রাত ৩:৩১, সোমবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী

গোলাম ফারুক, দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলা থেকে উজাড় হচ্ছে বাঁশ বাগান। এতে বাঁশের তৈরি পণ্য কাজে জড়িতরা এই প্রতিযোগিতার বাজারে টিকতে পারছে না। ফলে ঐতিহ্যবাহী কুটিরশিল্প আজ হুমকির মুখে।

দুপচাঁচিয়া উপজেলা ৬টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, এক সময় এলাকার সর্বত্রই বাঁশের বাগান ছিল। বাড়ি নির্মাণসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী তৈরীর কাজে এই বাঁশের ব্যবহারের প্রচলন ছিল ব্যাপক। ওইসময় কবি যতীন্দ্রমোহন বাগচীর লেখা ‘বাঁশ বাগানের মাথার ওপর চাঁদ উঠেছে ঐ, মাগো আমার শোলক বলা কাজলা দিদি কই’ কবিতাটিতে মাধুর্যতা থাকলেও সেই বাঁশ বাগান আজ বিলীনের পথে।
বাড়ছে মানুষ, কমছে আবাদি জমি। শুধু আবাদি জমিই নয়, বাঁশ বাগান, গাছপালা কেটে উজাড় করে বসতি স্থাপন করছে মানুষ। এতে করে বাঁশ শিল্প আজ প্রায় বিলুপ্তির পথে। আর চাহিদা মাফিক বাঁশ না পাওয়ায় বাঁশের তৈরি বিভিন্ন পণ্যের দামও দাঁড়িয়েছে আকাশচুম্বি। এক সময় দেশে যখন বাঁশ বাগান ছিল প্রচুর, তখন এর তৈরি কুলা, চালন, ডালি, খাঁচাসহ বিভিন্ন পণ্য যে দামে বেচা-কেনা হতো এখন সেসব পণ্যের দাম ৭ থেকে ৮ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে দরিদ্র মানুষ এক সময় শুধু তাদের পৈতৃক বসতভিটার আশপাশে বাঁশ বাগানের বাঁশ বিক্রি করেই সংসার চালাতো। কিন্তু বর্তমানে পরিবারের সদস্য বেড়ে যাওয়ায় বাঁশ বাগান কেটে বসতি স্থাপন ও বাকীটুকু পরিচর্যায় গুরুত্ব না দেওয়ায় সেই সব বাঁশ বাগানের বাঁশ আর নেই বললেই চলে।

উপজেলার বেড়–ঞ্জ গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি শ্রী যতীন্দ্রনাথ প্রামানিক ও দুপচাঁচিয়া সদরের গৌর চন্দ্র মোহন্ত জানান, তারা যখন স্কুলে যেতেন সেই সময়ে এলাকার বসতবাড়ির আশপাশে বাঁশের পাতা কুড়িয়ে অনেক দরিদ্র পরিবারের প্রায় ৬ মাসের জ্বালানি চলত। এক একটি কুলা, চালন, ২ থেকে ৩ টাকায় বিক্রি করতে দেখেছেন। বড় ধরনের বাঁশ সর্বোচ্চ ২০ টাকায় বিক্রি হতো। কিন্তু আজ বাঁশ বাগান আর তেমন চোখে পড়ে না। বাঁশের তৈরি বিভিন্ন পণ্যের দাম শুনলে শিউরে উঠেন।

উপজেলার জিয়ানগর ইউনিয়নের বালুকা পাড়া গ্রামের নুরুল ইসলাম, খিদির পাড়া গ্রামের ফরেজ উদ্দিন ও লাফাপাড়া গ্রামের ইব্রাহীম আলীর সাথে কথা হয়। তারা জানান, দীর্ঘদিন ধরে তারা বাঁশ কিনে তা দিয়ে ডালি, টোপাসহ বিভিন্ন পণ্য তৈরি করে হাট-বাজারে বিক্রি করে আসছেন। কিন্তু বাঁশের চাহিদা প্রচুর থাকলেও বাজারে বাঁশ কম আমদানী হওয়ায় তা বেশি দামে কিনতে হচ্ছে।

ফলে এই প্রতিযোগিতার বাজারে তাদের তৈরিকৃত পণ্য হাট-বাজারে বিক্রি করতে গেলে ক্রেতাদের সাথে দাম নিয়ে অনেক কথা বলতে হয়। সব মিলিয়ে গাছ পালার মতো বাঁশও আমাদের বিভিন্ন কাজে জরুরি প্রয়োজন। নতুনভাবে বাঁশ বাগান তৈরি ও বাঁশের পরিচর্যা করলে একদিকে যেমন আমাদের কুটিরশিল্প উন্নত হবে অন্যদিকে দৈনন্দিন কাজে বাঁশের তৈরি পণ্য ব্যবহারের দামও হবে সহজলভ্য।   

বদলগাছীতে ঝড় বৃষ্টিতে বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি

বদলগাছী (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর বদলগাছীতে গত কয়েক দিনের ঝড় বৃষ্টিতে বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী। চলতি মৌসুমে বোরো চাষ করার পর মাঝামাঝি সময় থেকে দু’একদিন পর পর বৃষ্টি হচ্ছে। পহেলা বৈশাখের আগে ও পরে ঝড় ও অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত হওয়ায় উপজেলার সর্বত্রই নিম্নাঞ্চল পানি জমে ধান ডুবে যাওয়ার উপক্রম হয়ে পড়ে। বর্তমানে মাঠে মাঠে ধান পাকতে শুরু করেছে। এ অবস্থায় প্রতিটি মাঠে প্রায় ৩ ভাগের এক ভাগ জমির বোরো ধান মাটিতে লুটিয়ে পড়েছে। পড়ে যাওয়া ধানের ফলন মারাত্মকভাবে ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা করছে কৃষকেরা। এ অবস্থায় কৃষকেরা হতাশ হয়ে পড়েছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এই চিত্র লক্ষ্য করা যায়। হলুদবিহার গ্রামের মমতাজ উদ্দীন বলেন, তার ১ বিঘা জমির ধান মাটিতে লুটিয়ে পড়েছে। ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়ে যাবে। যেহেতু ধান পাকেনি। এ অবস্থায় কিছুই করার নেই বলেও তিনি জানান। একই কথা বললেন ওই গ্রামের কৃষক এনামুল হক, মো. ছাত্তারসহ আশপাশের একাধিক কৃষক। উপজেলা কৃষি অধিদফতর সূত্রে জানা যায় চলতি মৌসুমে ১২.১৮০ হে: জমিতে বোরো চাষাবাদ করা হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসান আলী জানান ঝড় বৃষ্টির কারণে পড়ে যাওয়ায় ধানের কিছু ক্ষয়ক্ষতি হবে। এছাড়া ৪০ হে: জমির ধান নিমজ্জিত হয়েছে। নিমজ্জিত ধান কেটে নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে কৃষকদের।

 

তৃণমূল পর্যন্ত উন্নয়ন নিশ্চিত করতে সরকার কাজ করছে :মজিবর রহমান মজনু

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু বলেছেন, তৃণমূল পর্যন্ত উন্নয়ন নিশ্চিত করতে আওয়ামী লীগ সরকার কাজ করছে। এজন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা জেলা পরিষদকে সচল করেছেন। সরকারের বহুমুখী কর্মকান্ডের মধ্য দিয়ে দেশে মানুষের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি পেয়েছে।

রোববার দুপুরে বগুড়া জেলা পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে ধুনট উপজেলায় জনপ্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক টিআইএম নূরুন্নবী তারিকের সভাপতিত্বে শহরের ডাইম প্লাজায় অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য দেন সাবেক সংসদ সদস্য কামরুন্নাহার পুতুল, জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য বিষয়ক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন, সহসভাপতি আব্দুস ছালাম, শফিকুল ইসলাম, ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন সরকার, এমএ তারেক হেলাল, সাইফুল ইসলাম ফটিক, হারুনর রশীদ সেলিম, ময়নুল হাসান মুকুল, লাল মিয়া, বেলাল হোসেন শ্যামল, নাজমুল কাদির শিপন, আজাহার আলী পাইকার, পৌর কাউন্সিলর রঞ্জু মল্লিক।

মান্দায় মোটরসাইকেল না দেয়ায় যুবককে পিটিয়ে জখম

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর মান্দায় মোটরসাইকেল না দেওয়াকে কেন্দ্র করে স্বদেশ কুমার পিন্টু (২২) নামে এক যুবককে পিটিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার হুলিবাড়ী গ্রামের একটি আমবাগানে এ ঘটনা ঘটে। আহত পিন্টু ওই গ্রামের শ্যামল চন্দ্রের ছেলে।
চিকিৎসাধীন পিন্টু জানায়, গত বৃহস্পতিবার একই গ্রামের মোজাম্মেল হক বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে তাদের মোটরসাইকেলটি চাইলে তা দিতে অস্বীকার করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে গালাগালি করে মোজাম্মেল হক চলে যায়। গতকাল রোববার বিকেলে বাড়ি থেকে বাইসাইকেল নিয়ে শিমলা বাজারে যাওয়ার পথে ওই আমবাগানে মোজাম্মেল হক, মজিবর রহমান, ইসমাইল হোসেন ও আফসার আলী তার পথরোধ করে মারপিট করে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেন।

জালনোটসহ জনতার হাতে নারী আটক

কাহালু (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার কাহালু উপজেলার দুর্গাপুর হাটে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ৪ হাজার টাকার জালনোটসহ ফজিলা (৩৫) নামের এক নারীকে জনতা আটক করে ওই দিন রাতে তাকে কাহালু থানার পুলিশে সোপর্দ করেছে।

জানা গেছে, আটক ফজিলা সন্ধ্যায় দুর্গাপুর হাটে জাল টাকার নোট দিয়ে ৩/৪টি দোকানে বাজার করার সময় দোকানীরা জাল নোট বুঝতে পেরে তাকে আটক করে ফেলে।এরপর তার নিকট থেকে ১ হাজার টাকার ২টি এবং ৫শ’ টাকার ৪টি জাল নোট উদ্ধার করার পর রাত ৯টার দিকে তাকে কাহালু থানার পুলিশের নিকট সোপর্দ করা হয়। আটক ফজিলা বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলার গবিন্দপুর ইউনিয়নের খেয়ালী চকপাড়া গ্রামের ফরিদের কন্যা বলে জানা যায়।এ ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে কাহালু থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শাহজাদপুরে হেরোইনসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : গত শুক্রবার রাতে শাহজাদপুর থানা পুলিশের দুটি টিম শাহজাদপুর পৌর সদরের দ্বারিয়াপুর মহল্লায় অভিযান চলিয়ে ১০২ পুরিয়া হেরোইনসহ তিন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। তাদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের হয়েছে।
গতকাল শনিবার দুপুরে ধৃতদের সিরাজগঞ্জ জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। থানা পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এসআই জাহিদুল ইসলাম ও এসআই ফরিদুল ইসলামের নেতৃত্বে সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্সসহ পৌরসদরের দ্বারিয়াপুর বাজারপাড়া মহল্লায় অভিযান চালিয়ে ৪০ পুরিয়া হেরোইনসহ ইকবাল হোসেনের ছেলে মাদক ব্যবসায়ী কাজল (২৪) ও একই মহল্লার ফজলুল হকের ছেলে সবুজকে (৩০) ১২ পুরিয়া হেরোইনসহ গ্রেফতার করে।
অন্যদিকে, থানার এসআই বানী ইসরাঈলের নেতৃত্বে পুলিশের অপর টিমটি দ্বারিয়াপুর উত্তরপাড়া মহল্লায় অভিযান চালিয়ে ৫০ পুরিয়া হেরোইনসহ একই গ্রামের মৃত দুলাল খার ছেলে মাদক ব্যবসায়ী নূর মোহাম্মদ ওরফে চান্নুকে (৩০) গ্রেফতার করে।

শাহজাদপুরে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ১৫

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার দুর্গম এলাকা আন্ধারমানিক ও বড়ধুনাইল এ দুই গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে গত শুক্রবার দুপুরে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন।
আহতদের বেড়া, শাহজাদপুরসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি ও স্থানীয়ভাবে চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়েছে। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার রূপবাটি ইউনিয়নের আন্ধারমানিক ঘাটে এলাকার কাসেম, পান্না, মফেতসহ একটি সংঘবদ্ধ চক্র যাত্রার নামে নগ্ন নৃত্য, জুয়া, মাদক ব্যবসাসহ নানা অসামাজিক কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। গত বৃহস্পতিবার শাহজাদপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে যাত্রার মঞ্চ ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয়।
এ ঘটনায় আন্ধারমানিক গ্রামের অসামাজিক কার্যকলাপ পরিচালনাকারীরা এ ঘটনার জন্য বড় ধুনাইল গ্রামবাসীকে দোষী করে দুপুরে লাঠি, ফালা হলঙ্গাসহ দেশী অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বড় ধুনাইল গ্রামবাসীর ওপর হামলা চালায়। বাধা দিতে গিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। পরে খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই দুই গ্রামবাসীর মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। পুনরায় সংঘর্ষের আশঙ্কায় এলাকাবাসী বিচলিত হয়ে পড়েছে। এলাকা অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

রাবিতে জঙ্গি সন্দেহে তিন শিক্ষার্থী আটক

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) জঙ্গি সন্দেহে তিন শিক্ষার্থীকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে ছাত্রলীগ। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ৩টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্বর থেকে তাদের পুলিশে দেয়া হয়।

আটককৃতরা হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী জোবায়ের হোসেন, ভুগোল ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী আল তৌফিক সানি এবং প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মাকসুদুল হক। এরা তিনজনই প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

এদের মধ্যে জুবায়ের হোসেনের বাড়ি নরসিংদী জেলার শেরপুর থানায়। তার বাবার নাম আকবর আলী। সাংবাদিকদের কাছে জিহাদে উদ্বুদ্ধ হওয়ার কথা স্বীকার করে  সে বলে, ফেসবুকে কিছুদিন ধরে কয়েকজনের জিহাদী পোস্ট পড়ে আন্তরিকভাবে ‘মহব্বত’ চলে আসে। চার-পাঁচদিন আগে তারা আমার বন্ধু হয়েছে। তাদের মাধ্যমেই জিহাদে উদ্বুদ্ধ হচ্ছি। জিহাদ ও জঙ্গিবাদ সম্পর্কে জানতে পারছি। তাদেরকে আমি চিনি না বা কখনও দেখাও হয়নি। তারা আফগানিস্তান, সিরিয়া ও ইরাক-আমেরিকার যুদ্ধ নিয়ে বিভিন্ন পোস্ট দিত।

ছাত্রলীগ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, জুবায়ের হোসেন তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ‘মধ্যরাতের অশ্বরোহী’ থেকে দীর্ঘদীন ধরে জঙ্গিবাদ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন লেখা পোস্ট এবং শেয়ার করে আসছিল। বিষয়টি জানতে পেরে ছাত্রলীগের রাবি শাখার সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু তাকে টুকিটাকি চত্বরে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তার স্মার্ট ফোনে জঙ্গিদের যুদ্ধের একাধিক ভিডিও পাওয়া যায়। তার ফেসবুকে মেসেজ বিনিময়ের সূত্র ধরে তার আরেক বন্ধু মাকসুদুল হককে সনাক্ত করা হয়। তার ফেসবুক আইডির নাম ‘পরবর্তী স্টেশন কবর’। একই সময় আল তৌফিক সানি নামের অপর শিক্ষার্থী টুকিটাকি চত্বরে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এর কাছে থেকে ১৬টি সিম পাওয়া যায়।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে জোবায়ের হোসেন নামের ওই শিক্ষার্থীর আচরণ সন্দেহজনক মনে হলে তাকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করি। এসময় তার মুঠোফোন চেক করে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা আছে বলে ধারণা করা হয়। এরপর তার বন্ধু মাকসুদুল হককে সনাক্ত করি। এছাড়া টুকিটাকি চত্বরে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করায় আল তৌফিক সানিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তাদের মুঠোফোনে যথেষ্ট পরিমাণ প্রমাণ সাপেক্ষে মতিহার থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ুন কবির বলেন, জঙ্গি সন্দেহে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ওই তিন শিক্ষার্থীকে আমাদের কাছে সোপর্দ করেছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মান্দায় ধর্ষণের শিকার বাক প্রতিবন্ধী যুবতীর আত্মহত্যা

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি :নওগাঁর মান্দায় ধর্ষণের শিকার কোহিলী খাতুন (২১) নামে বাকপ্রতিবন্ধী এক যুবতী ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার ভারশোঁ ইউনিয়নের মহানগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কোহিলী ওই গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

নিহত কোহিলীর ইশারা-ইঙ্গিতের উদ্ধৃতি দিয়ে স্থানীয়রা জানান, গত বুধবার বিকেলে বাড়িতে একা অবস্থান করছিল কোহিলী। এ সময় গামছা দিয়ে মুখ ঢেকে তিন যুবক ওই বাড়িতে প্রবেশ করে। বখাটে যুবকরা তাকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। এলাকা নির্জন হওয়ায় ঘটনার বিষয়ে তারা কিছুই জানতেন না। পরে কোহিলী বাড়ি থেকে পালিয়ে পূর্বদিকে ইব্রাহীমের বাড়ির খলিয়ানে পৌঁছে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।

স্থানীয়রা আরও জানান, জ্ঞান ফিরে পাবার পর আকার ইঙ্গিতে তিন যুবক বাড়িতে প্রবেশের বিষয়টি প্রকাশ করে কোহিলী। হাতের ইশারায় জানানো হয় পাশবিক নির্যাতনের বিষয়টিও।  কোহিলীর চাচা মতিউর রহমান জানান, নখের একাধিক আঁচড়ের চিহ্ন পাওয়া গেছে তার গলায়। ক্ষত স্থান দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখেছেন তিনি।  
নিহতের বাবা আব্দুল মান্নান জানান, বুধবার বিকেল ৩টার দিকে কোহিলীকে বাড়িতে একা রেখে ছোট মেয়ে তিথি খাতুনকে নেওয়ার জন্য মহানগর বালিকা বিদ্যালয়ে যান। পরে তিথিকে নিয়ে দেলুয়াবাড়ি বাজারে কোহিনুর মার্কেটে প্রাইভেট শিক্ষকের নিকট রেখে হালকা কেনাকাটা করেন। বিকেল ৫টার দিকে বাড়ি ফেরার পথে মহানগর বাঁশতলার মোড়ে পৌঁছে ঘটনার বিষয়ে তিনি জানতে পারেন। জিজ্ঞাসাবাদে মেয়ে কোহিলী হাতের তিন আঙ্গুল দেখিয়ে বাড়িতে তিন যুবকের প্রবেশের বিষয়টি আকার-ইঙ্গিতে নিশ্চিত করে।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিছুর রহমান ধর্ষণের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তিনি বলেন, ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলেই সব বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যাবে। ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে বলে তিনি জানান। মান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার হাফিজুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নাটোরে স্কুলছাত্র হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদন্ড

নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরে অনন্ত চক্রবর্তী অন্তু (১২) নামে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর এক ছাত্রকে মুক্তিপণের দাবিতে অপহরণ করে হত্যার দায়ে আশারাফ আলী (২৮) নামে এক ব্যাক্তিকে মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অপর দুই জনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর  পৌনে এক টার সময় এই আদেশ দেন জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের ভারপ্রাপ্ত বিচারক, জেলা ও দায়রা জজ মো. রেজাউল করিম।
মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আশরাফ আলী সদর উপজেলার হালসা গ্রামের আকবর আলীর ছেলে। খালাসপ্রাপ্তরা হলো একই গ্রামের মহসিন আলীর ছেলে শাহজাহান আলী (৩০) এবং সোলেমান আলীর ছেলে আব্দুল¬াহ আল মামুন (২৫)। আর নিহত অনন্ত চক্রবর্তী অন্তু সদর উপজেলার হালসা গ্রামের অশোক কুমার চক্রবর্তীর ছেলে এবং হালসা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র ছিলো।

আদালত সূত্র ও নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পাবলিক প্রসিউকিটর (পিপি) এডভোকেট শাজাহান কবির জানান, ২০১২ সালের ৩১ মে বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় প্রাইভেট পড়ার জন্য হালসা বাজারে যায় অনন্ত চক্রবর্তী ওরফে অন্তু। প্রাইভেট পড়া শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার সময় অন্তু তার বাবার দোকান থেকে বাড়ির জন্য বাজার-সদা নিয়ে বাড়ি ফিরছিল। এসময় একই এলাকার আশরাফ আলী তাকে অপহরণ করে হালসা মাদ্রাসার পাশে একটি পানের বরজে নিয়ে যায়।  সেখানে অন্তুকে দিয়ে তার বাবা অশোক চক্রবর্তীর মোবাইল ফোনে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন আশরাফ আলী। একই সাথে ১ জুন, ২০১২ রাত ৮টার মধ্যে দাবিকৃত টাকা না দিলে ছেলেকে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হয়। এসময় অন্তু চিৎকার- চেচামেচি করার চেষ্টা করলে আশরাফ আলী তার গলা চেপে ধরেন। এতে অন্তু শ্বাসরোধে মারা যায়। পরে তার মরদেহটি গুম করতে রাতেই বস্তায় তুলে পানের বরজের ভিতর  মাটিতে পুঁতে  রেখে টিন দিয়ে ঢেকে রাখে। আর অশোক কুমার চক্রবর্তী তার ছেলে অপহরণ ও মুক্তিপণ দাবির বিষয়টি তাৎক্ষণিক নাটোর থানায় অবহিত করলে পুলিশ ও র‌্যাব অভিযান শুরু করেন। এক পর্যায়ে মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে রাতেই অপহরণের সাথে জড়িত সন্দেহে আশরাফ আলী, শাহজাহান আলী ও আব্দুল্ল¬াহ আল মামুন নামে তিনজনকে আটক করে পুলিশ। পরে তাদের স্বীকারোক্তি  মোতাবেক ঘটনাস্থল থেকে রাত ১২টার সময় পুলিশ মাটিতে পুঁতে রাখা অন্তুর বস্তাবন্দী মরদেহ উদ্ধার করে। এঘটনায় নিহত অন্তুর বাবা অশোক চক্রবর্তী বাদী হয়ে নাটোর থানায় ওই ৩ জনের বিরুদ্ধে একটি অপহরণপূর্বক হত্যামামলা দায়ের করেন। মামলাটি নাটোর সদর থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল¬াহ আল মামুন তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। ওই মামলার দীর্ঘ শুনানি ও ঘটনার সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে বিচারক গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে রায় ঘোষণা করেন। এতে আশরাফ আলীর বিরুদ্ধে সন্দেহাতীতভাবে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় হত্যা ও মুক্তিপণ দাবির জন্য মৃত্যুদন্ডাদেশ ও দশ হাজার করে জরিমানা, অপহরণের জন্য যাবজ্জীবন ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং মরদেহ গোপনের দায়ে  ৫ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আদেশে মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত রশিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করার কথা বলা হয়েছে। অপরদিকে অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় অপর দুই আসামি শাহজাহান আলী ও আব্দুল¬াহ আল মামুনকে খালাস দেওয়া হয়। এই মামলায় রাষ্ট্র পক্ষে তিনি নিজে এবং আসামি পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এডভোকেট সায়েম হোসেন উজ্জল ও সৈয়দ মোজাম্মেল হোসেন মন্টু।

দশ টাকার চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগে গ্রেপ্তার ২

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির দশ টাকা কেজির ১০ বস্তা চাল কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগে স্থানীয় এক ডিলার ও ভ্যান চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এরা হলেন-তাড়াশের নওগাঁ ইউনিয়নের মহিষলুটি বাজারের দুলাল সরকারের ছেলে ডিলার সুজন হাসান (২৫) ও কালিদাশনিলি গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে ভ্যানচালক রাজিব হোসেন (২২)।

বুধবার বিকালে তাদের আটক করা হয় বলে তাড়াশ উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক আব্দুল মান্নান জানান। হত দরিদ্রদের জন্য এ কর্মসূচি চালুর পর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে নানা অনিয়মের খবর পাওয়া গেছে। এসব অভিযোগে কয়েকজনকে আটক এবং ডিলারশিপ বাতিলের ঘটনাও ঘটেছে।

আব্দুল মান্নান বলেন,“খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির বরাদ্ধকৃত চাল ‘কালোবাজারে বিক্রির’ জন্য ভ্যান চালক রাজিবের বাড়িতে সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছিল। সেখানে অভিযান চালিয়ে ৩০০ কেজি ওজনের ১০ বস্তা চালসহ রাজিবকে আটকের পর পুলিশে হস্তান্তর করা হয়।”

এরপর রাজিব ও ডিলার সুজনের বিরুদ্ধে বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন বলে জানান তিনি। তাড়াশ থানার ওসি মঞ্জুর রহমান জানান, মামলার পর অভিযান চালিয়ে রাতেই সুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান খান বলেন, “সুজন কার্ডধারীদের ভূয়া মাস্টাররোল তৈরি করে ৩০০ কেজি চাল উত্তোলনের পর কালোবাজারে বিক্রির জন্য ভ্যান চালকের হেফাজতে রেখেছিল।”

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাংলাদেশ ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ শ্লোগানে সরকার সেপ্টেম্বর থেকে অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ১০ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি কার্যক্রম শুরু করে। এ কার্যক্রমের আওতায় একজন হতদরিদ্র প্রতিমাসে ১০ টাকা দরে ৩০ কেজি চাল কেনার সুযোগ পাচ্ছে। মার্চ, এপ্রিল, সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর- এই পাঁচ মাস হতদরিদ্র ৫০ লাখ পরিবার এ সুবিধা পাবে।

রাজশাহীতে মাইক্রোর ধাক্কায় এইচএসসি পরীক্ষার্থী নিহত

রাজশাহীর চারঘাটে মাইক্রোবাস ও অটোরিকশার সংঘর্ষে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও তিনজন। চারঘাট থানার ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মণ জানান, কাঁকড়ামারি এলাকায় বৃহস্পতিবার দুপুর দেড়টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রুখশানা খাতুন পাখি উপজেলার পিরোজপুর গ্রামের তাজমুল হকের মেয়ে। চারঘাট মহিলা কলেজ থেকে এ বছর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছিলেন তিনি। আহতদের মধ্যে বিলমারিয়া গ্রামের মতিউর রাহমানের মেয়ে তিথি ও পিরোজপুর গ্রামের নজরুল ইসলামের মেয়ে জেসমিন ওই কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী। অপর একজন অটোরিকশা চালক আলতাফ। তাদের চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে ওসি নিবারন বলেন, “পরীক্ষা শেষে ওই তিন পরীক্ষার্থী অটোরিকশায় করে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে বিপরীতমুখী একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে সংঘর্ষ হলে চালকসহ আরোহীরা গুরুতর আহত হন।

“স্থানীয়দের সাহায্যে তাদের উদ্ধার করে চারঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পাখিকে মৃত ঘোষণা করেন। ” দুর্ঘটনার পর মাইক্রোবাসটি আটক করা হলেও চালক পালিয়ে গেছে বলে এ পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

 

মান্দায় এক রশিতে ঝুলে প্রেমিক- প্রেমিকার আত্মহত্যা

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর মান্দায় এক রশির দুই প্রান্তে ঝুলে প্রেমিক যুগল আত্মহত্যা করেছে। গতকাল বুধবার সকালে উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়নের চকরাজাপুর গ্রামের গুদাবিলের পূর্ব ধারে আব্দুস সাত্তারের আমবাগান থেকে তাদের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরা হলো ওই গ্রামের ওয়াজেদ আলী ফকিরের ছেলে গোলাম রাব্বানী (২০) ও মকবুল হোসেনের মেয়ে তাসলিমা আক্তার (১৭)।

স্থানীয়রা জানান, গোলাম রাব্বানী উপজেলার সাতবাড়িয়া বিএম এন্ড টেকনিক্যাল কলেজ থেকে চলতি এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। অন্যদিকে তাসলিমা আক্তার এনায়েতপুর আইডিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। বিদ্যালয়ে যাতায়াতের পথে তাদের পরিচয় ও প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, তাসলিমা আক্তারের অমতে পরিবারের পক্ষ থেকে গতকাল বুধবার অন্যত্র বিয়ের প্রস্তুতি নেয়া হয়। এ বিয়ে মেনে নিতে না পেরে মঙ্গলবার রাতের কোনো এক সময় তারা একত্রিত হয়ে এক সঙ্গে আত্মহত্যা করে।   

মান্দা থানার তদন্ত পরিদর্শক মাহবুব আলম জানান, প্রেমিক যুগলের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

ভ্যান উদ্ধার কাহালুতে ভ্যানচালককে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা

কাহালু (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার কাহালু উপজেলার দরগাহাট বাসস্ট্যান্ডের পাশে অবস্থিত একটি বাগানের মধ্যে গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করা সিদ্দিকুর রহমান (৪২) নামের ব্যাটারি  চালিত ভ্যান চালকের লাশ পুলিশ উদ্ধার করেছে।

জানা গেছে, দুর্বৃত্তরা সিদ্দিকুরের ব্যাটারি চালিত ভ্যানটি ছিনতাই করার জন্য তার পরনের লুঙ্গি ও গায়ের জামা ছিঁড়ে হাত পা বেঁধে গলায় লুঙ্গির ফাঁস দিয়ে অন্য কোথাও হত্যা করার পর তারই ভ্যানে তার লাশ নিয়ে এসে গত মঙ্গলবার রাত আনুমানিক ৯টায় কাহালুর দরগাহাট বাসস্টান্ডের সামান্য দক্ষিণ পাশে বাগানের মধ্যে ফেলে দেয়। এ সময় দরগাহাট বাজারের নৈশপ্রহরী দূর থেকে ওই বাগানের কাছে একটি ভ্যানসহ ২/৩ জন অপরিচিত  লোককে দেখতে পান এবং তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক হওয়ায় আরও ৪/৫ জনকে সাথে নিয়ে বাগানের নিকট যেতেই দুর্বৃত্তরা ওই ভ্যান নিয়ে দ্রুতগতিতে বগুড়া-সান্তাহার সড়ক দিয়ে পশ্চিম দিকে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন বাগানের মধ্যে সিদ্দিকুরের হাত পা বাঁধা মৃতদেহ দেখতে পেয়ে কাহালু থানার পুলিশকে জানায়। থানার ওসি নুর-এ-আলম সিদ্দিকী  ফোর্সসহ ঘটনাস্থলে এসে তার লাশ উদ্ধার করে রাতেই থানায় নিয়ে যায়। নিহত ভ্যান চালক সিদ্দিকুর ভ্যান চালিয়ে কোন মতে জিবীকা নির্বাহ করতো এবং সে কাহালু উপজেলার ইন্দখুর ও শান্তা সড়কে বেশি ভ্যান চালাতো। নিহত সিদ্দিকুর বগুড়া জেলার শাহজাহানপুর উপজেলার গোহাইল ইউনিয়নের চকদুলাহার (বারিপাড়া) গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের পুত্র বলে জানা যায়। তার লাশ ময়না তদন্তের জন্য গতকাল বুধবার দুপুরে বগুড়া মর্গে পাঠানো হয়েছে। এদিকে পুলিশ তার ছিনতাই হওয়া ব্যাটারি চালিত ভ্যানটি উপজেলার নারহট্ট ইউনিয়নের তেঁতুলিয়া পাড়া গ্রাম থেকে উদ্ধার করেছে।

 

দুপচাঁচিয়া থানা ওসি নজরুল ইসলাম জেলার শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়া জেলা পুলিশের মাসিক কল্যাণ সভা গত মঙ্গলবার পুলিশ লাইন স্কুল এন্ড কলেজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় চৌকশ কার্যাদি সম্পাদন ও গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটনে সফলতা অর্জন করায় দুপচাঁচিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ নজরুল ইসলাম কে জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হিসেবে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। জেলা পুলিশ সুপার মো. আসাদুজ্জামান বিপিএম আনুষ্ঠানিক ভাবে এই সম্মাননা ক্রেস্ট তার হাতে প্রদান করেন। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পশ্চিম) আব্দুল জলিল পিপিএম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সনাতন চক্রবর্তী, আদমদিঘী সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন, শিবগঞ্জ সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মশিউর রহমান, নন্দীগ্রাম সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মাহবুব হোসেন কাজলসহ জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের সকল পুলিশ র্কমকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

আত্রাইয়ে প্রায় পৌনে তিনকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে নয়টি ব্রিজ

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর আত্রাইয়ে প্রায় পৌনে তিনকোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে নয়টি ব্রিজ। এসব ব্রিজ নির্মিত হলে এলাকাবসীর যোগাযোগের এক নতুন দিগন্তের উন্মোচন হবে। লাঘব হবে তাদের দীর্ঘদিনের দুভোগ। সংশ্লিষ্ট তথ্যমতে জানা যায়, চলতি অর্থ বছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়নে উপজেলার ৯টি স্থানে খালের উপর ব্রির্জ নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়েছে।

উপজেলা পিআইও অফিস সূত্র জানায়, ৫৪ লাখ ৪ হাজার ৬৫০ টাকা ব্যয়ে হাতিয়াপাড়া মসজিদ সংলগ্ন খালের উপর, সমপরিমাণ টাকা ব্যয়ে শিমুলিয়া রাস্তায় খালের উপর, একই টাকা ব্যয়ে বেওলা-কুমঘাট রাস্তা সংলগ্ন খালের উপর, ২৩ লাখ ৪৫ হাজার ৪৬৯ টাকা ব্যয়ে সমসপাড়া খালের উপর, ২১ লাখ ৮৭ হাজার ৭৫৭ টাকা ব্যয়ে মাছগ্রাম খালের উপর, ২০ লাখ ২৯ হাজার ৯৬ টাকা ব্যয়ে জগন্নাথপুর খালের উপর, ১৮ লাখ ৭৫ হাজার ৪৪৮ টাকা ব্যয়ে মাড়িয়া খালের উপর, সমপরিমাণ টাকা ব্যয়ে বলরামচক খালের উপর এবং ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৭৬৮ হাজার টাকা ব্যয়ে কালিকাপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন খালের উপর ব্রিজ নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের বেলাল হোসেন বলেন, এখানে একটি ব্রিজের অভাবে আমরা দীর্ঘদিনে থেকে দুর্ভোগ পোহাচ্ছিলাম। আমাদের এমপি ইসরাফিল আলমের প্রচেষ্টায় এ ব্রিজ নির্মাণ হলে আমাদের অনেক সুবিধা হবে। মাড়িয়া গ্রামের এসএম হাসান সেন্টু বলেন, এখানের খালের উপর ব্রিজ না থাকায় কৃষকরা মাঠ থেকে ধান বহন করা কষ্টকর হচ্ছিল। কৃষকের দুর্ভোগ লাঘবে এ ব্রিজ খুবই সহায়ক হবে। উপজেলা ত্রাণ অফিসের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান বলেন, ব্রিজগুলো যাতে যথাযথভাবে নির্মিত হয় এ জন্য সার্বক্ষণিক তদারকি করা হচ্ছে। আসন্ন বর্ষা মৌসুমের আগেই কাজ শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে।  

 

নবাবগঞ্জে ইটভাটা থেকে নির্গত বিষাক্ত গ্যাসে ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর)প্রতিনিধি: দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে ইট ভাটা থেকে নির্গত গ্যাসে ফল ও ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের মালারপাড়া গ্রামের প্রায় ৮০ টি পরিবার ওই ক্ষতির শিকার হয়েছে। ক্ষতি হওয়া ফলের মধ্যে আম, কাাঁঠাল, জলপাই, মিষ্টি আমড়া, সুপারী, খেজুর ও লিচু রয়েছে। রয়েছে বোরো ফসলও। ওই গ্রামের আব্দুর  রহিম জানান তার ১০০টি সুপারির গাছ সহ আম কাঁঠাল ও লিচুর ক্ষতি হয়েছে। গাছ মরে যাওয়ার মত হয়েছে এবং ফল ঝরে পড়ছে। এরকম অভিযোগ ওই গ্রামের আব্দুল গোফ্ফার, বজলুর রশিদ, বুলি বেগম ও মোজাম্মেল হকসহ গ্রামবাসী অনেকেরই। তারা দাবি করছে গত কয়েক দিন পূর্বে তাদের গ্রাম সংলগ্ন কৃষি জমিতে স্থাপন করা এ বি এম নামে একটি ইট ভাটা থেকে নির্গত দূষিত গ্যাসের কারণে তারা ফল ফসলের ক্ষতির শিকার হয়েছে। ইট ভাটার মালিক বিপুলের সাথে ভাটায় দেখা করতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। মোবাইল ফোনও গ্রহণ না করায় তার মন্তব্য পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে  উপজেলা কৃষি অফিসার আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি জানেন না এবং তা দেখার জন্য মাঠ কর্মীকে পাঠাবেন বলে জানান। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বজলুর রশীদ জানান বিষয়টি তিনি জানেন না। যদি হয়ে থাকে তা পরিবেশ অধিদফতরকে দেখতে হবে। এছাড়া ওই ভাটার কোন বৈধতা রয়েছে কিনা সেটাও দেখতে হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বজলুুর রশীদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান অবৈধ ইট ভাটার বেশ কয়েকটিতে তিনি অভিযান চালিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছেন।  ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জরিমানা করেছেন। তিনি তার সাধ্যমত ব্যবস্থা নিয়েই যাচ্ছেন। উপজেলা এলাকায় স্থাপন করা ইট ভাটা গুলি ইট ভাটা স্থাপন ও ইট পোড়ানো (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩  মোতাবেক একটি ভাটাও স্থাপন যোগ্য নয়। ফসলী জমি রক্ষা সহ পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে ভাটাগুলির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কঠোর হস্তক্ষেপ অতীব জরুরী বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

মোকামতলায় ট্রাকের ধাক্কায় পুলিশ সদস্য নিহত

মোকামতলা (বগুড়া) প্রতিনিধি :   বগুড়ার  মোকামতলায় ট্রাকের ধাক্কায় শাহ আলম (৪০) নামের এক পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছে। সে মোকামতলা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পিকআপ গাড়ী চালক (কনস্টেবল নং-৭০৮)। তার বাড়ি নওগার রাণীনগর উপজেলার চকবুলাকী গ্রামে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়,  মঙ্গলবার ভোর  সোয়া ৫টার সময় পুরাতন পুলিশ ফাঁড়ির সামনে মহাসড়ক পারাপারের সময় বগুড়াগামী একটি ট্রাকের ধাক্কায় গুরুতর আহত হয়। পরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান হাসপাতালে  নেয়ার পথে সে মারা যায়।

 মোকামতলা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ (পুুিলশ পরিদর্শক) মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। নিহত পুলিশ কনস্টেবল শাহ আলমের মৃতদেহ ময়না তদন্তের পর বগুড়া পুলিশ লাইনে প্রথম জানাজা শেষে গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

 

রাণীনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক সংকট : রোগীদের ভোগান্তি

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর রাণীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক সংকটের কারণে প্রায় দুই লাখ মানুষের চিকিৎসা সুবিধার অচল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। ৫০ শয্যার হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসারের ৭টি পদ শূন্য থাকায় প্রতিদিন প্রান্তিক জনপদ থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা তাদের কাংক্ষিত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অফিস চলাকালীন সময়ে শুধু হাসপাতালের বর্হিবিভাগে প্রতিদিন প্রায় তিন শত রোগীর ভিড়ে উপ-সহকারী স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দিয়ে চিকিৎসা প্রদান করতে হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, রাণীনগর উপজেলাবাসীর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে উপজেলা পরিষদ স্থাপিত হওয়ার সাথে ১৯৮৪ সালে উপজেলা সদরের পশ্চিম বালুভরা মৌজায় ৬.২৫একর জমি সরকার ক্রয় করে প্রথমে ৩১শয্যাবিশিষ্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে তাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা সঠিক ভাবে প্রদান করার লক্ষ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য ইসরাফিল আলম এমপি’র একান্ত প্রচেষ্টায় স্বাস্থ্য প্রকৌশলী অধিদফতরের বাস্তবায়নে ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় উন্নত করার লক্ষ্যে ১৯শয্যা বিশিষ্ট তিন তলা ভবন নির্মাণ কাজ  শেষে ২০১২ সালে  হস্তান্তর হলেও ওই ওয়ার্ডের জনবল, ওষুধ, রোগীদের খাদ্য সহ অন্যান্য উপকরণের সংকটের কারণে ৬ বছর ধরে নির্দিষ্ট বরাদ্দ না পাওয়ায় অত্যাধুনিক ভবনের কার্যক্রম চালু করতে পারছেন না বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান। তবে আশার বাণী চলতি বছরে জুন মাসের দিকে দেশের অন্যান্য উপজেলার মত রাণীনগর হাসপাতালেও রাজস্ব খাত থেকে বরাদ্দ আসতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। প্রতিদিন প্রায় বর্হি বিভাগে ৩৫০ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসে। এর মধ্য থেকে প্রায় ২০ জনের মত রোগী সুচিকিৎসার জন্য ভর্তি করানো হয়। মাঝে মধ্যেই প্রকট আকারে শয্যা ও ওষুধ সংকটের কারণে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীদের  সেবা দিতে হিমশিম খায়। অনেক সময় মেঝে ও বারন্দায় ফেলে চিকিৎসা দিতে হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনী জনবল এবং রোগীদের খাদ্য সরবরাহের অনুমোদন না থাকাই এই ভবনের কার্যক্রম শুরু করা যাচ্ছে না। ফলে আন্তঃবিভাগ রোগীদের দুর্ভোগ থেকেই যাচ্ছে। ওষুধ সংকটের কারণে রোগীদের বাইরে থেকে ওষুধ কিনে চিকিৎসা করাতে হয়। এতে গরিব রোগীদের ক্ষেত্রে ওষুধ কেনে খেতে কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়ায়। উক্ত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপারেশন থিয়েটার থাকলেও অযতœ আর অবহেলায় তা পরিত্যক্ত হয়ে আছে। একটি মাত্র পুরাতন এক্সরে মেশিন আছে যা খুঁড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে। হাসপাতালের ভিতরে বড় মাপের মানসম্পন্ন  স্টোর রুম না থাকায় নতুন ভবনের আসবাবপত্র ও অন্যান্য সামগ্রী অপরেশন থিয়েটারসহ যত্রতত্র মালসামানা ফেলে রাখতে হয়। বর্তমানে হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসারের ৭ টি পদ শূন্য থাকায় প্রতিদিন প্রান্তিক জনপদ থেকে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীরা তাদের কাক্সিক্ষত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। 


এব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাক্তার এসএম নজমুল আহসান জানান,  মেডিক্যাল অফিসারের ১২ টি পদের মধ্যে ৭টি পদ শূন্য রয়েছে। তারপরও  রাণীনগরবাসীর যথাযথ চিকিৎসা  সেবা দিতে আমাদের পেশাদ্বারিত্বের কোন ঘাটতি নেই। প্রয়োজনীয় অসুবিধা গুলো সমাধান করা গেলে রাণীনগরবাসী আরো ভাল স্বাস্থ্য সেবা পাবে।
রাণীনগর উপজেলা বাসীর সুচিকিৎসা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ৩১ শয্যাবিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১৯৮৪ সালে স্থাপিত হয়। দীর্ঘদিন থেকে চিকিৎসক ও ওষুধ সংকটের কারণে রোগীরা সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। বর্তমানে অল্প জনবল দিয়ে কর্তৃপক্ষ রোগীদের যথারীতি চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

ভাস্কর্য উল্টিয়ে রাবি শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ

রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা অনুষদের ভাস্কর্যের নিরাপত্তা বেষ্টনী ও গ্যালারি না থাকায় ভাস্কর্য উল্টিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। গত সোমবার দিবাগত রাতে তারা ভাস্কর্যগুলো উল্টিয়ে রাখে। এ ঘটনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

ঘটনার সাথে জড়িত ভাস্কর্য বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ইমরান হোসেন অনিক ও ইউসুফ হোসেন স্বাধীন বলেন, রাতে আমরা বিভাগের ৪০-৫০ জন শিক্ষার্থী নিরাপত্তা বেষ্টনী ও ভাস্কর্য রাখার গ্যালারি না থাকায় মূর্তিগুলো উল্টে দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছি। এই প্রতিবাদ বিভাগের উন্নতির জন্যই করেছি, অন্য কোন উদ্দেশ্য নেই।
এ ব্যাপারে ভাস্কর্য বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. মোস্তফা শরীফ আনোয়ার বলেন, আমরা সকালে এই ঘটনা দেখার পরে জরুরি মিটিংয়ে বসেছিলাম। আমরা সেখান থেকে নিশ্চিত হয়েছি বিভাগের ৭-৮ জন শিক্ষার্থী এই কাজের সঙ্গে জড়িত। তাদের বিরুদ্ধে একাডেমিক কাউন্সিলের মিটিংয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আর এ ঘটনায় আমরা সামগ্রিকভাবে নিন্দা জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, এ ধরনের ভাস্কর্য কোথাও গ্যালারিতে রাখা হয় না। সব সময় বাহিরে রাখা হয়, যা দেখে শিক্ষার্থীরা শিখতে পারে।
এদিকে সরেজমিনে চারুকলা অনুষদে গিয়ে দেখা গেছে, প্রায় তিনশতাধিক ভাস্কর্য মাটিতে উল্টো অবস্থায় পড়ে আছে। অনেক ভাস্কর্য আবার উল্টে দেওয়াতে সামান্য ভেঙেও গেছে।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত চিত্রকলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রাগীব শাকিল বলেন, ভাস্কর্য ভেঙে প্রতিবাদ হতে পারে না। আর এটা কোন প্রতিবাদের ভাষা নয়।
ঘটনাস্থলে উপস্থিত ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক ও বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অধ্যাপক মলয় কুমার ভৌমিক বলেন, সারাদেশে জঙ্গি তৎপরতা বাড়ছে। আমরা প্রথম ধারণা করেছিলাম এটার সাথে এই ধারণার সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে। কিন্তু শিক্ষর্থীরা এভাবে এমন কাজ করতে পারে না।

জানতে চাইলে চারুকলা অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. মোস্তফিজুর রহমান বলেন, এখন পর্যন্ত বোঝা যাচ্ছে, কতিপয় শিক্ষার্থী চাওয়া-পাওয়ার ক্ষোভের জায়গা থেকে ভাস্কর্যগুলো উল্টে দিয়েছে।

এদিকে এঘটনায় প্রতিবাদে জানিয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা। সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনুর নেতৃত্বে মিছিলটি দলীয় টেন্ট থেকে শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে টেন্টে এসে শেষ হয়। এসময় ছাত্রলীগের প্রায় দেড়শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বগুড়ায় ট্রাকচাপায় পুলিশ কনস্টেবল নিহত

বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় ট্রাকচাপায় এক পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যু হয়েছে।শিবগঞ্জ থানার ওসি সাহিদ মাহমুদ খান জানান, মোকামতলা পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের কাছে মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহ আলমের (৪০) বাড়ি নওগাঁয়। ওসি বলেন, ভোর ৫টায় দায়িত্ব পালন শেষে বাসায় ফিরছিলেন শাহ আলম।

“তদন্তকেন্দ্রের কাছে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে ঢাকাগামী একটি ট্রাক তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।” পুলিশ ট্রাকটি আটকের চেষ্টা করছে বলে তিনি জানান।

 

একজন মা সন্তানের আদর্শের প্রতীক ইউএনও, আত্রাই

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর আত্রাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মোখলেছুর রহমান বলেছেন, দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে শিক্ষার্থীদের সুশিক্ষায় গড়ে তুলতে হবে। শিক্ষার্থীদের বই পড়ানোতে অভ্যস্ত করতে হবে। জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস, মাদক ও বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে আজকের ছাত্র ছাত্রীদের সচেতন করে তুলতে হবে। আর এর জন্য শুধু শিক্ষকরাই নয় অভিভাবকেরও ভুমিকা পালন করতে হবে। তিনি বলেন, একজন মা সন্তানের আদর্শের প্রতীক। তাই সন্তানকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে মাদের অনেক দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। তিনি সোমবার উপজেলার নবাবেরতাম্বু উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত মা সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেলাল উদ্দিন শাহ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসরা তারিকুল আলম, বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এএফএম মনসুর রহমান, সমাজসেবক আজিজুর রহমান পলাশ, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান, খলিলুর রহমান, মা আলেয়া বেগম, শিক্ষার্থী সামি আক্তার জুঁই, রবিউল ইসলাম প্রমুখ।

প্রতারক চক্রকে ধরতে মাঠে নেমেছে পুলিশ ও র‌্যাব

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি : চাঁপাইনবাবগঞ্জে ন্যাশনাল ব্যাংকে টাকা জমা দিয়ে এসে প্রতারকচক্রের হাতে একটি কোম্পানীর ১০ লাখ টাকা খোয়া যাওয়ার ঘটনায় জড়িতদের ধরতে মাঠে নেমেছে পুলিশ ও র‌্যাব। এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ব্যাংকের সিসিটিভি ফুটেজ থেকে ৪ জনকে সনাক্ত করে তাদের ধরতে তৎপরতা চালাচ্ছে আইশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। তবে  সোমবার বিকেল পর্যন্ত খোয়া যাওয়া টাকা উদ্ধার বা ওই চক্রের কাউকেই গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

ন্যাশনাল ব্যাংকের চাঁপাইনবাবগঞ্জ শাখা ব্যবস্থাপক আনোয়ার হোসেন জানান, বিট্রিশ আমেরিকান টোব্যাকোর চাঁপাইনবাবগঞ্জের পরিবেশক হক এন্ড কোম্পানীর পরিচালক নাজিবুর রহমান ও তার ম্যানেজার রেজওয়ান আলী কোম্পানীর ২৫ লাখ টাকা জমা দিতে গত রোববার দুপুরে জেলা শহরের পুরাতনবাজারস্থ ন্যাশনাল ব্যাংকে আসেন। দুপুর পৌনে একটার দিকে ক্যাশ কাউন্টারের সামনে টাকা গোনার সময় প্রতারক চক্রের এক সদস্য পাশ থেকে তাদের জানায় কিছু টাকা ব্যাংকের মেঝেতে পড়ে গেছে। এসময় তারা নিচের দিকে তাকালে প্রতারক চক্রটি ১০ লাখ টাকার একটি বান্ডিল নিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় হক এন্ড কোম্পানীর মালিক নাজিবুর রহমান ওই দিন বিকেলেই সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। অভিনব কায়দায় ১০ লাখ টাকা নিয়ে প্রতারক চক্রের সটকে পড়ার ঘটনায় শহরজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যর সৃষ্টি হয়।

সদর মডেল থানার ওসি সাবের রেজা আহমদ জানান, ব্যাংকের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে প্রতারক চক্রের চার সদস্যকে সনাক্ত করা হয়েছে। তবে তাদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। তাদের ধরতে পুলিশ ও র‌্যাব কাজ করছে বলে জানান তিনি। 

চাঁপাইনবাবগঞ্জে অস্ত্র মামলায় ইউপি সদস্যের ১৪ বছর কারাদন্ড

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :  চাঁপাইনবাবগঞ্জে অস্ত্র মামলায় এক ইউপি সদস্যকে ১৪ বছর সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। বিশেষ ট্রাইবুন্যাল-২ এর বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ জিয়াউর রহমান গতকাল সোমবার দুপুরে এই রায় প্রদান করেন। দন্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি হচ্ছে জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নের সুন্দরপুর গ্রামের হেনার ছেলে আঙ্গুর (৩৫)। দন্ডিত আঙ্গুর নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নং সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য।

সরকারি কৌশুলি এডভোকেট আঞ্জুমান আরা জানান, ২০১৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা মোড়ে নিয়মিত টহলের সময় ১টি পিস্তল, ১টি ম্যাগজিন ও ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধারসহ আঙ্গুরকে গ্রেফতার করে শিবগঞ্জ থানা পুলিশ। ওই দিনই এসআই আবুল কালাম আজাদ বাদী হয়ে শিবগঞ্জ থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আব্দুস সবুর খান একই বছরের ৩১ অক্টোবর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। শুনানী শেষে গতকাল সোমবার আসামির উপস্থিতিতে বিচারক তাকে ১৪ বছর সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

সোনাতলায় অগ্নিকান্ডে ১৫ লাখ টাকার মালামাল ভস্মীভূত

সোনাতলা (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার সোনাতলায় গতকাল সোমবার বিদ্যুতের শট সার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডে পৌর এলাকার নিত্যনন্দনপুর এলাকায় অগ্নিকান্ডে প্রায় ১৫ লাখ টাকার মালামাল পুড়ে গেছে।

ওই গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা ও সোনাতলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক রাজুর বাড়িতে গতকাল বেলা আনুমানিক ১১টার সময় বিদ্যুতের শট সার্কিট থেকে অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয়। এরপর নিমিষেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে গোটা বাড়িতে। ফলে ওই বাড়ির ৬টি ঘর, মূল্যবান আসবাবপত্র, ধান, চাল, পাট, কাপড়চোপড়, কাগজপত্র, স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা পুড়ে যায়। পরে সোনাতলা ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে প্রায় ১ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অগ্নিকান্ডে তার প্রায় ১৫ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।  

অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর পরিদর্শন করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু মোহাম্মদ জিয়াউল করিম শ্যাম্পু, পৌর মেয়র আলহাজ্ব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম নান্নু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহিদুল বারী খান রব্বানী, অধ্যক্ষ আব্দুল মালেক, কমিশনার রবিউল ইসলাম খান, সাবেক কমিশনার মশিউর রহমান রানা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নবীন আনোয়ার কমরেড প্রমুখ।

বগুড়ায় বাস উল্টে ৩ জনের মৃত্যু

বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে পড়ে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে; এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৩৫ জন। শেরপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মো. সোহেল রানা জানান, উপজেলার সীমাবাড়ী বাসস্ট্যান্ডের কাছে রোববার রাত ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন – গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার মণ্ডলপাড়ার মো. তারেক (২৭), মো. করিম (২৫) ও খেয়ারঘাট এলাকার সাইফুল ইসলাম (৩৫)। ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা সোহেল  বলেন, গাইবান্ধা থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া নিউ শেফা পরিবহনের একটি বাস সীমাবাড়ী বাসস্ট্যান্ডের কাছে পৌঁছে নিয়ন্ত্রণ হারায়।

“বাসটি মহাসড়কের পাশে উল্টে পড়লে ঘটনাস্থলেই তিনজন মারা যান। দুর্ঘটনায় আহত হন আরও অন্তত ৩৫ জন।” আহতদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রায়গঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

দুর্ঘটনার পর মহাসড়কে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশ গিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে বলে জানান শেরপুর থানার ওসি খান মোহাম্মদ এরফান। ওসি বলেন, শেরপুর ও রায়গঞ্জ উপজেলা থেকে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তিনটি ইউনিট গিয়ে প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় বাসটি উদ্ধার করে। এ সময় বাসচালক ও সহকারীকে পাওয়া যায়নি।

 

শেরপুরে শ্রমিকদের আল্টিমেটাম দাবি না মানলে সবধরণের যান চলাচল বন্ধ

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার শেরপুরে মোটর মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়ন মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। শ্রমিকদের কেনা একটি মিনিবাস ‘করতোয়া গেটলক’ সার্ভিসে অন্তর্ভূক্তি করা নিয়ে উভয় সংগঠনের মধ্যে বিরোধ বাধে। একপর্যায়ে তা প্রকাশ্যে রুপ নিয়েছে। এদিকে আগামী ৭দিনের মধ্যে শ্রমিকদের দাবি মেনে নেয়া না হলে শ্রমিক ধর্মঘটের ডাক দেয়া হবে। একইসঙ্গে এই উপজেলার সব রুটে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়ারও হুমকি দেন শ্রমিক নেতারা।

রোববার শহরের স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডস্থ শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে লিখিত বক্তৃতায় সংগঠনের সভাপতি আরিফুর রহমান মিলন বলেন, ১৯৮৪ সালে শেরপুর মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠিত হয়। এই সংগঠনের বর্তমান ৯হাজার শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিলের টাকায় একটি মিসিবাস কেনা হয়। উক্ত মিনিবাস ইতিপূর্বে শেরপুরের সনামধন্য ব্যবসায়ী সফিক আর্ট নামে করতোয়া সার্র্ভিসে চলাচল করতো। সম্প্রতি তার অকাল মৃত্যুর পর (বগুড়া জ-০৫-০০২৬) মিনিবাসটি পরিবারের পক্ষ থেকে বিক্রির প্রস্তাব করা হলে মিনিবাসটি বগুড়া জেলা বাস-মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন শেরপুর উপজেলা কমিটির নামে কেনা হয় এবং গত ২৬ ফেব্র“য়ারি থেকে শেরপুর-বগুড়া মহাসড়কে করতোয়া গেটলক সার্ভিসে চলাচলের চেষ্টা করা হলে মোটর মালিক গ্র“পের পক্ষ থেকে বাধা দেয়া হয়। পরে শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, শেরপুর থানার ওসিসহ বগুড়া জেলা মোটর শ্রমিক ও মালিক সমিতির কাছে সমাধানের জন্য লিখিত ভাবে আবেদন করা হয়। কিন্তু অদ্যাবধি সুষ্ঠু সমাধান হয়নি। শ্রমিক নেতা মিলন আরও বলেন, শ্রমিক ইউনিয়নের মিনিবাসটি মোটর মালিক গ্র“পে ভর্তির জন্য গত ২৩ মার্চ রশিদ মূলে হিসাব রক্ষক বরাবরে ৫ হাজার টাকা নগদ সদস্য ফি প্রদান করা হয়। এরপরও উক্ত মিনিবাসটি ‘করতোয়া সার্ভিসে’ চলাচল করতে দেয়া হচ্ছে না।

তিনি বলেন, আগামী ২৩এপ্রিলের মধ্যে শ্রমিক ইউনিয়নের কেনা মিনিবাসটি করতোয়া সার্ভিসে চলাচলের অনুমতি দেয়া না হলে শ্রমিক ইউনিয়নের সব সদস্যরা কর্মবিরতি পালন শুরু করবে। এমনকি দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত উপজেলার সব রুটে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হবে। এক্ষেত্রে যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দায়-দায়িত্ব মোটর মালিক গ্র“পকে নিতে হবে বলে এই শ্রমিক নেতা জানান। উক্ত সংবাদ সম্মেলনে অত্র শ্রমিক ইউনিয়নে প্রধান উপদেষ্টা জানে আলম খোকা, আব্দুল মান্নান, কার্যকরী সভাপতি আব্দুস সাত্তার, সহ-সভাপতি মতিয়ার রহমান মতি, সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান, শ্রমিক নেতা আবু হানিফ, মিজানুর রহমান ফটিক, আবু রায়হান, শাহীন আলম, জুয়েল রানা, মিঠু খাঁন, দুলাল হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে মোটর মালিক গ্র“প শেরপুর শাখার সভাপতি নুরুল ইসলাম নুরু এ প্রসঙ্গে বলেন, আলোচনার মাধ্যমেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে থাকে। কিন্তু শ্রমিক নেতারা সেটি না করে অহেতুক আন্দোলন সংগ্রাম করছেন। এমনকি মালিকদের সম্পর্কে মানহানিকর নানা বক্তব্য দিচ্ছেন। যা মোটেও ঠিক নয়। তাদের এই অপপ্রচার মেনে নেয়া হবে না। শ্রমিকরা বেশি বাড়াবাড়ি করলে তারাও সমুচিত জবাব দেবেন বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন মোটর মালিক গ্র“পের এই নেতা।

দুপচাঁচিয়া জোবেদা শপিং সেন্টারের স্বত্বাধিকারীর স্ত্রীর ইন্তেকাল

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জোবেদা শপিং সেন্টারের স্বত্বাধিকারী আলহাজ মিয়াজান আলীর স্ত্রী জোবেদা বেওয়া গতকাল রোববার সকালে নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে ওয়া… রাজেউন)। তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর।

উপজেলা সদরের সুখানগাড়ী গ্রামের সর্বজন পরিচিত মরহুম মিয়াজান আলীর স্ত্রী জোবেদা বেওয়া মৃত্যুকালে ৫ ছেলে ৪ মেয়ে, নাতি-নাতনিসহ বহু আত্মীয়-স্বজন গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। গতকাল রোববার বিকেলে গ্রামেই তার জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। উপজেলা সদরের জোবেদা শপিং সেন্টারের স্বত্বাধিকারীর স্ত্রীর মৃত্যুতে গতকাল রোববার মার্কেটের সকল দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান টুকুর জামিন নামঞ্জুর

সিরাজগঞ্জ অফিস : সিরাজগঞ্জের সয়দাবাদে  ট্রেনে হামলা ও ভাঙচুরের একটি মামলায় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ ওরফে টুকুর জামিনের আবেদন দ্বিতীয় দফায় নামঞ্জুর করেছে আদালত।

 রোববার বেলা ১১টায় সিরাজগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর জামিনের আবেদন করেন বলে জানান তার আইনজীবী রেজাউল করিম তালুকদার। শুনানি শেষে আদালতের বিচারক  কোহিনুর আরজুমান জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করেন।
আদালতের জেনারেল রেজিষ্টার কর্মকর্তা (জিআরও) মাসুদ মিয়া এতথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, ছাত্রদল নেতা শহীদ নাজির উদ্দিন জেহাদের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ২০১০ সালের ১১ অক্টোবর  সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদের মুলিবাড়িতে ছাত্র গণজমায়াতের আয়োজন করে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। সমাবেশ চলাকালে ট্রেনে কাটা পড়ে ছয়জন নিহত হওয়ার ঘটনায় ট্রেনে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সিরাজগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের তৎকালীন উপ-সহকারী পরিচালক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। গতকাল এই মামলায় কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ জামিনের আবেদন করা হয়।

গত ১০ এপ্রিল এসব মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন ইকবাল হাসান মাহমুদ। পরে বিচারক জাফরোল হাসান জামিনের আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ প্রদান করেন। বর্তমানে তিনি ঢাকার কাশিমপুর কারাগারে আটক রয়েছেন।

 



Go Top