রাত ১০:২৬, বৃহস্পতিবার, ২৩শে মার্চ, ২০১৭ ইং
/ জাতীয় / লাখো মুসল্লির ঢল টঙ্গীতে ৫২তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব আজ শুরু
লাখো মুসল্লির ঢল টঙ্গীতে ৫২তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব আজ শুরু
জানুয়ারি ১৩, ২০১৭


মো: আনোয়ার হোসেন, টঙ্গী (গাজীপুর) : আম বয়ানের মধ্য দিয়ে টঙ্গীর কহর দরিয়া খ্যাত তুরাগ নদের তীরে মুসলিম বিশ্বের বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ ৫২তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব আজ শুক্রবার বাদ ফজর শুরু হয়েছে। পবিত্র হজের পর বিশ্ব মুসলিম জাহানের দ্বিতীয় মহাসমাবেশ এটি। তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত আগামী ১৫ জানুয়ারি রোববার অনুষ্ঠিত হবে। মাঝে দিন বিরতি দিয়ে (১৬, ১৭, ১৮, ১৯) দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা আগামী ২০ জানুয়ারি শুরু হয়ে ২২ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে।

ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের শুভেচ্ছা জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন। কনকনে শীত উপেক্ষা করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণ ইতোমধ্যে ইজতেমাস্থলে আসতে শুরু করেছেন। তারা রেলপথ, সড়ক পথ, নৌপথ এবং অনেকে পায়ে হেঁটে ইজতেমাস্থলে আসছেন। টঙ্গীর যেদিকে চোখ যায় শুধু টুপি-পাঞ্জাবি পড়া মুসল্লিদের দেখা মেলে। ইবাদত-বন্দেগীর মোক্ষম সময় হৃদয়ে ধারণ করে মুসলি¬দের ¯্রােত টঙ্গী অভিমুখে বেড়েই চলছে। এ ¯্রােত থাকবে আখেরি মোনাজাতের আগ পর্যন্ত। ইতিমধ্যে ময়দানে আগত কয়েক লাখ মুসল্লি তাদের নির্ধারিত খিত্তায় অবস্থান নিয়ে ইবাদত বন্দেগীতে মশগুল রয়েছেন।

ইজতেমা ময়দানে দেশের বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত হবে। ৫২তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম ধাপে ২৭টি খিত্তা এবং দ্বিতীয় ধাপে ২৬টি খিত্তা স্থাপন করা হয়েছে। দেশের ৬৪টি জেলার মধ্যে ৩২ জেলার মুসল্লি¬রা এ বছর দুই দফায় ইজতেমায় অংশ নেবেন। প্রথম পর্বে ১৬ জেলা এবং দ্বিতীয় পর্বে ১৬ জেলার মুসল্লি¬রা অংশগ্রহণ করবেন।
এবারের ইজতেমায় বিশ্বের শতাধিক দেশের প্রায় ২৫ হাজার বিদেশী মেহমান আখেরি মোনাজাতে অংশগ্রহণ করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। দেশী-বিদেশী ইসলামী চিন্তাবিদ ও ওলামায়ে কেরামগণ ছয় উসুল যথা-ঈমান, নামাজ, এলেম ও জিকির, একরামুল মুসলিমীন, তাসহীহে নিয়ত, দাওয়াত ও তাবলীগ সম্পর্কে বিভিন্ন দিক-নির্দেশনামূলক মূল্যবান বয়ান রাখবেন। মূল বয়ান সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন ভাষায় তরজমা করা হবে। আজ শুক্রবার বাদ ফজর থেকে আম বয়ান শুরু হলেও  বৃহস্পতিবার বাদ আসর থেকেই খিত্তায় অবস্থানকারী মুসল্লিদের উদ্দেশে বয়ান শুরু হয়েছে। আগত মুসল্লিদের সুষ্ঠুভাবে বয়ান শোনার জন্য পুরো মাঠে শব্দ প্রতিধ্বনী রোধক প্রায় ১৮০টি বিশেষ ছাতা মাইকসহ ৩৮০ মাইক স্থাপন করা হয়েছে। ইজতেমা ময়দানে মুসল্লিদের অবাধ প্রবেশ নিশ্চিত করতে সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের সদস্যরা তুরাগ নদে ৭টি ভাসমান পন্টুন সেতু নির্মাণ করেছেন।

ইজতেমার সার্বিক কার্যক্রম মনিটরিং করতে গাজীপুর সিটি করপোরেশন, জেলা প্রশাসন, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ও ভিডিপির জন্য ৫টি কন্ট্রোল রুম স্থাপন করেছে। ইজতেমায় আগত দেশী-বিদেশী মুসল্লিদের স্বাগত জানিয়ে ১০টি তোরণ, নিরাপত্তার জন্য র‌্যাবের ৯টি ও পুলিশের ৫টিসহ মোট ১৪টি ওয়াচ টাওয়ার, ইজতেমায় নিয়োজিত নিরাপত্তা সদস্যদের জন্য ১৫৪টি অস্থায়ী টয়লেট নির্মাণ করা হয়েছে। ২৪টি ফগার মেশিনের মাধ্যমে মশক নিধন কার্যক্রম গ্রহণ, ইজতেমা কর্তৃপক্ষের চাহিদা মোতাবেক ১০০ ড্রাম ব্লিচিং পাউডার সরবরাহসহ ইজতেমা চলাকালে ২৫টি গার্বেজ ট্রাকের মাধ্যমে দিন-রাত বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম নিশ্চিত করা হয়েছে।

এবারের বিশ্ব ইজতেমায় প্রথম দফায় ১৬টি জেলার মুসল্লিরা অংশগ্রহণ করবেন। প্রথমবারে অংশ নেয়া জেলা ও খিত্তা নম্বরগুলো হলো-ঢাকা জেলার (খিত্তা নং-১, ২, ৩, ৪, ৫), টাঙ্গাইল (খিত্তা নং-৬, ৭, ৮), ময়মনসিংহ (খিত্তা নং-৯, ১০, ১১), মৌলভীবাজার (খিত্তা নং-১২), বি, বাড়ীয়া (খিত্তা নং-১৩), মানিকগঞ্জ (খিত্তা নং-১৪), জয়পুরহাট (খিত্তা নং-১৫), চাপাই নবাবগঞ্জ (খিত্তা নং-১৬), রংপুর (খিত্তা নং-১৭), গাজীপুর (খিত্তা নং-১৮, ১৯), রাঙ্গামাটি (খিত্তা নং-২০), খাগড়াছড়ি (খিত্তা নং-২১), বান্দরবান (খিত্তা নং-২২), গোপালগঞ্জ (খিত্তা নং-২৩), শরীয়তপুর (খিত্তা নং-২৪), সাতক্ষীরা (খিত্তা নং-২৫), যশোর (খিত্তা নং-২৬,২৭)। তবে ঢাকা জেলার মুসল্লি¬রা ইজতেমার দুই পর্বেই অংশ
নেবেন। এদিকে মুসল্লি¬দের সুবিধার্থে ময়দানের উত্তর দিক থেকে ক্রমানুসারে দক্ষিণ দিকে খিত্তার নম্বর বসানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, স্থানীয় সংসদ সদস্য মো. জাহিদ আহসান রাসেল, ঢাকা রেঞ্জ ডিআইজি এসএম মাহফুজুল হক নুরুজ্জামান, জেলা পুলিশ সুপার মো. হারুন-অর-রশিদ ইজতেমা ময়দান পরিদর্শন করেছেন। পরিদর্শন শেষে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান হামদর্দ ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প উদ্বোধনের সময় তিনি হামদর্দের মতো মানব সেবায় এগিয়ে আসার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে গাজীপুর পুলিশ সুপার মোঃ হারুন-অর-রশিদ জানান, ইজতেমা মাঠের নিরাপত্তার জন্য ৫ স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে।
বিকেলে বিশ্ব ইজতেমা ময়দান পরিদর্শন করেন র‌্যাবের মহাপরিচালক মো. বেনজীর আহমেদ। পরে তিনি ময়দানের উত্তর পাশে মন্নু টেক্সটাইল মিলের মাঠে স্থাপিত র‌্যাবের কন্ট্রোল রুমের পাশে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে বলেন, বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে আগত দেশ-বিদেশের মুসল্লি¬দের নিরাপত্তা বিধানে র‌্যাবের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ময়দানে কোন ধরনের জঙ্গি হামলা বা নাশতকার কোন আশঙ্কা নেই। তবে যে কোন পরিস্থিতি মোকাবিলায় র‌্যাব সদস্যরা প্রস্তুত রয়েছে।

ইজতেমায় এক মুসল্লির ১ মৃত্যু
টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি :  টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমায় ময়দানে  মো: ফজলুল হক (৫৬) নামের এক মুসল্লি¬র মৃত্যু হয়েছে। তিনি ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলার মারুয়া আহম্মদ আলীর ছেলে। মৃতের লাশ নামাজে জানাজা শেষে  গ্রামের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।


খালেদা জিয়ার বাণী
বিশ্ব ইজতেমা উপলক্ষে দেশবাসীসহ মুসলিম বিশ্বের শান্তি ও কল্যাণ কামনা করে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।  বৃহস্পতিবার এক বাণীতে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, টঙ্গীতে তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমা বিশ্ব মুসলমানের দ্বিতীয় বৃহত্তম জমায়েত। মোমিন-মুসলমানদের এই ঐতিহাসিক জমায়েত উপলক্ষে আমি আল্লাহ’র দরবারে দোয়া করছি-বিশ্বের সকল মানুষ যেন সংঘাত ও হানাহানি থেকে মুক্ত হয়ে সুখি ও আনন্দময় জীবন-যাপন করতে পারেন। আজ সারাবিশ্বে অন্যান্য জাতি-গোষ্ঠী, ধর্মসম্প্রদায় এবং বিশেষভাবে মুসলমানদের ওপর চলছে অবর্ণনীয় জুলুম-নির্যাতন। মুসলিম রোহিঙ্গাদের জানমালের নিরাপত্তা এবং তারা যেন নিজ গৃহে শান্তিতে বসবাস করতে পারে, সেজন্য মহান রাব্বুল আল-আমিনের দরবারে মোনাজাত করছি।  এদিকে, অপর এক বাণীতে বিশ্ব ইজতেমার সার্বিক সাফল্য কামনা করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 

 

 

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top