দুপুর ২:৫০, মঙ্গলবার, ২৩শে মে, ২০১৭ ইং
/ জাতীয়

সৌদি আরবের মদিনায় মহানবী হযরত মোহাম্মদ (স.) এর রওজা জিয়ারতের পর মক্কায় গিয়ে ওমরাহ পালন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার রাত সোয়া ১০টার দিকে তিনি সফরসঙ্গীদের নিয়ে কাবা শরীফ ঘিরে তাওয়াফ করেন। প্রধানমন্ত্রী মসজিদ আল হারামে দুই রাকাত নফল নামাজ আদায় ও মোনাজাত করেন। পরে সাফা-মারোয়া প্রদক্ষিণ করে সেখানে মোনাজাত করেন।

সৌদি বাদশাহর আমন্ত্রণে ‘আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিটে’ যোগ দিতে শনিবার রাতে রিয়াদে পৌঁছান শেখ হাসিনা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মুসলিম প্রধান অর্ধশতাধিক দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধান রোববার কিং আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ওই সম্মেলনে যোগ দেন।

গত জানুয়ারিতে শপথ নেওয়ার পর এটাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রথম বিদেশ সফর। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এই সম্মেলনেই তার প্রথম দেখা হয়।

উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদারের লক্ষ্যে আয়োজিত এই সম্মেলনে ইসলামী চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াই জোরদারের আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

আর শেখ হাসিনা তার লিখিত বক্তৃতায় বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ দমনে সন্ত্রাসীদের অস্ত্র ও অর্থ সরবরাহ বন্ধ করাসহ চার দফা প্রস্তাব করেন। সম্মেলন শেষে সোমবার শেখ হাসিনা রিয়াদ থেকে মদিনায় গিয়ে মহানবী হযরত মোহাম্মদ (স.) এর রওজা জিয়ারত করেন। পরে রাতে মক্কায় এসে তিনি ওমরাহ পালন করেন।

এই সফর শেষে মঙ্গলবার রাতে দেশে ফেরার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

 

রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, গাবতলী ও বিমানবন্দর এলাকায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। তাদের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে  সোমবার তাদের লাশ নিয়ে গেছেন স্বজনরা। এছাড়া কামরাঙ্গীরচরে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ির ধাক্কায় এক নারীসহ তিন পথচারী আহত হয়েছেন। গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিল বলে দাবি ফায়ার সার্ভিসের।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, সোমবার সকাল ১০টার দিকে যাত্রাবাড়ী উত্তরা ব্যাংকের সামনের সড়কে দুই বাসের মাঝে চাপা পড়ে জিল্লুর রহমান (৩০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তার মামাতো ভাই  মেহেদী হাসান জানান, রাস্তা পারাপারের সময় দুই বাসের মাঝে চাপা পড়ে গুরুতর আহত হন জিল্লুর রহমান। তাকে উদ্ধার করে ঢাকা  মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে বেলা পৌনে ১১টায় চিকিৎসক মৃত বলে জানান। জিল্লুর রহমান ডেমরার বাশেরপুল ইস্টার্ণ হাউজিংয়ে থাকতেন। তিনি একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। তিনি ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা এলাকার কুদ্দুস মিয়ার ছেলে। এদিকে রোববার দিনগত রাত ৩টার দিকে বিমানবন্দর গোল চত্ত্বরে অজ্ঞাত যানবাহনের ধাক্কায় মিলন মিয়া (৪২) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। বিমান বন্দর থানার এসআই মনিরুল ইসলাম জানান, মিলন মোটরসাইকেল চালিয়ে বিমানবন্দর গোলচত্ত্বর এলাকায় দিয়ে যাওয়ার সময় অজ্ঞাত যানবাহন তাকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। তিনি কুমিল্লা জেলার মেঘনা উপজেলার ভাবখোলা গ্রামের মৃত শামসুদ্দিনের ছেলে। বর্তমানে রূপনগর আবাসিক এলাকায় থাকতেন।

অন্যদিকে রোববার দিনগত রাত ১টার দিকে দারুসসালাম থানাধীন গাবতলি মোড়ে লড়ির ধাক্কায় নাহিদ (২২) নামে এক বাইসাইকেল আরোহীর মৃত্যু হয়েছে। দারুস সালাম থানার এসআই ময়নাল হক জানান, নাহিদ তেতুলিয়া বাসের হেলপার হিসাবে কাজ করতেন। তিনি পরিবারের সঙ্গে সাভার রেডিও কলোনি এলাকায় থাকতেন। নাহিদ কাজ শেষে গাবতলি থেকে সাইকেল চালিয়ে বাসায় যাওয়ার সময় গাবতলি মোড়ে লড়ির ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এছাড়া রোববার রাতে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে ফায়ার সার্ভিসের গাড়ির ধাক্কায় এক তাসলিমা আক্তার(২০), নিজাম উদ্দিন (৪৫) ও জাহাঙ্গীর আলম (২২) নামে তিন পথচারী আহত হন। হাজারীবাগ ফায়ার স্টেশনের ডিউটি অফিসার সাইদুজ্জামান জানান, রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কামরাঙ্গীরচর রনিমার্কেট এলাকায় অগ্নিকান্ডের খবর আসে। সঙ্গে সঙ্গে হাজারীবাগের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। কামরাঙ্গীরচর খলিফাঘাট এলাকায় পৌছতেই সরু রাস্তায় নিয়ন্ত্রণ হারায় গাড়িটি। এসময় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ির ধাক্কায় ৩ পথচারি আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা রাত ৯টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

 

 

 

দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তরাঞ্চলে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে আরও ৪-৫ দিন

আগামী চার থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। আশুগঞ্জের বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন ভেঙে পড়ায় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চলে বিদ্যুতের এ সংকট দেখা দিয়েছে বলেও জানান তিনি।  সোমবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা জানান।

রমজান মাসে বিদ্যুতের কোনো সংকট হবে কিনা- জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমি বলতে পারি একটা ভালো পরিস্থিতির দিকে যাবে। সংকট তো থাকবেই, এখনও আছে। ভালো পরিস্থিতি বলতে আগের থেকে ভালো। তিনি বলেন, যে কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এজন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। আমরা যে প্রবণতায়, বলবো না খুব ভালো অবস্থায় আছি। ভালো অবস্থায় যেতে আরও তিন বছর লাগবে। ট্রান্সমিশনে এখন ঘাটতি রয়ে গেছে, কাজ চলছে। চায়না সরকারের কাছ থেকে যে অর্থ পাওয়ার কথা তা অন প্রসেসিং। এজন্য কাজ শুরু করতে হবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বৃহৎ প্রকল্পগুলো এখনও আসেনি। আমি মনে করি, দেশবাসী, গ্রাহক বিষয়টা বুঝতে চেষ্টা করবেন। নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ কবে পাবে- প্রশ্নে নসরুল হামিদ বলেন, ৪০০ মেগাওয়াটের প্ল্যান্ট ৭-৮ মাসের আগে আসবে না। তবে উত্তরাঞ্চল ও পশ্চিমাঞ্চলে যে পাওয়ার প্ল্যান্ট রয়েছে সেগুলো ৪-৫ দিনের মধ্যে শুরু করে দেবো। সেটা কাভার করবো। নসরুল হামিদ বলেন, আমরা দেখছি ক্যাপাসিটি বেড়ে যাচ্ছে, একবার বৃষ্টি হলে চার হাজার মেগাওয়টে নেমে যাচ্ছে, গরম পড়লে ১২ হাজার। বিদ্যুৎ ব্যবহারের প্যাটার্ন পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। গরমে এসি ছাড়ছি, বৃষ্টিতে ঠান্ডা পড়ায় এসি বন্ধ করছি। এখনও ব্যবসায়ী লাইনগুলো ওরকমভাবে বিদ্যুৎ দিচ্ছে না। যদি ধরে নেই যে ক্যাপটিভ পাওয়ারের প্রায় তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ চালু রাখছে, তাহলেও আমাদের বিদ্যুতের চাহিদা আরও বেড়ে যাবে।

ঢাকায় হোটেল কক্ষের তালা ভেঙেনারীর লাশ উদ্ধার

রাজধানীর ফকিরাপুল বাজার এলাকার ‘আল শাহীন’ নামের আবাসিক হোটেলের একটি কক্ষ থেকে এক নারীর (২৭) মরদেহ এবং তার ২০ দিন বয়সী কন্যা সন্তানকে জীবিত উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশের ধারণা, সাথে থাকা স্বামী বা স্বামী পরিচয়দানকারী ব্যক্তি ওই নারীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর কক্ষ তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। গত রোববার দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে কক্ষের তালা ভেঙে ভিতর থেকে ওই নারীর মরদেহ এবং তার সন্তানকে উদ্ধার করা হয়। পরে শিশুটিকে রাত ২টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের নবজাতক ইউনিটে ভর্তি করা হয় আর ওই নারীর মরদেহ ঢামেক মর্গে পাঠানো হয়।

ঢামেক হাসপাতালের উপ পরিচালক ডাঃ জাকির হোসেন জানান,  শিশুটির বয়স আনুমানিক ২০ দিন। তার বামগালে ও ঘাড়ে ক্ষত রয়েছে। ক্ষতস্থানে ইনফেকশন (সংক্রমণ) দেখা দিয়েছে। শিশুটি অধ্যাপক ডাঃ মনিষা ব্যানার্জীর অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছে। মতিঝিল থানার এসআই সাইফুল ইসলাম জানান, ওই নারীর পরনে ছিল খয়েরী বেলাউজ এবং গোলাপি পায়জামা। মরদেহের গলায় ওড়না পেঁচিয়ে গিট দিয়ে ফাস লাগানো ছিল। লাশটি খাটের উপর চিৎ অবস্থায় পড়েছিলো। গত রোববার ভোরে এক ব্যক্তি ওই নারীকে স্ত্রী এবং শিশুকে সন্তান পরিচয় দিয়ে ওই হোটেলে ওঠেন। পুলিশের ধারণা, ওইদিন রাত ১১টার মধ্যে যে কোন সময় তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে কক্ষ তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায় স্বামী পরিচয় দেওয়া ব্যক্তি।

আসন্ন রমজান ও ঈদ ঘিরে ডিএমপির ব্যাপক নিরাপত্তা

আসন্ন রমজান এবং ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ব্যাপক নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে ঢাকা মহানগর পলিশ (ডিএমপি)।  সোমবার ডিএমপি সদর দফতরে এ সংক্রান্ত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া নিরাপত্তার বিভিন্ন দিক সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন। রমজানে ফুটপাতে কোন ধরণের অবৈধ স্থাপনা, দোকানপাট থাকবে না বলেও জানান তিনি। এছাড়া শপিংমলগুলোতে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করে নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে দোকান মালিকদের প্রতি আহবান জানান কমিশনার। আগত ক্রেতাদেরকে আর্চওয়ে ও মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তল্লাশী করে প্রবেশ করানোরও নির্দেশনা দেওয়া হয়। শপিংমলগুলোতে নিরাপত্তার জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হবে বলেও জানান তিনি। কমিশনার বলেন, শপিংমলগুলোর সামনে অবৈধভাবে গাড়ি পার্কিং করা যাবে না। শপিংমলের সামনে কোন গাড়ি দাঁড়াতে বা অবস্থান করতে পারবে না। রমজান এবং ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন-ভাতাদি সঠিক সময়ে পরিশোধ করার জন্য বিজিএমইএ ও গার্মেন্টস মালিকদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
কমিশনার বলেন, রাজধানীর গাউছিয়া ও নিউমার্কেট এলাকায় ক্রেতাদের ভিড় বেশি লক্ষ্য করা যায়। যার অধিকাংশই মহিলা ক্রেতা। কেনাকাটা করতে এসে যেন কোন নারীকে কোন প্রকার হয়রানি বা ইভটিজিংয়ের স্বীকার হতে না হয় সেজন্য বিপুল সংখ্যক মহিলা পুলিশ মোতায়েন করা হবে।

নিরাপত্তা প্রসঙ্গে কমিশনার বলেন- আসন্ন রমজানে নগরবাসীর নিরাপত্তার জন্য পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদা পোশাকেও পুলিশ মোতায়েন থাকবে রাজধানীর শপিংমলসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে। ছিনতাই, চাঁদাবাজি, অজ্ঞান ও মলম পার্টি প্রতিরোধে গোয়েন্দা পুলিশের নজরদারি ও টহল অব্যাহত থাকবে। সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন ।

ডিএমপি কমিশনার রমজানে গৃহীত ট্রাফিক ব্যবস্থা সম্পর্কে বলেন, রাস্তার ইন্টারসেকশন ম্যানেজমেন্ট সঠিক ও কার্যকারী করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ঢাকা শহরের প্রবেশ ও বাহির পথ যানজট মুক্ত রাখতে রাস্তায় গাড়ি থামিয়ে কোন যাত্রী উঠানামা করা যাবে না। বাস টার্মিনাল, লঞ্চঘাট ও রেল স্টেশনে নেয়া হবে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ফিটনেস বিহীন, লক্কর-ঝক্কর ও মেয়াদউত্তীর্ণ গাড়ি রাস্তা নামতে দেয়া হবে না। বাইরের জেলা থেকে আসা গাড়ি ঢাকা শহরে এসে যাতে করে যানজট সৃষ্টি করতে না পারে সেজন্য তিনশো ফিট এলাকায় রাস্তার পাশে অননুমোদিত দোকানপাট উচ্ছেদ করা হবে। তিনি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য হলো প্রত্যেক নাগরিক যাতে পরিবারের সাথে ইফতার করতে পারে সেটি নিশ্চিত করা।’

 

ট্রাম্পকে ঢাকা সফরের আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে বাংলাদেশ সফরে আসার ‘আশা প্রকাশ করেছেন’ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রোববার সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদের কিং আব্দুল আজিজ আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিটে’ দুই নেতার মধ্যে শুভেচ্ছা বিনিময় হয় বলে পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক জানান।

সম্মেলন শেষে রাতে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কথোপকথন হয়েছে, শুভেচ্ছা বিনিময় হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী উনাকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। উনি (ট্রাম্প) আসবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন।”

গত জানুয়ারিতে শপথ নেওয়ার পর এটাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রথম বিদেশ সফর। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে এবারই প্রথম তার দেখা হল।

পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হকের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম হেলালও উপস্থিত ছিলেন ব্রিফিংয়ে। সৌদি বাদশাহর আমন্ত্রণে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মুসলিম প্রধান অর্ধশতাধিক দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের সঙ্গে ‘আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিটে’ অংশ নেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী সম্মেলনস্থলে পৌঁছালে তাকে স্বাগত জানান সৌদি বাদশা সালমান বিন আব্দুল-আজিজ আল সৌদ। পরে বাদশাহর দেওয়া মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেন হাসিনা। স্থানীয় সময় বিকেলে শুরু হয় সামিটের শীর্ষ বৈঠক।

উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদারের লক্ষ্যে আয়োজিত এই সম্মেলনে ইসলামী চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াই জোরদারের আহ্বান জানান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ লড়াইকে ‘সভ্যতার সংঘাতের’ বদলে ‘শুভ ও অশুভের যুদ্ধ’ হিসেবে বর্ণনা করেন তিনি।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, এই সামিটের মূল উদ্দেশ্য ছিল সবাই মিলে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে চিহ্নিত করা; মূলমন্ত্র ছিল ‘টুগেদার উই প্রিভেইল’। “সবাই যদি আমরা সম্মিলিতভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই, তাহলে এটা রোধ করা সম্ভব।”

সৌদি আরবের নেতৃত্বে মুসলিম দেশগুলোর জোট নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, “এই জোটের একটা মিলিটারি সাইড আছে, একটা পলিটিক্যাল সাইড আছে। আমরা প্রাইমারিলি পলিটিক্যাল সাইডে শতভাগ অংশ নিচ্ছি। সামরিক দিকে কোন পরিস্থিতিতে আমরা সৈন্য পাঠাব তা পররাষ্ট্রমন্ত্রী আগেই ব্যাখ্যা করেছেন।

“সেটা হল, দুই পবিত্র স্থান (মক্কা ও মদিনা) আক্রান্ত হলে তা রক্ষার জন্য আমরা সৈন্য পাঠাব।” সম্মেলনে লিখিত বক্তৃতায় বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ দমনে সন্ত্রাসীদের অস্ত্র ও অর্থ সরবরাহ বন্ধ করাসহ চার দফা প্রস্তাব করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সন্ত্রাসী বোঝাতে গিয়ে ইসলাম শব্দটি ব্যবহার করা যে উচিত নয়- সেই ঘোষণা দিতে সম্মেলনে উপস্থিত আরব ও মুসলিম দেশগুলোর নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

 

সন্ত্রাসীদের অর্থ-অস্ত্র সরবরাহ বন্ধের পাশাপাশি মুসলিম উম্মাহর মধ্যে বিভেদ দূর করার কথা বলেন বাংলাদেশের সরকারপ্রধান। এছাড়া আলোচনা করে সবার জন্য লাভজনক একটি সমাধানে পৌঁছানোর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বিরোধ দূর করে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করার কথা বলেছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের জন্য ঐক্যবদ্ধ হতে মুসলিম দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান। সন্ত্রাস নির্মূলে শরণার্থী সঙ্কট যথাযথভাবে সামাল দেওয়ারও পরামর্শ দেন।

পররাষ্ট্র সচিব বলেন, “সন্ত্রাস আক্রান্ত হয়ে পরিবারের সদস্যদের হারিয়ে আমাদের প্রধানমন্ত্রীও যে এক সময় শরণার্থী হিসেবে ছিলেন- তাও তিনি তুলে ধরেছেন।”

সম্মেলনের ফাঁকে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক এবং তাজিকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ইমোমালি রাখমনের সঙ্গে একান্তে বৈঠক করেন শেখ হাসিনা। তারা দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয়ে আলাচনা করেন বলে শহীদুল হক জানান।

সম্মেলনের পর ‘গ্লোবাল সেন্টার ফর কমব্যাটিং এক্সট্রিমিস্ট থট’এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেন শেখ হাসিনা। মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল ফাত্তাহ আল-সিসি, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক, কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদআল-থানি, কুয়েতের আমির সাবাহ আল-আহমাদ আল-সাবাহ ও বাহরাইনের বাদশা হামাদ বিন ইস আল-খলীফাসহ মধ্যপ্রাচ্য ও মুসলিম প্রধান দেশগুলোর নেতারা অংশ নেন এই সম্মেলনে।

সৌদি বাদশার আমন্ত্রণে এই সম্মেলনে যোগ দেন বাংলাদেশের সরকার প্রধান। সৌদি আরবের সাংস্কৃতিক ও তথ্যমন্ত্রী আওয়াদ বিন-সালেহ-আল-আওয়াদ গত ৯ মে ঢাকায় এসে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে এই সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে যান।

শনিবার স্থানীয় সময় রাত সোয়া ১১টার দিকে শেখ হাসিনা রিয়াদের কিং খালিদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছালে সৌদি আরবের প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন ফযসল আবু সাক এবং রিয়াদে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ তাকে অভ্যর্থনা জানান।

প্রধানমন্ত্রী সোমবার সকালে মহানবী (সা.) এর রওজা জিয়ারত করতে মদিনায় যাবেন । একই দিন সন্ধ্যায় মদিনা থেকে ফিরে মক্কায় ওমরাহ পালন করবেন। সফর শেষে মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে তার।

 

তাপদাহ আরও বাড়তে পারে

জ্যৈষ্ঠের শুরুতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। আগামী দু’একদিন তা আরও বাড়তে পারে। বিদ্যমান অবস্থা চার দিন বিরাজ করতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। আবহাওয়া অফিসের তথ্যানুযায়ী, রাজশাহী, পাবনা, চাঁদপুর, নোয়াখালীর মাইজদী ও বরিশাল অঞ্চলসহ ঢাকা এবং খুলনা বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

আবহাওয়া অফিদফতরের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহিনুল ইসলাম রোববার বলেন, বিদ্যমান তাপপ্রবাহ আরও আরও চার দিন চলবে। এতে তাপমাত্রা কিছুটা বাড়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী দু-তিন দিনের মধ্যে বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ২৬ মে’র দিকে বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া মে মাসে তেমন বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। তবে জুন মাসে বেশি বৃষ্টিপাত হবে বাংলাদেশে। ঋতুচক্রে এপ্রিল মাস সব থেকে উষ্ণতম জানিয়ে এই আবহাওয়াবিদ বলেন, ওই তাপমাত্রা মে মাসেও অব্যাহত রয়েছে। আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, ঢাকা ও খুলনা বিভাগ এবং রাজশাহী, পাবনা, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, চাঁদপুর, মাইজদীকোর্ট, বরিশাল ও পটুয়াখালী অঞ্চলের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এই তাপপ্রবাহ এ মৌসুমের চতুর্থ। রোববার যশোরে দেশের সর্বোচ্চ ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে, যা এ সপ্তাহের সর্বোচ্চ। আর ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মল্লিক বলেন, শনিবার থেকে এই তাপপ্রবাহের কারণে অস্বস্তিকর গরম অনুভূত হচ্ছে। চলমান তাপপ্রবাহ আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে। পাশাপাশি অন্যত্র ঝড়ো আবহাওয়ার পূর্বাভাস রয়েছে। আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাস অনুযায়ী, মে মাসে দেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে এক থেকে দুটি তীব্র এবং অন্যত্র দুই থেকে তিনটি মৃদু বা মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। অধিক তাপমাত্রায় জনসাধারণের জন্য পরামর্শ দিয়ে দিয়ে আবহাওয়াবিদ শাহিনুল ইসলাম বলেন, বেশি রোদ হলে মাস্ক ও ঘাম মোছার জন্য রুমাল ব্যবহার করতে হবে। খুব প্রয়োজন হলে ছাতা নিয়ে বের হওয়া, বেশি করে বিশুদ্ধ পানি ও স্যালাইন খাওয়া ভাল। এছাড়া ডাবের পানি ও বিশুদ্ধ পানির শরবত খাওয়া যেতে পারে। আর দিনের যে সব কাজ রাতেও করা যায় সেগুলো দিনের মধ্যে না করাই ভালো। এতে রোদের তাপ থেকে বাঁচা যাবে।

এদিকে আজ সোমবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে : রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত: শুষ্ক থাকতে পারে। চাঁদপুর, রাজশাহী, পাবনা ও নোয়াখালী অঞ্চলসহ ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের উপরদিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।  দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো যশোর ও খুলনা ৩৮.০ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো রংপুর ২১.০ ডিগ্রী সেলসিয়াস। আজ সূর্যাস্ত যাবে ৬ টা ৩৭ মিনিট এবং আগামীকাল সূর্যোদয় হবে ৫ টা ১৩ মিনিট।

 

প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তল্লাশি চালাতে পারে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রাষ্ট্রের নিরাপত্তার প্রয়োজনে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যেকোনো জায়গায় তল্লাশি চালাতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে তল্লাশি চালানো প্রসঙ্গে  রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের একথা বলেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে তল্লাশি চালিয়েছে পুলিশ। এটা পুলিশের রুটিন কাজ।

এদিকে শনিবারের তল্লাশির প্রতিবাদে রোববার দেশব্যাপী বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এ নিয়ে আন্দোলন করতে হবে এমন পরিস্থিতি হয়নি। বনানীতে দুই ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনা তদন্ত কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, গাফিলতি থাকলে পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নরসিংদীতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে অভিযান প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, সিলেটের জঙ্গিদের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ ছিল বলে জানা গেছে। ওই আস্তানা থেকে ৫ জঙ্গি আত্মসমর্পণ করেছেন জানিয়ে র‌্যাবের মুখপাত্র মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ভেতর থেকে মাসুদুর রহমান, সালাউদ্দিন, আবু জাফর, নাসিকুল ইসলাম ও মশিউর রহমান নামে ৫ জনকে আটক করা হয়েছে।

 

 

আব্দুল্লাহ খালিদের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

‘অপরাজেয় বাংলা’র ভাস্কর ও চিত্রশিল্পী সৈয়দ আব্দুল্লাহ খালিদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাত পৌনে ১২টায় মৃত্যু হয় এই শিল্পীর।

সত্তরোর্ধ্ব আব্দুল্লাহ খালিদ দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস ও শ্বাসকষ্টের জটিলতায় ভুগছিলেন। তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। শিল্পকলা ও ভাস্কর্যে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে আব্দুল্লাহ খালিদ ২০১৪ সালে শিল্পকলা পদক এবং ২০১৭ সালে একুশে পদকে ভূষিত হন।

 

আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার তাগিদ দেন শেখ হাসিনা

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে বর্ধিত সভায় দলের মধ্যে অনৈক্য এবং পরস্পরের প্রতি বিশ্বাসহীনতার কথা ফুটে উঠেছে তৃণমূল নেতাদের কথায়। ২০তম জাতীয় সম্মেলনের ছয় মাস পর  শনিবার অনুষ্ঠিত এই সভায় জেলার নেতারা স্থানীয় সংসদ সদস্যদের কার্যক্রম নিয়ে অসন্তোষ জানান। আওয়ামী লীগের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীসহ বিভিন্ন দলের নেতাদের অনুপ্রবেশের কথাও বলেন তারা। তৃণমূলের কমিটি উপর থেকে চাপিয়ে দেওয়ার অভিযোগও আসে। সবার কথা শুনে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার তাগিদ দেন। পেশিশক্তি বাড়াতে জামায়াতের কাউকে ঢোকানোর বিষয়েও হুঁশিয়ার করে দেন তিনি। আওয়ামী লীগকে ‘অনুসরণ করে’ ‘ভিশন ২০৩০’ দেওয়ায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, তবুও তো তারা একটা পথে এসেছে।

বর্ধিত সভায় দলের ময়মনসিংহ জেলা সভাপতি জহিরুল হক খোকা বলেন, ‘আওয়ামী লীগের রন্ধ্রে রন্ধ্রে খন্দকার মোশতাক ঢুকে গেছে।’ রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, ‘আপনি যদি শক্ত হাতে ধরতে না পারেন; তাহলে আমরা টিকতে পারব না।’ দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য নিয়ে তৃণমূলের নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সম্প্রতি চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় কাদের দলের নেতাদের বলেছিলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না থাকলে টাকা-পয়সা নিয়ে পালাতে হবে। তা কি ভাবেন না?’ গণভবনে এই সভা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হওয়ার আগেই ওবায়দুল কাদের বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, ‘আমরা পার্টিকে আরও স্ট্রংগার, আরও সুশৃঙ্খল এবং আরও স্মার্ট করব। স্মার্টার আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনে অংশ নেবে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ী হওয়ার কোনো বিকল্প নেই।’ জনগণের সঙ্গে ভালো আচরণ করতেও দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তার বক্তব্যের পর ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ করা হয়। তারপর শোক প্রস্তাব উত্থাপন করেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ। সূচনা বক্তব্যের পর দলের গঠনতন্ত্র ও ঘোষণাপত্র উন্মোচন এবং নিজের সদস্যপদ নবায়ন করেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সদস্যপদ নবায়নের জন্য নির্ধারিত ফি ২০ টাকা হলেও শেখ হাসিনা ৫০০ টাকা দেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শফিউল আলম ভূইয়া এবং সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ফারজানা বেগমকে সদস্য করার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়।

এরপর দলের প্রতিটি সাংগঠনিক জেলার জন্য প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের দেওয়া ল্যাপটপ হস্তান্তর করেন শেখ হাসিনা। তৃণমূল নেতাদের বক্তব্যের শুরুতেই রংপুরের রেজাউল করিম রাজু বলেন, ‘আমাদের সাধারণ সম্পাদক যে বক্তব্য দেন, তাতে ভয় পাওয়ার কারণ আছে।’ রংপুর জেলার অন্তর্গত বিভিন্ন কমিটি কীভাবে করা হচ্ছে, তা জানেন না জানিয়ে জেলাটির এই নেতা বলেন, ‘কমিটি ঢাকা থেকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।’ তুণমূলের বিভিন্ন কমিটিতে জামায়াত-শিবিরের নেতারা অন্তর্ভুক্ত হচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন রাজু। মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘এমপি-মন্ত্রীদর ঘিরে একটি বলয়ের সৃষ্টি হয়। ওই বলয়ের বাইরে তারা আসতে পারেন না।’ কোন্দল নিরসনের উপায় বের করার তাগিদ দিয়ে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘উনি (শেখ হাসিনা) প্রধানমন্ত্রী থাকলে আমরা ১৬ কোটি লোক থাকব।’ খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনর রশীদ বিদ্রোহী প্রার্থীদের সংগঠন থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘আমি যদি শৃঙ্খলার বাইরে যাই, তাহলে আমাকেও চিরতরে বহিষ্কার করে দেন।’ সহযোগী সংগঠনগুলোর অবস্থা খুবই খারাপ উল্লেখ করে সেগুলো পুনর্গঠনের পরামর্শ দেন তিনি। দলের বক্তব্য এক স্থান থেকে আসার পক্ষে মত জানিয়ে হারুন বলেন, ‘স্পোকসম্যান যেন একজন হয়। অনেকে হলে আমাদের জন্য অসুবিধা।’ বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ দলের ভুল বোঝাবুঝি মিটিয়ে নেওয়ার কথা বলেন। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার তাগিদ দিয়ে ময়মনসিংহের জহিরুল হক খোকা বলেন, ‘আপনি যদি মাফ করে দেন.. বুঝে গেল। তারপর একই কাজ করবে। আর মাফ করবেন না।’ উপজেলা এবং ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় সদস্যদের মধ্যে ‘অশুভ প্রতিযোগিতার’ কথা উল্লেখ করে তার অবসান ঘটাতে বলেন তিনি। সংসদ সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে ময়মনসিংহের এই নেতা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন করছেন। এমপিরা কী করছেন; তাও দেখতে হবে।’

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বদরউদ্দীন আহমদ কামরান স্থানীয় সংসদ সদস্যদের সমালোচনা করে বলেন, ‘সিলেটে ১৯টি সংসদীয় আসনে এমপিরা বিজয়ী হওয়ার পর নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বিশাল পার্থক্যের সৃষ্টি হয়। জনগণ এবং সাধারণ নেতা-কর্মীরা এমপিদের কাছে যেতে পারে না।’ চট্টগ্রাম (দক্ষিণ) জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন আহমেদও সহযোগী সংগঠন সম্পর্কে উষ্মা প্রকাশ করে বলেন, ‘সহযোগী সংগঠনগুলোকে এখান (ঢাকা) থেকে বিপরীতমুখী করা হলে অসুবিধা হয়।’ সংসদ সদস্যদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, ‘এমপি সাহেব থানা আইন-শৃঙ্খলা কমিটিতে আওয়ামী লীগের সভাপতিকে রাখতে চান না।’ কেন্দ্রীয় নেতাদের সমালোচনা করে মোসলেম বলেন, ‘অনেক সংগঠনকে দোকান বলা হয়। কেন্দ্রীয় নেতারাই তাদের ১৫/২০ জনকে নিয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে যান।’ সবার কথা শোনার পর শেখ হাসিনা সমাপনী বক্তব্যে সব জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নে দলের নিজস্ব কার্যালয় স্থাপনের তাগিদ দিয়ে বলেন, ‘নিজস্ব অফিস থাকা চাই।

আপনারা উদ্যোগ নেন, আমরা সহযোগিতা করব।’ কার্যালয়গুলো সচল রেখে সরকারের উন্নয়নের প্রচার চালাতে তৃণমূল নেতাদের নির্দেশনা দেন তিনি। সংসদ সদস্যদের জেলা নেতাদের সঙ্গে মিলে-মিশে কাজ করতে বলেন শেখ হাসিনা। সদস্য সংগ্রহ অভিযান পরিকল্পিতভাবে করার পরামর্শ দিয়ে দলীয় সভানেত্রী বলেন, এজন্য জেলা কমিটিকে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে সাব-কমিটি করে দিতে হবে। মুড়ি বই ফেরত দিতে হবে। আমি এবার হিসাব নেব। জামায়াত-শিবিরের অনুপ্রবেশ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, পেশিশক্তি বৃদ্ধিতে অনেকেই জামায়াত-শিবির ও বিএনপির নেতা-কর্মী এবং সন্ত্রাসীদের দলে টেনেছেন। এরা এসে দলের ক্ষতি করে, খুন করে। দয়া করে দল ভারী করার জন্য এদের টানবেন না। মামলা থেকে বাঁচতে এবং উন্নয়ন প্রকল্পের ভাগীদার হতে এরা আওয়ামী লীগে যোগ দিচ্ছে বলে মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এরা দলের মধ্যে খুন করে। তারা এতটাই শক্তিশালী হয়ে যায় যে, তাদের কুনুইয়ের গুতায় আমার নেতা-কর্মীরা টিকতে পারে না।’ শেখ হাসিনা বলেন, গত আট বছরে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড জনসাধারণের মাঝে তুলে ধরুন। তারা যেন আমাদের প্রতি আস্থা রাখেন এবং ভোট দেন। শেখ হাসিনা বলেন, সাধারণ মানুষের ভাগ্য যতদিন পরিবর্তন হবে না ততদিন আমাদের সংগ্রাম চলবে।

আমাদের উদ্দেশ্য সাধারণ মানুষকে উন্নত জীবন দেওয়া। তিনি বলেন, নেতা হয়ে কী পেলাম, কী পেলাম না, এটা ভাবা যাবে না। জাতিকে কী দিতে পারলাম সেটাই ভাবনার বিষয়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও স্বপ্ন বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগকে কাজ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আওয়ামী লীগের কাজ একটাই, সেটা হলো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা। বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখেছিলেন এ দেশের মানুষের কোনো অভাব থাকবে না। মানুষ পেট ভরে ভাত খাবে, ভালো কাপড় পরবে, লেখাপড়া করে শিক্ষিত হবে, সর্বোপরি উন্নত জীবন পাবে। বিএনপি বলে তারা তিন বার প্রধানমন্ত্রী ছিল, জাতীয় পার্টি বলে তারা এতদিন ক্ষমতায় ছিল। তারা ক্ষমতায় থাকার কথা বলে, তবে দেশ উন্নত হয়নি কেন? আওয়ামী লীগ যদি দেশের উন্নয়ন করতে পারে তারা পারেনি কেন? তাদের উদ্দেশ্য হলো লুটপাট করে খাওয়া আর সম্পদের পাহাড় গড়া। তা না হলে ভাঙা সুটকেস আর ছেড়া গেঞ্জি ছাড়া যাদের ঘরে কিছুই ছিল না, তারা কোটি কোটি টাকা ও বিশাল লঞ্চ বহরের মালিক হয় কীভাবে।

সম্মেলনের সাত মাসের মধ্যে বর্ধিত সভার আয়োজন করায় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে ধন্যবাদও জানান সভানেত্রী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সকাল সাড়ে ১০টায় এ সভা শুরু হয়। সভায় সারা দেশ থেকে আসা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, তথ্য গবেষণা ও দফতর সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম কার্যনির্বাহী কমিটি, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্যরাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

রাতে সৌদি আরব যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল-সৌদের আমন্ত্রণে ‘আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিট’ এ যোগ দিতে সৌদি আরব রওনা হচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা; এই সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অংশ নিচ্ছেন।

শনিবার রাতে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে প্রধানমন্ত্রী ও সফরসঙ্গীরা রিয়াদের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বেন বলে জানিয়েছেন তার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

সম্মেলনে যোগ দেওয়ার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী ওমরাহ পালন এবং মদিনায় মহানবী (সা.) এর রওজা জিয়ারতও করবেন বলে প্রেস সচিব জানান।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম বিদেশ সফরে মুসলিম দেশ সৌদি আরবে যাচ্ছেন ট্রাম্প।

আগামী রোববার অনুষ্ঠেয় ‘আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিট’ এ যোগ দেবেন তিনি। ওই সম্মেলনে বিভিন্ন মুসলিম দেশের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানরা অংশ নেবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের বলেন, সম্মেলনে সন্ত্রাসবাদ ও উগ্র জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের দৃঢ় অবস্থানের কথা তুলে ধরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

“সৌদি বাদশাহর আমন্ত্রণে তিনি যাচ্ছেন। এই আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর প্রাজ্ঞ নেতৃত্বের প্রতি আস্থার বহিঃপ্রকাশ। এই সফরের মধ্যে দিয়ে দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে।”

রিয়াদের কিং খালিদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ।

শেখ হাসিনা

শেখ হাসিনা

সেখান থেকে আনুষ্ঠানিক মোটর শোভাযাত্রা করে রিয়াদের মোভেনপিক হোটেলে নিয়ে যাওয়া হবে শেখ হাসিনাকে। দু’দিন এই হোটেলেই অবস্থান করবেন তিনি।

রোববার সম্মেলনের ‘গ্লোবাল সেন্টার ফর কমবেটিং এক্সট্রিমিস্ট থট’ শীর্ষক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। সৌদি বাদশাহর দেওয়া এক ভোজেও অংশ নেবেন তিনি।

সৌদি আরবের সাংস্কৃতিক ও তথ্যমন্ত্রী আওয়াদ বিন-সালেহ-আল-আওয়াদ গত ৯ মে ঢাকায় এসে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে এই সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে যান।

মাহমুদ আলী বলেন, উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলায় নতুন অংশীদারত্ব প্রতিষ্ঠা এবং নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা জোরদার করাই রিয়াদের আরব ইসলামিক আমেরিকান সামিটের উদ্দেশ্য।

সোমবার মহানবী (স.) এর রওজা জিয়ারত করতে মদিনার যাবেন শেখ হাসিনা। একই দিন সন্ধ্যায় মদিনা থেকে ফিরে মক্কায় ওমরাহ পালন করবেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে।

 

নেত্রকোণা গিয়েও রিকশায় চড়লেন প্রধানমন্ত্রী

নেত্রকোনা প্রতিনিধি: পাহাড়ি ঢলে অকালবন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওর এলাকা দেখতে এবং দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করতে  বৃহস্পতিবার সকালে নেত্রকোণার খালিয়াজুরি যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে গিয়ে হেলিকপ্টার থেকে নেমে ডাক বাংলো পর্যন্ত রিকশায় চড়েন প্রধানমন্ত্রী। এসময় তিনি রিকশায় বসে হাস্যোজ্জ্বলভাবে চারপাশের নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করেন। কয়েকদিন আগে গোপালগঞ্জে গিয়ে নাতনীদের সঙ্গে অটো ভ্যানে চড়েন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর ভ্যানে চড়ার ছবি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভাইরাল হয়। গণমাধ্যমেও সংবাদ প্রকাশিত হয়। প্রধামন্ত্রীকে বহনকারী সেই ভ্যান চালক বিমান বাহিনীতে চাকরি পান। খালিয়াজুরি কলেজ মাঠে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে প্রধানমন্ত্রী এর আগে গত ৩০ এপ্রিল বন্যাকবলিত হাওর এলাকা সুনামগঞ্জ পরিদর্শন করেছেন। তখন হাওর এলাকা পরিদর্শনের পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে ত্রাণসহায়তা বিতরণ করেছিলেন তিনি।

 

ঢাবি ছাত্রীর মৃত্যু হাসপাতাল ভাঙচুর

রাজধানীর গ্রিন রোডের সেন্ট্রাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়  বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী আফিয়া আক্তারের মৃত্যু হয়। ভুল চিকিৎসার কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই ছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে অভিযোগ তুলে হাসপাতালে ভাঙচুর করেছে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের পর রাজধানীর গ্রিন রোডের সেন্ট্রাল হাসপাতালে এঘটনা ঘটে পুলিশের ধানমণ্ডি জোনের সহকারী কমিশনার আব্দুল্লাহেল কাফী জানিয়েছেন। মৃত আফিয়া আক্তার প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন। তার বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায়। তার সহপাঠীসহ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, আফিয়া ডেঙ্গুজ্বর নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেও তাকে ক্যান্সারের চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুল্লাহেল কাফী বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে ওই ছাত্রী চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসপাতালে মারা যান। এরপর বেশ কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী হাসপাতালে ঢুকে ভাঙচুর করেন। গতকাল সন্ধ্যায় আফিয়া ওই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, তখন ডাক্তাররা বলেছিলেন আফিয়ার লিউকেমিয়া হয়েছে। সেই অনুযায়ীই তাকে চিকিৎসা করা হয়েছে। আজ তারা বলছে, তার ডেঙ্গু হয়েছিল। এই ধরণের ভিন্ন ভিন্ন বক্তব্যের কারণে শিক্ষার্থীদের সন্দেহ হয়েছে, ভুল চিকিৎসার কারণে সে মারা গেছে। এজন্য উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা হাসপাতালে ভাঙচুর করে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স। তিনি বলেন, আমাদের একজন বোন ভুল চিকিৎসায় মারা গিয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাৎক্ষণিক ক্ষোভের কারণে হাসপাতালে ভাঙচুর চালিয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে- এটাই আমাদের দাবি। আব্দুল্লাহেল কাফী বলেন, কেউ যদি অভিযোগ এনে মামলা করতে চান, আমরা সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। বর্তমানে হাসপাতাল এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। পরিস্থিতি শান্ত হলেও ভাঙচুরের ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

 

টাকার বিনিময়ে উত্তর বলে দিচ্ছেন শিক্ষক : শিক্ষামন্ত্রী

 টাকার বিনিময়ে শিক্ষকরা পরীক্ষার হলে উত্তর বলে দিচ্ছেন বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। মন্ত্রী বলেন, পরীক্ষার দিন সকালে প্রশ্ন ফাঁস হচ্ছে। এসব কিছুর সঙ্গে শিক্ষকরা জড়িত। আমরা তাদের বার বার সতর্ক করছি। এ বিষয়গুলো বন্ধ না হলে এসকল শিক্ষকদের রাখা সম্ভব হবে না।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা ক্রীড়া সমিতি এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. এসএম ওয়াহিদুজ্জামান। গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া ২০১৬ এবং শীতকালীন ক্রীড়া ২০১৭ সালের জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন ও রানার আপ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ এবং জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৭’র সেরা প্রতিষ্ঠান প্রধান সংগঠন প্রধানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। মন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়ানো, নোট-গাইড বিক্রি ও কোচিং করানো হচ্ছে। এসব শিক্ষকদের কারণে আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি। আশা করি তারা এসব থেকে দূরে সরে আসবেন। সরে না আসলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবো। নোট-গাইড ও কোচিং বন্ধে আইন করা হচ্ছে। দেশে খেলাধুলার জন্য মাঠের বড় অভাব উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ঢাকার বাইরে যেসব প্রতিষ্ঠানে খেলার মাঠ আছে সেখানে কৃষকরা ধান ও অন্য শস্যের মাড়াইয়ের কাজ করছেন। এজন্য প্রতিষ্ঠান প্রধানদের মিলে পরিকল্পনা করে সীমিত মাঠ ব্যবহার করে শরীর চর্চা চালিয়ে যেতে হবে। বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মাহাবুবুর রহমান, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব মো. আলমগীর ও মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন প্রমুখ।

বনানী ধর্ষণে জড়িত যে-ই হোক, ব্যবস্থা নেয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রাজধানীর বনানীর রেইন-ট্রি হোটেলে সম্প্রতি দুই বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, হোটেলটিতে যে অপরাধ সংগঠিত হয়েছে, তার তদন্ত চলছে। অপরাধী যে-ই হোক, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর মহাখালীতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) উইমেন’স হলিডে মার্কেটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এ কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার বক্তৃতায় ওই মার্কেটে নারীদের নিরাপত্তায় সরকারে সার্বিক সহযোগিতা থাকবে বলেও প্রতিশ্রুতি দেন। মার্কেটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন ডিএনসিসির মেয়র আনিসুল হক।

ঢাকা-৫ আসন শেখ হাসিনার

আগামী জাতীয় সংসদ নিবাচনে ঢাকা-৫ আসনটি আবারো শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে উঠান বৈঠকে শপথ নিল যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগ। গতকাল বৃহস্পপতিবার বিকালে উত্তর যাত্রাবাড়ী ডলফিন গলিতে এক বৈঠক করে এ শপথ নেন থানা আওয়ামী লীগের নেতারা। বৈঠকে নেতারা স্থানীয় এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার বিরুদ্ধে বিএনপির সাথে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তোলে ধরেন।

মো. তারেক আজিজ পাপ্পুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক হারুনর রশিদ মুন্না। বক্তব্য রাখেন ৪৮নং ওয়াড কমিশনার আবুল কালাম অনু, সভাপতি গিয়াস উদ্দিন গেসু, সাঈদ মিলন, ছাএলীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম রানা সহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ নেতারা।

 

কেউ গৃহহীন থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

নেত্রকোনার হাওর এলাকায় বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না; প্রত্যেক হাওরে একটি আবাসিক স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হবে।

সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে এসে বৃহস্পতিবার দুপুরে নেত্রকোনার খালিয়াজুরী কলেজ মাঠে বক্তৃতাকালে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাওরাঞ্চলের সার্বিক উন্নয়ন করবে সরকার। এ লক্ষ্যে কাজ চলছে।

“হাওর রক্ষায় বেড়িবাঁধ করা হবে। নদী ও খাল খনন করা হবে, যাতে পানিধারণের ক্ষমতা বাড়ে। মাছের উৎপাদন বাড়ানো হবে। সবার জন্য গৃহের ব্যবস্থা করা হবে। দেশের কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না। আর প্রত্যেক হাওরে একটি আবাসিক স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হবে।”

বক্তব্য দেওয়ার আগে তিনি ওই এলাকায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করেন। বক্তৃতাকালে প্রধানমন্ত্রী মাছ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি প্রক্রিয়া ও বাজারজাত করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের প্রতিশ্রুতি দেন।

কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, “হাওরাঞ্চলে শুধু ধান চাষ করলে চলবে না। এখানে হাঁস-মুরগি পালন, মাছের চাষ, সবজি উৎপাদন – এসব করতে হবে।

“কৃষকদের কৃষি উপকরণ পেতে সুবিধার জন্য সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কৃষক যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হন তার জন্য অল্প সময়ে ফসল উৎপাদনে গবেষণাগারে কাজ চলছে।”

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, সাম্প্রতিক বন্যায় দেশের উত্তর-পূর্ব এলাকায় নেত্রকোনাসহ হাওরাঞ্চলের ছয় জেলায় মোট দুই লাখ ১৯ হাজার ৮৪০ হেক্টর ফসলের ক্ষতি হয়েছে; ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সংখ্যা আট লাখ ৫০ হাজার ৮৮।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাওরে বন্যার খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সব মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেই, “কেউ যেন না খেয়ে দিনাযাপন না করেন। কেউ যেন গৃহহারা না থাকেন।

“হতদরিদ্রদের ভিজিএফের মাধ্যমে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ১০ টাকায় ৫০ লাখ মানুষের মাঝে চাল দেওয়া হচ্ছে।”

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়তে আবারও সরকার গঠনে সবার সহযোগিতা চেয়েছেন।

খালিয়াজুরীর পর তিনি বল্লভপুর গ্রামে গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করেন। এছাড়া কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময়ে অংশ নেন।

কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, সড়ক পরিবহন ও যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল হক ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী।

 

রামপুরায় অর্ধলক্ষ ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৩

  রাজধানীর রামপুরা বনশ্রী থেকে ৫০ হাজার ইয়াবাসহ তিনজনকে গ্রেফতারের তথ্য জানিয়েছে ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। তারা হচ্ছেন- নিরাপদ চন্দ্র দাশ (২২), আব্দুল কুদ্দুস (২৮) ও আনোয়ার হোসেন (৩৮)। সিটিটিসির দাবি, গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাদের ফেইক কারেন্সী নোট টিমের অভিযানে ইয়াবাসহ ওই তিনজন ধরা পড়ে। তাদের বিরুদ্ধে রামপুরা থানায় মামলা হয়েছে।

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে গতকাল বুধবার প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি  শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনগুলো শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং এতিমদের মধ্যে খাবার বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে।
শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে সকালে গণভবনে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন তিনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী ও শেখ ফজলুল করিম সেলিম, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ ও জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহা উদ্দিন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ও এনামুলহক শামীম, দপ্তর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন প্রমুখ। এদিকে দিবসটি উপলক্ষে সকালে ছাত্রলীগ শোভাযাত্রা বের করে। বিশ^বিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক ও আশেপাশের এলাকা প্রদক্ষিণ শেষে টিএসসির রাজু ভাস্কর্যের সামনে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন নেতৃত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান, সাংগঠনিক শরিফুল ইসলাম ফারুক, দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহাজাদা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। শোভাযাত্রায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ কয়েক হাজার নেতা-কর্মী অংশ নেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তন এক আলোচনা সভার আয়োজন করে আওয়ামী লীগ। সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আফ ম বাহা উদ্দিন নাছিম প্রমুখ ।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৭তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা-দোয়া মাহফিল এবং এতিমদের মধ্যে খাবার বিতরণ করেছে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজল। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-৫ আসনের এমপি আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান মোল্লা। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সামসুল হক খান স্কুল এণ্ড কলেজের সভাপতি মাহফুজুর রহমান মোল্লা শ্যামলসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগি অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ। বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদ বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে ‘জননেত্রী শেখ হাসিনা ও উন্নয়নে বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে। সংগঠনের সভাপতি লায়ন গনি মিয়া বাবুলের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন কবি কাজী রোজী এমপি, ভাষা সৈনিক শামসুল হুদা, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ডের ভাইস চেয়ারম্যান ইসমত কাদির গামা, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুন সরকার রানা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

 

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের ষড়যন্ত্রে দলের লোকেরাও জড়িত ছিল

বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের মাত্র চার বছরের মাথায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যাকান্ডের নেপথ্যে দলের মানুষদের ষড়যন্ত্রকেই দায়ী করেছেন তার কন্যা, আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীনতার স্থপতিকে হত্যায় তৎকালীন মন্ত্রী খোন্দকার মোশতাক আহমেদের জড়িত থাকার কথা তুলে ধরে তিনি বলেছেন, আরও অনেকে এর মধ্যে জড়িত ছিল, এই ষড়যন্ত্রের সাথে। আসলে ঘরের শত্রু বিভীষণ। ঘরের থেকে শত্রুতা না করলে বাইরের শত্রু সুযোগ পায় না। সে সুযোগটা (তারা) করে দিয়েছিল। গতকাল বুধবার সকালে গণভবনে এক অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার সময় দেশের বাইরে থাকায় বেঁচে গিয়েছিলেন দুই  বোন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। হত্যাকান্ডের পর ১৯৮১ সালের ১৭ মে দেশে ফিরে আসেন শেখ হাসিনা। সেই থেকে দিনটিকে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস হিসেবে পালন করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। দিবসটি উপলক্ষ্যে গতকাল বুধবার আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতারা গণভবনে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে যান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে। শুভেচ্ছা বিনিময়কালে প্রায় ৫২ মিনিটের বক্তব্যে ৭৫ পরবর্তী সময়ের স্মৃতিচারণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছয় বছর প্রবাসে থাকার পর প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে বাবার দল আওয়ামী লীগের হাল ধরেন শেখ হাসিনা। তারপর এখন তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। এছাড়া ১৯৮১ থেকে অদ্যাবধি টানা ৩৬ বছর আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছেন তিনি। ১৯৭৫ এর প্রেক্ষাপট তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, অনেকেই (বঙ্গবন্ধুকে) তাকে সাবধান করেছিলেন; এরকম একটা ঘটনা ঘটতে পারে। তিনি বিশ্বাসই করেন নাই। আব্বা বলতেন, ‘না, ওরা তো আমার ছেলের মতো, আমাকে কে মারবে?’ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর দোসররাই জাতির জনককে হত্যা করেছিল, বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। বঙ্গবন্ধুক্যণা বলেন, এই হত্যাকান্ডে যারা জড়িত ছিলেন, তাদের অনেকের নিয়মিত ধানমন্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে যাওয়া আসা ছিল। ডালিম (শরিফুল হক ডালিম), ডালিমের শ্বাশুড়ি, ডালিমের বউ, ডালিমের শালী ২৪ ঘণ্টা আমাদের বাসায় পড়ে থাকত। ডালিমের শ্বাশুড়ি তো সন্ধ্যা  থেকে রাত পর্যন্ত, ডালিমের বউ তো সারাদিনই আমাদের বাসায় থাকতো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, খুনি মেজর নূর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে জেনারেল ওসমানির এডিসি হিসেবে কর্মরত ছিলো। তখন আমার ভাই শেখ কামালও ওসমানী এডিসি ছিলো। দুই জন এক সঙ্গে কর্মরত ছিলো। তিনি বলেন, এরা  তো অত্যন্ত চেনা মুখ। আরেক খুনি সৈয়দ ফারুক রহমান বঙ্গবন্ধুর তৎকালীন মন্ত্রিসভার অর্থমন্ত্রী এ আর মল্লিকের শালীর ছেলে জানিয়ে তিনি বলেন, খুব দূরের না। এরাই ষড়যন্ত্র করল। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সঙ্গে জিয়াউর রহমানের জড়িত থাকার কথা আবারও বলেন শেখ হাসিনা। বলেন, যারা এভাবে বেইমানি করে, মোনাফেকি করে, তারা কিন্তু এভাবে থাকতে পারে না। মোশতাক রাষ্ট্রপতি হয়ে জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান করে। তাদের মধ্যে অবশ্যই যোগসাজশ ছিল। জিয়ার পারিবারিক সমস্যা সমাধানে বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগ নেওয়ার কথাও তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, জিয়াউর রহমান প্রতি সপ্তাহে একদিন তার স্ত্রীকে (খালেদা জিয়া) নিয়ে ওই ৩২ নম্বরের বাড়িতে যেত। বঙ্গবন্ধুর বাড়ির দুয়ার সবার জন্য অবারিত ছিল, যার সুযোগ ষড়যন্ত্রকারীরা নিয়েছিল বলেও উল্লেখ করেন  শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, তাদের যাওয়াটা আন্তরিকতা না.. চক্রান্ত করাটাই ছিল তাদের লক্ষ্য; সেটা বোধ হয় আমরা বুঝতে পারি নাই। কান্নাজড়ানো কণ্ঠে শেখ হাসিনা বলেন, আমার মাঝে মধ্যে মনে হয়, আব্বা যখন দেখেছেন, তাকে গুলি করছে, তারই দেশের  লোক, তার হাতে গড়া সেনাবাহিনীর সদস্য, তার হাতে গড়া মানুষ.. জানি না তার মনে কী প্রশ্ন জেগেছিল? স্বামী এম ওয়াজেদ মিয়ার গবেষণার কারণে ১৯৭৫ সালের ৩০ জুলাই জার্মানিতে গিয়েছিলেন শেখ হাসিনা;  ছোট বোন শেখ রেহানাও সেখানে গিয়েছিলেন বেড়াতে। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের দিন দুই বোন ছিলেন  বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে। খবর শোনার পর পশ্চিম জার্মানিতে ফিরে তৎকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর বাসায় ওঠেন তারা। পরে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্যদের ভারতে আশ্রয় দিয়েছিলেন। এক দিনে পরিবারের সবাইকে হারানোর দিনটি মনে করতে গিয়ে আবেগ ধরে রাখতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা।

স্মৃতিচারণ করে বলেন, তখনও ততটা জানতে পরিনি কী ঘটে গেছে বাংলাদেশে। যখন জানতে পারলাম, তখন সহ্য করাটা কঠিন ছিল। ওই সময় তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেনের পশ্চিম জার্মানির বন শহরে সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের কথা চেপে যাওয়ার কথাও বলেন শেখ হাসিনা। বলেন, উনি এই হত্যাকান্ড সম্পর্কে একটা কথাও বললেন না। উনার কোথায় যাওয়ার কথা ছিল চলে  গেলেন। হুমায়ুন রশীদ সাহেব এই হত্যাকান্ডকে কনডেম করলেন প্রেসের সামনে। ভারতে নির্বাসিত জীবনের কথা বলতে গিয়ে কাঁদতে কাঁদতেই শেখ হাসিনা বলেন, ভাবলাম দেশের কাছে যাই। কখনও শুনি, মা বেঁচে আছে। কখনও শুনি, রাসেল বেঁচে আছে। একেক সময় একেক খবর পেতাম। ওই আশা নিয়ে চলে আসলাম। কেউ বেঁচে থাকলে ঠিক পাব। ২৪ আগস্ট দিল্লি পৌঁছলাম। মিসেস গান্ধী (ইন্দিরা গান্ধী) আমাদের ডাকলেন। ওনার কাছ থেকে শুনলাম, কেউ বেঁচে নেই। হুমায়ুন রশীদ সাহেব আগে বলেছিলেন। কিন্তু, আমি রেহানাকে বলতে পারি নাই। কারণ, ওর মনে একটা আশা ছিল, কেউ না কেউ বেঁচে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দিল্লিতে মিসেস গান্ধী থাকার ব্যবস্থা করে দিলেন। ওয়াজেদ সাহেবকে (এম ওয়াজেদ মিয়া) এটমিক এনার্জিতে কাজের ব্যবস্থা করে দিলেন। কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে শেখ হাসিনা বলেন, এটা কী কষ্টের .. যন্ত্রণার কাউকে বুঝিয়ে বলতে পারব না। অর্থের কারণে ১৯৭৭ সালে বোন শেখ রেহানার বিয়েতে লন্ডনে  যেতে না পারার বেদনা তুলে ধরে তিনি বলেন, দুই ছেলে-মেয়ে নিয়ে যাব, অত টাকা ছিল না। আর,  কোথায় থাকব? ১৯৮০ সালে লন্ডনে যাওয়ার ক্ষেত্রে ইন্দিরা গান্ধীর ব্যবস্থা করে দেওয়ার কথা স্মরণ করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। বলেন, ওর (শেখ রেহানা) যখন বাচ্চা হবে, আমি মিসেস গান্ধীকে গিয়ে বললাম, আমি যেতে চাই রেহানার কাছে। উনি ব্যবস্থা করে দিলেন। টিকেটের ব্যবস্থা করে দিলেন। থাকার ব্যবস্থা করে দিলেন। ৮০ এর শেষে দিল্লিতে ফিরে আসি। টাকাও ছিল না। আর, কার কাছে হাত পাতা.. ভালো লাগত না। ১৯৮০ সালে বিদেশে থাকার সময়ই আওয়ামী লীগের কাউন্সিলে সভাপতি নির্বাচিত করা হয় রাজনীতির বাইরে থাকা শেখ হাসিনাকে। আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, এত বড় সংগঠন করার অভিজ্ঞতাও আমার ছিলে না। আমার চলার পথ অত সহজ ছিল না।

দল এবং দলের বাইরে নানা প্রতিকূলতার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, খুনিরা বহাল তবিয়তে বিভিন্ন দূতাবাসে কর্মরত। স্বাধীনতার বিরোধীরা তখন বহাল তবিয়তে। তারাই ক্ষমতার মালিক। যে পরিবারকে একেবারে নিশ্চিহ্ন করতে চেয়েছিলো, সে পরিবারের একজন এসে রাজনীতি করবে। সেটা এত সহজ ছিল না, প্রতি পদে পদে প্রতিবন্ধকতা ছিল। বক্তব্যের এই পর্যায়ে উপস্থিত নেতাদের আওয়ামী লীগের নতুন নেতৃত্ব খুঁজতে বলেন শেখ হাসিনা। বলেন, আজকে ৩৫ বছর পেরিয়ে ৩৬ বছরে পা দিলাম এই আওয়ামী লীগে। এত লম্বা সময় কেউ কখনো দায়িত্বে থাকে না। আমার মনে হয় আমাদেরও এখন নতুন নেতৃত্ব খোঁজা উচিত ভবিষ্যতের জন্য। তখন সবাই সমস্বরে ‘না না, যতোদিন বেঁচে আছেন আমরা আপনাকে চাই’ বলে ওঠেন নেতাকর্মীরা। জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, নতুন নেতৃত্ব খোঁজা দরকার। জীবন-মৃত্যু আমি পরোয়া করি না। মৃত্যুকে আমি সামনে থেকে দেখেছি। আমি ভয় পাইনি। আমি বিশ্বাস করি, আমার আব্বা আমাকে ছায়ার মতো আমাকে দেখে রাখেন.. আর, উপরে আল্লাহর ছায়া আমি পাই। ৩৬ বছর আগের এই দিনটিতে দেশে ফেরার কারণ ব্যাখ্যা করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা। বলেন, মেয়ের হাত ধরে দুটো সুটকেস নিয়ে চলে আসি। আমি মনে করি, আমাকে যেতে হবে, কিছু করতে হবে। তিনি বলেন,  দেশে ফিরে বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার করেছি। যেদিন স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে পারবো সেইদিন আব্বার আত্মা শান্তি পাবে, আর ষড়যন্ত্রকারীদের উপযুক্ত জবাব দিতে পারবে। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আর ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্র করে যাবে এটা আমি জানি। কারণ ছোট বেলা থেকে এটা আমাদের দেখা আছে। কাজেই ওটা আমি পরোয়া করি না। যতোক্ষন বাংলাদেশের জনগণ আমার সাথে আছে, ওপরে আল্লাহ আছেন, বাবা-মায়ের দোয়া আর্শিবাদ আছে। কাজেই আমরা আমাদের অভিষ্ট্য লক্ষ্যে  পৌঁছাবো। এই দৃঢ় বিশ্বাস আমাদের আছে।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের আগে গণভবনের ব্যাংকোয়েট হলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মতিয়া চৌধুরী, ওবায়দুল কাদের, মাহবুব-উল আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম, এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রীকে। এছাড়া যুবলীগের পক্ষ থেকে সংগঠনের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ, ছাত্রলীগের পক্ষে সাইফুর রহমান সোহাগ, এস এম জাকির হোসাইন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের পক্ষে মোল্লা মো আবু কাওছার, পংকজ দেবনাথ, যুব মহিলা লীগের পক্ষে নাজমা আক্তারসহ আওয়ামী লীগের সকল সহযোগী ও ভাতৃপ্রতীম সংগঠনের শীর্ষ নেতারা প্রধানমন্ত্রীকে ফুলের শুভেচ্ছা জানান। 

শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে : রাষ্ট্রপতি

বাসস : রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বলেছেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতি এবং গণতন্ত্র বিকাশে বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনার অবদান অপরিসীম। তাঁর দূরদৃষ্টি, বলিষ্ঠ নেতৃত্ব এবং জনকল্যাণমুখী কার্যক্রমে দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে,এগিয়ে যাবে।

ক্রমাগত প্রবৃদ্ধি¦ অর্জনসহ মাথাপিছু আয় বাড়ছে এবং দারিদ্র্যের হার কমছে উল্লেখ করে তিনি বলেন,  নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতুর মতো বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। দেশকে একটি সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলায় পরিণত করতে তিনি ‘ভিশন ২০২১’ ও ‘ভিশন ২০৪১’ কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন। গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও জনগণের কল্যাণে শেখ হাসিনার এসব যুগান্তকারী কর্মসূচি বাংলার ইতিহাসে চিরভাস্বর হয়ে থাকবে।

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে গতকাল দেয়া এক বাণীতে  এসব কখা বলেন। আগামীকাল আওয়ামীলীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৩৭তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি তাঁকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বলেন,  ১৯৭৫ থেকে দীর্ঘ ৬ বছর নির্বাসন শেষে ১৯৮১ সালের ১৭ মে গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনা বাংলার মাটিতে ফিরে আসেন। বাংলাদেশের গণতন্ত্রের পুনঃযাত্রায় এটা একটি মাইলফলক। সুগম হয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, স্বাধীনতার মূল্যবোধ ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার পথ।
আবদুল হামিদ বলেন, দেশে ফিরে শেখ হাসিনা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলন শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ’৯০ এর গণআন্দোলনের মাধ্যমে স্বৈরাচারের পতন হয়, বিজয় হয় গণতন্ত্রের। ১৯৯৬ সালের ১২ জুন সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিপুল ভোটে জয়লাভ করে এবং শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করে। এ সময় পাহাড়ি-বাঙালি দীর্ঘমেয়াদি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বন্ধে পার্বত্য শান্তিচুক্তি এবং প্রতিবেশী ভারতের সাথে গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

 ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর সাধারণ নির্বাচনে তাঁর নেতৃত্বে ১৪ দলীয় জোট সরকার ক্ষমতায় আসে এবং জনগণের কল্যাণে নানামুখী কর্মসূচি গ্রহণ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন , এসময় বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের রায় কার্যকর করা হয়। গণতন্ত্র, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, নারীর ক্ষমতায়ন, বিদ্যুৎ, তথ্যপ্রযুক্তি, গ্রামীণ অবকাঠামো, বৈদেশিক কর্মসংস্থানসহ নানা কর্মসূচি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ¦লতর হয়।

 ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি সাধারণ নির্বাচনে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জোট সরকার পুনরায় ক্ষমতায় এসে সরকার পরিচালনা করছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার কার্যক্রম শুরু ও রায়ের বাস্তবায়নসহ সমুদ্রে বাংলাদেশের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা, ভারতের সাথে দীর্ঘদিনের অমিমাংসিত স্থল সীমানা নির্ধারণ তথা ছিটমহল বিনিময় চুক্তিসহ গণমানুষের কল্যাণে তাঁর অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে।  

তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা বিরোধী ঘাতকচক্রের হাতে সপরিবারে নির্মমভাবে নিহত হন। এ সময় তাঁর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা তৎকালীন পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করায় তাঁরা প্রাণে বেঁচে যান। কিন্তু তাঁরা দেশে ফিরতে পারেননি। মা, বাবা, ভাইসহ আপনজনদের হারানো বেদনাকে বুকে ধারণ করে পরবর্তীতে ৬ বছর লন্ডন ও দিল্লীতে তাঁদের চরম প্রতিকূল পরিবেশে নির্বাসিত জীবন কাটাতে হয়।

তিনি বলেন,  ১৯৮১ সালে ১৪-১৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে সর্বসম্মতিক্রমে তাঁকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এ ছিল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তৎকালীন নেতৃবৃন্দের এক দূরদর্শী সিদ্ধান্ত। ১৯৮১ সালের ১৭ মে ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি তাঁর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মতো তাঁকেও স্বাগত জানাতে লাখো মানুষের ঢল নামে। সেদিন তাঁদের অকৃত্রিম ভালোবাসায় তিনি সিক্ত হন, আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। বৈরী পরিবেশে মাতৃভূমির কল্যাণে যেকোন ত্যাগ স্বীকারে তিনি শপথ নেন।

 

 

 

 

একনেকে ২৭২৩ কোটি টাকার ৮ প্রকল্প অনুমোদন

করতোয়া ডেস্ক : জাতীয় অর্থনেতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ৮টি উন্নয়ন প্রকল্পের চুড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ২ হাজার ৭২৩ কোটি ৬১ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ১ হাজার ৯২৯ কোটি ৯৭ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে পাওয়া যাবে ৭৯৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা।
গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলানগর এনইসি সম্মেলনকক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এসব প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়।

সভাশেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রকল্প সম্পর্কে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।
তিনি বলেন, একনেক সভায় নতুন এবং সংশোধিত মিলে মোট ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে কোন বৈদেশিক সহায়তা নেয়া হবে না।
তিনি বলেন, ‘তথ্য আপা: ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন (দ্বিতীয় পর্যায়)’ প্রকল্পের আওতায় দেশের ৪৯০টি উপজেলায় ৪৯০টি তথ্যকেন্দ্র স্থাপন করা হবে। এর মাধ্যমে গ্রামীণ নারীদের তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তিতে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা হবে।এতে গ্রামীণ নারীদের ক্ষমতায়নে সহায়ক হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি (বিটিসিএল) এর কাজ শেষ করবে বলে তিনি জানান।
প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৫৪৪ কোটি ৯১ লাখ টাকা।এর পুরোটাই সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ব্যয় করা হবে। ২০২২ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শেষ হবে।

একনেকে অনুমোদন পাওয়া অন্য প্রকল্পসমূহ হলো- ‘কনভার্সন অব ১৫০ মেগাওয়াট: সিলেট গ্যাস টারবাইন পাওয়ার প্ল্যান্ট টু ২২৫ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্ল্যান্ট’ শীর্ষক প্রকল্প। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৯৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা।‘দেশের পার্বত্য অঞ্চলের শ্রমিকদের কল্যাণ সুবিধা ও দক্ষতা উন্নয়ন কার্যক্রম সম্প্রসারণ ও জোরদারকরণে ঘাগড়ায় একটি বহুবিধ সুবিধাসহ শ্রম কল্যাণ কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্প, এতে ব্যয় হবে ৬৫ কোটি টাকা। গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়ক যথাযথ মান  প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ (চট্টগ্রাম জোন) প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৩৬ কোটি টাকা। নেত্রকোনা বিসিউড়া-ঈশ্বরগঞ্জ সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় হবে ২৬১ কোটি টাকা। নাঙ্গলবন্দ-কাইকারটেক-নবীগঞ্জ জেলা মহাসড়কের লাঙ্গলবন্দ হতে মিনার বাড়ি পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে-১২১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। বাংলাদেশ ফলিত পুষ্টি গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইস্টিটিটিউটের (বারটান) অবকাঠামো নির্মাণ শক্তিশালীকরণ প্রকল্প, ব্যয় হবে ৩৩২ কোটি ১২ লাখ টাকা। কৃষক পযায়ে উন্নতমানের ডাল, তেল ও মসলা বীজ উৎপাদন,সংরক্ষণ ও বিতরণ (তৃতীয় পযায়) প্রকল্প, এতে ব্যয় হবে ১৬৫ কোটি ২৬ লাখ টাকা। 

শেখ হাসিনার বর্তমান মেয়াদে তিস্তা সমস্যার সমাধান : তথ্যমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বর্তমান মেয়াদে তিস্তার পানি বণ্টন সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ভারতের কোন রাজ্যের কোন মুখ্যমন্ত্রী, কে কী বললেন, এটা আমি গ্রাহ্য করি না। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফরের মূল্যায়ন বিষয়ে মঙ্গলবার সিরডাপ মিলনায়তনে এক আন্তর্জাতিক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

পানির ব্যাপারে একটি বিতর্ক রয়েছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, তিস্তার পানির ব্যাপারে আমরা এবার সমঝোতা করতে পারিনি। এ জায়গাটায় একটা সমস্যা আছে। সেখানে আমি বলবো, তিস্তা পানি বণ্টনের ব্যাপারে ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি কী? সেখানে বাংলাদেশ-ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি কিন্তু এক জায়গায়। ‘কী সেই জায়গাটা? ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী উভয়েই যৌথ ঘোষণায় বলেছেন, তিস্তার পানি বণ্টনে আমরা রাজি। যদি তিনি পানি বণ্টনে রাজি না হতেন, যে রকম আমাদের ৫৪টি নদী আছে, অন্য নদী সম্পর্কে আলোচনা হয়নি। তিস্তার ব্যাপারে নরেন্দ্র মোদি যখন ঢাকায় এসেছিলেন তখন তিনি বলেছিলেন, তিস্তার পানি বণ্টনে আমি রাজি। অর্থাৎ এটা শুধু চুক্তি করতে হবে আমাদের। চুক্তির খুঁটিনাটি বিষয়গুলো নিষ্পত্তি করতে পারিনি।’ তথ্যমন্ত্রী বলেন, পানি বণ্টন করতে হবে, পানি ভাগাভাগি করতে হবে। সেই ব্যাপারে নীতিগত একটা ঐকান্তিক সম্মতি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ দিয়েছে। সেখানে আমি মনে করি না তিস্তা নিয়ে কোন বিতর্ক আছে, এখানে কোনো বিতর্ক নেই। বিতর্ক হচ্ছে এটাকে এখন কাগজে-কলমে নিয়ে যাওয়া এবং বাস্তবায়িত করা।

সেইখানে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ একটা সময়সীমা বেধে দিয়েছে। আমরা আশা করছি শেখ হাসিনার বর্তমান মেয়াদের মধ্যে তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়ে সমস্যার সমাধান করে দেবো।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা। রাষ্ট্রদূত ওয়ালিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট আব্দুল মাতলুব আহমেদ। বাংলাদেশ হেরিটেজ ফাউন্ডেশন, এফবিসিসিআই, নিটল-নিলয় গ্রুপ এবং দ্য পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে বিভিন্ন কূটনৈতিক এবং ব্যবসায়ী নেতারা অংশ নেন।

নিয়ন্ত্রণে আছে জঙ্গিবাদ নির্মূলে কাজ চলছে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশ জঙ্গিবাদ দমনে সফল হয়েছে, জঙ্গিবাদ এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে তবে জঙ্গি নির্মূলের কাজ চলছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণায়ের সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধানদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া বার্নিকাট উপস্থিত ছিলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাগদাদ কিংবা সিরিয়ায় যারা জঙ্গি হতে গিয়েছিলো এবং প্রশিক্ষণ নিয়েছে তারা নিশ্চয়ই দেশে ফিরবে, সে জন্য গোয়েন্দা নজরদারি ও সতর্কতা জারি আছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য থেকে ফেরত মোস্ট ওয়ান্টেড জঙ্গি ও যুক্তরাজ্য ভিত্তিক একটি জঙ্গি সংগঠনের প্রধান রেজওয়ান হারুন সম্পর্কে এখনি কিছু বলতে চাই না, অনুসন্ধান চলেছে। এ সময় রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট সাংবাদিকদের বলেন, জঙ্গিবাদ একটি বৈশ্বিক সমস্যা। এ জন্য জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহায়তা অব্যাহত রাখবে। যুক্তরাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সবোর্চ্চ কর্মকর্তারা বাংলাদেশে এসে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেওয়াসহ সব ধরনের সহায়তা করবে।

 

আপন জুয়েলার্সের আরও ২১২ কেজি স্বর্ণালঙ্কার ‘আটক’

দ্বিতীয় দিনের অভিযানে আপন জুয়েলার্সের আরেকটি বিক্রয় কেন্দ্র থেকে ২১২ কেজি স্বর্ণালঙ্কার ‘আটক’ করেছেন শুল্ক গোয়েন্দারা। সোমবার অভিযানের পর শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান সাংবাদিকদের বলেছেন, তাদের এই ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

ধর্ষণের মামলায় মালিকের ছেলের বিরুদ্ধে মামলার পর রোববার রাজধানীতে আপন জুয়েলার্সের পাঁচটি শাখায় অভিযান চালিয়ে প্রায় তিনশ কেজি সোনা ও হীরার গহনা ‘আটক’ করেন শুল্ক গোয়েন্দারা।

সোমবার গুলশান ২ নম্বর সার্কেলের সুবাস্তু টাওয়ারের বিক্রয় কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে ২১২ কেজি সোনা আটকের কথা জানান শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের উপপরিচালক সাইফুর রহমান।

তিনি বলেন, “সুবাস্তু টাওয়ার বিক্রয়কেন্দ্রে থেকে ২১২ কেজি সোনা পাওয়া গেছে, যার মূল্য প্রায় ৮৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে ২৫ কেজি সোনার তথ্য প্রমাণাদি দেখাতে পেরেছে তারা।”

ওই বিক্রয় কেন্দ্র থেকে ১১ কোটি ১৪ লাখ টাকা মূল্যের ১৮৪০ ক্যারেট হীরা আটকের কথাও জানান তিনি। এর মধ্যে ৬০০ ক্যারেটের কাগজপত্র আপন জুয়েলার্স কর্তৃপক্ষ দেখাতে পেরেছে বলে সাইফুর জানান।

বনানীতে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদের বাবা দিলদার আহমেদ আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক। এই পরিবারের বিরুদ্ধে সোনা চোরাচালানের অভিযোগ থাকায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশে একটি অনুসন্ধান কমিটি করে তদন্ত চালাচ্ছে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তর।

শুল্ক কর্মকর্তা সাইফুর রহমান বলেন, “আমরা এই ডায়মন্ড ও সোনাগুলো তাদের জিম্মায় দিয়ে আসছি এবং দোকান সিলগালা করে দিয়েছি। তারা বলছে, বাকি কাগজগুলো ১৭ তারিখের মধ্যে দেখাতে পারবে।”

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান জানান, স্বর্ণ ও রত্ন সংগ্রহের তথ্যে অস্বচ্ছতা এবং মালিকের ‘অবৈধ সম্পদের’ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবেই শুল্ক আইনের বিধান অনুসারে ওই অলঙ্কার তারা ‘আটক’ করেছেন।

‘ব্যাখ্যাহীনভাবে’ সোনা ও হীরার গয়না মজুদের অভিযোগে আপন জুয়েলার্সের মালিকদের তলবও করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। আগামী ১৭ মে বেলা ১১টায় তাদের কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সদরদপ্তরে কাগজপত্রসহ হাজির হতে বলা হয়েছে।

এদিকে আপন জুয়েলার্সে শুল্ক গোয়েন্দাদের এই অভিযানকে হয়রানিমূলক দাবি করে তার নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি।

আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদারের ছেলে সাফাত ও তার বন্ধুরা গত ২৮ মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ করে অভিযোগ তুলে গত ৬ মে থানায় মামলা হয়।

রোববার রেইনট্রি হোটেলে অভিযান চালিয়ে মদ উদ্ধারের পর ওই হোটেলের মালিকদেরও তলব করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। সাফাত ও তার বন্ধু সাদমান সাকিফকে সিলেট থেকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় সাফাতের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন ও দেহরক্ষী রহমত আলীকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মামলার পাঁচ আসামির মধ্যে নাঈম আশরাফ (আসল নাম হাসান মোহাম্মদ হালিম) এখনও পলাতক। এজাহারের বর্ণনা অনুযায়ী, গত ২৮ মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে সাফাত ও নাঈম দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছিলেন। অন্য তিনজন ছিলেন সহায়তাকারী।

সাফাতের বন্ধু সাদমান সাকিফ পিকাসো রেস্তোরাঁর অন্যতম মালিক ও রেগনাম গ্রুপের কর্ণধার মোহাম্মদ হোসেন জনির ছেলে। আর বনানীর চার তারকা যে হোটেলে ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগ, সেই রেইনট্রি হোটেলটি চালান ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনের সংসদ সদস্য বজলুল হক হারুনের (বি এইচ হারুন) ছোট ছেলে মাহির হারুন।

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণে বাংলাদেশের উদ্বেগ

উত্তর কোরিয়ার ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের ঘটনায় ‘গভীর উদ্বেগ’ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ। এ ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের মাধ্যমে উত্তর কোরিয়া জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বাধ্যবাধকতা ভঙ্গ করেছে বলে সোমবার ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

ওই অঞ্চল এবং তার বাইরে উত্তেজনা তৈরি করে এমন যে কোনো ধরনের কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার জন্য পিয়ংইয়ংয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা। শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে তার অঙ্গীকারের কথাও পুনঃব্যক্ত করেছে বাংলাদেশ।  

বড় ধরনের ভারী পারমাণবিক ওয়ারহেড’ বহনের সক্ষমতা যাচাই করতে নতুনভাবে তৈরি মধ্য থেকে দীর্ঘ পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রই রোববার পরীক্ষার দাবি করেছে উত্তর কোরিয়া।

ক্ষেপণাস্ত্রটি বিপজ্জনকভাবে রাশিয়ার ভূখণ্ডের খুব কাছে পড়েছে বলে রোববার জানিয়েছে হোয়াইট হাউজ। কিন্তু রাশিয়া একথা নাকচ করে বলেছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি তাদের ভূখণ্ড থেকে ৫শ’ কিলোমিটার দূরে পড়েছে এবং এটি তাদের জন্য কোনো হুমকি নয়।

 

পঞ্চগড় আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যুতে শেখ হাসিনার শোক

পঞ্চগড় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, মুক্তিযোদ্ধা খবির উদ্দিনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  সোমবার এক শোক বিবৃতিতে তিনি মরহুম খবির উদ্দিন-এর পবিত্র রুহের মাগফিরাত কামনা এবং তাঁর শোক-সন্তপ্ত পরিবার-পরিজনের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল অপর এক শোক বিবৃতিতে খবির উদ্দিনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

 

আপন জুয়েলার্স, রেইন ট্রি হোটেলের মালিকদের তলব

‘ব্যাখ্যাহীনভাবে’ সোনা ও হীরার গয়না মজুদের অভিযোগে আপন জুয়েলার্স এবং অবৈধভাবে মদ রাখার অভিযোগে বনানীর রেইন ট্রি হোটেলের মালিকদের তলব করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মইনুল খান জানান, আগামী ১৭ মে বেলা ১১টায় তাদের কাকরাইলে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের সদরদপ্তরে কাগজপত্রসহ হাজির হতে বলা হয়েছে।

ঢাকার বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদের বাবা দিলদার আহমেদ আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক। এই পরিবারের বিরুদ্ধে সোনা চোরাচালানের অভিযোগ থাকায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নির্দেশে একটি অনুসন্ধান কমিটি করে তদন্ত চালাচ্ছে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তর।

এর অংশ হিসেবে রোববার ঢাকায় আপন জুয়েলার্সের পাঁচ বিক্রয় কেন্দ্রে অভিযান চালিয়ে ২৮৬ কেজি স্বর্ণালঙ্কার এবং ৬১ গ্রাম হীরা ‘আটক’ করেছেন শুল্ক গোয়েন্দারা।

মইনুল খান জানান, স্বর্ণ ও রত্ন সংগ্রহের তথ্যে অস্বচ্ছতা এবং মালিকের ‘অবৈধ সম্পদের’ অনুসন্ধানের অংশ হিসেবেই শুল্ক আইনের বিধান অনুসারে ওই অলঙ্কার তারা আটক করেছেন।

রোববার তিনি বলেন, এসব পণ্যের কাগজপত্র যাচাই করে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়া গেলে প্রতিষ্ঠান মালিকের বিরুদ্ধে চোরাচালান ও মানি লন্ডারিং আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রোববার ওই একই সময়ে শুল্ক গোয়েন্দারা বনানীর রেইন ট্রি হোটেলেও অভিযান চালান, যেখানে গত ২৮ মার্চ সাফাত ও তার বন্ধুরা দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ করে বলে মামলার অভিযোগ।

ওই অভিযানে হোটেলের বিভিন্ন কক্ষ তল্লাশি করে ১০ বোতল বিদেশি মদ ও নথিপত্র জব্দ করেন শুল্ক গোয়েন্দারা। তারা বলছেন, হোটেল কর্তৃপক্ষ বারের লাইসেন্স দেখাতে না পারালেও সেখানে মদ রাখা হয়েছিল।

গত জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে ভ্যাট নিবন্ধন নিলেও কোনো অর্থ পরিশোধ না করে ওই হোটেল কর্তৃপক্ষ আট লাখ ১৫ হাজার টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে বলেও শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগের অভিযোগ।

অধিদপ্তরের যুগ্ম পরিচালক শাফিউর রহমান রোববার জানান, ভ্যাট ফাঁকি, শুল্ক ফাঁকি এবং মানি লন্ডারিং- এই তিন আইনে হোটেল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করবেন তারা।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য বি এইচ হারুনের ছেলে মাহির হারুন রাজধানীর বনানীর এই চার তারকা হোটেলটির মালিক। মাহিরের বন্ধু পরিচয় দিয়েই সাফাত ধর্ষণের ঘটনার দিক ওই হোটেলে উঠেছিলেন বলে হোটেলকর্মীরা পুলিশকে জানিয়েছেন।

ধর্ষণের আসামি সাফাত ও তার বন্ধু সাদমান সাকিফকে সিলেট থেকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

নাগরিকত্ব আইনে প্রবাসীদের স্বার্থ ক্ষুণ্ন হবে না: আইনমন্ত্রী

বাংলাদেশের নতুন নাগরিকত্ব আইন কোনোভাবেই স্বার্থ ক্ষুণ্ন করবে না বলে প্রবাসীদের আশ্বস্ত করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। রোববার লন্ডনে বাংলাদেশ হাই কমিশনে ‘প্রস্তাবিত নাগরিকত্ব আইন- ২০১৬’ নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় সরকারের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

আইনমন্ত্রী বলেন, “নাগরিকত্ব আইন কোনোভাবেই প্রবাসীদের স্বার্থ খর্ব করবে না, শুধুমাত্র প্রজাতন্ত্রের কিছু চাকুরীজীবি ছাড়া। এই আইন সব বাংলাদেশি ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের সমঅধিকার দিচ্ছে।

“আইনটির মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সম্পত্তির অধিকার কোনোভাবেই ক্ষুণ্ন হবে না।” নতুন আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, কোনো বাংলাদেশি সার্কভুক্ত দেশ বা মিয়ানমারের দ্বৈত নাগরিকত্ব নিতে পারবে না। কেউ বিয়ের সূত্রে এসব দেশের কোনোটির নাগরিক হলে তাদের এক দেশের নাগরিকত্ব ছাড়তে হবে।

গত বছরের ১ ফেব্রুয়ারি নাগরিকত্ব আইনের খসড়ায় প্রাথমিক অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে খসড়াটি ভেটিংয়ের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে রয়েছে। আইন চূড়ান্ত করার আগে প্রবাসীদের মতামত নেওয়া হবে বলে এর মধ্যে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী।

নতুন এই আইন সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক অভিযোগ করে বিএনপিসহ বিভিন্ন সংগঠন এর বিরোধিতা করেছে।

আনিসুল বলেন, “বিএনপি-জামাত সরকার কারও সাথে কোনো আলোচনা ছাড়াই একতরফাভাবে ২০০৫ সালে নাগরিকত্ব আইন প্রণয়ন করেছিল। আজ আমরা সবার সাথে আলোচনা করে এটাকে কার্যকরী রূপ দিতে যাচ্ছি।”

হাই কমিশনের অভ্যর্থনাকক্ষে আয়োজিত এই মতবিনিময় সভায় আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সফররত পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সভাপতি দীপু মনি ও হাই কমিশনার নাজমুল কাওনাইন বক্তব্য রাখেন।

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরীফ ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদসহ যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ, পেশাজীবী ও অন্য সংগঠনের নেতৃস্থানীয় প্রতিনিধি, আইনজীবী ও সাংবাদিকরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

 



Go Top