দুপুর ২:৫৩, শনিবার, ২২শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / কর ছাড় চান পোলট্রি উদ্যোক্তারা
কর ছাড় চান পোলট্রি উদ্যোক্তারা
মে ১৮, ২০১৭

নানা সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে পোলট্রি শিল্প। উদ্যোক্তাদের চেষ্টার পরও সরকারের নীতি সহায়তার অভাব ও করের বোঝার চাপ বেড়ে যাওয়ায় পিছিয়ে পড়ছে এ খাত। আমদানি নির্ভরতা কাটিয়ে দেশ এখন মুরগির ডিম ও মাংসে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

পাশাপাশি বিদেশে রফতানির প্রস্তুতি নিচ্ছে দেশি কোম্পানিগুলো। এ অবস্থায় বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে প্রতিযোগিতার চাপ তৈরি হয়েছে। এসব থেকে উত্তরণের দাবি জানিয়েছেন পোলট্রি শিল্পের ব্যবসায়ীরা। সম্প্রতি অর্থমন্ত্রীর কাছে এ খাত রক্ষায় সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব দিয়েছে বাংলাদেশ পোলট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল (বিপিআইসিসি)।


 সংগঠনটি প্রস্তাবে পোলট্রি খাদ্য আমদানিতে অগ্রিম আয়কর প্রত্যাহার, ফিডের কাঁচামাল সয়াবিন মিল আমদানির ওপর আরোপিত শুল্ক মওকুফসহ সর্বপর্যায়ে আরোপিত ভ্যাট ও কর কমানোর দাবি জানানো হয়। একই সঙ্গে ২০২৫ সাল পর্যন্ত এ খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে কর অবকাশ সুবিধার দাবি করা হয়। পোলট্রি শিল্পকে প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যেতে এবং এ খাতের বিকাশে আরও সুযোগ-সুবিধা দেওয়া প্রয়োজন। কেউ কেউ বলেন পোলট্রিকে কৃষি খাত হিসেবে সুবিধা দেওয়া উচিত। এ খাত বিভিন্ন সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে প্রতিযোগিতার চাপ বাড়ছে।


 এসব সুবিধা নিশ্চিত না হলে দেশের উদ্যোক্তারা বিনিয়োগে আগ্রহ হারাবেন। এ খাতের রফতানি সম্ভাবনা কাজে লাগাতে সরকারের দীর্ঘ মেয়াদি নীতি থাকতে হবে। পোলট্রি খাতে বিদেশি বেশ কয়েকটি কোম্পানি বিনিয়োগ করছে। আরও অনেক কোম্পানি বিনিয়োগে আসছে বলে জানা গেছে। অথচ দেশি কোম্পানিগুলো করের চাপে তেমন এগোতে পারছে না। এ খাতের উন্নয়নে নীতিমালা তৈরি হয়নি। ফলে দেশের উদ্যোক্তারা শঙ্কার মধ্যে রয়েছেন। এ খাত টিকিয়ে রাখতে নীতিমালা তৈরির পাশাপাশি প্রণোদনা ও কর অবকাশ সহ বিশেষ সুবিধা দাবি করেছেন দেশি উদ্যোক্তারা।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top