বিকাল ৩:৫৮, সোমবার, ২১শে আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ ক্রিকেট

আগের দিন দুপুরে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দল ঘোষণা করে বিসিবির নির্বাচক প্যানেল। দল থেকে বাদ পড়েন মুমিনুল হক। এতে কড়া সমালোচনার মুখে পড়তে হয় বিসিবির নির্বাচক প্যানেলের প্রধান মিনহাজুল আবেদীন ও প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহেকে। মুমিনুল কেন নেই, সেই উত্তর দিতে গিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ক্লান্ত হয়ে পড়েন তারা! ২৪ ঘন্টার ব্যবধানে বিসিবি সুখবর দিল, ‘মুমিনুল হককে ফিরিয়ে আনা হয়েছে প্রথম টেস্টের দলে।’

আজ সুখবরটি দিয়েছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান। তবে ১৪ জনের ঘোষিত দলে একজন বাড়ানো হয়নি। ঘোষিত দলে থাকা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের চোখে ইনফেকশন। এ কারণে প্রথম টেস্টের দল থেকে তাকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। মোসাদ্দেকের জায়গায় নেওয়া হয়েছে মুমিনুলকে।

নাজমুল হাসান বলেছেন, ‘সৈকতের চোখে কিছুটা সমস্যা আছে। ওকে নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। শেষ মুহূর্তে খেলতে না পারলে আমাদের সমস্যা হবে। এ কারণে আমরা ওকে এখনই সরিয়ে নিচ্ছি। সৈকতের জায়গায় আসছেন মুমিনুল হক। মুমিনুল হক ঢাকা টেস্ট খেলবে।’

মুমিনুলের কপাল খুললেও মোসাদ্দেকের দুর্ভাগ্যই বলতে হবে। বাংলাদেশের সর্বশেষ টেস্টে ৭৫ রানের মহামূল্যবান ইনিংস খেলে দলের জয়ে বড় অবদান রাখেন। কিন্তু চোখের সমস্যায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে খেলতে পারছেন না।

ব্যাটিংয়ের সময় চোখে কোনো সমস্যা অনুভব না করলেও ফিল্ডিং করতে গিয়ে জ্বালা অনুভব করছেন মোসাদ্দেক। বিশেষ করে রোদে ফিল্ডিং করতে কষ্ট হচ্ছে তার। ভবিষ্যতের চিন্তায় তাকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এ সমস্যার কারণে চট্টগ্রামে ক্যাম্পে ছিলেন না মোসাদ্দেক। ঢাকায় শুরু থেকেই ক্যাম্পে ছিলেন, খেলেছিলেন দুদিনের প্রস্তুতি ম্যাচও।

আগামী ২৭ আগস্ট মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া প্রথম টেস্ট।

বাংলাদেশ দল:
মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মেহেদী হাসান মিরাজ, লিটন কুমার দাস, মুমিনুল হক, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, তাইজুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও মুস্তাফিজুর রহমান।

নাসিরের ‘অনেক কিছু’ পরিবর্তনের সিরিজ

ঘরের মাঠে সবশেষ টেস্টে ইংল্যান্ডকে নাকানিচুবানি খাইয়েছিল বাংলাদেশ। স্পিন সহায়ক উইকেট প্রস্তুত করে ইংলিশদের মাটিতে নামিয়ে এনেছিল টাইগাররা। এবার অস্ট্রেলিয়ার পালা!

টিম ম্যানেজম্যান্ট একই রণ কৌশল সাজাচ্ছে অসিদের জন্য। ঢাকা টেস্টে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চার স্পিনার নিয়ে খেলেছিল বাংলাদেশ। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে এবার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষেও ঢাকা টেস্টে চার স্পিনার দেখা যাবে। সাকিব, মিরাজ, তাইজুলের সঙ্গে হাত ঘুরাবেন নাসির হোসেন। শেষ টেস্টে শুভাগত হোম ছিলেন চতুর্থ স্পিনার। এবার শুভাগতর ভূমিকায় নাসির। ‘অফস্পিন বোলিং করতে পারে এবং শেষ দিকে রান তুলতে পারে’ এমন ক্রিকেটারের বিবেচনায় নাসির হোসেনকে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে বিসিবির নির্বাচক প্যানেল।

ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করায় দুই বছর পর নাসির ফিরলেন টেস্ট দলে। টেস্ট দলে জায়গা পাওয়াকে প্রত্যাশিত বলছেন নাসির। রোববার মিরপুরে অনুশীলন শেষে নাসির বলেন, ‘জাতীয় দল সবার জন্য উন্মুক্ত আছে। যারা পারফরম্যান্স করবে তারা জাতীয় দলে সুযোগ পাবেই। এই বিশ্বাসটা আমার মধ্যে ছিল। পারফর্ম করায় আমারও সুযোগটি এসেছে।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট দলে জায়গা পেয়ে রোমাঞ্চিত নাসির। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে শেষ টেস্ট খেলেছিলেন। এবার প্রতিপক্ষ ক্রিকেটের আরেক রাজা অস্ট্রেলিয়া। প্রতিপক্ষকে নিয়ে নাসিরের মূল্যায়ন, ‘আমি ভালোই রোমাঞ্চিত। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে আমি এর আগে টেস্ট খেলিনি। এছাড়া বাংলাদেশ ১১ বছর আগে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট খেলেছে। অস্ট্রেলিয়া বিশ্ব ক্রিকেটে ডমিনেট করে খেলছে। ওদের সঙ্গে টেস্ট খেলা এবং পারফরম্যান্স করার বিষয়গুলো ক্যারিয়ারের অনেক কিছু পরিবর্তন করে দেবে।’

মূলত বোলিংয়ের জন্য নেয়া হয়েছে নাসির হোসেনকে। শেষ দিকে তার ব্যাট থেকে আসা রান অবশ্যই পুঁজি বড় করবে। তবে বোলিং বিবেচনায় নাসির দলে। তবে গত মৌসুমে নাসির যে আহামরি ভালো বোলিং করেছে তেমনটাও নয়। ওয়ালটন জাতীয় ক্রিকেট লিগে ২৭ ওভার বোলিং করে নিয়েছেন মাত্র ৩ উইকেট। বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে ৮৯ ওভার করে নেন ৫ উইকেট। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৭ টেস্টে নাসির নিয়েছেন ৮ উইকেট। নিয়মিত বোলার না হলেও গুরুত্বপূর্ণ সময়ে চাপ তৈরিতে, ব্রেক থ্রু এনে দিতে সক্ষম ডানহাতি এ স্পিনার। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি বোলিংয়েও সেরাটা দিতে মুখিয়ে মিস্টার ফিনিশার খ্যাত নাসির, ‘বোলিং আমি উপভোগ করি। আমি চেষ্টা করি ভালো বোলিং করার জন্য। যদি সুযোগ হয় বোলিংয়ের তবে আমি আমার সর্বোচ্চ চেষ্টা করব বোলিং দিয়ে কিছু করার।’
 

সিপিএলে জ্যামাইকা তালাওয়াসে মাহমুদউল্লাহ

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঢাকা টেস্ট দলে সুযোগ পাননি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। চট্টগ্রাম টেস্টেও মাহমুদউল্লাহ থাকবেন না তা এক প্রকার নিশ্চিত। ঘরোয়া কোনো টুর্নামেন্ট না থাকায় বসে থাকতেই হতো এ অলরাউন্ডারকে।

হঠাৎ-ই ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ খেলার দুয়ার খুলে গেল মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। সাকিব আল হাসানের দল জ্যামাইকা তালাওয়াস তাকে দলে পেতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। মাহমুদউল্লাহও খেলতে রাজী। ক্রিকেট বোর্ডের কাছে অনাপত্তিপত্র পেতে আবেদনও করেছেন। শনিবার রাতে ফিরতি মুঠোফোন বার্তায় রাইজিংবিডিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মাহমুদউল্লাহ।

সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে মঙ্গলবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিমান ধরবেন। শুক্রবার প্রথম ম্যাচ খেলতে পারবেন সেন্ট লুসিয়া স্টার্সের বিপক্ষে। সিপিএল খেলার অনুমতি পেলে পুরো আসরেই জ্যামাইকার তাঁবুতে থাকবেন মাহমুদউল্লাহ। ত্রিনিদাদে ৯ সেপ্টেম্বর টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। সাকিব আল হাসান এবারের সিপিএলে জ্যামাইকা হয়ে তিন ম্যাচ খেলেছিলেন।

স্থানীয় এক গণমাধ্যমকে মাহমুদউল্লাহ বলেছেন,‘এটা আমার জন্য বড় সুযোগ। আমি তাদের ধন্যবাদ দিতে চাই যারা আমাকে সিপিএলে খেলার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে। আশা করছি একাদশে থাকার সুযোগ পেলে ভালো কিছু করার চেষ্টা করব। প্রথমবারের মতো এ টুর্নামেন্টে অংশ নিতে যাচ্ছি। আশা করছি দল আমাকে যে প্রয়োজনে নিয়েছে সেই প্রয়োজন মেটাতে পারব।’

চতুর্থ বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে মাহমুদউল্লাহ সিপিএলে অংশ নিতে যাচ্ছেন। সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল এবং মেহেদী হাসান মিরাজ সিপিএলে অংশ নিয়েছেন। সাকিব ও তামিম ম্যাচ খেলার সুযোগ পেলেও মিরাজ পাননি। দেশের বাইরে মাহমুদউল্লাহ এর আগে পাকিস্তান সুপার লিগে অংশ নিয়েছিলেন। 

ট্রুম্যান-স্ট্যাথামের ৫৪ বছর পর অ্যান্ডারসন-ব্রড

স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে পরিষ্কার বোল্ড হয়ে গেলেন শেন ডোরিচ। দুই হাত ছড়িয়ে শূন্যে ছোট্ট একটা লাফ দিলেন ইংলিশ পেসার। সতীর্থরা সবাই এগিয়ে এসে একে একে অভিনন্দন জানালেন ব্রডকে। না, ব্রড পাঁচ উইকেট পাননি কিংবা ম্যাচও শেষ হয়ে যায়নি। তবে একটা উপলক্ষ তো অবশ্যই আছে। ডোরিচকে ফিরিয়েই যে ইয়ান বোথামকে ছাড়িয়ে টেস্টে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হয়ে গেছেন ব্রড।

বোথামকে ছাড়িয়ে যেতে এজবাস্টনে দিবারাত্রির টেস্টে ব্রডের প্রয়োজন ছিল ৫ উইকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শনিবার শেষ হওয়া সিরিজের প্রথম এই টেস্টে দুই ইনিংস মিলিয়ে ঠিক ৫ উইকেটই নিয়েছেন ৩১ বছর বয়সি পেসার। বোথাম ১০২ টেস্টে তার ৩৮৩ উইকেটের সর্বশেষটি নিয়েছিলেন ২৫ বছর আগে।

ডোরিচকে ফিরিয়ে বিফিকে (বোথামের ডাক নাম) ছাড়িয়ে গেলেন ব্রড। ১০৭ টেস্টে ব্রডের এখন ৩৮৪ উইকেট। কাকতালীয়ভাবে দুজনের স্ট্রাইক রেটই সমান, ৫৬.৯! ব্রডের কীর্তির সময় বোথাম কাল এজবাস্টনের প্রেসবক্সেই ছিলেন। হাততালি দিয়ে উত্তরসূরিকে অভিনন্দনও জানিয়েছেন।

এক সময় ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি ছিলেন বোথামই। ২০১৫ সালে অ্যান্টিগায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের তখনকার অধিনায়ক দিনেশ রামদিনকে অ্যালিস্টার কুকের ক্যাচ বানিয়ে রেকর্ডটা নিজের করে নেন জেসম অ্যান্ডারসন। এজবাস্টনে ৫ উইকেট নিয়ে ১২৭ টেস্টে অ্যান্ডারসনের উইকেট-সংখ্যা এখন ৪৯২টি। টেস্ট ইতিহাসের ষষ্ঠ বোলার ও তৃতীয় পেসার হিসেবে ৫০০ উইকেটের মাইলফলক ছুঁতে অ্যান্ডারসনের চাই আর ৮ উইকেট।

ইংল্যান্ডের বর্তমান পেস আক্রমণের সেরা দুই অস্ত্র অ্যান্ডারসন ও ব্রড। এই দুজনই এখন টেস্টে দেশের সর্বোচ্চ উইকেটের তালিকার শীর্ষ দুটি স্থানে। সর্বশেষ ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ দুই উইকেটশিকারি একসঙ্গে খেলেছিলেন সেই ১৯৬৩ সালে, ফ্রেড ট্রুম্যান ও ব্রায়ান স্ট্যাথাম। তখন ট্রুম্যান ছিলেন সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি। আর স্টাথাম দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক। তাদের ৫৪ বছর পর এখন অ্যান্ডারসন ও ব্রড।

ঢাকা টেস্টের দল ঘোষণা, ফিরেছেন নাসির

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল এখন ঢাকায়। সফরকারী অসিদের বিপক্ষে ঢাকায় প্রথম টেস্টের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। ১৪ সদস্যের এ দলে ডাক পেয়েছেন নাসির হোসেন।

ক্যাম্প, অনুশীলন, প্রস্তুতি ম্যাচের পারফরম্যান্স মূল্যায়ন করে এবার দল ঘোষণা করা হয়েছে। নাসির ভক্তদের জন্য সুখবর। দীর্ঘ দুই বছর পর অনেক জল্পনা কল্পনা শেষে টেস্ট দলে ফিরেছেন এই অলরাউন্ডার। তবে মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান মাহমুদউল্লাহ ও মুমিনুল হক ঢাকা টেস্টের দলে নেই। ঢাকায় শেষ দুদিনের ১৭ জনের প্রস্তুতি ম্যাচেও তাদেরকে রাখেননি বাংলাদেশ কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে।

মুমিনুল ও মাহমুদউল্লাহ শেষ টেস্টেও বাদ পড়েছিলেন। মাহমুদউল্লাহ সীমিত পরিসরে আস্থা দিলেও লংগার ভার্সনে তার উপর আস্থা রাখতে পারছেন না হাথুরুসিংহে! চট্টগ্রামে প্রস্তুতি ম্যাচে মুমিনুল হাফ-সেঞ্চুরির ইনিংস উপহার দিলেও মনে ভরেনি কোচের। অন্যদিকে রান খরায় ভুগছেন মাহমুদউল্লাহ। তাই এই টেস্টে তাকে বাইরে রাখা হয়েছে।

আগামী ২৭ আগস্ট মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। এরপর ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। তার আগে ২২ ও ২৩ আগস্ট একটি দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া দল।

বাংলাদেশ দল:
মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মেহেদী হাসান মিরাজ, লিটন কুমার দাস, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, তাইজুল ইসলাম, শফিউল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও মুস্তাফিজুর রহমান।

এই বিভাগের আরো খবর

কুকের ডাবল সেঞ্চুরিতে রান পাহাড়ে ইংল্যান্ড

নিজেদের প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্টে অ্যালিস্টার কুকের ডাবল সেঞ্চুরিতে অ্যাজবাস্টনে প্রথম ইনিংস রানের পাহাড় গড়েছে ইংল্যান্ড। প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ৮ উইকেটে ৫১৪ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা দিয়েছে ইংলিশরা। জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে দ্বিতীয় দিন শেষে ওয়েষ্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৪৪ রান।

আগের দিন ১৫৩ রানে অপরাজিত থাকা কুক শুক্রবার দিবা-রাত্রির টেস্টে ইংল্যান্ডের হয়ে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির দেখা পান। তার সঙ্গে গতকাল ব্যাট করতে নেমে ৬৫ রান করে রস্টন চেজের শিকার হয়েছেন ডেভিড মালান। এরপর বেন স্টোকস ১০ ও বেয়ারস্টো ১৮ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন।

ট্রিবল সেঞ্চুরির দিকে এগিয়ে যাওয়া কুককে এলবিডব্লিউর রিভিউ নিয়ে থামান চেইজ। তার বল ফ্লিক করতে গিয়ে ব্যাট ছোঁয়াতে পারেননি কুক। ফলে ৪০৭ বলে ৩৩ চারে কুকের ২৪৩ রানের ইনিংসে ছেদ পড়ে। আর তার বিদায়ের পরড়ই ইনিংস ঘোষণা দিয়ে দেয়ে স্বাগতিকরা।

বল হাতে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ১১৩ রানের খরচায় সর্বোচ্চ ৪টি উইকেট নিয়েছেন অলরাউন্ডার চেইজ। ২টি উইকেট নিয়েছেন কেমার রোচ। আর কামিন্স ও জেসন হোল্ডার নিয়েছেন ১টি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

 

ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ১৩৫.৫ ওভারে ৫১৪/৮ ইনিংস ঘোষণা (কুক ২৪৩, স্টোনম্যান ৮, ওয়েস্টলি ৮, রুট ১৩৬, মালান ৬৫, স্টোকস ১০, বেয়ারস্টো ১৮, মইন ০, রোল্যান্ড-জোন্স ৬; রোচ ২/৮৬, জোসেফ ০/১০৯, কামিন্স ১/৮৭, হোল্ডার ১/১০৩, চেইস ৪/১১৩, ব্র্যাথওয়েট ০/৬)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ১৬ ওভারে ৪৪/১ (ব্র্যাথওয়েট ০, পাওয়েল ১৮*, কাইল ২৫*; অ্যান্ডারসন ১/১৭, ব্রড ০/২৭)

 

এই বিভাগের আরো খবর

প্রস্তুতি ম্যাচের নেতৃত্বে মাহমুদউল্লাহ, আছেন মুমিনুলও

বহুল প্রতিক্ষীত টেস্ট সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল এখন ঢাকায় অবস্থান করছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে ২৭ আগস্ট প্রথম টেস্টে মুখোমুখি হওয়ার আগে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে তারা। তাদের বিপক্ষে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য ১৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

আগামী ২২ ও ২৩ আগস্ট বিসিবি একদশের সঙ্গে একটি দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া দল। প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য বিসিবি একাদশে ডাক পেয়েছেন ঢাকা টেস্টের দল থেকে বাদ পড়া মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুমিনুল হক। প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য এ দলে আরও জায়গা পেয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত, সাইফুদ্দিন ও কামরুল ইসলাম রাব্বির মতো ক্রিকেটাররা। আর প্রস্তুতি ম্যাচে এ দলটিকে নেতৃত্ব দেবেন মাহমুদউল্লাহ।

২৭ আগস্ট মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু হবে প্রথম টেস্ট। এরপর ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

প্রস্তুতি ম্যাচের দল:
মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), নাজমুল হোসেন শান্ত, আবু জায়েদ রাহি, তানভীর হোসেন, ইরফান শুক্কর, মুমিনুল হক, সৈকত, লিটন, সাইফুদ্দিন, শুভাশীষ রয়, কামরুল ইসলাম রাব্বি, যুবায়ের হোসেন লিখন ও আবুল হাসান রাজু।

এই বিভাগের আরো খবর

ঢাকা টেস্টে দলে নেই মুমিনুল-মাহমুদউল্লাহ

 

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টের জন্য দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ১৪ সদস্যের স্কোয়াডে নেই টেস্ট স্পেশালিস্ট মুমিনুল হক। নেই সাইলেন্ট কিলার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও।

আগেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল মুমিনুল ও মাহমুদউল্লাহকে বাদ দিয়েই ঢাকা টেস্টের দল ঘোষণা করা হবে। কারণ, ১৭ ও ১৮ আগস্টের প্রস্তুতি ম্যাচে দলে ছিলেন না এই দুই ব্যাটসম্যান। যেহেতু প্রস্তুতি ম্যাচের দলে ছিলেন না তারা দুজন সেহেতু সবাই ধরেই নিয়েছিল ঢাকা টেস্টের দলেও তারা থাকছে না। শেষ পর্যন্ত তাই হল। আজ শনিবার মিরপুরে ঢাকা টেস্টের দল ঘোষণা করেন বিসিবির নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। তিনি মুমিনুল ও মাহমুদউল্লাহকে বাদ দিয়েই ঢাকা টেস্টের দল ঘোষণা করেন।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শততম টেস্টেও ছিলেন না এই দুই ব্যাটসম্যান। তবে ধারণা করা হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুইদিনের প্রস্তুতি ম্যাচে রাখা হবে মুমিনুল ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে। থাকতে পারেন চট্টগ্রাম টেস্টেও।

ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের স্কোয়াড :
মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, ইমরুল কায়েস, সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার, তাইজুল ইসলাম, মেহেদী হাসান মিরাজ, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন, লিটন দাস, শফিউল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান ও তাসকিন আহমেদ।

এই বিভাগের আরো খবর

কুক-রুটের রেকর্ড জুটিতে প্রথম দিন ইংল্যান্ডের

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দিবা-রাত্রির টেস্টের প্রথম দিনটা নিজেদের করে রাখল ইংল্যান্ড। এজবাস্টনে অ্যালিস্টার কুক ও জো রুটের রেকর্ড জুটিতে বড় সংগ্রহের পথে রয়েছে স্বাগতিকরা।

২০১৫ সালের নভেম্বরে ইতিহাসের প্রথম দিবা-রাত্রি টেস্টের সাক্ষী অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড। তবে এবারই প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্টে খেলতে মাঠে নামল ইংল্যান্ড। উইন্ডিজদের বিপক্ষে দলটির প্রাক্তন অধিনায়ক কুক ও বর্তমান অধিনায়ক রুটের সেঞ্চুরিতে প্রথম দিন শেষে তদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৩৪৮।

ব্যক্তিগত ১৩৬ রান করে কেমার রোচের বলে সরাসরি বোল্ড হয়েছেন জো রুট। তবে আউট হওয়ার আগে ওপেনার অ্যালিস্টার কুকের সঙ্গে রেকর্ড জুটি গড়েন তিনি। তৃতীয় উইকেট জুটিতে এজবাস্টনে সর্বোচ্চ ২৪৮ রানের জুটি গড়েন তারা। আর দিবা-রাত্রির টেস্টে যে কোনো উইকেটে এটা সর্বোচ্চ রানের জুটি। রুট গতকাল ফিরলেও ১৫৩ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন কুক। তার সঙ্গে ২৮ রানে অপরাজিত রয়েছেন ডেভিড মালান।

তবে ১৫৩ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়ালেও শুরুতে নতুন সঙ্গী মার্ক স্টোনম্যানের সঙ্গে প্রথম ইনিংসে জমেনি কুকের উদ্বোধনী জুটি। ১৪৬টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ৩০ বছর বয়সী বাঁহাতি ব্যাটসম্যান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের প্রথম ইনিংসে আউট হয়েছেন ৮ রান করে। দুটি চার হাঁকিয়েই বোল্ড হয়েছেন কেমার রোচের বলে। তার সঙ্গে ব্যক্তিগত একই রানে সাজঘরে ফেরেছেন টপ অর্ডারের আরেক ব্যাটসম্যান টম ওয়েস্টলি। মিগুয়েল কামিন্সের বলে এলবিডব্লিউর শিকার হয়েছেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৯০ ওভারে ৩৪৮/৩ (কুক ১৫৩* স্টোনম্যান ৮, ওয়েস্টলি ৮, রুট ১৩৬, মালান ২৮*; রোচ ২/৭২, জোসেফ ০/৮৫, কামিন্স ১/৬১, হোল্ডার ০/৫৮, চেইস ০/৫৮, ব্র্যাথওয়েইট ০/৬)

এই বিভাগের আরো খবর

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের টাইটেল স্পন্সর ‘রকেট’

২০১৬ সালে বিসিবি দুই বছরের জন্য হোম সিরিজের স্বত্ব বিক্রি করে। ২০১৮ সালের জুলাই পর্যন্ত দেশের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক সিরিজের সবগুলো সিরিজের টাইটেল স্পন্সর স্বত্ব কিনে নেয় ডাচ বাংলা ব্যাংক।

এবারের অস্ট্রেলিয়া সিরিজের টাইটেল স্পন্সর দেশের শীর্ষ এ ব্যাংকটি। তাদের মোবাইল ব্যাংঙ্কিং সেবা ‘রকেট’-এর নামে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের টাইটেল স্পন্সর করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে মিরপুর শের-ই-বাংলায় আনুষ্ঠানিকভাবে স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের নাম ঘোষণা করা হয়। সিরিজের নামকরণ করা হয়েছে,‘রকেট বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ ২০১৭’।

ডাচ বাংলা ব্যাংক দীর্ঘদিন ধরেই ক্রিকেটে পৃষ্ঠপোষকতা করে আসছে। ২০০০ সালে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টে সিরিজের স্পন্সর ছিল ব্যাংকটি। মিরপুরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ব্যাংকটির ম্যানেজিং ডিরেক্টর আবুল কাশেম মো: শিরিন, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন এবং সিরিজের টাইটেল ও গ্রাউন্ড স্পন্সরশিপ রাইটস হোল্ডার ইমপ্রেস-মাত্রা কনসোর্টিয়ামের কর্মকর্তা সানাউল আরেফিন।

দুটি টেস্ট খেলতে আগামীকাল বাংলাদেশ আসছে অস্ট্রেলিয়া সিরিজ দল। ঢাকায় ২৭ থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত হবে প্রথম টেস্ট। দ্বিতীয় ম্যাচটি ৪ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রামে।
 

এই বিভাগের আরো খবর

১১ বছর পর টেস্ট খেলতে আসছে অস্ট্রেলিয়া

২০০৬ সালে সবশেষ বাংলাদেশ সফরে এসে টেস্ট ম্যাচ খেলেছিল অস্ট্রেলিয়া। এরপর ২০১১ সালে বাংলাদেশ সফরে আসলেও সেবার শুধু ওয়ানডে সিরিজ খেলেছে অসিরা।

২০১৫ সালে দ্বিপাক্ষিক সফরে বাংলাদেশে আসার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু নিরাপত্তার অজুহাতে ওই সময় বাংলাদেশে দল পাঠাতে অপারগতা প্রকাশ করে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। সফর স্থগিত করে তারা জানিয়েছিল, বাংলাদেশে নিরাপত্তা পরিস্থিতি ভালো হলে ভবিষ্যতে নিশ্চিত সফর করবে অস্ট্রেলিয়া।

২০১৬ সালে ইংল্যান্ড সিরিজ সফলভাবে আয়োজন করায় বাংলাদেশের নিরাপত্তা নিয়ে নিজেদের সন্তুষ্টির কথা জানায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। পাশাপাশি সে সময়ে বাংলাদেশে এসে নিরাপত্তা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা প্রতিনিধি দল। এরপর থেকে বাংলাদেশ সফর নিয়ে বরফ গলা শুরু হয়। 

নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে অনেক যাচাই-বাছাই শেষে দ্বিপাক্ষিক টেস্ট সিরিজ খেলতে অবশেষে বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া দল। আগামীকাল শুক্রবার রাত ১০.৪৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। এরপর শনিবার জিম করবে টিম অস্ট্রেলিয়া। ওই দিন অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের সদস্যরা গণমাধ্যমের সামনে কথা বলবেন।

অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল আগামীকাল রাতে আসলেও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত একটি দল আগেই পাঠিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। বিশেষ করে বড় সব দলই তাদের সফরের আগে উক্ত দেশে নিরাপত্তা দল পাঠিয়ে থাকে। আজ মিরপুর স্টেডিয়ামে ওই নিরাপত্তা দলের উপস্থিতিতে একটি মহড়া চালায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এক প্যারা কমান্ডো ব্যাটেলিয়ান। সেনাবাহিনীর মহড়া মাঠে উপস্থিত থেকে দেখেছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা প্রধান শন ক্যারল। পুরো মহড়ার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করেছেন সফরকারী দলের দুই কর্মকর্তা

আগামীকাল ঢাকায় অবতরনের পর ২২ ও ২৩ আগস্ট দুদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে সফরকারীরা। ঢাকায় দুই দলের প্রথম টেস্টটি শুরু হবে ২৭ আগস্ট। এরপর ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে দ্বিতীয় টেস্টে অস্ট্রেলিয়াকে স্বাগত জানাবে তামিম-মুশফিক-সাকিবরা।

অস্ট্রেলিয়া টেস্ট স্কোয়াড:
স্টিভ স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যাস্টন অ্যাগার, হিলটন কার্টওয়েট, প্যাট কামিন্স, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, জস হ্যাজেলউড, উসমান খাজা, নাথান লায়ন, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, জেমস প্যাটিনসন, ম্যাথু রেনশ ও ম্যাথু ওয়েড।

এই বিভাগের আরো খবর

ওয়ার্নারকে নিয়ে বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া

প্রস্তুতি ম্যাচে জস হ্যাজেলউডের বাউন্সার ঠিকমত সামলাতে পারেননি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। গলার নিচে বল আঘাত করে। চোট পেয়ে মাঠ ছাড়েন ওয়ার্নার।

বুধবার প্রস্তুতি ম্যাচের শেষ দিনে মাঠে নামেননি বাঁহাতি এ ওপেনার। তবে এ ওপেনারকে নিয়ে দুঃশ্চিন্তার কিছু নেই। নিশ্চিত করেছেন অস্ট্রেলিয়ার কোচ ড্যারেন লেম্যান। প্রাক্তন অসি ক্রিকেটার জানালেন, ওয়ার্নারকে নিয়ে বাংলাদেশ আসছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। শুক্রবার রাতে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার সহ-অধিনায়ককে বুধবার বিশ্রাম দেয়া হয়েছিল। তবে অনুশীলনের সময় পুরোমাঠ ঘুরে বেড়িয়েছেন ৩০ বছর বয়সি এ ক্রিকেটার। সঙ্গে ছিলেন দলটির ফিজিও।

ডারউইনে প্রস্তুত ম্যাচ শেষে লেম্যান বলেন,‘চোট পাওয়ার পর চিন্তিত হয়ে গিয়েছিলাম। তবে সে এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। আগামী দুদিনে তার আরও উন্নতি হবে। আশা করছি সে আরও সুস্থ হয়ে উঠবে।’

দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে আসছেন ডেভিড ওয়ার্নার। এছাড়া দ্বিতীয়বারের মতো বাংলাদেশে খেলতে যাচ্ছেন মারকুটে এ ওপেনার। ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ সফর করেছিলেন ওয়ার্নার।

দেশে ফিরেছেন সাকিব-মিরাজ

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রস্তুতির জন্য ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) মাঝ পথেই দেশে ফিরেছেন টাইগার দুই তারকা সাকিব আল হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ। সাকিব সোমবার রাতেই আর মিরাজ ফিরেন মঙ্গলবার সকালে।

সিপিএলে জ্যামাইকা তালাওয়াহসের হয়ে খেলেছেন সাকিব। তিন ম্যাচে করেছেন ৬১ রান। পাশাপাশি ২টি উইকেটও নিয়েছেন তিনি। অপরদিকে মিরাজ ছিলেন ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সে। তবে কোন ম্যাচেই খেলার সুযোগ হয়নি তার।

এদিকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ তারিখ ঢাকায় পা রাখবে স্মিথ বাহিনী। আর ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। আর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর। তবে এর আগে ২২ আগস্ট দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া।

এই বিভাগের আরো খবর

গুরুতর নয় ওয়ার্নারের চোট

বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে দুই দলে বিভক্ত হয়ে তিন দিনের এক প্রস্তুতি ম্যাচের মধ্য দিয়ে নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া দল। আর এ প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাট করতে নেমে হ্যাজেলহুডের বল হুক করতে গিয়ে মিস করেন ওয়ার্নার। বল গিয়ে আঘাত হানে তার ঘাড়ে। তবে বড় কোন দুর্ঘটনা হয়নি। সুস্থ আছেন অস্ট্রেলিয়ার এই ওপেনার।

ডারউইনে দুই দলে বিভক্ত হয়ে নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া দল। স্টিভেন স্মিথ একাদশের বিপক্ষে ব্যাট করতে নেমে হ্যাজেলহুডের বল হুক করতে গিয়ে মিস করেন ওয়ার্নার। আর বল গিয়ে আঘাত হানে তার ঘাড়ে। সঙ্গে সঙ্গে সে মাটিতে বসে পড়েন। পরে অস্ট্রেলিয়া দলের ডাক্তার রিচার্ডের সঙ্গে ওয়ার্নার মাঠ থেকে বেরিয়ে যান।

এদিকে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, ‘ ব্যাট করতে নেমে গলায় আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়ার পর ডেভিড ওয়ার্নার সুস্থ আছেন। মেডিক্যাল পরীক্ষায় সে পাস করেছেন। বুধবার সকালে মাঠে নামতে পারেন তিনি।’

উল্লেখ্য, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ তারিখ ঢাকায় পা রাখবে স্মিথ বাহিনী। আর ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। আর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর।

এই বিভাগের আরো খবর

অস্ট্রেলিয়াকে হারানো সম্ভব যদি

১১ বছর পর বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে আসছে অস্ট্রেলিয়া। বহুল প্রতীক্ষিত এই সিরিজটা কি স্মরণীয় করে রাখতে পারবে বাংলাদেশ? সাকিব, মুশফিকরা পারবেন স্মিথ, ওয়ার্নারদের হারাতে? বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার বিশ্বাস, অস্ট্রেলিয়াকে হারানো সম্ভব। তবে এর জন্য গত বছর ইংল্যান্ডকে হারাতে বাংলাদেশ যেমন খেলেছে, তার চেয়ে আরো এক ধাপ ভালো খেলতে হবে বলে মনে করেন ‘ম্যাশ’।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সাফল্য পেতে অভিজ্ঞ চার টেস্ট খেলোয়াড় তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহর ভূমিকাটা গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে মনে করেন মাশরাফি। ইএসপিএনক্রিকইনফোকে মাশরাফি বলেছেন, ‘আমি আশা করছি, আমাদের চার সিনিয়র খেলোয়াড় তাদের উইকেটের মূল্য দেবে। তাদের পারফরম্যান্স যেন তরুণদের জন্য অনুকরণীয় হয়। তামিম তার ক্যারিয়ারের সেরা ফর্মে আছে। সে এবং ইমরুল ভালো শুরু এনে দিতে পারে। আমাদের স্পিন বিভাগে আছে সাকিব ও মেহেদী। যদি একজন পেসার তিন-চার উইকেটের ভালো একটা স্পেল করতে পারে, আমাদের যথেষ্ট সম্ভাবনা থাকবে।’

মাশরাফি মনে করেন, খেলোয়াড়দের মানসিক উন্নতিটা সিরিজের আগে তাদের শক্ত অবস্থানে রাখবে। গত দশ মাসে ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কাকে হারানোর পর এই আত্মবিশ্বাসটা বেড়েছে বলে বিশ্বাস মাশরাফির। এই সময়ে অবশ্য বেশ কয়েকটি টেস্টে বাংলাদেশ বাজে পারফরম্যান্স করে হেরেছেও। তবে জয়-পরাজয়ের চেয়ে মানসিকতাটাই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন মাশরাফি, ‘জয় কিংবা পরাজয়ের তুলনায় আরো গুরুত্বপূর্ণ হলো তাদের মানসিকতা। আমি ড্রেসিং রুমের সাক্ষী হয়ে দেখেছি, তাদের মানসিকতা আগের দলগুলোর থেকে আলাদা। এটি যথেষ্ট উৎসাহের ব্যাপার যে তারা লড়াই করছে, যা ফলাফলের চেয়ে বেশি প্রত্যাশিত। টেস্ট সিরিজের আগে তাদের সেরা প্রস্তুতিও হয়েছে।’

তবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ভালো করতে হলে ব্যাটসম্যানদের এগিয়ে আসতে হবে বলে মনে করেন প্রাক্তন টেস্ট অধিনায়ক, ‘ধরেন, কেউ ডাবল সেঞ্চুরি করল, কিন্তু বাকিরা কেউ ভালো করতে পারল না। তাও কিন্তু ৪০০ বা ৪৫০ রানের স্কোর হয়ে যায়। সে জন্যই সেট ব্যাটসম্যানদের নিজেদের ইনিংস বড় করতে হবে। যে ৪০ করেছে, তাকে সেঞ্চুরি করতে হবে। ফিফটি করে খুশি থাকলে হবে না।’ 

মিচেল স্টার্ককে ছাড়া বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া। স্টার্ককে ছাড়াও অস্ট্রেলিয়ার বোলিং লাইনআপ শক্তিশালী হবে বলেই মনে করেন মাশরাফি। বাংলাদেশের জন্য সিরিজটা তাই মোটেই সহজ হবে না। তবে খেলোয়াড়দের ওপর চাপ সৃষ্টি না করে ভালো একটা সিরিজের প্রত্যাশা মাশরাফির, ‘আমি খেলোয়াড়দের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে চাই না। তবে ভালো একটা সিরিজের আশা করছি। অস্ট্রেলিয়ার সম্ভাব্য সেরা দলটাই বাংলাদেশে আসবে। কামিন্স, হ্যাজেলউড, লায়ন তাদের বোলিং লাইনআপে আছে। আমাদের দলের জন্য কাজটা সহজ হবে না। তবে আমরা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যা খেলেছি তার চেয়ে যদি এক ধাপ ভালো খেলতে পারি, তাহলে জেতা সম্ভব। তবে ফলফলের নিরিখে আমি খেলোয়াড়দের ওপর চাপ তৈরি করব না।

এই বিভাগের আরো খবর

আবার শীর্ষে সাকিব

এক সপ্তাহ আগেই সাকিব আল হাসানকে সরিয়ে শীর্ষে উঠেছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। তবে শীর্ষস্থানটা এক সপ্তাহের বেশি ধরে রাখতে পারলেন না ভারতীয় অলরাউন্ডার। আইসিসি অলরাউন্ডারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে আবার শীর্ষে সাকিব।

নিষেধাজ্ঞার কারণে পাল্লেকেলে টেস্টে খেলতে পারেননি জাদেজা। ফলে তার ৮ রেটিং পয়েন্ট কমেছে। তার পয়েন্ট এখন ৪৩০। সাকিবের পয়েন্ট আগের মতো ৪৩১-ই আছে। এর মধ্যে দিয়ে আবারও তিন ফরম্যাটের অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে ফিরলেন সাকিব। 

জাদেজা অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষস্থান হারালেও আজ আইসিসির প্রকাশিত নতুন র‍্যাঙ্কিংয়ে বোলিংয়ের এক নম্বর স্থানটা ধরে রেখেছেন।

নতুন র‍্যাঙ্কিংয়ে বড় সুখবর পেয়েছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান শিখর ধাওয়ান ও লোকেশ রাহুল। দুজনই আছেন তাদের ক্যারিয়ার সেরা অবস্থানে।

পাল্লেকেলে টেস্টে ১১৯ রানের ইনিংস খেলা ধাওয়ান ১০ ধাপ এগিয়ে আছেন ২৮তম স্থানে। বাঁহাতি ওপেনার সিরিজে দুই সেঞ্চুরিতে করেন ৩৫৮ রান। সেটারই প্রতিফলন এই র‍্যাঙ্কিং। 

আর রাহুল দুই ধাপ এগিয়ে তার ক্যারিয়ার সেরা নবম স্থানে ফিরেছেন। তবে বর্তমানে ৭৬১ রেটিং পয়েন্ট তার ক্যারিয়ার সেরা। পাল্লেকেলেতে ধাওয়ানের সঙ্গে ১৮৮ রানের জুটি গড়ার পথে ৮৫ রান করেন তিনি। স্পর্শ করেন টানা সাত ইনিংসে ফিফটির বিশ্ব রেকর্ড।

পাল্লেকেলে টেস্টে ৮৬ বলে সেঞ্চুরি করা হার্দিক পান্ডিয়া ৪৫ ধাপ এগিয়েছেন, আছেন ক্যারিয়ার সেরা ৬৮তম স্থানে। এই টেস্টে মাত্র ১৭ রান করা অজিঙ্কা রাহানে ছয় থেকে দশে নেমে গেছেন। তার ব্যর্থতায় দশে এসেছেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান জনি বেয়ারস্টো। দুই বছর পর শীর্ষ দশের বাইরে চলে গেছেন অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার।

চেতেশ্বর পূজারা তিন থেকে নেমে গেছেন চারে। তার ব্যর্থতায় তিনে উঠেছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ দুটি স্থানে কোনো পরিবর্তন হয়নি। শীর্ষে আছেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ, দুইয়ে ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট।

বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ দশে কোনো পরিবর্তন হয়নি। ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামি ও উমেশ যাদব এক ধাপ করে এগিয়ে যথাক্রমে ১৯তম ও ২১তম স্থানে আছেন। র‍্যাঙ্কিংয়ে বড় লাফ দিয়েছেন দুই চায়নাম্যান বোলার ভারতের কুলদীপ যাদব ও শ্রীলঙ্কার লাকশান সান্দাকান। কুলদীপ ২৯ ধাপ এগিয়ে ৫৮তম ও সান্দাকান ১৬ ধাপ এগিয়ে ৫৭তম স্থানে আছেন।

এই বিভাগের আরো খবর

বাউন্সারের আঘাতে মাঠ ছাড়লেন ওয়ার্নার

বাংলাদেশ সফরে আসার আগে প্রস্তুতি ম্যাচে জশ হ্যাজেলউডের বাউন্সারে আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়লেন অস্ট্রেলিয়ার সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার।

ডারউইনে অস্ট্রেলিয়ার নিজেদের মধ্যে তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের আজ দ্বিতীয় দিনের ঘটনা এটি। দ্বিতীয় ইনিংসে হ্যাজেলউডের বাউন্সারটা ওয়ার্নার হুক করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ব্যাটে-বলে এক হয়নি। বল আঘাত করে ওয়ার্নারের ঘাড়ের এক পাশে!

তাল সামলাতে না পেরে ওয়ার্নার মাটিতে পড়ে যান। তবে উঠে দাঁড়ান দ্রুতই। স্লিপ থেকে ছুটে আসেন অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ। ওয়ার্নার ব্যাট ফেলে গ্লাভস আর হেলমেট খুলতে খুলতে হাঁটা দেন ড্রেসিং রুমের দিকে। অস্ট্রেলিয়ার টিম ডক্টর রিচার্ড স মাঠে ছুটে আসেন দ্রুতই। তবে ওয়ার্নার একাই মাঠ ছাড়েন।

 


ড্রেসিং রুমে ফেরার পর ওয়ার্নারকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। আঘাত পাওয়া স্থানে দেওয়া হয় বরফ। তবে চোট খুব একটা গুরুতর নয় বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্রথম ইনিংসে কাল এই হ্যাজেলউডের বলেই বোল্ড হওয়ার আগে ওয়ার্নার করেছিলেন মাত্র ৪ রান। আজ আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়ার সময় তার সংগ্রহ ছিল ১৪ বলে ২।

এর আগে পিটার হ্যান্ডসকম্বের সেঞ্চুরিতে ওয়ার্নার একাদশ ৬ উইকেটে ৩৬০ রানে প্রথম ইনিংসে ঘোষণা করেছিল। জবাবে আজ স্মিথ একাদশ ইনিংস ঘোষণা করে ৬ উইকেটে ১৮১ রানে। স্বেচ্ছায় মাঠ ছাড়ার আগে স্মিথ করেন ৮৪, গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের ব্যাট থেকে আসে ৪৫ রান। চা বিরতিতে যাওয়ার আগে ওয়ার্নার একাদশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৭৬ রান

এই বিভাগের আরো খবর

বোথামকে ছাড়িয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় ব্রড

আর মাত্র ৫ উইকেট। আর ৫ উইকেট পেলেই ইয়ান বোথামকে ছাড়িয়ে টেস্টে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি হয়ে যাবেন স্টুয়ার্ট ব্রড।

বর্তমানে ব্রডের উইকেট ৩৭৯টি। প্রাক্তন ইংলিশ অলরাউন্ডার বোথামের আছে ৩৮৩ উইকেট। ৪৮৭ উইকেট নিয়ে সবার ওপরে ব্রডের সতীর্থ জেমস অ্যান্ডারসন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজেই বোথামকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ ব্রডের সামনে। আগামী বৃহস্পতিবার এজবাস্টনে দিবারাত্রির টেস্ট দিয়ে শুরু হবে তিন ম্যাচের এই সিরিজ।

ইংল্যান্ডের বর্তমান পেস আক্রমণের সেরা দুই অস্ত্র অ্যান্ডারসন ও ব্রড। এই দুজনই টেস্টে দেশের সর্বোচ্চ উইকেটের তালিকার শীর্ষ দুটি স্থানে থাকতে যাচ্ছেন। এ ছাড়া টেস্ট ইতিহাসের ষষ্ঠ বোলার ও তৃতীয় পেসার হিসেবে ৫০০ উইকেটের মাইলফলক ছুঁতে অ্যান্ডারসনের চাই আর ১৩ উইকেট। 

২০১৫ সালে অ্যান্টিগায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক দিনেশ রামদিনকে অ্যালিস্টার কুকের ক্যাচ বানিয়ে বোথামকে ছাড়িয়ে গিয়েছিলেন অ্যান্ডারসন। সেই স্মৃতি মনে করে ব্রড বলেছেন, ‘আমার মনে আছে, জিমি যখন বিফিকে (বোথামের ডাক নাম) ছাড়িয়ে যায় এবং দেখেছি তার কাছে এটার কতটা অর্থ ছিল। সে এ যাবতকালে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে বড় খেলোয়াড়

এই বিভাগের আরো খবর

প্রমাণ করেই দলে জায়গা পেতে হবে ধোনিকে

২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলতে হলে পারফরম্যান্স করেই জায়গা পেতে হবে মাহেন্দ্র সিং ধোনিকে। অটোমেটিক চয়েজে আর থাকছেন না ভারতের বিশ্বকাপজয়ী এ অধিনায়ক। নিশ্চিত করেছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাহী এমএসকে প্রাসাদ। 

ভারতকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, ওয়ানডে বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শিরোপা জিতিয়েছেন মাহেন্দ্র সিং ধোনি। অধিনায়ক ধোনির নামের পাশে যুক্ত আছে আরও অনেক সাফল্য।  কিন্তু অধিনায়কত্ব ছাড়ার পর ধোনিকে পাওয়া যাচ্ছে না স্বরূপে! ভারতকে একাধিক ম্যাচে সাফল্য এনে দিলেও বড় ম্যাচে জ্বলে উঠতে ব্যর্থ মিস্টার ফিনিশার। ‘ধোনির সময় ফুরিয়ে গেছে’- এমন চিন্তা করতেও পিছু পা হচ্ছে নির্বাচকরা।

২০১৯ সালে ধোনির বয়স হবে ৩৮। ওই সময়ে ধোনি কতটুকু ফিট থাকবেন কিংবা কতটুকু পারফর্ম করতে পারবেন সেই উত্তর খুঁজছে নির্বাচক প্যানেল। তাদের সহজ সমাধান, ‘প্রমাণ করেই দলে জায়গা পেতে হবে ধোনিকে। অন্যথায় আমাদেরকে বিকল্প খুঁজতে হবে।’

২০১৪ সালে টেস্ট সিরিজ থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন ধোনি।  এরপর ওয়ানডে ক্রিকেটের অধিনায়কের পদ ছাড়েন ২০১৭ সালে। বিরাট কোহলির নেতৃত্বে খেলে যাচ্ছেন ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ওয়ানডে অধিনায়ক। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ধোনি ব্যাট হাতে ভালো করতে পারেননি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে একটি ম্যাচে জেতালেও আরেক ম্যাচে স্লো ব্যাটিংয়ের কারণে বিতর্কিত হয়েছিলেন। শ্রীলঙ্কা সফরে রয়েছে ভারতীয় দল। টেস্ট সিরিজের পর ওয়ানডে সিরিজ খেলতে নামবে সফরকারীরা। অটোমেটিক চয়েজ হিসেবে এ সফরে ধোনি থাকলেও তার পারফরম্যান্সে নজর রাখবে টিম ম্যানেজম্যান্ট।

‘আমরা তার পারফরম্যান্স দেখব। সে একজন লিজেন্ড। আমরা এতটা সহজেও হাল ছেড়ে দিতে পারি না। তবে আমাদের ভিন্ন পরিকল্পনাও রয়েছে।’- যোগ করেন প্রসাদ। এদিকে ধোনি সুযোগ পেলেও বাদ পড়েছেন যুবরাজ সিং। অনেকটাই নিশ্চিত যে ২০১৯ বিশ্বকাপের জন্য তাকে বিবেচনায় আনছে না টিম ম্যানেজম্যান্ট।

এই বিভাগের আরো খবর

ঝোড়ো সেঞ্চুরিতে পান্ডিয়ার যত রেকর্ড

আন্তর্জাতিক কিংবা ঘরোয়া- কোনো ক্রিকেটেই এতদিন তার নামের পাশে সেঞ্চুরি ছিল না। মাত্র তৃতীয় টেস্ট খেলতে নেমেই সেই আক্ষেপ ঘোচালেন হার্দিক পান্ডিয়া। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পাল্লেকেলে টেস্টে আজ ৮৬ বলে ঝোড়ো সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে রেকর্ড বই ওলটপালট করে দিয়েছেন ভারতীয় অলরাউন্ডার।

*পঞ্চম ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে নিজের প্রথম সেঞ্চুরিটা টেস্ট ম্যাচে পেলেন পান্ডিয়া। পান্ডিয়া ছাড়িয়ে গেছেন তার আগের সর্বোচ্চ ৯০ রানকে। অন্য চারজন হলেন- বিজয় মাঞ্জরেকার, কপিল দেব, অজয় রাত্রা ও হরভজন সিং।

*দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে পান্ডিয়া ১০৭ রান করেছেন। টেস্টের যেকোনো দিনে লাঞ্চের আগে ১০০ বা এর বেশি রান করা পঞ্চম ভারতীয় ক্রিকেটার পান্ডিয়া। ভারতের ৯ উইকেট পড়ে যাওয়ায় এই সেশনটা যদিও ৩০ মিনিট বাড়ানো হয়েছিল।

*মিলিন্ডা পুষ্পকুমারার এক ওভারে ৩ ছক্কা ও ২ চারে পান্ডিয়া তুলেছেন ২৬ রান। যেটি টেস্টে এক ওভারে ভারতীয় কোনো ব্যাটসম্যানদের সর্বোচ্চ। তিনি ছাড়িয়ে গেছেন সন্দ্বীপ পাতিল ও কপিল দেবের ২৪ রানকে। সব মিলিয়ে এক ওভারে পান্ডিয়ার চেয়ে বেশি রান করেছেন মাত্র তিনজন-ব্রায়ান লারা (২৮), জর্জ বেইলি (২৮), শহীদ আফ্রিদি (২৭)।

*পান্ডিয়াসহ তিনজন ভারতীয় ব্যাটসম্যান টানা ৩ বা এর বেশি ছক্কা হাঁকালেন। ১৯৯০ সালে লর্ডসে এডি হেমিংসকে টানা ৪ ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন কপিল দেব, ২০০৬ সালে অ্যান্টিগায় ডেভ মোহাম্মেদকে টানা তিন ছক্কা হাঁকান মহেন্দ্র সিং ধোনি। টানা ৪ ছক্কা হাঁকানোর কীর্তি আছে আর কেবল আফ্রিদি ও এবি ডি ভিলিয়ার্সের।

*পান্ডিয়ার ৮৬ বলে সেঞ্চুরি ভারতের হয়ে দ্বিতীয় দ্রুততম। ২০০৬ সালে সেন্ট লুসিয়ায় বীরেন্দর শেবাগের ৭৮ বলে সেঞ্চুরি ভারতের সবচেয়ে দ্রুততম। পান্ডিয়া প্রথম ৫০ রান করেছিলেন ৬১ বলে। পরের ৫০ করতে লেগেছে মাত্র ২৫ বল! 

*পান্ডিয়ার ইনিংসে ছক্কা ৭টি। যেটি ভারতীয় ব্যাটসম্যানের কোনো টেস্টে ইনিংসে যৌথভাবে সর্বোচ্চ। ১৯৯৩-৯৪ মৌসুমে এই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই নবজ্যোৎ সিধুর ৮ ছকা এখনো সর্বোচ্চ। ইনিংসে ৭ ছকা আছে শেবাগ ও হরভজনেরও।

*শ্রীলঙ্কার মাটিতে টেস্টে পান্ডিয়ার ৮৬ বলের চেয়ে দ্রুততম সেঞ্চুরি আছে আর একটিই। ২০০০-০১ মৌসুমে কলম্বোয় বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কান গ্রেট মাহেলা জয়াবর্ধনে সেঞ্চুরি করেছিলেন ৮১ বলে। ২০০০ সালে গলে পান্ডিয়ার সমন ৮৬ বলে সেঞ্চুরি করেছিলেন পাকিস্তানের ওয়াসিম আকরামও।

এক ওভারে ৪০ রান

জয়ের জন্য শেষ ওভারে দরকার ৩৫ রান। এমন সমীকরণে ম্যাচ জিততে হলে অসম্ভব কিছুই দেখাতে হতো। সেই অসম্ভব কাজটাই করেছেন ৫৪ বছর বয়সি ব্যাটসম্যান স্টিভ ম্যাককম্ব। ইংলিশ ভিলেজ ক্রিকেটে তিনি শেষ ওভারে ৪০ রান তুলেছেন, দলকে এনে দিয়েছেন অবিশ্বাস্য জয়।

কাল ইংল্যান্ডের চতুর্থ বিভাগের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ডরচেস্টার ও সুইনব্রুক। ২৪১ রান তাড়ায় শেষ ওভারে ডরচেস্টারের প্রয়োজন ছিল ৩৫ রান। সুইনব্রুকের বোলার প্রথম বলটা করেন নো, সেই বলে ছক্কা হাঁকান ম্যাককম্ব। পরের বলেও ছক্কা। ৫ বলে চাই ২২।

পরেরটা ডট বল। ৪ বলে চাই ২২। পরের বলে ম্যাককম্ব মারেন চার। পরেরটা নো বল, এই বলেও চার মারেন ম্যাককম্ব। তখন ৩ বলে দরকার ১৩। পরের দুই বলে ম্যাককম্ব হাঁকান টানা দুই ছক্কা, স্কোর লেভেল। শেষ বলে সিঙ্গেল ঠেকাতে সুইনব্রুকের ফিল্ডাররা এগিয়ে এসেছিলেন। তবে ম্যাককম্ব ছক্কার হ্যাটট্রিক করে ডরচেস্টাকে এনে দেন অসাধারণ এক জয়।

দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে দলকে জেতানো ম্যাককম্ব বিবিসিকে বলেছেন, ‘ম্যাচের শেষটা অসাধারণ ছিল। এই লিগে ২৪০ (২৪১) তাড়া করাটা অনেক কঠিন কাজ এবং আমরা কখনোই রান রেটে এগিয়ে ছিলাম না। শেষ ওভারে আমাদের হারানোর কিছু ছিল না, বাউন্ডারিও খুব বড় ছিল না। সুতরাং আমি জানতাম একটা সুযোগ ছিল।’

শেষ ওভারটা যেমন ছিল
নো বল, ছক্কা
ছক্কা
ডট
চার
নো বল, চার
ছক্কা
ছক্কা
ছক্কা

ফেরার জন্য প্রস্তুত ‘টেস্ট স্পেশালিস্ট

শ্রীলঙ্কা সফরে গল টেস্ট ভালো করতে না পারায় কলম্বো টেস্ট থেকে বাদ পড়েন সাদা পোশাকে বাংলাদেশের সবথেকে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক। শততম টেস্ট খেলতে না পারায় কষ্ট পাননি বরং ঘুরে দাঁড়ানোর অনুপ্রেরণা পেয়েছেন। নতুন রূপে নিজেকে ফিরিয়ে আনার প্রেরণা পেয়েছেন।

এবার ফেরার মঞ্চে মুমিনুল হক। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজেই ফিরবেন মুমিনুল হক, এমনটাই প্রত্যাশা। সাদা পোশাকে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত ‘টেস্ট স্পেশালিস্ট।’ চট্টগ্রামে প্রস্তুতি ম্যাচে বড় ইনিংস খেলার সুযোগ পেয়ে হাতছাড়া করেন মুমিনুল। তবে তার ৭৩ রানের ইনিংস মুগ্ধতা ছড়িয়েছিল। এবার ঢাকায় শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে ভালো করতে চান। আত্মবিশ্বাসী কন্ঠে সোমবার মিরপুরে মুমিনুল বলেন, ‘৭৩ রানে আউট হওয়ায় একটু আফসোস আছে। ইনিংসটি বড় হতে পারত। অনুশীলন করছি সমস্যাগুলো কাটিয়ে উঠতে। অবশ্যই ভালো কিছু করা সম্ভব। একটি প্রস্তুতি ম্যাচ এখনও আছে। সেখানে ভালো করার সুযোগ রয়েছে। আশা করছি ভালো কিছু করেই ভালোমত ফিরে আসতে পারব।’

শেষ টেস্টে বাংলাদেশ পেয়েছিল জয়। শ্রীলঙ্কার মাটিতে তাদেরকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। সেই কম্বিনেশন কি বাংলাদেশ ভাঙবে? সেবার মুমিনুলের পরিবর্তে তিনে ব্যাটিং করেছিলেন ইমরুল কায়েস। মুমিনুল সুযোগ পাবেন কিনা তা নিশ্চিত নন। তবে নিজের কাজটুকু করে রাখছেন চট্টগ্রামের এ তারকা। এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘অনুশীলনের পাশাপাশি যেসব কাজ করা দরকার সেগুলো করছি। খেলব কী খেলব না এটা টিম ম্যানেজমন্টের ব্যাপার। আমার হাতে যেটা আছে সেটা হল আরো একটি প্র্যাকটিস ম্যাচ আছে সেখানে ভালো খেলার চেষ্টা করা।’

উইকেট কিংবা অস্ট্রেলিয়ার বোলিং আক্রমণ নিয়ে বাড়তি কোনো চিন্তা নেই মুমিনুলের। নিজের স্কিলের ওপর আত্মবিশ্বাসী বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। তার ভাষ্য, ‘আমরা জানি না উইকেট স্পিন নাকি ফ্ল্যাট হবে। আমার নিজের উপর চ্যালেঞ্জ নিতে হবে। উইকেট যেমনই হোক নিজের জন্য ও দলের জন্য ভাল খেলতে হবে। এছাড়া অস্ট্রেলিয়ার বোলারদের নিয়েও বেশি চিন্তা করছি না। প্রতিদিন নেটে ব্যাটিং করছি, পুরানো বল ও নতুন বলে ব্যাটিং করছি, মেশিনে ব্যাটিং করছি।’

অনন্য সবার মতো মুমিনুল হকও প্রথমবারের মতো অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট খেলতে যাচ্ছেন। বাড়তি রোমাঞ্চ নেই টেস্ট স্পেশালিস্টের। শুধু একটি চাওয়া, একটি প্রত্যাশা। সুযোগ চান টেস্ট একাদশে, প্রত্যাশা করছেন প্যাটিনসন, হ্যাজেলউড, লায়ানদের বিপক্ষে বড় ইনিংস খেলার।

বাংলাদেশে আসার আগে হ্যান্ডসকম্বের দারুণ সেঞ্চুরি

বাংলাদেশ সফরে আসার আগে অস্ট্রেলিয়ার প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ এক সেঞ্চুরি করেছেন পিটার হ্যান্ডসকম্ব। উইকেটকিপার এই ব্যাটসম্যান ১৩০ বলে করেছেন ১০৫ রান।

ডারউইনের মারারা ওভালে স্টিভ স্মিথ একাদশ ও ডেভিড ওয়ার্নার একাদশের তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের সোমবার ছিল প্রথম দিন। এদিন আলো ছড়িয়েছেন বাংলাদেশ সফরে অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট দলে থাকা হিল্টন কার্টরাইটও। তিনি ১২০ বলে করেছেন ৮১। তবে টেস্ট দলের আরেক সদস্য লেগ স্পিনার মিচেল সোয়েপসন ১৩ ওভারে ৯৪ রান দিয়ে উইকেটশূন্য ছিলেন।

 

হ্যান্ডসকম্বের সেঞ্চুরিতে ৬ উইকেটে ৩৬০ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে ওয়ার্নার একাদশ। জবাবে স্মিথ একাদশ প্রথম দিন শেষ করেছে ২ উইকেটে ৩২ রানে। অধিনায়ক স্মিথ ১১ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ৭ রানে অপরাজিত আছেন।

এদিন টস জিতে ব্যাটিং নিয়েছিলেন ওয়ার্নার। তবে ব্যাটিংয়ের শুরুটা মোটেই ভালো হয়নি। মাত্র ৪ রান করেই পেসার জশ হ্যাজেলউডের বলে বোল্ড হয়ে যান অধিনায়ক ওয়ার্নার। আরেক ওপেনার ট্রাভিস হেড দারুণ কয়েকটি চার মারলেও বেশিক্ষণ টেকেননি। ওই হ্যাজেউডের বলেই এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে তিনি করেন ১২। ওয়ার্নার একাদশের সংগ্রহ তখন ২ উইকেটে ১৯।

এরপরই তৃতীয় উইকেটে ১৭৪ রানের বড় জুটি গড়েন হ্যান্ডসকম্ব ও কার্টরাইট। হ্যান্ডসকম্ব সোয়েপসনকে সুইপ করেছেন, মিডউইকেট দিয়ে চার মেরেছেন দারুণ সব শটে। ডাউন দ্য উইকেটে এসে লং অন দিয়ে ছক্কা হাঁকিয়েছেন ম্যাক্সওয়েলকে।

গত জানুয়ারিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হওয়া কার্টরাইট জায়গা ফিরে পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন। স্পিন ও পেসে দারুণ সব শট খেলে তিনি নির্বাচকদের বার্তা দিয়েছেন। তিনিও সেঞ্চুরির পথে ছিলেন। তবে জাতীয় দল অধিনায়ক স্মিথের লেগ স্পিনে কার্টরাইটের তিন অঙ্ক ছোঁয়া হয়নি। যদিও স্মিথের মাথার ওপর দিয়ে দারুণ এক ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন। এরপরই মিড উইকেটে টম অ্যান্ড্রুসকে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন।

হ্যান্ডসকম্বও ফিরেছেন স্মিথের লেগ স্পিনে। ছক্কা হাঁকিয়ে পূরণ করেছিলেন সেঞ্চুরি। পরেরটা ডট বল। এর পরের বলেই স্মিথকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন সেঞ্চুরিয়ান হ্যান্ডসকম্ব।

ডারউইনের ‘লোকাল বয়’ জ্যাক ওয়েদার্ল্ড ঝোড়ো ফিফটিতে ওয়ার্নার একাদশের সংগ্রহটা তিনশ পার করেন। তার সামনেও সেঞ্চুরির সুযোগ ছিল। কিন্তু সেঞ্চুরি থেকে ৪ রান দূরে থাকতে মার্কাস স্টোইনিসের বলে এলবিডব্লিউ হয়েছেন। ওয়েদার্ল্ড মাত্র ৫২ বলে ৪ ছক্কায় খেলেছেন ৯৬ রানের ঝোড়ো ইনিংস।

 
ওয়ার্নার ইনিংস ঘোষণা করার পর স্মিথ একাদশের শুরুটা ভালো হয়নি। ম্যাট রেনশো মাত্র ৬ রান করেই নাথান লায়নের বলে আউট হয়েছেন। টেস্ট একাদশে ফেরার লড়াইয়ে থাকা উসমান খাজাও করেছেন ৬। তিনি কেন রিচার্ডসনের বলে প্রথম স্লিপে ক্যাচ দিয়েছেন। দিনের বাকি সময়টা পার করে দেন স্মিথ-ম্যাক্সওয়েল।

দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ আগস্ট ঢাকায় আসবে অস্ট্রেলিয়া দল। ২০০৬ সালের পর এই প্রথম বাংলাদেশে টেস্ট খেলতে আসছে অসিরা।

আড়াই দিনেই শ্রীলঙ্কার হোয়াইটওয়াশের লজ্জা

প্রথম দুই টেস্ট তাও চতুর্থ দিনে গড়িয়েছিল। পাল্লেকেলে টেস্ট শেষ হয়ে গেল আড়াই দিনেই! তৃতীয় ও শেষ টেস্ট ইনিংস ও ১৭১ রানে জিতে শ্রীলঙ্কাকে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ করেছে ভারত।

দেশের মাটিতে টেস্টে এটি শ্রীলঙ্কার মাত্র দ্বিতীয়বার ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জা। এর আগে ২০০৪ সালে শ্রীলঙ্কা সফরে ৩-০ ব্যবধানে সিরিজ জিতেছিল রিকি পন্টিংয়ের অস্ট্রেলিয়া।

আর ভারত দেশের বাইরে তিন বা এর বেশি ম্যাচের টেস্ট সিরিজে এই প্রথম প্রতিপক্ষকে হোয়াইটওয়াশ করল। পাশাপাশি দেশের বাইরে কোনো সিরিজে ভারতের তিন টেস্ট জয়ের মাত্র দ্বিতীয় ঘটনা এটি। এর আগে ১৯৬৭-৬৮ মৌসুমে নিউজিল্যান্ড সফরে ভারত সিরিজ জিতেছিল ৩-১ ব্যবধানে।

ভারত এই নিয়ে শ্রীলঙ্কায় টানা পাঁচটি টেস্ট জিতল। পাঁচটিই বিরাট কোহলির নেতৃত্বে। ২০১৫ সালে গল টেস্টে হারের পর শ্রীলঙ্কায় আর কোনো টেস্ট ড্র কিংবা হারেনি ভারতীয়রা।

প্রথম ইনিংসে ভারতের ৪৮৭ রানের জবাবে শ্রীলঙ্কা অলআউট হয়েছিল ১৩৫ রানে। টানা দ্বিতীয় টেস্টে ফলোঅনে পড়ে আজ তৃতীয় দিন চা বিরতির আগেই শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংস গুটিয়ে গেছে ১৮১ রানে।

 

ফলোঅনে পড়ে দ্বিতীয় দিন শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ছিল ১ উইকেটে ১৯ রান। দিমুথ করুনারত্নে ১২ ও নাইটওয়াচম্যান মিলিন্ডা পুষ্পকুমারা শূন্য রান নিয়ে আজ তৃতীয় দিন শুরু করেছিলেন।

দিনের মাত্র তৃতীয় ওভারেই করুনারত্নেকে (১৬) অজিঙ্কা রাহানের ক্যাচ বানিয়ে বিদায় করেন ভারতীয় স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন। একটু পর পুষ্পকুমারাকে ফেরান পেসার মোহাম্মদ শামি। শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ তখন ৪ উইকেটে ৩৯!

লাঞ্চের আগে আর কোনো বিপদ হতে দেননি বর্তমান ও প্রাক্তন অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমাল আর অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। লাঞ্চের পর দুজন দলের সংগ্রহটা একশ পার করেছিলেন। এরপরই চান্দিমালকে (৩৬) ফিরিয়ে ৬৫ রানের জুটি ভাঙেন চায়নাম্যান বোলার কুলদীপ যাদব। খানিক বাদেই ম্যাথুস (৩৬) ফিরেছেন অশ্বিনের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে।

এরপর নিরোশান ডিকভেলার ৪১ ছাড়া আর কেউই বলার মতো কিছু করতে পারেননি। তাতে প্রথমবারের মতো টানা দুই টেস্টে ইনিংস হারের লজ্জায় ডোবে শ্রীলঙ্কা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ৬৮ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ভারতের সেরা বোলার অশ্বিন। ৩২ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি। উমেশ যাদব ২টি ও কুলদীপ নিয়েছেন একটি উইকেট। প্রথম ইনিংসে ৮৬ বলে সেঞ্চুরি করা হার্দিক পান্ডিয়া হয়েছেন ম্যাচসেরা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: 

ভারত প্রথম ইনিংস: ৪৮৭ (ধাওয়ান ১১৯, পান্ডিয়া ১০৮, রাহুল ৮৫; সান্দাকান ৫/১৩৫)

শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস: ১৩৫ (চান্দিমাল ৪৮; কুলদীপ ৪/৪০) ও দ্বিতীয় ইনিংস: (ফলোঅন) ১৮১ (ডিকভেলা ৪১; অশ্বিন ৪/৬৮, শামি ৩/৩২) 

ফল: ভারত ইনিংস ও ১৭১ রানে জয়ী

সিরিজ: তিন ম্যাচের সিরিজ ভারত ৩-০ ব্যবধানে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: হার্দিক পান্ডিয়া

ম্যান অব দ্য সিরিজ: শিখর ধাওয়ান। 

ভারতে নয়, যুব এশিয়া কাপ হবে মালয়েশিয়ায়

শেষ পর্যন্ত ভারত থেকে যুব এশিয়া কাপের ভেন্যু সরানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল। এমন সিদ্ধান্ত যে আসতে পারে, তা অনুমান করা যাচ্ছিল আগে থেকেই। কারণ সংস্থাটির চেয়ারম্যানের পদ ধারণ করে আছে খোদ পাকিস্তান! কিছুদিন আগেই এ নিয়ে আপত্তি তুলেছিল পিসিবি। যদিও সদস্যদেশগুলোর সর্বসম্মতিতেই এমনটি করেছে এসিসি। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে অনূর্ধ্ব-১৯ দের নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে এই আসর।

 

 

প্রস্তাব অনুযায়ী এই আসর হওয়ার কথা ছিল ভারতের বেঙ্গালুরুতে। এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি) অনেক আগেই টুর্নামেন্টের আয়োজক হিসেবে ভারতের নাম ঘোষণা করেছিল। শনিবার হওয়া এই সভায় পাকিস্তান ও ভারতের রাজনৈতিক অবস্থাকে মাথায় নিয়েই এমন সিদ্ধান্ত নিতে হলো এসিসিকে। আর এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনও ধরনের বাধা দেয়নি সদস্যদেশ ভারত। তবে নিলে ঝামেলা হয়তো বাড়তোই! তখন হয়তো পাকিস্তানকে অংশগ্রহণে বাধা দিতে পারে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)! পাকিস্তান থাকায় কিছুদিন আগেই ভারত সরকারের কাছে টুর্নামেন্ট আয়োজনের অনুমতি চেয়েছিল বিসিসিআই। কিন্তু ভেন্যু সরে যাওয়াতে এখন আর কোনও ঝামেলা রইলো না।

টুর্নামেন্টে অংশ নেবে আটটি দল। যাদের মধ্যে পাকিস্তান, ভারত, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা স্বনিয়ন্ত্রিতভাবেই চূড়ান্ত পর্বে খেলবে। বাকি চার দল দক্ষিণাঞ্চল ও পশ্চিম থেকে বাছাই খেলেই আসবে। প্রতিটি অঞ্চল থেকেই আসবে দুটি করে দল।

এই বিভাগের আরো খবর

চোট নিয়ে দেশে ফিরছেন হ্যাস্টিংস

সবশেষ জুনে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে চ্যাম্পিয়স ট্রফিতে খেলেছেন জন হ্যাস্টিংস। সম্প্রতি ইংলিশ কাউন্টিতে ওরচেস্টারশায়ারের হয়ে খেলছেন অস্ট্রেলিয়ান এ পেস বোলার। ওই দলটির হয়ে খেলার সময়ে পায়ের চোটে পড়েছেন তিনি।

সাসেক্সের বিপক্ষে চার দিনের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে খেলার সময় পায়ে চোট পান হ্যাস্টিংস। চোট সারাতে এবং পুনর্বাসন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে অস্ট্রেলিয়া ফিরে আসছেন ৩১ বছর বয়সি এ তারকা।

জন হ্যাস্টিংসের চোট নিয়ে ওরচেস্টারশায়ারের ফিজিও বেন ডেভিস জানান, ‘আমরা তাকে এমআরআই স্ক্যানের জন্য পাঠিয়েছিলাম। সেখানে কিছু প্রদাহ এবং তার পায়ের হাড়ে অসঙ্গতি লক্ষ্য করা গেছে। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া চাইছে সে যেন দেশে ফিরে চিকিৎসা নেয়। দল নির্বাচনের জন্য হ্যাস্টিংসকে ফিট দেখার প্রত্যাশায় রয়েছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল।’

চলতি মাসেই টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া। আগামী সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে সীমিত ওভারের সিরিজ খেলতে ভারতে যাবে স্মিথ-ওয়ার্নাররা। এরপর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মর্যাদার অ্যাশেজ সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়ায় ফিরবে দলটি।

এই বিভাগের আরো খবর

মিরাজের দলের সহজ জয়

অপেক্ষা আরও বাড়ল মেহেদী হাসান মিরাজের। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) শনিবার সকালের ম্যাচেও সুযোগ হয়নি তার। তবে সতীর্থদের সঙ্গে জয় উৎসবের সুযোগ পাচ্ছেন বাংলাদেশি অলরাউন্ডার। তার দল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স শনিবারও যেমন পেয়েছে সহজ জয়। কলিন মুনরোর তাণ্ডবে গায়ানা অ্যামাজন ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে মিরাজের দল জিতেছে ৩ উইকেটে। ২০ ওভারে গায়ানার ৭ উইকেটে করা ১৫৬ রানের জবাবে ১ ওভার আগেই জয় নিশ্চিত করে ত্রিনবাগো ৩ উইকেট হারিয়ে।

 

 

যার কারণে একাদশে জায়গা পাচ্ছেন না মিরাজ, সেই শাদাব খান আলো ছড়িয়েই যাচ্ছেন। গানায়ার বিপক্ষেও বল হাতে দারুণ সফল পাকিস্তানি এই স্পিনার। ৪ ওভারে মাত্র ২৮ রান নিয়ে ৪ উইকেট তুলে নিয়ে তিনিই আসলে বাড়তে দেননি গায়ানার স্কোর। শাদাবের সঙ্গে সুনিল নারিনের (২/১৬) স্পিন ঘূর্ণির আগে শুরুটা কিন্তু দারুণ হয়েছিল তাদের। মার্টিন গাপটিল (২৪) ও চ্যাডউইক ওয়ালটনের (৩৬) ইনিংস দুটির পর গায়ানার আর কোনও ব্যাটসম্যান সুবিধা করতে পারেননি। তবে শেষ দিকে কিমো পল (৭ বলে ১৪*) ও রায়াড এমরিটের (৬ বলে ১১*) ছোট্ট ঝড়ে তাদের ইনিংস শেষ হয় ১৫৬ রানে।

জবাবে ত্রিনবাগো শুরুতেই হারায় ব্রেন্ডন ম্যাককালামের উইকেটটি (০)। যদিও খুব একটা সুবিধা হয়নি গায়ানার। নারিন ও মুনরো মিলে তৈরি করেন জয়ের পথ। নারিন ২২ বলে ২৩ রান করে আউট হলেও মুনরো অপরাজিত ছিলেন ৭০ রানে। ৪৭ বলে ৫ চার ও ৫ ছক্কায় সাজানো দুর্দান্ত ইনিংস খেলে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন কিউই ব্যাটসম্যান। দিনেশ রামদিনের অবদানও কম নয়। ২৩ বলে ৩ চার ও সমান সংখ্যক ছক্কায় হার না মানা ৪২ রানের ইনিংস খেলেছেন এই উইকেটরক্ষক। ক্রিকইনফো

এই বিভাগের আরো খবর

অস্ট্রেলিয়ার ফিল্ডিং কোচ হাডিন

অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর দিয়ে নতুন চাকরি শুরু করতে যাচ্ছেন ব্রাড হাডিন। সাবেক উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানকে ফিল্ডিং কোচের দায়িত্ব দিয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। গ্রেগ ব্লেউয়েটের এ উত্তরসূরি ২০১৯ সালের শেষ পর্যন্ত চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন।

 

জাতীয় দলের ফিল্ডিং কোচ হিসেবে তার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হবে ২৭ আগস্ট বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট দিয়ে। ব্লেউয়েট সাউথ অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনে নতুন চাকরি নেওয়ায় হাডিন সেই জায়গা পূরণ করলেন। বৃহস্পতিবার এ খবর জানার পর সাবেক এ তারকা বলেছেন, ‘দলের দারুণ খেলোয়াড়দের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়ে আমি রোমাঞ্চিত।’

৩৯ বছর বয়সী হাডিন এর আগে বিভিন্ন দায়িত্বে কাজ করেছেন নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-১৭ ও অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সঙ্গে। ২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের সহকারী কোচ ছিলেন তিনি। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

এই বিভাগের আরো খবর

সাকিবদের আরেকটি জয়

কলিন মুনরোর ব্যাটিং ঝড়ে বড় স্কোরের সম্ভাবনা দেখিয়েছিল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। কিন্তু তিনি ফিরে যেতেই ব্যাটিং ধস। ৩৮ রানের ব্যবধানে শেষ ৮ উইকেট হারায় দলটি। জবাবে সাকিব আল হাসানের দল জ্যামাইকা তালাওয়াস ৬ উইকেট হারিয়ে পৌঁছে যায় লক্ষ্যে। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে বুধবার তাদের টানা দ্বিতীয় জয় এলো ৪ উইকেটে। আর তিন ম্যাচে প্রথম হারেও টেবিলের শীর্ষস্থানে ত্রিনবাগো।

 

 

দলীয় ১০৯ রানে মুনরো তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন। এর পর ব্যাটিং ধস, ১৯.৫ ওভারে ত্রিনবাগো অলআউট হয় ১৪৭ রানে। মুনরো ২৫ বলে ৫ চার ও ২ ছয়ে করেন ৪১ রান। ড্যারেন ব্রাভো সমান বল খেলে ৩৩ রান করেন। আর কোনও ব্যাটসম্যানের তেমন অবদান নেই। এদিনও ছিলেন না বাংলাদেশের মেহেদী হাসান মিরাজ।

ত্রিনবাগোর ব্যাটিং ধসে সাকিব কিছু করতে পারেননি বল হাতে। আগের দুই ম্যাচে একটি করে উইকেট নিলেও এদিন খালি হাতে শেষ করেন তিনি। বরং ১ ওভারে ১২ রান দেওয়ার পর আর তার হাতে বল দেখা যায়নি। কেসরিক উইলিয়ামস ও ওডিন স্মিথ ৩টি করে উইকেট নেন।

জবাব দিতে নেমে লেন্ডন সিমন্স ও কুমার সাঙ্গাকারার ৬১ রানের জুটিতে জয়ের ভিত তৈরি করে জ্যামাইকা। ৪১ বলে ৭ চারে ইনিংস সেরা ৪৭ রান করেন শ্রীলঙ্কান ব্যাটিং গ্রেট। ১৮ বলে তিন ছয় ও চার চারে সিমন্স করেন ৩৮ রান। চার বল বাকি থাকতে জয় তুলে নেয় জ্যামাইকা। আগের ম্যাচে ৪৪ রানে অপরাজিত সাকিব এ ম্যাচে ব্যাট হাতে সফল ছিলেন না। ২২ বল খেলে ১৬ রান করেন তিনি কোনও বাউন্ডারি ছাড়া।

টানা দ্বিতীয় জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তিন নম্বরে জ্যামাইকা। সমান পয়েন্টে তাদের উপরে ত্রিনবাগো ও সেন্ট কিটস এন্ড নেভিস প্যাট্রিয়টস।



Go Top