ইউক্রেনের প্লেন ভূপাতিতের ঘটনায় ইরানে অব্যাহত বিক্ষোভ

ইউক্রেনের প্লেন ভূপাতিতের ঘটনায় ইরানে অব্যাহত বিক্ষোভ

ইউক্রেনের যাত্রীবাহী প্লেন বিধ্বস্তের ঘটনায় ইরানিদের বিক্ষোভ। ছবি: সংগৃহীত

ইরানি ক্ষেপনাস্ত্র হামলায় ইউক্রেনের যাত্রীবাহী প্লেন বিধ্বস্তের ঘটনায় বিক্ষোভ অভ্যাহত রয়েছে।


সোমবার (১৩ জানুয়ারি) ইরান থেকে পাঠানো বিক্ষোভকারীদের ধারণ করা ভিডিওচিত্রের বরাত দিয়ে সংবাদ জানায় আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম।

রাজধানী তেহরান ও ইসফাহান থেকে পাঠানো এ ভিডিওচিত্র থেকে দেখা যায়, বিক্ষোভকারীরা ‘মোল্লারা দূর হও’সহ সরকারের পতনের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন। পাশাপাশি রায়ট পুলিশকে রাস্তায় প্রস্তুত থাকতে দেখা যায়।

নিউইয়র্ক ভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটস ইন ইরানের কাছে প্রথম এ ভিডিওচিত্র পাঠানো হয়। আন্তর্জাতিক বার্তাসংস্থা এসোসিয়েটেড প্রেস (এপি) ভিডিওর সত্যায়ন করে।

এ ভিডিওচিত্রের এক চিত্রে বিক্ষোভকারীদের প্রতি পুলিশকে কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করতে দেখা যায়।

এদিকে ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে পুলিশের বিবৃতির বরাত দিয়ে জানানো হয়, বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সহনশীল আচরণ করা হচ্ছে।

তেহরানের পুলিশ প্রধান হোসেইন রাহিমি বিবৃতিতে বলেন, ‘বিক্ষোভে পুলিশ কোনো গুলি ছোঁড়েনি। কেননা রাজধানীর পুলিশ কর্মকর্তাদের সংযত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

এর আগে ৮ জানুয়ারি (বুধবার) তেহরানে ইউক্রেনের যাত্রীবাহী প্লেন বোয়িং ৭৩৭-৮০০ (ফ্লাইট- পিএস৭৫২) বিধ্বস্ত হয়। এতে ১৭৬ আরোহী প্রাণ হারান। তাদের মধ্যে ৮৮ ইরানি, ৬৩ কানাডিয়ান, ৯ ইউক্রেনীয়, ৪ আফগান, ৪ ব্রিটিশ ও ৩ জার্মান নাগরিক ছিলেন। শুরুতে অস্বীকার করলেও শনিবার (১১ জানুয়ারি) ইরানের সামরিক কর্তৃপক্ষ স্বীকার করে, ‘অনিচ্ছাকৃত’ ভুলে ইরানি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ভূপাতিত হয়েছে ইউক্রেনের প্লেন।

ইরানে ক্ষেপনাস্ত্রের আঘাতে প্লেন বিধ্বস্তের এ ঘটনা জনগণকে না জানানোর অভিযোগে ইরানে বিক্ষোভ শুরু হয়।