সকাল ৭:৫৮, মঙ্গলবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ শিক্ষা / সাফল্যের আনন্দে শিশুরা
* জেএসসি-জেডিসির পাশের হার ৯৩.০৬ * প্রাথমিকে পাশের হার ৯৮.৫১, ইবতেদায়ীতে ৯৫.৮৫
সাফল্যের আনন্দে শিশুরা
ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬

চলতি বছরের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় পাসের হার ৯৩.০৬ শতাংশ। জেএসসিতে জিপিএ ফাইভ ২ লাখ ৩৫ হাজার ৫৯ জন, জেডিসিতে পাসের হার ৯৪.০২ শতাংশ, জিপিএ ফাইভ ১২ হাজার ৫২৯ জন; পিইসিতে পাসের হার ৯৮.৫১ শতাংশ, ইবতেদায়ীতে পাসের হার ৯৫.৮৫ শতাংশ, জিপিএ-পাঁচ ৫ হাজার ৯৪৮।  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এ পরীক্ষার ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। একই সময়ে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের অনুলিপি তুলে ধরেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এবার দুই পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২৩ লাখ ৪৬ হাজার ৯৫৯ জন। এরমধ্যে পাস করেছে ২১ লাখ ৮৩ হাজার ৯৭৫ জন। এবারে ৯ হাজার ৪৫০টি প্রতিষ্ঠান থেকে সব শিক্ষার্থী পাস করেছে। গতবারের চেয়ে এবার ৮৬৭টি প্রতিষ্ঠানে শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে। অন্যদিকে শূন্য পাস করা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৮। গতবার এই সংখ্যাটি ছিল ৪৩। শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, শুধু আট বোর্ডের অধীন জেএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৯২.৮৯ শতাংশ। এই পরীক্ষায় জিপিএ ফাইভ পেয়েছে ২ লাখ ৩৫ হাজার ৫৯ জন পরীক্ষার্থী। মোট পরীক্ষার্থী ছিল ১৯ লাখ ৯৩ হাজার ৬১৯ জন। এরমধ্যে পাস করেছে ১৮ লাখ ৫১ হাজার ৪৯৬ জন। এবার জেএসসি পরীক্ষায় বিদেশের আটটি কেন্দ্রে ৬২৬ জন পরীক্ষা দিয়েছি
এরমধ্যে পাস করেছে ৬২৩ জন শিক্ষার্থী অর্থাৎ বিদেশের কেন্দ্রে পাসের হার ৯৯.৫২। এ বছর ৯ হাজার ৪৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে। গত ১ থেকে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা হওয়ার কথা থাকলেও দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে ৬ নভেম্বরের জেএসসির বরিশাল, চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা বোর্ড এবং জেডিসির সারা দেশের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। জেএসসির স্থগিত পরীক্ষা ১২ নভেম্বর এবং জেডিসির পরীক্ষা হয় ১৯ নভেম্বর নেওয়া হয়।২০১৫ সালে এ পরীক্ষায় আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে জেএসসিতে ৯২ দশমিক ৩১ শতাংশ এবং মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে জেডিসিতে ৯২ দশমিক ৪৬ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল।

বিদেশের ৮ কেন্দ্রে পাস ৯৯.৫২
জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় বিদেশের আটটি কেন্দ্রের ৯৯ দশমিক ৫২ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে, জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮৪ জন। গত বছর বিদেশের কেন্দ্র থেকে ৯৮ দশমিক ২১ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল। সেই হিসাবে এবার বিদেশ কেন্দ্রে পাসের হার বেড়েছে ১ দশমিক ৩১ শতাংশ পয়েন্ট। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষার ফলাফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। এবার দেশের বাইরের আটটি কেন্দ্রে ৬২৬ জন শিক্ষার্থী জেএসসিতে অংশ নেয়। তাদের মধ্যে পাস করেছে ৬২৩ জন। ছয়টি কেন্দ্রের শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে। জেএসসি-জেডিসিতে এবার সম্মিলিতভাবে ৯৩ দশমিক ০৬ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে, এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে দুই লাখ ৪৭ হাজার ৫৮৮ জন।

প্রাথমিকে পাশের হার ৯৮.৫১, ইবতেদায়ীতে ৯৫.৮৫
পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় ৯৮ দশমিক ৫১ শতাংশ ও ইবতেদায়ীতে ৯৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে এ বছর। এর মধ্যে প্রাথমিকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ লাখ ৮১ হাজার ৮৯৮ জন। আর ইবতেদায়ীতে ৫ হাজার ৯৪৮ জন। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার  বৃহস্পতিবার গণভবনে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলের অনুলিপি হস্তান্তর করেন। দুপুর ১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এবারের ফলাফলের বিস্তারিত তুলে ধরেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীর। ২০১৫ সালে এ পরীক্ষায় প্রাথমিকে ৯৮ দশমিক ৫২ শতাংশ ও ইবতেদায়ীতে ৯৫ দশমিক ১৩ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল। এই হিসাবে এবার ইবতেদায়ীতে পাস বাড়লেও প্রাথমিকে সামান্য কমেছে। তবে দুই ক্ষেত্রেই পূর্ণ জিপিএ, অর্থাৎ ৫-এ ৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে এবার। গতবছর প্রাথমিকে ২ লাখ ৭৫ হাজার ৯৮০ জন এবং ইবতেদায়ীতে ৫ হাজার ৪৭৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছিল। চলতি বছর ২০ থেকে ২৭ নভেম্বর সারা দেশে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষায় হয়। প্রাথমিকে ২৮ লাখ ৩০ হাজার ৭৩৪ জন এবং ইবতেদায়ীতে ২ লাখ ৫৭ হাজার ৫০০ জন এ পরীক্ষায় অংশ নেয়।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top