সুন্দরগঞ্জে চুরির অপবাদে কিশোরকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, আটক ২

সুন্দরগঞ্জে চুরির অপবাদে কিশোরকে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, আটক ২

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে গরু চুরির অপবাদে রশি দিয়ে হাত-পা বেঁধে উল্টো করে মধ্যযুগীয় কায়দায় কিশোর রাফিকুল ইসলামকে (১৪) নির্মম নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। রাতে ঘুমন্ত কিশোরকে বাড়ি থেকে ডেকে তুলে নিয়ে আটকের পর এ নির্মম নির্যাতন চালানো হয়। পরে দিনের বেলা শতশত মানুষের সামনে আবারও লাঠি পিটানো হয়। নির্যাতনের শিকার রাফিকুল ইসলাম উপজেলার ধুমাইটারী গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে নির্যাতিত ওই কিশোরের বড় ভাই রফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে ১৩ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ দুইজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটকরা হলেন- ধুমাইটারী গ্রামের বাবলু মিয়ার ছেলে রানা (৩০) ও একই গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে আইজুল হক (৫০)। তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। গত শনিবার সকালে সুন্দরগঞ্জের ধুমাইটারী গ্রামে নির্মম নির্যাতনের ঘটনার সেই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। গত রোববার সন্ধ্যার পর পরই নির্যাতনের ভিডিও চিত্রের বিষয়টি নজরে আসে গণমাধ্যমকর্মীদের। নির্যাতনের শিকার কিশোর রাফিকুল বর্তমানে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে চিকিৎসাধীন।
সুন্দরগঞ্জের ধুমাইটারী গ্রামের দরিদ্র পরিবারের ১৩ বছরের রাফিকুল স্থানীয় ইটভাটায় শ্রমিকের কাজ করে।  নির্যাতিত কিশোরের স্বজনদের অভিযোগ, প্রতিবেশী মাহাম মিয়ার ছেলে ফজলু মিয়া (৫০), আব্বাস মন্ডলের ছেলে ইয়াজল ইসলাম (৪০) ও আজির মন্ডলের ছেলে নাজমুল ইসলামের (৩০) সাথে দীর্ঘদিন ধরে পারবারিক বিরোধ চলছে তাদের। গত শুক্রবার রাত ১২ টার দিকে ঘুম থেকে রাফিকুল ইসলামকে তুলে নিয়ে যায় তারা এবং ফজলু মিয়ার বাড়িতে বেঁধে রাখে। পরে তাকে ছেড়ে দেয়ার জন্য দশ হাজার টাকা দাবি করে তারা। তাৎক্ষণিক তিন হাজার টাকা দেন তার পরিবারের লোকজন। কিন্তু তাতে সন্তুষ্ট না হয়ে রাতভর আটক রেখে রাফিকুলকে মারধর করা হয়। পরদিন শনিবার সকালে গ্রামের শতশত নারী-পুরুষের সামনে রশি দিয়ে হাত-পা বেঁধে উল্টো করে মধ্যযুগীয় কায়দায় রাফিকুলকে আবারও লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে প্রতিবেশী প্রভাবশালী আফছার আলী প্রামাণিকের ছেলে তনু প্রামাণিক (৪৬), তুহিন প্রামাণিক (৩২), তাজু প্রামাণিক(৫১), ফজল উদ্দিন প্রামাণিকের ছেলে সাবু প্রামাণিক (৫৫), ল্যালিন প্রামাণিক (৪০) ও মোখলেছুর রহমানের ছেলে মুছা প্রামাণিক (৪০)।

কিশোর রাফিকুলের বড় ভাই রফিকুল ইসলাম বলেন, গ্রামের সকলের সামনে রাফিকুলের ওপর নির্মম নির্যাতন চালালেও কেউ তাকে বাঁচাতে গেলে তাদেরকেও মারধর করা হয়। নির্যাতনের শিকার রাফিকুল এক পর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। ঘটনার পর নির্যাতনকারী ভয়ভীতি ও হুমকি দেয়ায় মুখ খুলতে এবং অভিযোগ করতে সাহস পায়নি ভুক্তভোগীর পরিবার। মোবাইলে ধারন করা অজ্ঞাত একজনের নির্যাতনের ঘটনার ভিডিও দেখে বিষয়টি পুলিশ ও সাংবাদিকদের জানান তিনি। এ বিষয়ে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে¬ক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. শুধাংশু বলেন, মারধরের শিকার কিশোরের দুই পা-হাত ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়েছে। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।