সকাল ১০:২৯, সোমবার, ১লা মে, ২০১৭ ইং
/ বরিশাল / রাণীনগরে ধানের পাশাপাশি খিরা চাষে ঝুঁকছে কৃষক
রাণীনগরে ধানের পাশাপাশি খিরা চাষে ঝুঁকছে কৃষক
মার্চ ২০, ২০১৭

রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি : অল্প খরচে কম সময়ে অধিক লাভজনক হওয়ায় ধান চাষের পাশাপাশি রাণীনগরে প্রান্তিক পর্যায়ের চাষিরা বোরো ধান চাষের খরচ যোগাতে খিরা চাষে ঝুঁকে পড়ছে কৃষক। বাজার মূল্য ভালো এবং চাহিদা বেশি থাকায় ক্ষেতের জমিতেই পাইকারি দরে চাষিরা খিরা বিক্রি করতে পারায় বেশ লাভবান হচ্ছে। আবহাওয়া অনুকূলে ও রোগবালাই কম হওয়ায় খিরার আবাদ গত বছরের তুলনায় ভালো হওয়ায় বোরো ধান কিছুটা কমিয়ে খিরা চাষ করছে কৃষকরা।

জানা গেছে, উপজেলার কাশিমপুর ইউনিয়নের কুজাইল এলাকায় গত বছর শীতের সময়  বোরো মৌসুমে বেশ কিছু চাষি তাদের ফসলি জমিতে বোরো ধান চাষ কিছুটা কমিয়ে দিয়ে অধিক লাভের আশায় খিরা চাষ করে। ভালো লাভ হওয়ায় এলাকার কয়েকটি ইউনিয়নে এ বছর প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকরা প্রায় ৬০ হেক্টর জমিতে খিরা চাষ করেছে। উপজেলার কুজাইল, কাশিমপুর, ভবানীপুর, ডাঙ্গাপাড়াসহ  বেশ কিছু এলাকার মাঠে এখন সবুজ রঙের খিরা ক্ষেত। কৃষকরা স্থানীয় হাট বাজার থেকে খিরার বীজ কিনে জমিতে বপন করার পর থেকেই আবহাওয়া অনুকূলে থাকা, খিরা ক্ষেতের নিবিড় পরিচর্চা ও স্থানীয় কৃষি অফিসের পরামর্শে কীটনাশক প্রায়োগে রোগবালাই কম হওয়ায় এ বছর খিরার ভালো ফলন হয়েছে। উপজেলার কুজাইল গ্রামের রকিব উদ্দিন জানান, বোরো ধানের পাশাপাশি ৫ বিঘা জমিতে খিরার আবাদ করেছে। ফলন ভালো ও চাহিদা বেশি থাকায় প্রতি মণ খিরা জমি থেকেই ৮শ’ টাকা দরে পাইকারি বিক্রি হচ্ছে। তিনি আশা করছেন আগামী সপ্তাহের মধ্যে জমিতে খিরা তোলা শেষ করে আগাম জাতের আউশ ধানের চাষ করবেন। খিরার ফলন ভালো হওয়ায় এ বছর লাভও ভালো হবে বলে আশা করছেন তিনি। 

উপজেলা কৃষি অফিসার এস এম গোলাম সারওয়ার জানান, রাণীনগর উপজেলায় কৃষকরা ধান চাষে বেশি আগ্রহী। কিন্তু কাটা মাড়াই মৌসুমে চাষিরা ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় দিনদিন ধান চাষের পাশাপাশি অন্যান্য শাক-সবজির আবাদ করছে। এ বছর উপজেলার কৃষকরা কম বেশি উঁচু জমিতে খিরার আবাদ করেছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় খিরার ভালো ফলন হয়েছে। অল্প খরচে ভালো লাভ হওয়ার কারণে উপজেলার কৃষকরা খিরা চাষের প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠছে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top