলিশ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অষ্টমবারের মতো সিলেট সফরে আসছেন বুধবার (২৩ নভেম্বর)। প্রধানমন্ত্রীর এ সফরকে ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২২ নভেম্বর) সকাল থেকে সিলেটে তাদের তৎপরতা শুরু হয়েছে। বিমানবন্দর এলাকা থেকে শুরু করে নগরের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে চেকপোস্ট বসিয়ে দায়িত্ব পালন করছে পুলিশ। এছাড়া গোয়েন্দা পুলিশ ও র‌্যাবের টহলটিম হযরত শাহজালাল (র.) এবং হযরত শাহপরান মাজার এলাকায় নজরদারি করে যাচ্ছে। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার রহমত উল্লাহ (গণমাধ্যম) বাংলা ট্রিবিউনকে এসব তথ্য জানান।

প্রধানমন্ত্রীর এ সফরে ৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ৭টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার কথা থাকলেও এগুলো স্থগিত রাখা হয়েছে। আওয়ামী লীগের একটি জনসভাও বাতিল করা হয়েছে। জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষিত হওয়ায় নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘিত হওয়ার আশঙ্কায় এসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিলেট নগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুর রহমান জামিল।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার রহমত উল্লাহ (গণমাধ্যম) বাংলা ট্রিবিউন’কে জানান, প্রধানমন্ত্রী সিলেট সফরকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য যা যা করণীয় পুলিশের পক্ষ থেকে তার সব ব্যবস্থাই গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সিলেট শহর ও শহরতলীতে পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা পুলিশও কাজ করে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে সিলেটের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবে তিন হাজার পুলিশ। নিরাপত্তার স্বার্থে প্রধানমন্ত্রীর সফরকালিন সময়ে সিলেটের বিভিন্ন সড়কের যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তিনি বিকালে সিলেট ছাড়ার পর যানবাহন চলাচল আবার শুরু হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার (২৩ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টার সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছাবেন। সেখান থেকে সকাল ১০টায় হযরত শাহজালাল (র.) মাজার এবং সাড়ে ১০টায়  হযরত শাহপরান মাজার জিয়ারত করবেন। পরে সকাল ১১টায় জালালাবাদ সেনানিবাসে ১৭ পদাতিক ডিভিশনের অধীনস্থ নবগঠিত সদর দপ্তর ১১ পদাতিক ব্রিগেডের পতাকা উত্তোলন অনুষ্ঠানে যোগদান করবেন। অনুষ্টান শেষে বিকেল ৫টায় বিমানে ঢাকায় ফিরে যাবেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের প্রকল্পগুলোর মধ্যে ছিল- লাক্কাতুড়া টি এস্টেটে সিলেট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ তলা নতুন একাডেমিক কাম প্রশাসনিক ভবন, সার পরীক্ষাগার ও গবেষণা কেন্দ্র, মৃত্তিকা গবেষণা ইনস্টিটিউট, গাজী বুরহান উদ্দিনের মাজার মসজিদ, সিলেট শাহী ঈদগাহ মিনার কমপ্লেক্স, কোম্পানীগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স, সিলেট সদর উপজেলা শতভাগ বিদ্যুতায়ন। এছাড়া ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার কথা ছিল আরও সাতটি প্রকল্পের। এগুলো হলো- সিলেট বিভাগের বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়ন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অধীনে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ছাত্র, ছাত্রী হোস্টেল নির্মাণ, নার্সিং ডরমেটরি ভবন, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ ব্যারাক ও জেলা পুলিশ লাইনস অস্ত্রাগার নির্মাণ।



Go Top