বিকাল ৫:৫৭, রবিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ রাজনীতি / দেশব্যাপী বিক্ষোভে পুলিশী হামলার অভিযোগ বিএনপির
দেশব্যাপী বিক্ষোভে পুলিশী হামলার অভিযোগ বিএনপির
জানুয়ারি ৮, ২০১৭

দেশব্যাপী দলের বিক্ষোভ কর্মসূচি বানচাল করতে পুলিশী হামলা ও তান্ডবের অভিযোগ করেছে বিএনপি। দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, সকাল থেকেই ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচিতে হামলা ও তান্ডব চালায় এবং ব্যাপক বাধা দেয়। এছাড়া কর্মসূচিকে ঘিরে গত শনিবার থেকেই পুলিশ নেতা-কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে হানা দেয় এবং বেশকিছু সংখ্যক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে।

রোববার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন এসব কথা বলেন তিনি। বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বাধা দেয়ার অভিযোগ করে রিজভী বলেন, কর্মসূচি পালনকালে ঢাকা মহানগরসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পুলিশ বিএনপির ৭ জনের অধিক নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে। এছাড়া পুলিশ ও ছাত্রলীগ-যুবলীগের হামলায় ৭ জনের অধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। সারাদেশে দলের কর্মসূচি পালিত হলেও ঢাকা মহানগরে না হওয়াটা তাদের ব্যর্থতা কিনা, জানতে চাইলে বিএনপির সিনিয়র এ যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, মহানগর যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। মিছিলের আওয়াজ শুনলেই যেখানে গুলি ও বাসায় গিয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে, সেখানে তারা যেভাবে আন্দোলন করছেন তাতে ঢাকা মহানগর বিএনপিকে ব্যর্থ বলার সুযোগ নেই। ডিক্টেটরের বিরুদ্ধেও বিনা অস্ত্রে এক ধরণের গণতান্ত্রিক সংগ্রাম করা যায়। কিন্তু ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে নিরস্ত্রভাবে শান্তির বাণী নিয়ে সংগ্রাম করা মুশকিল। মহানগরীর আহ্বায়ক কমিটি যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করছেন বলেই তো তাদের মিছিলে পুলিশ হামলা করছে, গুলি করছে। তবুও বিএনপির নেতাকর্মীরা দুর্বল নয়। সরকারের সকল বাধা উপেক্ষা করে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে যতটুকু সম্ভব বুক চিতিয়ে লড়াই করছে, শান্তিপূর্ণভাবে গণতান্ত্রিক সব কর্মসূচি সফল করছে। এতে কোনো ব্যত্যয় ঘটছে না। এ সময় বিক্ষোভ কর্মসূচিতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ও সরকার দলীয় নেতাকর্মীদের হামলা-নির্যাতনের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আটক নেতা-কর্মীদের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন তিনি। সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে জনগণ ঐক্যবদ্ধ, এমন দাবি করে রিজভী বলেন, লক্ষ লক্ষ পায়ের আওয়াজে কেঁপে কেঁপে উঠছে স্বৈরাচারের মাটি। দুরন্ত দুর্নিবার আন্দোলনের শক্তি টের পেয়ে আওয়ামী লীগের নেতারা ভয়ে আবোল-তাবোল বকছে। সেজন্য বিএনপির কর্মসূচিতে পুলিশ লেলিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু এভাবে তারা নিস্তার পাবে না। জনগণের নিকট একদিন তাদেরকে জবাবদিহি করতেই হবে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন-দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, আতাউর রহমান ঢালী, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা এমরান সালেহ প্রিন্স, আবদুস সালাম আজাদ, হারুন-অর রশিদ, মুনির হোসেন প্রমুখ।

এদিকে, ঢাকা মহানগরের থানায় থানায় বিক্ষোভ কর্মসূচিকে ঘিরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর স্বাভাবিক উপস্থিতি থাকলেও আশপাশের প্রতিটি গলির মুখে সতর্ক অবস্থানে ছিল পুলিশ। ফলে এ এলাকায় কোনো মিছিল হয়নি। তবে কর্মসূচি সফলে পান্থপথ এলাকায় কলাবাগানা থানা বিএনপি, সিপাহীবাগ এলাকায় খিলগাঁও থানা, রূপনগর আবাসিক মোড় এলাকায় রূপনগর থানা, গেন্ডারিয়া রেললাইন সংলগ্ন এলাকায় শ্যামপুর থানা, বিজয়নগরে শাহবাগ থানা, গাওয়াইর মোড় এলাকায় দক্ষিণখান থানা, লালবাগ কেল্লা এলাকায় লালবাগ থানা, চিড়িয়াখানা রোড এলাকায় মিরপুর-শাহআলী-দারুসসালাম থানা, মনসুরাবাদ হাউজিং এলাকায় আদাবর থানা, গোলাপবাগ কমিউনিটি সেন্টার এলাকায় যাত্রাবাড়ী থানা এবং স্ব স্ব এলাকায় ওয়ারী, কামরাঙ্গীচর, ধানমন্ডি ও নিউমার্কেট থানার নেতারা বিক্ষোভ মিছিল করেছে বলে ঢাকা মহানগর বিএনপির নেতারা দাবি করেছেন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top