রাত ২:৪৩, শুক্রবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / কৃষির উন্নয়নে তথ্য প্রযুক্তির ভূমিকা
কৃষির উন্নয়নে তথ্য প্রযুক্তির ভূমিকা
January 6th, 2017

 

কৃষির টেকসই উন্নয়নের জন্য সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে অনেক তথ্য প্রযুক্তি রয়েছে। এসব তথ্য প্রযুক্তি কৃষকের ব্যবহার উপযোগী ও সহজবোধ্য করে স্বল্প সময়ের মধ্যে তাদের দোর গোড়ায় পৌছে দিতে পারলে উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি কৃষকের আর্থ সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে। জীবন যাত্রার মান বাড়বে। কৃষি লাভজনক ও ঝুঁকিমুক্ত হবে।

 তরুণ উদ্যোক্তারা এ খাতে এগিয়ে আসবে। কৃষিতে নতুন প্রাণের সঞ্চার হবে। সারা দেশে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ১৩ হাজার কৃষি কর্মী আছেন। আর কৃষি পরিবার রয়েছে ১ কোটি ৬২ লাখ। এই বিপুল সংখ্যক কৃষি পরিবারের মধ্যে আধুনিক লাগসই প্রযুক্তি পৌছে দিতে তথ্য প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারের বিকল্প নেই। এ ক্ষেত্রে ই-কৃষি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

 ই-কৃষি হলো ইলেকট্রনিক প্রবাহের মাধ্যমে কৃষি বিষয়ক তথ্য সরবরাহের একটি আধুনিক প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়ায় ইন্টারনেট, রেডিও, টেলিভিশন ও মোবাইল ফোন ইত্যাদি ইলেকট্রনিক যন্ত্রের মাধ্যমে দ্রুততার সাথে কৃষির জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য নির্ভরযোগ্যভাবে কৃষিকে পণ্য ব্যবসায়ী, গবেষক, সম্প্রসারণ কর্মী, পরিকল্পনাবিদ এবং ভোক্তা ইত্যাদি গোষ্ঠীর কাছে পৌছে দেয়া হয়। দীর্ঘ ৫ বছরের চেষ্টায় ফসলের অধিক উৎপাদন ও সুষম মাত্রার সার প্রয়োগের লক্ষ্যে একটি সফটওয়্যার মাধ্যমে জানা যাবে কৃষি জমিতে কোন সার কী পরিমাণে প্রয়োগ করতে হবে।

 বেসরকারি সংস্থাগুলোর চেয়ে সরকারি সংস্থাগুলোর প্রতি কৃষকের আস্থা ও বিশ্বাস বেশি। এই প্রযুক্তির ব্যাপক ব্যবহারে সরকার ও বেসরকারি সংস্থাগুলোকে এক যোগে কাজ করতে হবে। গ্রামীণ ফোনের ২৭১৭৬ নম্বরে কল করেও কৃষি বিষয়ক সেবা পাওয়া যায়। এসব ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি কৃষকের নিকট সহজলভ্য হতে হবে এবং ব্যবহার সম্পর্কে কৃষক ভাইয়ের যথেষ্ট জ্ঞান ও দক্ষতা থাকতে হবে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top