বিকাল ৩:১০, রবিবার, ৩০শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ বিনোদন

বিনোদন রিপোর্টার : নানা আলোচিত ঘটনা শেষে এবারের বাংলা নববর্ষের প্রথম বিকেলে একসঙ্গে সময় কাটিয়েছেন অপু বিশ্বাস, শাকিব খান ও তাদের একমাত্র সন্তান আব্রাহাম খান জয়। এরপর শাকিব পাবনায় ‘রংবাজ’ ছবির শুটিংয়ে চলে যান। তবে মাঝে দুই দফায় ঢাকায় আসেন তিনি।

 

এ সময় কি অপু ও শাকিবের মধ্যে দেখা বা কথা হয়েছে? এমন প্রশ্নের জবাবে অপু বিশ্বাস বলেন, দেখা হয়েছে তবে তেমন কোনো কথা হয়নি। শাকিব অনেক ব্যস্ত ছিল। এটা নিয়ে আমার কোনো আফসোস নেই। উল্লেখ্য, অপু বিশ্বাস টিভি লাইভে আসার কারণে শাকিব বেশ মনক্ষুন্ন হন। এ বিষয়ে কি ভাবছেন জানতে চাইলে অপু বিশ্বাস বলেন, শাকিব কেনো আমাকে ভুল বুঝছে এটা আমি জানি না। আমার কাছে মনে হয় যে, টুডে ওর টুমরো তো বলতেই হতো।


 তাই না। শাকিবের হয়তোবা মনে হয়েছে এখনই কেন আমি বললাম। এ বিষয়টা তো আমি আগেও বলেছি। যখন আমাদের বাচ্চা হয়ে গেল তখন মনে হয় শাকিবের এ বিষয়টি নিয়ে মানসিক প্রস্তুতি নেয়া উচিত ছিল। তবে সে কেন এখনো এ বিষয়টাকে এমন ভাবছে জানি না। তবে শাকিব যে মনে করছে এটা চক্রান্ত তা ঠিক না। যদি চক্রান্ত করার ইচ্ছে থাকতো তাহলে বিগত আট বছরে অনেক বিষয় নিয়েই চক্রান্তে জড়াতে পারতাম। তখন যেহেতু করি নি তাই এখনো সেটার সম্ভাবনা নেই।

 

অপু বিশ্বাস আরো বলেন, শুধু একটা কথা স্পষ্টভাবে বলতে চাই-যখন আমাদের সন্তান হয়ে গেছে তখন তার কথা ভেবে সবার সামনে এসেছি। আমার সন্তানের বিবেক বুদ্ধি হবার আগে আমি সবার সঙ্গে তাকে পরিচয় করে দিয়েছি। আর বিষয়টি ও বড় হবার পর ঘটলে হয়তোবা তার ধারনা হতে পারতো যে, সে পৃথিবীতে আসাতে কি তার বাবা-মা কোনো বিপদে পড়েছিল। আর  তাই এতদিন তারা তা প্রকাশ করতে পারে নি।


এসব অনেক বিষয় আমি চিন্তা করেছি। আমার বাচ্চার বয়স গেল ২৭শে এপ্রিল সাত মাসে পড়েছে মাশাআল্লাহ। আমার সন্তান যেন বড় হবার পর আনন্দে থাকে, কষ্ট যেন না পায়। আট-দশটা সেলেব্রেটির সংসারের মতো আমার সন্তানও যেন গর্ব করে বলতে পারে আমার বাবা-মাও জনপ্রিয় সেলিব্রিটি। যেটা মৌসুমী আপা ও সানী ভাইয়ের ছেলে-মেয়ে বলতে পারছে। তাই আমার এটাকে ভুল সিদ্ধান্ত বলে মনে হয় না। শাকিবের ঘরে কবে ফিরবেন? এমন প্রশ্নের বাবে অপু বলেন, শাকিব তো বলেই সংসার ছিল। আমি আমার সন্তানকে সময় দিতে চাই। আর আমাকে তো কাজে ফিরতে হবে।


এসব নিয়ে এখন ভাবছি না। সবকিছু ভাগ্যের উপর ছেড়ে দিয়েছি। আমার বাচ্চাটা হবার সময়ও শাকিব খান অনেক ব্য¯স্তছিল। যেটা হচ্ছে এটা ভাগ্যের লিখন। এটা নিয়ে ক্ষোভ, চাওয়া পাওয়া নেই আমার। শাকিব খান তো চান অপু বিশ্বাস কাজ না করে সংসার করুক, এ বিষয়টা কিভাবে দেখছেন? এ প্রসঙ্গে অপু বলেন, শাকিব এবং আমি দু’জনই পেশাগত শিল্পী। সেখান থেকেই পরিচয়, বিয়ে এবং সংসার। আমি একটা উদাহরণ টেনে বলতে চাই, আমাদের ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান একজন মহাতারকা। তিনি এত বড় তারকা হবার পরও তার স্ত্রী শিশিরকে মিডিয়ার সামনে এনেছেন।


 তাহলে আমি তো আগে থেকেই মিডিয়াতে কাজ করছি। ঘরের মানুষকে সাকিব আল হাসান বাইরে পপুলার করেছেন। আর শাকিব খান পপুলার মানুষকে ঘরে বসিয়ে রাখতে চাইছেন! তাই এটা নিয়ে এখন কিছু মন্তব্য না করে আমি সময়ের হাতে ছেড়ে দিলাম। এদিকে অপু বিশ্বাস অভিনীত বুলবুল বিশ্বাসের ‘রাজনীতি’ ছবিটি সেন্সরে জমা হয়েছে। এ ছবিটি নিয়ে তিনি বলেন, এটি আমার অনেক পছন্দের একটি ছবি। শাকিব খানও এ ছবিতে রয়েছেন। ছবিটি দর্শক পছন্দ করবেন বলে আশা করছি। এ ছবির পাশাপাশি ‘পাঙ্কু জামাই’ ও ‘মা’ ছবিরও অনেকাংশ কাজ করেছি আমি।

নতুন ছবি নিয়ে কবে কাজে ফিরবেন অপু বিশ্বাস? এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, খুব শিগগিরই ফিরব। দুই মাসের মধ্যে ফেরার ইচ্ছে রয়েছে। এক মাস আগে থেকেই নিয়মিত ব্যায়াম ও ডায়েট করছি। দু’মাসের মধ্যে ফিট হয়ে নতুন ও পুরানো কাজে হাত দিব। সামনে অনেক চমক নিয়ে আসছি। দর্শকদের এজন্য একটু অপেক্ষায় থাকার অনুরোধ রইল।

বগুড়ায় আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস পালিত

স্টাফ রিপোর্টার : নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বগুড়ায় আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস পালন করেছে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থা জেলা শাখা বগুড়া এবং জেলা শিল্পকলা একাডেমী বগুড়া’র যৌথ আয়োজনে গতকাল শনিবার বিকেলে শহরের শিববাটিস্থ শিল্পকলা একাডেমিতে আলোচনা সভা ও নৃত্যানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। আব্দুস সামাদ পলাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের শুরুতেই শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সৈয়দ আশিক ফারুক, জর্জেট বুলবুল ব্যাপারী, স্বর্ণকার জহুরুল ইসলাম রতন, মাহাবুব হাসান সোহাগ প্রমুখ।


 সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা কালচারাল অফিসার লায়ন সাগর বসাক, ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর লায়ন তরুণ কুমার চক্রবর্তী, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট বগুড়ার সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সিদ্দিকী, আমরা ক’জন শিল্পী গোষ্ঠীর সাধারণ সম্পাদক  লায়ন আব্দুল মোবিন।

 

শেষে নৃত্য পরিবেশন করে মাঝিড়ার ক্ল্যাসিক ড্যান্স একাডেমী, শেরপুরের নৃত্যাঙ্গন, বুলবুল নৃত্যকলা কেন্দ্র, নৃত্য ছন্দম আর্টস একাডেমী, ক্রিয়েটিভ কালচারাল একাডেমী, আমরা ক’জন শিল্পী গোষ্ঠী। সমগ্র অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন মৌসুমী রহমান। অপরদিকে দিবসটি উপলক্ষে ক্রিয়েটিভ কালচারাল একাডেমি ও উচ্চারণ একাডেমি বগুড়া’র যৌথ উদ্যোগে আলোচনা সভা ও নৃত্যানুষ্ঠান শহরের শহীদ টিটু মিলানায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।


অনুষ্ঠানের শুরুতে নৃত্য শিল্পী ও জেলার সাংস্কৃতিক ব্যক্তিদের নিয়ে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ করে। আলোচনা সভায় অংশ নেন উচ্চারণ একাডেমির পরিচালক এড. পলাশ খন্দকার, ক্রিয়েটিভ কালচারাল একাডেমির সভাপতি স্বর্ণকার জহুরুল ইসলাম রতন, বগুড়া লেখক চক্রের সভাপতি ইসলাম রফিক, কবি শিবলী মোক্তাদীর, নৃত্য প্রশিক্ষক রবীন্দ্র নাথ সরকার, অধ্যাপক জগন্নাথ রায়, জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

 

আলোচনা শেষে উভয় প্রতিষ্ঠানের শিশু নৃত্য শিল্পীরা একক ও দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন রাফিয়া খন্দকার পূর্ণতা। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের শিশু সংগঠন ভোর হলো ও লিটল থিয়েটার ও ক্রিয়েটিভ কালচারাল একাডেমির আয়োজনে বিকেলে পৌর পার্কের জগিং সেন্টার চত্বরে আলোচনা সভা ও নৃত্যানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।


 বগুড়া ইয়্যুথ কয়্যারের সংগঠক তৌফিকুল আলম টিপু দিবসটির উদ্বোধন ঘোষণা করেন। সভায় বক্তব্য রাখেন বৃহত্তর বগুড়া সমিতির সভাপতি মাসুদুর রহমান রন্টু, বগুড়া থিয়েটারের সহ-সভাপতি এড. পলাশ খন্দকার, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবিএম জিয়াউল হক বাবলা, শাহাদৎ আলম বাদশা, আব্দুল হান্নান, আতিকুর রহমান মিঠু, গৌতম দাস প্রমুখ। সমগ্র অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক তৌফিক হাসান ময়না।  নৃত্যানুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করেন মৌনতা, শারাফ, বর্ষা, নায়লা, আনিকা, শ্রেয়া, প্রভা, তামান্না, অর্মিতা, সম্প্রিতা দাস।

জন্মদিনে সুমাইয়া শিমু

বিনোদন রিপোর্টার : গত বছরই বাবার সঙ্গে সর্বশেষ জন্মদিন উদয্াপন করেছিলেন গুণী অভিনেত্রী সুমাইয়া শিমু। কিন্তু এ বছর আর বাবার সঙ্গে জন্মদিনে সময় কাটানো হবে না শিমুর। যে কারণে মনটা তার একটু খারাপই। শিমু তার বাবাকে হারিয়েছেন গত বছর আগস্ট মাসে। বাবা মারা যাবার পর বেশ কয়েকমাস কাজে বিরতি নিয়েছিলেন শিমু। বিরতির পর আবার কাজে নিয়মিত হয়েছেন তিনি।

এরইমধ্যে ঈদের বেশ কয়েকটি কাজও শেষ করেছেন। সুমাইয়া শিমু অভিনীত ‘শূন্যতা’ ধারাবাহিকটির প্রচারও শেষ হয়েছে। শিমু তার এবারের জন্মদিনে অন্যান্য বছরের মতো শুটিং রাখেননি। কীভাবে কাটবে এবারের জন্মদিন? প্রশ্ন করতেই কিছুটা ভাবনা থেকে শিমু বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই আমার জন্মদিনে তেমন বিশেষ কিছু করা হতো না। কোনরকম একটি কেক কেটে জন্মদিন উদ্যাপন করা হতো। এখন বড় হয়েছি, জীবনের অনেকটা সময়ও পেরিয়েগেছে। তারপরও জন্মদিন এলে নিজের মধ্যে ভালোলাগা সৃষ্টি হয় যে আজকের দিনে আমি এই পৃথিবীতে এসেছিলাম।


 এবারও নিজের জন্মদিন ঘরোয়া আয়োজনের ম্যধদিয়েই কাটবে। তবে আমি দোয়া চাই সবার কাছে, যেন সবসময় আমার পরিবারের সবাইকে নিয়ে যেন ভালো থাকি, সুস্থ থাকি।’ শিমু জানান নিজের জন্মদিনে আজ রাতে হয়তো পরিবারের সবাইকে নিয়ে বাইরে রাতের খাবারটা খাবেন। এরইমধ্যে গত ২৮ ও ২৯ এপ্রিল সুমাইয়া শিমুম কালিয়াকৈরে শেষ করেছেন রাহাতের নির্দেশনায় ‘তক্ষক’ নাটতের কাজ। এতে তিনি একক অভিনয় করেছেন। শিমু বলেন, ‘একটি নাটক একা অভিনয় করে দর্শক ধরে রাখাটা খুউব কঠিন একটি কাজ।


 কিন্তু আমি চেষ্টা করেছি চরিত্রানুযায়ী যথাযথভাবে অভিনয় করতে। বাকীটা দর্শকের উপর ছেড়ে দিয়েছি।’ এদিকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ঘাটের কথা’ গল্প অবলম্বনে ‘ঘাটের কথা’ নাটকে শিমু অভিনয় করবেন মে’র প্রথম সপ্তাহে কাওনাইন সৌরভের নির্দেশনায়। এরইমধ্যে শিমু শেষ করেছেন অপূর্বর বিপরীতে শিল্পী-ইফতির নির্দেশনায় ‘সন্ধি বিচ্ছেদ’সহ দীপু হাজরার নির্দেশনায় আরো একটি নাটকের কাজ। এই দুটি নাটক আসছে ঈদে দুটি ভিন্ন চ্যানেলে প্রচার হবে। ছবি ঃ মোহসীন আহমেদ কাওছার।

নওগাঁর একুশে পরিষদের উচ্চাঙ্গ সংগীতের আসর

নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁ শহরের ঐতিহ্যবাহী প্যারীমোহন সাধারণ গ্রন্থাগার প্রাঙ্গণে গত শুক্রবার রাতে বসেছিল উচ্চাঙ্গ সংগীতের আসর। আয়োজন করেছিল নওগাঁর একুশে পরিষদ। সুর সাধক প্রয়াত ভবেশ চ্যাটার্জীর পুণ্যস্মৃতির উদ্দেশ্যে একুশে পরিষদ উৎসর্গ করেছিল উচ্চাঙ্গ সংগীত আসর। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে দেশবরেণ্য শিল্পীরা আসরে তাদের সংগীত পরিবেশন করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ এডভোকেট শহীদুজ্জামান সরকার এমপি। প্রদীপ প্রজ্বলন করে উচ্চাঙ্গ সংগীত আসরের উদ্বোধন করেন প্রবীণ উচ্চাঙ্গ সংগীত শিল্পী একুশে পদকপ্রাপ্ত পন্ডিত অমরেশ রায় চৌধুরী।


 অনুষ্ঠানে খেয়াল পরিবেশন করেন পন্ডিত অমরেশ রায় চৌধুরী, অর্চনা প্রামানিক, বিপুল কুমার চ্যাটির্যা, বাঁশিতে রাগ তোলেন ড. এস এম হাসিবুল হাসান, খেয়াল ও ঠুমরী পরিবেশন করেন ড. জগদানন্দ রায়, তবলা লহরায় সুপান্থ মজুমদার। সহযোগী শিল্পী ছিলেন রনজিৎ কুমার পাল, যতন কুমার পাল, প্রশান্ত ভৌমিক ও অভিজিৎ কুন্ডু। আসরের শুরুতেই সংক্ষিপ্ত আলোচনা পর্বে সভাপতিত্ব করেন একুশে পরিষদ নওগাঁর সভাপতি এড. ডি এম আব্দুল বারী।


 বক্তব্য রাখেন প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার এমপি, কবি ও গবেষক আতাউল হক সিদ্দিকী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এম এম রাসেল। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন বিশিষ্ট আবৃত্তিকার রফিকুদৌলা রাব্বী। উল্লেখ্য, নওগাঁর  প্রয়াত সুরসাধক ভবেশ চ্যাটার্জী ১৯৮৯ সালের ৬ অক্টোবর ৮২ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন।
 

নাটকে প্রথম নাদিয়া-জোভান

অভি মঈনুদ্দীন : নৃত্যশিল্পী ও অভিনেত্রী নাদিয়া আহমেদ অভিনয় জীবনের এই সময়ে এসে একটু ব্যতিক্রম ধরনের এবং চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে অভিনয়ে মনোযোগী হয়ে উঠেছেন। যে কারণে গতানগুতিক ধারার নাটকে এখন তাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছেনা।

এই সময়ের তরুণ নির্মাতারাও নাদিয়া আহমেদকে নিয়ে ভিন্ন ধরনের গল্পে কাজ করতে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। তরুণ নির্মাতাদের আগ্রহের সেই ধারাবাহিকতায় এবার নির্মাতা খাইরুল পাপন নাদিয়ার বিপরীতে প্রথমবারের মতো এই সময়ের আলোচিত অভিনতো জোভানকে নিয়ে নাটক নির্মাণ করলেন। নাটকের নাম ‘চাইল্ডহুড লাভ’।


 গত ২৮ ও ২৯ এপ্রিল রাজধানীর কাওলা ও উত্তরায় নাটকটির বিভিন্ন দৃশ্য ধারনের কাজ শেষ হয়েছে। নাটকটির গল্প প্রসঙ্গে জানা যায় ঈশিতা জুয়েলের ছোট ভাইকে প্রাইভেট পড়ায়। জুয়েল সেই প্রাইভেট পড়াশুনাকালীন সময়টাতে নানান বাহানায় ঈশিতার সামনে দাঁড়াতে চায়, বলতে চায় তার ভালোবাসার কথা। এমনি করে একদিন বলেও ফেলে। কিন্তু ঈশিতা চলে যায়, আর আসেনা। বহুবছর পর জুয়েলের চাকরী হয়। সেখানেও জুয়েলে তার সহকর্মী হিসেবে পায় ঈশিতাকে। জীবনের এই পর্যায়ে এসে একধরনের বন্ধুত্ব তৈরী হয়।


 কিন্তু ঈশিতা জুয়েলের চেয়ে কয়েকবছরের চেয়ে বড় বিধায় জুয়েলের ভালোবাসায় সাড়া দিতে চায়না ঈশিতা। এগিয়ে যায় গল্প। নাটকটিতে অভিনয় প্রসঙ্গে নাদিয়া বলেন,‘ এখন আমি গল্প এবং চরিত্রের প্রতি আগের চেয়ে বেশি মনোযোগী হয়ে উঠেছি। নিজের গেটআপেও বেশ পরিবর্তন আনার চেষ্টা করছি। সবমিলিয়ে আমি আমার নিজের অবস্থানে আরো মনোযোগী হচ্ছি। সেই যে কারণে এই নাটকটিতে কাজ করা। জোভান খুব ভালো একজন অভিনেতা। ভালোলাগার বিষয় এই যে সহকর্মী যখন ভালো অভিনয় করেন তখন নিজের অভিনয়ও অনেক ভালো হয়।


’ জোভান বলেন,‘ এবারই প্রথম নাদিয়া আপুর সঙ্গে কাজ করলাম। আমার নিজের ভেতর সবসময়ই সিনিয়র শিল্পীদের সঙ্গে কাজ করার একটা লোভ আছে। যে কারণে নাদিয়া আপুর সঙ্গে কাজ করাটা আমি দারুণভাবে উপভোগ করেছি। তাছাড়া তিনি খুবই সহযোগিতা পরায়ণ একজন সহকর্মী। আমিতো তার সঙ্গে কাজ করে এককথায় মুগ্ধ। ভিন্ন ধরনের গল্পের এই কাজটি নিয়ে আমি দারুণ আশাবাদী।’

আসছে ১৫ মে শনিবার রাত ১১.০০টায় আরটিভিতে নাটকটি প্রচার হবে। উল্লেথ্য নাদিয়া এই মুহুর্তে ঈদের নাটকে কাজ করার পাশাপাশি বেশ কয়েকটি ধারাবাহিকে অভিনয় করছেন। অনুরূপভাবে জোভানও পাঁচটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করছেন।

বিবার্তা স্বর্ণপদক পাচ্ছেন হাসান ইমাম-লায়লা হাসান

বিনোদন প্রতিবেদক : গত বছর অনলাইন সংবাদ মাধ্যম ‘বিবার্তা টোয়েন্টি ফোর ডটনেট’র সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসির উদ্যোগে চালু হয়েছিলো ‘বিবার্তা স্বর্ণপদক’র। দেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল ব্যক্তিদের এই স্বর্ণপদকে ভূষিত করা হয়েছিলো গতবছর। প্রথমবারই বিবার্তা স্বর্ণ পদক বিতরণ করে সাফল্যের হাসি হেসেছিলেন বাণী ইয়াসমিন হাসি। সেই হাসি যেন আজো অটুট আছে তার। তাই এবারও একই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন তিনি। গতবছরের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় এবারও হাসির উদ্যোগে আগামী ২ মে দেশের নানান অঙ্গনের সফল ব্যক্তিদের বিবার্তা স্বর্ণ পদকে ভূষিত করা হবে।

 শিল্প সংস্কৃতিতে সফল অবদানের জন্য চলতি বছর বিবার্তা স্বর্ণ পদক তুলে দেয়া হচ্ছে সফল তারকা দম্পতি অভিনেতা, নির্দেশক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম ও তার সহধর্মিনী নৃত্যশিল্পী ,অভিনেত্রী লায়লা হাসানের হাতে। গত ২৩ এপ্রিল বিবার্তা’র সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসি স্বাক্ষরিত একটি চিঠি ও নিমন্ত্রণের পত্রের মাধ্যমে সৈয়দ হাসান ইমাম ও লায়লা হাসানকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি চুড়ান্ত করা হয়। সৈয়দ হাসান ইমাম বলেন,‘ এরইমধ্যে চিঠি এবং নিমন্ত্রণ পত্র পেয়েছি। আশাকরছি ২ মে সময়মতো অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সম্মাননা গ্রহণ করতে পারবো। যারা আমাদেরকে সম্মাননা জানাচ্ছেন বিশেষ করে বাণী’র কাছে কৃতজ্ঞ আমরা।’ লায়লা হাসান বলেন,‘ দু’জন একসঙ্গে একই অনুষ্ঠানে সম্মাননা গ্রহণ করবো, বিষয়টি বেশ ভালোলাগছে।


আমরা দু’জনই ঢাকার বাইরে থাকবো। কিন্তু তারপরও এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হবো। কারণ এবারই প্রথম আমরা দু’জন একই অনুষ্ঠানে একই মঞ্চে একসঙ্গে সম্মাননা পাচ্ছি। বিষয়টি সত্যিই স্মরনীয় হয়ে থাকবে। ’ আগামী ২ মে বিকেল চারটায় রাজধানীর শাহবাগে সুফিয়া কামাল গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে বিবার্তা স্বর্ণপদক প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।


 আরো যারা বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিবার্তা স্বর্ণ পদকে ভূষিত হবেন তারা হচ্ছেন সাংবাদিকতায় তোয়াব খান, রাজনীতিতে ড. দীপু মণি-এমপি, ডিজিটাল আইসিটিতে জুনায়েদ আহমেদ পলক-প্রতিমন্ত্রী, অনুকরণীয় নারী মাহবুবু আরা গিনি, সফল উদ্যোক্তা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, অর্থনীতিতে ইফতেখারুজ্জামান, খেলাধূলায় মাবিয়া আক্তার সীমান্ত, গবেষনায় সুমাইয়া বিনতে মাহতাব।

 উল্লেখ্য পদকপ্রদান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বিবার্তা’র সম্পাদক বাণী ইয়াসমিন হাসি। অনুষ্ঠানে তাকে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করবেন অভি মঈনুদ্দীন ও মৌসুমী ইসলাম। এবারের অনুষ্ঠান সফল করে তোলার জন্য পুরো বিবার্তা পরিবার নিরলশ শ্রম দিয়ে যাচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে গত বছরের চেয়েও এবারের অনুষ্ঠান হবে অনেক বেশি আলোকিত এবং প্রাণোচ্ছল একটি সফল অনুষ্ঠান।
ছবি : গোলাম সাব্বির

আজ শেষ হচ্ছে আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস-২০১৭

অভি মঈনুদ্দীন : বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ২০০২ সাল থেকে ‘আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস’ উদ্যাপিত হয়ে আসছে। মূলত ২০০৩ সালে ‘বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থা’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজু আহমেদ’র হাত ধরেই আনুষ্ঠানিকভাবে ‘আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস’র যাত্রা শুরু হয় বাংলাদেশে। সেই ধারাবাহিকতায় প্রতি বছরই ঢাকায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস উদযাপিত হয়ে থাকে বিশাল আয়োজনের মধ্যদিয়ে।


 শিল্পকলা একাডেমির নৃত্য বিভাগের পরিচালক নৃত্যশিল্পী ও নৃত্য নির্দেশক দীপা খন্দকার বলেন,‘ প্রতি বছরের মতোই এবারের আয়োজনেও আমরা অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। নানান ধরনের চাপ এবং আর্থিক সমস্যা থাকার পরেও আগ্রহীরা অনেক উৎসাহ নিয়ে এই আয়োজনে অংশগ্রহণ করেছেন। এই যে সারাদেশের নৃত্যশিল্পীদের অংশগ্রহণে এক মিলন মেলায় পরিণত হওয়া নৃত্যদিবসকে কেন্দ্র করে. আমরাতো এটাই চেয়েছি এবং আমরা সফল, এখানেই আমাদের তৃপ্তি।

 

’ ‘আন্তর্জাতিক নৃত্য দিবস-২০১৭’র কার্যনির্বাহী সদস্য এবং ‘বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থা’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজু আহমেদ বলেন,‘ এবারের উৎসবের যে বিষয়টি আমাকে সবচেয়ে বেশি অবাক করেছে এবং আনন্দ দিয়েছে তা হলো মায়ের কোলে বসেই অনেক ছোট শিশুরা নেচেছে। আবার কোন কোন শিশু মঞ্চে উঠেও নিজের মনের মতো করে নেচেছে। এই যে ছোট ছোট শিশুদের মধ্যে নৃত্যের প্রতি আগ্রহ সৃষ্টি করা, এটা কিন্তু অনেক বড় বিষয়।


 কারণ এইসব ছোট ছোট শিশুরাইতো একদিন বড় হয়ে আন্তর্জাতিক পরিম-লে দেশের সুনাম অর্জন করে নিয়ে আসবে।’ এবারের উৎসবের পরিচালনার দায়িত্বে আছেন ‘বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থা’র সাংস্কৃতিক সম্পাদক নীলুফার ওয়াহিদ পাঁপড়ি। তিনি জানান এবারের উৎসবে দেশের নানান অঞ্চলের পঞ্চাশটির বেশি দল অংশগ্রহণ করেছে এবং এটা এবারের উৎসবের অন্যতম সফল দিক।


 পাঁপড়ি বলেন,‘ এবারের উৎসবেও আমরা যে পরিমান দর্শক তৈরী করতে পেরেছি এবং তিন/চার বছর বয়সের শিশু থেকে শুরু করে বড়দের মধ্যেও নৃত্যে অংশগ্রহণ করার জন্য যে আগ্রহ তৈরী করতে পেরেছি সেটা অনেক বড় সাফল্য আমাদের। এবারের উৎসব সত্যিই অনেক বড় মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। আজকের সমাপনী দিনে সবাইকে শিল্পকলায় আসার আমন্ত্রণ রইলো।’

 

গত ২৩ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া এই উৎসবের আজ সমাপনী দিন। সমাপনী দিনে সকাল ৮.৩০ মিনিটে মঙ্গল নৃত্য, সকাল ১১টায় র‌্যালি এবং তারপর সেমিনার। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিথ থাকবেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম। সন্ধ্যা ছয়টায় জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে সমাপনী অনুষ্ঠান শুরু হয়ে শেষ হবে রাত দশটায়। ছবি : আলিফ হোসেন রিফাত

বিনোদ খান্না আর নেই

বিনোদন ডেস্ক : অভিনেতা-রাজনীতিবিদ বিনোদ খান্না আর নেই। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ৭০ বছর বয়সী ভারতীয় খ্যাতিমান এই অভিনেতা মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে মারা যান। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। বিনোদ খান্নাকে সপ্তাহ কয়েক আগে মুম্বাইয়ের স্যার এইচ এন রিলায়েন্স ফাউন্ডেশন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে সময় তার সন্তান রাহুল খান্না জানান, তার বাবা পানি-স্বল্পতা জনিত সমস্যা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তিনি তার পিতার স্বাস্থ্যের উন্নতি হয়েছে এবং ডাক্তার বিনোদ খান্নাকে বাসায় নিয়ে যাওয়ার মত সুস্থ বলেও জানান তিনি।


 তাঁর উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘দাবাং’, ‘প্লেয়ার’, ‘দাবাং টু’ ও ‘দিলওয়ালে’। এ ছাড়া, ‘অমর আকবর অ্যান্থনি’, ‘কুরবানি’, ‘ইনকার’, ‘হাত কি সাফাই’ তাঁর অভিনয়জীবনের গুরুত্বপূর্ণ সিনেমা। তাকে সর্বশেষ ‘দিলওয়ালে’ সিনেমায় অভিনয় করতে দেখা গেছে। তার দুই ছেলে অক্ষয় খান্না ও রাহুল খান্নাও অভিনয়ের সাথে জড়িত এবং প্রতিষ্ঠিত অভিনেতা।


দু’বার বিবাহিত এই অভিনেতা সিনেমা জগতে ৫ বছরের বিরতি দিয়ে ধর্মীয় শিক্ষার সাথে জড়িত হয়েছিলেন। অভিনেতা বিনোদ খান্না রাজনীতির সাথেও জড়িত ছিলেন। তিনি ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশে বিজেপির টিকিটে গুরুদাসপুরের লোকসভার সদস্য হয়েছিলেন। এ ছাড়া, তিনি ভারতের সংস্কৃতি ও পর্যটন কেন্দ্রের মন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেন। বিনোদ খান্নার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বলিউড তারকারা-সহ খান্ন ভক্তরা শ্রদ্ধা ও শোক প্রকাশ করতে শুরু করেন।

প্রথমবার একসঙ্গে বিজ্ঞাপনে ফেরদৌস-বাঁধন

অভি মঈনুদ্দীন : যে বছর লাক্স চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতায় শীর্ষ স্থানীয়দের একজন হয়েছিলেন বাঁধন সে বছরই চিত্রনায়ক ফেরদৌসের সঙ্গে মঞ্চে পারফর্ম করেছিলেন। এরপর আরো বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে মঞ্চে ফেরদৌস ও বাঁধন পারফরম করলেও বিজ্ঞাপনে বা চলচ্চিত্রে একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ হয়ে উঠেনি দু’জনের। এবারই প্রথম ফেরদৌস ও বাঁধন একসঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়ে একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করলেন। হাসান মোরশেদ’র নির্দেশনায় একটি বহুজাতিক পণ্য প্রতিষ্ঠানের ফ্রিজ’র বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করেছেন।


গত মঙ্গলবার রাজধানীর কোক ফ্যাক্টরীতে বিজ্ঞাপনটির শুটিং-এ অংশ নেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস ও অভিনেত্রী বাঁধন। বিজ্ঞাপনটিতে কাজ করা প্রসঙ্গে ফেরদৌস বলেন,‘ বিজ্ঞাপনটিতে আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের গল্প বেশ চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। সংক্ষেপে যদি বলতে হয় তাহলে বলবো মনেরমতো একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করেছি। বাঁধন খুব লক্ষী একটি মেয়ে। খুব মিষ্টি মেয়েও বটে।


 তারসঙ্গে স্টেজ-এ পারফরম করেছি বেশ কয়েকবার। এবারই প্রথম আমরা দু’জন পর্দার জন্য কাজ করেছি। বেশ ভালো করেছে বাঁধন। আমি বিজ্ঞাপনটি নিয়ে খুবই আশাবাদী যে এটি দর্শকের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলবে।’ মডেল ও অভিনেত্রী বাঁধন বলেন, ‘আমার মিডিয়া ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ফেরদৌস ভাইয়ার সঙ্গে বেশ ভালোভাবেই পরিচিত। যে কারণে তারসঙ্গে একটি সু-সম্পর্ক বিদ্যমান। বেশ কয়েকবার যেমন মঞ্চে পারফর্ম করেছি , আবার তার প্রোডাকশনেও আমি কাজ করেছি। মনে মনে ইচ্ছে ছিলো যদি কখনো তারসঙ্গে চলচ্চিত্রে কাজ করার প্রস্তাব আসে তাহলে অবশ্যই তাতে অভিনয় করবো। চলচ্চিত্রে আপাতত কাজ না করা হোক, বিজ্ঞাপনেতো তারসঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেলাম। সেটাও কোন অংশে কম নয়।


 ফেরদৌস ভাই অনেক আন্তরিক এবং খুব সহযোগিতা পরায়ণ একজন শিল্পী। তারসঙ্গে গল্প নির্ভর এই বিজ্ঞাপনটিতে কাজ করে অনেক ভালোলেগেছে। বলা যায় আমি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি বিজ্ঞাপনটি প্রচারের।’ ফেরদৌস এবং বাঁধন জানান শিগগিরই বিজ্ঞাপনটি দেশের প্রায় সবগুলো চ্যানেলে প্রচারে আসবে। বিজ্ঞাপনে ফেরদৌসকে প্রথম দেখা যায় আফজাল হোসেনের নির্দেশনায় তারিনের সঙ্গে একটি বিজ্ঞাপনে।


 অন্যদিকে বাঁধনকে দেখা যায় গাজী শুভ্রর নির্দেশনায় একটি সেলফোন কোম্পানীর বিজ্ঞাপনে। ফেরদৌস ও পূর্ণিমা গতকাল রাতে চট্টগ্রামের একটি শো’তে অংশ নেন। এবারের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ফেরদৌস কার্যনির্বাহী সদস্য পদে নির্বাচন করছেন। গত বুধবার থেকে কক্সবাজারে আছেন বাঁধন। সেখানে তিনি অনিমেষ আইচের নির্দেশনায় ‘বুবনের হানিমুন’সহ আরো একটি নাটকের শুটিং-এ অংশ নিবেন। ছবি ঃ মোহসীন আহমেদ কাওছার।

বাংলা ভাষার প্রেমে প্রিয়াংকা

বিনোদন ডেস্ক : আঞ্চলিক ছবির প্রতি অভিনেত্রী প্রিয়াংকা চোপড়ার টান ছোট থেকেই। এবার সেই আঞ্চলিক ছবি নিয়ে কিছু করতে চান তিনি। ভোজপুরি, মারাঠি, পাঞ্জাবি, সিকিমিজ, কোঙ্কনি ছবিতে তার প্রযোজনা সংস্থা ‘পার্পেল পেবল পিকচার্স’ ইতিমধ্যেই হাত দিয়েছে। এবার যেন বাংলা ভাষার প্রেমে পড়েছেন প্রিয়াংকা। এর আগে বাংলা ভাষাও শিখেছেন এ অভিনেত্রী। তবে এবার দুটি বাংলা ছবি প্রযোজনা করবেন এ অভিনেত্রী।


বাংলা ছবি দু’টির নামও ঠিক হয়ে গিয়েছে। প্রথমটি ‘বৃষ্টির অপেক্ষায়’, আর দ্বিতীয়টি ‘বাসস্টপে  কেউ নেই’। ছবি দু’টির কাস্টিং কী হবে তা নিশ্চিত ভাবে জানা যায়নি। তবে বলিউডের বাঙালি চেনামুখেরাই থাকছেন ছবিতে। তবে কানাঘুষা শোনা যাচ্ছে, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত এবং রাহুল বসু থাকছেন একটি ছবিতে। কথাও অনেকটা এগিয়ে গিয়েছে তাদের সঙ্গে। প্রিয়াংকাকেও একটি ছবিতে অতিথি চরিত্রে কাজ করতে দেখা যাবে।


 প্রিয়াংকা  যে সময় আমেরিকায় ছিলেন, তখন কলকাতায় বেশ কয়েকবার ঢুঁ মেরে গিয়েছেন তার মা মধু চোপড়া। তিনি জানিয়েছেন, পার্পেল পেবল পিকচার্স সব সময়েই আঞ্চলিক সিনেমার পাশে রয়েছে। আর প্রযোজক হিসাবে প্রিয়াংকা চায়, ভালো গল্প যেন সব স্তরের মানুষের কাছে পৌঁছায়। বিশেষ করে যে গল্পগুলো বিশ্বের দরবারে যাওয়ার দাবি করে।’ খুব তাড়াতাড়িই বাংলা ছবি দু’টি ফ্লোরে যেতে চলেছে বলেও জানিয়েছেন প্রিয়াংকার মা।

দুই বন্ধুর প্রেমের গল্প নিয়ে ঈদের নাটক

বিনোদন প্রতিবেদক : আসছে ঈদে একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারের লক্ষে আসিফ ইকবাল জুয়েলের রচনায় ও পরিচালনায় নির্মিত হয়েছে বিশেষ নাটক ‘বন্ধুর বালিকা’। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র জুয়েল নির্মাণেও মেধার পরিচয় দিচ্ছেন। মূলত নাটকটির গল্প দুই বন্ধুর একই মেয়েকে ভালোলাগা, ভালোবাসাকে নিয়ে। শুভ্র ও জয় দুই বন্ধু। জয়ের একসময় ভালোলাগতো তানিয়াকে।


 কিন্তু ঘটনাক্রমে তানিয়ার সঙ্গে দেখা হয় শুভ্র’র। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক সময় তিনজনেরই দেখা হয় একসঙ্গে। জয় শুভ্রকে বলে , ‘আমি যে মেয়েটিকে ভালোবাসতাম, তানিয়া সেই মেয়েটিই।’ গল্প মোড় নেয় তখন অন্যদিকে। নাটকে নাঈম ও ইরফান সাজ্জাদের বিপরীতে তানিয়া চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেহজাবিন চৌধুরী। নাটকটিতে অভিনয় প্রসঙ্গে নাঈম বলেন,‘ এর আগে আসিফ ইকবাল জুয়েলের নির্দেশনায় আমি চারটি নাটকে অভিনয় করেছি। নির্মাতা হিসেবে জুয়েল বেশ মেধাবী। যে কারণে তারসঙ্গে কাজ করে বেশ আরাম।


 তাছাড়া তার প্রতিটি নাটকেরই গল্পে নতুনত্ব থাকে। এই নাটকেও যেমন আছে। ’ ইরফান সাজ্জাদ বলেন,‘ বন্ধুর বালিকা স্ক্রিপ্ট আমার কাছে ভালোলাগায় কাজটি করেছি। জুয়েল অনেক যতœ নিয়ে কাজটি করেছেন। আশাকরি দর্শকের কাছে ভালোলাগবে নাটকটি।’ স্ত্রী নাদিয়াকে সঙ্গে নিয়ে নাঈম বেশ কিছুদিন কয়েকটি দেশ ভ্রমণে বেড়িয়ে এসে আবার কাজে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন।

 এদিকে কক্সবাজারে অনিকের নির্দেশনায় ইশানার বিপরীতে ‘প্রবঞ্চনা’ নাটকের কাজ শেষ করেছেন ইরফান সাজ্জাদ। নাঈম অভিনীত নাবিল পরিচালিত ‘রঙধনু’ চলচ্চিত্রটি আদৌ আর আলোর মুখ দেখবে কী না তা নিয়ে রয়েছে যথেষ্ট সন্দেহ। এতে নাঈমের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন আঁচল ও অ্যানি। ইরফান সাজ্জাদ অভিনীত তানিয়া আহমেদ পরিচালিত ‘ভালোবাসা এমনই হয়’ সম্প্রতি মুক্তি পায়। এতে ইরফানের বিপরীতে অভিনয় করেন বিদ্যা সিনহা মিম। ছবি ঃ মোহসীন আহমেদ কাওছার

দেখা মিলবে সাহারা’র

অভি মঈনুদ্দীন : অনেকদিন চিত্রনায়িকা সাহারার কোন খোঁজ নেই। বিয়ের পর শুধু সংসার নিয়েই ব্যস্ত আছেন তিনি। যে কারণে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট কোন অনুষ্ঠানেও তাকে দেখা যায়না। তবে তার ভক্ত দর্শকেরা ঠিকই তাকে খুব মিস করে। মিস করেন সহকর্মীরাও। সাহারাও তার ফেলে আসা চলচ্চিত্র জীবনকে প্রায়শই খুব মিস করেন। কিন্তু বিয়ের পর সাহারাকে আর নতুন কোন চলচ্চিত্রে অভিনয়ে দেখা যায়নি।


 আদৌ আর তার চলচ্চিত্রে অভিনয়ে ফেরা হবে কী না সে বিষয়ে রয়েছে অনিশ্চয়তা। তবে আগামী  ৫ মে অনুষ্ঠিতব্য ২০১৭ সালের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে তিনি বি এফডিসিতে আসবেন এমনটাই গতকাল সকালে জানালেন তিনি। সাহারা বলেন,‘ বিয়ের পর নানান অনুষ্ঠানে যাবার দাওয়াত পেেেয়ছি। আমার চলচ্চিত্রের মানুষেরা আমাকে ভুলেনি, তা আমি অনুভব করি।


 আমিও খুব মিসকরি সেইসব ফেলে আসা দিন। যদি আল্লাহ সুস্থ রাখেন তবে ইচ্ছে আছে ৫ মে বিএফডিসিতে যাবার। ইচ্ছে আছে ভোট দেবার। আমি চাইবো যারা সত্যিকার অর্থেই শিল্পীদের জন্য কাজ করবেন, শিল্পী সমিতির উন্নয়নে কাজ করবেন তারাই যেন জয়লাভ করেন।’ ২০০৪ সালে শাহাদাৎ হোসেন লিটনের নির্দেশনায় ‘রুখে দাঁড়াও’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে নায়িকা হিসেবে সাহারার অভিষেক হয়। ২০০৮ সালে বদিউল আলম খোকন পরিচালিত শাকিব খানেরই বিপরীতে ‘প্রিয়া আমার প্রিয়া’ চলচ্চিত্রের ব্যাপক সাফল্যে আলোচনায় আসেন সাহারা।


 এটি ২০০৮ সালের সবচেয়ে ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র হিসেবে বিবেচিত হয়। শুরু হয় সাহারার নায়িকা জীবনের নতুন অধ্যায়। যে অধ্যায়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন অনেক নির্মাতা যাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন  চন্দন চৌধুরী, শাহ মোঃ সংগ্রাম, শাহীন সুমন ও এম বি মানিক, কাজী হায়াৎ, আহমেদ নাসির, রয়েল বাবু, স্বপন চৌধুর, কমল সরকার, শেখ নজরুল ইসলাম, গাজী মাহবুব’সহ আরো অনেকে।


 সাহারা অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র রাজু চৌধুরী পরিচালিত ‘তোকে ভালো বাসতেই হবে’। খুব ছোটবেলা থেকেই সাহারা নাচ শিখেছেন নৃত্য পরিচালক আজিজ রেজার কাছে। আর সে সুবাদেই এক সময় পরিচয় হয় পরিচালক লিটনের সাথে। সাহারা প্রায় চল্লিশটিরও বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।  অভিনয়ে আর ফিরবেন কী না এমন প্রশ্নের জবাবে সাহারা বলেন,‘ আপাতত অভিনয়ে ফেরার সম্ভাবনা নেই’।

ফের ভাইরাল…

বিনোদন ডেস্ক : অভিনয়, গান, নাচের পাশাপাশি বলিউড সুপারস্টার সালমান খান একজন দক্ষ উপস্থাপকও। প্রায়ই তাকে এ ভূমিকায় দেখা যায়। উপস্থাপনার সময় নানা বৈচিত্র্যময় কা- ঘটিয়ে সালমান প্রায়ই খবরের শিরোনাম হন। ২০১৪ সালের জানুয়ারিতে স্টার গিল্ড অ্যাওয়ার্ড উপস্থাপনা করে বেশ হইচই ফেলে দিয়েছিলেন সালমান খান। সব বৈরিতা ভুলে সালমান ওই অনুষ্ঠানের মঞ্চেই দীর্ঘ সময় পর শাহরুখ খান ও অভিষেক বচ্চনের কাঁধে কাঁধ মিলিয়েছেন।

 তবে সবকিছু ছাপিয়ে যায়, মঞ্চে সালমানের করা অন্য আরেকটি কীর্তি। অনুষ্ঠানের এক পর্বে বলিউডের আলোচিত তারকা সানি লিওনকে ডেকে নেন সালমান। হাজারো দর্শকের সামনে মঞ্চেই সানিকে হাতে কলমে শাড়ি পরা শিখিয়েছেন বলিউড এ সুপারস্টার। সম্প্রতি সেই শাড়ি পরানোর সময় তোলা ছবিগুলো দিয়ে তৈরি ভিডিও ফের ভাইরাল হয়েছে। সালমানের শাড়ি পরানোর স্থির ছবি দিয়ে তৈরি ভিডিও ইউটিউবে এ পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কোটি বার দেখা হয়েছে। 

নতুন তিন নাটকে পূর্ণিমা এবং নির্বাচন প্রসঙ্গ

অভি মঈনুদ্দীন : ঈদ আসতে এখনো অনেক সময় বাকী। কিন্তু এরইমধ্যে ঈদের নাটক এবং টেলিফিল্ম নির্মাণের কাজ বলা যায় বেশ ভালোভাবেই শুরু করেছেন নির্মাতারা। এরমধ্যে তিনজন নির্মাতা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত নায়িকা পূর্ণিমাকে নিয়ে তিনটি নাটক নির্মাণ করতে যাচ্ছেন। তারা তিনজন হচ্ছেন চয়নিকা চৌধুরী, শ্রাবণী ফেরদৌস ও রাজীবুল ইসলাম রাজীব।


চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে চয়নিকা চৌধুরী নির্মাণ করবেন ‘তালপাতার পাখা’ নামের একটি নাটক। দীর্ঘদিনের নাটক নির্মাণের ক্যারিয়ারে এবারই প্রথম চয়নিকা চৌধুরী চিত্রনায়িকা পূর্ণিমাকে নিয়ে নাটক নির্মাণ করতে যাচ্ছেন। আর তাই বেশ উচ্ছসিত তিনি। পূর্ণিমাও বেশ আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছেন চয়নিকা চৌধুরীর নির্দেশনায় কাজ করতে। অনুরূপভাবে নির্মাতা হিসেবে শ্রাবণী ফেরদৌস এককভাবে কাজ শুরু করেছেন খুব বেশিদিন না হলেও ভিন্ন ধরনের গল্প নিয়ে নাটক নির্মাণে তিনি বেশ প্রশংসিত হয়েছেন।


 যে কারণে তার নাটকের প্রতি দর্শকের আলাদা গ্রহণযোগ্যতা আছে। পূর্ণিমা ও ইমনকে নিয়ে শ্রাবণী ফেরদৌস তার নিজের রচনায় নির্মাণ করতে যাচ্ছেন ‘মিসেস কুক’ নাটকটি। চয়নিকা চৌধুরীর নাটকটি নির্মিত হবে চলতি মাসের ২৯ ও ৩০ এপ্রিল। শ্রাবণী ফেরদৌসের নাটকটির শুটিং হবে আগামী ৫ মে ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি’র নির্বাচনের পরপরই। তবে রাজীবুল ইসলাম রাজীবের নাটকটির সিডিউল এখনো নির্ধারিত হয়নি। অনুরূপভাবে গল্পও চুড়ান্ত হয়নি। তবে পূর্ণিমা জানিয়েছেন যে তিনি রাজীবের নাটকে কাজ করবেন।


 এদিকে ২০০৪ সালে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য হিসেবে জয়লাভ করেছিলেন পূর্ণিমা। সে সময় সভাপতি হিসেবে জয়লাভ করেছিলেন সদ্যপ্রয়াত মিজু আহমেদ এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে জয়লাভ করেছিলেন প্রয়াত নায়ক মান্না। ২০১৭ সালের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে মিশা সওদাগর ও জায়েদ খানের প্যানেল থেকে আবারো কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য হিসেবে নির্বাচন করছেন পূর্ণিমা। নির্বাচন প্রসঙ্গে পূর্ণিমা বলেন,‘ এখনো নির্বাচন উপলক্ষে ভোটারদের কাছে ভোট চাইনি। দু’একদিনের মধ্যে ভোটারদের কাছে ভোট চাওয়া শুরু করবো।


 আমার বিশ্বাস এবং আমার আশা আমার সহকর্মীরা আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন। আমার আরো বিশ্বাস আমাদের প্যানেল জয়লাভ করবে।’ প্রায় ছয়মাস বিরতির পর মিজানুর রহমানের নির্দেশনায় একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হবার মধ্যদিয়ে কাজে ফেরেন পূর্ণিমা। এতে তার সহশিল্পী চিত্রনায়ক ইমন। এরইমধ্যে তিনি রায়হান খানের রচনা ও নির্দেশনায় নোবেল ও মোশাররফ করিমের বিপরীতে ‘যখন সময় থমকে দাঁড়ায়’ নাটকে অভিনয় করেছেন। এটি আসছে ঈদে আরটিভিতে প্রচার হবে। 

লীলাবতী শহরে’তে তিশা

বিনোদন প্রতিবেদক : নুসরাত ইমরোজ তিশা সাম্প্রতিক সময়ে ঈদের নাটকের কাজ নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন। গতকাল থেকে রাজধানীর পুরোনো ঢাকায় তিনি মাহমুদ দিদারের নির্দেশনায় চিত্রনায়ক ইমনের বিপরীতে ‘লীলাবতী শহরে’ নাটকে অভিনয় করছেন। গতকাল সকালে বৃষ্টি উপেক্ষা করেই শুটিং শুরু হয়েছে। এতে অভিনয় প্রসঙ্গে তিশা বলেন,‘ দিদারের নির্দেশনায় এর আগেও কাজ করেছি।

 নির্মাতা হিসেবে বেশ বিচক্ষণ তিনি। এবারের নাটকের গল্পও এক কথায় চমৎকার। এরইমধ্যে কয়েকটি দৃশ্যে কাজ করেছি। বেশ ভালোলাগছে কাজটি করে। আর এটা সবাই জানেন যে আমি ভালো গল্প না হলে কাজ করিনা। লীলাবতী শহরে ঠিক তেমনি ভালোলাগার মতো একটি গল্প।’ এরইমধ্যে তিশা আসছে ঈদের জন্য উজ্বলের নির্দেশনায় একটি নাটকের কাজ শেষ করেছেন। এছাড়া মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে তার অভিনীত মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত ‘ডুব’ চলচ্চিত্রটি।

আবারও বিজ্ঞাপনে বিদ্যা সিনহা মিম

বিনোদন প্রতিবেদক : হঠাৎ হঠাৎ বিশেষ দিবসের নাটকে অথবা টেলিফিল্মে অভিনয়ে দেখা যায় বিদ্যা সিনহা মিমকে। হঠাৎ দেখার কারণ হলো তিনি এখন চলচ্চিত্রে কাজ করা নিয়ে বেশি ব্যস্ত। তবে বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করেন মিম। প্রোডাক্ট পছন্দ হলে, স্ক্রিপ্ট এবং পারিশ্রমিক সামঞ্জস্য হলে মিম বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করেন। সে হিসেবে মিম গতকাল নতুন একটি বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে কাজ করলেন। একটি বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের ফুটওয়্যারের বিজ্ঞাপন এটি।

 

শুটিং গতকাল ভোর থেকে শুরু হবার কথা থাকলেও বৃষ্টির কারণে শুটিং অনেক দেরীতে শুরু হয়। নির্মাতা জানান এই বিজ্ঞাপনে মিম’র সঙ্গে একজন ক্রিকেটারকেও দেখা যাবে। তবে কে হবেন সেই ক্রিকেটার মডেল তা এখনো চুড়ান্ত করেননি নির্মাতা। আপাতত মিম’র শুটিংই করছেন তিনি। পরবর্তীতে ক্রিকেটারের শুটিং হবে। বিদ্যা সিনহা মিম বলেন,‘ বিজ্ঞাপনে কাজ করার ব্যাপারে আমি সবসময়ই ভীষণ চুজি।


 আমার কাজগুলোর দিকে ভালোভাবে খেয়াল করলেই তা সহজে অনুমেয়। আমি যে কাজই করি না কেন যথেষ্ট আন্তরকিতা নিয়েই তা করি। কারণ আমি মনেকরি যেহেতু কাজ করার সম্মতি জানিয়েছি, সুতরাং কাজটা আমাকে গুরুত্ব দিয়েই করতে হবে। ঘুম থেকে উঠা, শুটিং-এ যাবার জন্য প্রস্তুত হওয়া, লোকেশনে পৌঁছানো, মেকাপ নেয়া এবং সর্বোপরি ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানো-সবকিছুর মধ্যেই আমার আরাধনা থাকে, থাকে আন্তরিকতা। আমি মনেপ্রাণে একজন শিল্পী। একজন শিল্পী হিসেবেই আজীবন কাজ করে যেতে চাই।’

 

নির্মাতা আরিয়ান জানান দ্রুতই বিজ্ঞাপনটি প্রচারে আসবে। এদিকে দু’তিনদিনের মধ্যে বিদ্যা সিনহা মিম আরো একটি নতুন বিজ্ঞাপনে কাজ করার কথা রয়েছে। তবে সে বিষয়ে এখনই চুড়ান্ত কিছু জানাতে চাচ্ছেন না তিনি। এদিকে মনতাজুর রহমান আকবরের নির্দেশনায় বিদ্যা সিনহা মিম অভিনয় করছেন ‘দুলাভাই জিন্দাবাদ’ চলচ্চিত্রে।


এতে তার বিপরীতে আছেন বাপ্পী। তবে ডিপজলের মায়ের মৃত্যুর কারণে চলচ্চিত্রটির শুটিং কিছুদিন পিছিয়ে দেয়া হয়েছে। চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করছেন নাদের খান, যিনি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ওমরসানী-অমিত হাসানের প্যানেল থেকে ভাইস-প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী। মিম এরইমধ্যে শেষ করেছেন সৈকত নাসিরের ‘পাষাণ’ চলচ্চিত্রের কাজ। এতে তার বিপরীতে আছেন কলকাতার ওম। প্রয়াত খালিদ মাহমুদ মিঠু পরিচালিত ‘জোনাকীর আলো’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য মিম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। এতে তার বিপরীতে ছিলেন ইমন।
ছবি ঃ মোহসীন আহমেদ কাওছার

অলিকের ধারাবাহিকে মিন্টুর সুর সঙ্গীতে শীর্ষ সঙ্গীতে ইমরান

অভি মঈনুদ্দীন : চলচ্চিত্র ও নাট্যনির্মাতা এস এ হক অলিকে তার নতুন ধারাবাহিক নাটক ‘হসপিটাল’র নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন। তার নতুন ধারাবাহিকের শীর্ষ সঙ্গীতে এবার কন্ঠ দিলেন এই সময়ের আলোচিত এবং শ্রোতাপ্রিয় কন্ঠশিল্পী ইমরান।

গত ২২ এপ্রিল রাত সাড়ে দশটায় রাজধানীর ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডে বরেণ্য সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক মকসুদ জামিল মিন্টুর স্টুডিওতে ইমরান ধারাবাহিকটির শীর্ষ সঙ্গীতে কন্ঠ দিলেন। গানের কথা লিখেছেন এস এ হক অলিক। গানটির সুর সঙ্গীত করেছেন মকসুদ জামিল মিন্টু। গানের কথা হচ্ছে ‘জীবন মানে জটিল খেলা, হঠাৎ করে যায় গো বেলা…একটুখানি বাঁচার লোভে সবাই খুঁজি হসপিটাল’। ব্যস্ততার মধ্যে অনেকটা হঠাৎ করেই গানটি লেখা অলিকের।


 ইমরানের গায়কী প্রসঙ্গে মকসুদ জামিল মিন্টু বলেন,‘ ইমরানের কন্ঠতো এক কথায় চমৎকার। খুবই ভালো গায় ইমরান। এর আগেও আমার সুর সঙ্গীতে একটি ধারাবাহিকের শীর্ষ সঙ্গীতে ইমরান কন্ঠ দিয়েছিলো। এবার অলিকের নাটকে বেশ চমৎকার গেয়েছে। তাছাড়া গানের কথাটা জীবনের সঙ্গে খুবই অর্থবহ। যে কারণে একটু বেশি যতœ নিয়েই মনের তাগিদ থেকে গানটা করা।


’ আবারো মকসুদ জামিল মিন্টুর সুর সঙ্গীতে কন্ঠ দেয়া প্রসঙ্গে ইমরান বলেন,‘ মিন্টু ভাই অনেক গুনী এবং অভিজ্ঞ একজন সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক। তার সুর সঙ্গীতে কাজ করতে পারাটা সত্যিই আমার জন্য সৌভাগ্যের বিষয়। আমি সবসময়ই ভালো কাজ করতে চাই। অলিক ভাইয়ের প্রতি কৃতজ্ঞ আমাকে তার ধারাবাহিকে এমন চমৎকার একটি গান গাইবার সুযোগ করে দেবার জন্য।

 আশাকরি গানটি শ্রোতাদের কাছে অনেক ভালোলাগবে। ’ ১০৪ পর্বের নির্মাণ চলতি ধারাবাহিক ‘হসপিটাল’র প্রচার শুরু হবে মে মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে মাছরাঙ্গা টিভিতে। নাটকটির রচয়িতা অলিক নিজেই। উল্লেখ্য এর আগে মকসুদ জামিল মিন্টুর সুর সঙ্গীতে সালাহ উদ্দিন লাভলুর ‘সোনার পাখি রূপার পাখি’ ধারাবাহিকের শীর্ষ সঙ্গীতে কন্ঠ দিয়েছিলেন ইমরান।

 কবির বকুলের লেখায় এবং কিশোরের সুর সঙ্গীতে ইমরান প্রথম একটি নাটকের শীর্ষ সঙ্গীতে কন্ঠ দেন। অলিকের ‘আরো ভালোবাসবো তোমায়’ এবং ‘এক পৃথিবী প্রেম’ চলচ্চিত্রে ইমরান প্লে-ব্যাক করেছিলেন। ইমরানের গাওয়া শীর্ষ সঙ্গীতে ‘লুকানো ভালোবাসা’ নামের একটি বিদেশী সিরিয়াল ডাবিং করে একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচার হচ্ছে। ছবি ঃ আলিফ হোসেন রিফাত ।

কঠিন কাজটিই করতে চাই

  দেশিয় টিভি ও চলচ্চিত্রের একজন পরীক্ষিত অভিনেতা আনিসুর রহমান মিলন। অনেকেই তাকে হুমায়ুন ফরীদির উত্তরসূরী বলে থাকেন। মিলন চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে কাজ করে আরাম বোধ করেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রকিব হোসেন।আপনাকে টিভি নাটকে মাঝে মাঝেই একটু চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে দেখা যায়। এ ধরনের চরিত্র কেমন উপভোগ করেন?  


আমি কখনোই এই দাবী করব না যে, এরইমধ্যে আমি যে নাটকগুলোতে কাজ করেছি বা এখন করছি- তার সবগুলোতেই চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে কাজের সুযোগ পেয়েছি। বরং আমি পেশাদারিত্বের জায়গা থেকেই সত্তর ভাগ নাটকে কাজ করছি। আর বাকি ত্রিশ ভাগ নাটকে যেখানে নিজেকে নতুন করে তুলে ধরার সুযোগ পাচ্ছি, সেখানে একটা চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করছি।

 এই ধারার কাজের বেলায় এটা আমি ফিল করি, যে চরিত্রটা সহজ নয়, যেটি সচরাচর সবাইকে দিয়ে হবে না। সেই চরিত্রটির জন্য নির্মাতারা আমাকে ভাবেন। এই যে আমাকে নিয়ে ভিন্ন চরিত্রে কাজ করানোর তাদের আগ্রহÑসেই জায়গাটি বোধ হয় আমি তৈরি করতে পেরেছি।অভিনেতা হিসেবে আপনার এখনকার চাওয়া কী? আমি চাই, যে কাজটি করতে গিয়ে আমি নিজেকে নতুন করে আবিস্কার করার সুযোগ পাবো-সেই কাজটি আমার কাছে আসুক। আমি পরিশ্রম করতে চাই। কঠিন কাজটিই  করতে চাই।
দর্শক হিসেবে নিজের কাজ দেখে কীভাবে তা মুল্যায়ণ করেন?


আমি যখন নিজের অভিনয় দেখি, তখন মনে হয় আমার অভিনয় কিছুই হয়নি। নিজের কাজ নিয়ে আমার সন্তুষ্টির লেভেলটা খুবই কম থাকে। অল্প কিছু নাটক দেখে আমার মনে হয়েছে যে, আমি বোধ হয় আমার প্রত্যাশার জায়গাটা ছুঁতে পেরেছি। কিন্তু অধিকাংশ সময়ই নিজের কাজ দেখলে আমার মনে হয়, আমি বোধ হয় আরও ভালো করতে পারতাম। তা করা উচিতও ছিল।


আপনি আপনার সিনিয়রদের অনেকের কাছ থেকেই অভিনয়ের জন্য প্রশংসিত হয়েছেন। এই মুহুর্তে কোনটি বেশি মনে পড়ছে?
‘জলকন্যা’ শিরোনামের একটি নাটকে আমার অভিনয় দেখে কেঁদে ছিলেন বিপাশা হায়াত। তিনি আমাকে বলেছিলেন, মিলন আপনার অভিনয় দেখে আমি কেঁদেছি। আমি আপনার কাছে যেমনটি চেয়েছিলাম, আপনি আমাকে তাই দিয়েছেন। এটা আমার অনেক বড় পাওয়া।
‘অনেক সাধের ময়না’ ছবিটি আপনার অনেক আলোচিত করেছে। এটা নিয়ে কিছু বলবেন কী?


এই ছবিতে কাজ করে আমি অনেক মজা পেয়েছিলাম। এতে কাজ করে আমার মধ্যে একটা প্রত্যাশা তৈরি হয়েছিল যে, এই ছবিতে আমার পারফরম্যান্স দেখে বড়পর্দার দর্শকরা টিভি ও মঞ্চের মতো এখানেও আমাকে আপন করে নেবেন। আমি সফল হয়েছি। দর্শকরা আমাকে গ্রহণ করেছেন। সত্যি বলতে কী, আমার অভিনীত এই ছবিটি এমন এক সময় মুক্তি পেয়েছে, যখন দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি ছিলো অস্বস্থিকর। তা না হলে ছবিটি আরও সাড়া জাগাতো দর্শকমহলে। এই ছবিতে আমার অভিনয় নিয়ে দর্শকদের কাছ থেকে আমি যে সাড়া পেয়েছি, তা আমাকে আগামীতে আরও ভালো ভালো ছবিতে কাজের জন্য অনুপ্রাণিত করছে।

শুটিংয়ে বিরতি ফারিয়ার

বিনোদন প্রতিবেদক : দেশিয় শোবিজ তারকাদের আইন বিষয়ে পড়ার ঘটনা নতুন নয়। চিত্রনায়িকা নূসরাত ফারিয়াও আইন পড়ছেন। ব্রিটিশ স্কুল অব ল থেকে আইন বিষয়ে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন তিনি। পরীক্ষা শুরু হবে ১০ মে। এজন্য আপাতত নায়িকা নতুন কোনো কাজ করছেন না।

 

নিজেকে পুরোপুরি ডুবিয়ে দিয়েছেন পড়াশোনায়। ফারিয়া বলেন, ‘আমি সবার আগে পড়াশোনাকে গুরুত্ব দেই। কারণ এর ভাগ কেউ নিতে পারে না।’ এদিকে ‘বস টু’ ছবির শুটিং শেষে ১৩ এপ্রিল দেশে ফেরেন ফারিয়া। এরপর তিনি ব্যস্ত হয়ে পড়েন তার অভিনীত নতুন ছবি ‘ধ্যাততেরিকি’র  প্রচারণায়।


 পহেলা বৈশাখে মুক্তি পায় এটি। নায়িকা জানিয়েছেন, ‘ধ্যাততিরিকি’ সবার কথা ভেবে নির্মিত হয়েছে। গল্প, চরিত্র, অভিনয়Ñসব কিছুতেই ছিল নতুনত্ব। দর্শকও ছবিটি দারুণভাবে গ্রহণ করেছে। চলতি বছর নূসরাত ফারিয়ার দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছে। নায়িকা বলেন, ‘প্রেমী ও প্রেমী ছবিটি তৈরি হয়েছিল সর্বোচ্চ ৩০ বছর বয়সী দর্শকদের জন্য। কিন্তু ছবিটি সবাই দেখেছেন।

 

এর আগেও কমেডি ঘরানার ছবিতে অভিনয় করেছেন নূসরাত ফারিয়া। ভারতের বাংলা ছবি ‘হিরো ফোরটোয়েন্টি’ ও ‘বাদশা’ এই ধারার ছবি। তাই ‘ধ্যাততেরিকি’তে কাজ করতে তেমন কোনো অসুবিধা হয়নি নায়িকার। তবে এ ছবিতে কোনো ইংরেজি শব্দ ব্যবহার না করে শতভাগ বাঙালি থাকার চেষ্টা করেছেন তিনি। শিখতে হয়েছে লাঠি খেলা।’

শেষের পথে এসডি রুবেল-ববির ‘বৃদ্ধাশ্রম’

অভি মঈনুদ্দীন : তিনবছর ধরে জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী এসডি রুবেল একটি চলচ্চিত্রের গল্প নিয়ে গবেষণা করছিলেন। সেই গল্পই সরকারী অনুদান পেলো ২০১৫-২০১৬’তে। চলচ্চিত্রের নাম ‘বৃদ্ধাশ্রম’। এর প্রযোজক হিসেবে আছেন লোরা তালুকদার এবং নির্মাতা হিসেবে আছেন স্বপন চৌধুরী। চলচ্চিত্রটির নির্মাণ কাজ গত বছর শুরু হলেও স্বপন চৌধুরী বর্তমানে অসুস্থ থাকায় চলচ্চিত্রটি নির্মাণের দায়িত্বে আছেন কন্ঠশিল্পী ও অভিনেতা এসডি রুবেল।


 সরকারী অনুদানের চল্লিশ লক্ষ টাকা চারটি ধাপে পাচ্ছেন চলচ্চিত্রটির প্রযোজক। তবে চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করতে গিয়ে এসডি রুবেল জানান ‘বৃদ্ধাশ্রম’র মতো একটি চলচ্চিত্র নির্মাণে সরকারের পক্ষ থেকে অনুদানের অর্থ আরো বাড়ানো উচিৎ। ‘বৃদ্ধাশ্রম’ চলচ্চিত্রে প্রথমবারের মতো জুটি হয়ে অভিনয় করছেন এসডি রুবেল ও ববি।

 

চলচ্চিত্রটিতে এসডি রুবেল একজন সমাজসেবকের ভূমিকায় এবং ববি একজন সমাজকর্মীর ভূমিকায় অভিনয় করছেন। এরইমধ্যে চলচ্চিত্রটির সত্তরভাগের কাজ শেষ হয়েছে বলে জানান এসডি রুবেল। এর আগে মনতাজুর রহমান আকবরের নির্দেশনায় শাবনূরের বিপরীতে ‘এভাবেই ভালোবাসা হয়’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন এসডি রুবেল। তবে এবার শুধু অভিনয়ই নয় নির্মাণের সাথেও সম্পৃক্ত রুবেল।


 রুবেল বলেন,‘ এর আগে আমি বিভিন্ন সময়ে ত্রিশটিরও বেশি সামাজিক সচেতনতামূলক বিজ্ঞাপন, ত্রিশটিরও বেশি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান, অসংখ্য মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছি। তাই নির্মাণে আমার অভিজ্ঞতা আছে বেশ ভালো। তাছাড়া আমার প্রযোজনা সংস্থা থেকে নাটকও নির্মিত হয়েছে।

 

আমাদের দেশে এখন সামাজিক গল্পের চলচ্চিত্র নির্মাণ প্রায় বন্ধই হয়েগেছে। যে কারণে আমার মনের তাগিদ থেকেই বৃদ্ধাশ্রম নিয়ে গল্প দাঁড় করিয়েছি। সরকারের কাছে কৃতজ্ঞ এমন একটি গল্পে চলচ্চিত্র নির্মাণে অনুদানের জন্য। কিন্তু অনুদান আরো বাড়ানো উচিত।


 কারণ এখন আমাদের নিজেদের পকেট থেকেই চলচ্চিত্রটি শেষ করার জন্য অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে। ’ চলচ্চিত্রটির কাহিনী বিন্যাস ও চিত্রনাট্য করেছেন কমল সরকার। এতে অভিনয় প্রসঙ্গে ববি বলেন,‘ গল্পটিতো আমি আগেই পড়েছি। বৃদ্ধাশ্রমে শুটিং করতে গিয়ে খুব খারাপ লেগেছিলো। এতো কষ্ট করে বৃদ্ধাশ্রমে মা, বাবারা থাকেন তা নিজের চোখে না দেখলে বিশ্বাস হতো না। সেখানে যাবার পর এই চলচ্চিত্রটিতে কাজের সাথে নিজেকে আরো বেশি জড়িয়ে ফেলেছি।


উল্লেথ্য এসডি রুবেল সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবার আগে কুমিল্লাতে ‘অনন্যা’ নাট্যদলের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। টানা পাঁচ বছরেরও বেশি সময় তিনি অভিনয় করেছেন মঞ্চে। এসডি রুবেল জানান ‘বৃদ্ধাশ্রম’ চলচ্চিত্রটি দ্রুত শেষ করে চলতি বছরেই মুক্তি দেয়া হবে। ছবি ঃ মোহসীন আহমেদ কাওছার

নতুন পালকি তানিয়া বৃষ্টি

বিনোদন প্রতিবেদক : দীপ্ত টিভিতে নিয়মিতভাবে প্রচার হচ্ছে ধারাবাহিক নাটক ‘পালকি’। মোস্তফা মনন পরিচালিত এই ধারাবাহিকটি এরইমধ্যে বেশ দর্শকপ্রিয়তা আভ করেছে। বিশেষ করে ‘পালকি’ চরিত্রটি দর্শকের মনে দাগ কেঁটেছে। কিন্তু গল্পের প্রয়োজনে পালকি আগুনে পুড়ে মারা যায়। আবার যে পরিবারে বউ হয়ে এসেছিলো পালকি সেই পরিবারেই ঘটনাক্রমে সায়রা নামের নতুন এক সদস্যের দেখা মিলে।


সায়রা পালকি’র সঙ্গে যে যা করেছে তা মনে করানোর চেষ্টা করে। ভয় পেয়ে যায় পালকির শ্বশুর বাড়ির সদস্যরা। তবে কী সায়রা চরিত্রে অভিনয় রূপদানকারী অভিনেত্রী তানিয়া বৃষ্টি পালকি হয়েই দর্শকের সামনে আসছেন? এর জবাব মিলবে আর কিছুদিন পর। বর্তমানে তানিয়া বৃষ্টি সায়রা নামেই ‘পালকি’ ধারাবাহিকটিতে অভিনয় করছেন। পরিচালক মোস্তফা মনন বলেন,‘ দর্শক নাটকটি আগ্রহ নিয়ে দেখছে। দর্শকের জন্য একটি চমক না হয় আপাতত রেখে দিলাম।’


 তানিয়া বৃষ্টি বলেন,‘ আমাকে আপাতত সায়রা চরিত্রে অভিনয় করতে হচ্ছে। তবে আমিই পালকি কী না সেটা আমিও নিজেও জানি না। আমি অভিনয়টা দারুণ উপভোগ করছি পালকি নাটকে। সহশিল্পী, পরিচালক মোস্তফা মনন ভাই আমাকে খুব সহযোগিতা করছেন। আমার নিজের ভেতর নাটকটির প্রতি এক ধরনের ভালোলাগা তৈরী হয়েছে। আগামীতে নাটকে কী হবে তা সময়ই হয়তো বলে দিবে।’ তানিয়া বৃষ্টি অভিনীত মোস্তফা মনন পরিচালিত ‘পালকি’ ধারাবাহিকটি দীপ্ত টিভিতে প্রতি শনি থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটায় প্রচার হয়।


এদিকে মাছরাঙ্গা টিভিতে প্রচার চলতি আকরাম খান পরিচালিত ‘হাউজ ওয়াইভস’ ধারাবাহিকটির শেষ লটের শুটিং-এর কাজ সম্পন্ন করেছেন তানিয়া। এছাড়া ইফতেখারের নির্দেশনায় ‘ব্যাচেলর ডটকম’ নামের নতুন একটি ধারাবাহিকের কাজ শুরু করেছেন তিনি। তানিয়া অভিনীত তিনটি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে। চলচ্চিত্র তিনটি হচ্ছে ‘ঘাসফুল’,‘লাভার নাম্বার ওয়ান’ ও ‘যদি তুমি জানতে’।

এফবিসিসিআইর নির্বাচনে শমী কায়সার

বিনোদন প্রতিবেদক : একজন অভিনেত্রী হিসেবে সফল শমী কায়সার। পাশাপাশি ব্যবসায়ী হিসেবেও তার সাফল্য অসামান্য। এবার সেই ব্যবসায়ীদের নির্বাচনেই অংশ নিচ্ছেন জনপ্রিয় এ অভিনেত্রী।  ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর ২০১৭-১৯ মেয়াদের নির্বাচনে পরিচালক পদে প্রার্থী হয়েছেন শমী কায়সার। সম্মিলিত গণতান্ত্রিক ব্যবসায়ী ঐক্যপরিষদের প্যানেল থেকে নির্বাচন করবেন তিনি।

 এই প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন। তিনি বর্তমান কমিটির প্রথম সহসভাপতি। রাজধানীর পূর্বাণী হোটেলে বৃহস্পতিবার  বিকালে এই প্যানেল ঘোষণা করা হয়। চেম্বার থেকে ১৮ জন ও এসোসিয়েশন থেকে ১৮ জন করে প্রার্থী দিয়েছে এই প্যানেল। আগামী ১৪ই মে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। শমী কায়সার ই-কমার্সভিত্তিক একটি সংগঠন থেকে এফবিসিসিআইর সাধারণ পরিষদের সদস্য ও ভোটার হয়েছেন।

তারকা দম্পতির ‘সব চরিত্র কাল্পনিক নয়’

বিনোদন প্রতিবেদক : তারকা দম্পতি মোশাররফ করিম ও রোবেনা রেজা জুঁই আবারো জুটিবদ্ধ হয়ে একটি ঈদের নাটকে অভিনয় করেছেন। নাটকের নাম ‘সব চরিত্র কাল্পনিক নয়’। নাটকে বাস্তব জীবনের মতোই মোশাররফ করিম ও জুঁই স্বামী স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন। রাজধানীর উত্তরায় একটি শুটিং হাউজে নাটকটির দৃশ্য ধারণের কাজ এরইমধ্যে শেষ হয়েছে। এটি নির্মাণ করেছেন তরুণ নাট্যনির্মাতা ফজলুল সেলিম। নাটকের গল্প নির্মাতা বলেন,‘ এ নাটকে মোশাররফ করিম একজন অভিনেতার চরিত্রে অভিনয় করেছেন।


 যে ধরনের চরিত্রে তিনি একের পর এক কাজ করছেন তাতে কাজ করতে তার আর ভালোলাগে না। চ্যালেঞ্জিং ভিন্ন ধরনের চরিত্রে কাজ করার খুব ইচ্ছে তার। যে কারণে সাধারণ চরিত্রে কাজ করা তিনি ছেড়ে দেন। এক সময় কাজ ছাড়ার কারণে অর্থনৈতিক সমস্যায় পড়েন তিনি। তার স্ত্রীও তাকে ছেড়ে চলে যায়। কিন্তু ভালো চরিত্রে , চ্যালেঞ্জিং চরিত্রে কাজ করার ক্ষুধা তার তারপরও কমেনা। এগিয়ে যায় নাটকের গল্প।’ নাটকটিতে অভিনয় প্রসঙ্গে মোশাররফ করিম বলেন,‘ নিজের জীবনের সঙ্গে অনেকটাই সাদৃশ্যপূর্ণ একটি গল্পে অভিনয় করেছি। যে কারণে কাজটি করতে গিয়ে আমি গল্পের সাথে বেশ সম্পৃক্ত হয়ে পড়েছিলাম। বাস্তব জীবনের মতো গল্পেও আমার স্ত্রী জুঁই অভিনয় করেছেন আমার বিপরীতে।


 সবমিলিয়ে দারুণ একটি কাজ করলাম। বলা যায় দর্শকের কাছে অন্যরকম ভালোলাগার সৃষ্টি হবে এই নাটকটি দেখার পর। ’ রোবেনা রেজা জুঁই বলেন,‘ মোশাররফের সঙ্গে সবসময়ই কাজ করাটাকে আমার জন্য বাড়তি পাওনা হিসেবেই বিবেচনা করি। কারণ অভিনেতা হিসেবে মোশাররফ অনেক উঁচু মাপের অভিনেতা। যদিও আমি তার স্ত্রী। কিন্তু যখন সহশিল্পী হিসেবে মোশাররফকে পাই, তখন অভিনয়ের আরো অনেক কিছুই জানার সুযোগ থাকে আমার। তেমনই হয়েছে ফজলুল সেলিমের নির্দেশনায় সব চরিত্র কাল্পনিক নয় নাটকটিতে কাজ করে। ’ নির্মাতা জানান আসছে ঈদে একটি স্যাটেলাইট চ্যানেলে নাটকটি প্রচার হবে। এতে আরো অভিনয় করেছেন শামীম জামান, আলভী’সহ আরো অনেকে। মোশাররফ করিমের প্রযোজনায় রোবেনা রেজা জুঁই সর্বশেষ অভিনয় করেছিলেন মোশাররফ করিমের সঙ্গে মারুফ মিঠুর নির্দেশনায় ‘তিনি আসবেন’ ধারাবাহিক নাটকে।

নতুন ধারাবাহিকে এটি এম শামসুজ্জামান

অভি মঈনুদ্দীন : চলচ্চিত্রে এবং নাটকে খুব কমই কাজ করছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য অভিনেতা এটি এম শামসুজ্জামান। তবে গল্প এবং চরিত্র পছন্দ হলে তিনি চলচ্চিত্রে, নাটকে অভিনয় করেন। বর্তমানে এটি এম শামসুজ্জামান দুটি ধারাবাহিকে নাটকে অভিনয় করছেন। এর পাশাপাশি নতুন আরো আরো একটি ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় শুরু করেছেন তিনি। নাটকের নাম ‘মহাগুরু’। নাটকটি নির্মাণ করছেন অসংখ্য নাটকের নির্মাতা কায়সার আহমেদ। ‘মহাগুরু’ নাটকে এবার এটি এম শামসুজ্জামানকে ভ- পীরের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে।

 গেলো ১৮ এপ্রিল এটি এম শামুসজ্জামান নাটকটির শুটিং-এ অংশ নিয়েছেন রাজধানীর উত্তরার একটি শুটিং হাউজে। নাটকটিতে এটি এম শামসুজ্জামান’র চরিত্র প্রসঙ্গে নির্মাতা কায়সার আহমেদ বলেন,‘ যে চরিত্রটিতে এটি এম স্যার অভিনয় করছেন তা তিনি ছাড়া অন্য কেউ এতো চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তুলতে পারাটা কঠিন ছিলো। তাই তাকে নিয়েই কাজটি করেছি। এটি এম শামসুজ্জামান আমাদের চলচ্চিত্রের গর্ব, নাটকের গর্ব। তাকে নিয়ে কাজ করতে পারাটাও আমার জন্য গর্বের। ’ ধারাবাহিক এ নাটকটিতে অভিনয় প্রসঙ্গে এটি এম শামসুজ্জামান বলেন,‘ কায়সার আহমেদ খুবই গুণী একজন নির্মাতা।


 সবচেয়ে বড় কথা কায়সার খুউব ভালো মনের একজন মানুষ। যে কারণে তারসঙ্গে কাজ করে খুব ভালোলেগেছে। সবচেয়ে বড় কথা শিল্পীকে আরাম দিয়ে এমনভাবে কায়সার কাজ আদায় করে নেন যেখানে কাজের বাইরে মনোযোগ যাবার কোন কারণ নেই। আমার বিশ্বাস এই ধারাবাহিকটি সাম্প্রতিক সময়ের আলোচিত এবং দর্শকপ্রিয় একটি ধারাবাহিক নাটকে পরিণত হবে। কারণ দর্শকের বিনোদনের জন্য চমৎকার একটি নাটক এটি।’ এরইমধ্যে এটি এম শামসুজ্জামান অভিনীত ‘মহাগুরু’ ধারাবাহিকটি বাংলাভিশনে প্রচার শুরু হয়েছে। সপ্তাহের প্রতি রবি ও সোমবার রাত ৯.০৫ মিনিটে প্রচার হয়। এদিকে এটিএম শামসুজ্জামান অভিনীত এই সময়ের আলোচিত ধারাবাহিক নাটক হচ্ছে মীর সাব্বির পরিচালিত ‘নোয়াশাল’।


এই ধারাবাহিকটি নিয়মিতভাবে আরটিভিতে প্রচার হচ্ছে। এদিকে এটিএম শামসুজ্জামান অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র হচ্ছে এস এ হক অলিক পরিচালিত ‘এক পৃথিবী প্রেম’। এরপর আর নতুন কোন চলচ্চিত্রে তাকে আর অভিনয়ে দেখা যায়নি। আমজাদ হোসেন পরিচালিত ‘নয়নমনি’ চলচ্চিত্রে অনেকটা জোর করেই একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেন।

 ছবিটি ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। অভিনেতা হিসেবেও তার পথচলা সুগম হয়ে যায়। হতে চেয়েছিলেন তিনি পরিচালক কিন্তু হয়ে গেলেন অভিনেতা।
এই বয়সে এসে কী মনে হয় আপনি একজন সফল কিংবা পরিপূর্ণ অভিনেতা? ‘আমি নিজেকে কখনোই একজন পরিপূর্ণ অভিনেতা মনেকরিনা। আমি একজন সফল অভিনেতা এটাও কখনো মনে হয়নি। আমি যদি হাজার বছরও বেঁচে থাকি অভিনয় করে যাই তবুও এরকম বিশ^াস নিজের মনে সৃষ্টি হবেনা যে আমি ভালো অভিনয় করি বা আমি একজন সফল অভিনেতা। এ আমার বিনয় নয়, এ আমার মনের কথা। ’

চুম্বন দৃশ্যের জন্য চুক্তি বাতিল

বিনোদন ডেস্ক  : বেশ অল্প সময়ে বলিউডে একটি ভালো জায়গা করে নিয়েছেন সোনাক্ষী সিনহা। সালমান খান, অক্ষয় কুমার থেকে শুরু করে বলিউডের শীর্ষ নায়কদের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করে প্রশংসিত হয়েছেন তিনি। তবে সোনাক্ষীই চলতি সময়ের একমাত্র অভিনেত্রী যাকে নির্মাতারা অনেক বলেও তেমন একটা খোলামেলা পোশাকে পর্দায় আনতে পারেননি। মধ্যে বার বার এ অভিনেত্রী ঘোষণা দিয়েছেন বিকিনিতে তিনি কখনো কাজ করবেন না। নিজের কথা অনুযায়ী করেনওনি। তবে এবার চুম্বন দৃশ্যের জন্য ছবির চুক্তিই বাতিল করে দিলেন সোনাক্ষী।

 পরিচালক প্রভুদেবার সঙ্গে এর আগেও কাজ করেছেন এ অভিনেত্রী। খুব ভালো সম্পর্ক তাদের মধ্যে। নতুন একটি ছবিতে মে কাজ করার সব পাকাপাকি হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত চুক্তি বাতিল করেন এ অভিনেত্রী। কারণ চরিত্রের প্রয়োজনে এখানে কয়েকটি চুম্বন দৃশ্যে কাজ করার কথা সোনাক্ষীকে বলেছিলেন প্রভুদেবা। কিন্তু সোনাক্ষী বলেছেন  ‘না’। তিনি চুম্বন দৃশ্যে কাজ করবেন না।

আর এ কারণে ছবিই ছেড়ে দিয়েছেন শত্রুঘœ সিনহা কন্যা সোনাক্ষী। এই নিয়ে বেশ আলোচনাও শুরু হয়েছে বলিপাড়ায়। বিষয়টি নিয়ে কয়েক দফা সোনাক্ষীকে প্রশ্ন করা হলেও তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি। তবে এ ঘটনার কথা শিকার করে নিয়েছেন নির্মাতা প্রভুদেবা।

একসঙ্গে যখন নোবেল মোশাররফ করিম

বিজ্ঞাপনে মডেল হিসেবে নোবেলকে দেখা গেলেও টিভি নাটকে কিংবা টেলিফিল্মে বিশেষ দিবস ছাড়া দেখাই মিলেনা। কারণ নোবেল সবসময়ই বিজ্ঞাপনে কাজ করাটাকে প্রাধান্য দিয়ে এসেছেন। পাশাপাশি অভিনয়ের জন্য যে সময়টা দেয়া প্রয়োজন সেই সময় তার নেই। তিনি চাকরী করেন বিধায়ই অভিনয়ে সময় দেয়া হয়ে উঠেনা তার। তাই তার সিডিউলের সাথে সিডিউল মিলিয়ে পরিচালক রায়হান খান এর আগে বেশ ক’বার সিডিউল নিয়েছিলেন মোশাররফ করিম ও পূর্ণিমার।

 

কিন্তু পরিচালক অসুস্থ হয়ে পড়ার কারণে নির্ধারিত সময়ে নাটকটির শুটিং শুরু করা যায়নি। এবার অবশেষে নোবেল ও মোশাররফ করিমকে নিয়ে সাথে পূর্ণিমাকে রেখে রায়হান খান নির্মাণ শুরু কেেরছেন আসছে ঈদের জন্য বিশেষ নাটক ‘যখন সময় থমকে দাঁড়ায়’ নাটকটি। এই নাটকের বিশেষ দিক হিসেবে পরিচালক উল্লেখ করেছেন একসঙ্গে প্রথমবারের মতো নোবেল ও মোশাররফ করিমের একই নাটকে অভিনয় করা।

 

 সঙ্গে আছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত নায়িকা পূর্ণিমা। একটি বিশেষ চরিত্রে আছেন নোভা। গত শুক্রবার মোশাররফ করিম, পূর্ণিমা ও নোভাকে নিয়ে নাটকটির শুটিং শুরু হয়। কিন্তু পরের দিন রায়হান খান নোবেল কেন্দ্রিক শুটিংকেই প্রাধান্য দিয়ে কাজ করেন। কারণ নোবেল মাত্র একদিন শুটিং এর জন্য সময় দিতে পেরেছিলেন। সপ্তাহের রবি থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অফিসিয়াল কাজে ব্যস্ত থাকতে হয় নোবেলকে।

 

যে কারণে যে দু’দিন ছুটি পান তা ব্যক্তিগত কাজেই চলে যায় নোবেলের। তাই নাটক বা টেলিফিল্মে অভিনয়ের জন্য আলাদা সময় বের করা খুব কঠিন তার জন্যে। স্যাটেলাইট চ্যানেল আরটিভির জন্য ঈদ বিশেষ নাটক ‘যখন সময় থমকে দাঁড়ায়’ নাটকে প্রথমবারের মতো একই ফ্রেমে দেখা যাবে নোবেল ও মোশাররফ করিমকে। রাজধানীর উত্তরার একটি শুটিং হাউজে গত ৭ এপ্রিল থেকে নাটকটির শুটিং শুরু হয়েছে। নাটকের গল্পে দেখা যাবে আনোয়ার ও অপূর্বার সুখের সংসার।


 কিন্তু এক দুর্ঘটনায় জ্ঞান হারায় অপূর্বা। দীর্ঘ দুই যুগ পর অপূর্বার জ্ঞান ফিরে। কিন্তু ততোদিনে তার স্বামী আনোয়ারের বয়স সত্তরের কাছাকাছি হলেও অর্পূবার বয়স যা ছিলো তাই আছে। ঘটনাক্রমে পরিচয় হয় রক স্টার ফয়সালের সঙ্গে অপূর্বার। ফয়সাল’র প্রতি দুর্বল মিথিলা। এগিয়ে যায় গল্প। নাটকে রক স্টার ফয়সাল চরিত্রে নোবেল, আনোয়ার চরিত্রে মোশাররফ করিম, অপূর্বা চরিত্রে পূর্ণিমা এবং মিথিলা চরিত্রে নোভা অভিনয় করছেন। নাটকটিতে অভিনয় প্রসঙ্গে নোবেল বলেন,‘ পূর্ণিমা খুব মিষ্টি মেয়ে।

 

পাশাপাশি খুবই গুছানো একজন অভিনেত্রী। অভিনয় করার সময় পূর্ণিমা জানে সে কী করছে। একজন শিল্পীর জন্য এটা জানা খুব জরুরী। আর মোশাররফ করিমতো অভিনয়ের একজন মহাজন। তারসঙ্গে অভিনয় করে আমি গর্ববোধ করছি।’ মোশাররফ করিম বলেন,‘ পূর্ণিমার সঙ্গে এর আগে একটি নাটকেই কাজ করেছি। তবে নোবেল ভাইয়ের সঙ্গে এবারই প্রথম। গল্পটা খুবই দারুণ একটি গল্প।


 গল্পটা আমার কাছে অভিনয়ে বেশি মনোযোগ দাবী করছে। আমি মনোযোগ দেয়ার চেষ্টা করছি। নোবেল ভাই আমার পছন্দের একজন মানুষ, তারসঙ্গে কাজটি উপভোগ করছি। ’ এর আগে নোবেল ও পূর্ণিমা রায়হান খানের নির্দেশনায় হুমায়ূন আহমেদ’র লেখা ‘যদি ভালো না লাগে দিওনা মন’ টেলিফিল্মে অভিনয় করেছিলেন ২০১১ সালে।

 

মোশাররফ করিম ও পূর্ণিমা অভিনয় করেছিলেন ২০১৫ সালে তুহিন’র নির্দেশনায় ‘প্রেম অথবা দুঃস্বপ্নের রাত দিন’ নাটকে। পরিচালক রায়হান খান জানান নোবেলকে সঙ্গে নিয়ে আরো একদিন শুটিং করলেই নাটকটির শুটিং শেষ হবে। নোবেল এখনো সেই সিডিউল দেননি। মোশাররফ করিম, পূর্ণিমার সঙ্গে সময় সমন্বয় করেই তিনি সিডিউল দিবেন।

 আর তখন আবারো জমে উঠবে ‘যখন সময় থমকে দাঁড়ায়’। এদিকে আসছে ঈদে নোবেল ও শখকে হিমেল আশরাফের নির্দেশনায় একটি নাটকে অভিনয় করতে দেখা যাবে। প্রায় তিনমাস আগেই এই নাটকের শুটিং শেষ করেছেন নোবেল। শুধু নোবেলকে নিয়ে আগামী ঈদের জন্য নাটক নির্মাণ করতে চান এমন নির্মাতার সংখ্যাও আছে অনেক। কিন্তু নোবেল সময় দিতে পারছেন না।

 

মোশাররফ করিম অভিনীত শামীম জামান পরিচালিত আরটিভির প্রচার চলতি ধারাবাহিক নাটক ‘ঝামেলা আনলিমিটেড’ শততম পর্ব অতিক্রম করেছে। আসছে ঈদের জন্য তিনি ফজলুল সেলিমের নির্দেশনায় ‘সব চরিত্র কাল্পনিক নয়’ নাটকে অভিনয় করেছেন তার সহধর্মিনী জুঁই’র সঙ্গে জুটি হয়ে।

উল্লাপাড়ার শিশু নৃত্যশিল্পী জিসা তুরস্কে আন্তর্জাতিক শিশু সমাবেশে


উল্লাাপাড়া (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি : উল্লাপাড়ার শিশু শিল্পী ফারজানা জামান জিসা তুরস্কে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শিশু সমাবেশ ২০১৭ এ যোগ দেওয়ার জন্য গত রোববার শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান হতে রওনা হয়ে গেছে। সিরাজগঞ্জ শিশু একাডেমি সূত্রে জানা গেছে, জিসা বাংলাদেশ শিশু একাডেমির ১৪ সদস্যের নৃত্যশিলীর প্রতিনিধি দলে রাজশাহী বিভাগের একমাত্র সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। জিসা সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বিআরডিবি চেয়ারম্যান এম এম জামানের মেয়ে এবং উলাপাড়া মোমেনা আলী বিজ্ঞান স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

সোনাতলার প্রান্ত আজ চ্যানেল আইতে গাইবেন

সোনাতলা (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার মধুপুর গ্রামের দরিদ্র পরিবারের সন্তান প্রান্ত আজ চ্যানেল আইতে গান গাইবেন।ওই গ্রামের আতিকুল রহমান রুবেল ও রুমা খাতুনের একমাত্র পুত্র বগুড়া বিএম মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেণির ছাত্র রাফিউল ইসলাম প্রান্ত আজ সোমবার এবং আগামীকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭.৫০ মিনিটে চ্যানেল আইতে গান গাইবেন। উল্লেখ্য, প্রান্ত শীর্ষ ১৪ জন প্রতিযোগীর মধ্যে একজন। প্রান্ত বগুড়াসহ দেশবাসীর কাছে এসএসএম চেয়েছে। এসএমএস পাঠানোর ঠিকানা-KGR <Space> PRANTO  লিখে পাঠাতে হবে ৬৯৬৯ নম্বরে।

কনার কন্ঠে এবার ‘পরদেশী মেঘ যাওরে ফিরে’

অভি মঈনুদ্দীন : শ্রোতাপ্রিয় কন্ঠশিল্পী কনার কন্ঠে এর আগে শ্রোতা দর্শক ‘প্রিয় যাই যাই বলো না’ গানটি বেশ উপভোগ করেছেন। বাপ্পা মজুমদারের সঙ্গীতায়োজনে কনা গানের সুর ঠিক রেখে চমৎকারভাবে গেয়েছিলেন। এই গানের মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করেছিলেন গাজী শুভ্র। গানটিতে কনার গায়কী এবং মিউজিক ভিডিওতে কনার পারফর্ম্যান্স বেশ প্রশংসিত হয়। সেই ধারাবাহিকতায় কনা আবারো নজরুল সঙ্গীত নিয়ে শ্রোতা দর্শকের মাঝে হাজির হতে যাচ্ছেন। এবার তিনি ‘পরদেশী মেঘ যাওরে ফিরে, বলিও আমার পরদেশীরে’ নজরুল সঙ্গীতটি গেয়েছেন।

গানটির সঙ্গীতায়োজন করেছেন আমজাদ। এরইমধ্যে গানটির মিউজিক ভিডিও নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে ‘ধ্রুব মিউজিক স্টেশন’র ব্যানারে। নির্মাণে সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন আবিত। রাজধানীর তেজগাঁওয়ের কোক ফ্যাক্টরীতে সেট ফেলে গানটির মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করা হয়েছে। এদিকে পহেলা বৈশাখে কনা ও ইমরানের গাওয়া ‘কথা দাও’ মিউজিক ভিডিও সিএমভি’র ব্যানারে ইউটিউবে পাওয়া যাচ্ছে। এতে মডেল হিসেবে আছেন ইরফান সাজ্জাদ ও মেহজাবিন। আগামীকাল থেকে শুভব্রত সরকারের নির্দেশনায় কনা ‘চাঁদের কনা’ গানের মিউজিক ভিডিও নির্মাণে অংশ নিবেন। রবিউল ইসলাম জীবনের কথায় গানটির সুর করেছেন মীর মাসুম এবং ফিচারিং করেছেন ডিজে রাহাত। পহেলা বৈশাখে ছিলো কনার জন্মদিন। এবারের জন্মদিন অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশি ভালোভাবে কেটেছে বলেই জানালেন কনা। কনা বলেন,‘ আগেরদিন রাত থেকেই বাসায় জন্মদিনের নানান সারপ্রাইজের মুখোমুখি হয়েছি। মুঠোফোনে, ফেসবুকে শুভেচ্ছা বার্তায় মুগ্ধ হয়েছে।


আমাকে নিয়ে সুন্দর সুন্দর কথা প্রতিমুহুর্তে মুগ্ধ করেছে আমাকে। সকালে আম্মুর হাতে রান্না মজার মজার খাবার খেয়েছি। স্টেজ শো ছিলো, আবার ফিরে কেক কেটেছি। সবমিরিয়ে এবারের জন্মদিনটি ছিলো আমার কাছে অনেক ভালোলাগার এবং আনন্দের। যারা আমাকে নানানভাবে মনে করেছেন, শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তাদের প্রতি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ আমি। ’ এদিকে আসছে ২৮ এপ্রিল কনা সুইজারল্যা-, জার্মানী ও সুইডেন’র উদ্দেশ্যে উড়াল দিবেন স্টেজ শো’তে অংশ নিতে। পাশাপাশি ইটালীও যেতে পারেন তিনি। সেখান থেকে ফিরে এসে তিনি আরো দুটি মিউজিক ভিডিও’র শুটিং-এ অংংশ নিবেন। কনার গাওয়া নতুন নজরুল সঙ্গীতটি নজরুল’র বিশেষ কোন দিবসে প্রকাশ হবে বলে ধ্রুব মিউজিক স্টেশন থেকে জানানো হয়েছে। বাকী যা আছে তার সবগুলোই আসছে ঈদে প্রকাশ হবে বলে জানান কনা।



Go Top