সকাল ১০:১৮, সোমবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ খেলাধুলা

স্প্যানিশ লা লিগায় জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে বার্সেলোনা। শতভাগ জয়ে পয়েন্ট টেবিলে নিজেদের শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে দলটি। গতকাল রাতে  নবাগত দল জিরোনাকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়েছে এরনেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা।

বার্সার জয়ে গতকাল গোলের দেখা পাননি দলটির সেরা তারকা লিওনেল মেসি। প্রতিপক্ষের মাঠে দুটি সাফল্যই এসেছে আত্মঘাতী গোলের কল্যাণে। দলের হয়ে অপর গোলটি করেন লুইস সুয়ারেজ।

ম্যাচের ১৭ মিনিটে আত্মঘাতী প্রথম গোলে এগিয়ে যায় বার্সা। কর্নার থেকে জর্দি আলবার ভলি আদায় বেনিতেসের গায়ে লেগে জিরোনার জালে ঢুকে পড়ে। এরপর ইভান রাকিতিচ গোলের দুর্দান্ত এক সুযোগ পেলেও  প্রতিপক্ষ দলের গোলরক্ষক ইরাইসস তা রুখে দেন।

বিশ্রাম শেষে আত্মঘাতী দ্বিতীয় গোলের কল্যাণে এগিয়ে যায় বার্সা। দ্বিতীয়ার্ধের তৃতীয় মিনিটে আলেইশ ভিদালের ব্যাকহিলে সুয়ারেসও ব্যাকহিল করতে চেয়েছিলেন। তবে বল ছোঁয়াতে পারেননি। বল ইরাইসসের গায়ে লেগে জালে ঢুকে যায়। ফলে ২-০ গোলে এগিয়ে যায় সফরকারীরা।

এরপর ম্যাচের ৬৯ মিনিটে গোল করে বার্সেলোনার জয় নিশ্চিত করে ফেলেন সুয়ারেজ। লম্বা পাস ধরে গোলরক্ষককে ফাঁকি দেন উরুগুয়ের এ তারকা।

লা লিগায় প্রথম ছয় ম্যাচের সব ক’টিতেই জিতে বার্সেলোনার পয়েন্ট এখন ১৮। গতকাল রাতে দেপোর্দিভো আলাভেসকে হারিয়ে রিয়াল সমান ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে তালিকার চতুর্থ স্থানে।

নেইমারহীন ম্যাচে জিততে পারেনি পিএসজি

গতকালের ম্যাচ দিয়ে ২২২ মিলিয়ন ইউরোর নেইমারের গুরুত্ব বোধহয় ভালোভাবেই অনুভব করতে পারবে প্যারিস সেইন্ট জার্মেই (পিএসজি)। লিগে টানা ছয় ম্যাচ পর জয়রথ থামল দলটির। মপেঁলিয়ের মাঠে নেইমারকে ছাড়া খেলতে নেমে গোলশূন্য ড্র নিয়ে ফিরেছে উনাই এমেরির দল।

লিগ ওয়ানে গতকাল পায়ের চোটের কারণে মপেঁলিয়ের বিপক্ষে ম্যাচে দলে ছিলেন না বিশ্বের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় নেইমার। ব্রাজিলিয়ান এ তারকা না থাকলেও পিএসজি শিবিরে ছিলেন ফর্মে থাকা স্ট্রাইকার এডিনসন কাভানি ও ফরোয়ার্ড কিলিয়ান এমবাপেরা। তবে দলকে জয় এনে দিতে তেমন কোনো ভূমিকা রাখতে পারেননি তারা।

নিজেদের চেয়ে অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষ মপেঁলিয়ের মাঠে অধিকাংশ সময় বল দখলে রাখার পাশাপাশি আক্রমণেও এগিয়ে ছিল পিএসজি। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায়নি দলটি।ফলে শেষপর্যন্ত গোলশূন্য ড্রয়ে পয়েন্ট ভাগাভাগি করেই মাঠ ছাড়তে হয়েছে দু’দলকে।

সাত ম্যাচে ছয় জয়ের পর এই ড্রয়ে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে পিএসজি। ১ পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে মোনাকো।

বার্সেলোনার টানা ষষ্ঠ জয়

ম্যাচ শুরু হওয়ার আগেই রণ–হুংকার ছুড়েছিল জিরোনা। ম্যাচেও ছাড় দেয়নি এবারই লা লিগায় উঠে আসা ক্লাবটি। লা লিগার নতুন ‘কাতালান ডার্বি’তে সর্বস্ব দিয়েই লড়েছে জিরোনা। কিন্তু বার্সেলোনার সঙ্গে পেরে ওঠেনি । জিরোনাকে তাদেরই মাঠে ৩-০ গোলে হারিয়েছে বার্সেলোনা।  
শনিবার বার্সার বিপক্ষে কঠিন পরীক্ষার মুখে পড়ে দলটি। বার্সার বড় জয়ের দুটি গোলই আত্মঘাতী। অপর গোলটি করেন লুইস সুয়ারেজ।
এই জয়ের ফলে লা লিগার মৌসুমের শুরুতে টানা সর্বোচ্চ ছয় ম্যাচ জয়ের নিজেদের রেকর্ড স্পর্শ করে বার্সেলোনা। ২০০৯-১০ সালে পেপ গার্দিওলার অধীনে এবং ২০১৩-১৪ সালে টিটো ভিলানোভার অধীনে মৌসুমের শুরুতে টানা ছয় ম্যাচ জিতেছিল কাতালানরা।
ম্যাচের ১৬তম মিনিটে লিওনেল মেসির দারুণ ফ্রি-কিক রুখে দেন জিরোনার গোলরক্ষক। এর এক মিনিট পরই এগিয়ে যায় বার্সা। জর্ডি আলবার শট আদে বেনিতেজের গায়ে লেগে দিক পরিবর্তন করে জালে আশ্রয় নিলে লিড নেয় বার্সেলোনা।

 


এরপর প্রথমার্ধে বেশ কয়েকটি আক্রমণ শানিয়েও গোলের দেখা পায়নি বার্সেলোনা। বিরতির পরপরই আত্মঘাতী গোলেই ব্যবধান দ্বিগুণ হয় সফরকারীদের। ৪৮তম মিনিটে অ্যালেইক্স ভিদালের ক্রস জিরোনার গোলরক্ষক গোর্কা ইরাইজোজের গায়ে লেগে জালে আশ্রয় নেয়।
৬৯তম মিনিটে বার্সেলোনার বড় জয় নিশ্চিত করেন সুয়ারেজ। সের্জি রবার্তোর লম্বা পাস ধরে প্রতিপক্ষের পেনাল্টি বক্সের ঢুকে দারুণ ফিনিশিংয়ে লক্ষ্যভেদ করেন এই উরুগুয়ে ফরোয়ার্ড। স্পেনের শীর্ষ লিগে বার্সেলোনার জার্সিতে ২৫টি দলের বিপক্ষে খেলে ২৪টি দলের বিপক্ষেই গোল করলেন সুয়ারেজ। এরপর আর কোনো গোল না হলেও সহজ জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে বার্সা।
এই জয়ের ফলে রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান সাতেই রাখল বার্সেলোনা। ছয় ম্যাচ থেকে পূর্ণ ১৮ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে বার্সা। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে অ্যাটলেটিকো দ্বিতীয় এবং ১১ পয়েন্ট নিয়ে রিয়াল চার নম্বরে রয়েছে। ১৩ পয়েন্ট নিয়ে সেভিয়ার অবস্থান তিনে।

তামিম-সৌম্যের ইনজুরিতে দুশ্চিন্তায় বাংলাদেশ

দক্ষিণ আফ্রিকায় বারবার ইনজুরি আঘাত হানছে বাংলাদেশ শিবিরে। ইনজুরির কারণে বেননীর উইলোমোর পার্কে প্রস্তুতি ম্যাচের দ্বিতীয় ইনিংসে গতকাল ব্যাটিং করতে পারেননি দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। সিরিজের মূল লড়াইয়ে নামার আগে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে ও আত্মবিশ্বাস বাড়াতে প্রস্তুতি ম্যাচে অংশ নেয় বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকা আমন্ত্রণমূলক একাদশের বিপক্ষে বাংলাদেশের তিনদিনের প্রস্তুতি ম্যাচটি গতকাল ড্র হয়েছে।
 প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৫ রান করেই অবসরে গিয়েছিলেন তামিম। বাঁ পায়ের পেশীতে টান পড়েছে তার।
শুক্রবার স্থানীয় হাসপাতালে তার পায়ের স্ক্যানও করা হয়েছে। গ্রেড-ওয়ান টিয়ার ধরা পড়েছে। সুস্থ হতে কমপক্ষে সাতদিন লাগবে। আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর পচেফস্ট্রমে শুরু হতে চলা সিরিজের প্রথম টেস্টের আগে এ বাঁহাতি ওপেনার সুস্থ হতে পারবেন কিনা তা নিশ্চিত নয়। তবে জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক ও সফরে বাংলাদেশ দলের ম্যানেজার মিনহাজুল আবেদীন নান্নু গতকাল বলেছেন, ‘তামিমের উন্নতি হচ্ছে।’
 তামিমের মতোই প্রস্তুতি ম্যাচের প্রথম ইনিংসে ৪৩ রান করা সৌম্য গতকাল দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করেননি। বাঁহাতি এ ওপেনারের ডান কাঁধে টান লেগেছে। মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেছেন, ‘সৌম্যের ডান কাঁধের পেশী শক্ত হয়ে আছে। ওর এটা ইনজুরি নয়। তারপরও সতর্ক থাকতে আমরা তাকে বিশ্রামে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

পাকিস্তান দলে ওয়াহাব ইন, শেহজাদ আউট

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের জন্য দল ঘোষণা করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড। লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে আজ ১৬ সদস্যের দল ঘোষণা করেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচক ইনজামাম উল হক।

২৮ সেপ্টেম্বর আরব আমিরাত টেস্ট দিয়ে লঙ্কানদের বিপক্ষে সিরিজ শুরু হবে। এরপর ৬ অক্টোবর দুবাইয়ে দিবা-রাত্রির টেস্ট ম্যাচটি খেলবে দু’দল। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের জন্য পাকিস্তান দলে ডাক পেয়েছেন অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা পেসার মির হামজা। এছাড়া ব্যাটসম্যান হারিস সোহেল এবং অলরাউন্ডার বিলাল আসিফ স্কোয়াডে জায়গা পেয়েছেন।

তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সদ্য ঘোষিত এ স্কোয়াড থেকে বাদ পড়েছেন ব্যাটসম্যান আহমেদ শেহজাদ ও মোহাম্মদ রিজওয়ান। অন্যদিকে দলে ফিরেছেন পেসার ওয়াহাব রিয়াজ। পাকিস্তান দল থেকে অবসর নেওয়া পরীক্ষিত দুই সৈনিক মিসবাহ-উল-হক ও ইউনিস খানের পরিবর্তে সোহেল ও উসমান সালাউদ্দিনকে দিয়ে পরীক্ষা চালাতে পারেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের কুশীলবরা। তারা দুজনেই অভিষেকের অপেক্ষায় রয়েছেন।

২০১১ সালে পাকিস্তানের হয়ে দুটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন সালাউদ্দিন। অন্যদিকে ২০১৩ সালের জুলাই থেকে ২২টি ওয়ানডে ও ৪টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন সোহেল। ওপেনার সামি আসলামকেও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে স্কোয়াডে ডাকা হয়েছে। পাকিস্তানের হয়ে সবশেষ ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে টেস্ট খেলেছিলেন তিনি।

পাকিস্তানের টেস্ট স্কোয়াড: আজহার আলী, শান মাসুদ, সামি আসলাম, বাবর আজম, আসাদ শফিক, হারিস সোহেল, উসমান সালাউদ্দিন, সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক), ইয়াসির শাহ, মোহাম্মদ আসগার, বিলাল আসিফ, মির হামজা, মোহাম্মদ আমির, হাসান আলী, মোহাম্মদ আব্বাস, ওয়াহাব রিয়াজ।



অন্যান্য খেলা

বছরটায় আগুনে ফর্মে রয়েছেন রাফায়েল নাদাল। গত জুনে জিতেছেন ফ্রেঞ্চ ওপেন।  এবার ২০১৩ সালের পর আরেকটি শূন্যতা পূরণ করলেন। জিতলেন বছরের দ্বিতীয় গ্র্যান্ড স্লাম। দক্ষিণ আফ্রিকার কেভিন অ্যান্ডারসনকে হারিয়ে ঘরে তুলেছেন এবার ইউএস ওপেনের শিরোপা।

 

বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের এক নম্বর তারকা বলেই জয়টা ছিল একপেশে। ৬-৩, ৬-৩, ৬-৪ গেমে হারিয়েছেন অ্যান্ডারসনকে।

এই জয় দিয়ে শিরোপার দিক দিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন এই স্প্যানিয়ার্ড। ১৯টি গ্র্যান্ড স্লাম নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন রজার ফেদেরার। ১৬টি নিয়ে পরেই রয়েছেন নাদাল। ১৪টি নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন পিট সাম্প্রাস।

বছরে যখন দুটি শিরোপা তুলেছেন তাই আবেগটা ভিন্নভাবেই প্রকাশ করলেন ৩১ বছর বয়সী তারকা, ‘এ বছরে যা হলো তা সত্যিই অবিশ্বাস্য।’বেশ কয়েক বছর ইনজুরিতে ভুগেছেন। যার প্রভাব পড়েছিল পারফরম্যান্সেও, ‘অনেক বছরই ইনজুরি, নানা ঝক্কি ঝামেলায় ভালো খেলতে পারিনি। তাই মৌসুমের শুরু থেকে আমি খুবই আবেগপ্রবণ ছিলাম।’

এই বিভাগের আরো খবর

নাদালের ‘সুইট সিক্সটিন’

কেভিন অ্যান্ডারসনের সামনে ছিল ইতিহাসের হাতছানি। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার এই টেনিস খেলোয়াড় গড়তে পারলেন না প্রতিদ্বন্দ্বিতাই। তাকে সরাসরি সেটে উড়িয়ে দিয়ে ইউএস ওপেন শিরোপা জিতেছেন স্প্যানিশ কিংবদন্তি রাফায়েল নাদাল।

নাম্বার ওয়ান নাদাল নিউ ইয়র্কের ফ্লাশিংমিডোতে রোববারের ফাইনালে ২ ঘণ্টা ২৭ মিনিটের লড়াইয়ে ম্যাচ জিতেছেন ৬-৩, ৬-৩, ৬-৪ গেমে।

৩১ বছর বয়সি নাদালের এটি তৃতীয় ইউএস ওপেন শিরোপা। আর ক্যারিয়ারের ১৬তম গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা। ১৯ গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা নিয়ে তার ওপরে আছেন কেবল সুইস কিংবদন্তি রজার ফেদেরার।

এই নিয়ে চতুর্থবার বছরের চারটি গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপাই ভাগ করে নিলেন নাদাল ও ফেদেরার। প্রথমবার এমনটা হয়েছিল ১১ বছর আগে, ২০০৬ সালে। অন্য দুবার ২০০৭ ও ২০১০ সালে।

২০১৩ সালের পর এই প্রথম একই বছরে দুটি গ্র্যান্ড স্লাম শিরোপা জিতলেন নাদাল। গত জুনে জিতেছিলেন ফ্রেঞ্চ ওপেন। এ বছরের অন্য দুটি গ্র্যান্ড স্লাম প্রতিযোগিতা অস্ট্রেলিয়ান ওপেন ও উইম্বলডন জিতেছেন ফেদেরার।

অথচ চোট নাদালের ক্যারিয়ারটাই এক পর্যায়ে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছিল। সেখান থেকে কী দুর্দান্তভাবেই না ফিরেছেন। একের পর এক প্রত্যাবর্তনের গল্প লিখে চলেছেন। গত মাসে ২০১৪ সালের পর প্রথমবার উঠেছেন র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে।

এ বছরটাকে তাই তো ‘অবিশ্বাস্য’ বলছেন নাদাল, ‘অবশ্যই আমার জন্য বিশেষ দুটি সপ্তাহ কাটল। কয়েক বছর বিভিন্ন ঝামেলা, চোট, ভালো না খেলার পর এ বছরে যা কিছু হলো; এটা অবিশ্বাস্য। মৌসুমের শুরু থেকে এটা ছিল খুবই আবেগঘন।’

চাচা এবং দীর্ঘদিনের কোচ টনির পাশে নাদালের একসঙ্গে কাজ করা শেষ গ্র্যান্ড স্লাম ছিল এই ইউএস ওপেন। নাদালের এই নাদাল হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে বড় অবদান তার চাচার। তাই তো চাচার প্রতি স্প্যানিশ তারকার বিনয়, ‘আমার জন্য তিনি যা কিছু করেছেন তার জন্য ধন্যবাদ যথেষ্ট নয়। সম্ভবত তাকে ছাড়া আমি টেনিসই খেলতে পারতাম না। এটা দারুণ যে তার মতো কেউ একজন ছিল, যিনি সব সময় আমাকে অনুপ্রাণিত করেছেন। অবশ্যই তিনি আমার জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের একজন।’

অ্যান্ডারসন এবারই প্রথম কোনো গ্র্যান্ড স্লাম প্রতিযোগিতার ফাইনালে উঠেছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকার কোনো টেনিস খেলোয়াড় গ্র্যান্ড স্লাম ট্রফি জিততে পারেনি। অ্যান্ডারসনের সামনে ছিল তাই ইতিহাস গড়ার হাতছানি। নাদালের সঙ্গে মুখোমুখি আগের চারবারের দেখায় প্রতিবারই তিনি হেরেছিলেন। হারলেন আরেকবার, বাধা হতে পারলেন না নাদালের ‘সুইট সিক্সটিন’-এর পথে।
 

এই বিভাগের আরো খবর

স্টেফেন্সের ইউএস ওপেন জয়

ছয় সপ্তাহ আগেও র‌্যাংকিংয়ে ৯৫৭ নম্বরে ছিলেন স্লোন স্টেফেন্স। পায়ের চোট তাকে নামিয়ে দিয়েছিল অনেক নিচে। ১১ মাস পর ফিরেছিলেন উইম্বলডনে। প্রথম রাউন্ডেই নিয়েছিলেন বিদায়। কিন্তু দুই মাসে অনেক কিছু বদলে গেছে তার। ১৬ ম্যাচের ১৪টি জিতে অবাছাই এ আমেরিকান উঠলেন প্রথম কোনও গ্র্যান্ড স্লামের ফাইনালে। জিতলেন ইউএস ওপেন শিরোপা।

আর্থার অ্যাশে স্টেডিয়ামে শনিবার গ্যালারি মুখরিত ছিল আমেরিকানদের উৎসাহ-উদ্দীপনায়। কারণ তারা নিশ্চিত ছিল তাদের ঘরেই থাকছে ইউএস ওপেন শিরোপা। প্রতিপক্ষ দুজনই যে আমেরিকার। স্টেফেন্সের মতো তার স্বদেশী ম্যাডিসন কিসেরও এটি প্রথম ফাইনাল। দুজনের মধ্যে বন্ধুত্বও বেশ। কিন্তু খেলা শুরু হওয়ার পর পেশাদারিত্ব হয়ে উঠলো তাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

২৪ বছর বয়সী স্টেফেন্স ১৫তম বাছাই কিসকে হারিয়েছেন ৬-৩, ৬-০ গেমে। উন্মুক্ত যুগে মেয়েদের এককে পঞ্চম অবাছাই হিসেবে কোনও গ্র্যান্ড স্লামে চ্যাম্পিয়ন হলেন র‌্যাংকিংয়ের ৮৩ নম্বরে থাকা এ তরুণী।

২০০২ সালে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে জেনিফার ক্যাপ্রিয়াতির পর উইলিয়ামস পরিবারের বাইরে প্রথম কোনও আমেরিকান মেয়ে গ্র্যান্ড স্লামে চ্যাম্পিয়ন হলো।

২.৮৪ মিলিয়ন পাউন্ড জয়ের পর বিশ্বাস-অবিশ্বাসের মাঝে দুলছিলেন স্টেফেন্স। তবে ছোটবেলার বন্ধুকে হারানোর পর উচ্ছ্বাসের লাগাম টেনে ধরেছেন তিনি, ‘জানুয়ারিতে অস্ত্রোপচার হয়েছিল আমার। তখন যদি কেউ বলতো আমি ইউএস ওপেন জিতব, সঙ্গে সঙ্গে বলতাম অসম্ভব। এ পথচলা দারুণ। আর এ প্রতিযোগিতায় ম্যাডিসন ছিল আমার অন্যতম সেরা বন্ধু। আমি তাকে বলেছিলাম ম্যাচটা যদি ড্র হতো।’

এই বিভাগের আরো খবর

চোট নিয়ে ক্যারিয়ার শেষ করলেন বোল্ট

মৌসুমটা তার নিজের ছিল না। যার প্রমাণ আগেই পাওয়া গিয়েছিল বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপের ১০০ মিটারে। যদিও তাতে চোটে আক্রান্ত হওয়ার মতো কিছুই ছিল না। কিন্তু ৪x১০০ মিটার রিলেতে একেবারে চোট নিয়েই ক্যারিয়ার শেষ করতে হয়েছে জ্যামাইকান গতি দানবকে!

লন্ডন স্টেডিয়ামে সবার শেষে ব্যাটনটা হাতে ঠিকই দৌড় দিয়েছিলেন জ্যামাইকান গতিদানব। দৌড়ও শুরু করেছিলেন ক্ষিপ্র গতিতে। কিন্তু শুরুর কিছুক্ষণ পরই লাফিয়ে-খুঁড়িয়ে জানান দিলেন-হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট পেয়েছেন তিনি! শেষ পর্যন্ত দৌড় আর শেষ করা হয়নি তার। তার জায়গায় স্বর্ণ জিতে নেয় গ্রেট ব্রিটেন। ৩৭.৪৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে দৌড় শেষ করে তারা।  এরপরেই ৩৭.৫২ সেকেন্ড সময় নিয়ে রৌপ্য জেতে যুক্তরাষ্ট্র তৃতীয় হয়ে ব্রোঞ্জ জেতে জাপান।
দীর্ঘদিন বিশ্ব কাঁপানো এই দৌড়বিদ ঘোষণা দিয়েছিলেন এই আসরেই ১০০ মিটার ও রিলেতে দৌড়ে শেষ করবেন ক্যারিয়ার। হয়তো লক্ষ্য ছিল রাঙানোর। শেষ পর্যন্ত হতাশাকে সঙ্গী করেই বিদায় নিলেন তিনি!

এই বিভাগের আরো খবর

দেরি হওয়ায় ইনজুরিতে বোল্ট!

লন্ডনে অনেক আশা নিয়ে ৪x১০০ মিটার রিলের শেষ ল্যাপে ব্যাটন হাতে নিয়েছিলেন বোল্ট। লক্ষ্য ছিল সবার আগে পৌঁছে রঙিন এক ক্যারিয়ার শেষ করার দিকে।  ভাগ্যদেবী হয়তো সহায় ছিলেন না। ক্ষিপ্র গতিতে দৌড় শুরুর পরই পেশিতে টান লেগে পড়ে যান মাটিতে। দৌড় শেষ না করে সতীর্থদের সহায়তায় ট্র্যাক ছেড়ে যেতে হয় জ্যামাইকান তারকাকে। সেই সতীর্থরাই বোল্টের ইনজুরির দায় চাপাচ্ছেন কর্তৃপক্ষের ঘাড়ে! সতীর্থ ইয়োহান ব্লেকের দাবি , ‘দৌড় ১০ মিনিট দেরিতে শুরু হয়েছিল। আমরা প্রায় ৪০ মিনিটের মতো ছিলাম। আমাদের অনেকক্ষণ রেখে দিয়েছিল।’

 

এর আগে ১০০ মিটারেও স্বর্ণ জিততে পারেননি বোল্ট। গতি দিয়ে দীর্ঘদিন মোহাচ্ছন্ন করে রাখা বোল্ট সেই জায়গায় জিতেছেন ব্রোঞ্জ! তাই রিলেতে সেই আক্ষেপ ঘোচানোর ইচ্ছা থাকলেও শেষটায় সঙ্গী হয়েছে হতাশা। তার আক্ষেপটা এভাবেই প্রকাশ করেছেন ১০০ মিটারের সাবেক এই চ্যাম্পিয়ন, ‘এটা আসলেই আঘাত করে। যখন একজন কিংবদন্তিতে এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়।’

এক নজরে বোল্টের কীর্তি

২০০৭ বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ-রৌপ্য (২০০ মিটার), রৌপ্য (৪x১০০ মিটার)

২০০৮ অলিম্পিক-স্বর্ণ (১০০ মিটার), স্বর্ণ (২০০ মিটার)

২০০৯ বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ-স্বর্ণ (১০০ মিটার), স্বর্ণ (২০০ মিটার), স্বর্ণ (৪x১০০ মিটার)

২০১১ বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ-স্বর্ণ (২০০ মিটার), স্বর্ণ (৪x১০০ মিটার)

২০১২ অলিম্পিক- স্বর্ণ (১০০ মিটার), স্বর্ণ (২০০ মিটার), স্বর্ণ (৪x১০০ মিটার)

২০১৩ বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ-স্বর্ণ (১০০ মিটার), স্বর্ণ (২০০ মিটার), স্বর্ণ (৪x১০০ মিটার)

২০১৫ বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ-স্বর্ণ (১০০ মিটার), স্বর্ণ (২০০ মিটার), স্বর্ণ (৪x১০০ মিটার)

২০১৬ অলিম্পিক- স্বর্ণ (১০০ মিটার), স্বর্ণ (২০০ মিটার), স্বর্ণ (৪x১০০ মিটার)

২০১৭ বিশ্ব অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ- ব্রোঞ্জ (১০০ মিটার)

এই বিভাগের আরো খবর

এশিয়া কাপের আগে চীনের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ?

এশিয়া কাপ হকি সামনে রেখে চীনের গানসু প্রদেশে ৮টি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে গেছে বাংলাদেশ দল। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে চীন জাতীয় দলের সঙ্গে অন্তত তিনটি ম্যাচ খেলার চেষ্টা করছে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন। মঙ্গলবার জাগো নিউজকে এ পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবদুস সাদেক।

চীন ঢাকায় অনুষ্টিতব্য এশিয়া কাপে খেলবে। দলটিকে কয়েকদিন আগে ঢাকায় এনে ম্যাচ খেলাতে চায় ফেডারেশন। এ পরিকল্পনার পেছনে আরেকটি উদ্দেশ্য আছে ফেডারেশনের। গত ওয়াল্ড হকি লিগে ওমানের বিপক্ষে ম্যাচে শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে ৩ ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন ফরোয়ার্ড সারোয়ার হোসেন। চীনের সঙ্গে ৩টি ম্যাচ খেলতে পারলে সাসপেনশন উঠে যাবে সারোয়ারের।

আগামী ১১ অক্টোবর ঢাকায় শুরু হবে দশম এশিয়া কাপ হকি। ৮ জাতির এ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ খেলবে ভারত, পাকিস্থান ও জাপানের সঙ্গে, ‘এ’ গ্রুপে।

লন্ডনে গ্যাটলিনের পর টোরি বোয়ি

বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে উসাইন বোল্টকে পেছনে ফেলে জাস্টিন গ্যাটলিনের সেরা হওয়ার কথা সবারই জানা। একদিন বিরতিতেই এই আসরে দৌড়ে সেরা হলেন আরেক মার্কিন অ্যাথলেট। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে সোনা জিতেছেন যুক্তরাষ্ট্রের টোরি বোয়ি।

লন্ডনে রোববার রাতে ১০.৮৫ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্রুততম মানবী হয়েছেন টোরি বোয়ি। সোনা জিততে তিনি পেছনে ফেলেন কোত দি ভোয়ার মারি-জোজে তাল লুকে।

রোমাঞ্চকর ফাইনাল লড়াইয়ে ১০.৮৬ সেকেন্ডে ফিনিশিং লাইন স্পর্শ করেন লু। আপাত দৃষ্টিতে তাকেই প্রথম মনে হলেও ফিনিংশ লাইনে মাথা ঝুঁকিয়ে এক সেকেন্ডের একশ ভাগের এক ভাগ সময়ে লুকে পেছনে ফেলেন বোয়ি। আর ১০.৯৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ জিতেছেন নেদারল্যান্ডসের ডাফনে স্কিপার্স।

শ্বাসরুদ্ধকর লড়াইয়ে সোনা জয়ের পর অনুভূতি ব্যক্ত করে টোরি বোয়ি বলেন, ‘আমি মনে করি কঠোর পরিশ্রমের ফলাফল শেষপর্যন্ত পাওয়া যায়। আমি এর চেয়ে বেশি সুখি আগে কখনো হইনি। আমার এখনও বিশ্বাস হচ্ছে না। আমি কি সত্যিই বিশ্বচ্যাম্পিয়ন।’

এই বিভাগের আরো খবর

ক্যান্সারে আক্রান্ত শিশুদের পাশে ব্রেট লি

বল হাতে বিশ্বের বড় বড় ব্যাটসম্যানদের কাছে দারুণ এক আতঙ্কের নাম ছিল ব্রেট লি। তবে পেশাদার ক্যারিয়ার শেষে এবার মানবতার পাশে দাঁড়িয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন এ গতি তারকা।

মানবতার ডাকে ভারতে ছুটে এসেছেন নরম হৃদয়ের ব্রেট লি। সম্প্রতি মুম্বাইয়ে স্যান্ট জুড চাইল্ড সেন্টার পরিদর্শনে আসেন তিনি। সেখানে ক্যান্সারে আক্রান্ত শিশুদের সঙ্গে বেশ কিছু আনন্দঘন মুহূর্ত কাটান ব্রেট লি।

শিশুদের আনন্দ দিতে তাদের সামনে গিটার বাজিয়েছেন ব্রেট লি। সেন্ট জুড চাইল্ড কেয়ার সেন্টারে মিউজিক থেরাপি প্রোগ্রামের উদ্বোধন করেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন এ ক্রিকেটার। এটি ছিল ম্যাগনেসিক ফাউন্ডেশন ও জামনা অটো ইন্ডাস্ট্রিজের একটি যৌথ উদ্যোগ।

মিউজিক থেরাপি প্রোগ্রাম উদ্বোধন প্রসঙ্গে ব্রেট লি বলেন, ‘শৈশব থেকে মিউজিক আমার জীবনের একটি অংশ। আমার এই অবস্থানে আসার পেছনেও এর অনেক অবদান রয়েছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি এটি জীবনকে বদলে দিতে পারে। অনেক গবেষণায় দেখানো হয়েছে এটা তরুণ ক্যান্সার রোগীদের সচেতনতার জন্য অনেক উপকারী। জীবন বদলে দেওয়া ইতিবাচক মিউজিক থেরাপি প্রোগ্রামে আমি আরও বেশি মানুষের সম্পৃক্ততা  প্রত্যাশা করছি।’

একই দিনে দুবার বিশ্ব রেকর্ড ভাঙলেন পিটি!

সাঁতারের ৫০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোকে বিশ্ব রেকর্ডটা তার আগে থেকেই। অ্যাডাম পিটি নিজের সেই বিশ্ব রেকর্ডটা এবার একই দিনে দুবার ভেঙে দিলেন!

বুদাপেস্টে বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে মঙ্গলবার রাতে সেমিফাইনালে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন পিটি সময় নিয়েছেন ২৫.৯৫ সেকেন্ড। এদিন সকালে তিনি হিটে সাঁতার শেষ করেছিলেন ২৬.১০ সেকেন্ডে।

এমন কীর্তির পর ২২ বছর বয়সি এই ব্রিটিশ সাঁতারু বিবিসিকে বলেছেন, ‘সত্যি কথা বলতে আমি বিশ্বাস করতে পারছি না এটি। এমনকি আমি ভাবতেই পারছি না। আমি শুধু ওখানে (পুলে) গেলাম এবং যা করি সেটাই করলাম।’

৫০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোকের ফাইনাল হবে বুধবার।

পিটি দুই বছর আগে কাজানে বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে ৫০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোকে ২৬.৪২ সেকেন্ড সময় নিয়ে সোনা জিতেছিলেন। সেই টাইমিংটা তিনি বুদাপেস্টে একই দিনে দুবার ছাড়িয়ে গেলেন।

এর আগে সোমবার রাতে ১০০ মিটার ব্রেস্ট স্ট্রোকে তিনি সোনা জেতেন ৫৭.৪৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে। এই ইভেন্টেও বিশ্ব রেকর্ডটা তারই। গত বছর রিও অলিম্পিকে তার টাইমিং ছিল ৫৭.১৩ সেকেন্ড। এই ইভেন্টে সেরা ১০ টাইমিংই পিটির!

Go Top