বিকাল ৫:২৭, সোমবার, ২৯শে মে, ২০১৭ ইং
/ স্বাস্থ্য / হাঁটু ইন্জুরি -ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি
হাঁটু ইন্জুরি -ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি
এপ্রিল ১৫, ২০১৭

ডা : এম নজরুল ইসলাম বকুল:গত সপ্তাহে হাঁটু ইন্জুরির আই ডিকে এবং কোলেটারাল ইনজুরি নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। তার ধারাবাহিকতায় আজ হাঁটুর ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইন্জুরি নিয়ে আজ আলোচনা করব।
ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট কি?
মানবদেহে দুটি ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট আছে যথা এন্টেরিয়র ক্রুসিয়েট এবং পোষ্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট। এমন দেখতে দুটো লিগামেন্ট যেন ক্রস (+) চিহ্নের মতো মনে হয় তাই এদেরকে বলা হয় ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট। এই দুই লিগামেন্ট খুবই পুরু, প্রচন্ড শক্ত ব্যান্ড যা ফিমার এবং টিবিয়ার মাঝে কঠিন বন্ধন তৈরী করেছে। এরা “নী” জয়েন্টের এ্যান্টেরিয়র এবং পোষ্টেরিয়র ষ্ট্যাবিলিটি বা মজবুত অবস্থান নিশ্চিত করে।

এন্টেরিয়র ক্রুসিয়েট লিগামেন্ট ইনজুরি (এসিএল ইন্জুরি): এসিএল ইন্জুরির অন্যতম প্রধান কারণ বাইরের দিকে ঘুরে গিয়ে হাঁটু ভাঁজ অবস্থায় হঠাৎ এ্যাবডাকশন হলে অথবা হাইপার এক্সটেনশন অবস্থায় হাঁটু যদি ভিতরের দিকে ঘুরে যায়। এটা এত মারাত্মক ইন্জুরি যে হাঁটু সন্ধি সাথে সাথে কলাপ্স হয়ে অচল এবং প্রচন্ড ব্যথা অনুভূত হয়। পটাস করে শব্দ হওয়া কিংবা পপশব্দ আঘাতের সময় শোনা গেলে বুঝে নিতে হবে এসিএল ইন্জুরি হয়েছে।

লক্ষণ/উপসর্গ:
আঘাতের নির্দিষ্ট ঘটনা থাকবে। রোগী বলবে প্রচন্ড আঘাতের সময় “পটাস” করে শব্দ শোনা গেলো। তার পরই পায়ে ভর দেওয়া সম্ভব হয়নি। হাঁটু সাথে সাথে মারাত্মক ফুলে যায় এবং তীব্র এবং অসহ্য ব্যথা অনুভূত হয়। আংশিক ইন্জুরিতে হাঁটু নড়াচড়া করালে ব্যথা আরো তীব্রতা বাড়ে; হাঁটুতে চাপ দিলে তীব্র ব্যথা অনুভূত হয়। সম্পূর্ণ ইন্জুরিতে অস্বাভাবিক নড়াচড়া হয় তবে ব্যথা কম থাকে। লিগামেন্ট ইন্জুরিতে হাঁটুতে চাপ দিলে’ ময়দার ভেজা দোলা” বা ডাউয়ি ফিলিং অনুভূত হয়’ হাঁটুর উপরের চামড়া কালচে বরণ ধারণ করে। দেরীতে রোগী হাঁটু সন্ধি মনে যে ছুটে যাবে অথবা ঘুরে যাবে এমন তথ্য দেয়। তবে আঘাতের সাথে সাথে রোগীর স্থানীয় শারীরিক পরীক্ষা বেশ কষ্টদায়ক। অনেক সময় লিগামেন্ট আংশিক না সম্পূর্ণ হলো তা আলাদা করা কঠিন।

 যদিও আংশিক ইন্জুরিতে অস্বাভাকি সন্ধির মুভমেন্ট হয় না কিন্তু মুভ করাতে গেলে তীব্র ব্যথা হয়। অন্য দিকে কমপ্লিট ইন্জুরির ক্ষেত্রে অস্বাভাবিক সন্ধি মুভমেন্ট হয় তবে ব্যথা কম থাকে। এই সন্দেহ নিশ্চিত করণের জন্য রোগীকে অবশ্যই অজ্ঞান বা অবশ করে পরীক্ষা করতে হবে। আঘাত প্রাপ্ত রোগীর পরীক্ষার ক্ষেত্রে সবসময় প্রথমে ভাল হাঁটু তারপর আঘাত প্রাপ্ত হাঁটুর পরীক্ষা করতে হবে। ক্লিনিক্যাল পর্যবেক্ষণের ফলাফল অন্যান্য লিগামেন্ট, কিংবা মিনিস্কাস ইন্জুরি অথবা অস্থির সংশ্লিষ্টতার উপর নির্ভর করে। যৗথ ইন্জুরির উপর নির্ভর করে জয়েন্ট ষ্ট্যাবিলিটি কতখানি এবং কোনদিকে পরিবর্তিত হয়েছে। এন্টেরিয়র ডিসপ্লেসমেন্ট অব টিবিয়া সহজেই অনুভব করা যায়।
জয়েন্টের পরীক্ষা (এসিএল ইন্জুরির ক্ষেত্রে)
এ্যান্টেরিয়র ড্রয়ার টেষ্ট- পজিটিভ হবে। ল্যাকম্যান টেষ্ট- পজিটিব হবে। পিভট শিফট টেষ্ট- পজিটিভ হবে।

পরীক্ষা নিরীক্ষা:
এক্সরে- এপি, লেটারাল ইন্টারকন্ডাইলারনচ্ভিউ, সানরাইজ ভিউ- করা হয়। এভ্যালশন ফ্রাকচার অব টিবিয়াল স্পাইন- এসিএল ইনজুরিতে ধরা পড়ে।
এমআরআই: সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পদ্ধতি এসিএল নির্ণয়ের জন্য। সিটি স্ক্যান: সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রদান করে থাকে। আর্থোস্কোপি: এসিএল/পিসিএল আলাদাভাবে ইনজুরি হলে সেক্ষেত্রে খুবই ফলপ্রসু পদ্ধতি।
চিকিৎসা: আঘাতপ্রাপ্ত রোগী সাথে সাথে এলে আংশিক ইনজুরিতে মোটা নিডল দিয়ে রক্ত টেনে বের করা হয়। তারপর লংলেগ ব্যাক স্লাব দিয়ে পায়ের বিশ্রাম ৪ সপ্তাহ দেয়া হয়। তারপর হাঁটু ভাঁজ ও সোজা করার পরামর্শ দেয়া হয়। * ব্যথানাশক ওষুধ, মিনোলাক, ইটোকক্স  ইত্যাদি  দেয়া হয়। * এন্টি আলসারেন্ট -প্যারিসেল, জেলড্রিন ইত্যাদি দেয়া হয়। ৪ সপ্তাহ পর চষধংঃবৎ খুলে ফিজিওথেরাপি দেয়া হয়।
কমপ্লিট বা সম্পূর্ণ ইনজুরি হলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অপারেশন করে রিপেয়ার করা হয়।
সার্জিক্যাল চিকিৎসা: আঘাতপ্রাপ্তির সাথে সাথে এলে প্রাইমারী রিপেয়ার অপারেশন করা হয়। তবে অকৃতকার্য হওয়ার হার খুব বেশী প্রায় ৫০%।

দেরীতে রোগী এলে: রি-এনফোরসমেন্ট অব এসিএল অপারেশন করা হয়, এক্ষেত্রে ইলিও টিবিয়াল ব্যান্ড অথবা সেমিটেন্ডিনিসাস টেনডন ব্যবহার করা হয়।
রিকন্সষ্ট্রাকশন অপারেশন ইন্ট্রা আর্টিকুলার/ এক্সট্রা-আর্টিকুলার এক্ষেত্রে কোয়াড্রিসেপসটেনডন, প্যাটেলার টেনডন অথবা সেমিটেনডিনোসাস টেনডন ব্যবহার করা হয়।
এসিএল ইনজুরি হাঁটুর মারাত্মক লিগামেন্ট ইন্জুরি সাধারণত: যুবক বয়সী খেলোয়াড়দের ক্ষেত্রে বেশী হয়। তাই এর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ। ইমারজেন্সী হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সঠিক চিকিৎসা না করালে মারাত্মক বিপর্যয় নেমে আসে। তাই সাবধান।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top