রাত ৪:১৩, শনিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ Top News / ছুটির দিনে কেনা কাটার ধুম বাণিজ্য মেলায়
ছুটির দিনে কেনা কাটার ধুম বাণিজ্য মেলায়
জানুয়ারি ২০, ২০১৭

এরশাদ আলী : ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শেষ হতে আর মাত্র ১০ দিন বাকী। শেষ দিকে মেলায় ক্রেতা-দর্শণার্থীর ভীড় বাড়বে এমনটা অনুমিতই ছিল। কিন্তু সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায়  শুক্রবার মেলায় মানুষের ভীড় সেই অনুমান ছাড়িয়ে যায়। মানুষের ঢল নামে মেলায়। ক্রেতা-দর্শণার্থীর পদচারনায় মুখরিত হয়ে ওঠে মেলা প্রাঙ্গণ। তবে এদিন মেলায় ঘুরে বেড়ানোর চেয়ে কেনাকাটাতেই ব্যস্ত ছিলেন দর্শণার্থীরা। তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না স্টল-প্যাভিলিয়নগুলোতে। ক্রেতাদের সামলাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন বিক্রেতারা।

ছুটির দিনে শীতের মিষ্টি রোদে সকাল থেকেই মানুষের ভীড় দেখা যায় মেলায়। মানুষের ভীড়ের ভোগান্তি এড়াতে আগেভাগেই পরিবার পরিজন নিয়ে মেলায় হাজির হন অনেকে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে   এবং শেষ বিকেলে মেলা প্রাঙ্গণে দেখা যায় মানুষের উপচেপড়া ভীড়। এদিন মেলায় দর্শণার্থীদের কেনাকাটার প্রতি ঝোঁক ছিল বেশি। মেলায় আগতদের প্রত্যেকের হাতেই দেখা গেছে পণ্যসামগ্রীর প্যাকেট। অনেকের হাতে একাধিক প্যাকেটও দেখা গেছে। মূলত মেলার শেষ দিকে বিভিন্ন পণ্যে আকর্ষণীয় ছাড়ের কারনেই বিক্রি বেড়েছে বলে একাধিক ক্রেতা-বিক্রেতা জানান।

রাজধানীর ধোলাই খাল থেকে পরিবার নিয়ে মেলায় আসেন ব্যবসায়ী রকি। তিনি একটি স্টলের পাশে অনেকগুলো প্যাকেট হাতে নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকেন। তাকে বাইরে রেখে সাথে আসা বাসার মহিলা সদস্যরা ভিতরে কেনাকাটায় ব্যস্ত ছিলেন। তিনি জানান, মেলায় ঘুরতে আসলেও তারা কেনাকাটায় বেশি সময় দিচ্ছেন। বিশেষ করে মহিলারা বাসার প্রয়োজনীয় অনেক কিছু কিনছেন। মেলায় ছাড়ের কারনে এবং অনেক কোম্পানীর বিভিন্ন ধরনের পণ্য একসাথে পাওয়ায় ক্রেতারা আকৃষ্ট হচ্ছেন বলে তিনি জানান। বরাবরের মতো গৃহস্থালীর পণ্য এবং প্লাস্টিক সামগ্রীর স্টল এবং প্যাভিলিয়নগুলোতে ছিল মানুষের উপচেপড়া ভীড়। আরএফএল প্লাস্টিক, আপন প্লাস্টিক এবং বেঙ্গল প্লাস্টিকের প্যাভিলিয়নে ক্রেতাদের ভীড় এবং বিক্রিও ছিল চোখে পড়ার মতো। ক্রেতা আকৃষ্ট করতে তাদের মধ্যে এক ধরনের ছাড়ের প্রতিযোগিতা দেখা গেছে। আরএফএল তাদের বিভিন্ন পণ্যে ছাড়ের ছাড়ের পাশাপাশি র‌্যাফেল ড্র, সেলিব্রিটি ডিনার সহ আরও অনেক পুরষ্কারের ব্যবস্থা করেছে। মেলায় তাদের অনেক নতুন পণ্যও দেখা গেছে। এছাড়া কসমেটিক্স, শাড়ি, থ্রিপিস, ইলেকট্রনিক পণ্য, শিশুদের খেলনার স্টলগুলোতেও ছিল ক্রেতাসমাগম। ছেলেদের ব্লেজার, টিশার্ট, জুতা-স্যান্ডেলসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্যের স্টলগুলোও ছিল ক্রেতামুখর। হ্যাভেন হারবালের স্টলে নারী-পুরুষের সমান ভীড় দেখা গেছে। পারফিউপম, হেয়ার কালার, ফেসওয়াস, টুথপেস্ট, তেলসহ  তাদের বিভিন্ন পণ্যে একটি কিনলে একটি ফ্রি অফার ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়। তাদের বিক্রি বেশ ভালো বলে জানান বিক্রেতারা। আগামী দিনগুলোতে তাদের বিক্রি আরও বাড়বে বলে  আশা প্রকাশ করেন। এদিকে টিভি, ফ্রিজ, ফার্নিচারের প্যাভিলয়নগুলোতে বিক্রি তুলনামূলক কম হলেও দর্শণার্থীদের ভীড় ঠিকই ছিল। ক্রেতারা প্যাভিলয়নগুলোতে সাজানো এসব পণ্য দেখছেন এবং বিভিন্ন অফার সম্পর্কে খোঁজখবর নিচ্ছেন। কোম্পানির লোকেরাও ক্রেতা আকর্ষণ করতে ছাড়ের পাশাপশি বিভিন্ন সুবিধা দিচ্ছেন।

আকতার ফার্নিচারের একজন কর্মকর্তা জানান, মেলায় বিক্রি তেমন না হলেও তাদের মূল লক্ষ্য মেলায় অংশ নিয়ে পণ্যের পরিচিতি বাড়ানো। এছাড়া মেলায় তাদের ১ লাখ টাকার পণ্য কিনলে লটারির মাধ্যমে ১ লাখ টাকার ক্যাশ ব্যাকের সুবিধা রেখেছেন। আরো আছে হোম ডেলিবাড়ির সুবিধা। তবে ওয়ালটনের প্যাভিলিয়নে দর্শণার্থীদের ভীড় এবং বিক্রি ছিল জমজমাট। টিভি ফ্রিজ, ল্যাপটপ, মোবাইল, আয়রন, কফি মেকার, ওয়াশিং মেশিন সহ তাদের ২০ টি পণ্য ক্রেতাদের আকৃষ্ট করেছে। তবে মেলায় খাবারের রেস্তোরাঁগুলোতে দাম বেশি রাখা হচ্ছে বলে শুরু থেকে যে অভিযোগ ছিল তা এখনো অব্যাহত রয়েছে। প্রকৃত দামের চেয়ে কয়েকগুণ বেশি রাখা হচ্ছে বলে অনেকে জানান। ভ্যাটের নামে বেশি টাকা রাখা হলেও কাস্টমারদের কোন রশিদ দেয়া হয় না বলে তাদের অভিযোগ। এ নিয়ে বেশিরভাগ মানুষকেই অসন্তোশ প্রকাশ করতে দেখা যায়। রেস্তোরাঁয় কর্মরতদের সাথে বাকবিতন্ডায়ও জড়াতে দেখা যায় অনেককে। তারা এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। গত ১ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২২তম ঢাকা আন্তার্জাতিক বাণিজ্য মেলার (ডিআইটিএফ) উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি) ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ মেলার আয়োজন করছে। বাংলাদেশ ছাড়াও আরও ২১টি দেশ এ মেলায় অংশগ্রহণ করছে। আগামি ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত মেলা চলবে।
 

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top