সন্ধ্যা ৭:১২, বুধবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / বছরে ক্যান্সারে মারা যায় দেড় লাখ
বছরে ক্যান্সারে মারা যায় দেড় লাখ
February 17th, 2017

দেশে ক্যান্সারের চিকিৎসা এখনও অপ্রতুল। চিকিৎসকদের দক্ষতা বৃদ্ধি পেলেও অপর্যাপ্ত অবকাঠামো ও মেডিক্যাল উপকরণ ব্যয়বহুল হওয়ায় ব্যাহত হচ্ছে ক্যান্সারের চিকিৎসা। দেশে ক্যান্সার বিশেষজ্ঞরা জানান, বাংলাদেশে সব মিলিয়ে ক্যান্সার রোগীর সংখ্যা প্রায় ১২ লাখ। প্রতি বছর প্রায় তিন লাখ মানুষ নতুন করে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। আর বছরে মারা যায় প্রায় দেড় লাখ রোগী।

 সরকারি বেসরকারি পর্যায়ের বিদ্যমান ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দেশে বছরে ৫০ হাজার রোগীকে চিকিৎসা সেবার আওতায় নিয়ে আসা গেলেও আড়ালে থেকে যায় আরও প্রায় আড়াই লাখ রোগী। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে জনসংখ্যা অনুপাতে বর্তমানে দেশে সব ধরনের সুবিধাসংবলিত ১৬০টি ক্যান্সার চিকিৎসা কেন্দ্র থাকা অপরিহার্য। কিন্তু বাংলাদেশে এখন কেন্দ্রের সংখ্যা আছে মাত্র ১৫টি।

 আবার এর সবই কার্যকর নয়। বেশির ভাগই চলছে জোড়াতালি দিয়ে। এ ছাড়া সারা দেশে ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সংখ্যা মাত্র ৮৫ জন। ব্যয়বহুল অপর্যাপ্ত অবকাঠামো ও মেডিক্যাল উপকরণের কারণে ব্যাহত হয় ক্যান্সারের চিকিৎসা। চিকিৎসা করতে না পেরে অকালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে অনেক রোগী। এই চিকিৎসা ব্যয়বহুল হওয়ার কারণে বিশ্বে সব জায়গায় যাদের অর্থ আছে তারা সরকারের সাথে সাহায্য করে।

 দেশের জনসংখ্যা বাড়ার হারের সঙ্গে ক্যান্সার রোগের প্রকোপ বাড়ছে। এ ক্ষেত্রে সবার আগে সবাইকে সচেতন হওয়া দরকার। যাতে করে ক্যান্সারে আক্রান্ত না হতে পারে। দেশে ক্যান্সারের চিকিৎসা ও চিকিৎসকের ওপর আস্থাহীনতার কারণে প্রতি বছর দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে বিপুল অংকের টাকা। ধারণা করা যাচ্ছে দেশে বর্তমানে মোট ক্যান্সার রোগীর সংখ্যা প্রায় ১৬ লাখ। প্রতি বছর কমপক্ষে ১০ হাজার রোগী দেশের বাইরে যায় চিকিৎসা করাতে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :