রাত ৮:৪১, শুক্রবার, ২১শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ স্বাস্থ্য

 লেবু শুধুমাত্র সুস্বাদু একটি ফলই নয়। লেবু আমাদের স্বাস্থ্য , ত্বক এবং চুলের জন্যেও খুবই উপকারী। কিন্তু অধিকাংশ মানুষই লেবু খাওয়ার পরে তার খোসা ফেলে দেন। আপনিও নিশ্চয়ই তেমনটাই করেন? তাই তো? কিন্তু লেবুর খোসার উপকারিতা কি আপনি জানেন? লেবুর ভিতরের অংশের পাশাপাশি লেবুর খোসাও আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য কতটা উপকারী এবং কোন কোন উপকার করে তা জেনে নিন-

১) মারণ রোগ ক্যানসার । আর এই মারণ রোগের প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে লেবুর খোসা । চিকিত্‌সকেরা জানাচ্ছেন, চায়ের সঙ্গে লেবুর খোসা মিশিয়ে খেলে আমাদের শরীরের ক্যানসার কোষ তৈরি হওয়া প্রতিরোধ করা সম্ভব।

২) সৌন্দর্যের দিক থেকে লেবুর খোসা সরাসরি ত্বকে প্রয়োগ করলে ত্বকে সানবার্ন প্রতিরোধ করা যায়।

৩) লেবুর খোসায় প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি থাকে। যা আমাদের হাড়কে আরও মজবুত করতে সাহায্য করে। হাড়ের বিভিন্ন অসুখ যেমন, পলিআর্থারাইটিস, অস্টিওপরোসিস এবং বিভিন্ন প্রকার আর্থারাইটিস প্রতিরোধ করে।

৪) প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি থাকার জন্য লেবুর খোসা দাঁতের জন্যেও খুবই উপকারী। দাঁতের বিভিন্ন অসুখ প্রতিরোধ করে লেবুর খোসা ।

৫) অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য লেবুর খোসার উপকারিতা অনেক।

৬) শরীর থেকে স্ট্রেস কমায় লেবুর খোসা ।

৭) লেবুর খোসা আামদের শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বজায় রাখে, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে, এবং বিভিন্ন হৃদরোগ যেমন স্ট্রোক এবং হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করে।

৮) হজম শক্তি এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় লেবুর খোসা ।

এই বিভাগের আরো খবর

ত্বকের ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে টমেটো

আমরা রোজ যে সমস্ত ফল কিংবা সব্জি খাই, তার মধ্যেই এমন কিছু গুণাগুণ রয়েছে, যা বিভিন্ন মারণ রোগ প্রতিরোধ করতে সক্ষম। এর বেশিরভাগই আমাদের অজানা। কোন সব্জি কোন রোগ প্রতিরোধ করে, তা আমাদের বেশিরভাগ মানুষেরই জানা নেই। যেমন, টমেটো । বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন যে, টমেটোতে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা ত্বকের ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, ত্বকের ক্যানসারের পাশাপাশি, বিভিন্ন প্রকার হৃদরোগ প্রতিরোধ করতে, রক্ত পরিশুদ্ধ করতে, টক্সিন রিমুভ করতে, দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে, কোলেস্টেরলের মাত্রা কম করার মতো উপকারও করে টমেটো ।

টমেটো কাঁচা হোক কিংবা তরলরূপে, সব প্রকারেই ত্বকের ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে টমেটো ।

এই বিভাগের আরো খবর

দাঁড়িয়ে পানি পান করলে হারাবে সুস্থতা

অনেক সময়ই আমরা দাঁড়িয়ে পানি পান করি। তাতেই ডেকে আনছি বিপদ। একটা নয়, একগুচ্ছ রোগ বাসা বাঁধছে শরীরে। বিকল হচ্ছে কিডনি। ভাবছেন, এ আবার কী উদ্ভুতুড়ে কথা? পানি পান করার আবার কোনও নিয়ম হয় নাকি? শুনতে অবাক লাগলেও বিষয়টা সত্যি।

পানি । শরীরে জলের গুরুত্ব অসীম। কিন্তু এই পানি খাওয়ারও কিছু নিয়মকানুন আছে। রাস্তাঘাটে চলতে ফিরতে ঢকঢক করে পানি খাওয়া আমরা হামেশাই করে থাকি। এমনকী বাড়িতেও। এই দাঁড়িয়ে পানি খাওয়াতেই তৈরি হচ্ছে বিপদ। শরীরে বাসা বাঁধছে নানা রোগ।

দাঁড়িয়ে পানি পান করার বিপদ

    টক্সিনের পরিমাণ বাড়ে- পানি পান করার পরেই  ছাঁকনিগুলো শরীর পরিশ্রুত করার কাজ শুরু করে দেয়। দাঁড়িয়ে পানি পান করলে শরীরের অন্দরে থাকা ছাকনিগুলি সংকুচিত হয়ে যায়। পরিশ্রুত করার কাজ বাধা পায়। শরীরে টক্সিনের মাত্রা বাড়তে থাকে।
    পাকস্থলীতে ক্ষত তৈরি হয়- দাঁড়িয়ে পানি পান করলে তা সরাসরি পাকস্থলীতে গিয়ে আঘাত করে। স্টমাক থেকে নিঃসৃত অ্যাসিডের কর্মক্ষমতা কমিয়ে দেয়। বদহজমের আশঙ্কা বাড়ে। তলপেটে যন্ত্রণা সহ একাধিক সমস্যা তৈরি হয়।
    আর্থারাইটিসের আশঙ্কা- শরীরের মধ্যে থাকা কিছু উপকারি রাসায়নিকের মাত্রা কমতে থাকে। ফলে জয়েন্টের কর্মক্ষমতা কমে যায়। সেখান থেকে আর্থারাইটিসের আশঙ্কা বাড়ে।
    উদ্বেগ বাড়ে- দাঁড়িয়ে পানি পান করলে নার্ভ উত্তেজিত হয়ে যায়। উদ্বেগ বাড়তে থাকে।
    কিডনি ক্ষতিগ্রস্থ হয়- দাঁড়িয়ে পানি পান করলে কিডনির কর্মক্ষমতা কমে। কিডনি ড্যামেজের সম্ভাবনা থাকে।
    G.E.R.D রোগ শরীরে বাসা বাঁধে- দাঁড়িয়ে পানি পান করলে তা সরাসরি ইসোফেগাসে গিয়ে ধাক্কা মারে। এরফলে পাকস্থলীর ভেতরের সরু নালিটি মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। যার ফলে গ্যাস্ট্রো ইসোফেগাল রিফ্লাক্স ডিজিজ বা G.E.R.D এর মতো রোগ শরীরে বাসা বাঁধে।

পানি পান করার সঠিক নিয়ম- বসে পানি পান করুন । ছোট ছোট চুমুকে জল খান।

সচেতন থাকলেই এই অভ্যাস আমরা সহজেই করে ফেলতে পারি। থাকতে পারি সুস্থ, সতেজ।

এই বিভাগের আরো খবর

চুলপড়ার যত সমস্যা চুল কেন পড়ে?

এ প্রশ্ন আজ আমাদের প্রায় সবার। এই চুলপড়া রোধে সারা বিশ্বে বছরে প্রায় ১ বিলিয়নেরও বেশি ডলার খরচ হয়। নানা উপায়ে আমরা চুলপড়া রোধ করতে চাই। অনেক রকমের ইনফেকশন, বিভিন্ন রোগ, ওষুধের ব্যবহার এবং খাদ্যের ভিন্নতার কারণে সাধারণত চুল পড়ে যায়। কিন্তু গবেষকরা গবেষণার মাধ্যমে নিশ্চিত হয়েছেন যে, ৯৫ ভাগ চুল পড়ার কারণ জিনগত। বাবা কিংবা মা অথবা দু’জনের কাছ থেকে আগত জিনই নির্ধারণ করে দেয় কখন আমাদের চুল পড়বে। এই অবস্থাকে বলা হয় অ্যানড্রোজেনিক অ্যালোপেসিয়া এবং অ্যানড্রোজেন অর্থাৎ পুরুষদের হরমোন এই সমস্যার জন্য দায়ী।

 গবেষকরা বিশ্বাস করেন, চুল পড়ার জন্য চুলের গোড়ার বা ফলিকলে একটি এনজাইম তৈরি হয়, যার নাম ফাইভ আলফা রিডাকটেজ। এই এনজাইম রক্তে অতিবাহিত হরমোন টেস্টোটেরনকে ডাই হাইপ্রোটেস্টস্টেরনে পরিণত করে। যার আরেক নাম ডিএইচটি। ডিএইচটি চুলের গোড়ায় আক্রমণ চালায় এবং চুল দুর্বল করে ঝরে পড়তে সাহায্য করে। পুরুষদের চুল সাধারণত সামনের দিকে পড়ে এবং টাকে পরিণত হয়। আর মহিলাদের পুরো মাথার চুলই এককভাবে পড়ে এবং পাতলা হয়ে যায়। মহিলাদের শরীরে অ্যারোমাটেজ নামে এক প্রকার এনজাইম তৈরি হয় যা ডিএইচটিকে ইস্ট্রোজেনে পরিণত করে। এতে কিছু হলেও মহিলাদের চুল রক্ষা পায়। চুল পড়ার রাসায়নিক কারণ খুবই জটিল।

 চুলপড়া রোধে এবং নতুন চুল গজানোর জন্য মাথায় অনেক সময় নানারকম ভিটামিন ও ভেষজ নির্যাসযুক্ত তেল দেয়া হয়। এ ছাড়া ড্রাকোনিয়ান পদ্ধতিও ব্যবহার করা হয়। এই পদ্ধতিতে চুলের গোড়ায় মৃদু ইলেকট্রিক শক দেয়া হয়। এতে নতুন চুল গজাতে সাহায্য করা হয়। কিছু কিছু শ্যাম্পু ও জেল ব্যবহারে চুল ঘন দেখায়। নানা ভেষজ গুণসম্পন্ন এসব দ্রব্য চুলের গোড়ায় পুষ্টি সরবরাহ করে।

তাছাড়া চুলের জৌলুস বাড়িয়ে দেখতে ভালো দেখায়। চুলের জন্য ব্যয়বহুল চিকিৎসা গ্রহণের আগেই আমরা চুলের কিছু নিজস্ব যতœ নিয়ে দেখতে পারি। প্রতি একদিন অন্তর অন্তর চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলা দরকার। অবশ্যই সেই শ্যাম্পু দিয়ে, যা আপনার চুলের জন্য উপযোগী। বন্ধু-বান্ধবের কথায় বা চটকদার বিজ্ঞাপনে মুগ্ধ না হয়ে নিজের উপযোগী শ্যাম্পু নিজের পছন্দ করাই ভালো। গবেষকরা জানান, ঘন ঘন শ্যাম্পু করার ফলে চুলের গোড়ায় জমে থাকা সাবান ও তৈলাক্ত পদার্থ থাকে, যাতে ডিএইচটি তা ধুয়ে যায়।

 আগেই বলা হয়েছে, ডিএইচটি চুল ঝরে পড়াকে ত্বরাম্বিত করে থাকে। আবার এভাবে চুল ধোয়ার পর প্রথম দিকে আপনার মনে হতে পারে, চুল বোধহয় আগের তুলনায় বেশি ঝরে যাচ্ছে। কিন্তু না, শুধুমাত্র সেই চুলগুলো ঝরে যাচ্ছে, যার গোড়া আলগা হয়ে আছে এবং দু-একদিনের মধ্যেই ঝরে পড়তো। ভেজা চুল বেশি আঁচড়ানোর কারণে এবং ঘষাঘষির কারণেও চুল বেশি পড়তে পারে।

এ ব্যাপারে সাবধান হওয়া দরকার। চুলের স্বাস্থ্যের সাথে শরীর ও মনের স্বাস্থ্যও অনেকাংশে জড়িত। আপনি কেমন খাবার গ্রহণ করছেন, তার ওপরে আপনার চুলের স্বাস্থ্য নির্ভর করে। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় পরিমাণগত শাক-সবজি, ফল যথেষ্ট পরিমাণে অর্থাৎ ভিটামিন ও মিনারেল সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করা প্রয়োজন। এ ছাড়া অতিরিক্ত ডায়েট কন্ট্রোল চুল পড়ার কারণ হতে পারে। এ ক্ষেত্রে নিউট্রিশনিষ্ট কিংবা ডায়েটিশিয়ানের পরামর্শ নেয়া যেতে পারে। এ ছাড়া মানসিক চাপ এবং অন্যান্য ওষুধ গ্রহণের ফলে চুল ঝরে যাচ্ছে কিনা এ ব্যাপারে লক্ষ্য রেখে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেয়া উচিত।
ডা: মিনহাজুল হক (পলাশ)
চর্ম, যৌন, এলার্জি, লেজার ও কসমেটিক্স বিশেষজ্ঞ
এমবিবিএস (ঢাকা), এমপিএইচ;ডিডি (থাইল্যান্ড)
ফেলো, লেজার ও স্কীন সার্জারী (থাইল্যান্ড)
এক্স ডার্মাটোলজিস্ট, ইন্সটিটিউট অব ডার্মাটোলজি, ব্যাংকক
ফোন: ০১৮৬৫০৫৫৮০০

ফর্সা বাচ্চা চাইলে গর্ভাবস্থায় যা খাবেন

লাইফ স্টাইল ডেস্ক: আমাদের দেশের সব গর্ভবতী মায়ের একই প্রত্যাশা, তিনি যেন একটি সুস্থ, সুন্দর ও ফর্সা সন্তানের জন্ম দিতে পারেন। এ জন্য গর্ভবতী মা প্রচলিত সব নিয়ম-কানুন মেনে চলেন। তারা গর্ভাবস্থায় নানা রকম সাদা খাবার খান, এই ভেবে যে এতে তার গর্ভের সন্তান ফর্সা হবে। যদিও অনেকেই আমাদের মধ্যে শিক্ষিত, তারপরও ফর্সা বাচ্চার চাহিদা মনের গভীরে রয়েই যায়।


বিশেষজ্ঞদের মতে, খাদ্যনির্বাচনের উপর সন্তানের শরীরের বর্ণ কেমন হবে তা নির্ভর করে না, এটা নির্ভর করে তার বাবা-মায়ের কাছ থেকে যে জিন পেয়েছে তার উপর। তবে প্রচলিত ধারণা রয়েছে, গর্ভবতী অবস্থায় যেসব খাবার গ্রহণ করা হয়,তার ওপর বাচ্চার বর্ণ নির্ভর করে। এতে বাচ্চা ফর্সাও হতে পারে!আর আপনারও যদি দৃঢ় বিশ্বাস থাকে এসব পুরাণ কথায়, তাহলে এসব সাদা খাবার আপনার খাদ্য তালিকায় যোগ করতে পারেন।


যদিও এসব খেয়ে বাচ্চার রঙ ফর্সা হবে এমন নিশ্চিয়তা কোনও চিকিৎসকই দিতে পারেননি। তবে আপনিও যদি ওই পুরনো কথা বিশ্বাস করেন, তাহলে গর্ভাবস্থায় ওইসব খাবার খেয়ে দেখতে পারেন। তাহেল দেরি কেন আসুন জেনে নিই ওই খাবারগুলো কী, যা খেলে সন্তানের রঙ ফর্সা হবে?নারিকেল ঃ আপনি যদি ফর্সা বাচ্চা চান, তাহলে নারকেলের সাদা শ্বাসটা খাওয়ার অভ্যেস করুন। কারণ সাদা শ্বাস বাচ্চা ফর্সা হতে সাহায্য করে।


জাফরান-দুধ ঃ অনেক নারী গর্ভাবস্থায় কেশর দুধ খান। তাদের বিশ্বাস যে কেশর সন্তানকে ফর্সা হতে সাহায্য করে। কেশর গর্ভে বেড়ে ওঠা বাচ্চার ত্বকের বর্ণ উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।দুধ : গর্ভাবস্থায় প্রতিটি নারীর উচিত বেশি করে দুধ খাওয়া। দুধ বাড়ন্ত ভ্রুণের সুগঠনের জন্য অবশ্যই দরকার।ডিম ঃ বাচ্চার রঙ ফর্সার জন্য চতুর্থ থেকে ষষ্ঠ মাসের মধ্যে ডিমের সাদা অংশ খাওয়া উচিত।


বাদাম ঃ আপনি যদি ফর্সা সন্তান চান, তাহলে গর্ভাবস্হায় শুকনো বা ভেজানো আলমন্ড বাদাম খান। অনেকেই বিশ্বাস করেন, বাদাম মিশ্রিত দুধ গায়ের রঙ পরিষ্কার করতে সাহায্য করে, তাই গর্ভাবস্থায় খাওয়া উচিত।ঘি ঃ গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব নারীর খাবারের মধ্যে ঘি-এর মাত্রা বেশি থাকে তাদের প্রসব যন্ত্রণা কম হয়। ওদিকে প্রচলিত চিন্তাধারা অনুযায়ী, ঘি ভ্রুণের বর্ণ উজ্জ্বল করতে সহায়ক। তাই তেলের জায়গায় ঘি খান।


মৌরি ঃ  মৌরি ভেজানো জল ত্বকের বর্ণ উজ্জ্বল করতে খুব কার্য্যকরি। গর্ভবতী নারীদের রোজ সকালে ৩ মিলি মৌরি ভেজানো জল খাওয়া উচিত। এতে অবশ্য গা বমি ভাবটাও অনেকটা কেটে যায়।কমলা লেবু ঃ গর্ভাবস্থায় রসাল ফলের মধ্যে কমলালেবু অবশ্যই খাওয়া উচিত। এটি ভিটামিন সি-এ ভর্তি, যা বাড়ন্ত বাচ্চার পক্ষে খুব ভালো এবং ত্বকের রঙ উজ্জ্বল করতেও সহায়ক।

প্রেগন্যান্সিতে ডায়েটিং ও এক্সারসাইজ সন্তানের জন্য ক্ষতিকর

আজকাল ইয়ং নারীদের শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণ করা ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। কেউ চান না শরীরে বাড়তি মেদ। তাই নারীরা বুঝে হোক না বুঝে হোক প্রেগন্যান্সিতেও ওজন কমাতে চেষ্টা করেন। বিশেষজ্ঞগণ গবেষণায় দেখেছেন, যারা প্রেগন্যান্সিতে ডায়েটিং ও এক্সারসাইজ করেন তাদের প্রিম্যাসিউর ডেলিভারি, সন্তানের ওজন কম হওয়াসহ দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। তাই যারা সন্তান নিতে চান তাদের অবশ্যই মনে রাখা দরকার গর্ভস্থ সন্তানের জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব হলে সন্তানের নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই কোনো অবস্থাতেই গর্ভাবস্থায় ডায়েটিং করা উচিত নয়। বরং গর্ভাবস্থায় মায়ের অধিক পুষ্টিসম্পন্ন     

বর্ষায় ঘরে ভেজা জামাকাপড় ডেকে আনছে বিপদ

বর্ষায় এমনিতেও হাজারো ভোগান্তি। তারমধ্যে যদি ভেজা জামাকাপড় ঘরে মিলতে হয় তাহলে বিপদ বাড়ছে আরও কয়েকগুণ। কারণ স্যাঁতস্যাঁত ঘরই রোগের আতুঁরঘর। সর্দি-কাশি-হাঁপানির মতো ক্রনিক রোগের ডিপো। শহুরে জীবনে বেশিরভাগই এখন ফ্ল্যাট বাড়ির বাসিন্দা। ভাড়া বাড়িতে থাকলেও অনেকক্ষেত্রেই ছাদের মালিকানা  থাকে গৃহকর্তারই। তাই জামা কাপড়  কাচার পর তা ঘরেই শুকোতে বাধ্য হন গৃহিনীরা। আর এখানেই তৈরি হচ্ছে বিপদ।

ত্বকের রোগ
ঘরে ভিজে কাপড় শুকোলে ঘরের আর্দ্রতার পরিমাণ বেড়ে যায়। স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশে মহানন্দে বেড়ে ওঠে নানা ধরণের ছত্রাক, যা ত্বকের ওপর হামলা চালায়। দেখা দেয় দাদ, চুলকানি, একজিমার  মতো বিভিন্ন সংক্রামক রোগ।

এলার্জি
স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশে জন্ম নেয় এক ধরণের ছত্রাক।যা থেকে শরীরে নানারকমের এলার্জি হতে পারে।

সর্দি-কাশি-হাঁপানি
আর্দ্র ,জোলো পরিবেশ শরীরের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা কমিয়ে দেয় ক্রনিক সর্দি,কাশির শিকার হতে হয় রোগীকে

শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা
স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশ থেকে জন্ম নেওয়া ব্যাকটেরিয়া হামলা চালায় শ্বাসনালীতে। দেখা দেয়  শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা

হাঁপানি
দীর্ঘদিন ধরে ড্যাম্প ঘরে থাকলে ক্রনিক অ্যাজমার  শিকার হতে পারেন আপনি

তাই বর্ষায় ঘরে ভিজে জামাকাপড় শুকোতে দেবেন না। কষ্ট করে বাইরে মেলুন। কারণ চিকিত্সকরা বলেন, স্যাঁতস্যাঁত ঘর মাত্রই রোগের আঁতুরঘর।

মোবাইলে সারাক্ষণ টেক্সট করলে কী হয় জানেন?

ফোনটা হাতে নিয়ে সারাক্ষণ খুট খুট। স্মার্টফোন এখন আমরা কল করার থেকে বেশি মেসেজ বা চ্যাটের মাধ্যমে কথা বেশি বলি। কিন্তু সারাক্ষণ ফোনে টেক্সট বা মেসেজ লেখা আমাদের শরীরে কী প্রভাব ফেলতে পারে জানেন? অতিরিক্ত মেসেজ লিখে কথাবার্তা বলা আমাদের শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর। চিকিত্‌সকরা এমনটাই বলছেন। কিন্তু এর ফলে কী ধরণের ক্ষতি হতে পারে আমাদের?

এই প্রসঙ্গে একজন অর্থপেডিক চিকিত্‌সক বলছেন, অতিরিক্ত পরিমানে মেসেজ লিখলে, আমাদের হাত এবং আঙুলের কাজ বেশি হয়। এর ফলে হাতের বিভিন্ন অসুখ হতে পারে। কব্জির অসুখ হতে পারে। এছাড়াও আমাদের হাত বিভিন্নরকমভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে এর ফলে। তাই হাতের অসুখ থেকে বাঁচতে অতিরিক্ত পরিমানে মেসেজ করা বন্ধ করুন।

 

চির যৌবন ধরে রাখতে চান? কী করবেন জেনে নিন

বয়স বেড়ে যাক, এটা বোধহয় কেউই চান না। তার থেকেও মানুষ বেশি যেটা চায় না, সেটা হল চেহারায় বয়সের ছাপ পড়াটা। আর তাই, সবসময় চেষ্টা চলে নিজের যৌবন চিরকাল ধরে রাখতে। কিন্তু সেটা তো সহজ কাজ নয়। বয়স বাড়বেই আর বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চেহারায় বয়সের ছাপও পড়বে। তবে গবেষকেরা জানাচ্ছেন, কিছু নিয়ম মেনে চললে আপনি চির যৌবন ধরে রাখতে পারবেন। জানেন কীভাবে?

গবেষকেরা বলছেন, মদ্যপান করলে খুব তাড়াতাড়ি আপনার চেহারায় বয়সের ছাপ পড়ে যায়। মদ্যপান করলে চেহারায় রিঙ্কল দেখা দেয়। আর তার ফলে আপনাকে বয়সের তুলনায় বেশি বয়ষ্ক মনে হয়। তাই চির যৌবন ধরে রাখতে মদ্যপান বা মদ খাওয়া আপনাকে একেবারেই ছেড়ে দিতে হবে।

সম্প্রতি একটি নতুন গবেষনা থেকে গবেষকরা জানাচ্ছেন, বয়স জনিত সমস্যা যেমন, ডায়াবেটিস , ক্যানসার , বিভিন্ন কার্ডিওভ্যাসকুলার রোগ , স্মৃতিভ্রংশ প্রভৃতি আরও বেশি পরিমানে দেখা দিতে পারে মদ খাওয়ার ফলে। একটি পরীক্ষা করা হয়েছিল। যেখানে দেখা গিয়েছে, যাঁরা মদ্যপান করেছেন, তাঁদের তুলনায় যাঁরা মদ্যপান করেননি তাঁরা অনেক বেশি এই সমস্ত রোগের থেকে দূরে রয়েছেন। অর্থাত্‌, তাঁরা এই সমস্ত রোগে কম বয়সে আক্রান্ত হননি।

তাই, এরপর থেকে থেকে মদ্যপান করার আগে ভাবুন আপনি কি নিজের চির যৌবন ধরে রাখতে চান? নাকি চান না।

পলিআর্থারাইটিসের লক্ষণ ও কারণগুলি জেনে নিন

 পলিআর্থারাইটিস এক ধরণের আর্থারাইটিস । এই অসুখ সমস্ত বয়সের মানুষদের মধ্যেই হতে পারে। পলিআর্থারাইটিসের লক্ষণ এবং কারণগুলি জেনে নিন- পলিআর্থারাইটিস সমস্ত বয়সের মানুষের মধ্যেই দেখা দিতে পারে। পলিআর্থারাইটিসের অন্যতম কারণ হল চিকুনগুনিয়া । চিকুনগুনিয়ার জ্বরের প্রভাবে হতে পারে পলিআর্থারাইটিস । এছাড়া, কিছু ভাইরাল ইনফেকশনের কারণেও এই অসুখ হতে পারে।

পলিআর্থারাইটিসের ফলে গাঁটে অসহ্য যন্ত্রণা দেখা দেয়। এর ফলে ওজন কমে যাওয়া এবং জ্বরও দেখা দেয়।

কীভাবে চিকিত্‌সা করবেন পলিআর্থারাইটিসের?

যদিও পলিআর্থারাইটিসের সঠিক কোনও চিকিত্‌সা নেই। পলিআর্থারাইটিসের অন্যান্য লক্ষণগুলির চিকিত্‌সার মাধ্যমেই এর চিকিত্‌সা হয়।

পলিআর্থারাইটিসের ফলে গাঁটে অসহ্য যন্ত্রণা দেখা দেয়। এর জন্য ব্যাথা কমানোর ওষুধ এবং অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি মেডিসিন এবং সাপ্লিমেন্ট এই যন্ত্রণা কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া, গরম শেঁকও ব্যাথা যন্ত্রণা কমাতে সাহায্য করে।

চেহারার অনুপাতে ভুঁড়ি বাড়ছে? সাবধান!

আপনি রোগা ?  দিব্যি আছেন? কিন্তু চেহারার অনুপাতে ভুঁড়ি বাড়ছে? সাবধান! রোগা চেহারায় ভুঁড়ি ডেকে আনতে পারে হার্টের রোগ। কোপ পড়তে পারে ডায়াবেটিসের। ডেকে আনতে পারে অকাল মৃত্যু। রোগার ভুঁড়িতেও ভয়।

শরীরে অতিরিক্ত মেদ মানেই অশনিসঙ্কেত। আর ভুঁড়ির বিপদ তো আরও সাঙ্ঘাতিক। বিশেষজ্ঞদের দাবি, ডায়াবেটিস থেকে হার্ট অ্যাটাক, এমনকি অকাল মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। কানাডার কিউবিকের লাভাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ কার্ডিওলজির সাম্প্রতিক গবেষণায় উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

ওজন স্বাভাবিক। কিন্তু অস্বাভাবিক ভুঁড়ি। এমন মানুষের অকালে মৃত্যুর সম্ভাবনা ওবেসিটিতে ভোগা রোগীর থেকেও বেশি। এই সব মানুষের হাই কোলেস্টেরল, হার্টের রোগ, স্ট্রোক ও ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা বেড়ে যায় কয়েক গুণ। হিপ এরিয়ায় মেদের থেকেও ভুঁড়ি আরও বেশি বিপজ্জনক। বয়স ও উচ্চতা অনুযায়ী ওজন ঠিক থাকলেও পুরুষদের কোমর ৪০ ইঞ্চির বেশি হলে অকাল মৃত্যুর সম্ভাবনা ৮৭ শতাংশ বেড়ে যায়। বয়স ও উচ্চতা অনুযায়ী ওজন ঠিক থাকলেও মহিলাদের কোমর ৩৪ ইঞ্চির বেশি হলে অকাল মৃত্যুর সম্ভাবনা ৫০ শতাংশ বেড়ে যায়।
বাড়িতে খুব সহজেই বানিয়ে ফেলুন ‘ম্যাঙ্গো আইসক্রিম’

ওজন কমাতে কী না করছেন। নিয়মিত ওয়ার্ক আউট থেকে ডায়েট কন্ট্রোল। শরীরের অন্য অংশ থেকে মেদ হয়ত ঝরছে। বয়স ও উচ্চতা অনুযায়ী ওজনও স্বাভাবিক। কিন্তু ভুঁড়ি কমছে না। বিপদ। মারাত্মক বিপদ। বাঁচার উপায় কী?

বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ, দিন শুরু করতে হবে প্রোটিন দিয়ে। প্রতিটি খাবারে থাকতে হবে প্রোটিন। সোডা, ফলের জুস, কোল্ড ড্রিঙ্কস এড়িয়ে চলাই ভাল। ময়দাজাত খাদ্যবস্তু এড়িয়ে চলতে হবে। সার্ডিন ও সলোমন মাছ খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। শোওয়ার ঘরকে আওয়াজমুক্ত রাখতে হবে। রাতে ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমোতেই হবে।

কিডনি থেকে ক্যানসার, হার্ট থেকে হাড়, অব্যর্থ দাওয়াই টম্যাটো

কিডনি থেকে ক্যানসার। হার্ট থেকে হাড়। অব্যর্থ দাওয়াই টম্যাটো। রোজ একটা করে টম্যাটো খান। রান্না হোক বা কাঁচা। স্যুপ বা স্যালাড। গুণে টইটম্বুর টম্যাটো।

টম্যাটো ক্যানসার প্রতিরোধক। হার্টকে শক্তিশালী করে। হাড় মজবুত করে। রাতকানা রোগ সারায়। চুল পড়া কমায়। কিডনিতে পাথর জমে না। ওজন কমায়। বাতের ব্যথা কমায় টম্যাটো। ত্বক থাকে টানটান। হাই ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণ করে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে। ডিহাইড্রেশন রোধ করে। ডিপ্রেশন কমায় টম্যাটো।

কাঁচা খান। তরকারিতে দিয়ে খান। মাছ, মাংস, ডিম রান্নায় টম্যাটো দিন। স্যালাড খান। স্যুপে দিয়ে খান। চাটনি খান। আচার খান। যেভাবে খুশি, সেভাবে খান টম্যাটো। পুষ্টিতে ভরপুর।

ভিটামিন A, C, K, B6, ফলেট, পটাসিয়াম, থায়ামিন, নায়াসিন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, কপার, ফাইবার।

কী নেই টম্যাটোয়। শরীরের পুষ্টি পূরণে যা যা থাকা দরকার, সব আছে টম্যাটোয়। বেশি করে আছে।

ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে টম্যাটোর বিকল্প নেই।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে প্রতিদিন সকালে খেতে হবে একটি করে টম্যাটো।

টম্যাটো, সেলারি, গাজর ও চাল। সঙ্গে পরিমাণ মতো নুন। এই সবজি চাল স্যুপ হেপাটাইটিস নিরাময়ে কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

টম্যাটো কেটে রস করে একটু চিনি মিশিয়ে মুখে মাস্ক হিসাবে ব্যবহার করা যাতে পারে। ত্বক থাকবে মসৃণ। মুখে পড়বে না বয়সের ছাপ।

মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল বাড়ায় টম্যাটো। নিয়মিত টম্যাটো খেলে স্ট্রোকের আশঙ্কা কমে যায়। রক্ত জমাট বাঁধা প্রতিরোধ করে টম্যাটো। ফলে, হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়।

টম্যাটোর লাইকোপেন ও ভিটামিন A অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণ করে। অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ফ্রি রেডিকেলস দূর করে। ক্যানসারের ঝুঁকি কমিয়ে দেয়। টম্যাটোর কারণে DNA সহজে ক্ষতিগ্রস্ত হয় না।

ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে টম্যাটো দেহের শর্করার মাত্রা বজায় রাখে। চিকিত্সকরাই বলছেন, প্রতিদিন একটা করে টম্যাটো মাস্ট। যখন তখন ছুটতে হবে না ডাক্তারের কাছে। ওষুধ খেতে হবে না কাঁড়ি কাঁড়ি।

বগুড়ায় প্রথম বারের মত খাদ্য নালীতে স্টেন্ট স্থাপন

ডা. মো. নাইমুল হাসান: খাদ্যনালীতে স্টেন্ট (জালের ন্যায় পাইপ বা রিং) স্থাপনের মাধ্যমে বগুড়ায় এই প্রথম খাদ্যনালীর ক্যান্সারের সফল চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।শহিদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজী বিভাগের সহকারি অধ্যাপক ডাঃ মোঃ নাইমুল হাসান সফল চিকিৎসা সম্পন্ন করেছেন। গত ২৭ এপ্রিল রাতে বগুড়া শহরের পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে খাদ্যনালীর ক্যান্সারের বিনা অপারেশনে এই চিকিৎসা দেওয়া হয়।


জয়পুরহাটের দো‘গাছি গ্রামের লতিফা বেগম (৫০) দীর্ঘদিন ধরে খাদ্যনালীর ক্যান্সারে ভুগছিলেন। প্রায় ১ মাস ধরে তার খাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। পরে ডাঃ মোঃ নাইমুল হাসান তাকে দেখেন এবং কোন রকম কাটা ছাড়াই বা অজ্ঞান না করে এন্ডোসকপি মেশিনের সাহায্যে স্টেন্ট স্থাপন করেন। ৪৫ থেকে ৬০ হাজার টাকার মধ্যে এধরনের চিকিৎসা করা সম্ভব বলে জানান ডাঃ মোঃ নাইমুল হাসান। তিনি জানান স্টেন্ট স্থাপন করতে তার প্রায় ২০ মিনিট সময় লেগেছে এবং চিকিৎসার পরপরই রোগি খাবার খেতে পারছেন।

গ্রীষ্মকালের ৩ টি ফেস প্যাক, যা ত্বককে করবে ফর্সা

প্রকৃতিতে চলছে রোদ বৃষ্টির খেলা । এই প্রচন্ড রোদ্দুর তো এই ঝুম ঝুম বৃষ্টি। মেঘলা আবহাওয়া দেখে অনেকে হয়ত সানব্লক না মেখেই বেরিয়ে গেলেন, আর গন্তব্যে পৌঁছানোর পূর্বেই দেখলেন গনগনে সূর্যের আগমন। কী আর করা, রোদে পুড়ে ট্যান পড়ল ত্বকে। চিন্তা নেই এর উপায়ও প্রকৃতিতেই আছে।

 

গ্রীষ্মকাল এমন সব উপকারী ফল নিয়ে আসে যা দেহ-মনে প্রশান্তি নিয়ে আসে এক নিমিষে; সেই সাথে ত্বকের যতেœও তারা অদ্বিতীয়। আজ রয়েছে এমন ৩ টি ফেসপ্যাক, যেগুলো গরমে আদর্শ, যার উপকরণ ভীষণ প্রতুল, বানাতেও কম সময় লাগে আর ত্বকে এনে দেয় চমৎকার দ্যুতি।


তরমুজের প্যাক ঃ গ্রীষ্মের তপ্ত দুপুরে ঠান্ডা এক গ্লাস তরমুজের রস যেন যে কোনও কিছুকে হার মানায়। তৃষ্ণা মেটাতে ও শরীরের ক্লান্তি মেটাতে সক্ষম এ তরমুজের রস ত্বকের জন্যও সমান উপকারী। এর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ভিটামিন ও মিনারেল আমাদের ত্বককে রাখে ফ্রেশ, প্রাণবন্ত ও হাইড্রেটেড। একটি বাটিতে এক কাপ পরিমাণ তরমুজের টুকরো নিন, টুকরো গুলো যেন বীজহীন হয়। এবার এগুলো কে এমন ভাবে চটকে নিন যাতে সব রস বেরিয়ে না যায়। তারপর এই প্যাকটি মুখে লাগিয়ে ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন। ১০ মিনিট পর প্যাকটি হাত দিয়ে পরিষ্কার করে ফেলুন, পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলবেন না। এভাবে আধ ঘণ্টা রাখতে পারেন। ৩০ মিনিট পর নরমাল পানিতে ধুয়ে ফেলুন। এতে করে আপনার ত্বকের ক্লিনিজিং ও টোনিং দুটোই হয়ে যাবে।


পাকা আমের প্যাক ঃ আর কিছুদিন পর বাজারে প্রচুর পাকা আম পাওয়া যাবে। আম খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি স্বাস্থ্যের জন্যও খুব ভালো। এর ভিটামিন, মিনারেল ও ফাইবার শরীরের জন্য দারুন উপকারী। আম ভিটামিন এ এর অনেক বড় উৎস। ভিটামিন এ ত্বক, চুল, চোখ ও নখের জন্য ভীষণ দরকারি। ভিটামিন এ ত্বককে ফর্সা ও উজ্জ্বল করে তোলে, সেই সাথে ত্বকে এনে দেয় মসৃণতা ও লাবণ্য যা সহজে যায় না। ভিটামিন এ এর অভাবে ত্বক নির্জীব মনে হয় আর অল্প বয়সেই বয়সের ছাপ পড়ে যায়। আম এক নাগাড়ে একনে, পিম্পল, রোদে পোড়া দাগ, ব্রণের দাগ, যে কোনও কাল দাগের বিরুদ্ধে কাজ করে। নিয়মিত ব্যবহারে এ সব সমস্যা থেকে পরিত্রাণ মিলতে পারে সহজেই।


এক টুকরা আম বা কিছু আমের পাল্প ব্লেন্ড করে ত্বকে ১৫ মিনিটের জন্য ব্যবহার করুন । আর স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করতে চাইলে আমের টুকরাটি পুরো মুখে বুলিয়ে নিন। তারপর ভালো করে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন । নিয়মিত ব্যবহারে মনে হবে আপনি যেন আপনার নতুন স্কিন পেয়ছেন। কোনও রকম পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়াই মাত্র ১৫ মিনিটে পেয়ে যাবেন ত্রুটিহীন সুন্দর অবয়ব।


পেঁপে-আনারসের প্যাক ঃ আনারসের রস যে কোনও দাগ ও ব্রণ সারাতে সাহায্য করে আর পাকা পেঁপে রঙ উজ্জ্বল করে। এ দুটি উপাদান একসাথে মিশে কার্যকর ফল দিতে পারে। আনারস ও পেঁপে গরম কালে দারুন সহজলভ্য।
-১ কাপ ফ্রেশ আনারস কুচি-১/২ কাপ পাকা পেঁপে-১ টেবিল চামচ মধু
ব্লেন্ডার পদ্ধতি ব্লেন্ডারে পরিমাণ মত আনারস ও পেঁপে ভালো ভাবে চটকে নিন। তারপর এতে মধু দিন, আবার মেশান। ঠিকমত হয়ে গেলে পরিষ্কার হাতে ভালো মত মুখে লাগিয়ে নিন। খেয়াল রাখবেন যেন চোখের চারপাশে না যায়। ১৫-২০ মিনিট পর পর্যায়ক্রমে কুসুম গরম পানি ও ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।


এবার টোনার ও ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। এই গরমেও ত্বকের সৌন্দর্য বজায় রাখতে নিয়মিত ত্বকের যতœ নিন, বেছে নিন যে কোনও একটি ফেস প্যাক কিংবা একেক সপ্তাহে একেকটা ব্যবহার করেও দেখতে পারেন। তবে যেটি আপনাকে বেশি স্যুট করবে সেটিই চালিয়ে নেয়া উচিত। সবাই ভালো থাকবেন এবং সবার পাশাপাশি নিজের যতœ নিতেও ভুলবেন না । সূত্র ঃ অনলাইন।

স্বাস্থ্যকর যে ৬টি জুস প্রতিদিন পান করবেন

ফলের রস স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। অনেকেই সকালের নাস্তায় ফলের রস পান করে থাকেন। বাইরের প্যাকেটজাত ফলের রসের পরিবর্তে ঘরে তৈরি করা ফলের রস বেশি নিরাপদ এবং স্বাস্থ্যকর। তবে ভাল ফল পেতে এতে চিনি মেশানো থেকে বিরত থাকুন। কিছু ফলের রস যা প্রতিদিন পান করা উচিত। এমন কিছু স্বাস্থ্যকর ফলের রস ৫জেনে নিন।


গাজর, আদা এবং আপেল: অনেকে শুধু গাজর অথবা আপেল রস পান করে থাকেন। এর পরিবর্তে গাজর, আদা এবং আপেল একসাথে মিশিয়ে পান করুন। এটি কমপক্ষে সপ্তাহে একবার পান করুন।

শশা এবং আপেল: একটি বা দুটি শসা এবং একটি ছোট আকৃতির আপেল একসাথে মিশিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন। শসাতে ৯০% পানি। এটি প্রাকৃতিকভাবে শরীর হাইড্রেইড এবং ঠান্ডা করে থাকে। এছাড়া শসাতে ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম এবং স্যালিকা আছে যা ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে।


গাজর, পালং শাক এবং আপেল: দুটি গাজর, দুই কাপ পালং শাক, একটি আপেল, একটি শশা এবং এক ইঞ্চি আদা কুচি দিয়ে ফলের রস তৈরি করে নিন। গাজর ভিটামিন এ, সি, ডি এবং ফলিক অ্যাসিড রয়েছে। এছাড়া এতে রয়েছে পটাশিয়াম, সোডিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম এবং কপার। এর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান ত্বকে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা হ্রাস করে।


জাম্বুরার রস: অর্ধেকটা জাম্বুরার রস, আধা কাপ ব্লুবেরিস এবং আধা কাপ ঠান্ডা গ্রিন টি একসাথে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে রস তৈরি করে নিন। এটি আমাদের মেটাবলিজমকে ধীর করে থাকে। এবং কাজের শক্তি প্রদান করে।আনারস, আপেল এবং তরমুজ ঃ তরমুজ, আনারস এবং আপেল একসাথে ব্লেন্ডারে রস তৈরি করে নিন। এটি শরীর থেকে অতিরিক্ত পানি বের করে দিতে সাহায্য করে।


করলা, কলা এবং দুধ: করলা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। কিন্তু এর তেতো স্বাদের জন্য অনেকেই করলা খেতে পারেন না। তারা করলা, কলা এবং দুধ একসাথে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে রস করে নিতে পারেন। এতে করলার তেতো ভাব অনেকটা কেটে যাবে। অতিরিক্ত গরমও কাটাতে সাহায্য করবে এটি।

পরিশ্রমজনিত শ্বাসকষ্ট

অধ্যাপক ডা: ইকবাল হাসান মাহমুদ : পরিশ্রমজনিত শ্বাসকষ্ট শতকরা ১২ থেকে ১৫ ভাগ মানুষকে আক্রান্ত করে চলেছে। এর লক্ষণের মধ্যে রয়েছে বুকের মাঝে আড়ষ্টভাব, ছোট করে শ্বাস নেয়া, শ্বাসের সাথে সাঁ সাঁ শব্দ হওয়া ক্লান্তি এবং ব্যায়ামের পর সুস্থ হতে অনেক লম্বা সময় লাগা। রোগ নির্ণয় নির্ভর করে প্রকৃত ইতিহাস, শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং ফুসফুসের কার্যকারিতা পরীক্ষার উপর। রোগীকে ব্যাপক স্বাস্থ্য শিক্ষা দেয়া এ রোগের চিকিৎসায় খুবই প্রয়োজনীয় দিক। স্বল্পমেয়াদী বিটা-২ এগোনিস্ট ইনহেলারের মাধ্যমে আমরা সাধারণত চিকিৎসা করে থাকি।


 প্রদাহ রিরোধী ঔষধ যেমন ক্রোমলিন সোডিয়াম, নেডোক্রোমিল সোডিয়াম এবং স্টেরয়েড ইনহেলার এ রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় রোগের অন্তর্নিহিত সমস্যা দূর করার জন্য। যদিও আমরা মুখে সেব্য থিওফাইলিন অথবা সালবুটামিল জাতীয় ঔষধ প্রয়োগ করি তবুও তার ভূমিকা পরিষ্কার নয়। যদি এ রোগ নির্ণিত না হয়ে থাকে তখন এ ব্যায়ামজনিত হাঁপানি, যা কিনা খুবই প্রচলিত। তাতে দেখা যায়, শ্বাসনালীতে সাময়িক বাধা যেটা সচল জীবনযাপনকে বাধাগ্রস্ত করে। কারণ কয়েক মিনিট ব্যায়ামের পরেই শুরু হয়ে যায় শ্বাসকষ্ট।

 

 কিন্তু যখন রোগটিকে চিহ্নিত করা হয় এবং ভালোমত চিকিৎসা করা হয় তখন চিকিৎসার সুফলে রোগীর জীবনযাত্রার ব্যাপক স্বাচ্ছন্দ্য ঘটে। ১৯৮৪ সালের আমেরিকান অলিম্পিকের দলে ৫৯৭ জনের মধ্যে ৬৭ জনেরই (১১.২%) ব্যায়ামজনিত হাঁপানি ছিল। অথচ খেলোয়াড়দের মধ্যে ৪১ জনই সেই খেলায় পদক জয় করেছিল এই হাঁপানি নিয়েই। তাদের ব্যাপক সাফল্য সবাইকে বুঝিয়ে দিয়েছিল যে, সুষ্ঠুভাবে এবং পরিকল্পনামাফিক চিকিৎসা নিয়ে একজন হাঁপানি রোগীও পারে অলিম্পিক সোনা জয় করতে।


এখন প্রশ্ন আসে পরিশ্রমজনিত শ্বাসকষ্ট কতটুকু প্রচলিত? এ রোগে জনসমষ্টির একটি বড় অংশ আক্রান্ত হয়। যাদের হাঁপানি আক্রমণের অভিজ্ঞতা রয়েছে তাদের মধ্যে শতকরা ৯০ ভাগ রোগী তাদের রোগাক্রান্ত জীবনে এটার মুখোমুখি হয়েছে এবং অনেক হাঁপানি রোগীই ধারণা করেন যে, পরিশ্রমই তাদের হাঁপানি আক্রমণের সূত্রপাত ঘটিয়েছিল।


এ ছাড়া শতকারা ৩৫ থেকে ৪০ ভাগ রোগী যাদের এ্যালার্জিজনিত নাকের প্রদাহ রয়েছে তারা এ সমস্যায় আক্রান্ত হয়। কিছু এ্যালার্জেন, ভাইরাস, ঠান্ডা বাতাস, বায়ু দূষণ অথবা এ সবগুলো একসাথে মিলে এটা ঘটাতে পারে। সাধারণ জনগোষ্ঠীর মাঝে যারা হাঁপানি রোগী হিসেবে নির্ণিত হয়নি এবং যাদের কোনো এ্যালার্জিজনিত শ্বাসরোগ নেই তাদের মাঝে ব্যায়ামজনিত হাঁপানির সংখ্যা খুব কম। যেমন : মাত্র ৩% থেকে ১০%। মানুষের কর্মক্ষম সময়ের জীবনে এ রোগের হার শতকরা ৩ থেকে ১২ ভাগ উঠানামা করে।

 হাঁপানি একটি শ্বাসতন্ত্রের বাধাজনিত রোগ যেখানে শ্বাসনালীতে প্রদাহ এবং প্রচন্ড সংবেদনশীলতা থাকে। শ্বাসনালীতে বাধা প্রভাবিত হয় শ্বাসনালীর দেয়াল ফুলে, মোটা হয়ে গেলে, আঁঠালো মিউকাস তৈরি হতে থাকলে, শ্বাসনালীর নরম মাংসের খিচুনি হলে, বাধাটি শুরু হতে পারে। প্রদাহজনিত ঘটনা শ্বাসনালীতে ঘটলে বিশেষত প্রদাহের মাধ্যমে বা মিডিয়েটরস মাস্ট সেল, মেক্রোফেজ এবং ইপিথেলিয়াল কোষ থেকে নিঃসরিত হলে। শ্বাসনালীর অতি সংবেদনশীলতা হলো বিভিন্ন ধরনের এ্যালার্জেন, পরিবেশ উত্ত্যক্তকারী বস্তু, শ্বাসতন্ত্রের ভাইরাস সংক্রমণ, ঠান্ডা বাতাস এবং ব্যায়ামের কারণে।


শ্বাসতন্ত্রের বাধা যদি ব্যায়ামের জন্য হয়ে থাকে তখনই তাকে ব্যায়ামজনিত হাঁপানি বলে। এ ধরনের হাঁপানির কারণ বহুবিধ। যদিও এর কারণ অনেকগুলো আবিষ্কৃত হয়েছে তবুও এ রোগের ব্যাপারে পুরোপুরি ধারণা হয় যে, শ্বাসনালীর বাধা যা কিনা পরিশ্রমজনিত শ্বাসকষ্টে তৈরি হয় তার সম্পর্ক রয়েছে তাপমাত্রার উঠানামার উপর।

 

পরিশ্রম বা পরিশ্রমের পর অতিমাত্রায় শ্বাস গ্রহণের ফলে শ্বাসনালীর উপরের অংশ কিছুটা অক্ষম হয়ে পড়ে শ্বাস নেয়া বাতাসকে শরীরের তাপমাত্রার সঙ্গে সমান করতে এবং ১০০% আর্দ্রতা প্রদান করতে। তাপ এবং পানিকে টেনে নেয়া হয় শ্বাসনালীর কোষগুলো থেকে যাতে করে শ্বাস নেয়া বাতাসকে গরম এবং আর্দ্র রাখা যায়। তার ফলে শ্বাসতন্ত্রের কোষগুলোতে পানির ঘাটতি থাকে এবং শ্বাসনালী ঠান্ডা থাকে।


এ রোগের চিকিৎসার লক্ষ্য হলো একজন রোগীকে পরিশ্রমকালীন অবস্থায় সম্পূর্ণ শ্বাসকষ্ট মুক্ত রাখা। চিকিৎসা শুরু করতে হয় এমন ধারায়, যাতে করে শারীরিক অবস্থানকে ঔষধের প্রতি বেশি নির্ভর না করেও হাঁপানি আক্রমণের হারকে কমানো যায়। উষ্ণ, আর্দ্র পরিবেশ অর্থাৎ উষ্ণ এবং আর্দ্র হাওয়ায় শ্বাসগ্রহণ ব্যায়ামজনিত হাঁপানির চিকিৎসা উন্নতি সাধন করে এবং রোগীর ভালো হওয়ার সম্ভাবনাকে উজ্জ্বল করে। ব্যায়ামের সময় একটি ফেস মাস্ক ব্যবহার করলে শ্বাসের সময় নেয়া বাতাস উষ্ণ এবং আর্দ্র থাকে বিশেষত যখন ব্যায়ামের সময় বাইরের অবস্থান ঠান্ডা এবং শুকনো থাকে।


 মুখ দিয়ে শ্বাস না নিয়ে বরং নাক দিয়ে শ্বাস নিলে বাতাস উষ্ণ এবং আর্দ্র থাকবে। ওষুধ ব্যবহার করে চিকিৎসার উদ্দেশ্য হলো হাঁপানির শুরুটাকে বাধা দেয়া এবং ব্যায়ামের পর যাতে শ্বাসকষ্ট শুরু না হয়। বিভিন্ন ধরনের ওষুধ আছে যেগুলো দিয়ে শ্বাসনালীকে প্রসারিত করাএবং প্রদাহ বিরোধী কাজ সম্পন্ন করা যায়। ওষুধগুলোর মধ্যে আছে বিটা এগোনিস্ট, ক্রোমনিল, সোডিয়াম, নেডোক্রমিল সোডিয়াম এবং স্টেরয়েড, যেগুলোর ইনহেলারের মাধ্যমে প্রয়োগ করা হয় এবং এ ছাড়া রয়েছে মুখে সেব্য থিওফাইলিন।

 

বিটা এগোনিস্ট ওষুধের মধ্যে রয়েছে সালবুটামল টারবুটালিন সালফেট এবং সালমেটেরল। যাই হোক, স্বল্পমেয়াদী বিটাএগোনিস্ট ওষুধই হলো পরিশ্রমজনিত হাঁপানি প্রতিরোধে কার্যকর ওষুধ, যা কিনা ৮০% থেকে ৯৫% রোগীর বেলায় কার্যকর। এই ওষুধটি ইনহেলারের মাধ্যমে ব্যায়ামের ১৫ মিনিট পূর্বে নিতে হয়। এই ওষুধটির কর্মক্ষমতা তিন থেকে ছয় ঘন্টা থকে।


 এর মধ্যে ব্যায়ামের সময় যদি হাঁপানির লক্ষণ দেখা দেয় তবে অতিরিক্ত দুই পাফ নেয়া যাবে। ক্রোমলিন এ রোগের চিকিৎসায় খুবই কার্যকর যদিও পরিশ্রমের ১০ থেকে ৪৫ মিনিট পূর্বে ইনহেলারের সাথে নেয়া হয়। নেডোক্রোমিল সোডিয়াম একটি প্রদাহ বিরোধী ইনহেলার যা কিনা এখন ব্যাপকভাবে এ রোগে ব্যবহৃত হচ্ছে।

 

এর কার্যকারিতা ক্রোমলিনের মতোই এবং ব্যায়ামের পূর্বে গ্রহণ করতে হয় এটা খুবই কার্যকর সেসব রোগীর সাথে যাদের পালামোনারি ফাংশন পরীক্ষা স্বাভাবিক থাকে। নেডোক্রোমিল এবং বিটা এগোনিস্ট এক সাথে প্রয়োগ করলে খুবই ভালো ফল পাওয়া যায়। স্টেরয়েড ইনহেলার হাঁপানির লক্ষণকে যথেষ্ট কমায় প্রদাহ বিরোধী তৎপরতার মাধ্যমে।

 

 যদিও এর তাৎক্ষণিক শ্বাসনালী প্রসারক কাজ নেই এবং ব্যায়ামের পূর্বে শুধু এটা একা গ্রহণ করে তেমন কোনো কাজ পাওয়া যাবে না। এটাকে বরং সবসময়ের জন্য ব্যবহার চালিয়ে যেতে হবে হাঁপানি দমনের জন্য। মুখে সেব্য থিওফাইলিন কয়েক যুগ ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটার কিছু পার্শ¦ প্রতিক্রিয়া থাকা সত্ত্বেও এটি একটি কার্যকর ওষুধ।

কর্মক্ষেত্রে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের কিছু সতর্কতা মানা উচিৎ

করতোয়া ডেস্ক: সুস্থ গর্ভবতী মায়ের কাজ করতে নিষেধ নেই। ভারী কাজ বা কঠোর শারীরিক পরিশ্রম ছাড়া স্বাভাবিক যেকোনো কাজই তিনি করতে পারেন। তবে কর্মক্ষেত্রে অন্তঃসত্ত্বা নারীদের কিছু অসুবিধার মুখে তো পড়তেই হয়। তাই এ বিষয়ে কিছু সতর্কতার প্রয়োজন।
* একটানা বেশিক্ষণ একই ভঙ্গিতে বসে বা দাঁড়িয়ে থাকবেন না। বসে কাজ করতে হলেও মাঝে মাঝে উঠে একটু হাঁটাহাঁটি করা ভালো। বসে থাকার কারণে অনেকেরই পায়ে পানি আসে, সে ক্ষেত্রে বসার সময় পা রাখার টুল বা টেবিল ব্যবহার করা ভালো।
* কাজের সময় বুঝে বিশ্রামের একটা নিয়ম করে নিন। গর্ভাবস্থায় রাতে আট ঘণ্টা এবং দুপুরের দিকে দু-তিন ঘণ্টা বিশ্রাম প্রয়োজন।
* অনেকেরই সকালে উঠে বমিভাব বা বমি হয়। তাড়াহুড়ায় অফিস যাওয়ার সময় বিপত্তি হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে সকালে উঠে অল্প একটু শুকনো খাবার খেয়ে বাসা থেকে বেরোনো উচিত। স্বাস্থ্যকর নাশতা খাবেন। ভাজাভুজিতে সমস্যা বাড়বে। একবারে খেয়ে খারাপ লাগলে বারবার অল্প করে খেতে পারেন।
* নিয়মিত বিরতিতে খাবার খেতে হবে। দুবার খাওয়ার মাঝে তিন ঘণ্টার বেশি বিরতি দেওয়া যাবে না। পেট খালি থাকলে বমি হওয়ার প্রবণতা বেশি হয়।
* বাড়ি থেকে খাবার সঙ্গে নেওয়া ভালো। মুড়ি, চিড়া, বিস্কুট বা এ ধরনের শুকনো খাবার রাখতে পারেন। বাইরের ভাজাপোড়া ও তেল-মসলাসমৃদ্ধ খাবার খাওয়া উচিত নয়। পর্যাপ্ত প্রোটিন এবং আয়রন ও ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার রাখুন।
* পর্যাপ্ত পানি পান করুন। অফিসে বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা না থাকলে বাসা থেকেই নিয়ে আসুন।
* ঢিলেঢালা পোশাক পরে অফিসে কাজ করাটা আরামদায়ক।
* উঁচু জুতা বা হাই হিল পরা ঠিক নয়।
* খুব বেশি দূরের যাত্রা না করাই ভালো। যেসব যানবাহনে অতিরিক্ত ঝাঁকি লাগে, সেগুলো এড়িয়ে চলুন। আর যেকোনো বাহনেই সাবধানে বসতে হবে, যেন পড়তে যাওয়ার ঝুঁকি না থাকে। এবড়োখেবড়ো রাস্তা এড়িয়ে চলুন।
* অফিসের পরিবেশ পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা প্রয়োজন। খোলামেলা, পর্যাপ্ত বাতাসসমৃদ্ধ পরিবেশ গর্ভবতী মায়ের জন্য ভালো। নিজের পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার দিকেও খেয়াল রাখুন। কাজের মাঝেও কখনো কখনো বমি হতে পারে। এটা স্বাভাবিক ব্যাপার।
* অতিরিক্ত কাজের চাপ নেবেন না। হাসিখুশি থাকুন। মানসিক চাপ এড়াতে হালকা কিছু ব্যায়াম করতে পারেন।

সুন্দর ত্বক পেতে দিনের শুরুতেই কিছুটা সময় ব্যয় করা দরকার

করতোয়া ডেস্ক: সৌন্দর্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটের প্রতিবেদনে জানানো হয়, সুন্দর ত্বক পেতে দিনের শুরুতেই কিছুটা সময় ব্যয় করা দরকার।ত্বক পরিষ্কার করুন: দিনের শুরুতে কোমল ক্লিনজার দিয়ে ত্বক পরিষ্কার করা উচিত। এমন ক্লিনজার বেছে নিন যা ত্বক শুষ্ক করবে না বরং আর্দ্রতা বজায় রেখে পরিষ্কার করবে। সকালে ঘুম কাটাতে মুখে ঠা া পানির ঝাপটা দিন। তবে মুখ পরিষ্কার করতে কুসুম গরম পানি ব্যবহার করা যেতে পারে।


অন্তত একদিন এক্সফলিয়েট করুন: ত্বকের মৃত কোষ এবং জমে থাকা ধুলাবালি পরিষ্কার করতে সপ্তাহে একদিন স্ক্রাবার ব্যবহার করা যেতে পারে। ভেজা ত্বকে স্ক্রাবার লাগিয়ে হালকাভাবে মালিশ করে ধুয়ে ফেলুন এতে ত্বকের উপরের পরত পরিষ্কার হয়ে দীপ্তি ফিরে আসবে।টোনার ব্যবহার ঃ ক্লিনজার ব্যবহারের পরের ধাপ টোনার। যাদের ত্বক তৈলাক্ত তাদের জন্য টোনার অপরিহার্য। কারণ এতে ত্বকে তেল কম তৈরি হয়। তবে টোনার বাছাইয়ের সময় খেয়াল রাখতে হবে তা যেন অবশ্যই অ্যালকোহল মুক্ত হয়।

 
সিরাম ব্যবহার: সিরাম এমন এক ধরনের প্রসাধনী যাতে লোশন বা ক্রিমের তুলনায় পুষ্টি উপাদানের ঘনত্ব বেশি থাকে। আর হালকা হওয়ায় ত্বক সহজে শুষে নিতে পারে। চামড়ার উজ্জ্বলতা বাড়ানোর পাশাপাশি তারুণ্য ধরে রাখতেও সিরাম বেশ উপযোগী।ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার ঃ বছরের যে কোনো সময় এবং সব ধরনের ত্বকের জন্যই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা জরুরি। মেইকআপ যেন দীর্ঘক্ষণ সুন্দর থাকে তার জন্যও ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।
সানস্ক্রিন: মৌসুম যাই হোক না কেন, ত্বককে সূর্যের আলো থেকে সুরক্ষিত রাখতে ঘর থেকে বের হওয়ার আগে অবশ্যই সানস্ক্রিন ক্রিম লাগিয়ে নিতে হবে।

হার্টের রিংয়ের মূল্য সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা

কার্ডিয়াক বা হার্টের রোগীদের জন্য প্রয়োজনীয় করোনারি স্টেন্ট বা রিংয়ের মূল্য সর্বনিম্ন ২৫ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা নির্ধারণ করতে যাচ্ছে জাতীয় ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর।

এখন পর্যন্ত অধিদফতরের কাছে মাল্টিলাইন ভ্যাক্সিন, রেবিল, প্রিমিয়ার এলিমেন্ট ও ওরিয়েন্ট এক্সপোর্ট নামে ৪টি প্রতিষ্ঠান তাদের করোনারি স্টেন্টের মূল্য প্রস্তাব করেছে। যেখানে নন মেডিকেটেড স্টেন্টের সর্বনিম্ন মূল্য ২৫ হাজার টাকা ও মেডিকেটেড স্টেন্টের মূল্য দেওয়া হয়েছে ৫০ হাজার টাকা। ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মে. জে. মোস্তাফিজুর রহমান গতকাল মঙ্গলবার অধিদফতরে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, আরও যে ২১টি কোম্পনি ৪৭ ধরনের স্টেন্ট আনে, তারা এখনও কোনো মূল্য প্রস্তাব করেনি। ভারতে একটি স্টেন্টের মূল্য ৭ হাজার ২ রুপি, যা বাংলাদেশি অর্থে ৮ হাজার ৯০০ টাকা হয়। সেখানে বাংলাদেশে স্টেন্টের মূল্য বেশি সম্পর্কে তিনি বলেন, ভারতে উৎপাদন করা হয়। আর বাংলাদেশে পুরোটাই আমদানি নির্ভর। এর আগে করোনারি স্টেন্ট বা হার্টের রিংয়ের খুচরা মূল্য নির্ধারণে গত ১১ এপ্রিল মতবিনিময় সভায় সব পক্ষের প্রতিনিধিদের নিয়ে কমিটি গঠন করে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর। ওই সভায় ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মে. জে. মুস্তাফিজুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের স্বাস্থ্য পরিচালক, স্বাচিপের সভাপতি ডা. ইকবাল আর্সনালসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

অভিযোগ রয়েছে, দেশের কয়েকটি হাসপাতালে ১৮ হাজার টাকার হার্টের রিং দেড় লাখ টাকা থেকে শুরু করে আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা হচ্ছে। কিছু অসাধু চিকিৎসকদের কমিশন বাণিজ্যের কারণেই রোগীদের কাছ থেকে এ বাড়তি মূল্য নেওয়া হচ্ছে। ফলে রিংয়ের মূল দামের চেয়ে ১০ গুণেরও বেশি দিতে হচ্ছে গ্রাহককে।

হাঁটু ইন্জুরি -ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি

ডা : এম নজরুল ইসলাম বকুল:গত সপ্তাহে হাঁটু ইন্জুরির আই ডিকে এবং কোলেটারাল ইনজুরি নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। তার ধারাবাহিকতায় আজ হাঁটুর ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইন্জুরি নিয়ে আজ আলোচনা করব।
ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট কি?
মানবদেহে দুটি ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট আছে যথা এন্টেরিয়র ক্রুসিয়েট এবং পোষ্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট। এমন দেখতে দুটো লিগামেন্ট যেন ক্রস (+) চিহ্নের মতো মনে হয় তাই এদেরকে বলা হয় ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট। এই দুই লিগামেন্ট খুবই পুরু, প্রচন্ড শক্ত ব্যান্ড যা ফিমার এবং টিবিয়ার মাঝে কঠিন বন্ধন তৈরী করেছে। এরা “নী” জয়েন্টের এ্যান্টেরিয়র এবং পোষ্টেরিয়র ষ্ট্যাবিলিটি বা মজবুত অবস্থান নিশ্চিত করে।

এন্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি (এসিএল ইন্জুরি): এসিএল ইন্জুরির অন্যতম প্রধান কারণ বাইরের দিকে ঘুরে গিয়ে হাঁটু ভাঁজ অবস্থায় হঠাৎ এ্যাবডাকশন হলে অথবা হাইপার এক্সটেনশন অবস্থায় হাঁটু যদি ভিতরের দিকে ঘুরে যায়। এটা এত মারাত্মক ইন্জুরি যে হাঁটু সন্ধি সাথে সাথে কলাপ্স হয়ে অচল এবং প্রচন্ড ব্যথা অনুভূত হয়। পটাস করে শব্দ হওয়া কিংবা পপশব্দ আঘাতের সময় শোনা গেলে বুঝে নিতে হবে এসিএল ইন্জুরি হয়েছে।

লক্ষণ/উপসর্গ:
আঘাতের নির্দিষ্ট ঘটনা থাকবে। রোগী বলবে প্রচন্ড আঘাতের সময় “পটাস” করে শব্দ শোনা গেলো। তার পরই পায়ে ভর দেওয়া সম্ভব হয়নি। হাঁটু সাথে সাথে মারাত্মক ফুলে যায় এবং তীব্র এবং অসহ্য ব্যথা অনুভূত হয়। আংশিক ইন্জুরিতে হাঁটু নড়াচড়া করালে ব্যথা আরো তীব্রতা বাড়ে; হাঁটুতে চাপ দিলে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়। সম্পূর্ণ ইন্জুরিতে অস্বাভাবিক নড়াচড়া হয় তবে ব্যথা কম থাকে। লিগামেন্ট ইন্জুরিতে হাঁটুতে চাপ দিলে’ ময়দার ভেজা দোলা” বা ডাউয়ি ফিলিং অনুভূত হয়’ হাঁটুর উপরের চামড়া কালচে বরণ ধারণ করে। দেরীতে রোগী হাঁটু সন্ধি মনে যে ছুটে যাবে অথবা ঘুরে যাবে এমন তথ্য দেয়। তবে আঘাতের সাথে সাথে রোগীর স্থানীয় শারীরিক পরীক্ষা বেশ কষ্টদায়ক। অনেক সময় লিগামেন্ট আংশিক না সম্পূর্ণ হলো তা আলাদা করা কঠিন।

 যদিও আংশিক ইন্জুরিতে অস্বাভাকি সন্ধির মুভমেন্ট হয় না কিন্তু মুভ করাতে গেলে তীব্র ব্যথা হয়। অন্য দিকে কমপ্লিট ইন্জুরির ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক সন্ধি মুভমেন্ট হয় তবে ব্যথা কম থাকে। এই সন্দেহ নিশ্চিত করণের জন্য রোগীকে অবশ্যই অজ্ঞান বা অবশ করে পরীক্ষা করতে হবে। আঘাত প্রাপ্ত রোগীর পরীক্ষার ক্ষেত্রে সবসময় প্রথমে ভাল হাঁটু তারপর আঘাত প্রাপ্ত হাঁটুর পরীক্ষা করতে হবে। ক্লিনিক্যাল পর্যবেক্ষণের ফলাফল অন্যান্য লিগামেন্ট, কিংবা মিনিস্কাস ইন্জুরি অথবা অস্থির সংশ্লিষ্টতার উপর নির্ভর করে। যৗথ ইন্জুরির উপর নির্ভর করে জয়েন্ট ষ্ট্যাবিলিটি কতখানি এবং কোনদিকে পরিবর্তিত হয়েছে। এন্টেরিয়র ডিসপ্লেসমেন্ট অব টিবিয়া সহজেই অনুভব করা যায়।
জয়েন্টের পরীক্ষা (এসিএল ইন্জুরির ক্ষেত্রে)
এ্যান্টেরিয়র ড্রয়ার টেষ্ট- পজিটিভ হবে। ল্যাকম্যান টেষ্ট- পজিটিব হবে। পিভট শিফট টেষ্ট- পজিটিভ হবে।

পরীক্ষা নিরীক্ষা:
এক্সরে- এপি, লেটারাল ইন্টারকন্ডাইলারনচ্ভিউ, সানরাইজ ভিউ- করা হয়। এভ্যালশন ফ্রাকচার অব টিবিয়াল স্পাইন- এসিএল ইনজুরিতে ধরা পড়ে।
এমআরআই: সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি এসিএল নির্ণয়ের জন্য। সিটি স্ক্যান: সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রদান করে থাকে। আর্থোস্কোপি: এসিএল/পিসিএল আলাদাভাবে ইনজুরি হলে সেক্ষেত্রে খুবই ফলপ্রসু পদ্ধতি।
চিকিৎসা: আঘাতপ্রাপ্ত রোগী সাথে সাথে এলে আংশিক ইনজুরিতে মোটা নিডল দিয়ে রক্ত টেনে বের করা হয়। তারপর লংলেগ ব্যাক স্লাব দিয়ে পায়ের বিশ্রাম ৪ সপ্তাহ দেয়া হয়। তারপর হাঁটু ভাঁজ ও সোজা করার পরামর্শ দেয়া হয়। * ব্যথানাশক ওষুধ, মিনোলাক, ইটোকক্স  ইত্যাদি  দেয়া হয়। * এন্টি আলসারেন্ট -প্যারিসেল, জেলড্রিন ইত্যাদি দেয়া হয়। ৪ সপ্তাহ পর চষধংঃবৎ খুলে ফিজিওথেরাপি দেয়া হয়।
কমপ্লিট বা সম্পূর্ণ ইনজুরি হলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অপারেশন করে রিপেয়ার করা হয়।
সার্জিক্যাল চিকিৎসা: আঘাতপ্রাপ্তির সাথে সাথে এলে প্রাইমারী রিপেয়ার অপারেশন করা হয়। তবে অকৃতকার্য হওয়ার হার খুব বেশী প্রায় ৫০%।

দেরীতে রোগী এলে: রি-এনফোরসমেন্ট অব এসিএল অপারেশন করা হয়, এক্ষেত্রে ইলিও টিবিয়াল ব্যান্ড অথবা সেমিটেন্ডিনিসাস টেনডন ব্যবহার করা হয়।
রিকন্সষ্ট্রাকশন অপারেশন ইন্ট্রা আর্টিকুলার/ এক্সট্রা-আর্টিকুলার এক্ষেত্রে কোয়াড্রিসেপসটেনডন, প্যাটেলার টেনডন অথবা সেমিটেনডিনোসাস টেনডন ব্যবহার করা হয়।
এসিএল ইনজুরি হাঁটুর মারাত্মক লিগামেন্ট ইন্জুরি সাধারণত: যুবক বয়সী খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রে বেশী হয়। তাই এর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ। ইমারজেন্সী হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সঠিক চিকিৎসা না করালে মারাত্মক বিপর্যয় নেমে আসে। তাই সাবধান।

নাক ডাকা বন্ধ করতে

নাক ডাকার সমস্যা আছে এমন মানুষের সঙ্গে থাকলে আপনারও ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে। তবে এই সমস্যার রয়েছে সহজ সমাধান।স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৪৫ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে নাক ডাকার সমস্যা দেখা যায়। যখন গলার শিথিল পেশীতে কম্পন সৃষ্টি হয় তখন নাক দিয়ে শব্দ বের হয় অর্থাৎ নাক ডাকার শব্দ শোনা যায়। এটি মাঝে মাঝে শোয়ার ঝামেলার জন্য হতে পারে।

সমাধানের জন্য যা করতে পারেন-কক্ষের আর্দ্রতা: নাক ডাকার সম্ভাব্য কারণ হতে পারে ঘরের শুষ্ক বাতাস। এর ফলে অনুনাসিক ঝিল্লি বা ‘নেইজল মেমব্রেইন’ এবং কণ্ঠনালীতে বাতাস চলাচলে বাধা তৈরি করে। তখন এসব জায়গার কোষে কম্পন তৈরি হয় এবং নাক ডাকার শব্দ শোনা যায়। এই সমস্যা এড়াতে ঘরে ‘হিউমিডিফায়ার’ লাগাতে পারেন, এটি ঘরের আর্দ্রতা রক্ষা করবে।  


ওজন কমান: অতিরিক্ত ওজন নাক ডাকার অন্যতম কারণ। ওজন বেশি হলে গলায় অতিরিক্ত কোষ থাকার সম্ভাবনাও বাড়ে, যা নাক ডাকার সম্ভাবনা সৃষ্টি করে। গলায় যত বেশি প্রতিবন্ধকতা থাকবে বাতাস চলাচল ততবেশি বাধা পাবে। এটি কম্পনের সৃষ্টি অর্থাৎ নাক ডাকার কারণ। যোগব্যায়াম: ‘প্রাণায়াম’ একটি যোগব্যায়াম যা শ্বাসপ্রশ্বাস নিয়ন্ত্রণ করে। এই ব্যায়ামের মাধ্যমে দীর্ঘ ও ছোট শ্বাস নেওয়া শেখা যায়, যা ফুসফুসে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের প্রবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি সারা শরীরের রক্ত চলাচল নিশ্চিত করে। তাছাড়া নাক ডাকাসহ অন্যান্য ঘুমের সমস্যাও দূর করতে সাহায্য করে এই ব্যায়াম। ‘প্রাণায়াম’ চর্চার মাধ্যমে শরীর উজ্জীবিত হয় ও শক্তি বৃদ্ধি পায়।  
জিহবা ও গলার ব্যায়াম:

গলা ও জিহবার পেশী গঠনের মাধ্যমে নাক ডাকার সমস্যা দূর করা যায়। চর্চার মাধ্যমে এটি শক্তিশালী হয় এবং বিশ্রামের সময় এসব অঙ্গের শিথিল হওয়ার সম্ভাবনাও কমে। তাছাড়া বয়স বাড়ার সঙ্গে কোষের স্থিতিস্থাপকতা ও শক্তি হারায়। ফলে বাতাস চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যায়।ব্যায়ামের ধরন: – চোয়ালের নিচের অংশ দিয়ে উপরের চোয়াল ধরে দাঁত দেখানোর মতো করে দিনে সাত থেকে দশবার দশ পর্যন্ত গণনা করুন। – কিছু বলার মাধ্যমে ‘ঠোঁট, দাঁত, জিহবার ডগা’ ব্যবহার করুন, দিনে দশ থেকে বিশবার এটি চর্চা করুন।


 যতদূর সম্ভব জিহবা সোজা ভাবে রাখার চেষ্টা করুন। জিহবা ডানে ও বামে এমনভাবে নড়াচড়া করান যেন তা ঠোঁটের কোণায় স্পর্শ করে। তবে খেয়াল রাখবেন যেন সম্পুর্ণভাবে সোজা থাকে। এটি দিনে দুইবার চর্চা করুন। ধূমপান এড়িয়ে চলুন
আমরা সবাই জানি ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। ধূমপান হতে পারে নাক ডাকার জন্য দায়ী। কেননা এটি বাতাস চলাচলের পথে বাধার সৃষ্টি করে।মাথা উঁচু রেখে ঘুমান: ঘুমানোর সময় মাঝে মাঝে জিহবার কারণে গলা বাধা প্রাপ্ত হতে পারে অর্থাৎ বাতাস চলাচলে বাধা পায়।

এই সমস্যা এড়াতে ঘুমানোর সময় মাথার নিচে বালিশ ব্যবহার করুন, এটি বাতাস চলাচলের পথ উন্মুক্ত করে। ঘুমানোর আগে অ্যালকোহল ও ঘুমের ওষুধ পরিহার করুন
নাক ডাকার সমস্যা এড়াতে ঘুমানোর আগে অ্যালকোহল গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন। অ্যালকোহল গলার কোষ শিথিল করে ফলে জিহবা পিছনে পড়ে বাতাস চলাচলে বাধা দেয়। যা নাক ডাকার সৃষ্টি করে।


বালিশের ভারসাম্য রক্ষা: বালিশ খুব বেশি উঁচু বা নিচু হওয়া ঠিক নয়। ঘুমানোর সময় মাথা উঁচু থাকলে তা বাতাস চলাচলে সহায়তা করে। কিন্তু এই উচ্চতা যদি অনেক বেশি হয় তাহলে বাতাস চলাচলে বাধা দেয়। ফলে নাক ডাকার সৃষ্টি হয়। তাই খুব বেশিও উঁচু বা নিচু বালিশ ব্যবহার না করে মাঝারি ধরনের বালিশ ব্যবহার করা উচিত।
দুধ ও হলুদগুঁড়া: এক কাপ গরম পানিতে দুই টেবিল-চামচ হলুদগুঁড়া মিশিয়ে প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। এলাচগুঁড়া: এক কাপ গরম পানিতে এক বা দুই টেবিল-চামচ এলাচের গুঁড়া মিশিয়ে প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। এটি নাক ডাকা বন্ধ করতে সহায়তা করে।

শেষ কিন্তু একমাত্র নয়: নাক ডাকার সমস্যা নিদ্রাহীনতার কারণেও হতে পারে। যা জীবনের জন্যেও ক্ষতিকর। তাই যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।
হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য কোলেস্টেরল ভালো নয়। এই তথ্য প্রায় সবারই জানা। তবে ভালো কোলেস্টেরলের অভাবে হৃদযন্ত্রের কার্যক্রম বন্ধও হয়ে যেতে পারে।
-ইন্টারনেট

গ্যাস্ট্রিক সমস্যার কার্যকরী ৩টি ঘরোয়া সমাধান

আমরা যতো কাজকর্ম করি তার প্রধান উদ্দেশ্য কিন্তু খাওয়াই থাকে। কিন্তু অনেকেই আছেন এই কাজের ব্যস্ততায় খাওয়ার কথা ভুলে বসে থাকেন। সকালে তাড়াহুড়ো করে বের হতে গিয়ে সকালের নাস্তা না করা বা দুপুরে কাজের ব্যস্ততায় বিকেল গড়িয়ে খাবার খাওয়ার মতো কাজ অনেকেই অভ্যাসে পরিণত করে ফেলেছেন। এই অভ্যাসের পরিণতি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা। খাওয়ার সময় এবং খাবার একটু এদিক সেদিক হলেই প্রচন্ড ব্যথা হতে থাকে যাদের গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা রয়েছে।

এই বিষয়টি মোটেও অবহেলা করার মতো নয়। কারণ অবহেলার কারণেই সাধারণ গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা মারাত্মক আলসারের আকার ধারণ করে। তাই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাকে অবহেলা নয়। নিয়ম মেনে চলে এবং ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে সমস্যার সমাধান করা উচিত। তবে গ্যাস্ট্রিকের সাধারণ ব্যথা সমস্যার সমাধান কিন্তু আপনি ঘরেই করে নিতে পারেন। আজকে শিখে নিন এমনই কার্যকরী খুবই সহজ কিছু ঘরোয়া সমাধান।
দারুচিনির ব্যবহার :

দারুচিনি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানে বিশেষভাবে কার্যকরী। দারুচিনি অ্যাসিডিটি, পেটে ব্যথা এবং পেটের গ্যাসের সমস্যা সমাধান করে তাৎক্ষণিক ভাবেই।
১) কফি, ওটমিল কিংবা গরম দুধে দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে পান করুন, খুব দ্রুত ফলাফল পাবেন। তবে যদি দুধে সমস্যা থাকে তাহলে দুধ খাবেন না।
২) চাইলে পানিতে দারুচিনি গুঁড়ো ফুটিয়ে ছেঁকে মধু মিশিয়ে চায়ের মতো পান করতে পারেন। এতেও সমস্যার উপশম হবে।
বেকিং সোডার ব্যবহার :
বেকিং সোডার অ্যাসিডিক উপাদান পাকস্থলীর অতিরিক্তি অ্যাসিডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, গ্যাস দূর করে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার সমাধানে কাজ করে।
১) ১/৪ চা চামচ বেকিং সোডা ১ গ্লাস পানিতে ভালো করে গুলে নিন।
২) এই মিশ্রণটি পেটে সমস্যা অনুভূত হওয়ার সময়ে পান করে নিন। এতে দ্রুত ভালো ফলাফল পাবেন।
আদার ব্যবহার :
আদা গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা দূর করতে বিশেষভাবে কার্যকরী। আদার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান প্রদাহ ও গ্যাস্ট্রিকের ব্যথা উপশমে কাজ করে।
১) ২ কাপ পানিতে ১ টেবিল চামচ আদা কুচি একটু ছেঁচে দিয়ে ফুটাতে থাকুন।
২) পানি শুকিয়ে ১ কাপ হয়ে এলে এতে ১-২ চা চামচ মধু মিশিয়ে পান করুন, বেশ ভালো ও দ্রুত ফল পাবেন।
৩) চাইলে শুধু আদা লবণ দিয়ে চিবিয়ে খেয়ে দেখতে পারেন। এতেও অনেক উপকার হবে।
-ইন্টারনেট

দাঁতের রুটক্যানেল কেনো করাবেন কিছু তথ্য জেনে নিন

ডা: মো: সাব্বির মোস্তাক রহমান (ডুরেন): দাঁতের অবহেলা করতে করতে ক্ষতি যখন চরমে পৌঁছায় তখন দাঁত হয় ফেলে দিতে হয় নয়তো করাতে হয়ে রুট ক্যানেল। রুট ক্যানেলের ব্যাপারে অনেকের যেমন ভয় আছে, তেমনি আছে কিছু ভুল ধারণা। আসুন জেনে নেওয়া যাক রুট ক্যানলের ব্যাপারে কিছু দরকারি তথ্য।

-ঠান্ডা বা গরম খাবার খেলে দাঁতে বেশি অস্বস্তি হওয়া, কামড় দেবার সময়ে খচকরে ব্যথা, মাড়ি ফুলে যাওয়া বা দাঁতে প্রচন্ড ব্যথা হলে রুট ক্যানেল করার প্রয়োজন হতে পারে।-অনেকেই ভয় পান এই ভেবে যে রুট ক্যানেল করতে গেলে দাঁতে ব্যথা হবে। কিন্তু ডেন্টিস্ট রুট ক্যানেল করার সময়ে অ্যানেস্থেসিয়া দিয়েই কাজ শুরু করবেন, তাই ভয়ের কিছু নেই।

 বরং দাঁতের ক্ষতি হবার কারণে যে ভয়াবহ ব্যথা হয় তা কমাতে সক্ষম রুট ক্যানেল। রুট ক্যানেল করার পরে ব্যথা হলেও তা পেইন কিলার খেলেই অল্প সময়ের মাঝে চলে যায়। এই ব্যথাকে ভয় পাবার কিছু নেই। -রুট ক্যানেল করলে আর ক্ষতিগ্রস্ত দাঁত তুলে ফেলার দরকার হয় না। দাঁতটাকে জায়গামত রেখেই চিকিৎসা করা সম্ভব হয়। সাধারণ দাঁতের মতোই এই দাঁতও অনেকদিন টিকে থাকে।


-রুট ক্যানেলের পর সেই দাঁতে পুনরায় ইনফেকশনের সম্ভাবনা কমে যায়।
-বর্তমানে রুট ক্যানেলের চিকিৎসায় এমন উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহৃত হয় যাতে কোনো দাঁতের সমস্যা বাইরে থেকে বোঝা না গেলেও তা শনাক্ত করা সম্ভব।


-দাঁতের ব্যথার কারণে অনেক দিন ধরে চিবিয়ে খাবার কেতে পারেন না রোগী, রুট ক্যানেল করানোর পর চিবিয়ে খাওয়ার ক্ষমতা ফিরে আসে। রুট ক্যানেল পদ্ধতিটি বেশ লম্বা বটে, কিন্তু দাঁতের বেশি ক্ষতি হলে সবচাইতে ভালো চিকিৎসা এটাকেই ধরা হয়।-আপনি যদি রুট ক্যানেল কখনো করাতে না চান, তবে দাঁত এবং মাড়ির সঠিক যতœ নিতে হবে সব সময়।

হাঁটু ইন্জুরি

ডা : এম নজরুল ইসলাম বকুল : আই, ডি, কে, কি?হাঁটু সন্ধি বা নী জয়েন্ট মানব শরীরে অন্যতম জটিল এবং প্রচন্ড ষ্ট্রেসফুল জয়েন্ট। এ জয়েন্ট ফিমার এবং টিবিয়ার হিন্জ-জয়েন্ট এবং প্যাটেলা ও ফিমারের মাঝে স্যাডল-জয়েন্ট এর সমন্বয়ে গঠিত “জটিল সাইনোভিয়াল জয়েন্ট।” বাইরে এবং ভিতরে মাংসপেশী লিগামেন্ট, অস্থি, সাইনোভিয়াস, ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট এবং সর্বোপরি মিনিস্কাসের বিশাল উপাদান নিয়ে এ জয়েন্ট গঠিত। যদি কোন কারণে এই সুগঠিত সন্ধির ভিতরে বাইরে লিগামেন্ট-মিনিস্কাস কিংবা অস্থি দুর্ঘটনায় কবলিত হয়ে ব্যথা সহকারে অস্বাভাবিক নড়াচড়া বা এ্যাবনরমাল মুভমেন্ট হয় তবে তাকে “ইন্টারন্যাল ডির‌্যাঞ্জমেন্ট অব নী” বা আই, ডি, কে বলে থাকে।
কারণ কি? হাঁটু সন্ধির সু-স্থিরতা নির্ভর করে:
(১) জয়েন্টের যান্ত্রিক অক্ষরেখার উপর। (২) অস্থি দ্বারা গঠিত মনোরোম কাঠামোর উপর। (৩) সন্ধির অন্ত:স্থ মিনিস্কাস এবং দুইটি ক্রুসিয়েট লিগামেন্টের অবিচ্ছিন্নতার উপর। (৪) সন্ধির বহিস্থ: শক্ত কাঠামো যেমন সাইনোভিয়াস ক্যাপসুল, কোলেটারাল ২টি লিগামেন্ট, মাংস দেশী ও টেনডনের উপর।
যে কারণে হাঁটুর ইঞ্জুরি হয়:
(১) খেলোয়াড়দের- ফুটবল খেলতে গিয়ে অর্ধ-ভাঁজ হাঁটুতে সরাসরি আঘাত কিংবা শট নিতে গিয়ে হাঁটু মোচড় খেলে। (২) এ্যাথলেটসদের: সরাসরি একজনের সাথে আরেকজনের আঘাত অথবা পরোক্ষভাবে হাঁটু মোচড় খেয়ে ঘুরে গেলে। (৩) সড়ক যান দুর্ঘটনায় সরাসরি ড্যাসবোর্ড ইনজুরি। (৪) উঁচু স্থান থেকে পড়ে গিয়ে হাঁটু ঘুরে গেলে।
এসব ক্ষেত্রে যেবাবেই হোক না কেন কোলেটারাল লিগামেন্ট মেডিয়াল অথবা লেটারাল, ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট এন্টেরিওর অথবা পোষ্টেরিয়র, কিংবা মিনিস্কাস মিডিয়াল অথবা লেটারাল, এমনকি প্যাটেলা, টিবিয়াল কন্ডাইল/ ফিমোরাল কন্ডাইল পর্যন্ত ভেঙ্গে যেতে পারে।

 

আজ আমরা হাঁটু ইঞ্জুরির মেকানিজম সহ কো-লেটারাল লিগামেন্ট নিয়ে আলোচনা করবো। অন্যান্য বিষয়গুলো ধারাবাহিকভাবে আপনাদের জন্য তুলে ধরবো। নিম্নলিখিত কারণে এবং পদ্ধতিতে নী ইঞ্জুরি হয়। (১) হাঁটু ভাঁজ করা অবস্থায় শরীরের মধ্যখান থেকে দুরে গিয়ে ভিতরের দিকে ঘুরে গেলে অর্থাৎ এ্যাবডাকশন, ফ্লেকশন এবং ইন্টারন্যাল রোটেশন অব ফিমার যদি টিবিয়ার কন্ডাইলের উপরে হয়। সেক্ষেত্রে হাঁটুর ভিতরের পার্শ্বের অবকাঠামো যেমন মিডিয়াল কোলেটারাল লিগামেন্ট, মিডিয়াল ক্যাপসুল, মিডিয়াল মিনিস্কাস, আরো জোরের আঘাতে এ্যান্টেরিওর স্ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি হতে পারে।


(২) শরীরের মধ্যলাইনের কাছে এসে, হাঁটু ভাঁজ করা অবস্থায় বাইরের দিকে ঘুরে গেলে অর্থাৎ এ্যাডাকশন, ফ্লেকশন এবং এক্সটারনাল রোটেশন অব ফিমার যদি টিবিয়ার উপর ঘটে সেক্ষেত্রে লেটারাল হাঁটুর কাঠামো সমূহ যেমন- ফিবুলার কোলেটারাল লিগামেন্ট, লেটারাল ক্যাপসুল, আরকুয়েট কমপ্লেক্স, পপলিটিয়াস, ইলিও টিবিয়াল ব্যান্ড, বাইসেপসমাংস, কমন পেরোনিয়াল নার্ভ, এন্টেরিওর অথবা পোষ্টেরিওর অথবা উভয় ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইঞ্জুরি হতে পারে।
(৩) হাইপার এক্সটেনশন ফোর্স অর্থাৎ হাঁটু সন্ধি যদি উপরের দিকে অধিক বাঁকানোর ফোর্স কাজ করে, সেক্ষেত্রে এন্টেরিয়র অথবা পোষ্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ছিঁড়ে যায়। (৪) সামনে পিছনে জোরে আঘাতের কারণে স্থানচ্যুত হলে সেক্ষেত্রে হাঁটুর এ্যান্টেরিয়র অথবা পোষ্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ক্ষতিগ্রস্ত হবে।


কোলেটারাল লিগামেন্ট ইঞ্জুরি:
প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ আঘাতজনিত কারণে কোলেটারাল লিগামেন্ট ইঞ্জুরি হয়ে থাকে। তবে মিডিয়াল কোলেটারাল লিগামেন্ট বেশী পরিমাণে এবং বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে হয়ে থাকে। কারণ ‘ভালগাস ষ্টেস’ অর্থাৎ খেলোয়াড়দের হাঁটুর বাইরের দিকে আঘাত প্রাপ্ত হয় পরস্পরের সংঘর্ষের কারণে। ভ্যারাস ফোর্স অর্থাৎ ভিতরের দিকে আঘাতের কারণে লেটারাল কোলেটারাল লিগামেন্ট ইঞ্জুরি হয়। কিন্তু আরেক পায়ের সাপোর্ট থাকায় লেটারাল কোলেটারাল লিগামেন্ট ইঞ্জুরি খুবই কম হয়।
শ্রেণীভাগ: আমেরিকান মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশনের মতে লিগামেন্ট ইঞ্জুরি তিন গ্রেডের: (স্প্রেইন) এবং (স্ট্রেইন)
(র) ডিগ্রী: ন্যূনতম ছিঁড়ে যায়, স্থানীয় ব্যথা থাকে, কোনরূপ সন্ধি অ-স্থিরতা থাকে না, সন্ধি সেপারেশন ৫ মি. মি. এর কম।
(রর) ডিগ্রী: মাঝারী রকমের ছিঁড়ে যায়, ব্যথা থাকে, সন্ধি সু-স্থির সন্ধি- সেপারেশন ৫০-১০ মি মি এর বেশী থাকে।
(ররর) ডিগ্রী: পুরাপুরি লিগামেন্ট ছিঁড়ে যায়। সন্ধি অ-স্থিরতা উপস্থিত, জয়েন্ট সেপারেশন ১০ মি. মি. এর বেশী হয়।


লক্ষণ/ উপসর্গ:  যেহেতু মিডিয়াল কোলেটারাল লিগামেন্ট ইঞ্জুরি বেশী হয় এটা নিয়েই বলি। ভালগ্রাস এবং বাইরের দিকে ঘুরে গিয়েছে এরূপ একটা তথ্য রোগী দেয়। মারাত্মক আঘাতের ক্ষেত্রে সড়ক দুর্ঘটনা কিংবা খেলতে গিয়ে সরাসরি হাঁটুতে আঘাতের ঘটনা বলে। অনেক সময় মিনিস্কাস কিংবা এ্যান্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইঞ্জুরি থাকতে পারে। প্রচন্ড ব্যথা, সন্ধি: ফুলে যাওয়া এবং সন্ধিতে রক্ত জমা হওয়া দেখা যায়। চাপ দিলে টিবিয়াল কোলেটারাল লিগামেন্টের সংযোগ স্থলে জয়েন্ট লাইনে অথবা এ্যাডাক্টর টিউরাকলে ব্যথা অনুভূত হয়। ২০% ক্ষেত্রে প্যাটেলার লিগামেন্ট ছিঁড়ে যাওয়া অথবা প্যাটেলা ভেঙ্গে যেতে পারে।
ক্লিনিক্যাল কিছু টেষ্ট: (ঈষরহরপধষ ঞবংঃ)
(১) এ্যাবডাকশন ষ্ট্রেস টেষ্ট +াব –মিডিয়াল কোলেটারাল ইঞ্জুরি। (২) এ্যাডাকশন ষ্ট্রেস টেষ্ট +াব -লেটারাল কোলেটারাল ইঞ্জুরি। (৩) পষ্টেরিয়ার ড্রয়ার টেষ্ট +াব –পষ্টেরিওর ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইঞ্জুরি। (৪) এ্যান্টেরিয়ার ড্রয়ার টেষ্ট +াব –এ্যান্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি। (৫) ম্যাকমারি টেষ্ট +াব –মিনিস্কাস ইঞ্জুরি। (৬) ল্যাকমানস টেষ্ট +ঃাব –এ্যান্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইঞ্জুরি।
পরীক্ষা-নিরীক্ষা: এক্সরে: ষ্ট্রেস এক্সরে নী-এপি এন্ড লেটারাল ভিউ করলে অস্থি ভাঙ্গা আছে কিনা পাশাপশি লিগামেন্ট ইঞ্জুরি বোঝা যায়।
এমআরআই: পুরো সন্ধির সমস্ত কাঠামো সম্পর্কে ক্লিন কাট ধারণা পাওয়া যায়।
আর্থোসস্কোপি: এসিএল, পিসিএল, লেটারাল অথবা মিডিয়াল মিনিস্কাস ইঞ্জুরি পরিস্কার বোঝা যায়।


চিকিৎসা: জেনারেল প্রিন্সিপ্যাল: তাজা কেস অর্থাৎ ঘটনার পরপরই রোগী এলে (র) ¯েপ্রণ: ব্যথানাশক নন-ষ্টেরোয়েডাল এন্টি ইনফ্লামেটরী ওষুধ। -এন্টি আলসারেন্ট ওষুধ। -মাসল বিলাক্সান্ট ওষুধ। -এন্টি বায়োটিক ওষুধ প্রয়োগ করা হয়। -পায়ের বিশ্রাম -৩ সপ্তাহ। (রর)  ¯েপ্রণ: হাঁটু ২০-৩০০ ফ্লেকশন অবস্থায় লংলেগ ব্যাক গ্ল্যাব দিয়ে অনড় রাখা হয় ৪-৬ সপ্তাহ। এর সাথে ১০ স্প্রেনের চিকিৎসা পাশাপাশি চলবে। (ররর)  ¯েপ্রণ: অপারেশন। অপারেশনের মাধ্যমে ছেঁড়া লিগামেন্ট রিপেয়ার করা হয়।
 দেরীতে যদি রোগী আসে, সেক্ষেত্রে রিকন্সট্রাকশন অপারেশন ছাড়া বিকল্প কিছু নেই। লেটারাল কোলেটারাল লিগামেন্টের ইনজুরি হলে ফ্যাসা-ল্যাটা অথবা বাইসেপ মাসলের টেনডন দিয়ে রিকন্সট্রাকশন করা হয়। আর মিডিয়াল কোল্যাটারাল লিগামেন্টর ক্ষেত্রে হ্যামসষ্ট্রিং অথবা সেমিটেন ডিনোসাস টেনডন দিয়ে রিকন্সট্রাকশন করা হয়।
জটিলতা: হাঁটু একটি জটিল জয়েন্ট তাই এর ইনজুরিতে বড় ধরনের জটিলতা দেখা যায়। যেমন- জয়েন্ট ইন্ট্যাবিলিটি, জয়েন্ট ইফুসন ওষ্টিও আর্থ্রাইট্রিস ইত্যাদি।
কোলেটারাল লিগামেন্ট হোক সেটা লেটারাল কিংবা মিডিয়াল ইনজুরির সাথে সাথে চিকিৎসা করালে রোগী স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে পারে। তবে এসিএল, পিসিএল, মিনিস্কাস কিংবা ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট সহ ছিঁড়ে গেলে যত দ্রুত সম্ভব সার্জারী করাতে হবে নতুবা রোগীরা বড় ধরনের জটিলতায় পড়বে। তাই অপচিকিৎসা নয়, যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য অর্থোপেডিক সার্জনের পরামর্শ গ্রহণের আবেদন রইল এবং আগামী দিন অন্যান্য লিগামেন্ট কিংবা মিনিস্কাস ইনজুরি সম্পর্কে লেখার আশা রাখি ইনশাআল্লাহ।

পিল খাওয়ার পরও যে চারটি কারণে গর্ভধারণ হতে পারে

ডাঃ মোঃ হারুন আল মাকসুদ: অনাকাঙ্খিত গর্ভধারণ এড়াতে অধিকাংশ নারী জন্মবিরতিকরণ পিল ব্যবহার করেন। দাবি করা হয়, এসব পিল ৯৯.৭ শতাংশ নারীকে অনিচ্ছাকৃত গর্ভধারণ থেকে বাঁচায়। তবে পরীক্ষাগারের গবেষণায় কিন্তু এসব পিলের যথেষ্ট ব্যর্থতা পরিলক্ষিত হয়েছে।

দেখা গেছে, গর্ভনিরোধে এসব পিলের ব্যর্থতা ৯ শতাংশ। কিছু ক্ষেত্রে অন্যান্য ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় পিলের কার্যকারিতা নষ্ট হয়ে যায়। সবমিলিয়ে চারটি বিষয় বের করা হয়েছে যার ফলে জন্মবিরতিকরণ পিল কোনো কাজ করে না।

১. নিয়মিত না খাওয়া : নিয়মমতো পিল না খেলে এটি কাজ করবে না। অন্যান্য হরমোন কন্ট্রাসেপ্টিভের মতোই এসব পিল নারী দেহের সংশ্লিষ্ট হরমোনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। অধিকংশ পিল এস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্ট্রন হরমোনের সমন্বয়ে কাজ করে। পিল নিয়মিত না খেলে এসব হরমোনের ঘাটতি দেখা দেয়। ফলে নারীর ডিম্বাশয় আগের মতোই উর্বর হয়ে ওঠে বলে জানান ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার গাইনেকোলজির প্রফেসর ফিলিপ ডার্নে।


২. সময়মতো পিল না খাওয়া : বিজ্ঞানীরা ওরাল হরমোন ডোজকে নিরাপদ করতে গবেষণা চালিয়েছেন। প্রোজেস্টেরন-এস্ট্রোজেন পিলের কার্যকারিতা পেতে হলে ৬ ঘণ্টা থেকে ১২ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবহার করতে হবে। প্রোজেস্টেরন পিল ব্যবহার করতে হবে প্রতিদিনের ভিত্তিতে। একদিন বাদ পড়লে দেহে হরমোনের মাত্রা কমে যেতে পারে বলে জানান প্ল্যান্ড প্যারেন্টহুড অব আমেরিকার ভাইস প্রেসিডেন্ট ভেনেসা কুলিনস।


৩. বিশেষ চিকিৎসা অবস্থায় : কিছু বিশেষ চিকিৎসাপদ্ধতির জন্য এসব পিল কাজ করে না। যেমন- টিউবারকুলোসিসের জন্য রিফাডিন চিকিৎসা, গ্রিসেওফালভিনের জন্য অ্যান্টি-ফানগাল ড্রাগ ইত্যাদির ক্ষেত্রে পিল কার্যকারিতা দেখাতে পারে না। তাই চিকিৎসকদের এসব ওষুধ নেওয়ার ক্ষেত্রে পিলের বিষয়ে পরামর্শ দিতে হবে।৪. হার্বাল সাপ্লিমেন্ট : যেকোনো হার্বাল সাপ্লিমেন্টের কারণে গর্ভনিরোধক পিলের কার্যকারিতা নষ্ট হতে পারে। এ জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। বিশেষ ওষুধ ও হার্বাল সাপ্লিমেন্টের কারণে গর্ভনিরোধনে ব্যাকআপ ব্যবস্থার কথাও বলেন বিশেষজ্ঞরা।
লেখকঃ
ডাঃ মোঃ হারুন আল মাকসুদ
মেডিকেল অফিসার
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ফুলবাড়ীয়া
০১৭১২-১৯৪৪৪৫

সারাদিন প্রাণবন্ত থাকতে ঘুম থেকে উঠেই যা করবেন

করতোয়া ডেস্ক: একটি প্রবাদ বাক্য প্রচলিত আছে-‘Morning shows the day’? ? তাই দিনটা আপনি কীভাবে শুরু করছেন তার উপর নির্ভর করছে অনেক কিছু। হয়তো অনেক কিছুই আমাদের হাতে থাকে না, তবে এমন অনেক কিছুই আছে, যা দিয়ে শত ব্যস্ততার মধ্যেও প্রাণবন্ত রাখতে পারেন আপনার গোটা দিন।যেকোনও চ্যালেঞ্জই সামলে নিতে পারেন হাসি মুখে।

* সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠাটা কিন্তু খুব জরুরি। শুধু শরীর ভাল থাকে, তেমনটাই নয়। মনও চাঙ্গা রাখে।
* চোখ খুলেই একটু স্থির হয়ে নিন, স্মরণ করুণ গ্রষ্টাকে। এরফলে ভাগ্যের বাধা কেটে যায়, এমনটাই বলছে শাস্ত্র।
* প্রিয় মানুষটির কাছে যান, তার সান্নিধ্য নিন হতে পারেন তিনি আপনার মা-বাবা অথবা সন্তান।
* ঘুম ভাঙতেই গুটিসুটি মেরে বিছানায় পড়ে থাকবেন না। হাত-পা মেলুন। নিজেকে যত প্রসারিত করবেন ততই বাড়বে আত্মবিশ্বাস। দিনভর তা আপনাকে খুশি রাখবে।* চোখ খুলতেই কি হাতের সামনে এক কাপ গরম গরম কফি আপনার চাই-ই? প্লিজ! এই অভ্যাসটা এখনই বদলান। কারণ সকাল ৮-৯টার মধ্যে আমাদের শরীরে এনার্জিবর্ধক এক ধরনের হরমোনের ক্ষরণ হয়। তাই সকাল সাড়ে ন’টার আগে যদি আপনি কফির কাপে চুমুকখানা মেরে দেন, তা হলে সবই গেল!

এক বছররে কম বয়সী শশিুকে যে খাবারগুলো দতিে পারনে

করতোয়া ডেস্ক: শিশুর জন্য মায়ের দুধের বিকল্প নেই। এইজন্য জন্মের পর থেকে প্রথম ছয় মাস শিশুকে শুধু মায়ের দুধ দেওয়া হয়। ছয় মাসের পর থেকে মায়ের দুধের পাশাপাশি শক্ত খাবার খাওয়ানোর পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। এই বয়সে শিশুকে কী খাওয়াবেন আর কী খাওয়াবেন না তা নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় বাবা মাকে। এক বছর হওয়ার আগে শিশুকে দিতে পারেন এই খাবারগুলো।


ডিম প্রোটিনের গুরুত্বপূর্ণ উৎস হল ডিম। এটি শিশুর মেধা বিকাশে সাহায্য করে। এছাড়া এটি হাড়কে মজবুত করে থাকে। সিদ্ধ অথবা খাবারের সাথে ডিম মিশিয়ে শিশুকে খাওয়ান। একটি ডিম একবারে খেতে না চাইলে অল্প অল্প করে কয়েকবার খাওয়ান।পালং শাক ঃ পালংশাক আয়রন সমৃদ্ধ একটি খাবার। এটি শরীরে রক্তকণিকা তৈরি করতে সাহায্য করে যা আপনার শিশুকে বেড়ে উঠতে সাহায্য করবে।


পেঁয়াজ পেঁয়াজ নামটি শুনে অবাক হচ্ছেন? ভাবছেন এতটুকু শিশুকে কীভাবে পেঁয়াজ খাওয়াবেন! অল্প পরিমাণ পেঁয়াজের পেস্ট শিশুর খাবারের সাথে মিশিয়ে নিন। পেঁয়াজের অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান অভ্যন্তরীণ ইনফেকশন দূর করতে সাহায্য করে।আপেল ফলের মধ্যে আপেল দিতে পারেন। এটি শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। আপেল কুচির পেস্ট করে নিন। এটি শিশুকে খেতে দিন। আপেলের রসও দিতে পারেন। তবে বাজারের জুস দেবেন না। এতে রাসায়নিক পর্দাথ থাকে, যা শিশুর জন্য ক্ষতিকর।


রসুন পেঁয়াজের মত রসুন শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য খুবই দরকারি। শিশুর খিচুড়ির সাথে অল্প করে রসুনের পেস্ট দিয়ে দিন। এটি খাবারের স্বাদ বৃদ্ধির সাথে সাথে শিশুর দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করবে।মাছ শিশুর খাবারে মাছ যুক্ত করুন। বিশেষ করে সামুদ্রিক মাছ যেমন স্যামন মাছ খাবারে রাখুন। সামুদ্রিক মাছে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে যা শিশুর অভ্যন্তরীণ গঠন মজবুত করে। চেষ্টা করুন সপ্তাহে এক বার সামুদ্রিক মাছ শিশুর খাবারে রাখার।


সাইট্রাস ফল ঃ সাইট্রাস ফল যেমন কমলা, মাল্টা ইত্যাদি খাবারের প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি রয়েছে যা শিশুর অভ্যন্তরীণ ছোটখাটো অসুস্থতা সারিয়ে তোলে।এছাড়া ওটস, শস্যদানা, খিচুড়ি, সুজি শিশুকে দিতে পারেন। খিচুড়িতে মাছ, সবজি একসাথে মিশিয়ে রান্না করুন। এতে সবগুলো উপাদান একসাথে পাওয়া যাবে। এছাড়া সুজির হালুয়া দিতে পারেন মাঝে মাঝে। ফলের জুস খাওয়াতে পারেন, তবে তা অব্যশই ঘরে তৈরি হওয়া উচিত।

ফুট স্ট্রেইন পায়ের পাতার পীড়ন

ডা : এম নজরুল ইসলাম বকুল : কী? “ফুট ষ্টেইন” শব্দটি সত্যিকার অর্থে মধ্যমেয়াদী অথবা দীর্ঘমেয়াদী টারসাল লিগামেন্টের টান বা পীড়ন কে বুঝায়, এটা কখনোই হঠাৎ আঘাত প্রাপ্তির কারণে হয় না।
কেন হয়? : যদি কোন ব্যক্তি অভ্যাস না থাকা সত্ত্বেও দীর্ঘ সময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকে কিংবা অত্যধিক হাঁটাহাঁটি করে সেক্ষেত্রে সুস্থ স্বাভাবিক পায়ের পাতায় এ ধরনের পীড়ন/টান হতে পারে। তবে বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে বহু দিন যাবৎ বিদ্যমান বৈকল্য ওয়ালা ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে এটা ঘটে থাকে।

যেমন কারো যদি জন্মগতভাবে “পেস প্লানাস” বা ফ্লাট ফুট অথবা “পেস ক্যাভাস” বা হাই আর্চড ফুট “থাকে যেখানে পায়ের পাতার লিগামেন্ট পায়ের পাতার মাংসপেশী দ্বারা সংগঠিতভাবে সুরক্ষিত থাকে না, সেখানে ফুট ষ্ট্রেইন হয়।

উপসর্গ: প্রধান উপসর্গ থাকে পায়ের পাতায় ব্যথা যা অনেকটা অস্বস্তিকর ধরনের এবং দীর্ঘ মেয়াদী। ব্যথা অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে অথবা অতিরিক্ত হাঁটাহাঁটি করলে বৃদ্ধি পায়। অনেক সময় অস্বস্তিকর ব্যথা ক্যালভিস পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করতে পারে।

কিশোরদের ক্ষেত্রে মাসকুলার ডিষ্ট্রোফির সাথে অনেক সময় গুলিয়ে যায়। তবে যুবক/ মধ্যবয়সী ছেলে মেয়ে যে কেউ এ ধরনের ব্যথায় আক্রান্ত হতে পারে। আবার অনেক সময় ইস্কিমিয়ার কারণে অসহ্য ব্যথা, নার্ভের কারণে ঝিনঝিন চিনচিন অনুভূতি কিংবা কম মৃদু অনুভূতিবোধ ইত্যাদিও হতে পারে।

রোগ নির্ণয়: পরীক্ষা-নিরীক্ষা যেমন রক্ত পরীক্ষা এক্সরে এমআরআই কিংবা সিটি স্ক্যান ইত্যাদিতে তেমন কিছু ধরা পড়ে না। তবে অনেক সময় মেটা টারসাল জিয়া, সিসাময়ে ডাইটিস, ফ্রেইবারগস ডিজিজ, নার্ভ কম্প্রেশন বা মরটনস মেটাটারসাল জিয়া কিংবা ষ্ট্রেস ফ্রাকচার ইত্যাদি রোগ হতে আলাদা করতে হয়।
চিকিৎসা:  
-রোগীকে বেশীক্ষণ হাঁটাহাঁটি কিংবা দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকা হতে বিরত থাকতে পরামর্শ দেয়া হয়।
-প্রয়োজনে পায়ের তলায় প্যাড ব্যবহার করে পায়ের পাতার স্বাভাবিক বাঁকানো আর্চ কে সাপোর্ট দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়।
-পায়ের পাতা এবং আঙ্গুলের ব্যায়ামের পরামর্শ দেয়া হয়।
-হালকা গরম সেঁক দেয়া যেতে পারে।
-পায়ের এবং পায়ের পাতার মাংসপেশীকে শক্তিশালী করার জন্য ইলেক্ট্রিক ষ্টিমুলেশন দেয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে তা প্রয়োগ করা হয়।
-অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কারণ বিশেষত: “পেস প্লেনাসের” মাত্রা বেশী হলে অথবা গ্রেড-৪ টাইপ  পেস কেভাস” থাকলে অপারেশনের প্রয়োজন পড়ে।
তবে “ফুট ষ্ট্রেইন” বেশী ভাগ ক্ষেত্রে অপারেশন ছাড়াই ভালো হয়ে যায় এবং রোগী সাধারণত: স্বাভাবিক ভাবে চলাফেরা করে। তাই এ ধরনের অসুবিধার জন্য অহেতুক ঝাড় ফুঁক অপচিকিৎসা না করে অভিজ্ঞ অর্থোপেডিক সার্জনের সুপরামর্শ শুরুতেই গ্রহণের জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।

দাঁতের বিভিন্ন সমস্যা ও করণীয়

মো: সাব্বির মোস্তাক রহমান (ডুরেন):দাঁত মানুষের অমূল্য সম্পদ। দাঁতের সাহায্যে মানুষ খাদ্যবস্তু চর্বন করে থাকে। চর্বন ক্রিয়ার সময় মুখ হতে লালা রস বের হয়ে খাদ্যদ্রব্যের সাথে মিশে পরিপাক ক্রিয়ায় সাহায্য করে। দাঁত সৌন্দর্যের অঙ্গ। দন্তহীন ব্যক্তিরা স্পষ্ট কথা বলতে পারে না এবং তাদের মুখের শ্রী নষ্ট হয়ে যায়।

হজম কাজের সাহায্যের জন্য খাদ্যবস্তুকে টুকরা টুকরা করে গলাধঃকরণ করাই দাঁতের কাজ।দাঁতের প্রদাহ: দাঁতের ডা: গঠনজনিত ত্রুটি, দাঁতের অযতœ, আঘাত দাঁতের পোকা, বেশি গরম, শীতল খাদ্য, মিষ্টি ও টক খাদ্য গ্রহণ এবং অপরিষ্কারজনিত জীবাণু দূষণে দাঁতের গোড়া ফুলে যায় এবং ব্যথা হয়।

লক্ষণ: দাঁতের ক্ষয় বা আঘাতপ্রাপ্ত অংশ ভাঙ্গা দেখা যাবে। দাঁতের গোড়া ফুলে লাল হয়ে যায়। মনে হয় দাঁতের গোড়ার মাংস বৃদ্ধি হয়েছে। তীব্র ব্যথা হয়/ব্যথা সেই পার্শ্বের মাথা ও কানের চিপে ছড়িয়ে পড়ে। ব্যথার তীব্রতা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। উষ্ণ গরম পানিতে কুলকুচা করলে ব্যথা বাড়ে। দাঁতে টোকা লাগালে রক্তপাত হতে পারে।

দন্তক্ষয় রোগ/পোকা খাওয়া : আহারের পর খাদ্যদ্রব্যের কিছু দাঁতের ফাঁকে অথবা আশেপাশে লেগে থাকতে পারে। সেখানে ব্যাকটেরিয়া নামক এক জাতীয় জীবাণু অম্লের উৎপত্তি করে। এ অম্ল দাঁতে সামান্য গর্তের সৃষ্টি করে। প্রতিষেধক ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে এ গর্ত দিনে দিনে বড় হতে থাকে। এ পর্যায়ে আক্রান্ত দাঁতের খারাপ অংশটুকু দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ফেলে দিয়ে সুষ্ঠুভাবে গর্ত পূরণ করে দিতে হবে।

লক্ষণ: প্রথমে গরম, ঠান্ডা ও মিষ্টি অথবা টক (অম্ল) জাতীয় খাদ্য খেলে দাঁতে শিরশির করে এবং ব্যথা অনুভূত হয়। পরে এটা সার্বক্ষণিক ব্যথায় পরিণত হয় এবং অসহনীয় হয়ে উঠে। ক্ষয়প্রাপ্ত দাঁতের চিকিৎসা না করা হলে দাঁতটি সম্পূর্ণরূপে নষ্ট হয়ে যায় এবং এর নিচে ক্ষতের সৃষ্টি হতে থাকে।
ক্ষতের লক্ষণ : দাঁত মৃদু নাড়ায় ব্যথা অনুভূত হয়। দাঁতের গোড়া ফুলে যায়। সম্পূর্ণ মুখমন্ডল ফুলে যেতে পারে।

এক্ষেত্রে করণীয় : ১. দাঁতের সৃষ্ট গর্তকে দন্ত চিকিৎসকের সাহায্যে ফিলিং করে নিতে হয়। ২. ক্ষয়প্রাপ্ত দাঁতটি নষ্ট হয়ে গেলে তুলে ফেলাই উত্তম।
দাঁতের গোড়ায় প্রদাহ/পায়োরিয়া : দাঁত ও মাড়িতে খাদ্যদ্রব্য জমা হওয়ায় এবং উত্তমরূপে পরিষ্কার না করার কারণে সেখানে জীবাণু জন্মে। দাঁতের গোড়ার উপরের পেরিঅস্টিয়াম মেমব্রেনের সংযোগস্থল নষ্ট করে। ঐ স্থানে জীবাণু জন্মে পচনশিল দুর্গন্ধযুক্ত দন্তরোগের সৃষ্টি করে। এভাবে দাঁতের গোড়া ফুলে উঠে এবং কখনও কখনও পুঁজ দেখা যায়। যে সকল মানুষ পরিমিত খাদ্য খেতে পায় না তাদের মধ্যে এ রোগ প্রায়ই দেখা যায়।

লক্ষণ: এক বা একাধিক মাড়ির সংযোগস্থলে ক্ষত হয়ে থাকে। দাঁতের গোড়া ফুলে এবং লালচে হয়। কখনও জ্বালা করে এবং রোগী আহারে অনিচ্ছা প্রকাশ করে। ফুলাস্থানে একটু আঘাত লাগলে অথবা জোরে চোষণ দিলে রক্ত ঝরে। অনেক সময় তীব্র ব্যথা হয় এবং দাঁত নড়বড়ে হয়। মুখে বিশ্রী দুর্গন্ধ হয় এবং কথা বলতে অস্বস্তিবোধ করে। ক্ষতের উপর সাদা আবরণ পড়ে। মুখে ঠান্ডা পানি দিলে শির শির করে।

এক্ষেত্রে করণীয় : ১. দাঁতের ভিতরের কড়ালীসমূহ এর গোড়ায় সৃষ্ট শক্ত পাথর দূর করতে হয়। নড়বড়ে দাঁত তুলে ফেলতে হবে। ২. প্রতিদিন মুখ পরিষ্কার রাখতে হয় এবং দাঁতের মাড়িতে আঙ্গুল দিয়ে ঘর্ষণ করে ম্যাসেজ করতে হয়। তবে গ্লিসারিন টেনিক এসিড ৩৩% দ্বারা ম্যাসেজ করলে ভাল হয় এবং দ্রুত রোগ নিরাময় হয়। ৩. লবণ পানির উষ্ণ স্যালাইন দিয়ে ৩/৪ বার কুলকুচা করলে বা অন্তত বিছানায় যাবার প্রাক্কালে এবং সকালে ঘুম হতে উঠে করলে এ রোগের
বিস্তারের সম্ভাবনা কম।

মাড়িতে ফোঁড়া : আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন প্রকার খাদ্যদ্রব্য গ্রহণ এবং ব্যস্ততার বা অলসতার কারণে দাঁত ও মুখ খুব ভালভাবে পরিষ্কার রাখা হয়ে উঠে না। ফলে অনেকেরই মাড়িতে জ্বালা ও রক্তপাত হয়। দীর্ঘদিন এভাবে অবহেলায় সাধারণ রোগও খারাপের দিকে যায় এবং স্নায়ুতন্ত্র নষ্ট হয়। দাঁত নড়বড় করে। দাঁতের একধার ফেটে যায় এমনকি পোকা ধরার মত দেখা যায়। মানুষের মুখে বিভিন্ন রকম জীবাণু থাকে। এ সকল জীবাণু সাধারণত বা প্রতি সময় দাঁতের ফাঁকে জমে থাকা পচা খাদ্যের সাহায্যে দ্রুত জীবাণু বিস্তার করে। এ সকল জীবাণুগুলোকে ডেন্টাল প্লাক বা শর্করা বা ব্যাকটেরিয়াল প্লাক বলে। প্রলেপে অবস্থিত জীবাণুগুলো অম্ল (এসিড) তৈরি করতে সক্ষম। দাঁতে লেগে থাকা খাদ্য শর্করা বা চিনির সাহায্যে স্থানীয় এসিড তৈরি করে। ধীরে ধীরে এ এসিডে দাঁতের এনামেল ক্ষয় হয় এবং একইভাবে জীবাণু দাঁতের একেবারে নিচে হাড়ের মধ্যে এসে পুঁজের সৃষ্টি করে।

লক্ষণ: আক্রান্ত দাঁতে প্রচন্ড ব্যথা হয় এবং চোয়াল ও মুখ ফুলে যায়। আক্রান্ত দাঁতের ফুলা অংশ স্পর্শ করলে বেশ তাপ দেখা যায়। আক্রান্ত অংশে গোটা মাথা, চিপ ব্যথায় চিলিক পাড়ে। ব্যথার তাড়নায় ১০৪ ডিগ্রী পর্যন্ত জ্বর আসে। এক সময় মাড়ি বা নিচের চোয়ালে গালের চামড়া ফেটে পুঁজ বের হয়ে আসে। জ্বালা যন্ত্রণা কমে গেলেও জটিলতা সৃষ্টি হয়।

এক্ষেত্রে করণীয় : ১. উত্তমরূপে পুঁজ পরিষ্কার করে ড্রেনেজ দিতে হয় এবং প্রতিদিনই ড্রেসিং করতে হয়।
দাঁতের মাড়ি ফোলা এবং জিঞ্জিভাইটিস : সাধারণত অপরিষ্কার মুখেই এ রোগ দেখা যায়। যে সকল মানুষ পরিমিত খাদ্য খেতে পারে না তাদের মধ্যেই এ রোগ বেশি দেখা যায়।
লক্ষণ : এক বা একাধিক মাড়ির সংযোগস্থলে ক্ষত হতে থাকে। মুখ জ্বালা করে ও খাবার গ্রহণে অনিচ্ছা প্রকাশ করে। ক্ষতের উপর সাদা আবরণ পড়তে পারে। সহজে রক্ত বের হতে পারে এবং রোগীর মুখে দুর্গন্ধ হয়। মুখে লালা বাড়ে এবং রোগী অস্বস্তিবোধ করে।

দাঁত পরিষ্কার রাখার স্বাস্থ্যসম্মত নিয়ম : দাঁত ও মাড়িতে খাদ্যদ্রব্য জমা হওয়ার কারণেই দাঁতের ক্ষয় এবং মাড়ির রোগ হয়ে থাকে। এ রোগ আক্রান্ত ব্যক্তিদের দাঁত পরিষ্কার নিয়ম সম্বন্ধে উপদেশ দিতে হবে। যাতে তারা ভবিষ্যতে অসুবিধার সম্মুখীন না হয়। দাঁত ও মাড়ির সঠিকভাবে পরিষ্কার রাখলে মাড়ি ফোলা রোগ হতে রেহাই পাওয়া যেতে পারে। দন্ত রোগাক্রান্ত ব্যক্তি ছাড়াও সকলকে নিয়মিত দাঁত পরিষ্কার রাখার উপদেশ দিতে হবে। কারণ ‘প্রতিরোধ আরোগ্য হতে শ্রেয়।’

ব্রাশ ও দাঁতন : দাঁত পরিষ্কার করার জন্য টুথ ব্রাশ এবং টুথপেস্ট ভাল। যদি সঠিকভাবে ব্যবহার করা যায় তবে দাঁতনও একটি উৎকৃষ্ট জিনিস। টুথপেষ্টের পরিবর্তে ব্রাশ বা দাঁতনে লবণ ব্যবহার করা যায়। প্রাতরাশের পর এবং রাতে নিদ্রা যাওয়ার পূর্বে দাঁত মাজা ভাল। দুপুরে আহারের পরও একবার দাঁত মাজা ভাল।

দাঁত মাজার প্রণালী : সব সময় ভিতর বা বাইরের মাড়ির উপর হতে দাঁত মাজা শুরু করতে হয়। যাতে প্রত্যেকটি দাঁত কমপক্ষে ১০ বার ঘষা হয়। এরপর পানি দ্বারা কমপক্ষে ৩ বার ভালভাবে কুলকুচা করতে হবে যাতে সমস্ত ময়লা বের হয়ে পড়ে।



Go Top