রাত ৩:৩১, সোমবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ চট্রগ্রাম

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: ফটিকছড়ি উপজেলার ভূজপুর থানাধীন আমতলী এলাকায় বজ্রপাতে নুর বানু (৪০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নুর বানু ভূজপুর ইউনিয়নের আমতলী কালাঝির বাড়ির বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকালে বৃষ্টির সময় প্রয়োজনীয় কাজে ঘরের সামনের উঠানে যান নুর বানু। এসময় বজ্রপাতে আহত হলে মুমূর্ষু অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ভূজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) আব্দুল হামিদ জানান, নিহত নুর বানুর ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে রয়েছে।

 

 

চট্টগ্রাম ও সিলেটে পাহাড়ি এলাকায় ভূমিধসের আশঙ্কা

স্টাফ রিপোর্টার: অতি ভারী বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের পাহাড়ি এলাকার কোথাও কোথাও ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে।শুক্রবার আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বজ্রঝড় বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে ময়মনসিংহ, সিলেট, ঢাকা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের কোথাও কোথাও ২১-২৪ এপ্রিল সময়ে ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

 অপর এক বিজ্ঞপ্তিতে শুক্রবার রাত ১টা পর্যন্ত সময়ে পাবনা, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ফরিদপুর, ঢাকা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার এবং সিলেট অঞ্চলসমূহের  ওপর দিয়ে পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০-৮০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। সেই সাথে বৃষ্টি ও বজ্রবৃষ্টিসহ বৃষ্টি হতে পারে।

 এসব এলাকার নদী বন্দরসমূহকে দুই নম্বর নৌ-হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া দেশের অন্যত্র একই দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫-৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়োহাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদী বন্দরসমূহকে এক নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

চট্ট গ্রামে ভারি বর্ষণে পানি থৈ থৈ

স্টাফ রিপোর্টার:কালবৈশাখীর সঙ্গে ভারি বর্ষণে তলিয়ে গেছে চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন সড়ক। শুক্রবার সকাল থেকে তুমুল বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাতও চলছে।বৃষ্টিতে নগরীর মুরাদপুর, ষোলশহর, হালিশহর, আগ্রাবাদসহ বিভিন্ন এলাকায় সড়ক ও অলিগলিতে পানি জমে যাওয়ায় নাকাল হতে হচ্ছে নগরবাসীকে।  নিচু এলাকায় বাড়িঘরে পানি ঢোকারও খবর পাওয়া গেছে।

 
মুরাদপুর ও ষোলশহর এলাকার প্রধান সড়কের পাশাপাশি অলিগলিও পানির নিচে তলিয়ে গেছে। “সকালে মুরাদপুরের বাসা থেকে বের হয়েছিলাম আগ্রাবাদে অফিসে যাওয়ার জন্য। মুরাদপুরের প্রধান সড়কে কোমর সমান পানি। আমি ফরেস্ট এলাকা দিয়ে বের হয়ে ষোলশহর পর্যন্ত এসেও কোনোদিকে যেতে পারিনি।


টানা বৃষ্টিতে ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়েও পানি জমে গেছে।ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক জসীম উদ্দিন জানান, তাদের মাঠে প্রায় তিন ফুট পানি জমেছে। গ্যারেজ, ফুয়েল রুম, প্রশাসনিক ভবনেও পানি ঢুকেছে।


মাঠে রাখা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সরঞ্জাম পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ফায়ার সার্ভিসের কার্যক্রমেও জটিলতা সৃষ্টি হবে বলে আশঙ্কা করছেন জসীম।ভোর থেকে ৯টা পর্যন্ত টানা বৃষ্টির পর তোড় কিছুটা কমলেও ১০টার পর আবার বাড়তে শুরু করে।

ঝড়বৃষ্টির মধ্যে নগরীর বিভিন্ন এলাকা সকাল থেকেই বিদ্যুৎহীন। আবহাওয়া অধিদপ্তরের চট্টগ্রাম কার্যালয় জানিয়েছে, সকাল ৬টা থেকে ছয় ঘণ্টায় ৬৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে তারা। আবহাওয়াবিদ শেখ ফরিদ আহমেদ  বলেন, কালবৈশাখীর সঙ্গে ভারি বর্ষণ শনিবার পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। তবে এজন্য কোনো সংকেত দেখাতে বলা হয়নি।

 

কুমিল্লায় আওয়ামী লীগের দুই কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা

কুমিল্লা প্রতিনিধি : কুমিল্লায় সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের অনুসারীদের আধিপত্য বিস্তারসহ বালু ব্যবসা এবং পূর্ব শক্রতার জের ধরে দু’গ্র“পের সংঘর্ষে ফারুক (২৮) ও সাইদুর রহমান (২৬) নামের দুই আওয়ামী লীগ কর্মীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার রাত  সোয়া ১১টার দিকে  জেলার মুরাদনগর উপজেলার রহিমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সংঘর্ষে ইউপি সদস্য আশরাফসহ আহত হয়েছে কমপক্ষে ১৫ জন। নিহতরা হলো মুরাদনগর উপজেলার রহিমপুর গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে ফারুক (২৮) ও একই গ্রামের হানিফ মিয়ার ছেলে সাঈদুল (২৫)। নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।  এ ঘটনায় গতকাল এলাকায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ ঘটনার নেতৃত্বদানকারী আনিসসহ ৬ জনকে  গ্রেফতার এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮ জনসহ ১৪ জনকে আটক করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ  মোতায়েন করা হয়েছে। গতকাল বুধবার দুপুরে ইউপি সদস্য আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে ২৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরোও ২০/২৫ জনসহ প্রায় ৫০ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে।  এলাকা থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আওয়ামী লীগের সমর্থকের নবীপুর পশ্চিম ইউনিয়নের ও রহিমপুর গ্রামের ইউপি সদস্য আলী আশ্রাফ ও একই  গ্রামের কবির, আলাউদ্দিন গ্র“পের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এনিয়ে দু’গ্রুপের মধ্যে বেশ কয়েকবার সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। এরই জের ও উপজেলার নয়াকান্দি গ্রামে গোমতী নদীর পাশে বালু ব্যবসা নিয়ে গত তিন দিন ধরে দু’গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছিল। মঙ্গলবার রাতে আলাউদ্দিন আনিস গ্র“পের  লোকজন বালু ব্যবসার  ড্রেজার কাজে নিয়োজিত  লোকজনকে বাধা দেয়। খবর পেয়ে আলী আশরাফ মেম্বার, ফারুক ও সাইদুলসহ তাদের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছলে আনিস গ্র“পের লোকজন তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আশ্রাফ গ্রুপের আলী আশ্ররাফ নিজেসহ ফারুক, সাঈদুর, রুবেল, আবুবক্করসহ অন্তত ১৫জন আহত হয়। আহতদের স্থানীয়রা মুরাদনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। আহতদের মধ্যে মারাত্মক আহত সাইদুর ও ফারুকে ডাক্তাররা মৃত ঘোষণা করে। ২ জনের মৃত্যুর খবরে এলাকায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। রাতেই বাড়ির ঘর ভাঙচুর, লুটপাট শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে রাত থেকেই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
গতকাল বুধবার মুরাদনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ তানভীর আহমেদ বলেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়েই স্থানীয় স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের অনুসারীদের দুই পক্ষের মধ্যে এ সংঘর্ষে ২ জন নিহত হয়েছে।

এ ঘটনার পর বুধবার সকাল ১০টায় কুমিল্লা উত্তর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন ও মুরাদনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস.এম বদিউজ্জামান মুরাদনগর থানায় সাংবাদিকদের সাথে প্রেস ব্রিফিং করেন। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  আব্দুল মোমেন জানান, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও  ড্রেজার ব্যাবসার জের ধরে রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্য আলী আশ্রাফ ও কবির-আনিস গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এক পর্যায়ে ধারালো অস্ত্রের ফারুক ও সাঈদুল নামে দুই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮জন ও জড়িত থাকার অভিযোগে ৬জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করা হয়েছে।

মুরাদনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম বদিউজ্জামান জানান, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব বিরোধের  জের ধরে রাতে স্থানীয় ইউপি সদস্য আলী আশরাফ ও আলাউদ্দিন আনিস গ্র“পের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। একপর্যায়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আওয়ামী লীগ কর্মী ফারুক ও সাঈদুর মারাত্মক আহত হন। তিনি আরও বলেন-বুধবার দুপুরে ২৯ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরোও ২০/২৫জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে। এ হত্যার বিষয়টি পরিকল্পিতভাবে করা হয়েছে প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে তবে ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এলাকা বর্তমানে শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 

 

সংঘর্ষ: চট্টগ্রামে দুই মামলায় আসামি ছাত্রলীগ সভাপতি, সম্পাদক

চট্টগ্রামে সুইমিং পুল নির্মাণের বিরোধিতা করে প্রকল্প এলাকায় ভাংচুর ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে আসামি করে দুটি মামলা হয়েছে।

সুইমিংপুল প্রকল্প এলাকায় ভাংচুরের ঘটনায় ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম স্বপন ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় এসআই মহিউদ্দিন রতন বাদী হয়ে বুধবার গভীর রাতে কোতোয়ালি থানায় মামলা দুটি দায়ের করেন।

কোতোয়ালি থানার এসআই রোকেয়া পারভীন জানান, দুই মামলায় ৫৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরও সাড়ে ৪০০ থেকে ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মো. আব্দুর রউফ জানান, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনিকে দুই মামলাতেই আসামি করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন আউটার স্টেডিয়ামের ৭০ হাজার ৩৮০ বর্গফুট জায়গায় ১১ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে সুইমিং পুল নির্মাণ করা হচ্ছে চট্টগ্রামে জেলা ক্রীড়া সংস্থার (সিজেএকএস) তত্ত্বাবধানে, যার সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

গত ১০ এপ্রিল লালদীঘি মাঠে এক সমাবেশ থেকে সুইমিং পুল করার উদ্যোগ বন্ধ করতে ১৫ দিন সময় বেঁধে দেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। কিন্তু সপ্তাহখানেক আগে আউটার স্টেডিয়াম টিন দিয়ে ঘিরে প্রকল্পের কাজ শুরু করে সিজেএকএস।

এরপর মহিউদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত ছাত্রলীগ সভাপতি ইমু, সাধারণ সম্পাদক রনি, সহ সভাপতি রুমেল বড়ুয়া রাহুলসহ কয়েকজন গত রোববার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেন। সেখানে সুইমিং পুলের কাজ বন্ধ করে সরঞ্জাম সরিয়ে নিতে ৪৮ ঘণ্টার সময় বেঁধে দেওয়া হয়।

এ নিয়ে উত্তেজনার মধ্যে মঙ্গলবার বিকালে প্রকল্প এলাকায় বিক্ষোভ সমাবেশের পর সেখানে ভাংচুর ও পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়ান ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা।

এ সময় ১৪ জন পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন এবং বেশি কিছু গাড়ি ও দোকান ভাংচুর করা হয়। পরে পুলিশ শটগানের গুলি ও টিয়ার শেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

 

চট্টগ্রামে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে ছাত্রলীগ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের আউটার স্টেডিয়ামে সুইমিং পুল নির্মাণের কাজ বন্ধ করতে ছাত্রলীগের ভাংচুরের পর পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়েছে সরকারসমর্থক এই ছাত্র সংগঠনের কর্মীরা। চট্টগ্রাম নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মোস্তাইন হোসেন জানান, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বন্দরনগরীর কাজীর দেউরি মোড়ের কাছে ছাত্রলীগের  মানববন্ধন ও সমাবেশ কর্মসূচির এক পর্যায়ে এই সংঘর্ষ বাঁধে। প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা ধরে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের মধ্যে চারজন পুলিশ সদস্যসহ বেশ কয়েকজন আহত হন। ভাংচুর করা হয় বেশ কয়েকটি গাড়ি। পরে পুলিশ শটগানের গুলি ছুড়ে ছাত্রলীগকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। ঘটনাস্থল থেকে একজনকে আটক করার কথাও জানান উপ-কমিশনার মোস্তাইন হোসেন।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি বলছেন, সংঘর্ষের সময় ছাত্রলীগের দুই কর্মী গুলিবিদ্ধ এবং আরও অন্তত ছয়জন আহত হয়েছেন। খেলার মাঠ সংরক্ষণের জন্য আমরা আগে থেকেই আন্দোলন করে আসছি। আমাদের আজকের কর্মসূচিও পূর্বঘোষিত। কিন্তু পুলিশ আমাদের ওপর অন্যায়ভাবে হামলা করেছে। ‘দোষী’ পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান রনি। অন্যদিকে উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) মোস্তাইন হোসেন বলেন, তারা কাজীর দেউরি মোড়ে সমাবেশ করতে চাইলে অনুমতি না থাকা সত্ত্বেও তাদের করতে দেওয়া হয়। এক পর্যায়ে তারা পুলিশর ওপর হামলা করে সুইমিং পুল এলাকায় ঢুকে পড়ে। চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামসংলগ্ন ওই মাঠে সুইমিং পুল নির্মাণ করা হচ্ছে চট্টগ্রামে জেলা ক্রীড়া সংস্থার (সিজেএকএস) উদ্যোগে, যার সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

অন্যদিকে এই আউটার স্টেডিয়ামেই প্রতিবছর ডিসেম্বরে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার আয়োজন করা হয়, যার অন্যতম উদ্যোক্তা সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী।
হোল্ডিং ট্যাক্স, মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র স্থানান্তরসহ কয়েকটি বিষয়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মহিউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক নাছিরের বিবাদ গত কিছুদিন ধরেই চট্টগ্রামের রাজনীতিতে উত্তাপ ছড়াচ্ছিল। তার অবসান ঘটিয়ে সোমবার তারা এক মঞ্চে উঠে হাতে হাত রেখে ‘ঐক্যে’র ঘোষণা দিলেও পরদিনই কাজীর দেউরির এ ঘটনা ঘটল।
গত ১০ এপ্রিল লালদীঘি মাঠে এক সমাবেশ থেকে সুইমিং পুল করার উদ্যোগ বন্ধ করতে ১৫ দিন সময় বেঁধে দেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। কিন্তু সপ্তাহখানেক আগে আউটার স্টেডিয়াম টিন দিয়ে ঘিরে প্রকল্পের কাজ শুরু করে সিজেএকএস। এরপর মহিউদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি, সহ সভাপতি রুমেল বড়ুয়া রাহুলসহ কয়েকজন গত রোববার চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেন। সেখানে সুইমিং পুলের কাজ বন্ধ করে সরঞ্জাম সরিয়ে নিতে ৪৮ ঘণ্টার সময় বেঁধে দেওয়া হয়। সেই ঘোষণা অনুযায়ী ছাত্রলীগ কর্মীরা মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে কাজীর দেউরি মোড়ের কাছে জড়ো হন। তার আগে থেকেই বিপুল সংখ্যক পুলিশ ওই এলাকায় অবস্থান নিয়ে ছিলেন। ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা প্রথমে মানববন্ধন ও পরে রাস্তা আটকে সমাবেশ শুরু করলে গুরুত্বপূর্ণ ওই রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

সোয়া ৪টার দিকে মহানগর যুবগলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ সমাবেশে এসে একাত্মতা প্রকাশ করেন। ঘটনাস্থল থেকে আমাদের প্রতিবেদক জানান, বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ছাত্রলীগ কর্মীরা সুইমিং পুল প্রকল্প এলাকায় প্রবেশ করতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। এক পর্যায়ে ছাত্রলীগ কর্মীরা পুলিশের দিকে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে এবং কয়েকশ যুবক ব্যারিকেড ভেঙে নির্মাণ এলাকার টিনের বেড়া ভাংচুর শুরু করে। তাদের সরাতে পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করলে সংঘর্ষ বাঁধে। প্রায় পৌনে এক ঘণ্টা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মধ্যে পুলিশ সদস্যদের শটগান থেকে গুলি ছুড়তে দেখা যায়।
পরে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে এলে বিকাল সোয়া ৫টার দিকে ওই সড়কে আবার যান চলাচল শুরু হয় বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানান।

 

চট্টগ্রামে ব্যবসায়ীর ৫ লাখ টাকা ছিনতাই

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: বন্দর নগরীতে বাস থামিয়ে ব্যবসায়ীর পাঁচ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।  গতকাল সোমবার দুপুর ১টার দিকে নগরীর চান্দগাঁও থানার বাহির সিগনাল এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

ছিনতাইয়ের শিকার ব্যবসায়ী কামাল উদ্দিন  জানান, নগরীর বহদ্দারহাটে ব্যাংক এশিয়া থেকে পাঁচ লাখ টাকা তুলে তিনি কাপ্তাই রাস্তার মাথা যাচ্ছিলেন। সেখানে ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংকে ছোট ভাইয়ের অ্যাকাউন্টে টাকাগুলো জমা দেওয়ার কথা ছিল। কামাল টাকা নিয়ে মেট্রো প্রভাতী বাসে চড়ে যাচ্ছিলেন। বাহির সিগন্যাল এলাকায় বাসটি পৌঁছার পর দুটি মোটরসাইকেলে করে ৬ জন এসে বাসটির গতিরোধ করে। বাস থামিয়ে সেখানে তিনজন উঠে অস্ত্রের মুখে টেনে হিঁচড়ে কামালকে নামিয়ে আনে। এরপর কামালকে মারধর করে টাকার ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়। কামাল তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি চান্দগাঁও থানাকে অবহিত করেন। পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনাস্থলে যাওয়া চান্দগাঁও থানার এস আই আব্দুর রহিম  বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। ছিনতাইয়ের শিকার কামাল জানিয়েছেন, তিনি চট্টগ্রাম উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য।

কক্সবাজারে যুবকের লাশ উদ্ধার

কক্সবাজার প্রতিনিধি: কক্সবাজার সদর উপজেলায় এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে করা হয়েছে; যাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে পুলিশের ধারণা। নিহত মোহাম্মদ ফয়সাল (২৪) ওই উপজেলার পিএমখালী ইউনিয়নের মাছুয়াখালী এলাকার নুরুল আনোয়ারের ছেলে।

কক্সবাজার সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ মাঈনুদ্দিন জানান, কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ছাত্র ফয়সালের লাশ রোববার গভীর রাতে মাছুয়াখালী এলাকার কমিউনিটি ক্লিনিকের সামনে থেকে উদ্ধার করা হয়। স্থানীয়রা ফয়সালের লাশ পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে তা উদ্ধার করে বলে জানান মাঈনুদ্দিন। নিহতের শরীরের আঘাতের কোন চিহ্ন নেই। তবে স্থানীয় মাদক চোরাকারবারিদের তথ্য বিভিন্ন সময় পুলিশকে দেওয়ায় ওই চক্রের সদস্যরা তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিানো হয়েছে।

টেকনাফে ছয় লাখ ইয়াবাসহ আটক ৩

কক্সবাজারের টেকনাফে পৃথক দুটি অভিযান চালিয়ে সাড়ে ছয় লাখ ইয়াবাসহ তিনজনকে আটক করেছে বিজিবি। অভিযানের সময় ইয়াবা পাচারকারীদের সঙ্গে বিজিবির গোলাগুলি হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজিবির টেকনাফ-২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবুজার আল জাহিদ। আটক দুইজনের মধ্যে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে জানালেও তাদের নাম-পরিচয় প্রকাশ করেনি বিজিবি।

বিস্তারিত আসছে

 

মিয়ানমারের সঙ্গে ইয়াবা পাচার বন্ধে আলোচনা চলছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা সত্ত্বেও দেশটি থেকে ইয়াবা পাচার বন্ধে সফলতা নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তারপরও আলোচনা চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। রোববার চট্টগ্রামের সার্কিট হাউসে আইন শৃঙ্খলা কমিটির বিশেষ সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।
ইয়াবাসহ কোনো মদক বাংলাদেশে তৈরি হয় না দাবি করে মন্ত্রী বলেন, ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে ফেন্সিডিল আসে। সেটা অনেক কমে গিয়েছে। ভারত সরকার আমাদের সহযোগিতা করেছে। মিয়ানমার সরকারের সাথে কথা বলার পরও ইয়াবা বন্ধে সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। তারপরও কথা বলে যাচ্ছি। সভায় মাদক ছাড়াও সাম্প্রতিক সময়ের জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি, যানজটসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন জনপ্রতিনিধি ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। রোববার ভোরে বঙ্গোপসাগরে একটি মাছ ধরার ট্রলার থেকে ২০ ইয়াবাসহ নয়জনকে আটক করেছে র‌্যাব। এর আগে গত বছরের ১৭ জানুয়ারি একটি মাছ ধরার ট্রলার থেকে ২৭ লাখ ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করেছিল র‌্যাব।

র‌্যাবের দাবি, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের একটি সংঘবদ্ধ চক্র মাছের ব্যবসার আড়ালে ট্রলারে করে ইয়াবা নিয়ে চট্টগ্রামের উপকূলে আসে। এর আগে ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে একটি ট্রলার থেকে ১৫ লাখ ইয়াবা  উদ্ধার করে নৌবাহিনী। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রাম হয়ে ঢাকার পথে বিভিন্ন স্থানে ধরা পড়েছে ইয়াবার বেশ কয়েকটি বড় চালান। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ও দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী ইয়াবা পাচার রোধে যোগাযোগ করে যাচ্ছে বলে জানান অঅসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। তিনি বলেন, আমাদের কাছে তথ্য আসে সীমান্ত পার হয়ে টেকনাফে প্রতিটি ইয়াবা বিক্রি হয় ৫০-৬০ টাকায়। কক্সবাজার আসলে তা দেড়শ টাকা হয়ে যায়। চট্টগ্রাম আসলে ২৫০ টাকা এবং ঢাকায় গেলে ৫০০-৬০০ টাকা হয়ে যায়। সাপ্লাই ও ডিমান্ডের ওপর ভিত্তি করে আবার দামও বেড়ে যায়। জঙ্গিবাদকে বৈশ্বিক সমস্যা মন্তব্য করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইসলাম ধর্মকে জঙ্গি ধর্ম করার জন্য চক্রান্ত চলছে। আজকে বিশ্বে কথা হচ্ছে ‘অল হিউম্যান আর নট টেরোরিস্ট, বাট অল টেরোরিস্ট আর মুসলিম। সে জায়গাটিতে নেওয়ার জন্য এ ঘটনাগুলো ঘটছে।

বাংলাদেশে যারা জঙ্গি তৎপরাতা চালাচ্ছে তাদের সঙ্গে আন্তর্জাতিক জঙ্গিবাদের সম্পৃক্ততা নেই দাবি করে তিনি বলেন, তারা সবাই দেশিয় জঙ্গি। যেগুলো সবসময় ঘাপটি মেরে থাকে। সুযোগ পেলেই উপরে উঠে। এরা বাইরে থেকে আসে না, বাইরে থেকে এসে এখানে কাজ করে না। পুলিশের সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য জনপ্রতিনিধিদের উদ্যোগ গ্রহণের প্রস্তাব প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী কাজ করছে বলে আইনশৃঙ্খলা ‘যথেষ্ট পরিমাণ’ ভালো। পুলিশ এখন আগের চেয়ে অনেক দক্ষ। সভায় উপস্থিত র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন বিভিন্ন জঙ্গিবিরোধী অভিযানের কথা উল্লেখ করে বলেন, কোনোজঙ্গি আস্তানায় অভিযানে গেলে ঢাকা থেকে টিম আসতে আসতে তারা মোবাইল, ল্যাপটপসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ জিনিস পুড়িয়ে ফেলে। দ্রুত সময়ে জঙ্গি আস্তানায় প্রবেশের জন্য সোয়াটের মতো র‌্যাব-পুলিশকেও ‘বুলেটপ্রুফ সিল’ দেওয়ার কথা বলেন তিনি। সভায় বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম ১৪ আসনের (চন্দনাইশ উপজেলা) সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম, বিভিন্ন উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা, নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসেন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহাবউদ্দিন, মহানগর কমান্ডার মোজাফ্ফর আহমেদ, চট্টগ্রাম জেলা পিপি সিরাজুল ইসলাম।

চট্টগ্রামে পুলিশ কর্মকর্তার মাথা ফাটাল ছাত্র-যুবলীগ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামে নিরাপত্তা বেষ্টনী এড়িয়ে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে ঢুকতে বাধা পেয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়ে এক কর্মকর্তার মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে সরকার সমর্থক ছাত্র ও যুবলীগের কর্মীরা। আহত পরিদর্শক কীরণ বড়ুয়াকে নগরীর দামপাড়া পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি চট্টগ্রাম আদালত পুলিশের পরিদর্শক হিসেবে কর্মরত।শুক্রবার দুপুরে নগরীর বৌদ্ধ মন্দির মোড়ে এ ঘটনায় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের চার কর্মীকে আট করা হয়েছে বলে কোতোয়ালি থানার ওসি জসিম উদ্দিন জানিয়েছেন। তিনি বলেন, দুপুর আড়াইটার দিকে নগরীর ডিসি হিলে পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে পুলিশের নিরাপত্তা বেষ্টনী এড়ানোর চেষ্টা করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীদের ২৫ থেকে ৩০ জনের একটি দল। সকাল থেকে সবাই নিয়ম মেনে ডিসি হিলের মুক্তমঞ্চের অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করছিল। কিন্তু ছাত্রলীগ-যুবলীগ কর্মীরা নিরাপত্তা দরজা এড়িয়ে প্রবেশের চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। বাধা পেয়ে তারা পুলিশের উপর হামলা করলে পরিদর্শক কিরণের মাথা ফেটে যায়। পরে পুলিশ ধাওয়া দিয়ে চার কর্মীকে আটক করে। আটক চারজন যুবলীগ নেতা হেলাল আকবর চৌধুরী বাবরের অনুসারী বলে কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন। ২০১৩ সালে রেলের ৪৮ লাখ টাকার একটি কাজের দরপত্র জমা দেওয়া নিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থকদের দুই পক্ষের সংঘর্ষের মধ্যে গুলিতে দুজন নিহতের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আসামি ছিলেন বাবর। সংঘর্ষকারীদের একপক্ষে ছিলেন তার অনুসারীরা।

চট্টগ্রামে বাস-টেম্পো সংঘর্ষে নিহত ২

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম নগরীর বাকলিয়া এলাকায় বাস ও টেম্পোর সংঘর্ষে দুইজন নিহত এবং আরও সাতজন আহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বাকলিয়া থানাধীন রাজাখালী এলাকায় এ দুঘর্টনা ঘটে বলে ওই থানার এসআই মোহাম্মদ শাহীন জানান। নিহতরা হলেন- বাকলিয়া থানার জাকের কলোনি এলাকার জামাল আহমেদের ছেলে এয়াকুব আলী (৪৫) এবং বিসমিল্লাহ কলোনির রাজা মিয়ার ছেলে মো. মমতাজ (৪৪)। দুর্ঘটনায় আহত আনোয়ার হোসেন (৩০), শাহীন (২৮), কালু আহমেদ (৪০), আজিজুল হক (২২), খোরশেদ মাঝি (৫৫), আবদুল আজিজ (৩০) ও অজ্ঞাতনামা এক তরুণকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসআই শাহীন জানান, শহরমুখী বাসটির সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা টেম্পোর সংঘর্ষ হলে ঘটনাস্থলেই টেম্পোর দুই যাত্রীর মৃত্যু হয়। পরে স্থানীয়রা সাতজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায় এবং পুলিশ বাস ও টেম্পো আটক করে। চট্টগ্রাম মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক জহিরুল ইসলাম জানান, আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর।

টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে গোলাগুলি, নারী নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির সঙ্গে সন্দেহভাজন ইয়াবা বিক্রেতাদের গোলাগুলির ঘটনায় মিয়ানমারের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে; গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আরও চারজন। বিজিবির কক্সবাজার সেক্টর কমান্ডার কর্নেল মো. রকিবুল হক জানান, বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে শাহ পরীর দ্বীপে নাফ নদীরর মোহনায় গোলাগুলির এ ঘটনা ঘটে। নিহত জাহেদা খাতুন (৫০) মিয়ানমারের মংডু শহরের কালু মিয়ার স্ত্রী। গুলিবিদ্ধরা হলেন – ওই শহরের মোহাম্মদ তৈয়ুবের স্ত্রী রশিদা খাতুন (২৫), আবু জাহেরের স্ত্রী মজুমা খাতুন (৪৯), মকবুল আহমদের ছেলে মোহাম্মদ কাসেম (৭০) ও টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের আবদুল গফফারের ছেলে মোহাম্মদ শফিক (২০)।

বিজিবি কর্মকর্তা রফিকুল  বলেন, হতাহতরা একটি ট্রলারে করে ইয়াবা  বহন করছিলেন। তারা বাংলাদেশে প্রবেশের সময় বিজিবির দিকে গুলি ছোড়ে। বিজিবি সদস্যরা পাল্টা গুলি ছুড়লে তারা পাঁচজন আহত হয়।

“তাদের টেকনাফ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক জাহেদাকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্য আহতদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।” বিজিবি ‘বিপুলসংখ্যক’ ইয়াবাসহ ট্রলারটি জব্দ করেছে বলে তিনি জানান।

ইয়াবার সংখ্যাসহ বিস্তারিত ঘটনা পরে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে বলেও তিনি জানান।

 

রাতের অন্ধকারে পোড়া মবিল ছিটিয়ে চট্টগ্রামে বৈশাখী দেয়ালচিত্র নষ্ট

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: বর্ষবরণের প্রস্তুতির মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের আঁকা দেয়ালচিত্র নষ্ট করা হয়েছে ‘পোড়া মবিল’ ছিটিয়ে।
মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত চট্টেশ্বরী রোডে চারুকলা ইনস্টিটিউটের মূল গেইটের বিপরীত পাশের দেয়ালে আঁকার কাজ করেছিলেন শিক্ষার্থীরা। এরপর আধা ঘণ্টা পর দুটি মোটর সাইকেলে চার যুবক এসে দেয়ালচিত্রটি নষ্ট করে দিয়ে যায় বলে প্রত্যক্ষদর্শীকে উদ্ধৃত করে চকবাজার থানার ওসি নুরুল হুদা জানিয়েছেন। বৈশাখের অনুষ্ঠান ‘অনৈসলামিক’ দাবি করে ইসলামী বিভিন্ন সংগঠন তা বন্ধের দাবি জানিয়ে আসছে। কিন্তু চট্টগ্রামের এই দেয়ালচিত্র কারা নষ্ট করেছে, তা জানা যায়নি।

ওসি নুরুল হুদা বলেন, রাত ১টার পর দুটি মোটর সাইকেলে করে চারজন যুবক এসে দেয়ালে কিছু লাগিয়ে দিয়ে চলে যায়। দেখে মনে হচ্ছে, পোড়া মোবিল লেপ্টে দিয়ে দেয়ালচিত্র নষ্ট করতে চেয়েছে তারা। চারুকলা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক জিহান করিম বলেন, প্রতিবছরের মতো এবছরও ইনস্টিটিউটের মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের তত্ত্বাবধানে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা দেয়ালচিত্র অঙ্কনসহ শোভাযাত্রার বিভিন্ন কাজ করছেন। গত রাতে প্রায় রাত ১২টা পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা দেয়াল চিত্র অঙ্কন করেছিল। তারা কাজ শেষ করে ইনস্টিটিউটে প্রবেশ করার পর এ ঘটনা ঘটেছে। রাতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্য মো. তফছির জানান, কাজ শেষ করে শিক্ষার্থীরা ক্যম্পাসে ঢোকার পর কয়েকটি মোটর সাইকেলের শব্দ শোনা যায়। তারা ইনস্টিটিউট গেইটে থেমে চিৎকার ও গালিগালাজ করে কালো তরল জাতীয় কিছু একটা লেপ্টে দেয়। এসময় ক্যাম্পাসের ভেতরে কয়েকজন শিক্ষার্থী ছিলেন।

তারা জানান, গোলপাহাড়ের দিক থেকে আসা মোটর সাইকেলগুলো চট্টেশ্বরী সড়কের দিকে চলে যায়।কয়েক বছর আগে নগরীর ডিসি হিলে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের মুরালের মুখে কালো রঙ লেপ্টে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছিল। ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক জাহেদ আলী চৌধুরী যুবরাজ বলেন, যারা বাঙালি সংস্কৃতিকে প্রতিপক্ষ মনে করেন, তারাই এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসাইন বলেন, স্থানীয় কোন্দল বা এধরনের কাজকে পছন্দ করে না, এমন কেউ এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে কি না, তা তদন্ত করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলের আশেপাশের বিভিন্ন সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, যেহেতু নববর্ষের আগে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে তাই বিষয়টি আমরা বিশেষভাবে নজর দিচ্ছি।

ফেনীতে সন্ত্রাসী হামলায় একজন গুলিবিদ্ধ তিন ভাই আহত

ফেনী প্রতিনিধি: ফেনী সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নে সম্পত্তি বিরোধের জের ধরে সন্ত্রাসী হামলায় একজন গুলিবিদ্ধসহ ৩ ভাই গুরুতর আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে ইউনিয়নের আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, সম্পত্তি নিয়ে বিরোধের জের এ হামলার ঘটনা ঘটে। এসময় এক ভাই গুলিবিদ্ধ ও দুই ভাইকে কুপিয়ে আহত করে প্রতিপরে লোকজন।

আহতরা হলেন- আবুল হোসেন, আবু নওশাদ, আবু তাহের। এদের মধ্যে আবু তাহেরের অবস্থা আশংকাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ঢাকায় নেয়া হয়েছে। আবুল  হোসেন ও আবু নওশাদকে ফেনী সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।ফেনী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) উক্য সিং ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় দুই জনকে আটক করা হয়েছে।

 

নোয়াখালীর সেপটিক ট্যাংকে ২ শিশুর লাশ

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় সেপটিক ট্যাংক থেকে দুই শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। অর্জুনতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহজাহান ভূঁইয়া জানান, রোববার সন্ধ্যায় মানিকপুর গ্রামের মোস্তফা ড্রাইভারের বাড়ির সেপটিক ট্যাংকে তাদের লাশ পাওয়া যায়।

নিহতরা হলো – ওই গ্রামের বেলাল হোসেনের মেয়ে ফারিয়া আক্তার (২) ও কুয়েত প্রবাসী ইয়াসিন নাসিরের ছেলে আবদুর রহমান (২)। নিহতদের পরিবারের বরাতে চেয়ারম্যান বলেন, মোস্তফার বাড়িতে পাশের বাড়ির ফারিয়া ও রহমান একসাথে খেলাধুলা করছিল। পরে ওই বাড়ির সেফটিক ট্যাংক থেকে দুই শিশুর লাশ উদ্ধার করে স্থানীয়রা।

“ঢাকনা খোলা থাকায় তারা ট্যাংকে পড়ে মারা যায় বলে স্থানীয়রা ধারণা করছে। সেনবাগ থানার ওসি হারুন অর রশিদ জানান, নিহতদের পরিবার পুলিশকে ঘটনা জানায়নি। পুলিশ সোমবার সকালে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনের গেছে।

 

বান্দরবানের পুলিশ কনস্টেবলের আত্মহত্যা

বান্দরবান প্রতিনিধি: বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ঘুমধুম তদন্তকেন্দ্রে পুলিশ কনস্টেবল তুষার কান্তি দে নিজের রাইফেলের গুলিতে ‘আত্মহত্যা’ করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার সকাল সোয়া ১১টার দিকে তদন্তকেন্দ্রের ভেতরেই ২৬ বছর বয়সী এই পুলিশ সদস্য নিজের মাথায় রাইফেল ঠেকিয়ে গুলি করেন বলে জানান বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ওসি তৌহিদুল কবির। নিহত তুষার চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড উপজেলার রহমতনগর এলাকার মৃণাল কান্তি দে’র ছেলে।
ওসি কবির বলেন, তুষার কিছুদিন আগে ঘুমধুম তদন্তকেন্দ্রে যোগ দেন। সেখানে যাওয়ার সময় থেকে তাকে বেশ বিষন্ন দেখাচ্ছিল। প্রত্যক্ষদর্শী সহকর্মীদের বরাতে ওসি কবির বলেন, তুষার পারিবারিক কোনো ঘটনায় হতাশায় ভুগছিলেন।

শুক্রবার সকালে আকস্মিকভাবে নিজের সার্ভিসের রাইফেল মাথায় ঠেকিয়ে ট্রিগার টিপে দেন। গুরুতর আহত তুষারকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। বান্দরবানের লামা সার্কেলের এএসপি ভূঁইয়া মাহবুব হাসানও একই কথা বলেন।

আমি শুনেছি তিনি হতাশায় ভুগছিলেন। আজ আকস্মিকভাবে নিজের সার্ভিসের রাইফেল মাথায় ঠেকিয়ে ট্রিগার টিপে দেন। তুষারকে হাসপাতালে আনার আগেই মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ওয়াহিদুজ্জামান মুরাদ। তিনি বলেন, তার মাথায় গুলির আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তসহ আইনি প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

 

নোয়াখালীতে জমির বিরোধে গৃহবধূ খুন

নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালীতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে নারীকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যারে অভিযোগ উঠেছে ছেলের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।এ ঘটনায় আহত হয়েছেন চারজন। সুধারাম মডেল থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, সদর উপজেলায় আন্ডারচর ইউনিয়নের চর কাউনিয়া গ্রামে শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মনিজা খাতুন (৬০) ওই এলাকার আবদুল খালেকের স্ত্রী। আহত মজিনার ছোট ছেলে আবুল কালাম, বড় ছেলে মোকলেস, মেয়ে নূরজাহান ও ছেলের বৌ সেফালিকে নোয়াখালী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের আবুল কালামের স্ত্রী নূরনাহার বেগম ও মনিজাকে বেগম নামে এক নারীকে আটক করা হয়েছে বলে ওসি আনোয়ার জানান। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, গ্রামের এক খন্ড জমি নিয়ে আবুল কালামের শ্বশুর আবদুর রবের সঙ্গে মনিজার বিরোধ চলছিল।

এর জেরে সকালে আবদুর রবের নেতৃত্বে স্থানীয় আলম মাঝি, শাহজাহান, আনিছ, হারুন ও বাবুলসহ একদল লোক দেশীয় অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে মনিজার বাড়িতে ঢুকে সবাইক পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মনিজাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান ওসি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্যে হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

 

কুসিক নির্বাচনের মাধ্যমে আস্থা অর্জনে শতভাগ সফল: সিইসি

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মাধ্যমে জনআস্থা অর্জনে শতভাগ সফল হয়েছেন বলে দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। তিনি বলেছেন, সুষ্ঠু ভোটের মাধ্যমে সবার আস্থা অর্জনে শতভাগ সফল হয়েছি। আমরা দাবি করি, এ নির্বাচনে আমরা সফল ও সার্থক হয়েছি।

বৃহস্পতিবার ভোট শেষে বিকালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে সাংবাদিকদের সামনে এসব কথা বলেন সিইসি। গতকাল সুনামগঞ্জ-২ আসনের উপ-নির্বাচন কুমিল্লা সিটি করপোরেশন অনুষ্ঠিত হয়। সিইসি বলেন, রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হওয়ায় কুমিল্লার ভোটে ছিল সবার নজর। আমরাও শান্তিপূর্ণ, সবার কাছে গ্রহণযোগ্য করতে পদক্ষেপ নিয়েছি এবং সফলভাবে এ ভোট করতে পেরেছি। এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আর পরীক্ষা দিতে চাই না। ছোটবেলা থেকে অনেক পরীক্ষা দিয়েছি- এখন পরীক্ষার বিষয় নয়, কাজ করার সময়। আমরা নিষ্ঠা, সততার সঙ্গে কাজ করতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। নূরুল হুদা জানান, সুনামগঞ্জে পুরোপুরি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলেও কুমিল্লায় দু-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটেছে। এ জন্যে দুটি কেন্দ্রে ভোট বন্ধ করা হয়েছে।

বিএনপির পক্ষ থেকে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তা মাঠ পর্যায়ে তদন্ত করে দেখা হয়েছে বলে জানান সিইসি। তিনি বলেন, ভোটে কারা প্রভাব খাটিয়েছে তার সুনির্দিষ্ট তথ্য আমাদের কাছে নেই। তবে যে দু’টি কেন্দ্রে অনিয়মের অপচেষ্টা চলেছে তা বন্ধ করে দিয়েছি। এছাড়া যেসব জায়গায় গোলযোগের চেষ্টা করেছে তা কয়েক মিনিটের মোকাবেলা করে তাদের ব্যর্থ করে দিয়েছি। বিএনপির পক্ষ থেকে ফ্যাক্স যোগে ভোটের দিনও সুনির্দিষ্ট কিছু অভিযোগ পাঠানো হয়েছে কমিশনে। সিইসি বলেন, অভিযোগগুলো পেয়ে সচিবের মাধ্যমে তা মনিটরিং করা হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে খবর নেওয়া হয়েছে। অধিকাংশ অভিযোগ সঠিক নয়; কিছু বিষয়ে খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিয়ছি। সেখানে ব্যাপক কিছু হয়নি। তিনি জানান, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ভোটারদের অসহযোগিতা করেছে, ভোটদানে ক্ষমতাসীনদের সহযোগিতা করেছে-এমন অভিযোগ তদন্ত করে তার সত্যতা পাওয়া যায়নি। এক প্রশ্নের জবাবে কে এম নূরুল হুদা বলেন, আস্থা অর্জনে শতভাগ সফল হয়েছি। আমরা দাবি করি, নির্বাচনে আমরা সফল ও সার্থক হয়েছি। আমরা বলব- আমাদের সময়ে যে কয়টি নির্বাচন হয়েছে সবগুলো সফলভাবে করতে পেরেছি। তিনি জানান, যারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করেছে তাদের কঠোরভাবে দমন করা হয়েছে। আগামীতেও এমন সুষ্ঠু নির্বাচন অব্যাহত থাকবে।

শান্তিপূর্ণ ভোট শেষে গণনা শুরু কুমিল্লায়

জঙ্গি অভিযানের আতঙ্ক ছাপিয়ে ভোটারদের বিপুল অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। দুই লাখের বেশি ভোটারের এ নগরে ১০৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ১০১টিতে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোট চলার পর শুরু হয়েছে গণনা।

কেন্দ্র থেকে পাঠানো ফলাফল কুমিল্লা টাউন হলে রিটার্নিং কর্মকর্তার নিয়ন্ত্রণ কক্ষে পৌঁছালে সেখান থেকে তা একীভূত আকারে ঘোষণা করা হবে। তাতে বিএনপির মনিরুল হক সাক্কুই মেয়রের চেয়ারে থাকবেন; নাকি আওয়ামী লীগের আঞ্জুম সুলতানা সীমা নগর ভবনে যাবেন – তা দেখার অপেক্ষায় আছে পুরো দেশ।

এ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল ভোট শেষে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, “দুটি কেন্দ্র গোলাযোগের কারণে স্থগিত করা হয়েছে। আর সব জায়গায় শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে।”

এবার ভোটের হার ৭৫ থেকে ৮০ শতাংশে হতে পারে বলে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা আশা করছেন। সাবেক সচিব কেএম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর এটাই বড় পরিসরে প্রথম প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ভোট, যেখানে আস্থার প্রতিফলন দেখার প্রত্যাশার কথা বলে আসছিল বিগত কমিশনের সমালোচনামুখর বিএনপি।

এ কারণে কুমিল্লার নির্বাচনকে কেএম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের আস্থা তৈরির পরীক্ষা হিসেবে দেখা হাচ্ছিল। কিন্তু কুমিল্লা সদর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাক্কু ভোট শুরুর এক ঘণ্টার মাথায় কয়েকটি কেন্দ্রে অনিয়মের অভিযোগ করেন।

আর ঢাকায় তার দলের পক্ষ থেকে এক সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ক্ষমতাসীনরা ‘প্রশাসনকে ব্যবহার ও ভোটারদের সন্ত্রস্ত করাসহ নানাভাবে’ কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ‘প্রভাবিত করেছে’।

অন্যদিকে কুমিল্লার প্রভাবশালী আফজাল পরিবারের মেয়ে আঞ্জুম সুলতানা সীমা ভোটের পরিস্থিতি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেছেন, ফলাফল যাই হোক, তিনি মেনে নেবেন।

সাক্কু ও সীমা ছাড়াও জাতীয় সমাজতান্তিক দল-জেএসডির শিরিন আক্তার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মামুনুর রশীদ মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

এছাড়া সিটি করপোরেশনের ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ১১৪ জন এবং নয়টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৪০ জন প্রার্থী ছিলেন এবার।

নির্বাচন কমিশন সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, “সার্বিকভাবে এ নির্বাচন ভালো হয়েছে। যেখানেই অনিয়ম পেয়েছে সেখানে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে কেন্দ্র। এ নির্বাচন সবার প্রত্যাশা পূরণ করবে।”

আগের নির্বাচনের রেকর্ড ছাড়িয়ে এবার ভোট পড়ার হার ৭৫ থেকে ৮০ শতাংশে থাকবে বলেও মনে করছেন তিনি।

 

কুমিল্লা ভোট: সীমার সন্তোষ, সাক্কুর অভিযোগ

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা নিজের ভোট দিয়ে সার্বিক পরিস্থিতিতে সন্তোষ প্রকাশ করলেও কয়েকটি কেন্দ্রে অনিয়মের অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী গত মেয়াদের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু।

বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে এ নির্বাচনী এলাকার ১০৩টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণভাবেই ভোটগ্রহণ চলছে। ভোটকেন্দ্রগুলোতে দেখা যাচ্ছে ভোটারদের দীর্ঘ সারি।

সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে কুমিল্লা মর্ডান স্কুলে ভোট দিতে আসেন আওয়ামী লীগের মেয়র পার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা। ভোট দেওয়া শেষে সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

“আমি সকালে বেরিয়েছিলাম, বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখলাম- সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করেছে। আশা করি দিনের বাকি অংশেও এ পরিবেশ থাকবে।”

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে নৌকার প্রার্থী বলেন, “কর্মীদের উদ্দেশে আমি বলব, জয় পরাজয় থাকবেই, জনগণ যে রায় দেবে আমি তা মেনে নেব, এবং তারাও মেনে নেবেন।”

নারী ভোটারদের সংখ্যা বেশি থাকায় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে সবাইকে কেন্দ্রে এসে নির্ভয়ে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান কুমিল্লার প্রভাবশালী আফজাল পরিবারের মেয়ে সীমা।

তার বাবা আফজল খান ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারি কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে মনিরুল হক সাক্কুর কাছে পরাজিত হন।

গত পাঁচ বছর মেয়রের দায়িত্ব পালন করা সাক্কু এবারও বিএনপির প্রার্থী। সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে হোচ্ছা মিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে নিজের ভোট দেন তিনি।

ভোট দেওয়ার পর তিনি সাংবাদিকদের সাক্কু বলেন, “একটি কেন্দ্রে আগে থেকেই সব ব্যালটে সিল দিয়ে রাখা হয়েছে, দুইটি কেন্দ্রে আমার কর্মী ও পোলিং এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হয়নি। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ দিয়েছি।”

প্রথম ঘণ্টায় ভোট ‘সুষ্ঠু হয়নি’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, “আমি সকাল থেকে বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখেছি। নির্বাচন এখন পর্যন্ত সুষ্ঠু নয়।”

এই অবস্থায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন কি না- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সদর দক্ষিণ বিএনপির এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, “সরে যাব কেন, রেজাল্ট দেখি।”

এই সিটি করপোরেশনে নতুন জনপ্রতিনিধি বেছে নিতে ভোট দিচ্ছেন ২ লাখের বেশি ভোটার; একে সাবেক সচিব কেএম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের আস্থা তৈরির পরীক্ষা হিসেবেও দেখা হচ্ছে।

 

ভোট দিচ্ছে কুমিল্লা

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের নতুন জনপ্রতিনিধি বেছে নিতে ভোট দিচ্ছেন ২ লাখের বেশি ভোটার; এ নির্বাচনকে দেখা হচ্ছে কেএম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশনের আস্থা তৈরির পরীক্ষা হিসেবে।
নির্বাচনী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় নির্ধারিত সূচি অনুযায়ীই ১০৩টি ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে, চলবে একটানা বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

সকাল থেকেই বিভিন্ন কেন্দ্রে দেখা গেছে ভোটারদের দীর্ঘ লাইন। ভোটের শুরুতে কোথাও কোনো গোলযোগের খবর পাওয়া যায়নি।

সাবেক সচিব কেএম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর এটাই বড় পরিসরে প্রথম প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ভোট, যেখানে আস্থার প্রতিফলনের প্রত্যাশা করছে বিগত কমিশনের সমালোচনামুখর বিএনপি।

নির্বাচনকে কেন্দ্রে করে পুরো নির্বাচনী এলাকা নিরাপত্তার চাদরে ঘিরে ফেলার কথা বলেছেন নির্বাচন কর্মকর্তা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা।

নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে প্রয়োজনে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল।

এক নজরে ভোট তথ্য

>> দুটি পৌরসভা নিয়ে ২০১১ সালের জুলাই মাসে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন গঠিত হওয়ার পর দ্বিতীয় ভোট হচ্ছে এবার। ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারি প্রথম নির্বাচন নির্দলীয়ভাবে হলেও এবার মেয়র পদে ভোট হচ্ছে দলীয় প্রতীকে।

>> গত এক মেয়াদে কুমিল্লা সিটির মেয়রের দায়িত্ব পালন করে আসা মনিরুল হক সাক্কু এবারও মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী। আর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবার আঞ্জুম সুলতানা সীমা, যার বাবা আফজল খান গতবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন।

এছাড়া জাতীয় সমাজতান্তিক দল-জেএসডির শিরিন আক্তার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মামুনুর রশীদও কুমিল্লার মেয়র হওয়ার লড়াইয়ে আছেন।

>> এই সিটি করপোরেশনের ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ১১৪ জন এবং নয়টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৪০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

>> কুমিল্লা সিটিতে মোট ভোটার ২ লাখ ৭ হাজার ৫৬৬ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ২ হাজার ৪৪৭ জন এবং নারী ১ লাখ ৫ হাজার ১১৯ জন। ১০৩টি ভোটকেন্দ্রের ৬২৮টি ভোটকক্ষে এবার ভোট চলছে।

যা বললেন প্রধান দুই প্রার্থী

মেয়র পদে চারজন প্রার্থী থাকলেও স্বাভাবিকভাবেই দুই বড় দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই প্রার্থী রয়েছেন আলোচনার কেন্দ্রে।

কুমিল্লার প্রভাবশালী আফজাল পরিবারের মেয়ে আঞ্জুম সুলতানা সীমা কুমিল্লা মডার্ন স্কুলের শিক্ষক। এর আগে বিলুপ্ত কুমিল্লা পৌরসভায় তিনি ভারপ্রাপ্ত মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘদিন।

সকালে নিজের কর্মস্থল কুমিল্লা মডার্ন স্কুল কেন্দ্রে ভোট দেওয়ার পর নৌকার প্রার্থী সীমা বলেন, “আমি সকালে বেরিয়েছিলাম, সবগুলো কেন্দ্র ঘুড়ে দেখলাম, সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশ বিরাজ করেছে, আশা করি দিনে বাকি অংশেও এ পরিবেশ থাকবে।”

জনগণ যে রায় দেবে, তা মেনে নেবেন জানিয়ে কর্মীদেরও তা মেনে নেওয়ার আহ্বান জানান সীমা।

অন্যদিকে গত মেয়াদের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু সকালে বজ্রপুরের হোচ্ছামিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দিয়ে বেরিয়ে তিনটি কেন্দ্রে নিয়ে অভিযোগের কথা বলেন।

এর মধ্যে দুটি কেন্দ্রে থেকে ধানের শীষের এজেন্টদের ‘বের করে দেওয়া হয়েছে’ এবং একটিতে আগেই সিল মেরে ব্যালট বাক্স ভরা হয়েছে অভিযোগ সাক্কুর।

এই অবস্থায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন কি না- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে সদর দক্ষিণ বিএনপির এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, “সরে যাব কেন, রেজাল্ট দেখি।”

বাকি দিন সুষ্ঠু ভোট হলে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী বলে জানান ধানের শীষের এই প্রার্থী।

বিপুল উৎসাহ

ফরিদা বিদ্যায়তনের একটি কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মোহাম্মদ জামসেদ-উর- আলম জানান, তার কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১ হাজার ৯২১ জন। দিনের শুরুতে উপস্থিতি বেশ ‘ভালো’।

তিনি বলেন, “সব কিছু সুন্দর ভাবে শুরু হয়েছে, কেন্দ্রের পরিবেশও বেশ ভালো। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী যতজন রয়েছে তারা কাজ করলে সেটা আমার কাছে পর্যাপ্ত বলে মনে হচ্ছে।”

এই কেন্দ্রে ভোট দিতে আসা পূবালী ব্যাংকের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুবুল আলম বলেন, “ভোট ভাল হচ্ছে। শুরুতেই দিয়ে দিলাম, যাতে পরে ‘গ্যাদারিংয়ে’ পড়তে না হয়।

ভোট যেভাবে সুষ্ঠুভাবে শুরু হয়েছে সেভাবে চলবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে ভোটের আগের দিন শহরের কোটবাড়ী এলাকায় একটি ‘জঙ্গি আস্তানা’র সন্ধান মেলায় কিছুটা উত্তাপ ছড়িয়েছে কুমিল্লাবাসীর মধ্যে।

বুধবার ভোটের শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতির মধ্যে সিটি কর্পোরেশনের এলাকার এক প্রান্তে ওই বাড়ি ঘেরাও করে পুলিশ। এ ঘটনা জনমনে কিছুটা আতঙ্ক তৈরি করলেও নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল বলছেন, এতে ভোটগ্রহণে কোনো প্রভাব পড়বে না।

“এটা কেন্দ্র থেকে অনেক দূরে। এটাতে ভোটগ্রহণ অ্যাফেক্টেড হবে না।”

জঙ্গি আস্তানা ঘিরে পুলিশের অবস্থানে উদ্বিগ্ন না হতে ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা।

ওই জিঙ্গি আস্তানার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ফরিদা বিদ্যায়তনের একটি কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মোহাম্মদ জামসেদ-উর- আলম বলেন, “এ বিষয়ে চিন্তা করার সময় সুযোগ আমার নেই।”

 

‘চবি ছাত্র আলাউদ্দিন খুনে সাবেক প্রেমিকা ও তার স্বামী’

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী মো. আলাউদ্দিন সাবেক প্রেমিকা ও তার স্বামীর পরিকল্পনায় খুন হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশের। আলাউদ্দিন হত্যার দায়ে গ্রেপ্তার চারজনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে খুনের কারণ ‘উদ্ঘাটিত হয়েছে’ বলে বায়েজিদ বোস্তামী থানার ওসি মো. মহসিন জানিয়েছেন।

গত ২২ মার্চ রাতে বায়েজিদ বোস্তামী থানার পশ্চিম শহীদ নগর এলাকার ওমান প্রবাসী আবু সৈয়দের চার তলা ভবনের তৃতীয় তলার একটি বাসা থেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় বাংলা বিভাগ মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্র মো. আলাউদ্দিনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। প্রথমে অজ্ঞাত যুবক হিসেবে আলাউদ্দিনের লাশ উদ্ধার করা হলেও পরদিন মর্গে স্বজনরা তার লাশ শনাক্ত করে। ঘটনার এক সপ্তাহের মাথায় মঙ্গলবার মো. ইকবাল হোসেন (২৭), তার স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার রুম্পা (২১), মো. তৈয়ব ও মো. হেলাল নামে চারজনকে গ্রেপ্তারের কথা জানায় পুলিশ। গ্রেপ্তার রুম্পাকে নিহত আলাউদ্দিনের ‘সাবেক প্রেমিকা’ উল্লেখ করে ওসি বলেন, “বারবার ‘শারীরিক সম্পর্ক’ করতে চাপ দেওয়ায় রুম্পা ও তার স্বামী ইকবাল পরিকল্পনা করে আলাউদ্দিনকে খুন করেন। “প্রতিবেশি এবং গৃহশিক্ষক থাকার সময় আলাউদ্দিনের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে বলে রুম্পা জানিয়েছেন। দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় রুম্পার বিয়ে হয়ে গেলেও আলাউদ্দিনের সঙ্গে তার সম্পর্ক অব্যাহত ছিল।” ওসি মহিউদ্দিন জানান, প্রথম স্বামী ওমর সাদিকের সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হওয়ার পর গত বছরের জুলাইয়ে ইকবাল হোসেনকে বিয়ে করেন রুম্পা। বিয়ের কিছুদিন পর ইকবাল ওমান চলে গেলে আলাউদ্দিন আবার যোগাযোগ শুরু করেন বলে রুম্পা জানান।

“বিষয়টি জানতে পেরে ইকবাল আলাউদ্দিনকে নিষেধও করে। এতে আলাউদ্দিন ক্ষিপ্ত হয়ে আগের শারীরিক সম্পর্কের ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়াসহ নানা হুমকি দিতে থাকেন। ডিসে¤॥^র মাসের শেষ দিকে ইকবাল দেশে এলেও আলাউদ্দিন জানতেন না। পরে পরিকল্পনা করে আলাউদ্দিনকে হত্যা করা হয়। আলাউদ্দিনের কারণেই প্রথম স্বামীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ি হয় বলেও দাবি করেছেন রুম্পা। ওই সংসারে তার একটি মেয়েও আছে। ওসি বলেন, বিভিন্ন সময়ে আলাউদ্দিন রুম্পাকে দেখা করার জন্য এবং বাসা ভাড়া নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়ায় শহীদ নগরের বাসাটি ভাড়া নেওয়ার পরিকল্পনা করেন ইকবাল।

পরিকল্পনা অনুযায়ী রুম্পা আলাউদ্দিনকে বাসার ঠিকানা জানানোর পর সে দ্রুত চলে আসে। বাসায় প্রবেশ করার পর তাকে আটকে রাখে ইকবালসহ অন্যরা, পরে হত্যা করে। হত্যাকান্ডের পর রুম্পা ও ইকবাল প্রথমে নগরীর হামজারবাগ এলাকায় যায়। পরে রাউজান উপজেলার হিংলায় চলে যায়। সেখান থেকে তাদের গ্রেপ্তারের পর আলাউদ্দিনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয় এবং পরে ভোলার লালমোহন থেকে তৈয়ব ও হেলালকে গ্রেপ্তার করা হয়। আরেক অভিযুক্ত মাসুদকে গ্রেপ্তার করা যায়নি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় অজ্ঞাতপরিচয় একজনের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কসবা থানার ওসি মো: মহিউদ্দিন জানান, গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার কুটি ইউনিয়নের কালামুড়িয়া এলাকার একটি সেতুর পাশ থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহতের বয়স আনুমানিক ৪০ বছর বলে জানালেও পুলিশ তার নাম-পরিচয় বলতে পারেনি।

ওসি মহিউদ্দিন জানান, সকালে কুমিল্ল¬া-সিলেট মহাসড়কের ওই সেতুর কাছে লাশ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দেয়। তার বুকের বাম দিকে তিনটি গুলির ছিদ্র দেখা যায়। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনা তদন্ত করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

কুমিল্লায় যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

কুমিল্লা প্রতিনিধি : কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ২ লাখ টাকা দাবিকৃত যৌতুক না দেওয়ায় হনুফা আক্তার ময়না (২৫) নামে এক সন্তানের জননীকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত সোমবার রাতে উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের কটপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত হনুফা ওই গ্রামের প্রবাস ফেরত মো. শামীমের স্ত্রী। ঘটনার পর থেকে শামীমসহ পরিবারের লোকজন পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার শেষে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।  

নিহত হনুফার ভাই হারেছ মোল্ল¬া জানান, কটপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে মো. শামীমের সাথে হনুফা আক্তার ময়নার (২০) গত বছরের জানুয়ারি মাসে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় যৌতুকের দাবিতে শ্বশুর পক্ষের লোকজন তার উপর নির্যাতন করতো। এরই মধ্যে তাদের ৭৩ হাজার টাকা মূল্যের ফার্নিচার দেয়া হয়। সোমবার রাত ১০টার দিকে তার বোন হনুফা মোবাইলে কল করে বলে- তার স্বামী শামীম দুবাই যাবে। এজন্য ২ লাখ টাকা প্রয়োজন। দাবিকৃত টাকা না দিলে আমাকে নির্যাতন করে পাঠিয়ে দিবে। রাত আনুমানিক বারটার সময় ওই বাড়ির এক নারী ফোন করে হনুফার মৃত্যুর খবর জানায়।  

এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই মো. ইব্রাহিম জানান, নিহত হনুফার লাশ উদ্ধার শেষে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল¬øা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। গলায় ফাঁসের চিহ্ন আছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা জানা যাবে।

কুমিল্লায় ৩ কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ গুলিবিদ্ধসহ আহত ৬

কুমিল্লা প্রতিনিধি : কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন সামনে রেখে নগরীর ২৫ ও ১৫নং ওয়ার্ডের ৩ কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, হামলা, গুলি বিনিময় হয়। এ সময় ৩ প্রার্থীর সমর্থিতদের মধ্যে ১ জন গুলিবিদ্ধসহ ৬ জন আহত হয়েছে।  মঙ্গলবার ভোরে নগরীর ২৫নং ওয়ার্ডের গ্রাম চৌয়ারায় বিএনপির সমর্থকদের হামলায় আবু সাইয়িদ অনিক চৌধুরী নামের এক তরুণ গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এর আগে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর গাড়ির ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এদিকে গত সোমবার রাত ১১টায় ১৫নং ওয়ার্ডের চকবাজার এলাকায় দু’প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৫ জন আহত হয়েছে।

জানা যায়, নগরীর ২৫নং ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী খলিলুর রহমান মজুমদার ও তার সমর্থকরা মোটরসাইকেলে করে এসে গ্রাম চৌয়ারায় বাড়ির সামনে দুটি গুলি চালালে একটি অনিকের পায়ে বিদ্ধ হয়। আহত অবস্থায় তাকে কুমিল¬øা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অনিকের বাবার নাম মিঠু চৌধুরী। তিনি অপর কাউন্সিলর প্রার্থী জিল¬ুর রহমান চৌধুরীর সমর্থক।

আহত অনিকের মা বলেন, ফজরের নামাজের আগে বিএনপি সমর্থিত  কাউন্সিলর প্রার্থী খলিলুর রহমান মজুমদারের নেতৃত্বে কয়েকজন লোক  কয়েকটি মোটরসাইকেলে করে এসে বাড়ির সামনে দুইটি গুলি করে। একটা গুলি আমার ছেলের পায়ে লাগে। এর আগে ২৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও সাবেক কাউন্সিলর মো. খলিলুর রহমান মজুমদারের বাড়িতে রাখা গাড়ি ভাঙচুর করার ঘটনা ঘটে। এ সময় কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলিও হয়। সোমবার রাত ১১টায় হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় খলিলুর রহমানের চাচা দেলোয়ার হোসেন বাদি হয়ে ৫ জনের নাম উল্লে¬খ করে অজ্ঞাত ২০ জনের নামে মামলা দায়ে করেছেন।  

এদিকে ১৫নং ওয়ার্ডের দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ৮ জন আহত হয়। সোমবার দিবাগত রাতে নগরীর ১৫ ওয়ার্ডের চকবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। চকবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সালাউদ্দিন বলেন, দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

কুমিল্লা ও সুনামগঞ্জে শেষ প্রচারে প্রার্থীরা

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন ও সুনামগঞ্জ-২ উপ নির্বাচনে প্রচারের শেষ দিনে প্রার্থীরা ঘুরছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত এক টানা ভোট চলবে দুই নির্বাচনী এলাকায়। এ লক্ষ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচন কমিশনের জনসংযোগ পরিচালক এসএম আসাদুজ্জামান বলেন, মঙ্গলবার মধ্যরাতে প্রচার শেষ হচ্ছে। বুধবার কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে যাবে নির্বাচনী সামগ্রী।

“আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা মাঠে রয়েছেন।নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব ধরনের ব্যবস্থাই আমরা নিয়েছি।”

কুমিল্লা সিটি ভোট

দুটি পৌরসভা নিয়ে ২০১১ সালের জুলাই মাসে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন গঠিত হওয়ার পর দ্বিতীয় ভোট হচ্ছে এবার। ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারি প্রথম নির্বাচন নির্দলীয়ভাবে হলেও এবার মেয়র পদে ভোট হচ্ছে দলীয় প্রতীকে।

গত এক মেয়াদে কুমিল্লা সিটির মেয়রের দায়িত্ব পালন করে আসা মনিরুল হক সাক্কু এবারও মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থী। আর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবার আঞ্জুম সুলতানা সীমা, যার বাবা আফজল খান গতবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন।

এছাড়া জাতীয় সমাজতান্তিক দল-জেএসডির শিরিন আক্তার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মামুনুর রশীদও কুমিল্লার মেয়র হওয়ার লড়াইয়ে আছেন।

এই সিটি করপোরেশনের ২৭টি সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ১১৪ জন এবং নয়টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ৪০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

কুমিল্লা সিটিতে মোট ভোটার ২ লাখ ৭ হাজার ৫৬৬ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ২ হাজার ৪৪৭ জন এবং নারী ১ লাখ ৫ হাজার ১১৯ জন। ১০৩টি ভোটকেন্দ্রের ৬২৮টি ভোটকক্ষে এবার ভোট হবে।

সুনামগঞ্জ-২ উপ নির্বাচন

চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের মৃত্যু হলে সুনামগঞ্জ-২ আসনটি শূন্য হয়।

জাতীয় সংসদে তার আসনের ভোটারদের প্রতিনিধিত্ব করতে এই উপ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে প্রার্থী হয়েছেন তার স্ত্রী জয়া সেনগুপ্ত। তার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ছায়েদ আলী মাহবুব হোসেন।

দিরাই ও শাল্লা উপজেলা নিয়ে গঠিত সুনামগঞ্জ-২ আসনে ১৩টি ইউনিয়ন রয়েছে। এ আসনের ১১০টি ভোটকেন্দ্রে ভোটকক্ষ রয়েছে ৫০২টি।

এ আসনের ২ লাখ ৫২ হাজার ৪৩০জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ এক লাখ ২৬ হাজার ২২৮ জন; নারী এক লাখ ২৬ হাজার ২০২ জন।

আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত জাতীয় সংসদে সুনামগঞ্জের দিরাইয়ের মানুষের প্রতিনিধিত্ব করেছেন সাতবার। সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

যান চলাচলে কড়াকড়ি

ইসির জনসংযোগ পরিচালক আসাদুজ্জামান জানান, নির্বাচনী এলাকায় চার দিন মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ১২টা থেকে ভোটের পরের দিন শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে।

ভোটের আগের দিন, অর্থাৎ বুধবার মধ্যরাত থেকে বৃহস্পতিবার মধ্যরাত পর্যন্ত অটোরিকশা, ইজিবাইক, টেম্পো, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস ও ট্রাক চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে নির্বাচনী এলাকায় তবে জরুরি সেবায় নিয়োজিত যানবাহনের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না।

রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও তাদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রেও যানবাহনের নিয়ম শিথিল থাকবে। তাছাড়া নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত দেশি-বিদেশি সাংবাদিকদের পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখতে হবে।

জাতীয় মহাসড়ক (হাইওয়ে), বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের যান চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা শিথিল থাকবে।

 

বাসা দেখতে এসে খুন হওয়া যুবক চবি শিক্ষার্থী

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রাম নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী থানার শহীদ নগরে বাসা দেখতে এসে খুন হওয়া যুবকের পরিচয় মিলেছে। মো. আলাউদ্দিন (২৩) নামে ওই যুবক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) বাংলা বিভাগে মাস্টার্স করছিলেন। তিনি হাটহাজারী উপজেলার ফতেপুর গ্রামের মোশাররফ আলী চেরাংয়ের বাড়ির শাহ আলমের ছেলে।

বৃহস্পতিবার বিকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে এসে পুলিশের উপস্থিতিতে ওই যুবকের বাবা ও ছোটভাই সালাউদ্দিন লাশ শনাক্ত করেন বলে বায়েজিদ বোস্তামী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন জানান। চট্টগ্রাম নগরীর পশ্চিম শহীদনগর এলাকার একটি চারতলা ভবনের তিনতলার টয়লেটে বুধবার গভীর রাতে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় আলাউদ্দিনের লাশ পাওয়া যায়। ওইসময় তার পরনে ছিল নীল রংয়ের শার্ট ও কালো জিন্স। বাসা ভাড়া নিতে এসে ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে বলে লাশ উদ্ধারের পর বাড়িওয়ালার বরাত দিয়ে জানিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, ওই যুবকের সঙ্গে আরও তিনজন ছিলেন, যাদের খোঁজা হচ্ছে। দড়ি দিয়ে হাত-পা বাঁধা আলাউদ্দিনকে গলায় দড়ি পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক ধারণার কথা জানিয়েছিলেন ওসি মহসিন। তিনি জানান, বুধবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে তিন যুবক ও এক তরুণী বাসা ভাড়া নেওয়ার কথা বলে তিন তলার ঘরটি দেখতে যায়। বাসাটি তাদের পছন্দ হয়েছে এবং একজনের স্ত্রী অন্তঃস্বত্ত্বা জানিয়ে তখন থেকেই বাসায় উঠবে বলে বাড়িওয়ালাকে জানায়।

কিছুক্ষণ পর দুই যুবক ও তরুণী মালপত্র আনার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। তারা বলে যায়, আরেকজন বাসা পরিষ্কার করছে। রাতে ভবন মালিকের স্ত্রী ওই বাসায় যুবকের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন বলে জানান ওসি। বাইরে থেকে দরজা খোলা থাকায় এবং কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে বাড়িওয়ালার স্ত্রী তাদের নতুন ভাড়াটিয়ার বাসায় ঢোকেন। পরে টয়লেটের ভেতরে লাশ দেখে পুলিশে খবর দেন।

চট্টগ্রামে দুর্ঘটনায় ট্রাক চালক- হেলপারের মৃত্যু

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দুই ট্রাকের সংঘর্ষে চালক ও তার সহকারীর মৃত্যু হয়েছে। হাইওয়ে পুলিশের জোরারগঞ্জ ফাঁড়ির এসআই মুজিবর রহমান জানান, মঙ্গলবার গভীর রাতে উপজেলার থৈয়াছড়া ইউনিয়নের পশ্চিম ফুল মোগড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা হয়।  নিহতরা হলেন- এক ট্রাকের চালক রফিক ঢালি (২৬) এবং তার সহকারী শিমুল (২৪)।

এসআই মুজিব  বলেন, রাত আড়াইটার দিকে সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা মালবাহী একটি ট্রাককে পেছন থেকে ধাক্কা দেয় ঢাকামুখী অন্য একটি খালি ট্রাক । এতে পেছনের ট্রাকটির চালক ও সহকারী ঘটনাস্থলেই মারা যান। এসআই মুজিব জানান, দুটি ট্রাকের সংঘর্ষের পর ঢাকামুখী সৌদিয়া পরিবহনের একটি বাসও পেছনের ট্রাকটিকে ধাক্কা দেয়। এতে বাসের সামনের অংশের ক্ষতি হলেও যাত্রীরা আঘাত পাননি।



Go Top