রাত ৮:৪৩, শুক্রবার, ২১শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলা বাসস্ট্যান্ড এলাকার জননী ক্লিনিক থেকে এক ভুয়া চিকিৎসককে গত বুধবার রাতে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি হলো নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার জগদিশপুর মৃধাপাড়া গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে মাহফুজুর রহমান। তিনি নিজেকে ডা. মাসুদ রানা হিসেবে সার্জারিতে এফসিপিএস ডিগ্রিধারী পরিচয় দিয়ে ওই ক্লিনিকে বিভিন্ন অপারেশন পরিচালনা করতেন। তার অপারেশন করা এক স্কুল ছাত্রী বুধবার মারা গেলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

নাচোল থানার ওসি আনোয়ারুল ইসলাম জানান, নাচোল উপজেলার জাহিদপুর গ্রামের নাসির উদ্দিনের মেয়ে নাহিদাকে পেটে ব্যথা নিয়ে গত ১৭ জুলাই জননী ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। ওই দিন এইচএসসি পাস করা ভুয়া ডাক্তার মাহফুজুর তার অপারেশন করে। পরে তার অবস্থার অবনতি হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে বুধবার মারা যায় নাহিদা। এই খবর ছড়িয়ে পড়লে রাত ১১টার দিকে স্থানীয় লোকজন ওই ক্লিনিক থেকে ভুয়া চিকিৎসক মাহফুজুর রহমানকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। আটকের পর ওই ভুয়া চিকিৎসক তার অপরাধ পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় নিহত নাহিদার বাবা নাসির উদ্দিন বাদী হয়ে নাচোল থানায় মামলা দায়ের করেন।

এই বিভাগের আরো খবর

চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মায় ভয়াবহ ভাঙন ভিটেমাটি হারিয়ে সর্বস্বান্ত মানুষ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : ভারত ফাঁরাক্কা বাঁধের গেট খুলে দেয়ায় উজান থেকে ধেয়ে আসা ঢলের কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে পদ্মা নদীতে তীব্র ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে এসব এলাকার শতাধিক ঘরবাড়ি, আমবাগান, আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ফলে ভিটেমাটি হারিয়ে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছেন এসব এলাকার অনেক মানুষ। হুমকির মধ্যে রয়েছে সরকারি-বেসরকারি অনেক স্থাপনা। এতে করে নদী তীরবর্তী এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাপক ভাঙন আতঙ্ক। অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, ফারাক্কা বাঁধের কিছু গেট খুলে দেয়ার পর থেকেই পদ্মা নদীর চাঁপাইনবাবগঞ্জ পয়েন্টে গত ১৫ দিন ধরে বাড়ছে পানি। আর পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে বিভিন্ন এলাকায়। সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের গোয়ালডুবি থেকে ভারতীয় সীমান্ত পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে চলছে পদ্মার তীব্র ভাঙন। ভাঙনে রোডপাড়া গ্রামটি এখন পদ্মার গর্ভে। বিপুল পরিমাণ আম বাগান ও ফসলি জমি ইতিমধ্যে পদ্মায় বিলিন হয়ে গেছে। পদ্মার ভাঙন রোধে এই এলাকায় ২ বছর আগে নির্মিত নদী তীর সংরক্ষণ বাঁধের শেষ অংশেও ভাঙন দেখা দিয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম জানান, গত দুই সপ্তাহ থেকে পদ্মায় পানি বাড়ছে। পানি বাড়ার সাথে সাথে নদী ভাঙন শুরু হয়েছে। তবে গত এক সপ্তাহ থেকে ভাঙনের তীব্রতা ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। তিনি বলেন, গোয়ালডুবি, বিশ^াসপাড়া, ফাটাপাড়া, মালবাগডাঙ্গা, ক্যাড়াপাড়া এলাকায় বর্তমানে ভাঙন চলছে। রোডপাড়া গ্রামের অর্ধ শতাধিক পরিবার ভাঙনের কারণে ঘরবাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছেন। গত সাত দিনে ওই এলাকাটি পদ্মার গর্ভে চলে গেছে বলে জানান তিনি। তিনি আরো জানান, বর্তমানে স্থানীয় ইউপি কার্যালয় ভবন, ইউনিয়ন ভূমি অফিস, ৩টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১টি উচ্চ বিদ্যালয়, ২টি মাদ্রাসা, মসজিদ, ঈদগাহ ও চরবাগডাঙ্গা বাজার হুমকির মধ্যে রয়েছে।

চরবাগডাঙ্গা গ্রামের আমিনুল ইসলাম জানান, তিনি নদী ভাঙনের কারণে ২ বছর আগে তার বাড়ি সরিয়ে আনেন চরবাগডঙ্গায়। কিন্তু নদী ভাঙতে ভাঙতে আবার তার বাড়ির কাছে হাজির। পরিবার নিয়ে এখন কোথায় যাবেন তা তিনি বুঝতে পারছেন না। অন্যদিকে শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নেও চলছে পদ্মার ভাঙন। ইউপি চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান জানান, হলদাপাড়া, জামাইপাড়া, লক্ষীপুর চর এলাকায় পদ্মার ভাঙন চলছে। এখন পর্যন্ত এসব এলাকা থেকে অর্ধ শতাধিক বাড়িঘর অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ শহিদুল আলম জানান, আকস্মিকভাবে উজান থেকে পানি ধেয়ে আসায় নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। চরবাগডাঙ্গা এলাকায় পদ্মার ভাঙন রোধে জরুরি ভিত্তিতে কাজ করার সুযোগ নেই। তবে এই এলাকার ভাঙন প্রতিরোধের লক্ষ্যে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্পটি অনুমোদিত হলে ভাঙন প্রতিরোধে কাজ করা হবে।

এই বিভাগের আরো খবর

নিরাপত্তার প্রশ্নে কোনো আপস নয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রাজশাহী প্রতিনিধি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, মানুষের নিরাপত্তার প্রশ্নে সরকার কারো সঙ্গে কোনো আপস করবে না। তিনি বলেন, জনগণ সাথে আছে বলে সরকার বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও থেকে শুরু করে উগ্রপন্থিদের সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়েছে। তাই সরকারের কাছে সবার আগে জনগণের নিরাপত্তা। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানাধীন প্রেমতলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের নতুন ভবনের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সুধী সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরো বলেন, দেশে নতুন নতুন পুলিশ ফাঁড়ির ভবন নির্মিত হচ্ছে। নতুন থানা, আদালত ভবন নির্মিত হচ্ছে। সরকার মনে করে, এ সবই বিনিয়োগ করা হচ্ছে জনগণের নিরাপত্তার জন্য। এর বিনিময়ে সরকার মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রশংসা করে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, হলি আর্টিজানে হামলা ছিল একটা ধাক্কা। তারপর পুলিশ, র‌্যাবসহ অন্যান্য সব বাহিনী তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করেছে। সাধারণ মানুষও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহায়তা করেছে। এখন বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সরকার প্রমাণ করেছে এ দেশে কোনো জঙ্গিবাদের ঠাঁই হবে না।

সমাবেশে স্থানীয় এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-৫ আসনের এমপি আবদুল ওয়াদুদ দারা, সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি আক্তার জাহান, কবি কাজী রোজী এবং পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) এম খুরশীদ হোসেন বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। সভাপতিত্ব করেন জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মোয়াজ্জেম হোসেন ভূঁঞা। সমাবেশের আগে সকালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রেমতলী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন করেন। রাজশাহী গণপূর্ত বিভাগ-২ ভবনটি নির্মাণ করে। ভবনটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে প্রায় এক কোটি ৬০ লাখ টাকা।

এই বিভাগের আরো খবর

সাপাহার সীমান্তে আবারও দুই বাংলাদেশী গরু ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বিএসএফ

সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর সাপাহার সীমান্তে আবারও দু’বাংলাদেশী গরু ব্যাবসায়ীকে আটক করেছে ভারতীয় বিএসএফ। বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার কলমু ডাঙ্গা সীমান্তের ওপারে ভারতীয় আদাডাঙ্গা ৬০বিএসএফ তাদেরকে আটক করে থানায় সোপর্দ করেছে।

জানা গেছে গত বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার কলমুডাঙ্গা বলদিয়াঘাট গ্রামের মো. সাদেকুল ইসলামের পুত্র রুবেল হোসেন (২৮) ও কলমুডাঙ্গা চৌমহনী এলাকার আব্দুলের পুত্র ফিরোজ কবির (২২) সীমান্ত পেরিয়ে ভারত অভ্যন্তরে গরু আনতে যায়। ভোরে তারা গরু নিয়ে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশের চেষ্টা করলে ভারতের আদাডাঙ্গা ৬০বিএসএফ’র টহল দল তাদেরকে ধাওয়া করে ধরে ফেলে। সকালে ঘটনা জানাজানি হলে কলমুডাঙ্গা বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার নায়ক সুবেদার সানোয়ার হোসেন বাংলাদেশী গরু ব্যবসায়ীদের ফেরত চেয়ে আদাডাঙ্গা বিএসএফকে পত্র পাঠায়। ফলে দুপুরে উভয় দেশের কোম্পানী কমান্ডার পর্যায়ে সীমান্তের ২৩৯নং মেইন পিলার এলাকায় এক পতাকা বৈঠক বসে।

দুপুর ২টা ৩০ মিনিট হতে সাড়ে তিনটা পর্যন্ত ঘন্টাকাল ব্যাপী পতাকা বৈঠকে বাংলাদেশী গরু ব্যাবসায়ীদের ফেরত পাঠানোর বিষয়ে বিএসএফ জানায় যে তাদেরকে আটক করার পর বামন গোলা থানায় সোপর্দ করা হয়েছে এজন্য তাদেরকে ফেরত পাঠানো সম্ভব নয়। এ বিষয়ে কলমুডাঙ্গা বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। উল্লেখ্য গত বুধবার ভোরে একই সীমান্তে কলমুডাঙ্গা ও কাড়িয়াপাড়া গ্রামের মাহাবুর এবং মোজাম নামের দু’বাংলাদেশী গরু ব্যাবসায়ীকে ভারতের সনঘাট ৬০বিএসএফ ক্যাম্পের সদস্যরা আটক করে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

মোহনপুরে গাঁজাসহ ৩ বিক্রেতা আটক

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ১৫ কেজি গাঁজাসহ তিন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব। বুধবার ভোরে উপজেলার বেলগাছি এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। আটকরা হলো রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার রানীনগর সাধুর মোড় এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে সাঈদ ইসলাম ওরফে বাবু এবং জেলার পবা উপজেলার পালোপাড়া গ্রামের মৃত নবী উল্লাহর ছেলে রবিউল ইসলাম ও মদনহাটি গ্রামের মৃত মেসের আলীর ছেলে রিয়াজ আলী।

র‌্যাব জানায়, আটকদের কাছ থেকে ১৫ কেজি গাঁজা ছাড়াও একটি পিকআপ ভ্যান, তিনটি মোবাইল সেট ও ৫টি সিমকার্ড জব্দ করা হয়েছে। তাদের মোহনপুর থানায় সোপর্দ করা হয়।

এই বিভাগের আরো খবর

দুপচাঁচিয়ায় নকল কষ্টিপাথরের মূর্তি মামলায় স্বামী-স্ত্রীসহ আটক ৫

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে জিয়ানগর এলাকা থেকে নকল কষ্টিপাথরের মূর্তি মামলায় স্বামী-স্ত্রীসহ ৫ জনকে আটক করেছে।

এরা হলো, নকল কষ্টিপাথরের মূর্তি মামলায় আদমদিঘী উপজেলার কেশরতা গ্রামের মৃত ছবেদ আলীর ছেলে আজাহার আলী আকন্দ (৫০), সিরাজগঞ্জ  জেলার রায়গঞ্জ উপজেলার নিচপাড়া গ্রামের নইলচা এলাকার আব্দুল সাত্তারের  ছেলে হয়দার আলী (৩৮), উপজেলার খোলাশ গ্রামের মৃত মশরত আলীর ছেলে জাহেদ সরদার (৫০), জাহেদ সরদারের স্ত্রী শাহিদা (৪০) ও মাদক মামলায় ধাপসুখানগাড়ী গ্রামের মৃত মঈন উদ্দিন প্রামানিকের ছেলে আফতাব হোসেন (৫০)। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ আব্দুর রাজ্জাক নকল কষ্টিপাথরের মূর্তি মামলায় স্বামী-স্ত্রী সহ ওই মামলায় ৪ জনকে জিয়ানগর উপজেলার শহরতলী গ্রামের জাহেদ সরদারের শুশ্বর বাড়ি থেকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আটককৃত ৫ জনকে বুধবার বগুড়া কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

বদলগাছীতে সানশেড ভেঙে নিহত ২

বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার মিঠাপুর ইউনিয়নের সাগরপুর গোয়ালপাড়া নামক গ্রামে দরজার সানশেড ভেঙে ২ জন নিহত ও ১ জন আহত হয়েছে। নিহত ব্যক্তিরা হলো গোয়ালপাড়া গ্রামের টাক্ট্রর মালিক মোহাম্মদের ছেলে লিটন (২৭) ও একই গ্রামের মিজানুরের ছেলে নাজমুল (২৬)।

জানা যায়, উক্ত গ্রামের ট্রাক্টর মালিকের ছেলে লিটন এবং টাক্ট্ররের দুই শ্রমিক  বুধবার বেলা আনুমানিক ১২ টার দিকে বাইরে থেকে ট্রাক্টর এনে বাড়িতে রাখার জন্য বড় দরজার গেট সাবল দিয়ে খুলে ট্রাক্টর বাড়িতে ঢোকানোর সময় দরজার  সানশেড ভেঙে পড়লে ৩ ব্যক্তি উক্ত নিচে চাপা পড়লে ঘটনাস্থলে ২ জন মারা যায়  । অপরদিকে হাজিপুর গ্রমের কমল চন্দ্রের ছেলে আহত ট্রাক্টর শ্রমিক অখিল চন্দ্রকে আহত অবস্থায় আক্কেলপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়। খবর পেয়ে বদলগাছী থানার ওসি তদন্ত মোঃ শাহিনুর রহমান ঘটনাস্থল পরির্দশন করেন।

এ বিষয়ে বদলগাছী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  মো. জালাল উদ্দীন ও (তদন্ত)  মো. শাহিনুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে কথা বললে তারা জানান, এ বিষয়ে থানায় কোন অভিযোগ করেননি।

এই বিভাগের আরো খবর

তারেক রহমানকে দেশে ফেরানোর তৎপরতা চলছে রাজশাহীতে আইনমন্ত্রী

রাজশাহী প্রতিনিধি :   ফেরারি আসামি হিসেবে বিএনপির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ইন্টারপোলের মাধ্যমে তৎপরতা চলছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।  বুধবার বিকেলে নবনির্মিত বহুতল রাজশাহী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ৫৭ ধারার অপরাধগুলোতে সাধারন মানুষ যেন ভোগান্তিতে না পড়ে সেদিকে লক্ষ্য করে সংশোধনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
এর আগে আইনমন্ত্রী বহুতল এই আদালত ভবনের নামফলক উন্মোচন করেন। পরে বেলুন উড়ানো শেষে আদালত চত্বরে বৃক্ষরোপণ করেন। এরপর আলোচনা সভায় যোগ দেন।

রাজশাহীর চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভবনটির ভিত্তি কাঠামো ১২ তলার। প্রথম পর্যায়ে আট তলার নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। ভবনের মোট আয়তন ৯৮ হাজার ৯৮৩ বর্গফুট।

এই বিভাগের আরো খবর

নওগাঁ সীমান্তে বিএসএফের হাতে ২ বাংলাদেশি আটক

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ নওগাঁর দুই গরুর রাখালকে আটক করেছে বলে জানিয়েছে বিজিবি। বিজিবির ১৪-এর কমান্ডিং অফিসার লেফটেন্যান্ট কর্নেল খিজির খান জানান, বুধবার ভোর ৪টার দিকে নওগাঁর সাপাহার উপজেলার কলমিডাঙ্গা এলাকার সীমান্ত দিয়ে ভারতে ঢুকলে বিএসএফ তাদের আটক করে।

আটককৃতরা হলেন – কলমিডাঙ্গা গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে মাহাবুর রহমান (২৮) ও কারিয়াপাড়া গ্রামের জিল্লুর রহমানের ছেলে মোজাম্মেল হক (৩০)।

বিজিবি কর্মকর্তা খিজির খান বলেন, তারা সীমান্তের ২৪০ নম্বর মেইন পিলারের পাশ দিয়ে ভারতে গরু আনতে যাচ্ছিলেন। “অবৈধ প্রবেশের অভিযোগে সনঘাট বিএসএফের টহল দল তাদের আটক করে ক্যাম্পে নিয়ে যায়। বিএসএফ তাদের নামে মামলা দিয়ে মালদহ জেলার বামনগোলা থানায় হস্তান্তর করতে পারে।”

তাদেরকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

 

এই বিভাগের আরো খবর

নওগাঁয় যৌতুকের দাবিতে নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ হাবিবার মৃত্যু

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁয় যৌতুকের দাবিতে বর্বরোচিত নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ হাবিবা মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে দীর্ঘ আট মাস পর মারা গেছেন।  মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে নওগাঁ শহরের দক্ষিণ হাট-নওগাঁ (কালীতলা) মহল্ল¬ায় গৃহশিক্ষক বাবা হাফিজুর রহমানের বাড়িতে মারা যান তিনি। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করেছে। বাদ আসর নামাজে জানাজা শেষে নওগাঁ কেন্দ্রিয় কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে। নির্যাতনের ঘটনায় হাবিবার বাবা হাফিজুর রহমান বাদী হয়ে চলতি বছরের গত ৬ ফেব্রুয়ারি নওগাঁ সদর মডেল থানায় তিনজনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার পর ছেলে অভি ও তার বাবা শামসুজ্জোহা খানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বর্তমানে হাইকোর্ট থেকে শামসুজ্জোহা খান জামিনে আছেন বলে জানা গেছে। তবে ঘটনার পর থেকে আজও ছেলের মা সৈয়দা তাহমিনাকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

জানা যায়, নওগাঁ শহরের দক্ষিণ হাট-নওগাঁ মহল্লার হাফিজুর রহমানের মেয়ে হাবিবা খাতুনের সাথে একই মহল্লার শামসুজ্জোহা খান বিদ্যুতের ছেলে তামভি হাসান অভির প্রেমের সম্পর্ক ছিল। হাবিবা নওগাঁ পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে বিজ্ঞান বিভাগের দশম শ্রেণির মেধাবী ছাত্রী। হাবিবা পঞ্চম শ্রেণিতে বৃত্তি, অষ্টম শ্রেণিতে জিপিএ-৫ এবং ২০১৫ সালে জেলা মেধা তালিকায় প্রথম স্থান অর্জন করে। গত ২৩ আগষ্ট’১৬ হাবিবা স্কুলে আসার নাম করে প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে পালিয়ে গিয়ে কোর্ট ম্যারেজের মাধ্যমে অভিকে বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকে হাবিবা বাবার বাড়িতে যোগাযোগ রাখত না।

কিন্তু বিয়ের তিন মাসের মাথায় হাবিবাকে বাবার বাড়ি থেকে দুই লাখ টাকা নিয়ে আসতে বলে অভির পরিবার। এতোগুলো টাকা হাবিবার বাবা গৃহশিক্ষক হাফিজুর রহমানের পক্ষে দেয়া সম্ভব নয়। এ নিয়ে হাবিবাকে প্রায় নির্যাতন করতো স্বামীর পরিবার। গত বছরের ৩০ নভেম্বর বিকেলে হাবিবার বাবার কাছে খবর পাঠানো হয় তার মেয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু ছেলের পরিবার ওইদিন হাবিবাকে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জীবিত বলে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করতে বলেন। এর ৪দিন পর অচেতন হাবিবাকে হাসপাতাল থেকে পালিয়ে নিয়ে যায় স্বামীর লোকজন। মেয়েকে দেখতে হাবিবার পরিবার রাজশাহীতে গেলে হাসপাতালে দেয়া ঠিকানায় খুঁজে পাওয়া যায়নি। এরপর কয়েকজনের সহযোগিতায় প্রায় ছয়দিন পর রাজশাহীতে অভির এক আতœীয়ের বাড়ি থেকে অচেতন হাবিবাকে উদ্ধার করা হয়। এরপর হাফিজুর রহমান তার মেয়েকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে সেখানে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। নির্যাতনের শিকার হাবিবার মাথার পিছনে ও মাজায় বড় ক্ষতের সৃষ্টি হয়। এছাড়া নির্যাতনে ফলে দুটি দাঁত ভেঙে যায়। খাবার দেয়া হয় নাক দিয়ে। কথা বলতে পারত না। শরীরের কোন অংশই যেন তার কাজ করত না। শুধু ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে থাকত। আর একটু পর পর চোখের পাতা ফেলত। দীর্ঘ ১৬ দিন লাইফ সাপোর্টে রাখার পর হাবিবাকে চিকিৎসকরা হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তির পরামর্শ দেন। সেখানে ৩ দিন থাকার পর বাড়ি নিয়ে যেতে বলেন চিকিৎসকরা।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারী’১৭ আবার নওগাঁ সদর হাসপাতালে আবারও হাবিবাকে ভর্তি করা হয়। কয়েকদিন চিকিৎসার পর অর্থসংকটে পরায় হাবিবাকে বাড়িতে নিয়ে যান তার বাবা। এতোদিন বাবার বাড়িতেই ছিল। দীর্ঘ আট মাস পর  মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে মারা যায় হাবিবা।

সরেজমিনে এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, দীর্ঘদিন সেবা-যতœ করা বাবা-মা শোকে যেন পাথর হয়ে গেছেন। চোখের পানি শুকিয়ে গেছে। কান্নাও করতেও ভুলে গেছেন তারা। প্রতিবেশীরা এসে শেষবারের মতো হাবিবার লাশটা দেখে যান। হাবিবার বাবা হাফিজুর রহমান বলেন, যৌতুকের জন্য আমার মেয়েকে বিভিন্নভাবে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছিল। বিভিন্ন চিকিৎসা করার পর শারীরিক কোন উন্নতি হয়নি। অবশেষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে হল তাকে। তিনি এর ন্যায় বিচারের দাবি জানান।

নওগাঁ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোরিকুল ইসলাম বলেন, সংবাদ পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করা হয়েছে। মামলার মূল আসামি গ্রেফতার আছে। আর ছেলের মা সৈয়দা তাহমিনাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

ধুনটে অটোরিকশা ও ফেনসিডিলসহ ২ জন গ্রেফতার

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার ধুনট উপজেলায় একটি অটোরিকশা ও ১০ বোতল ফেনসিডিলসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত সোমবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে ধুনট শহরের পশ্চিম ভরশাহী এলাকা থেকে অটোরিকশাসহ (বগুড়া থ-১১-০৫৭৮) তাদের গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে ধুনট থানা থেকে আদালতের মাধ্যমে তাদের বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ধুনট উপজেলার সদরপাড়া শাহজাহান আলীর ছেলে ইউনুস আলী অনেক দিন ধরে মাদক ব্যবসা করেন। সোমবার রাত ১১টার দিকে ইউনুস আলী ১০ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে সিএনজি চালিত অটোরিকশায় করে ধুনট শহরে আসতে ছিল। এ সময় পুলিশ খবর পেয়ে ইউনুস আলী ও শেরপুর উপজেলার শালফা গ্রামের মোকবুল হোসেনের ছেলে অটোরিকশা চালক মজিবর রহমানকে গ্রেফতার করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ওই অটোরিকশা থেকে অরও একজন কৌশলে পালিয়ে গেছে। পরে পুলিশ তল্লাশি চালিয়ে ইউনুস আলীর নিকট থেকে ১০ বোতল  ফেনসিডিল জব্দ করে। এ ঘটনায় ধুনট থানার এসআই খোকন কুমার কুন্ড বাদী হয়ে যুবলীগ নেতা ইউনুস আলী ও অটোরিকশা চালক মজিবরসহ তিন জনের বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেছে। ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

এই বিভাগের আরো খবর

ধুনটে ভাগ্নের রামদা’র কোপে মামার কান বিচ্ছিন্ন, গ্রেফতার ২

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার ধুনট উপজেলায় ওয়ারিশের মাত্র ১২ শতক  জায়গা নিয়ে বিরোধের জের ধরে রামদার কোপে মামার মাথা থেকে একটি কান বিচ্ছিন্নর ঘটনায় দুই ভাগ্নেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত সোমবার দিবাগত রাতে ধুনট উপজেলার চৌকিবাড়ি ইউনিয়নের ক্ষুদ্রপিরহাটী গ্রামের সালিশী বৈঠকে এ ঘটনা ঘটে।

 গ্রেফতারকৃতরা হলো- শেরপুর উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের চোমরপাথালিয়া গ্রামের কাজেম উদ্দিন মন্ডলের ছেলে রেজাউল করিম মন্ডল (২৮) ও তার ছোট ভাই আব্দুর রশিদ মন্ডল (২৫)। মঙ্গলবার দুপুরে ধুনট থানা থেকে আদালতের মাধ্যমে তাদের বগুড়া কারাগারে পাঠানো হয়েছে।   

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ধউপজেলার ক্ষুদ্রপিরহাটী গ্রামের মৃত: এলাহী বক্সের ছেলে আব্দুস সামাদ (৫০) ও আবু তাহেরের (৪৫) সাথে তার বোনের ছেলেদের মাত্র ১২ শতক জমি নিয়ে পূর্ব থেকে বিরোধ রয়েছে। সোমবার দিবাগত রাতে এই বিরোধ মিমাংসার জন্য আব্দুস সামাদের বাড়িতে মামা ও ভাগ্নেদের মাঝে বৈঠক হয়। ওই বৈঠকে কথাকাটির এক পর্যায়ে ভাগ্নের রামদার কোপে মামা আবু তাহেরের মাথা থেকে বাম পাশের কান কেটে মাটিতে পড়ে যায়।

এ সময় স্থানীয় লোকজন রেজাউল করিম ও আব্দুর রশিদকে আটক করে থানায় সংবাদ দিলে পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় আব্দুস সামাদ বাদী হয়ে গ্রেফতারকৃত দুই ভাগ্নেসহ অজ্ঞাত ৭ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এদিকে, আহত আবু তাহেরকে চিকিৎসার জন্য ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। থানা হাজতে আটক রেজাউল করিম মন্ডল বলেন, ওয়ারিশ সূত্রে মামাদের নিকট থেকে মায়ের অংশের ১২ শতক জমি পাওনা আছি। সেই জমি বুঝে দেওয়ার জন্য বার বার বলা হলেও মামারা জমির দখল ছেড়ে দিচ্ছে না। এ বিষয় নিয়ে সালিশী বৈঠকে মামাদের সাথে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। কিন্তু ছোট মামার কান কিভাবে কেটেছে জানা নেই। ধুনট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, ওয়ারিশের সম্পত্তি নিয়ে মামা-ভাগ্নের মধ্যে বিরোধের জের ধরে কান কাটার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় মামার দায়ের করা মামলায় দুই ভাগ্নেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

গুরুদাসপুরে বাসচাপায় নারী নিহত

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলায় বাসের চাপায় আকলিমা বেগম (৬৫) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন ভ্যান চালকসহ আরো দুই নারী।

মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) সকাল ১০টার সময় বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের কাছিকাটা বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আকলিমা বেগম সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার বাঙ্গালপাড়া গ্রামের মৃত আবু তাহের মুর্শিদির স্ত্রী। আহত ভ্যান চালক ও অপর দুই নারীর নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

বনপাড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিএম সামসুন নুর জানান, আকলিমা বেগম ও অপর দুই নারী সকালে কাছিকাটা এলাকায় একটি ভ্যানে করে যাচ্ছিলেন। ভ্যানটি রাস্তা পার হতে গেলে ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী আরপি এলিগেঞ্জের একটি বাস ভ্যানটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই আকলিমা বেগমের মৃত্যু হয় এবং ভ্যান চালক ও দুই নারী আহত হন।

তাদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

দুপচাঁচিয়ায় বিদ্যুৎস্পর্শে এক ব্যক্তির মৃত্যু

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার তালোড়া মুক্তাগাঁছা গ্রামে গত রোববার বিকেলে বিদ্যুৎস্পর্শে শহিদুল ইসলাম (৪২) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার তালোড়া মুক্তাগাঁছা গ্রামের আবুল হোসেন আকন্দের পুত্র শহিদুল ইসলাম (৪২) গত রোববার বিকেলে নিজ বাড়িতে পাওয়ার টিলার মেশিন ড্রিল করার সময় অসাবধানতাবশত ড্রিল মেশিনের সাথে বিদ্যুৎ সংযোগ হয়ে যায়।  বিদ্যুৎস্পর্শে সে আহত হয়। দ্রুত তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। এ সংক্রান্তে ওই দিন রাতেই দুপচাঁচিয়া থানায় অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

চাঁপাইনবাবগঞ্জে বজ্রপাতে গৃহবধূর মৃত্যু

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের ধুলিপাড়া মাঠে  সোমবার বজ্রপাতে আরিফা  বেগম (২৫) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। আরিফা  বেগম উপজেলার ধুলিপাড়া গ্রামের মামুন আলীর স্ত্রী।

শাহবাজপুর ইউপি  চেয়ারম্যান  তোজাম্মেল হক জানান,   সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে আরিফা বেগম বাড়ির পাশে মাঠে ছাগল আনতে যান। এ সময় বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলে আরিফা বেগম মারা যান।

 

এই বিভাগের আরো খবর

সারিয়াকান্দিতে আওয়ামী লীগ নেতার আত্মহত্যা

সারিয়াকান্দি (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রেজাউল করিম দুলাল  সোমবার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তিনি উপজেলার ফুলবাড়ি ইউনিয়নের মৃত জালাল উদ্দিন প্রামাণিকের দ্বিতীয় পুত্র । এলাকাবাসী জানায়, নিহত দুলাল একজন চাল ও মরিচ ব্যবসায়ী।

 সোমবার সকাল সাতটার দিকে দুলাল তার বগুড়ার বাসা নাটাইপাড়া থেকে ফুলবাড়ির বাড়িতে আসেন। সকালে নাস্তা খাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। এরপর তিনি বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করে। দুপুরে তার জামাই পান্না আহম্মেদ দেখতে পায় চাতালের একটি মিল ঘরে তীরের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। পারিবারিক অশান্তির কারণে সে আত্মহত্যা করেছে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী সারিয়াকান্দি থানার এসআই মিজানুর রহমান জানান, তিনি গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তিনি মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন। এর আগেও তিনি ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন। এদিকে তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন, বগুড়া- আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাদারা মান্নান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেক দুলু। 

এই বিভাগের আরো খবর

ধামইরহাটে নির্যাতন চালিয়ে গৃহবধূ হত্যার অভিযোগে স্বামী-শাশুড়ি আটক

ধামইরহাট (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর ধামইরহাটে নির্যাতন চালিয়ে গৃহবধূ হত্যার অভিযোগে স্বামী ও শাশুড়িকে আটক করেছে পুলিশ। এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত প্রায় ১ বছর পূর্বে উপজেলার ধামইরহাট ইউনিয়নের হরিতকীডাঙ্গা (মহব্বতপুর) গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে মামুন হোসেন রাজু (২৪) এর সাথে জাহানপুর ইউনিয়নের মঙ্গলবাড়ী (মুকুন্দপুর) গ্রামের বাদল হোসেনের মেয়ে ববিতা খাতুন (১৯) এর সাথে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে স্বামী যৌতুকের জন্য প্রায়ই স্ত্রীর উপর নির্যাতন চালাত। এর এক পর্যায়ে গত শুক্রবার রাতে ববিতার উপর রাজু অমানুষিক নির্যাতন চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই ববিতা মারা যায়। পরবর্তীতে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল প্রতিবেদনে গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানান। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নওগাঁ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ববিতার মা তাজনুর বেগম বাদী হয়ে থানায় নির্যাতন চালিয়ে হত্যা মামলা করেন।

এ ব্যাপারে অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. সানোয়ার হোসেন বলেন, মামলার প্রেক্ষিতে থানাপুলিশ ববিতার স্বামী মামুন হোসেন রাজু ও তার মা বিলকিছ বেগমকে (৪৫) আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, ববিতার গলায় আঘাতের চিহৃ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তার উপর নির্যাতন চালিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া গেলে প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

এই বিভাগের আরো খবর

ধুনটে গাছে গাছে ঝুলছে জাতীয় ফল কাঁঠাল

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় অন্যান্য বছরের তুলনায় বগুড়ার ধুনট উপজেলায় পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ রসালো ফল কাঁঠালের এবার বাম্পার ফলন হয়েছে।  

সরেজমি দেখা যায়, উপজেলার বিভিন্ন বাড়িতে, রাস্তার ধারে, ও মাঠের ভিতরে প্রচুর কাঁঠাল ঝুলছে। গাছের গোঁড়া থেকে আগা পর্যন্ত শোভা পাচ্ছে সর্বোচ্চ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এই ফল। চারদিকে পাকা কাঁঠালের ঘ্রাণ। হাটবাজারে প্রতিনিয়ত বিক্রি হচ্ছে এ ফলটি। চলছে কাঁঠাল বেচা-কেনার ধুম। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় দাম কম।

বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ক্রেতারা ভিড় জমাচ্ছেন কাঁঠাল বাজারে। এখানকার উৎপাদিত কাঁঠাল কেমিক্যালমুক্ত হওয়ায় দেশের সর্বত্র চাহিদা রয়েছে। উৎপাদনে খরচ নেই ও বাজারে চাহিদা থাকায় এ জনপদে কাঁঠালের গাছ রোপণ করে অনেকে কাঁঠাল বিক্রিতে বাড়তি আয় করেন। এখানকার হাট-বাজারে একটি কাঁঠাল সর্বনিম্ন ১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে।

এ উপজেলার মানুষের অতি প্রিয় ফল ও তরকারি হিসেবে কাঁঠাল যুগ যুগ ধরে কদর পেয়ে আসছে। কাঁঠালের বিচি এখানকার মানুষের একটি ঐতিহ্যপূর্ণ তরকারি। গবাদিপশুর জন্যও কাঁঠালের ছাল উন্নতমানের গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

স্থানীয়রা জানান, কাঁঠাল একটি প্রিয় ফল। অত্যধিক পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এ ফল প্রতি মৌসুমে বেশি করে খাই। কাঁঠালের কোনো অংশই পরিত্যক্ত থাকে না। এর বিচি তরকারি হিসেবে ও ছাল গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হওয়ায় কাঁঠালের কদর বেড়েছে। এলাকার দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য এই মৌসুমে মেয়ের শ্বশুর বাড়িতে আম-কাঁঠাল পাঠানো। এই রেওয়াজ এখনও চলে আসছে। তবে যাদের সামর্থ্য বেশি তারা আম-কাঠালের সাথে অন্যান্য ফলও যুক্ত করেন। এ অঞ্চলের মাটি কাঁঠাল চাষের জন্য অত্যন্ত উপযোগী। এখানকার কাঁঠাল তুলনামূলকভাবে মিষ্টি ও সু-স্বাদু।

মথুরাপুর বাজারের কাঠাল ব্যবসায়ী জিয়ারুল ইসলাম বলেন, এই উপজেলার মাটি এঁটেল ও দোআঁশ মিশ্রিত। এই মাটিতে কাঁঠালের ফলন ভালো হয়। এসব কাঁঠাল সুস্বাদুও। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার কাঁঠালের ফলন ভালো হয়েছে। বাজারে প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণ কাঁঠাল নিয়ে আসছেন চাষিরা। আমদানি বেশি হওয়ায় দামও তুলনামূলক কম।

উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুস ছোবাহান বলেন, কাঁঠাল অত্যন্ত পুষ্টিকর হওয়ায় সরকারিভাবে এর ফলন বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কৃষকদের আগ্রহ বাড়াতে ব্যবস্থা করা হয়েছে প্রশিক্ষণ ও প্রদর্শনীর। কাঁঠাল উৎপাদন করলে একই সাথে ফসল এবং কাঠ পাওয়া যায়। কাঁঠাল গাছের পাতা থেকে শুরু করে কাঁঠালের প্রতিটি অংশ ব্যবহার করা যায় বলে অন্যান্য ফলের তুলনায় এটি লাভজনক।
এ ছাড়াও তেমন যতেœরও প্রয়োজন হয় না। একটি গাছ বহু বছর পর্যন্ত ফলন দেয়। তবে, বন্যা মুক্ত এলাকায় কাঁঠালের বাগান করা উচিত। কারণ দীর্ঘদিন এই গাছ পানিসহ্য করতে পারে না।

এই বিভাগের আরো খবর

বাগাতিপাড়ায় বিশেষ অভিযানে আটক ২০

বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি : নাটোর বাগাতিপাড়ায় বিশেষ অভিযানে গত দুইদিনে ২০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। মাদক, ডাকাতি, অস্ত্রমামলা, ওয়ারেন্টভুক্তসহ বিভিন্ন অভিযোগে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

থানা সূত্রে জানা গেছে, গত শনিবার রাতে বাগাতিপাড়া উপজেলায় পুলিশের বিশেষ অভিযান চালিয়ে ১২ জনকে আটক করে। আটককৃতরা হলেন, হাশেম (৬৩), কবির (১৯), শাকিল (২২), সুজন (২১), কামাল (৪০), ফারুখ (৪০), জাফর ওরফে সুজন (৩০), রফিকুল (৩০), শহিদুল (২৫), আনোয়ার (২৭) , শহিদুল (৩০) ও ফারুখকে (২৮) আটক করে।
এদিকে শুক্রবার রাতে নওশাদ (৩৫), হায়দার (৪০), ফারুখ (৪০), জিয়াউর (২৮), আজমত (২৬), মনিরুল (৩২), জহুরুল (৩৫) ও তুষারকে (২৩) আটক করা হয়েছে।
বাগাতিপাড়া মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ মনিরুল ইসলাম আটকের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
 

এই বিভাগের আরো খবর

শেরপুরে বাস-ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ১

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ট্রাক চালক নিহত হয়েছে। তার নাম মানিক মিয়া (৪০)। বাবার নাম সাদেক আলী। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১০ জন। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ও বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) ভর্তি করা হয়েছে।  রোববার সকালের দিকে উপজেলার ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের জামালপুর এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। শেরপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার মো. সোহেল রানা এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ঢাকাগামী এসআর ট্রাভেলসের একটি যাত্রীবাস (ঢাকা মেট্টো-ব-১৪-৬৩৬৫) উক্ত স্থানে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা অপর একটি মালবাহী ট্রাকের (ঢাকা মেট্টো ব-১৪-৭৬৩৯) মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে গুরুতর আহত ট্রাক চালক মানিক শজিমেক হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যায়।

 

এই বিভাগের আরো খবর

রাজশাহীতে হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসির রায়

ভাগ্নেকে হত্যার দায়ে একজনের ফাঁসির রায় দিয়েছে রাজশাহীর একটি আদালত। এছাড়া আরেকজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। রোববার রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শিরীন কবিতা আখতার এ রায় ঘোষণা করেন বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এন্তাজুল হক বাবু।

মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন নগরীল রাজপাড়া থানার মোল্লাপাড়ার মৃত এসাহাক আলীর ছেলে আব্দুল মালেক এবং যাবজ্জীবন দণ্ডিত হন পবা উপজেলার সরিষাকুঁড়ি গ্রামের শামসুজ্জোহার ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন।

প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করা হয়। রায় ঘোষণার সময় দুই আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, শ্যালো ইঞ্জিন চালিত ভটভটির চাঁদা তোলা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ২০১৩ সালের ৫ অগাস্ট রাতে রাজশাহী নগরীর রাজপাড়া থানার হড়গ্রাম কড়াইতলায় সৎ মামা আব্দুল মালেক ও তার সহযোগী জাহাঙ্গীরের হাতে ছুরিখাঘাতে খুন হন আলামিন।

অ্যাডভোকেট এন্তাজুল হক বলেন, এ ঘটনায় আমিনের বাবা আব্দুল ওহাব বাদী হয়ে রাজপাড়া থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় আব্দুল মালেক, তার ভাই তারেক রহমান ও জাহাঙ্গীর হোসেনকে আসামি করা হয়। তদন্ত শেষে তারেকের নাম বাদ দিয়ে অভিযোগপত্র দাখিল করে রাজপাড়া থানা পুলিশ।

মামলা চলাকালে ১৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয় বলে জানান এন্তাজুল হক।

 

এই বিভাগের আরো খবর

চারঘাটে হেরোইনসহ ইউপি সদস্য আটক

রাজশাহী প্রতিনিধি : রাজশাহীর চারঘাটে ২৫ গ্রাম হেরোইনসহ ইউপি সদস্য আশরাফ আলীকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার সকাল দশটার দিকে চারঘাট-বানেশ্বর মহাসড়কের শিশুতলা নামক স্থানে শরীর তল্লাশি করে হেরোইনসহ তাকে আটক করা হয়েছে। আশরাফ আলী উপজেলার শলুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য এবং ওই ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য। তিনি উপজেলার চামটা গ্রামের মৃত-গোলাম পাঞ্জাতনের ছেলে। এ ঘটনায় উপ-পরিদর্শক (এসআই) মামুন বাদী হয়ে মাদক দ্রব্য আইনে একটি মামলা করেছেন।

মডেল থানার ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মন জানান, ইউপি সদস্য আশরাফ আলী একজন মাদক সম্রাট। সে জনপ্রতিনিধির আড়ালে দীর্ঘদিন ধরে হেরোইন ও ইয়াবা বিক্রি করে আসছিল। শনিবার সকালে পুলিশ গোপন সংবাদে জানতে পারে হেরোইন সম্রাট আশরাফ আলী ২৫ গ্রাম হেরোইন নিয়ে বানেশ্বরের দিকে যাচ্ছে। পরে আশরাফ আলী নিল রংয়ের মোটরসাইকেল যোগে শিশুতলা নামক স্থানে পৌঁছলে পুলিশ তার শরীর তল্লাশি করে ২৫ গ্রাম হেরোইনসহ তাকে আটক করে।
আশরাফ আলী আর আগেও হেরোইনসহ র‌্যাবের হাতে আটক হয়েছিলেন বলে জানান ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মন। শনিবার দুপুর এগারোটার দিকে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, আশরাফ আলী দীর্ঘদিন ধরে হেরোইন ও ইয়াবা বিক্রি করে এলাকায় হেরোইন সম্রাট আশরাফ বলেই পরিচিতি লাভ করেন। হঠাৎ করেই তিনি গত ইউপি নির্বাচনে ৩নং ওয়ার্ড থেকে নির্বাচন করে জনপ্রতিনিধিতে রূপান্তরিত হোন। এরপর সে ঐতিহ্যবাহী শলুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য নির্বাচিত হোন। কিন্তু তার পরেও আশরাফ আলী হেরোইন ব্যবসা বন্ধ না করে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে চালিয়ে যান অবৈধ হেরোইন বাণিজ্য। ফলে আশরাফ আলী আটকের সংবাদে শলুয়া জুড়ে সাধারণ মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন বলে ওই এলাকার একাধিক ব্যক্তির দাবি।

এই বিভাগের আরো খবর

তানোরে এক যুগ ধরে শিবনদীতে সেতু যন্ত্রণা

তানোর (রাজশাহী) প্রতিনিধি : ২০০৫-০৬ অর্থবছর। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায়। ক্ষমতার দাপটে তৎকালীন সময়ের স্থানীয় এমপি ও ডাক-টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হক রাজশাহীর তানোর সদরে শিবনদীর ওপর ২১৫ দশমিক ৮ মিটার দীর্ঘ সেতুর সংযোগ সড়ক ছাড়াই নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন। এতে ব্যয় ধরা হয় ৩ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।

দীর্ঘ ৭ বছর পর ২০১২ সালের ৩০ জুন সেতু নির্মাণ কাজ শেষ হয়। কিন্তু সংযোগ সড়কের অভাবে সেতুটি কোন কাজে আসেনি। এরই মাঝে ২০০৮ সালে রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) সংসদীয় আসনে ওমর ফারুক চৌধুরী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ অবস্থায় সেতুর এমন বেহাল অবস্থা দেখে ভূমি অধিগ্রহণ ও ১ দশমিক ৪৫০ কিলোমিটার সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেন।

সংযোগ এই সড়কটি মোহনপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকার শিবনদীর বাঁধ থেকে রাজশাহী থেকে তানোর গোল্লাপাড়াহাটে পৌঁছার মেইন সড়ক পর্যন্ত ধরা হয়। এই সংযোগ সড়ক নির্মাণে প্রথমে সাড়ে ৫ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়। পরে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ধাপে সাড়ে ৭ কোটি টাকা ব্যয় ধরে সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষ। ধাপে ধাপে ব্যয় বাড়ানো হলেও সেতুর কাজ সম্পূর্ণ হয়নি। কিন্তু ২০১৬ সালের ৩০ জুন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার শতভাগ কাজের বিল-ভাউচার দেখিয়ে পুরো টাকা তুলে নেন।

অপরদিকে, ওই সংযোগ সড়কের নাম পরিবর্তন করে মোহনপুর এলজিইডি অফিস ২০১৩-১৪ অর্থবছরে সইপাড়া আর এ্যান্ড এইচ হতে গোল্লাপাড়াহাট পর্যন্ত ৭ হাজার ২১০ মিটার চেইনেছে শিবনদীর ওপর অবস্থিত ২১০ দশমিক ৫ মিটার দীর্ঘ আর সিসি সেতুর উভয় পাশে সংযোগ সড়ক নির্মাণে টেন্ডার আহবান করে। এই কাজের উদ্বোধন করেন রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) সংসদীয় আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন। এতে ব্যয় ধরা হয় সাড়ে ৫ কোটি টাকা। কিন্তু সড়কটি আজও নির্মাণ হয়নি। ফলে মোহনপুর সীমানার বাঁধ থেকে তুলসিক্ষেত্র পর্যন্ত সংযোগ সড়কে শুধু পায়ে হাটা যায়। ভারী কোন যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা গরুর গাড়ি কিংবা ভ্যান গাড়িও চলে না।

এছাড়া ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে সংযোগ সড়কের দুধারে ব্লক বসানোর নামে সেতু সংশ্লিষ্টরা ৮৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন। কিন্তু নামে মাত্র কাজ দেখিয়ে আবারো পুরো টাকা তুলে নেন সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার। ওই একই কাজে চলতি ২০১৭-০১৮ অর্থবছরে ৯৫ লাখ টাকা ব্যয় ধরে আবারও টেন্ডার আহবান করা হয় বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তানোর এলজিইডি অফিসের এক কর্মচারী জানিয়েছেন।

তানোর পৌর সদরের আমশো মহল্লার বাসিন্দা আরিফুজ্জামান মোল্লা বাচ্চু জানান, সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণে সরকারের ধাপে ধাপে ১৮ কোটি টাকা ব্যয় হলেও দুর্ভোগ কাটেনি তানোর ও মোহনপুর উপজেলার লাখো মানুষের। ফলে ১২ বছর ধরে এই অঞ্চলের মানুষ সেতু যন্ত্রনায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। কিন্তু টনক নড়েনি কর্তৃপক্ষের। তিনি অবিলম্বে শিবনদীর সংযোগ দিয়ে সুগমপথ চালু করতে সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ সংক্রান্ত ব্যাপারে তানোর এলজিইডি প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ-আল-মামুন বলেছেন, সেতুর সংযোগ সড়ক সুগম করতে চলতি অর্থবছরে রাজশাহী এলজিইডি অফিস থেকে টেন্ডার আহবান করা হয়েছে। ঠিকাদার নিযুক্ত ব্যাপারে তিনি অবগত নন বলে বিষয়টি এড়িয়ে যান এই প্রকৌশলী।

এই বিভাগের আরো খবর

নাটোরে স্কুলশিক্ষিকার রহস্যজনক মৃত্যু

নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরে নওশিন খন্দকার তমা (২৫) নামে এক স্কুলশিক্ষিকার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের দক্ষিণ বড়গাছা এলাকায় তার নিজ শয়ন ঘর থেকে মরদহটি উদ্ধার করা হয়। স্কুলশিক্ষিকা  নওশিন খন্দকার তমা ওই এলাকার এডভোকেট খন্দকার মোশারফ হোসেনের মেয়ে। তিনি শহরের মল্লিকহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ছিলেন।

নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিকদার মশিউর রহমান জানান, দুপুরে তাদের কাছে খবর আসে শহরের দক্ষিণ বড়গাছা এলাকায় এক স্কুলশিক্ষিকা আত্মহত্যা করেছেন। ওই খবরের ভিত্তিতে ঘটনাস্থল গিয়ে শিক্ষিকা তমার শয়ন ঘর থেকে সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় তার মরদেহ এবং তার হাতের লেখা একটি চিঠি উদ্ধার করা হয়।

ওসি জানান, ওই চিঠিতে শিক্ষিকা নওশিন খন্দকার তমা মৃত্যুর জন্য কাউকে দায়ী করেননি। এই মৃত্যুর জন্য তিনি নিজেই দায়ী বলে উল্লেখ করেছেন।
তাই প্র্থামিকভাবে আত্মহত্যার বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে। তমা সকালের দিকে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে নিজ শয়ন ঘরের ফ্যানের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে চিরকুটটি লিখে গেছেন। তারপরও চিঠির সূত্র ধরে তদন্ত করে এই মৃত্যুর আসল কারণ উদঘাটন করা হবে। পরিবারের পক্ষ থেকে কোন অভিযোগ না থাকায় আপাতত অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা রুজু করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

সাপের ভালবাসা

নাটোর  ও নলডাঙ্গা প্রতিনিধি : দু’টি সাপের যৌন মিলনই মানুষের কাছে শঙ্খলাগা নামে পরিচিত। এটা  বেশ বিরল দৃশ্য। কিন্তু সাপের এই শঙ্খ লাগা সচারচর চোখে পড়ে না। কালেভাদ্রে  দেখা মিললেও সেই বিরল দৃশ্য দেখতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে মানুষ। তেমনই এক বিরল দৃশ্যের অবতারণা হয়েছে নাটোরে। গত বুধবার বিকেল তিনটা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সদর উপজেলার বড়হরিশপুর এলাকায় জেলখানার পেছনে একটি ফসলি জমিতে দু’টি দাঁরাশ (স্থানীয় ভাষায় দারাজ) সাপের শঙ্খ লাগা দৃশ্য মানুষকে হতবাক করে দিয়েছে। এই খবর চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে উৎসুক মানুষ ভিড় জমাতে থাকে সেখানে। দীর্ঘ সময় তারা সাপের শঙ্খ লাগা উপভোগ করেন। ছেলে-বুড়োসহ সকলেই আসেন সাপের শঙ্খ দেখতে ভিড় জমান এলাকায়।

বড়হরিশপুর এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য ইব্রাহিম হোসেন জানান, ওইদিন বিকেলে দিকে বড়হরিশপুর এলাকায় জেলখানার পেছনে একটি ফসলি জমিতে দু’টি দারাজ সাপের শঙ্খ লাগা দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায়। পরে এই খবর চারিদিকে ছড়িয়ে পড়লে সাপের শঙ্খ দেখতে হুমরি খেয়ে ভিড় জমাতে থাকে উৎসুক মানুষ।

তিনি জানান, সাপের এই শঙ্খটি প্রায় সাড়ে তিন থেকে চার ঘন্টা স্থায়ী ছিল। দুইটি সাপই দারাজ সাপ। সাপ দু’টি লম্বায় ৪ থেকে ৫ ফুট হবে। শঙ্খ লাগা অবস্থায় দুই সাপ নিজেদের জড়িয়ে অনেক উঁচুতে লাফালাফি, জড়াজড়ি, মারামারি, কামড়া-কামড়ি করতে দেখা গেছে। এই প্রথম সাপের শঙ্খলাগা নিজ চোখে দেখেছেন বলে তিনি যোগ করেন।

এদিকে  বৈজ্ঞানিক কোন ব্যাখা না থাকলেও সাপের শঙ্খলাগাকে মঙ্গলজনক শুভ চিহ্ন হিসেবেই দেখছেন স্থানীয়রা। অনেকেই বলছেন, এরকম দৃশ্য চোখে পড়লে নাকি সন্তান বাসনা পূরণ হয়।  কেউ কেউ বলেন, শঙ্খ লাগলে নাকি বৃষ্টিপাত ঘটে, আবার অনেকের ধারণা সাপের শঙ্খ লাগা স্থানে নতুন কাপড় বিছাইয়া দিয়ে ওই কাপড় যতœ করে রাখলে নাকি সংসারের লক্ষ্মী উপচিয়ে পড়ে। এরকম নানা অভিমত শোনা যায় ঘটনাস্থলে আসা লোকজনদের কাছে। ফলে এনিয়ে কৌতূহলের সৃষ্টি হয় আগতদের।

তবে সাপের শঙ্খ সম্পর্কে প্রচলিত এসব ধারণা বা বিশ্বাসগুলি একান্তই ভিওিহীন বলে দাবি করেছেন প্রাণিবিজ্ঞানী ও নাটোর নবাব সিরাজ উদ দৌলা সরকারি কলেজের সাবেক প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মখলেছুর রহমান। তিনি জানান, সাপের শঙ্খ লাগা একটি সাধারণ ঘটনা ও প্রাকৃতিক বিষয়। মানুষ বা অন্য প্রাণির যেমন যৌন মিলন হয়, সাপও ঠিক তেমনিভাবে পরিবেশের ওপর আচরণ বিরাজ করে প্রজননের জন্য যৌন মিলন ঘটায়। সব কিছু একই রকম।

তিনি বলেন, সাপের নির্দিষ্ট সময় থাকে, তখন তাদের প্রজনন সক্ষমতা বৃদ্ধি পায়,  যৌন মিলনে উদ্দিপ্ত করে এবং প্রেমের বা ভাল লাগার বিষয়টি প্রাধান্য পায়। কেবল তখনি সাপেরা  যৌন মিলনে মিলিত হয়। এছাড়া সাপেরা যৌন মিলনে খাদ্য, নিরাপত্তা, তাপমাত্রা এবং সঙ্গীর সহজলভ্যতা এসবের ওপরও নির্ভর করে থাকে। সাধারণত বর্ষাকালটা সাপের যৌন মিলনের জন্য অনেকটাই উপযুক্ত সময়। এজন্য এই সময়তেই বেশি সাপের শঙ্খ বা যৌন মিলন বেশি হয়ে থাকে। আবার প্রজজনের ঋতু ছাড়াও অন্য সময়ে তিন বা তার বেশি সাপের শঙ্খ লাগে এবং সবচেয়ে লক্ষ্যণীয় দুটি পুরুষ সাপেও শঙ্খ লাগে। আসলে নিছক খেলার ছলে কিংবা আপন পৌরুষ জাহির করার জন্য মারামারি বা শঙ্খ লাগে।
তিনি আরও বলেন, সাপ যৌন মিলনের আগে বা মিলনের সময় প্রজননভাব ও অনুরাগের বহিঃপ্রকাশ করে, লাফালাফি, পরস্পর জড়াজড়ি, মারামারি, কামড়া-কামড়ি করে, অনেক সময়ে দেহ কেটে-ছিড়ে যায়। কাজেই মানুষের মধ্যে যেভাব বা ধারণা রয়েছে তা নিছক ভুল ছাড়া আর কিছু নয়।

এদিকে এ বিষয়ে জাতীয় তথ্যকোষ বাংলাপিডিয়া বলছে, এ অঞ্চলে কেবল দাঁরাশ সাপই যুদ্ধ নাচ (ঈড়সনধঃ ফধহপব) দেখায়। প্রতিদ্বন্দ্বী দু’টি সাপের মধ্যে এ লড়াই হয়। তখন এরা পরস্পর দেহের অর্ধেক রশির মত পেঁচিয়ে মাটির সমান্তরালে অথবা কিছুটা উপরে থাকে। তখন গ্রামাঞ্চলের  বেশির ভাগ মানুষ একে গোখরা ও দাঁড়াশের মধ্যে যৌন মিলন মনে করেন। দাঁড়াশ সাপ ( জধঃ ঝহধশ ) গোত্রের বিষহীন একটি সাপ (ঈড়ষঁনবৎ সঁপড়ংঁং )।

 

এই বিভাগের আরো খবর

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৯ কেজি বিস্ফোরকসহ যুবক আটক

চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৯ কেজি বিস্ফোরকসহ এক যুবককে আটক করেছে র‌্যাব।বুধবার রাত সাড়ে আটটার দিকে সদর উপজেলার সুন্দরপুর-শিবিরের মোড় থেকে মোহাম্মদ মিঠুন নামে ওই যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়।

মিঠুন সদর উপজেলার সূর্যনারায়ণপুরের শরিফুল ইসলামের ছেলে। র‌্যাবের চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্পের দায়িত্বে থাকা সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) এনামুল করীম বলেন, মিঠুন বিস্ফোরক ব্যবসায়ী। এ ঘটনায় রাতেই একটি মামলা করে মিঠুনকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান এই র‌্যাব কর্মকর্তা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

সাঁথিয়ায় দুই সহোদরের বিদ্যুৎস্পর্শ : নিহত ১

সাঁথিয়া (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার সাঁথিয়ায় দুই সহোদর বিদ্যুৎস্পর্শ হলো এ ঘটনাস্থলে বড় ভাই সিরাজল ইসলাম (৪০) নিহত হন। গুরুতর আহত হন ছোট ভাই  হেলাল উদ্দিন।
জানা যায়, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের মৃত আশরাফের বাড়ির পল্লী বিদ্যুতের মিটারের ডপ তারের উপর গাছের ডাল পড়ে। তারের উপর থেকে গাছের ডাল সরানোর জন্য তার দুই ছেলে সিরাজুল ইসলাম সিরাজ ও হেলাল উদ্দিন  যান। এ সময় তারে দুই ভাইই বিদ্যুৎ স্পর্শ হয়ে পড়ে। আশপাশের লোকজন টের পেয়ে তাদের উদ্ধার করলেও বড় ভাই সিরাজুল ইসলাম ঘটনাস্থলেই মারা যান। গুরুতর আহত হেলালকে  চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

আদমদীঘিতে হেরোইনসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি : আদমদীঘি থানাপুলিশ হোরাইনসহ রমজান আলী নামের এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। সে সান্তাহার মালগুদাম এলাকার মহির উদ্দিনের ছেলে। এব্যাপারে থানায় মামলা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, গত সোমবার রাত ৮টার সময় সান্তাহার বাসষ্ট্যান্ডের সামনে রাস্তায় বিক্রির সময় ৩০ পুরিয়া হেরোইনসহ রমজান আলীকে গ্রেফতার করা হয়।

এই বিভাগের আরো খবর

সেবামূলক মনোভাব নিয়ে কাজ করতে হবে: নওগাঁ পুলিশ সুপার

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর পুলিশ সুপার মো: মোজাম্মেল হক বিপিএম, পিপিএম বলেছেন, ইসলামের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সততা, জবাবদিহিতা, স্বচ্ছতা ও সেবামূলক মনোভাব নিয়ে প্রত্যেক পুলিশ সদস্যের কাজ করতে হবে। সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষের সাথে বন্ধু সুলভ আচরণের মাধ্যমে জনসাধারণের জানমাল নিরাপত্তার নিশ্চিত করার স্বার্থে প্রান্তিক পর্যায়ের জনগোষ্ঠীর সাথে সেতুবন্ধন গড়ে তুলে এলাকা থেকে সন্ত্রাসী, নাশকতাকারী, মাদকসেবী ও জঙ্গীবাদকে চিরবিদায় জানাতে হবে।

তিনি বলেন, যারা মাদক সেবন ও বিক্রি করে তারা পরিবার এবং সমাজের বড় বোঝা। এর ভয়াবহতা ঘাতক ব্যাধি ক্যান্সারের চেয়েও মারাত্মক। কোন ধর্মই মাদক সেবন ও বিক্রয়কারিদের সমর্থন করে না। মঙ্গলবার সকালে রাণীনগর থানা জামে মসজিদের সম্প্রসারণ ও নবনির্মিত অজুখানার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) জহুরুল ইসলাম, এসআই শফিকুর ইসলাম, এসআই তরিকুল ইসলাম, এএসআই সাজেদুর ইসলাম, পিএসআই শহিদুল ইসলাম, রাণীনগর প্রেস ক্লাবের সভাপতি এসএম সাইফুল ইসলাম ও থানা জামে মসজিদের ইমাম খাতিবুল ওমাম।



Go Top