দুপুর ২:৫১, শনিবার, ২২শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / সম্পর্ক এগিয়ে যাক
সম্পর্ক এগিয়ে যাক
এপ্রিল ১২, ২০১৭

প্রায় সাত বছর পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফর করে দেশে ফিরেছেন। সার্বিকভাবে প্রধানমন্ত্রীর এবারের ভারত সফর এবং দুই প্রধানমন্ত্রীর দ্বিপক্ষীয় বৈঠক কূটনৈতিক দিক থেকে বাংলাদেশ-ভারতের সম্পর্ককে আরও নিবিড় করে তুলবে বলে অনেকে আশাবাদ ব্যক্ত করলেও অনেকে আবার মনে করেন কূটনৈতিক দিক থেকে বাংলাদেশের জন্য লাভজনক হলেও দেশের রাজনৈতিক বাস্তবতার বিচারে বর্তমান সরকারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর এবারের ভারত সফর খুব বেশি ইতিবাচক হয়নি। তিস্তার পানি বন্টন এবং গঙ্গা ব্যারেজ নির্মাণের ক্ষেত্রে কোনো সমঝোতা বা চুক্তি না হওয়ায় দেশের মানুষের আশা পূরণ হয়নি। তবে অন্যান্য ক্ষেত্রে রচিত হয়েছে বহুমুখী সম্পর্কের এক সেতুবন্ধন।


 এই সফরকালে দুই দেশের মধ্যে ৬টি চুক্তি ও ১৬টি সমঝোতা স্মারকসহ ৩৪টি দলিল স্বাক্ষরিত হয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রপতি ভবনে রেখে সর্বোচ্চ আতিথ্যের নজির রাখা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর বহুল আলোচিত সফরকালে ভারত বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণদানের ঘোষণা দিয়েছে। ডলারের ঋণ দেবে ভারত। সামরিক কেনাকাটায় দেবে আরো ৫০০ মিলিয়ন ডলার ঋণ। চুক্তি হয়েছে ৩৬টি কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপনে।


 আরো কিছু সীমান্ত হাট চালু করতে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে। কলকাতা-খুলনা-ঢাকা বাস চলাচল, খুলনা-কলকাতা ট্রেন চলাচল ও বাধিকাপুর- বিরল রেললাইন উদ্বোধন হয়েছে। এছাড়া আরো ৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ বাংলাদেশকে দেবে ভারত। আমরা আশা করছি ভারত তিস্তাসহ অভিন্ন সব নদ-নদীর পানি বন্টন সমস্যার দ্রুত সমাধান করে দুই দেশের মধ্যে আস্থার সম্পর্ক তৈরি করতে হবে।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top