রাত ১০:১১, সোমবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ জাতীয় / ১৭ গ্রেনেডসহ আগ্নেয়াস্ত্র জব্দ ‘অপারেশন রিপল ২৪’
১৭ গ্রেনেডসহ আগ্নেয়াস্ত্র জব্দ ‘অপারেশন রিপল ২৪’
December 25th, 2016

রাজধানীর দক্ষিণখানের আশকোনায় জঙ্গি আস্তানা ‘সূর্য ভিলা’ থেকে ১৭টি গ্রেনেড, ৩টি পিস্তল ও ২টি সুইসাইডাল ভেস্টসহ বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র জব্দ করেছে পুলিশ।  রোববার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে এ আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট। পরে সেখানেই সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানান কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম।

পূর্ব আশকোনায় হজ ক্যাম্পের কাছে সূর্যভিলা নামের ওই তিন তলা বাড়িতে শনিবার প্রথম প্রহর থেকে বিকাল পর্যন্ত অভিযান চালায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। এর নাম দেওয়া হয় ‘অপারেশন রিপল ২৪’।

‘অপারেশন রিপল ২৪’
* আত্মঘাতী নারীর পেট বিস্ফোরণে ঝাঁঝরা
* উদ্ধার শিশুটি শঙ্কামুক্ত নয়

আত্মঘাতী নারী জঙ্গির পেট বিস্ফোরণে ঝাঁঝরা
রাজধানীর পূর্ব আশকোনায় জঙ্গি আস্তানা থেকে বেরিয়ে এসে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আত্মঘাতী হওয়া নারীর ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।  রোববার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ বলেন, ওই নারীর ক্ষতবিক্ষত পেটে স্পি¬ন্টার, ও বোমার টুকরো পাওয়া গেছে। তার পেটের নিচের অংশ ক্র্যাশড ছিল। পেটে বোমা রেখে বিস্ফোরণ ঘটানোর কারণেই এ রকম হয়েছে। মনে হচ্ছে বোমাটি হ্যান্ডমেইড গ্রেনেড জাতীয়। বোমার অংশ, স্পি¬ন্টার এবং ওই নারীর দাঁত ও চুল নমুনা হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়েছে বলে অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ জানিয়েছেন। পুলিশের ভাষ্য, নিহত ওই নারী জঙ্গিনেতা সুমনের স্ত্রী। শনিবার আশকোনার ওই জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের দীর্ঘ ১৬ ঘণ্টার অভিযানে জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ছেলেরও মৃত্যু হয়। পুলিশের আহ্বানে সাড়া দিয়ে জঙ্গিনেতা জাহিদুল ইসলামের স্ত্রী জেবুন্নাহার শীলা ও তার মেয়ে এবং জঙ্গিনেতা মুসার স্ত্রী তৃষ্ণা ও তার মেয়ে আত্মসমর্পণ করলেও সুমনের স্ত্রী, কাদেরীর ছেলে (১৪) ও জঙ্গি ইকবালের মেয়ে (৪) ভেতরে থেকে যায়। এরপর বেলা ১টার দিকে মেয়েটিকে সঙ্গে নিয়ে বোরকা পরা ওই নারী বেরিয়ে আসেন এবং তার কোমরে বাঁধা গ্রেনেডে বিস্ফোরণ ঘটান বলে পুলিশের তথ্য। বিস্ফোরণে আহত শিশুটিকে তখনই উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ। আর ঘটনাস্থলেই নিহত আনুমানিক ৩৫ বছর বয়সী ওই নারীর লাশও পরে মর্গে পাঠানো হয়। এদিকে জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ছেলের লাশ এখনও আশকোনার ওই আস্তানার ভেতরেই রয়েছে বলে জানিয়েছেন দক্ষিণখান থানার ওসি তপন কুমার সাহা। তিনি বলেন, মৃতদেহটি যে জায়গায় পড়ে আছে সেখানে বিস্ফোরক ও দাহ্য পদার্থ রয়েছে। আমরা দুপুরের মধ্যে লাশটি সরিয়ে ঢাকা মেডিকেলে পাঠানোর চেষ্টা করছি।

উদ্ধার শিশুটি শঙ্কামুক্ত নয়: চিকিৎসক
রাজধানীর পূর্ব আশকোনার ‘জঙ্গি আস্তানা’ থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা শিশুটির অবস্থা এখনও ‘শঙ্কামুক্ত’ নয় বলে জানিয়েছেন জানান চিকিৎসক। শনিবার শিশুটিকে উদ্ধারের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এনে অস্ত্রোপচারের পর পোস্ট আপারেটিভে রাখা হয়েছে বলে হাসপাতালের ক্যাজুয়েলটি বিভাগের আবাসিক চিকিৎসক জেসমিন নাহার জানিয়েছেন। দক্ষিণখানে হজ ক্যাম্পের কাছে ‘সূর্যভিলা’ নামের বাড়িতে শনিবার ভোররাতে অভিযান চালায় পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সদস্য। অভিযানের এক পর্যায়ে পুলিশের আহ্বানে সাড়া দিয়ে সকালে চারজন আত্মসমর্পণ করলেও এক নারী, এক কিশোর ও শিশুটি ভেতরে থেকে যায়। দুপুরে ১টার দিকে বোরকা পরা এক নারী শিশুটিকে নিয়ে বেরিয়ে এসে তার দেহের সঙ্গে বাঁধা গ্রেনেডের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আত্মঘাতি হন; আহত হয় শিশুটি। পরে শিশুটিকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেলে পাঠায় পুলিশ। রাতে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা সময় নিয়ে শিশুটির অস্ত্রোপচার করা হয় জানিয়ে চিকিৎসক জেসমিন নাহার বলেন, ‘স্পি¬ন্টারের আঘাতে শিশুটির খাদ্যনালীতে ১০/১২টি ফুটো হয়েছে। তাছাড়া তার হাতের হাড়ে ফাটল রয়েছে। শিশুটির অবস্থা আশঙ্কামুক্ত নয়। আমরা পর্যবেক্ষণে রেখেছি। অবস্থার উন্নতি হলে এখান থেকে (পোস্ট অপারেটিভ) সরিয়ে নেওয়া হবে।’ শিশুটি জঙ্গি ইকবালের মেয়ে বলে গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। তার মায়ের নাম শাকিরা। পুলিশেরওই অভিযানে জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ছেলেও নিহত হন।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top