রাত ১১:২৫, শনিবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ রাজনীতি / জেলা পরিষদ নির্বাচন সংবিধান পরিপন্থী : মওদুদ
জেলা পরিষদ নির্বাচন সংবিধান পরিপন্থী : মওদুদ
December 27th, 2016

জেলা পরিষদ নির্বাচন জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে না হওয়ায় এ নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে ‘সংবিধান পরিপন্থী’ বলে উল্লেখ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তার অভিযোগ, এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে সরকার সামরিক শাসক আইয়ূব খানের ‘বেসিক ডেমোক্রেসি’ ফিরিয়ে আনতে চাচ্ছে।
গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘চেতনায় বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ’ আয়োজিত ‘মেজর জিয়া ও বাংলাদেশ’-শীর্ষক এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন মওদুদ। সাবেক এ আইনমন্ত্রী বলেন, আমাদের সংবিধানের আর্টিকেল ৫৯ ও ৬০-এ বলা আছে- বাংলাদেশের সকল স্থানীয় সরকার জনগণের ভোটের দ্বারা নির্বাচিত হতে হবে। জেলা পরিষদে যে নির্বাচন হচ্ছে, সেটা সম্পূর্ণভাবে সংবিধান পরিপন্থী। কারণ, জেলা পরিষদে নির্বাচন করতে হলে সংশ্লিষ্ট জেলার সব মানুষকে ভোটাধিকার দিতে হবে। অথচ এ নির্বাচনে উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের সিলেকটিভ চেয়ারম্যান-মেম্বাররা মিলে ভোট দেবেন। সংসদ, সিটি করপোরেশন, উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদে জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচন হলেও জেলা পরিষদ আইনে প্রত্যক্ষ ভোটের বিধান নেই। জেলার অন্তর্ভুক্ত সিটি করপোরেশনের (যদি থাকে) মেয়র ও কাউন্সিলর, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান এবং ইউপির চেয়ারম্যান ও সদস্যদের ভোটে জেলা পরিষদের নতুন প্রতিনিধি নির্বাচিত হবে। মওদুদ আহমদ বলেন, জেলা পরিষদের এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে সরকার আইয়ূব খানের বেসিক ডেমোক্রেসি (বুনিয়াদি গণতন্ত্র) আনতে চাচ্ছে। এই নির্বাচন বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে আরো ধ্বংস করবে। কারণ, এটা সংবিধান পরিপন্থী। এই নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের ইচ্ছার কোনো প্রতিফলন ঘটবে না। এখানে (জেলা পরিষদে) কোনো নির্বাচন হচ্ছে না, এটি একদলীয় একটি নির্বাচন। সুতরাং এই নির্বাচন একটি তামাশা ছাড়া আর কিছুই না।  জেলা পরিষদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে সরকারের মন-মানসিকতার প্রতিফলন ঘটেছে বলে দাবি করেন এই বিএনপি নেতা। সংগঠনের আহ্বায়ক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী এতে সভাপতিত্ব করেন।

এদিকে, সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, ৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচন যেমন প্রহসনের ছিল, তেমনি জেলা পরিষদের নির্বাচনও আরেকটি লোক দেখানো প্রহসনের নির্বাচন হবে। জোর করে যাদের নির্বাচিত করা হয়েছে, তাদের ভোটে জেলা পরিষদের নির্বাচন হবে। তাই তাদের এই নির্বাচন রসিকতা। জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনটির সভাপতি এমএ মালেক ও সাধারণ সম্পাদক মুনির খানের নেতৃত্বে নেতাকর্মীদের নিয়ে এ শ্রদ্ধা জানান তিনি।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :