মধ্যপ্রাচ্যে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

মধ্যপ্রাচ্যে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস

মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়ছে। এখন পর্যন্ত মধ্যপ্রাচ্যের নয়টি দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। বিশ্বব্যাপী ২ হাজার ৭০১ মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ৮০ হাজার ১৫০ জন।

এখন পর্যন্ত ৩৭টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে এই প্রাণঘাতী ভাইরাস। আক্রান্ত ও মৃত্যুর ঘটনার অধিকাংশই চীনের মূল ভূখণ্ডে। মধ্যপ্রাচ্য ছাড়াও এশিয়ার বেশ কিছু দেশ এবং ইউরোপেও এই ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে।


সোমবার কুয়েত, বাহরাইন, আফগানিস্তান, ইরাক এবং ওমানে প্রথমবারের মতো করোনায় আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। কুয়েতে তিনজন, ওমানে দু’জন, বাহরাইন ও ইরাকে একজন করে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

অপরদিকে, তুরস্ক, পাকিস্তান এবং আর্মেনিয়া ইরানের সঙ্গে তাদের সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে ইরানেই সবচেয়ে বেশি মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। সেখানে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৬১ এবং মারা গেছে ১২ জন।

চীনের ন্যাশনাল হেলথ কমিশন এক ঘোষণায় জানিয়েছে, রোববার নতুন করে এই ভাইরাসে আরও ১৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। অপরদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ায় এই ভাইরাসে আটজনের মৃত্যু হয়েছে এবং আক্রান্ত হয়েছে ৮৯৩ জন।


ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ইতালিতে এই ভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। সেখানে এখন পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছে ২২৯ জন।
 
অপরদিকে, জাপানি প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসের আরও এক যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ওই প্রমোদতরীর চারজন প্রাণ হারিয়েছে। দু’সপ্তাহ ধরে ওই প্রমোতরীর যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল।

করোনাভাইরাসে জাপানের বিভিন্ন স্থানে ৫, ইতালিতে ৭, হংকংয়ে ২, তাইওয়ানে একজন, ফ্রান্সে একজন এবং ফিলিপাইনে একজনের মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৭ হাজার ৪৬৯ জন।

চীনের মূল ভূখণ্ডে নতুন করে আরও ৭১ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৬৮ জনই হুবেই প্রদেশের উহান শহরের। চীনে এখন পর্যন্ত দুই হাজার ৬৬৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। অপরদিকে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭৭ হাজার ৬৬৮।