যুদ্ধাপরাধে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আবদুস সুবহান মারা গেছেন

যুদ্ধাপরাধে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আবদুস সুবহান মারা গেছেন

পাবনা প্রতিনিধি: একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত হয়ে ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের সাবেক নায়েবে আমীর ও পাবনা-৫ (সদর) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মাওলানা আবদুস সুবহান মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি -- ইলাইহি রাজিউন)। শুক্রবার দুপুর একটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। আব্দুস সুবহানের বড় ছেলে আব্দুল হালিম লাল এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, তার পিতা আব্দুস সুবহান কাশিমপুর কারাগারে ছিলেন। দীর্ঘদিন কারাগারে থেকে বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন তিনি। অসুস্থ হয়ে পড়লে গত ২৪ জানুয়ারি তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার শুক্রবার দুপুরে মারা যান তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯২ বছর। তিনি পাঁচ ছেলে, ছয় মেয়ে ও ৪৬ জন নাতী-নাতনীসহ আত্মীয়-স্বজন গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। কয়েক বছর আগে মারা যান তার স্ত্রী।

আব্দুল হালিম লাল আরো জানান, ময়না তদন্তের জন্য তার পিতার মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের  মর্গে রয়েছে। ময়না তদন্ত ও আইনী প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ হাতে পাবার পর তার জানাযা নামামের সময় নির্ধারণ করা হবে।উল্লেখ্য, আবদুস সুবহান জামায়াতের নায়েবে আমির ছিলেন। তিনি পাবনা-৫ আসন থেকে পাঁচবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সর্বশেষ ২০০১ সালের নির্বাচনে চারদলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা আবদুস সুবহান পাকিস্তান আমলে ছিলেন পাবনা জেলা জামায়াতের আমির ও কেন্দ্রীয় শুরা সদস্য। একাত্তরে মাওলানা সুবহানের সহযোগিতায় পাকিস্তানী বাহিনী পাবনার বিভিন্ন অঞ্চলে ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ চালায়। মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রইব্যুনাল-২ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি মাওলানা সুবহানকে ফাঁসির দন্ডাদেশ দেন।