সকাল ১০:৪৬, শুক্রবার, ২৮শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী / মান্দায় ধর্ষণের শিকার বাক প্রতিবন্ধী যুবতীর আত্মহত্যা
মান্দায় ধর্ষণের শিকার বাক প্রতিবন্ধী যুবতীর আত্মহত্যা
এপ্রিল ২০, ২০১৭

মান্দা (নওগাঁ) প্রতিনিধি :নওগাঁর মান্দায় ধর্ষণের শিকার কোহিলী খাতুন (২১) নামে বাকপ্রতিবন্ধী এক যুবতী ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার ভারশোঁ ইউনিয়নের মহানগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত কোহিলী ওই গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

নিহত কোহিলীর ইশারা-ইঙ্গিতের উদ্ধৃতি দিয়ে স্থানীয়রা জানান, গত বুধবার বিকেলে বাড়িতে একা অবস্থান করছিল কোহিলী। এ সময় গামছা দিয়ে মুখ ঢেকে তিন যুবক ওই বাড়িতে প্রবেশ করে। বখাটে যুবকরা তাকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। এলাকা নির্জন হওয়ায় ঘটনার বিষয়ে তারা কিছুই জানতেন না। পরে কোহিলী বাড়ি থেকে পালিয়ে পূর্বদিকে ইব্রাহীমের বাড়ির খলিয়ানে পৌঁছে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।

স্থানীয়রা আরও জানান, জ্ঞান ফিরে পাবার পর আকার ইঙ্গিতে তিন যুবক বাড়িতে প্রবেশের বিষয়টি প্রকাশ করে কোহিলী। হাতের ইশারায় জানানো হয় পাশবিক নির্যাতনের বিষয়টিও।  কোহিলীর চাচা মতিউর রহমান জানান, নখের একাধিক আঁচড়ের চিহ্ন পাওয়া গেছে তার গলায়। ক্ষত স্থান দিয়ে রক্ত ঝরতে দেখেছেন তিনি।  
নিহতের বাবা আব্দুল মান্নান জানান, বুধবার বিকেল ৩টার দিকে কোহিলীকে বাড়িতে একা রেখে ছোট মেয়ে তিথি খাতুনকে নেওয়ার জন্য মহানগর বালিকা বিদ্যালয়ে যান। পরে তিথিকে নিয়ে দেলুয়াবাড়ি বাজারে কোহিনুর মার্কেটে প্রাইভেট শিক্ষকের নিকট রেখে হালকা কেনাকাটা করেন। বিকেল ৫টার দিকে বাড়ি ফেরার পথে মহানগর বাঁশতলার মোড়ে পৌঁছে ঘটনার বিষয়ে তিনি জানতে পারেন। জিজ্ঞাসাবাদে মেয়ে কোহিলী হাতের তিন আঙ্গুল দেখিয়ে বাড়িতে তিন যুবকের প্রবেশের বিষয়টি আকার-ইঙ্গিতে নিশ্চিত করে।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিছুর রহমান ধর্ষণের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। তিনি বলেন, ময়না তদন্তের রিপোর্ট পেলেই সব বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যাবে। ঘটনায় থানায় একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে বলে তিনি জানান। মান্দা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার হাফিজুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top