দুপুর ১২:২০, শনিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ জাতীয় / শুভ বড়দিন
শুভ বড়দিন
December 24th, 2016

২৫ ডিসেম্বর শুভ বড়দিন। খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। আজ থেকে ২ হাজার ১৬ বছর আগের এই দিনে জন্মগ্রহণ করেন খ্রিস্ট ধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিস্ট। বর্তমান ফিলিস্তিনের বেথলেহেম নামক স্থানে কুমারী মাতার গর্ভে জন্ম নেন তিনি। খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, তিনি ঈশ্বরের ছেলে; পৃথিবীতে শান্তির বাণী ছড়িয়ে দিতে আগমন ঘটেছিল তার। ইসলাম ধর্মাবলম্বীরাও তাকে হজরত ঈসা (আ.) নামে আল্লাহর প্রেরিত নবী হিসেবে মান্য করেন।

বড়দিন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া পৃথক বাণীতে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে সুখী-সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, আবহমানকাল থেকে এ দেশের মানুষ ভালোবাসা ও সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ। যিশুখ্রিস্টের মর্মবাণী সমস্যা সংকুল বিশ্বে শান্তি স্থাপনে খুবই প্রাসঙ্গিক। বাংলাদেশকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এখানে সব ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের নিজস্ব ধর্ম পালনের পূর্ণ স্বাধীনতা রয়েছে। তিনি আশা করেন, বড়দিন দেশের খ্রিস্টান ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি আরও সুদৃঢ় করবে। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বদ দিনের বাণীতে বলেন, শুভ বড়দিন একটি সার্বজনীন ধর্মীয় উৎসব। আর প্রতিটি ধর্মীয় উৎসবের অন্তর্লোক হচ্ছে- সম্প্রীতি, সহাবস্থান ও শুভেচ্ছা। মানুষ হিসেবে আমাদের কর্তব্য দেশ, সমাজ ও মানুষের কল্যাণে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করে যাওয়া। হিংসা-বিদ্বেষ পরিহার হরে সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠা এবং সব ধরণের অন্যায়-অবিচার প্রতিরোধে ব্রতী হওয়া সকলের কর্তব্য। অপর এক বাণীতে খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বী সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীরা আজ আনন্দ আর উপাসনার মধ্য দিয়ে বড়দিন উদযাপন করবে। আজ সরকারি ছুটি। দেশের সব গির্জাসহ খ্রিস্টান পরিবারগুলো ক্রিসমাস ট্রি সাজিয়ে, কেক তৈরি করে ও মোমবাতি জ্বালিয়ে দিনটি উদযাপন করবে। সান্তাক্লজ শিশুদের মধ্যে উপহার বিতরণের মাধ্যমে দিনটি আনন্দে ভরিয়ে তুলবে। এরই মধ্যে দেশের সব গির্জায় বর্ণিল আলোকসজ্জা করা হয়েছে। এসব গির্জার নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ ও র‌্যাব। দেশের বড় হোটেলগুলোতেও বড়দিন পালনে বিশেষ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও, র‌্যাডিসন, ওয়েস্টিন ও ঢাকা রিজেন্সিসহ অন্য হোটেলে বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। হোটেল গুলোর লবিতে শোভা পাচ্ছে ক্রিসমাস ট্রি। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলবে এসব আয়োজন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :