রাত ৮:৪১, শুক্রবার, ২১শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ দেশজুড়ে

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর রামপুরায় এক কিশোরী (১৩) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দুপুর একটার দিকে তাকে  ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক)  হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ধর্ষক হান্নানকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

কিশোরীর বাবা জানান,  ‘গত বুধবার সকালে মেয়েকে বাসায় রেখে আমি, আমার স্ত্রী ও আরেক মেয়ে কাজে চলে যাই। এসময় প্রতিবেশী হান্নান (২০) বাসায় ঢুকে মেয়েকে ধর্ষন করে এবং হুমকী দিয়ে যায়। প্রথমে বিষয়টি মেয়ে ভয়ে আমাদের জানায়নি। একপর্যায়ে বৃহস্পতিবার রাতে মাকে মেয়ে বিষয়টি খুলে বলে। পরে আমি জানতে পেরে হাসপাতালে নিয়ে আসি।’

 

দুপচাঁচিয়ায় পিস্তলের গুলিসহ যুবক আটক

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি:বগুড়ার দুপচাঁচিয়া থানা পুলিশ গতকাল শুক্রবার সকালে পিস্তলের গুলিসহ সোহেল রানা ওরফে নয়ন খান (৩২) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে।থানা সূত্রে জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৯টায় পুলিশ  গোপন সূত্রে খবর পেয়ে কাহালু থানার গ্রেফতারী পরোয়ানার আসামিকে গ্রেফতারের জন্য সদরের ইসলামপুর কুশ্বহর গ্রামের হেলাল খানের পুত্র সোহেল রানা ওরফে নয়ন খানের বাড়িতে অভিযান চালায়।

 এ সময় ওই বাড়িতে অবস্থানরত আসামি তার আদালত থেকে জামিন নেওয়ার রি-কল প্রদর্শন করে। পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয়। ঠিক তেমনি মুহূর্তে সোহেল রানা ওরফে নয়ন খান ঘর থেকে বের হয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। পুলিশের সন্দেহ হয়। পুলিশ তাকে ধরে ফেলে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারায় তাকে আটক করে। পরে তার শয়ন কক্ষ তল্লাশি করে তার খাটের বালিশের নিচে থেকে একটি পিস্তলের গুলি উদ্ধার করে। এ ব্যাপারে

 

দুপচাঁচিয়ায় প্রেমিকার বিয়ের খবরে প্রেমিকের আত্মহত্যা

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) প্রতিনিধি :বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার ডিমশহরে গত বৃহস্পতিবার প্রেমিকার বিয়ের খবর পেয়ে স্কুল ছাত্র মোফাজ্জল হোসেন মুনি (১৫) গ্যাসের ট্যাবলেট সেবন করে আত্মহত্যা করেছে।জানা গেছে, উপজেলা সদরের ডিমশহর নয়াপাড়ার আব্দুল মজিদের পুত্র স্থানীয় ডিমশহর উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র মোফাজ্জল হোসেন মনির সাথে একই ক্লাসের এক ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। ঘটনাটি মেয়ের পরিবার জানতে পেরে মেয়েকে অন্যত্র বিয়ে দেয়।

 প্রেমিকার বিয়ের খবর পেয়ে ঘটনার দিন গত বৃহস্পতিবার দুপুরে মোফাজ্জল হোসেন মনি নিজ বাড়িতে সবার অগোচরে গ্যাসের ট্যাবলেট খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। বাড়ির লোকজন টের পেয়ে প্রথমে তাকে দুপচাঁচিয়া হাসপাতালে ও পরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাতে সে মারা যায়।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ হাফিজার রহমান মাষ্টার ঘটনাটি নিশ্চিত করে জানান, গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় স্কুল ছাত্র মোফাজ্জল হোসেন মনির ডিমশহর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজার নামাজ শেষে স্থানীয় কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছে।

 

শেরপুরে স্বামীর বাড়ি থেকে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি :বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় স্বামীর বাড়ি থেকে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার হয়েছে। তার নাম শারমিন আক্তার (২৪)। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের বাগড়া উত্তরপাড়াস্থ বসতবাড়ির শয়নকক্ষ থেকে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় আনে। পরে ময়না তদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়।

নিহতের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার গাড়ীদহ ইউনিয়নের দরিপাড়া গ্রামের খোরশেদ আলম টুকুর মেয়ে শারমিন আক্তারের সাথে ৪-৫ বছর আগে বাগড়া গ্রামের আজাহার আলীর ছেলে আব্দুর রাজ্জাকের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ভালই চলছিল তাদের সংসার। এছাড়া সংসার জীবনে এক ছেলে সন্তানেরও জন্ম হয়। তবে বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ হয়। পরবর্তীতে শয়নকক্ষ থেকে শারমিনের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার হয়।

 স্বামী রাজ্জাকের দাবি, স্ত্রী শারমিন খুবই অভিমানী। তাই সবার অজান্তে নিজ শয়নকক্ষের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে শাড়ি কাপড় লাগিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এদিকে নিহত গৃহবধূর চাচা মিন্টুসহ একাধিক স্বজনের অভিযোগ, শারীরিক নির্যাতন করে শারমিন আক্তারকে হত্যা করা হয়েছে।

 এছাড়া ঘটনাটি ভিন্নখাতে নেয়ার জন্য তাকে হত্যার পর গলায় শাড়ি কাপড় লাগিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে রাখা হয় বলে তারা দাবি করেন। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) বুলবুল ইসলাম জানান, স্বামীর ওপর অভিমান করে গৃহবধূ শারমিন আত্মহত্যা করে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা।

এছাড়া নিহত গৃহবধূর বাবা-মা’র কোন অভিযোগ নেই। এরপরও খবর পেয়ে ময়না তদন্তের জন্য নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পরই কেবল ওই গৃহবধূর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান।

 

মাগুরায় ৫০০ পিস ইয়াবা ও গুলিসহ দুজন গ্রেফতার

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরা শহর থেকে শুক্রবার সকালে মাগুরা থানার এসআই টিটো ৩০০ পিস ইয়াবাসহ তুহীন নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃত তুহীন যশোরের বেনাপোল থানার পয়রা গ্রামের মৃত মতিয়ার রহমানের ছেলে। অপরদিকে মাগুরা শহরের ছায়াবিথি সড়কের একটি বাড়িতে গত বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালিয়ে মাগুরা সদর থানা পুলিশ মনিরুজ্জামান মনির নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে।

 এ সময় তার হেফাজতে থাকা ২০০ পিস ইয়াবা ও দুইটি পিস্তলের গুলি উদ্ধার করে। মাগুরার পুলিশ সুপার মো. মুনিবুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মনিরুজ্জামানের বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালায়। এ সময় মনিরুজ্জামানকে গ্রেফতার ও তার কাছ থেকে ইয়াবা ও গুলি উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতাকৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মাগুরা সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।



Go Top