রাত ১:৫৫, রবিবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ রাজনীতি / প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের দেখতে যাওয়ায় খুশি ফখরুল
প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের দেখতে যাওয়ায় খুশি ফখরুল
সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেখতে যাওয়ায় খুশি বিএনপি। তবে রোহিঙ্গাদের ওপর হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় জাতীয় সংসদে নিন্দা প্রস্তাব না আনায় সরকারের সমালোচনা করেছে দলটি। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দশম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী যুবদল আয়োজিত এক আলোচনা সভায় দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর রোহিঙ্গাদের দেখতে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারাবিশ্ব প্রতিবাদে সোচ্চার হলেও এরা (সরকার) এখনো দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছে। আমরা কিছুটা খুশি, দেরিতে হলেও তিনি (প্রধানমন্ত্রী) রোহিঙ্গাদের দেখতে এবং ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করতে গেছেন। এতোদিনে বোধোদয় হয়েছে। তবে এখনো পুরোপুরি বোধোদয় হয়নি, সুযোগ পেলেই বিএনপিকে দোষারোপ করে বসেন। গত সোমবার জাতীয় সংসদে নেয়া প্রস্তাবের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, পার্লামেন্টে (জাতীয় সংসদে) আপনারা (সরকার) প্রস্তাব (রেজুলেশন) নিয়েছেন যে, রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য মিয়ানমারকে চাপ দিতে হবে। কিন্তু মিয়ানমার যেভাবে গণহত্যা চালাচ্ছে, সুপরিকল্পিতভাবে একটি জাতিকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়ার জন্য কাজ করছে- তার জন্য কোনো নিন্দা জানান নাই। সেজন্য এই সভা থেকে আমরা নিন্দা জানাচ্ছি। মিয়ানমার সীমান্তে দুই দেশের যৌথ অভিযান করার প্রস্তাবের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন- বিএনপি নয়, বরং আওয়ামী লীগই রোহিঙ্গা ইস্যুতে রাজনীতি করতে চায়।

সেজন্য এখন তারা (সরকার) মিয়ানমারের সীমান্ত রক্ষীবাহিনী ও বাংলাদেশের বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) যৌথভাবে টহল দিয়ে অভিযান চালানোর প্রস্তাব দিচ্ছে। কোথায়, কার বিরুদ্ধে এ অভিযান চালানো হবে? যাদের হত্যা-ধর্ষণ করা হচ্ছে, যাদের শিশুদের মেরে ফেলা হচ্ছে, গ্রামের পর গ্রাম আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে-তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে? সেখানে বিজিবি থাকবে?

মিয়ানমার সীমান্তে মাইন পোতা ও বাংলাদেশের আকাশসীমা লঙ্ঘনের ঘটনায় সরকারের নিরব ভূমিকার সমালোচনা করেন মির্জা ফখরুল। বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ওপর বর্তমান সরকারের দমন-পীড়নের বিরুদ্ধে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বানও জানান বিএনপি মহাসচিব। যুবদল সভাপতি সাইফুল আলম নিরবের সভাপতিত্বে এবং সিনিয়র যুগ্ম-সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়নের পরিচালনায় এতে আরো বক্তব্য রাখেন-বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, বরকতউল্লাহ বুলু, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, আবদুস সালাম আজাদ, যুবদলের সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, মোরতাজুল করীম বাদরু, মামুন হাসান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top