বিকাল ৩:৫৯, রবিবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ খুলনা

খুলনা প্রতিনিধি : সোনালী ব্যাংক খুলনা শাখার ১২৬ কোটি ৮২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ব্যাংকটির মহাব্যবস্থাপকসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক।  বুধবার খুলনা নগরীর খানজাহান আলী থানায় দুদকের উপ-পরিচালক মোহা. মোশাররফ হোসেন বাদী হয়ে এ মামলা করেন বলে সংস্থাটির উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য জানান।

মামলায় সোনালী ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক নেপাল চন্দ্র সাহা, ব্যাংকের সাবেক উপ-মহাব্যবস্থাপক সমীর কুমার দেবনাথ, সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার শেখ তৈয়াবুর রহমান, সহকারী কর্মকর্তা কাজী হাবিবুর রহমান ও মেসার্স সোনালী জুট মিলস লিমিটেডের চেয়ারম্যান এসএম এমদাদুল হোসেনকে আসামি করা হয়েছে। ২০১০ সালের ১২ জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়ে এই অর্থ আত্মসাতের ঘটনা ঘটে বলে জানান দুদদুক কর্মকর্তা প্রণব কুমার। তিনি বলেন, খুলনা করপোরেট শাখা থেকে বিভিন্ন ঋণের নামে ৮৫ কোটি ৮০ লাখ ৬৯ হাজার ১৭৪ টাকা মেসার্স সোনালী জুট মিলস লিমিটেডের অনুকুলে উত্তোলন করা হয়। এই অর্থের বিপরীতে মালামাল কেনার কথা থাকলেও তা না করে আসামিরা পরস্পর যোগসাজসে দুর্নীতি, প্রতারণা, অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ ও অপরাধজনক অসদাচরণের মাধ্যমে উত্তোলন করা অর্থ আত্মসাৎ করেছেন।
এতে ব্যাংক বা সরকারের সুদসহ ১২৬ কোটি ৮২ লাখ ৯৩ হাজার ২৮২ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে এই দুদক কর্মকর্তা জানান।

সাতক্ষীরা রেঞ্জের কপোতাক্ষ নদ থেকে কাঠ জব্দ

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের কপোতাক্ষ নদে অভিযান চালিয়ে তিনটি নৌকা ভর্তি সাড়ে চার লাখ টাকার কাঠ জব্দ করেছে কোস্টগার্ড সদস্যরা।  বুধবার দুপুরে আংটিহারা কোস্টগার্ড সদস্যরা সুন্দরবনের গাবুরা ইউনিয়ন সংলগ্ন কপোতাক্ষ নদ থেকে উক্ত কাঠগুলো জব্দ করে। এ সময় কাঠ পাচারকারীরা পালিয়ে যাওয়ায় তাদের কাউকে আটক করতে সক্ষম হননি কোষ্টগার্ড সদস্যরা। জব্দকৃত কাঠের মধ্যে রয়েছে, সুন্দরী, গরান, গেওয়াসহ বিভিন্ন ধরনের কাঠ। সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের সহকারী বন-সংরক্ষক মাকসুদুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

খুলনায় কলেজছাত্রকে পিটিয়ে হত্যা

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় এক কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, যাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশের ধারণা। ডুমুরিয়া থানার ওসি সুভাষ বিশ্বাস জানান, মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার মির্জাপুর এলাকার একটি খালের পাশ থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত সুদর্শন  রায় (২২) সরকারি সুন্দরবন কলেজে সম্মান তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন। সুদর্শন বটিয়াঘাটা উপজেলার গুনারাবাদ গ্রামের সুকুমার রায়ের ছেলে। ওসি সুভাষ পরিবারের বরাতে বলেন, সুদর্শন ডুমুরিয়ার বড়ডাঙ্গায় মামার বাড়িতে থেকে পড়াশোনা করতেন। সোমবার মামার বাড়ি থেকে বের হয়ে রাতে আর ফেরেননি। সকালে স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। সুদর্শনের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তবে ‘খুনি’ সম্পর্কে ওসি কিছু জানাতে পারেননি।

খুলনায় ছাত্রদল নেতা কামরান গ্রেফতার

খুলনা প্রতিনিধি : নাশকতা মামলায় ছাত্রদল কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের যুগ্ম-সম্পাদক ও খুলনা জেলা শাখার সাবেক সভাপতি কামরান হাসানকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  সোমবার দুপুরে টুটপাড়া এলাকায় নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনটি মামলায় কামরানকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম বলেন, ছাত্রদল নেতা কামরানের বিরুদ্ধে নাশকতার তিনটি মামলা রয়েছে। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা তুলে ধরবে বিএনপি: আমির খসরু

খুলনা প্রতিনিধি : নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা চূড়ান্ত করছে বিএনপি। যা অচিরেই প্রস্তাব আকারে জাতির সামনে তুলে করা হবে। বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী একথা জানান।

শনিবার  দুপুরে  অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন এবং নির্বাচনকালীন সরকার ও নির্বাচন কমিশন’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন তিনি।সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ খুলনা জেলা শাখার আয়োজনে মহানগরীর উমেশচন্দ্র পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী আরও বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠনে রাষ্ট্রপতি বিএনপির প্রস্তাবের ব্যত্যয় ঘটিয়েছেন। জনগণের প্রত্যাশার প্রতিফলন না ঘটিয়ে তিনি একজন অযোগ্য ব্যক্তিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ দিয়েছেন। যিনি বিতর্কিত ও দলীয়। তার অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠান কোনোভাবেই সম্ভব নয়।সংবিধান পরিবর্তন সংক্রান্ত বিষয়ে তিনি বলেন, সংবিধান রচিত হয়েছে জনগণের প্রয়োজনে। জিয়াউর রহমান সংবিধান সংশোধন করে দেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে না আনলে শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের অস্তিত্ব থাকতো না। এখন আওয়ামী লীগ সংবিধানের দোহাই দিয়ে জনগণের ভোট ও গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ খুলনা জেলা শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ মাজহারুল হান্নান সভায় সভাপতিত্ব করেন। স্বাগত বক্তৃতা করেন সংগঠনের জেলা শাখার সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. শেখ মো. আখতার-উজ-জামান।সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক ও সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজী, সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শওকত মাহমুদ।আলোচনায় অংশ নেন খুলনা মহানগর বিএনপি সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও খুলনা সিটি মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনি, জেলা বিএনপির সভাপতি এসএম শফিকুল আলম মনা প্রমুখ। এছাড়া বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা আলোচনায় অংশ নেন।

মাগুরায় শীর্ষ সন্ত্রাসীসহ ১১ জন গ্রেফতার

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরা ডিবি পুলিশের অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী তুষার শেখসহ ১১ মাদক ব্যবসায়ী আটক হয়েছে। গত বুধবার দিনগত রাতে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল শহরের ঈগল হোটেলে অভিযান চালায়। এ সময় ২টি দেশীয় অস্ত্রসহ ৯টি মামলার আসামি তুষার শেখ, শিমুল  হোসেন ও সোহেলকে গ্রেফতার করে।

অপর দিকে একই রাতে শহরের দোয়ার পাড় এলাকা থেকে মাদক সম্্রাট বিকাশ শিকদার, চাঁন মিয়া, মিজান শেখ, রাজু আহমেদ, পিন্টু, তুষার ও মাদক সম্রাজ্ঞী শেফালী ও তৃপ্তিকে গ্রেফতার করে। এ সময় তাদের বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ গাঁজা, ইয়াবা ও ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মামলার করা হয়েছে।

খুলনার ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে লাখো মুসল্লি

খুলনা প্রতিনিধি : লাখো মুসল্লির চোখের পানিতে আল্লাহর দরবারে জীবনের গুণাহ মাফের ফরিয়াদ জানানোর মধ্যদিয়ে শেষ হলো খুলনা জেলা ইজতেমার আখেরি মোনাজাত।  শনিবার দুপুর ১২টা ২০মিনিটে মোনাজাত শুরু হয়। খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের পশ্চিম পাশে জিরোপয়েন্টে ইজতেমা ময়দান থেকে এ মোনাজাতে সৃষ্টিকর্তার কাছে বিশ্ব উম্মাহর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়। বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ এ আখেরি মোনাজাতে আত্মশুদ্ধি ও নিজ নিজ গুণাহ মাফের পাশাপাশি দুনিয়ার সব বালা-মুসিবত থেকে হেফাজত চেয়ে দুই হাত তুলে মহান আল্লাহর দরবারে রহমত প্রার্থনা করেন মুসল্লিরা।আখেরি মোনাজাত চলাকালে ইজতেমাস্থল ও আশপাশ এলাকায় ‘আমিন’-‘আমিন’ ধ্বনিতে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। সকাল ৯টার আগেই ইজতেমা মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে আল্লাহর প্রতি নত হয়ে আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে মুসল্লিরা মনের আকুতির কথা জানান। আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন কাকরাইল মসজিদের শূরা সাথী মাওলানা ফারুক হুসাইন।

সাগর-রুনি হত্যা মামলা শিগগিরই আলোর মুখ দেখবে : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নড়াইল প্রতিনিধি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, সাংবাদিক দম্পত্তি সাগর-রুনি হত্যা মামলা খুব শিগগিরই আলোর মুখ দেখবে। তিনি বলেন, র‌্যাব সদস্যরা এ মামলা তদন্ত করছে। ২ জনের ডিএনএ’র নমুনা পাওয়া গেছে। সেগুলো ম্যাচিং করার চেষ্টা চলছে।

শনিবার দুপুরে নড়াইলের নড়াগাতি থানার অরুণিমা রিসোর্ট গলফ ক্লাব চত্বরে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন। সন্ত্রাস-জঙ্গীবাদের কোনস্থান নেই উল্লেখ করে আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, সরকার কাঠোর হস্তে জঙ্গিদের দমন করেছে। তিনি বলেন, পুলিশের পাশাপাশি জনগণের সহযোগিতায় জঙ্গী দমন সম্ভব হয়েছে। অপরাধীর কোন দল নেই উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাসী যে দলেরই হোক না কেন কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা। প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী অপরাধীদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এরআগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অপরাধ পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।

খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি এস এম মনির উজ জামানের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আবদুস সামাদ ও খুলনা মেট্ট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার নিবাস চন্দ্র মাঝি, নড়াইল-১ আসনের সংসদ সদস্য কবিরুল হক মুক্তি, জেলা প্রশাসক মোঃ হেলাল মাহমুদ শরীফ, নড়াইলের পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলামসহ বিভাগের পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, ভিক্ষুকমুক্ত খুলনা বিভাগ গড়ার লক্ষ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিভাগীয় কমিশনার আবদুস সামাদের নিকট খুলনা বিভাগের পুলিশ সদস্যদের এক দিনের বেতনের ৫৮ লাখ ১২ হাজার ২০৯ টাকার চেক হস্তান্তর করেন। পরে মন্ত্রী কালিয়া থানার নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন করেন।

ঝিকরগাছায় ফুলচাষীদের মুখে হাসি, জমেছে উঠেছে বেচাকেনা


বেনাপোল প্রতিনিধি : ফেব্রুয়ারি মাসের তিন উৎসবকে সামনে রেখে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালির ফুলবাজারে বেচাকেনা জমে উঠেছে। বসন্তবরণ, ভ্যালেন্টাইনস ডে আর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে প্রতিবছরই ফুল বেচাকেনা বেড়ে যায় গদখালি বাজারে। উৎপাদন ভালো হওয়ায় এ বছর বেচাকেনা ২০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাওয়ার আশা করছেন চাষীরা। সূর্য ওঠার আগেই প্রতিদিন চাষী, পাইকার, মজুরের হাঁকডাকে মুখর হয়ে ওঠে যশোর শহর থেকে ২০ কিলোমিটার পশ্চিমে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের পাশে ‘ফুলের রাজ্য’ গদখালি বাজার।

 দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ীরা এ বাজারে আসেন ফুল কিনতে। দরদাম মিটিয়ে ব্যবসায়ীরা ট্রাক-পিকআপ কিংবা বাসের ছাদে গাঁদা, গোলাপ, জবা, রজনীগন্ধা আর ইউরোপের ফুল জারবেরা নিয়ে ছুটে যান গন্তব্যে।বাংলাদেশ ফাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আব্দুর রহিম  বলেন, এবার ফুলের উৎপাদন, চাহিদা ও দাম সবই বেশি। এ অঞ্চলের ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীরাও তাই খুশি। তিনি জানান, অন্যস যে কোনো সময়ের তুলনায় এবার চাহিদা অনেক বেশি বলে ফুলের যোগান দিতে চাষীরা হিমশিম খাচ্ছেন। প্রতিদিন গড়ে অর্ধকোটি টাকার ফুল বেচাকেনা হচ্ছে গদখালি বাজারে। ফেব্রুয়ারির তিন উৎসব সামনে রেখে যে ফুল বেচাকেনা হয় তার অন্তত ৭৫ শতাংশের যোগান যশোর থেকে যায় জানিয়ে রহিম বলেন, এবার এ মৌসুমে ২০ কোটি টাকার ব্যাবসা হবে বলে তারা আশা করছেন। ঝিকরগাছার নন্দী ডুমুরিয়া গ্রামের ফুলচাষী গোলাম রসুলের মুখেও খুশির কথা জানা গেল। তিনি জানান, এবার ১০ বিঘা জমিতে গোলাপ, জবা, রজনীগন্ধা, গ্ল্যাডিওলাস ফুলের পাশাপাশি জারবেরার চাষ করেছেন তিনি। আবহাওয়া ভালো থাকায় বাগানে বেশি ফুল এসেছে।

ফুল বিক্রি করে এবার পাঁচ থেকে ছয় লাখ টাকা ঘরে তুলতে পারবেন বলে আশা গোলাম রসুলের। এবার কৃষকের খামারে বিশেষ উপহার হয়ে এসেছে বিভিন্ন রংয়ের গোলাপ। চাহিদা বেশি থাকায় চাষীরাও ভালো লাভ পাবেন বলে তিনি আশা করছেন। সৈয়দপাড়ার আতিয়ার রহমান গাজী জানান, গত দুদিনে প্রায় লাখ টাকার গোলাপ বিক্রি করেছেন তিনি। আর পটুয়াপাড়ার সাহেব আলী শুধু একদিনেই বিক্রি করেছেন ৪০ হাজার টাকার লাল গোলাপ। ঝিকরগাছার কাগমারী গ্রামের রকিবুল ইসলাম  বলেন, দুদিনে আমি দেড় লাখ টাকার জারবেরা বিক্রি করেছি। ঝিকরগাছার কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাইদুল ইসলাম  জানান, তাদের তত্ত্বাবধানে এ অঞ্চলে সাড়ে তিন হাজার হেক্টর জমিতে ৫শ ফুলচাষী বাণিজ্যিকভাবে ফুলের চাষ করেছেন। ফুলচাষীরা এবার প্রতিবিঘায় গড়ে ৭০-৮০ হাজার টাকার ফুল বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন তিনি।

 গদখালিতে রজনীগন্ধা, গোলাপ, গাঁদা, জারবেরা, গ্ল্যাডিওলাস, জিপসি, ক্যালেন্ডুলা, ডালিয়া, লিলিয়াম, চন্দ্রমল্লিকাসহ নানা জাতের ফুলের চাষ হয়। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ব্যবসায়ীরা বলছেন, গদখালি বাজারের বিক্রেতারা এবার ফুলের দাম বেশি চাইছেন। পিরোজপুর থেকে আসা ফুল ব্যবসায়ী তওফিক এলাহী বলেন, ৬০ হাজার টাকা নিয়ে ফুল কিনতে গদখালি এসেছি। এসে দেখি দাম খুব বেশি। গতকাল শুক্রবার গদখালী বাজারে দেখা গেল, প্রতিটি জারবেরা ১২ থেকে ১৫ টাকা, প্রতিটি রজনীগন্ধা ২-৩ টাকা, গোলাপ ১০-১৫ টাকা, রং ভেদে গ্ল্যাডিওলাস ৩-১০ টাকা এবং এক হাজার গাঁদা বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ টাকায়।

কুষ্টিয়ায় হত্যার দায়ে ৬ জনের ফাঁসির রায়


কুষ্টিয়ায় পাঁচ বছর আগের একটি হত্যা মামলার রায়ে ছয়জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।    

কুষ্টিয়ার জেলা ও দায়রা জজ রেজা মো. আলমগীর হোসেন মঙ্গলবার আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অনুপ কুমার নন্দী জানান, ২০১২ সালে আবু বকর সিদ্দিক নামের ৩৩ বছর বয়সী এক যুবককে হত্যার ঘটনায় এ মামলা দায়ের করা হয়।

 

খুলনায় বাস চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় বাস চাপায় সোহাগ (২৫) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এ সময় বাসটি খাদে পড়ে আহত হয়েছেন ১০/১২জন। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের খর্নিয়া ব্রিজের পশ্চিম পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সোহাগ যশোরের কেশবপুর উপজেলা সদরের অমেদ আলী মোড়লের ছেলে।

চুকনগর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ উপ-পরিচালক (এসআই) সাফুর আহম্মেদ জানান, চুকনগর থেকে যাত্রীবাহী একটি বাস (খুলনা মেট্রো-জ-১১-০১০৬) খুলনার দিকে ছেড়ে যায়। বাসটি খর্নিয়া ব্রিজের পশ্চিম পাশের টার্নিং পয়েন্টে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। এ সময় মোটরসাইকেলটি ছিটকে পড়ে যায় এবং মোটরসাইকেল আরোহী সোহাগ ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এক পর্যায়ে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে গেলে বাসের ১০/১২ জন যাত্রী আহত হন। আহতদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা অশঙ্কাজনক। তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে।

বিএনপি কখনই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল নয়: হানিফ


কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেছেন, বিএনপি কখনই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিলো না। এ দলটির জন্মই একটা বেআইনী পন্থায়, সামরিক ছাউনিতে বসে হয়েছিল। সেই দলের নেতা-কর্মীরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে না এটাই স্বাভাবিক উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতির কাছে সার্চ কমিটি কাদের নাম সুপারিশ করে তার অপোয় রয়েছে বিএনপি।


গতকাল শুক্রবার সকালে কুষ্টিয়া পিটিআই রোডস্থ নিজ বাসভবনে সদর উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় উঠান বৈঠকে যোগ দেয়ার আগে দলীয় নেতা-কর্মীদের সাথে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন। পরে তিনি শারীরিক প্রতিবন্ধীদের মধ্যে হুইল চেয়ার বিতরণ করেন। এ সময় কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়নুল আবেদীন, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হাজী রবিউল ইসলাম, শেখ গিয়াস উদ্দিন আহমেদ মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


হানিফ বলেন,খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট দুর্নীতির অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। আদালত থেকে তাকে ৫০ থেকে ৬০ বার হাজিরার দিন ধার্য থাকলেও তিনি মাত্র ৮ থেকে ১০ বার হাজির হয়েছিলেন।এখন শেষ সময় এসে নিরুপায় হয়ে আদালতে হাজির হচ্ছেন জানিয়ে তিনি বলেন, এতে প্রমানিত হয় খালেদা জিয়া কখনই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিলেন না। খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে হানিফ আরও বলেন, অতীতে তিনি যে আইনের প্রতি অশ্রদ্ধা দেখিয়েছেন তা থেকে বিরত থাকার জন্য বেগম জিয়ার প্রতি আহবান জানান।

 

কুষ্টিয়ায় দুপরে সংঘর্ষে নিহত ১


কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পরে সংঘর্ষে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে একজনের মৃত্যু হয়েছে; এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জয়নাল আবেদীন জানান, শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে জিয়ারাখী ইউনিয়নের মঠপাড়া গ্রামে প্রভাবশালী দুটি পরে মধ্যেব এই সংঘর্ষ হয়।

 নিহত ইদ্রিস আলী (৪০) ওই গ্রামের গোকুল মন্ডলের ছেলে। সংঘর্ষে আহত মোমিন (৩৫), খালেক (৫০) ও সুফিয়াকে (৪৫) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্য দুইজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। পুলিশ কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, ওই এলাকার কাদের গ্রুপ ও ইসমাইল গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব চলছিল। তারই জেরে একপ প্রতিপরে ওপর হামলা করলে সংঘর্ষ বাধে।

 সংঘর্ষে ছয়জন আহত হয়। তাদের কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক ইদ্রিসকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের সুরতহাল প্রতিবেদনের তথ্য দিয়ে সদর থানার এসআই শামসুর রহমান জানান, ইদ্রিসকে সড়কিজাতীয় ধারালো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

 

কুষ্টিয়ায় ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার নওদা গোপালপুর এলাকায় ট্রাকের ধাক্কায় ইফতেকার উদ্দিন (৩০) নামে মোটরসাইকেল এক আরোহী নিহত হয়েছেন।  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে কুষ্টিয়া-পাবনা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি মিরপুর উপজেলার তালবাড়ীয়া গ্রামের ইয়ার উদ্দিনের ছেলে।
তালবাড়ীয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) রেজাউল হক  জানান, সকালে ছেলেকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে স্কুলে যাচ্ছিলেন ইফতেকার। পথে নওদা গোপালপুর এলাকায় এলে পাবনা থেকে কুষ্টিয়াগামী একটি ট্রাক পেছন থেকে মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। এসময় গুরুতর আহত হন তিনি। তবে ছেলেটি অক্ষত রয়েছে। পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় ইফতেকারকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকদের পরামর্শে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় নেওয়ার প্রস্তুতিকালে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

শাফির লাইভ ভিডিওর ঘটনায় মামলা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক আবু ওবাইদা শাফির ‘লাইভ ভিডিও’র ঘটনায় মামলা হয়েছে। খোকসা থানার ওসি নাজমুল হুদা জানান, বুধবার রাত সাড়ে ১১টায় স্থানীয় সংসদ সদস্য আব্দুর রউফের খালাত ভাই ও কুমারখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলতাফ হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। তিনি বলেন, মামলায় শাফিকে প্রধানসহ অজ্ঞাত আরও ২৫-৩০ জনকে আসামি করা হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। সোমবার রাতে শাফিসহ একদল লোক সংসদ সদস্য আব্দুর রউফকে ‘দাবড়ানোর’ জন্য  খোকসা বাজারে অবস্থান নেন। এক ভিডিওতে দেখা যায়, শাফি অন্য কাউকে বলছেন, এখানে এমপিকে খোঁজা হচ্ছে, তাকে দাবড়ানো হবি। না পেয়ে ২০০ লোক নিয়ে রাস্তায় অবস্থান করছি। আমার ফেসবুকে লাইভে দেখাচ্ছি, দেখেন। এমন ভিডিও ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়লে কুষ্টিয়ায় তোলপাড় শুরু হয়। কয়েক মাস আগে শাফিকে উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক করে জেলা যুবলীগ। গত ৯ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় কমিটি আল মাসুম মোর্শেদ শান্তকে আহ্বায়ক করে ২১ সদস্যের উপজেলা যুবলীগের অনুমোদন দেয়। কমিটিতে বাদ পড়েন শাফি ও তার অনুসারীরা। এ কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে শাফি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে নতুন কমিটির নেতাদের ধারণা।

 

খুলনায় অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে ওসিসহ ৫ পুলিশ আহত

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনায় চিত্তরঞ্জন বাইন নামের এক কলেজ শিক্ষককে হত্যা মামলার আসামি আজিজুলকে (২৩) নিয়ে অস্ত্র উদ্ধারে গিয়ে গোলাগুলিতে ওসিসহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আসামি আজিজুল। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন- খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম, উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. কামাল উদ্দিন, মো. আব্দুল হান্নান, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. মামুন হোসেন ও শুভেন্দ্র কুমার পাল। রোববার দিনগত রাত আড়াইটার দিকে মহানগরীর বাগমারা প্রধান সড়কে শাহানারা বেগমের বাড়ির দক্ষিণ পাশে মো. নাসির উদ্দিনের ধানী জমির উত্তর পাশে কলা গাছের ঝোপের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। আহত খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম  বলেন, শিক্ষক চিত্তরঞ্জন বাইন হত্যা মামলার আসামি আজিজুলকে রাত ১১টার সময় গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে নিয়ে রাতে অস্ত্র উদ্ধারে যাওয়া হয়। অভিযানে আজিজুলের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে আমিসহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত হন। আসামি আজিজুল গুলিবিদ্ধ হলেও তার সহযোগিরা গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। ওসি জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি এম এম পিস্তল ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা রয়েছে। শিক্ষক হত্যা মামলাসহ আসামি আজিজুলের বিরুদ্ধে ৭টি মামলা রয়েছে। শনিবার রাতে শহীদ আবুল কাশেম স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক চিত্তরঞ্জন বাইকে হত্যা এবং তার বাড়ির মালামাল লুট করা হয়।

দণি-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় পরিবহন ধর্মঘট

খুলনা প্রতিনিধি: দণি-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় ১২ দফা দাবিতে ২৩ জানুয়ারি থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে।  শনিবার দুপুরে খুলনা প্রেস কাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ ধর্মঘটের ডাক দেয় দণি-পশ্চিমাঞ্চল (২১ জেলা) পণ্য পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এ ধর্মঘটের ঘোষণা দেন সংগঠনের আহ্বায়ক আব্দুল গফফার বিশ্বাস।

খুলনায় পাট গুদামে আগুনে ২০ লাখ টাকার ক্ষতি

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনায় খান জাহান আলী জুট ট্রেডিং নামে পাটগুদামে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।  বুধবার দুপুর ফায়ার সার্ভিসের নয়টি ইউনিট প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অগ্নিকান্ডে ২০ লাখ টাকা মূল্যে মাল য়তি হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিগ্রস্ত জুট টেডিংয়ের মালিক শেখ সেলিম ও তার বাবা আকতার।
এলাকাবাসী  জানায়, দুপুরে হঠাৎ করে পাটগুদাম থেকে ধোঁয়া বের হতে থাকে। এক পর্যায়ে আগুনের শিখা দেখা যায়। তাৎণিকভাবে খবর পেয়ে খুলনা ও দৌলতপুর ফায়ার স্টেশনের নয়টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আড়ংঘাটা থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হেলাল উদ্দিন ঘটনাস্থল থেকে  জানান, আগুন পাটগুদাম ছাড়াও পাশের কয়েকটি বাড়িতে ছড়িয়ে পড়লে পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এসে তা নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে তাৎণিকভাবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে এ অগ্নিকা-ের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়।

খুলনায় কলেজ শিক্ষক খুন

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা নগরে নিজ ভাড়া বাসা থেকে এক কলেজ শিক্ষকের হাত-পা বাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার দুপুরে নগরীর শেরে বাংলা রোডের আমতলা মোড়ের বাসায় চিত্তরঞ্জন বাইনের (৪৫) মৃতদেহ পাওয়া যায় বলে খুলনা সদর থানার এসআই তাপস পাল জানিয়েছেন। নিহত চিত্তরঞ্জন খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলার কৈয়া এলাকার ‘শহীদ শেখ আবু কাশেম স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের’ ইংরেজির প্রভাষক ছিলেন।

শেরে বাংলা রোড আমতলার মোড়ে মো. আব্দুল মজিদের বাড়ির প্রথমতলায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকতেন তার জেঠা চিত্তরঞ্জন। চিত্তরঞ্জনের ভাতিজা বাপী গাইন জানান, তার জ্যাঠিমা (চিত্তরঞ্জনের স্ত্রী) লাকি গোলদার এক সপ্তাহ আগে বাবার বাড়ি বটিয়াঘাটার ঝড়ভাঙ্গা গ্রামে বেড়াতে যান। সঙ্গে তাদের দুই মেয়ে প্রমা (৮) ও ছয় মাস বয়সী প্রাপ্তিকে নিয়ে যান। শনিবার রাতে বাসায় একা ছিলেন চিত্তরঞ্জন। রাতের কোনো এক সময় জানালার গ্রিল কেটে ঘরে ঢুকে চিত্তরঞ্জনের হাত-পা ও মুখ বেঁধে মাথায় আঘাত করে তাকে হত্যা করা হয়। পরে স্টিলের আলমারি ভেঙ্গে নগদ টাকা ও স্বর্ণলংকার নিয়ে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। বাপী বলেন, রোববার বেলা ১১টার দিকে চিত্তরঞ্জনের মোবাইল ফোনে স্ত্রী লাকি গোলদার একাধিকবার কল দিলেও তা রিসিভ না করায় লাকি বিষয়টি তার শ্বশুর রতন গোলদারকে জানান। পরে রতন গোলদার সেখানে গিয়ে চিত্তরঞ্জনকে ডাকাডাকি করলে ভিতর থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে ঘরের জানালার দিকে যান। সেখানে দেখতে পান জানালার গ্রিল কাটা। পরে কাটা জানালা দিয়ে একজন ঘরে ঢূকে দরজা খুলে দেয়। শয়নকক্ষে খাটের উপর চিত্তরঞ্জনের মৃতদেহ পড়েছিল বলে বাপী জানান। এসআই তাপস পাল বলেন, চিত্তরঞ্জনের দুই হাত, দুই পা ও মুখ বেঁধে হত্যা করা হয়েছে। তার মাথার ডান পাশে ও ডান পায়ে ভারী কোনো বস্তু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। মাথা ও পায়ে আঘাতে রক্ত জমে থাকার চিহ্ন দেখা গেছে। খুলনা থানা পুলিশ ও সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহের সুরতহাল তৈরি ও বিভিন্ন নমুনা সংগ্রহ করেছেন বলে জানান তাপস।

 

আ’ লীগে অনুপ্রবেশকারীরা দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে চায় : ইনু


কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি-জামায়াতের লোকেরা আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে চায়। তারা দিনের বেলায় আওয়ামী লীগ হলেও রাতের বেলা পুরোনো রূপ ধারণ করে। দেশের চলমান উন্নয়ন যাত্রাকে অব্যাহত রাখতে এ সব কুচক্রি মহলকে প্রতিহত করতে হবে।

গতকাল শুক্রবার সকালে তিনি কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা জাসদ কার্যালয়ে এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। আমবাড়ীয়ায় লুৎফর রহমান সাবু হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে ইনু বলেন, হত্যাকারীরা যেই হোক তাদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দেওয়া হবে। এ হত্যাকান্ডের পর ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মিলনের বাড়ি ও উপজেলা জাসদ কার্যালয়ে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় তিনি তীব্র নিন্দা জানান।

 উপজেলা জাসদের সভাপতি মহম্মদ শরীফের সভাপতিত্বে এ সময়ে জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলিম স্বপন, জাসদ কেন্দ্রীয় নেতা মহাম্মদ আব্দুল্লাহ, জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, উপজেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলীসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

আত্মসমর্পণ করা ১২ দস্যু কারাগারে

বাগেরহাট প্রতিনিধি : স্বরাষ্ট্রন্ত্রীর কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে আত্মসমর্পণ করা সুন্দরবনের ১২ দস্যুকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।  রোববার দুপুরে বাগেরহাটের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট গৌতম মল্লিক তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে শনিবার দুপুরে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা রাখাইন মার্কেট মাঠে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে অস্ত্র জমা দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করেন নোয়া বাহিনী প্রধান বাকি বিল্লাহ ওরফে নোয়াসহ ১২ দস্যু। এসময় তারা দেশি-বিদেশি ২৫টি আগ্নেয়াস্ত্র এবং এক হাজার ১০৫ রাউন্ড গোলাবারুদ জমা দেন। শনিবার রাতে তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা দায়েরের পর বাগেরহাটের মংলা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। স্বাভাবিক জীবনে ফেরার জন্য এ পর্যন্ত নোয়া বাহিনীসহ সুন্দরবনের আট দস্যু বাহিনীর ৭৬ দস্যু র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-৮ এর মাধ্যমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে বিপুল অস্ত্র-গোলাবারুদ জমা দিয়েছেন। ৭৬ দস্যুর মধ্যে অধিকাংশই এখন জামিনে মুক্ত।

‘আমাকে পুলিশ ধরেছিল তবে নির্যাতন করেনি’


যশোর প্রতিনিধি : যশোরে চাঁদা আদায়ের জন্য এক যুবককে ধরে নিয়ে থানায় উল্টো করে ঝুলিয়ে নির্যাতনের ছবি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, থানার মধ্যে ওই যুবকের দুই পায়ের মাঝে কাঠ রেখে পিঠমোড়া দিয়ে উল্টো করে ঝুলিয়ে নির্যাতন চালানো হচ্ছে।


অভিযোগ উঠেছে, বুধবার রাতে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানায় এ ঘটনা ঘটেছে। আর ঘটনার শিকার আবু সাঈদ যশোর সদর উপজেলার তালবাড়িয়া গ্রামের মাদক বিক্রেতা নুরুল হকের ছেলে। তবে আবু সাঈদ ওই দিন আটক হলেও তার ওপর কোনো নির্যাতন চালানো হয়নি বলে দাবি করেছেন। আর ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে প্রধান করে দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। কোতোয়ালি মডেল থানা সংশ্লিষ্ট সূত্রের দাবি, গত বুধবার সদর উপজেলার তালবাড়িয়া গ্রামের নুরুল হকের ছেলে আবু সাঈদকে আটক করে কোতোয়ালি পুলিশের সিভিল টিম।

 আটকের পর তার কাছে দুই লাখ টাকা ঘুষ দাবি করে দুই পুলিশ কর্মকর্তা। ঘুষ দিতে অস্বীকার করায় আবু সাঈদকে হাতকড়া পরিয়ে থানার মধ্যে দুই টেবিলের মাঝে কাঠ দিয়ে উল্টো করে ঝুঁলিয়ে পেটানো হয়। পরে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ওই রাতেই ছাড়া পায় সাঈদ। কোতোয়ালি থানায় পিঠমোড়া দিয়ে ঝুলিয়ে নির্যাতনের এই ছবি বৃহস্পতিবার রাতে ফেসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। এরপর থেকেই এ ঘটনা নিয়ে তোলপাড় চলছে।

 পুলিশের সিভিল টিম তুলে দেয়ার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা থাকলেও সেই নির্দেশ অমান্য করে সিভিল টিম মাঠে থাকায় এবং তাদের হাতে এমন ঘটনা ঘটায় পুলিশের মাঝেও বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন বলেন, থানায় নির্যাতন ও টাকা আদায়ের অভিযোগ তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহীদ মো. আবু সরওয়ারকে প্রধান করে দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 তবে ভুক্তভোগী আবু সাঈদ ও তার পরিবারের সদস্যরা নির্যাতনের বিষয়টি অস্বীকার করছে। এই ছবি ও খবর নিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি হলে শুক্রবার দুপুরে আবু সাঈদ ও তার পরিবারের সদস্যরা প্রেসকাব যশোরে আসেন। প্রেসকাবে সাঈদ দাবি করেন, বুধবার পুলিশের সিভিল টিম তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এরপর তার বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে দায়েরকৃত মামলার খোঁজ-খবর নেয়। কোনো অভিযোগ না থাকায় পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। সাঈদের দাবি, তাকে আটক করলেও পুলিশ তার ওপর কোনো নির্যাতন চালায়নি এবং ছেড়ে দেয়ার জন্য কোনো টাকাও নেয়নি।

ঘটনার শিকার আবু সাঈদের মা রোমেছা বেগম, বাবা নুরুল ইসলাম ও ভাই আশিকুর দাবি করেন, পুলিশ আবু সাঈদকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল। টাকা পয়সা লেনদেন কিংবা মারপিটের কোনো ঘটনা ঘটেনি। এমনিতেই পুলিশ ছেড়ে দিয়েছে। ছাড়া পাওয়ার পর পলাতক ছিল আবু সাঈদ। এমনকি শুক্রবার সকালে গিয়ে তাকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। বেলা ১১টার দিকে বাড়ির সামনে দেখা মেলে আবু সাঈদের। এরপর দুপুরে তিনি প্রেসকাবেও আসেন।

 

 

যশোরে পুলিশি হেফাজতে যুবককে নির্মম নির্যাতনের ঘটনায় তোলপাড়


যশোর প্রতিনিধি : যশোরে দু’লাখ টাকা ঘুষ দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় আবু সাঈদ নামে এক যুবককে থানার ভেতরে ঝুলিয়ে পেটানোর ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে। ইউপি সদস্য ও স্থানীয় জনগণ ঘটনা শুনেছেন জানালেও ওই যুবকের পরিবার তা অস্বীকার করেছে। তবে পুলিশ এ বিষয়ে এখনও কোন বক্তব্য দেয়নি। যশোর জেলা পুলিশের প থেকে ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুলিশ বলছে, ছবিটি অনেক পুরনো। আবু সাঈদ নামে কাউকে সম্প্রতি ধরে এনে এমন নির্যাতন করা হয়নি।


সূত্র জানায়, যশোর সদর উপজেলার দক্ষিণ তালবাড়িয়া গ্রামের কলেজপাড়ার নূরুল হকের ছেলে আবু সাঈদ। তাকে গত বুধবার রাতে আটক করেন কোতোয়ালি থানার এসআই নাজমুল, এসআই নাহিয়ান ও এএসআই হাদিবুর রহমান। পরে তার কাছে দু’লাখ টাকা দাবি করেন ওই দুই অফিসার। এ টাকা দিতে অস্বীকার করায় আবু সাঈদকে হ্যান্ডকাফ পরিয়ে থানার মধ্যে দুই টেবিলের মাঝে বাঁশ দিয়ে উল্টো করে ঝুলিয়ে পেটানো হয়। এ কথা তার পরিবার জানতে পেরে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে সে ওই রাতেই ছাড়া পায়। সাঈদকে ঝুলিয়ে মারপিটের এ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড হয়।

 এরপর বিভিন্ন সংবাদও প্রকাশ হওয়ায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ছেলেটি মাঝে মধ্যে নেশা করলেও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তবে পুলিশের এ নির্মম নির্যাতন ও বাণিজ্য বন্ধ হওয়া প্রয়োজন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে এসআই নাহিয়ান জানান, ঘটনার সাথে তিনি জড়িত নন। এদিকে অপর অভিযুক্ত এএসআই হাদিবুর রহমান বলেন, ঘটনার সাথে আমি জড়িত নই। অভিযুক্ত এসআই নাজমুল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তিনি গত দুদিন ধরে ঢাকায় অবস্থান করছেন। সাঈদ নামে কাউকে আটক বা ঘুষ গ্রহণের সাথে তিনি জড়িত নন।


এএসআই হাদিবুর রহমান বলেন, যা বলা হচ্ছে থানায় এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। সাংবাদিকদের ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে। এ বিষয়ে সাঈদের বড়ভাই আতিয়ার রহমান বলেন, বুধবার রাতে আমার ভাইকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। কিন্তু কোনো অভিযোগ না থাকায় পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। তবে স্থানীয় ইউপি মেম্বার আসমত আলী চাকলাদার দাবি করেছেন, সাঈদ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত।
যশোর কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি ইলিয়াস হোসেন বলেন, পুলিশ আবু সাইদের উপর কোন নির্যাতন করেনি। তবে এ অভিযোগ ওঠায় ২ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটি প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

নড়াইলে যুবদল নেতার মরদেহ উদ্ধার


নড়াইল প্রতিনিধি : নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার মল্লিকপুর ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আশরাফ মল্লিকের (৪৫) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে লোহাগড়া পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডে নির্মাণাধীন ভবন থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।


আশরাফের ভাতিজা আলমগীর মল্লিক আরব বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর লোহাগড়া বাজার থেকে হঠাৎ নিখোঁজ হন তার চাচা (আশরাফ)। প্রতিপরে লোকজন তার চাচাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

 লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, ঘটনাস্থল থেকে আশরাফের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে আশরাফের শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। এছাড়া ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে বলেও জানান ওসি।

খুলনায় পিকনিকের বাস দুর্ঘটনায় নিহত ২


খুলনা প্রতিনিধি: খুলনার রূপসা উপজেলায় পিকনিকের বাস দুর্ঘটনা পড়ে দুই যাত্রী নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- মো. রফিকুজ্জামান ও জহুরুল হক। তাদের বিস্তারিত পরিচয় তাৎণিকভাবে জানা যায় নি। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে রূপসা উপজেলার তিলকের কুদী এলাকার বটতলা মোড়ে পিকনিকের বাসটির সঙ্গে বিপরীতমুখী একটি বাসের সংঘর্ষ হলে এ দুর্ঘটনা হয় বলে জানান খুলনা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান।

 স্থানীয়দের বরাত দিয়ে  তিনি জানান, সাতীরা থেকে সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটায় পিকনিকের দুটি বাস যাচ্ছিল। এর মধ্যে একটি বাস রূপসা সেতু পার হয়ে তিলক পৌঁছালে একটি বাস এই দুর্ঘটনায় পড়লে ঘটনাস্থলে দুইজন মারা যান। গুরুতর আহত ১০ থেকে ১২ জনকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পিকনিকের বাসটিতে ৪০ জন যাত্রী ছিলেন জানিয়ে জেলা প্রশাসক বলেন, বাসটি উদ্ধারের জন্য ফায়ার সার্ভিস কাজ করছে। আহতদের খোঁজখবর ও চিকিৎসার জন্য এনডিসিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

খুলনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনায় মাহিদ্রার ধাক্কায় সরোয়ার শেখ (৩৫) নামের এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন।  সোমবার দুপুর আড়াইটার দিকে মহানগরীর গোয়ালখালি নয়াবাটি মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত সরোয়ার খালিশপুর নয়াবাটি এলাকার শেখ বাড়ির মৃত হাতেম শেখের ছেলে।

খালিশপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) তৌহিদুর রহমান  বলেন, সরোয়ার শেখ তার মোটরসাইকেলে করে দৌলতপুরের দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মাহিন্দ্রা তাকে ধাক্কা দিলে গুরুতর আহত হন। তাৎক্ষণিকভাবে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এসআই আরও জানান, ঘটনার পর-পরই মাহিন্দ্রাটি নিয়ে চালক পালিয়ে যাওয়ায় আটক করা সম্ভব হয়নি। সরোয়ার শেখের মরদেহ খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

 

খুলনায় আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি, পথচারী নারী নিহত

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের এক নেতার দিকে ছোড়া গুলি লক্ষভ্রষ্ট হয়ে পথচারী এক নারী নিহত হয়েছেন।  শনিবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটের দিকে নগরীর দোলখোলার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ ও পথচারীরা জানান। নিহত শিপ্রা কুণ্ডু ব্যাংক কর্মকর্তা চিত্তরঞ্জন কুণ্ডুর স্ত্রী। এ ঘটনায় মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জেড এ মাহমুদ অক্ষত রয়েছেন। মাহমুদ ডন সাংবাদিকদের বলেন, সামসুর রহমান মানি ওয়েলফেয়ার সেন্টারে একটি কাজ শেষ করে একটু সামনে গিয়ে পরিচিত এক লোকের সঙ্গে কথা বলছিলেন তিনি। এ সময় মৌলভীপাড়ার দিক থেকে দুটি মোটরসাইকেলে আসা মুখোশধারীরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি করে। আমার সঙ্গে থাকা লোকটি আমাকে ধাক্কা দিয়ে পাশের ওয়ালের উপর ফেলে দেয়। এতে গুলি আমার গায়ে না লেগে পাশের এক পথচারী নারীর বুকে গায়ে লাগে। ডন বলেন, ওই নারীকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক এস এম মনোয়ারুল ইসলাম মৃত ঘোষণা করেন। হামলার পর ডন পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন। তখন মুখোশধারী হামলাকারীরা ফাঁকা গুলি করতে করতে শীতলাবাড়ির মন্দিরের দিক দিয়ে চলে যায় বলে জানান তিনি। কারা গুলি করেছে জানতে চাইলে ডন বলেন, এলাকার চিহ্নিত মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ীরা এ কাজ করেছে। তবে মুখোশ পরা থাকায় কাউকে চিনতে পারেননি তিনি। এর আগেও আগেও ডনের উপর বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানান তিনি। খুলনা সদর থানার ওসি শফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি শোনার পর আমিসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে এসেছি। সন্ত্রাসীদের আটক করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

যশোরে ছবি তোলার নাম করে শিশু চুরি

যশোরে সরকারি সাহায্যের জন্য ছবি তোলার নাম করে আলী নামে নয়দিন বয়সী এক শিশু চুরির ঘটনা ঘটেছে। রবিবার সন্ধ্যায় অভিনব কায়দায় ৯ দিন বয়সী ছেলেশিশু চুরি হয়।

প্রতারণার মাধ্যমে এক মহিলা ওই শিশুটিকে চুরি করে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন শিশুটির নানী।

আলী নামে ওই শিশুটি যশোরের কেশবপুর উপজেলার বরণডালি গ্রামের রেজাউল করিমের ছেলে। সন্তান প্রসবের পর শিশুটির মায়ের শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়।

শিশুটির বাবা রেজাউল করিম বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, ‘নয় দিন আগে তার স্ত্রী তহমিনা নিজবাড়িতে একটি ছেলে সন্তান প্রসব করেন। প্রসবের পর তার স্ত্রীর জরায়ুর নাড়িতে সমস্যা দেখা দিলে তাকে কেশবপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে কোনও উন্নতি না হওয়ায় ১৯ নভেম্বর সকালে তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রবিবার বিকেলে শাশুড়ি ফিরোজা বেগমের কাছ থেকে এক মহিলা প্রতারণার মাধ্যমে শিশুটি চুরি করে নিয়ে যায়।’

শিশুটির নানি ফিরোজা বেগম জানান, ‘রবিবার বিকেলে আমি যশোর জেনারেল হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় গাইনি ওয়ার্ডে নাতিকে নিয়ে বসে ছিলাম। এ সময় অপরিচিত এক মহিলা তাকে বলেন, তোমরা গরিব মানুষ। তোমার নাতি ছেলের ছবি তুলে নিয়ে গেলে সরকার তোমাদের টাকা দেবে। সেই টাকা দিয়ে তোমার মেয়ের চিকিৎসা করাতে পারবে।’

তিনি আরও জানান, ‘তার কথামত শহরের দড়াটানা মোড়ে ছবি তুলতে যায়। ছবি তোলার পর ওই অপরিচিত মহিলার কথামত শিশুটিকে নিয়ে আমি জেল রোডে কুইন্স হাসপাতালের তৃতীয় তলায় টাকা আনতে যায়। তখন ওই প্রতারক মহিলা শিশুটিকে তার কাছে দিয়ে ভেতরে যেতে বলে। আমি শিশুটিকে তার কোলে দিয়ে ভেতরে গিয়ে কিছু না পেয়ে ফিরে দেখি মহিলাটি উধাও।’

এ ব্যাপারে কোতয়ালী কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘কুইন্স হাসাপাতাল থেকে ৯ দিন বয়সী একটি শিশু চুরি হয়েছে শুনেছি। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।’

শামুক বেঁচে শখ মেটায় ওরা

রাস্তার ধারে অনেকক্ষণ ধরেই অধীর আগ্রহে ছোট ছোট বস্তা নিয়ে বসেছিল ওরা। বস্তা ভর্তি শামুক। একজনকে আসতে দেখেই হইহই করে উঠে রনি, বিকাশরা। তাদের উল্লাসের কারণ শামুক কেনার মহাজনকে দেখে। এই শামুক বিক্রির টাকা দিয়েই এসব শিশুরা তাদের শখ মেটায়। পাশাপাশি পরিবারকেও সাহায্য করে।

শার্শা উপজেলার বাহাদুরপুর ও লক্ষ্মণপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের শিশুরা শামুক বিক্রি করে এভাবেই তাদের জীবন-জীবিকা চালাচ্ছে। শিশুরা শামুক বিক্রি করে যে টাকা পায় তা নিয়েই ছুটবে দোকানে। কিনবে সংসারের প্রয়োজনীয় জিনিস। কেউ কেউ কিছু টাকা জমাবে বাবা-মায়ের কাছে। শার্শা উপজেলার গ্রামগুলোয় হতদরিদ্র শিশুর সংখ্যা আশপাশের এলাকার চেয়ে একটু বেশিই। পরের জমিতে শ্রম দিয়ে, মাছ ধরে, শামুক বিক্রি করে চলে তাদের জীবন।

অন্যান্য শিশুরা যখন স্কুলে গিয়ে এটা-ওটা কিনে খায়, তখন বিকাশ আর রনির মতো দরিদ্র পরিবারের শিশুরা তা চেয়ে চেয়ে দেখতো। তবে এখন আর তাদের বন্ধুদের খাবার দেখতে হয় না। স্কুল শেষে অবসর সময়ে তারা আশপাশের খাল-বিল ও বাওড় থেকে শামুক কুড়ায়। পরে ওই শামুক বিক্রি করে এটা-ওটা কিনে খায়। যেদিন শামুক বেশি পায়, টাকাও বেশি আসে। তখন বাবা-মায়ের কাছে থাকা জমানো টাকা নেয়।

চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র বিকাশ জানায়, আগে স্কুলে যাওয়ার সময় মা-বাবার কাছে টাকা চাইলে দিতে পারতেন না। তাই স্কুলে বন্ধুরা যখন খাবার খায় তখন সে তাকিয়ে দেখতো। এখন স্কুল ছুটির পর শামুক কুড়ায়। প্রত্যেক দিন ৬ থেকে ৮ কেজি  শামুক পায়। বিকালে ওই শামুক গ্রামের নূর ইসলামের কাছে বিক্রি করে মিষ্টি কেনার জন্য কিছু রেখে বাকি টাকা সংসার খরচের জন্য বাবা-মাকে দিয়ে দেয়।

 

সে জানায়, প্রতি কেজি শামুকের দাম ৫-৭ টাকা। স্কুলে গিয়ে খরচার জন্য ১০ টাকা করে নিয়ে যায়। বাকি টাকা বাবা-মায়ের কাছে জমা রাখে। বাবা ওই জমানো টাকায় তার খাতা-কলম, ব্যাট-বল, কখনও জামা-প্যান্ট কিনে দেয়।  শামুক ক্রেতা নূর ইসলাম জানান, কুড়ানো শামুক বিক্রি করে বাচ্চারা তাদের শখ মেটায়। আর সংসার চলে।

৫-৭ টাকা কেজিতে শামুক কিনে শিশুদের ঠকানা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, বিভিন্ন জেলার মাছের ঘেরে ওই শামুক তিনি ১০-১২ টাকা কেজিতে বিক্রি করেন। পথে পুলিশকে চাঁদা দিতে হয়। পথের খরচ না থাকলে তিনি কেজিতে আরও ২/১ টাকা বেশি দিতে পারতেন।

পুলিশের চাঁদাবাজি প্রসঙ্গে নাভরণ পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আফজাল হোসেন চাঁদা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে জানায়, এসব পথে পুলিশ কোনও গাড়ি আটকে টাকা নেয় না।



Go Top