রাত ১:২৫, বৃহস্পতিবার, ২৮শে জুন, ২০১৭ ইং
/ রাজনীতি / ফখরুলে গাড়িবহরে হামলা
* প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ আজ * বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নিন্দার ঝড়
ফখরুলে গাড়িবহরে হামলা
জুন ১৮, ২০১৭

পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত রাঙামাটি পরিদর্শনে যাওয়ার পথে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটেছে।  রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইছাখালী এলাকায় এই হামলার ঘটনা ঘটে। এতে মির্জা ফখরুল ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী আঘাত পেয়েছেন। হামলার প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক ভাবে দেশের বিভিন্নস্থানে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি এবং তার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। আজ দেশব্যাপি বিএনপি বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।   

হামলার ঘটনা প্রসঙ্গে গাড়ি বহরে থাকা আমির খসরু বলেন, বিএনপির মহাসচিবের নেতৃত্বে তাদের সাত সদস্যের প্রতিনিধি দল সকালে চট্টগ্রাম থেকে সড়কপথে কাপ্তাইয়ের পথে রওনা হন। সেখান থেকে নৌপথে তাদের রাঙামাটি যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাঙ্গুনিয়ার ইছাখালী এলাকায় পৌঁছালে একদল লোক রড ও দা নিয়ে আমাদের গাড়ি বহরে হামলা চালায়। তারা বৃষ্টির মতো পাথর মারছিল। আমাদের গাড়ি চুরমার করে ফেলেছে। গাড়ির কাঁচ ভেঙে শরীরে লেগে নিজে আহত হয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের হাছান মাহমুদের লোকজন এই হামলা চালিয়েছে বলে আমাদের ধারণা। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম এই প্রতিনিধি দলে ছিলেন। হামলার পর রাঙামাটি যেতে না পেরে বিএনপির প্রতিনিধি দলের সদস্যরা চট্টগ্রামের দিকে রওনা হন। পরে দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন তারা।  

অস্বীকার হাছান মাহমুদের
বিএনপির গাড়ি বহরে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় এমপি হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর রাঙামাটি যাওয়ার পথে ইছাখালী এলাকায় তাদের গাড়ির ধাক্কায় স্থানীয় দুইজন আহত হয়। এতে বাসিন্দারা ক্ষুব্ধ হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তবে এ ঘটনা অনভিপ্রেত। আহত দুই স্থানীয় বাসিন্দা রাঙ্গুনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে হাছান মাহমুদ জানান। তিনি দাবি করে বলেন, তার লোকজন হামলা চালিয়েছে বলে যে অভিযোগ বিএনপি নেতারা করেছেন, তা সঠিক নয়। ওই এলাকার সব মানুষ আমার ভোটার। স্থানীয়রা ক্ষুব্ধ হয়ে এই ঘটনা ঘটিয়েছে, এতে আওয়ামী লীগের কেউ জড়িত না। ঘটনার পর পুলিশি নিরাপত্তায় বিএনপি প্রতিনিধি দলকে রাঙামাটি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলা হলেও তারা সেখানে যাননি দাবি করে হাছান মাহমুদ বলেন, তারা চট্টগ্রামে ফিরে এসে সংবাদ সম্মেলন করেছেন, এটা রহস্যজনক।

প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ আজ
পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত রাঙামাটি পরিদর্শনে যাওয়ার পথে চট্টগ্রামে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের গাড়িবহরে হামলার প্রতিবাদে আজ সোমবার দেশজুড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি। রাজধানী ঢাকার থানায় থানায় এবং সারাদেশের মহানগরী, বিভাগীয় শহর, জেলা ও উপজেলায় এই কর্মসূচি পালিত হবে। রোববার দুপুরে কুমিল্লার কান্দিরপাড়ে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে দলের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। একটি মামলায় স্থানীয় আদালতে হাজিরা দেওয়ার পর রিজভী হামলার ঘটনার তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানাতে এই সংবাদ সম্মেলন করেন। তিনি বলেন, এই হামলা গণতন্ত্রের প্রতি অশনি সংকেত। বিরোধী দলের নেতারা যাতে পার্বত্য জেলায় পাহাড় ধসে সরকারের ব্যর্থতা সরজমিনে না দেখতে পারে, সেজন্য বিএনপি মহাসচিবসহ নেতৃবৃন্দের ওপর এই জঘন্যতম হামলা চালানো হয়েছে। এ সময় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া, কেন্দ্রীয় নেতা অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে, হামলার প্রতিবাদে আজ দেশের সকল জেলা ও মহানগরে যুবদলও বিক্ষোভ করবে।

হামলার প্রতিবাদে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ
মির্জা ফখরুলের ওপর হামলার প্রতিবাদে রাজধানীর নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি। দক্ষিণের সভাপতি হাবিব-উন-নবী খান সোহেল মিছিলে নেতৃত্ব দেন। তবে মিছিলটি কার্যালয় থেকে শুরু হয়ে কিছুদূর অগ্রসর হলে পুলিশ চারদিক থেকে মিছিলটির ওপর হামলা চালায় এবং বেপরোয়া লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ বিএনপির। এ সময় মিছিল থেকে পল্টন থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সম্পাদক বাবলু, মুন্না, মতিঝিল থানা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা রবিনসহ ৫/৬ জন নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায় পুলিশ। মিছিলে আরো উপস্থিত ছিলেন- স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি শফিউল বারী বাবু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। এছাড়া হামলার প্রতিবাদে যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নীরব ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর নেতৃত্বেও ঢাকায় বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। বিএনপি মহাসচিবের ওপর হামলার প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেঁধে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল করেছে নারায়ণগঞ্জ যুবদল। বিকেলে শহরের চাষাঢ়া প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত মিছিলে নেতৃত্ব দেন মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নিন্দা
বিএনপির মহাসচিবের ওপর হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। এক বিবৃতিতে সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন ও সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন এ নিন্দা জানান। এছাড়া এ ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিবৃতি দিয়েছেন ২০ দলীয় জোট শরিক জাগপার সভানেত্রী রেহেনা প্রধান ও সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, খেলাফত মজলিসের আমীর মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব আহমদ আবদুল কাদের, বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি ও মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, এনপিপির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ ও মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, ডেমোক্রেটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, এনডিপির চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা প্রমুখ। এছাড়া যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভুইয়া জুয়েল, ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসানও নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছেন।

 

 

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top