সকাল ৬:১১, সোমবার, ২৯শে মে, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী / রাজশাহীতে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন হলো পাঁচ জঙ্গির মরদেহ
রাজশাহীতে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন হলো পাঁচ জঙ্গির মরদেহ
মে ১৩, ২০১৭

রাজশাহী অফিস: রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বেনীপুর গ্রামের জঙ্গি আস্তানায় নিহত পাঁচ জঙ্গির মরদেহ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে রাজশাহী নগরীর হেতেমখাঁ কবরস্থানে ৫জনকে দাফন করা হয়। পরিবারের পক্ষ থেকে মরদেহ গ্রহণ করতে অস্বিকৃতি জানানোর কারণে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে তাদেরকে দাফন করা হয়েছে। এর আগে শনিবার বেলা ১২টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে মরদেহগুলো দাফনের জন্য কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) আব্দুর রাজ্জাক খান জানায়, নিহতদের পরিবারের কাছে মরদেহগুলো নেওয়ার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল। তারা মরদেহ নিতে রাজি হননি। কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের রাজশাহী কার্যালয়ের অর্গানিয়ার এনায়েত কবির মিলন বলেন, দুপুরে তারা মরদেহগুলো বুঝে পান। তাদের ব্যবস্থাপনাতেই নিহত পাঁচ জঙ্গির মরদেহ দাফন করা হয়েছে। এসময় গোদাগাড়ী থানার পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. এনামুল হক জানিয়েছেন, রাজশাহীর গোদাগাড়ীর বেনীপুরে জঙ্গি আস্তানায় নিহত ৫ জঙ্গির দুজন বোমা বিস্ফোরণে নিহত হয়েছে। এদের মধ্যে আল আমিন বোমা বহনকারি ছিলো বলে ধারণা করা হচ্ছে। শনিবার দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে দ্বিতীয়বারের মত মরদেহ দেখে এমন তথ্য দেন ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক ডা. এনামুল হক। এর আগে ময়নাতদন্ত শেষে শুক্রবার রাতে তিনি বলেছিলেন ৫জনই বোমা বিস্ফোরনে মারা গেছে।

ডা. এনামুল হক জানান, ঐ বাড়ির মালিক সাজ্জাদ হোসেন পুলিশের গুলিতে মারা গেছেন। তার স্ত্রী বেলি ও মেয়ে কারিমার শরীরে বোমা ও গুলির চিহ্ন রয়েছে। সাজ্জাদের ছেলে আল আমিন ও জঙ্গি নেতা আশরাফুল মারাগেছে বোমার আঘাতে।

উল্লেখ্য, রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বেনীপুর গ্রামে বৃহস্পতিবার জঙ্গি আস্তানায় পুলিশের অভিযানকালে ৪জনসহ ৫ জঙ্গি নিহত হয়। অভিযানে জঙ্গিদের হামলায় আব্দুল মতিন নামে ফায়ার সার্ভিসের এক নিহত হয়েছে। বুধবার রাত থেকে পুলিশ অযিান শুরু করে। শুক্রবার দুপুরে অভিযানের সমাপ্তি হয়।  

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top