মশা তাড়াতে ডিএনসিসির খরচ সাড়ে ১৭ কোটি

মশা তাড়াতে ডিএনসিসির খরচ সাড়ে ১৭ কোটি

গতবছর রাজধানীবাসীকে চিকুনগুনিয়া রোগে নাস্তানাবুদ করে ছেড়েছে। পুরো বছরের প্রায় অর্ধেকটা সময় জুড়েই আলোচনায় ছিল চিকুনগুনিয়া নিয়ে। মশকনিধনে সিটি করপোরেশনের ভূমিকা নিয়ে বিভিন্ন মহল থেকে প্রশ্ন উঠেছিল।

তবে সমালোচনা-আলোচনা যাই হোক টাকা খরচ করতে কার্পণ্যতা করেনি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। সদ্য বিদায়ী অর্থবছরে মশা তাড়াতে ডিএনসিসির খরচ হয়েছে ১৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

সোমবার (৩০ জুলাই) দুপুরে ডিএনসিসির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার পর বিদায়ী অর্থবছরের অর্থাৎ ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট পর্যালোচনা থেকে এ তথ্য পাওয়া যায়। শুধু তাই নয় চলতি অর্থ বছরেও ২১ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

বিদায়ী অর্থবছরে মশক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে বরাদ্দ ছিল ২০ কোটি খরচ হয়েছে ১৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এরমধ্যে মশকনিধন ওষুধ কিনতে খরচ হয়েছে ১৫ কোটি টাকা আর ফগার, হুইল,স্প্রেমেশিন পরিবহনে ব্যয় হয়েছে ২ কোটি টাকা।

অন্যদিকে কচুরিপানা, আগাছা পরিষ্কার ও পরিচর্যা করতে খরচ হয়েছে ৫০ লাখ টাকা।

চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মশকনিধন ওষুধ কেনার জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৮ কোটি টাকা আর কচুরিপানা, আগাছা পরিষ্কার করতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১ কোটি টাকা। এছাড়া ফগার, হুইল, স্প্রেমেশিন পরিবহনের ব্যয় ধরা হয়েছে ২ কোটি টাকা।