বিকাল ৩:৫৬, রবিবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ বাংলাদেশ

সিলেট প্রতিনিধি : তথ্যমন্ত্রী ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলÑজাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, যথাসময়ে আগামী জাতীয় নির্বাচন হবে। এই নির্বাচনে আগুন-সন্ত্রাসীদের ছাড় দেওয়া হবে না। গতকাল শনিবার দুপুরে সিলেট সার্কিট হাউসে জাসদের সিলেট বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইনু এসব কথা বলেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ‘জঙ্গি ও আগুন-সন্ত্রাসের আশ্রয়দাতা’ উল্লেখ করে হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘জঙ্গি-সন্ত্রাসী, আগুন-সন্ত্রাসীরা গণতন্ত্র থেকে দূরে সরে গেলে, রাজনীতি থেকে দূরে সরে গেলে, গণতন্ত্র ও রাজনীতি দুর্বল হয় না; বরং শক্তিশালী হয়।’ আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আগামী নির্বাচন যথাসময়ে করতে হবে। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আগুন সন্ত্রাসীদের হালাল করা যাবে না। নির্বাচনও সময়মতো করব, সন্ত্রাসীদেরও ছাড় দেওয়া হবে না।প্রতিনিধি সভায় সুনামগঞ্জ জেলা জাসদের সভাপতি আ ত ম সালেহ সভাপতিত্ব এবং সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক কে কিবরিয়া চৌধুরী সঞ্চালনা করেন ।

বিডিআর বিদ্রোহে  নিহতদের স্মরণ

করতোয়া ডেস্ক : নানা কর্মসূচির মধ্যে আট বছর আগে সীমান্ত রক্ষা বাহিনীতে বিদ্রোহে নিহত সেনা কর্মকর্তাদের স্মরণ করা হয়েছে। ২০০৯ সালে ২৫ এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি বিডিআর বাহিনীতে বিদ্রোহের সময় পিলখানায় ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন প্রাণ হারান। রক্তাক্ত ওই বিদ্রোহের পর বাহিনীর নাম বদলে বিজিবি হয়।


শনিবার সকালে বনানী সামরিক কবরস্থানে নিহতদের কবরে স্বজনরা ছাড়াও রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। সামরিক কবরস্থানে যারে দাফন করা হয়েছে তাদেরসহ নিহত সকলের প্রতি রাষ্ট্রপতির পক্ষে তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল সরোয়ার হোসেন, প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদিন ফুল দেন। প্রায় একই সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, সেনাপ্রধান জেনারেল আবু বেলাল মো.  শফিউল হক, নৌপ্রধান এডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাত, বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ এবং বিএনপি নেতা সাবেক সেনাপ্রধান মাহবুবুর রহমানও নিহতদের কবরে শ্রদ্ধা জানান।

নিহত সেনা কর্মকর্তাদের স্ত্রী-সন্তানসহ স্বজনরাও কবরে দোয়া ও মোনাজাত করেন। নিহত লেফটেন্যান্ট কর্নেল গোলাম কিবরিয়ার ভাই জাফরুল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, ‘যারা চলে গেছেন, তারা তো আর কোনোদিনও ফিরবেন না। কিন্তু তার স্বজনরা বিচার তো দেখে যেতে পারবেন। ন্যায়বিচারের মাধ্যমে এর পরিসমাপ্তি দরকার।’ নিহত মেজর মিজানুর রহমানের কবরে মোনাজাত করেন তার দুই ছেলে ১৭ বছর বয়সের তাহসীন রহমান এবং তার ছোট ভাই ১১ বছর বয়সের ফারদিন রহমান। টাঙ্গাইল মির্জাপুর ক্যাডেট কলেজের ছাত্র তাহসীন বলেন, ‘এখনও জানা গেল না কারা কী জন্য এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে।’ বিচারে শাস্তি হলেও নিহত স্বজনদের অনেকেই হত্যার নেপথ্যের নায়কদের খুঁজে বের করার দাবি জানিয়েছেন। পিলখানাসহ বিজিবির সব রিজিয়ন, সেক্টর, ও ইউনিটে শনিবার খতমে কোরআন, মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। আজ রোববার বাদ আছর পিলখানায় বীর উত্তম ফজলুর রহমান খন্দকার মিলনায়তনে দোয়া মাহফিল ও মিলাদ অনুষ্ঠিত হবে। এই অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উপস্থিত থাকবেন।


বিএনপির শ্রদ্ধা
আট বছর আগে পিলখানায় হত্যাকান্ডের শিকার সেনা কর্মকর্তাদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে তাদের স্মরণ করেছে বিএনপি। গতকাল সকালে স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল মাহবুবুর রহমানের নেতৃত্বে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল বনানী কবরস্থানে গিয়ে পিলখানায় নিহতদের কবরে শ্রদ্ধা জানায়। বিএনপি নেতা রুহুল আলম চৌধুরী, অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল ফজলে এলাহী আকবর, অবসরপ্রাপ্ত মেজর মো. হানিফসহ দলটির নেতাকর্মীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন। সেনা কর্মকর্তা নিহতের এ ঘটনাকে ‘দেশের জন্য কলঙ্কজনক অধ্যায়’ অ্যাখ্যা দিয়ে বিএনপি নেতা মাহবুব এ বিষয়ে সরকার ‘লুকোচুরি’ করছে বলেও অভিযোগ করেন। পিলখানার নির্মম ঘটনা বিষয়ে দুইটি তদন্ত কমিটি হয়েছিল, সেগুলোর প্রতিবেদন জনসমক্ষে শ্বেতপত্র আকারে প্রকাশের দাবি আমরা করেছিলাম, কিন্তু সরকার তা করেনি। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে ওই ঘটনার শ্বেতপত্র প্রকাশ করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

নূর চৌধুরীকে ফেরত  আনার চেষ্টা চলছে : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীকে কানাডা থেকে আনার চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। শনিবার ঢাকার একটি হোটেলে কানাডা-বাংলাদেশ সম্পর্কের ৪৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় শাহরিয়ার বলেন, তাকে (নূর চৌধুরী) ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আমরা কাজ করছি। এর মাধ্যমে দায়মুক্তির সংস্কৃতির অবসান হবে। কানাডা বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডে মৃত্যুদন্ড পাওয়া নূরকে বহিষ্কার করে বাংলাদেশে পাঠালে তা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে ‘যুগান্তকারী সাফল্য’ হিসেবে বিবেচিত হবে বলেও মন্তব্য করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। 
বঙ্গবন্ধুর এই আত্মস্বীকৃত খুনি অনেক দিন ধরেই কানাডায় পালিয়ে আছেন। বাংলাদেশ বেশ কয়েকবার তাকে ফেরত চাইলেও, আইনের দোহাই দিয়ে কানাডা তা করতে রাজি হচ্ছে না। দেশটির আইন অনুযায়ী, আশ্রিত যে অভিবাসী নিজ দেশে মৃত্যুদন্ডের মুখোমুখি হতে পারে তাকে ফেরত দেওয়ার সুযোগ নেই। যদিও গত বছর কানাডা সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছিলেন, কানাডা নূর চৌধুরীর প্রত্যাবসনের বিষয়ে আলোচনায় সম্মত হয়েছে। বাংলাদেশ ও কানাডার সম্পর্কে ‘নতুন উদ্যম’ সৃষ্টি করেছে বলেও শনিবারের আলোচনায় মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রীর অর্থনীতি বিষয়ক উপদেষ্টা মসিউর রহমান, বাংলাদেশে কানাডার হাইকমিশনার বেনোয়া পিয়েরে ল্যারামিস, সাবেক দূত ও গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার দক্ষিণ এশীয় বিষয়ক নির্বাহী পরিচালক রবার্ট ম্যাকডুগালও উপস্থিত ছিলেন।

লালবাগে রেস্টুরেন্টে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ, দগ্ধ ৮

রাজধানীর লালবাগ থানার চার রাস্তার মোড়ে পাপিন নামের একটি রেস্টুরেন্টে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আগুন লেগে এক নারীসহ ৮ জন আহত হয়েছেন। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। দগ্ধরা হচ্ছেন- সুনাম উদ্দিন (৫০), হযরত আলী (৪০), পান্না আক্তার (২৬), মারুফ হোসেন (২০), সবুজ (২০), মকবুল হোসেন (৩৫) ও সাব্বির (২০) ও অজ্ঞাত এক রিকশাচালক (৩২)। ঢামেক হাসপাতালের আবাসিক সার্জন পার্থ শঙ্কর পাল জানান, দগ্ধদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

অভি নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী অভি জানান, মকবুল নামে তার এক স্বজন ফুটপাত দিয়ে হাঁটছিল। হঠাৎ পাপিন রেস্টুরেন্টের ভেতরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়। তখন রেস্টুরেন্টের কাচ ভেঙে বাইরে চলে আসে এবং পাশের বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমারও বিস্ফোরন ঘটে। পুলিশ জানায়, তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। প্রাথমিকভাবে সিলিন্ডার বিস্ফোরণ বলে মনে হয়েছে। ঘটনার প্রকৃত কারণ জানতে তদন্ত চলছে।

 

 

 

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে গণশুনানি করবে সিপিবি-বাসদ

জ্বালানি খাতের ন্যায্য বিপণন তদারককারী কর্তৃপক্ষ বিইআরসির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে গ্যাসের দাম নিয়ে নিজেদের উদ্যোগে গণশুনানি করার ঘোষণা দিয়েছে সিপিবি ও বাসদ। গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি রাজধানীতে আধাবেলা হরতাল ডাকার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরে  শনিবার বাম দল দুটির সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

গণশুনানি নেওয়ার পর বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) বৃহস্পতিবার বিভিন্ন খাতে গ্যাসের দাম মার্চ ও জুনে দুই ধাপে গড়ে ২২ দশমিক ৭ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দেয়। কিন্তু তাতে আবাসিক গ্রাহকদের রান্নায় ব্যবহৃত গ্যাস ও বাণিজ্িযক সংযোগে দাম বেড়েছে ৫০ শতাংশ। এর প্রতিবাদে শুক্রবারই হরতালের ঘোষণা দেয় সিপিবি-বাসদ।

সংবাদ সম্মেলনে সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বিইআরসির সমালোচনা করে বলেন, এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের একটি স্বাধীন নিরপেক্ষ সংস্থা হিসেবে ভূমিকা পালন করার কথা। কিন্তু থলের বিড়াল বের হয়ে গেল  দুজন মন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে। দুই মন্ত্রীই বলেছেন যে, সরকারের পক্ষ থেকে দাম বৃদ্ধির যে সুপারিশ করা হয়েছিল সে অনুযায়ীই গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন। বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেন, যে প্রক্রিয়ায় দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হল, সেটাকে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া বা পদ্ধতি বলা চলে না। এখানেও স্বেচ্ছাচার করা হয়েছে। গ্যাসের দাম কমানোর প্রস্তাব নিয়ে বেসরকারিভাবে গণশুনানির ঘোষণা দিয়ে সিবিবি সভাপতি বলেন, শিগগিরই এর দিনক্ষণ জানানো হবে। গ্যাসের দাম বাড়ানোর ক্ষেত্রে সামঞ্জস্যা বিধানের যে কথা মন্ত্রীরা বলছেন, তার সমালোচনা করেন সিপিবি সভাপতি সেলিম। তিনি বলেন, আমরাও সামঞ্জস্য বিধান চাই। দেখি অর্থমন্ত্রী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঘোষণা দিক, যেসব মন্ত্রী-এমপি ট্যাক্স ফ্রি গাড়ি কিনেছেন সামঞ্জস্য বিধানের জন্য তাদের কাছ থেকে ট্যাক্স আদায় করা হোক। মন্ত্রী-এমপিদের যে বেতন-ভাতা বৃদ্ধি করা হয়েছে, তার সাথে সামঞ্জস্য  রেখে গার্মেন্টসসহ সমস্ত শ্রমিকদের ন্যূনতম বেতন ১৬ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হোক।

বাসদ সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামান বলেন, এই মূল্য বৃদ্ধিতে সরকার বছরে বাড়তি লাভ করবে ৪ হাজার ১৮৫ কোটি টাকা। অন্যরদিকে জনগণের ক্ষতি হবে সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকার উপরে। দুর্নীতি, অপচয়, অব্যবস্থা, মাথাভারী প্রশাসনের চাপ জনগণের উপর চাপিয়ে দিতেই গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে একটি হিসাব দিয়ে বলা হয়, ২০১৫-১৬ গ্যাস বিক্রি বাবদ আয় হয়েছে ১৬ হাজার ৬২৬ কোটি টাকা। সরকার ভ্যাট নিয়েছে ৫৫ শতাংশ, লভ্যাংশ নিয়েছে ২ শতাংশ, আগাম কর্পোরেট ট্যাক্স ৩ শতাংশ, সম্পদমূল্য মার্জিন ১৫. ৯৬ শতাংশ, গ্যাস ডেভেলপমেন্ট ফান্ড বাবদ ৫.১৪ শতাংশ অর্থাৎ মোট ৮১.১০ শতাংশ সরকার নিয়ে নিয়েছে। এর অর্থমূল্য দাঁড়ায় ১৩ হাজার ৪৮৪ কোটি টাকা। পরিচালন ব্যয় বাদ দিলে কোম্পানির লাভ ৫ শতাংশ বা ৮৩১ কোটি টাকা। গ্যাস ডেভেলপমেন্ট ফান্ডে জমা আছে ১৯ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকা।

লাভ হওয়া সত্ত্বেও গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত কেন? গৃহস্থালিতে গ্যাস সরবরাহে সরকারের হিসাব নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে দল দুটি। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, দুই চুলায় মাসে ৯২ ঘনমিটার গ্যাস ব্যবহারের হিসাব ধরা হলেও বাস্তবে গড়ে গ্যাস ব্যবহার করা হয় ৪৫ ঘনমিটার। অর্থাৎ ব্যবহারকারীরা ৪৭ ঘনমিটার গ্যাস ব্যবহার না করেও দাম ঠিকই দিয়ে যাচ্ছে। অপরদিকে বর্তমানে দুই চুলার জন্য বিল দিতে হয় ৬৫০ টাকা, যার ৫৫ শতাংশ ভ্যাট অর্থাৎ গ্যাসের দাম ২৯৩ টাকা আর ভ্যাট বাবদ সরকার নেয় ৩৫৭ টাকা। সরকারকে এই বিপুল পরিমাণ ট্যাক্স দেওয়ার পরও গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কেন? গ্যাসের দাম বাড়ানোর এই সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে পিছু হটার আহ্বান জানিয়ে দল দুটি বলেছে, তা না হলে আরও কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র ও পরীক্ষার্থীদের যাতায়াত হরতালের আওতামুক্ত থাকবে। রাজধানীতে হরতালের পাশাপাশি সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। সংবাদ সম্মেলনে সিপিবির সভাপতিমন্ডলীর সদস্যর লক্ষèী চক্রবর্তী, কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন, রফিকুজ্জামান লায়েক, অনিরুদ্ধ দাস অঞ্জন, বাসদের কেন্দ্রীয় নেতা বজলুর রশিদ ফিরোজ, রাজেকুজ্জামান রতন, জাহেদুল হক মিলু, আব্দুর রাজ্জাক, খালেকুজ্জামান লিপন উপস্থিত ছিলেন।



অর্থ-বাণিজ্য

পোশাক শিল্পে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান।
রোববার দুপুর ১টায় বিজিএমইএ’র প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, পোশাক শিল্পকে সরবরাহকৃত বিদ্যুৎ লাইনে পুরাতন ক্যাবলের কারণে সংযোগে সমস্যা হয়। এর ফলে আমাদের মেশিন ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। অন্যদিকে গ্যাস সরবরাহও খুব শিগগির স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে আশা করছি। তিনি বলেন, রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক হোটেল সোনারগাঁওয়ে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকা অ্যাপারেল সামিটের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই সামিটে তিনটি সেশনে দেশের পোশাক শিল্পের সমস্যা সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা হবে। শুধু তাই নয় কিভাবে এই শিল্পকে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়া যায় তা নিয়ে আলোচনা হবে। এবারের ঢাকা অ্যাপারেল সামিটের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারিত হয়েছে ‘টুগেদার ফর এ বেটার টুমোরো’। সিদ্দিকুর রহমান আরও বলেন, সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনের ক্ষেত্রে প্রত্যাশা ছাড়িয়ে গেছে। ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক ১১ শতাংশ। সরকার ২০২১ সাল নাগাদ জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন ৮ শতাংশ। যদি দেশে রফতানি সক্ষমতা বাড়াতে পারে তাহলে ম্যানুফ্যাকচারিং হাব হিসেবে তৈরি হতে পারে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বিজিএমইএ দ্বিতীয় সহ-সভাপতি ফারুখ হাসান, বিজিএমইএ সহ-সভাপতি মোহাম্মদ নামির, বিজিএমইএ সহ-সভাপতি মাহমুদ হাসান খান বাবু প্রমুখ।

ভবিষ্যত প্রজন্মকে দেশের ইতিহাস জানাতে হবে: অর্থমন্ত্রী

ভবিষ্যত প্রজন্মকে দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে জানাতে হলে এখন থেকেই প্রস্তুতি নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।  শনিবার সকালে জাতীয় জাদুঘরে সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে জ্ঞানালোক পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, যারা এ বিষয়গুলো নিয়ে পরিশ্রম করছেন তাদেরকে যথাযথ মূল্যায়ন করা উচিত। মুহিত বলেন, সবার হয়ত সবগুলো ছবি দেখার সুযোগ হবে না। তবে আমি বলতে পারি, শিশুদের এসব ছবি দর্শকের জ্ঞানের ভান্ডার আরও সমৃদ্ধ করবে। সৃষ্টির আনন্দে বিভোর কিশোররা চলচ্চিত্র নির্মাণের মাধ্যমে নিজেদের রুচিকে আরও উন্নত করছে, প্রতিভার বিকাশ ঘটাচ্ছে। এই তো আমাদের বড় পাওয়া। তিনি বলেন, আজকে যারা এখানে এসেছে, তাদের সবাই পিতামাতার ভাগ্যবান সন্তান। কিন্তু এমন ভাগ্যবানের সংখ্যা কজন? এর আগে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এবার তিন গুণী ব্যক্তিকে পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন, বিশিষ্ট কথাশিল্পী ও বিজ্ঞানী পূরবী বসু, খ্যাতিমান প্রতœতত্ত্ববিদ অধ্যাপ ড. সুফি মোস্তাফিজুর রহমান ও বিক্রমপুরের উয়ারি-বটেশ্বর প্রতœস্থানের খ্যাতিমান পথিকৃত মুহাম্মদ হাবিবুল্লাহ পাঠান।

 

 

 

চালে আমদানিশুল্ক থাকবেই: খাদ্যমন্ত্রী

কিছু ব্যবসায়ী চালের দাম বাড়িয়ে এই খাদ্যশস্যের উপর থেকে আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের চেষ্টা করছেন জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলছেন, কোনো অবস্থাতেই এই শুল্ক প্রত্যাহার করা হবে না।

সচিবালয়ে  বুধবার চালকল মালিকদের সঙ্গে বৈঠকের পর মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী পাইকারি বাজারের সঙ্গে অসামঞ্জস্যভাবে চালের দাম বৃদ্ধি করেছে। তবে এতে খুব বেশি প্রতিক্রিয়া হচ্ছে না। অসাধু ব্যবসায়ী তারাই, যারা মনে করছে কোনো রকম একটা অবস্থার সৃষ্টি করে যাতে শুল্কটা প্রত্যাহার করাতে পারেন। কোনো অবস্থায় শুল্ক প্রত্যাহারের প্রশ্নই উঠে না। গণমাধ্যমে চালের দাম বাড়ার খবর আসায় প্রকৃত অবস্থা জানতে মিল মালিকদের সঙ্গে বসেছিলেন জানিয়ে কামরুল বলেন, তাদের কাছ থেকে অত্যন্ত ইতিবাচক বক্তব্য পেয়েছি। আমাদের কাছে ঠিক চিত্র তুলে ধরে তারা বলেছেন, কোনো সমস্যা নেই। এবার মোটা চালের দাম বৃদ্ধির মূল কারণটা হচ্ছে গত বছর এই সময়ে ভারত থেকে আড়াই থেকে ৩ লাখ টন চাল এসেছে বিনা শুল্কে। সরকার শুল্ক আরোপের পর এবছর এই সময়ে ভারত থেকে চাল এসেছে ৩৭ হাজার টন। অসাধু ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে ‘ফ্রি স্টাইলে’ চাল আমদানি করায় কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হত জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ট্যাক্স আরোপের ফলে এখন কৃষকরা লাভবান হচ্ছে। চলতি অর্থবছরে চাল আমদানির উপর শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ২৫ শতাংশ করেছে সরকার। চালের বাজার স্থিতিশীল আছে দাবি করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, আমন মৌসুমের শেষ সময়ে ও বোরো মৌসুমের শুরুতে দাম সব সময়ই একটু বাড়ে, এ সময় দাম বাড়টাই স্বাভাবিক। তবে তা সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রয়েছে। দুই মাস পর বোরো সংগ্রহ শুরু হলে বাজারে মোটা চালের অভাব থাকবে না জানিয়ে কামরুল বলেন, বর্তমানে ৯ লাখ টন খাদ্যশস্য মজুদ রয়েছে। বাজারে চিকন চালের দাম খুব বেশি বাড়েনি। সরকার ৩৩ টাকা কেজি দরে আমন চাল কিনছে জানিয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এবার সিদ্ধান্ত ছিল আমরা ৩ লাখ টন আমন কিনব, সম্ভব হলে বেশি কিনব। এই মুহূর্তে ৩ লাখ ২৬ হাজার টন আমন আমাদের ঘরে চলে এসেছে। আগামী ১৫ মার্চ পর্যন্ত আমন সংগ্রহ অভিযান চলবে। এখনও দৈনিক ৪০০ থেকে ৮০০ টনের চুক্তি হচ্ছে। বাংলাদেশ অটো মেজর অ্যান্ড হাসকিং মিল মালিক সমিতির সভাপতি আব্দুর রশীদ বলেন, মোটা চালের বাজার বেড়েছে এটা সত্য। যতটুকু বেড়েছিল তা থেকে আবার কেজিতে এক টাকা কমে গেছে। আশা করি নতুন করে আর চালের বাজার বাড়ার সম্ভাবনা নেই, দেশে পর্যাপ্ত চাল আছে। যে অবস্থায় গেছে তা স্থিতিশীল থাকবে ইনশাআল্লাহ।

 

রাজধানীতে চলছে আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক মেলা

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হয়েছে চার দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক মেলা। যা চলবে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।  বুধবার দুপুর পৌনে ২টায় শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু মেলার উদ্বোধন করেন।

বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত এই মেলা প্রতিদিন দুপুর ১২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলছে। মেলায় প্রবেশের জন্য দর্শনার্থীদের কোনো টিকেট লাগবে না বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, আমাদের ১২তম মেলা এটি। মেলায় দেশি ও বিদেশি ৪৫০টি স্টল রয়েছে। দেশীয় মোট ১৫টি ক্যাটাগরিতে যেসব প্রতিষ্ঠান স্টল দিয়েছে তাদের মধ্যে প্লাস্টিক হাউজ আইটেমস, প্যাকেজিং ম্যাটারিয়েলস, প্লাস্টিক মাউল্ড, ফার্মাসিটিক্যাল, প্লাস্টিক ফার্নিচার, মেলামাইন, গার্মেন্টস এক্সসোসরিজ, পিপি ওভেন ব্যাগ উল্লেখযোগ্য। তিনি বলেন, মেলায় বিভিন্ন দেশ থেকে আগত প্রতিষ্ঠানগুলো প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদনকারী মেশিন ও ক্যাটালগ প্রদর্শন করছে। তিনি আরও বলেন, প্লাস্টিক মেলার মাধ্যমে পণ্যের পরিচিতি, নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ছে। বাড়ছে ভোক্তাও। এ পণ্য দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রফতানি করা হচ্ছে। দেশের রফতানিকারক পণ্যের মধ্যে প্লাস্টিক অন্যতম। আগামীতে রফতানি কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাবে। আমরা এ খাতকে সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সর্বাত্মক চেষ্টা করছি।

লন্ডনে অর্থমন্ত্রী মুহিতকে সংবর্ধনা

করতোয়া ডেস্ক : লন্ডনে সংবর্ধিত হলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। রোববার যুক্তরাজ্েেযর পূর্ব লন্ডনের ইমপ্রেশন ইভেন্ট ভেন্যুচতে নাগরিক এই সংবর্ধনার আয়োজন করে যুক্তরাজ্য্ আওয়াসী লীগ।

অনুষ্ঠানে প্রবাসী সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, মুহিতের ভাই জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি এ কে এ মোমেন বক্তব্যে রাখেন। আবদুল গাফফার চৌধুরী বলেন, মুহিত ভাইকে অর্থমন্ত্রী হিসেবে সংবর্ধনা জানালে ছোট করা হয়। অর্থমন্ত্রী তো আসে যায়। কিন্তু মুহিত ভাই একজন সংস্কৃতিমনস্ক, রাজনীতিমনস্ক ব্যিক্ত। একজন মানুষ মুহিত হিসেবে তাকে সংবর্ধনা দিচ্ছেন আপনারা। একুশের গানের রচয়িতা গাফফার চৌধুরী ভাষা আন্দোলনের সময় মুহিতের সঙ্গে কারাগারে যাওয়ার স্মৃতিচারণ করেন। সেইসঙ্গে রসিকতার সুরে অর্থমন্ত্রীর ‘রাবিশ’ বলার কথাও বলেন তিনি। ভাষা আন্দোলনে আমরা এক সঙ্গে জেলে ছিলাম। মুহিত ভাইয়ের রাবিশ বলার স্বভাব। এখনও রাবিশ বলা তার ব্যক্তিত্বের বৈশিষ্ট্য। বিশ্বমন্দার মধ্যো বাংলাদেশকে রক্ষা করার কৃতিত্ব মুহিতকেই দেন প্রবাসী এই লেখক-সাংবাদিক।

কৃষিভিত্তিক দেশ থেকে বাংলাদেশকে শিল্পায়নের দিকে এগিয়ে নিতে শেখ হাসিনার সঙ্গে ‘বড় ভাই’ মুহিতের কৃতিত্বের কথাও বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে সংবর্ধিত মুহিত বাংলাদেশের উন্নয়নের লক্ষ্যে  বর্তমান সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন প্রবাসীদের কাছে। আওয়ামী লীগকে ‘গরিবের দল’ অভিহিত করে এই দলটির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মুহিত বলেন, জনগণের কল্যা ণই এই দলটির প্রধান লক্ষ্য। সিলেটের বাসিন্দা মুহিত দেশে প্রবাসীদের বিনিয়োগ প্রত্যাশা করে তার অনুকূল অবস্থা তৈরিতে সরকারের নানামুখী পদক্ষেপও তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটা বিষয়ে আপসহীন, সেটা হল বিদ্যু ৎ দিতে হবে এবং বিদ্যু ৎ সস্তায় দিতে হবে। এখন বিদ্যুাৎ পাবেন। যুক্তরাজি আওয়ামী লীগ আখেরুজ্জামান েেচৗধুরী, শাসসুদ্দিন খান, সুলতান মাহমুদ শরিফ, সৈয়দ সাহিদুর রহমান ফারুক বক্তব্য রাখেন।

Go Top