রাত ৮:৩৯, শুক্রবার, ২১শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / নির্বাচনী রোডম্যাপ
নির্বাচনী রোডম্যাপ
জুলাই ১৭, ২০১৭

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতির অংশ হিসাবে কর্মপরিকল্পনা বা রোডম্যাপ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। নির্বাচনের দেড়বছর আগে উন্মোচন করা এ রোডম্যাপে নির্বাচনের প্রস্তুতিমূলক বিষয়গুলো কখন কিভাবে বাস্তবায়ন করা হবে তা উল্লেখ করা হয়েছে। প্রভাবমুক্তভাবে আগামী একাদশ সংসদ নির্বাচন আয়োজনের ঘোষণা দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে, এম নুরুল হুদা বলেন, আগামী নির্বাচন হবে সরকার, রাজনৈতিক দল বা দেশি-বিদেশি সংস্থার প্রভাবমুক্ত ও অংশগ্রহণমূলক।

 এই রোডম্যাপ ধরে ধারাবাহিকভাবে রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞসহ বিভিন্ন নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন কমিশন। রোববার রাজধানীতে নির্বাচন প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট ভবনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আগামী নির্বাচনের এই কর্মপরিকল্পনা বা রোডম্যাপ প্রকাশ করা হয়। কর্মপরিকল্পনা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের লক্ষ্যে ৭টি করণীয় বিষয় নির্ধারণ করা হয়েছে। এসবের মধ্যে রয়েছে নির্বাচন কমিশনের আইনী কাঠামো সমূহ পর্যালোচনা ও সংস্কার।

 নির্বাচন প্রক্রিয়া সহজ ও যুগোপযোগী করতে সংশ্লিষ্ট সবার পরামর্শ গ্রহণ, সংসদীয় এলাকার নির্বাচনী সীমানা পুনর্নির্ধারণ, নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়ন ও সরবরাহ, বিধি অনুসারে ভোটকেন্দ্র স্থাপন এবং নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন এবং নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের নিরীক্ষা। তবে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি জানিয়েছেন ক্ষমতার বাইরে থাকা রাজনৈতিক দলগুলোর প্রকাশ্যে বা ঘরোয়া সভা-সমাবেশ করার ক্ষেত্রে বাধা দূর করার কোন দায়িত্ব নির্বাচন কমিশন (ইসি) নেবে না। রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ কোথায়, কারা বৈঠক করতে পারেনি সেটা সরকারের বিষয়।

 কমিশনের এ বার্তা রাজনৈতিক অঙ্গনে সমাদৃত হবে না। আমরা চাই, বর্তমান ইসি সততা, নিরপেক্ষতা ও দক্ষতা প্রমাণে তাদের সর্বোচ্চ আন্তরিকতা প্রদর্শন করবে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানে কমিশনের প্রতি সরকারের সহযোগিতা থাকবে আমরা সে আশাই করতে চাই। দেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রেও সহযোগিতার প্রয়োজন হবে।

 

এই বিভাগের আরো খবর



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top