দুপুর ২:৫১, শনিবার, ২২শে জুলাই, ২০১৭ ইং
/ রাজনীতি / ঐক্যবদ্ধ হলে অপশক্তি ক্ষমতায় থাকতে পারবে না : ফখরুল
ঐক্যবদ্ধ হলে অপশক্তি ক্ষমতায় থাকতে পারবে না : ফখরুল
এপ্রিল ১৭, ২০১৭

‘নিজেরা ও জাতীয় শক্তি’ ঐক্যবদ্ধ হলে বর্তমান ‘অপশক্তি’ ক্ষমতায় থাকতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, নেত্রকোনায় গিয়ে মানুষের সাড়া দেখে তার এই বিশ্বাস জন্মেছে যে- আমরা যদি নিজেরা ঐক্যবদ্ধ হতে পারি এবং জাতীয় শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করতে পারি, তাহলে এই অপশক্তি ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না।

সোমবার দুপুরে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে এক আলোচনা সভায় বন্যা কবলিত নেত্রকোনার হাওড় অঞ্চলের মানুষের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে এসব কথা বলেন ফখরুল। বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পাঁচ বছর পূর্তির দিনে সিলেট বিভাগ সংহতি সম্মেলনী, ঢাকা এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। মির্জা ফখরুল বলেন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ইলিয়াস আলীকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল। ইলিয়াস আলীর মতো বিএনপির পাঁচ শতাধিক নেতাকর্মীকেও গুম করা হয়েছে। এই শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে। আসুন, আমরা সবাই শপথ গ্রহণ করি-যেকোনো মূল্যে আমাদের গণতন্ত্র ও  মানুষের অধিকারকে ফিরিয়ে আনবো, স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করবো। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তিস্তার পানি আনার ক্ষমতা এই সরকারের নেই। কারণ, তাদের কোনো গণভিত্তি নেই। দর-কষাকষি করার ক্ষমতা নেই। প্রধানমন্ত্রী বলতে পারতেন, তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি না হলে অন্য চুক্তিও হবে না। এই নতজানু, সেবাদাস সরকার দিয়ে তিস্তার ন্যায্য হিস্যা পাওয়া যাবে না, আমাদের জনগণের কোনো সমস্যারই সমাধান হবে না।

ইলিয়াস আলীর নিখোঁজের বিষয়টি আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কাছে তুলে ধরার জন্য পরিবারসহ আয়োজক সংগঠনকে উদ্যোগী হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, আপনারা এই বিষয়গুলো আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করুন, আমরা আপনাদের সহযোগিতা করবো। বিএনপি ইলিয়াস আলীর ব্যাপারে আরও শক্ত ভূমিকা নিতে পারত, এমন মন্তব্য করে দলটির মহাসচিব বলেন, সে সময় একটা সফল অবরোধ কর্মসূচি পালিত হয়েছিল। এরপর আন্দোলন থিতিয়ে পড়ে। সবচেয়ে কার্যকর হতো যদি সে সময় বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে বারবার যাওয়া যেত। নির্বাচন প্রসঙ্গে ফখরুল বলেন, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায় আমরা দেশে একটি নির্বাচন চাই, সেই নির্বাচন দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, শুধুমাত্র ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য দেশে এই গুম-খুনের রাজনীতি। বিএনপির নেতাদের আজকে হয় জেলে দেবে, না হয় গুম-হত্যা করবে অর্থাৎ বিএনপিকে নেতৃত্বশূন্য করবে। আমি বলতে চাই, বিএনপিকে নেতৃত্বশূন্য করার জন্য যারা আওয়ামী লীগকে বুদ্ধি দিচ্ছে, একদিন তারাই আওয়ামী লীগকেও নেতৃত্বশূন্য করবে- এটা তারা বুঝতে পারছে না। এখনো সরকারকে বলব- সঠিক পথে আসেন, দেশকে ভালোবাসেন। দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, আজকে আমাদের হাজারো ইলিয়াস আলী দরকার। গ্রামে-গঞ্জে, পথে-প্রান্তরে, ঘরে-ঘরে আমাদের ইলিয়াস আলী প্রয়োজন। একটি আন্দোলন, একটি সংগ্রাম, একটি যুদ্ধ আমাদের করতেই হবে। সেই যুদ্ধের মাধ্যমে দেশকে স্বাধীন রাখতে হবে। সংগঠনের আহ্বায়ক কাইয়ুম চৌধুরীর সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য দেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ইনাম আহমেদ চৌধুরী, যুগ্ম-মহাসচিব মজিবুর রহমান সারোয়ার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ইলিয়াস আলীর সহধর্মিণী তাহসিনা রুশদী লুনা উপস্থিত থাকলেও বক্তব্য দেননি।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top