দুপুর ২:৫৯, বৃহস্পতিবার, ২৭শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / এসডিজি অর্জনে বৈষম্য দূর হোক
এসডিজি অর্জনে বৈষম্য দূর হোক
এপ্রিল ১৯, ২০১৭

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) অর্জন করতে হলে প্রথমে বৈষম্য দূর করার উদ্যোগ নিতে হবে। পাশাপাশি সামাজিক উন্নয়ন বিশেষ করে সার্বজনীন শিক্ষার মানোন্নয়ন এবং কৃষি ও এসএমই খাতকে অন্তর্ভূক্ত করে পরিকল্পনা প্রণয়ন করতে হবে সরকারকে।

 

এসডিজির লক্ষ্য অর্জনে বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণ অপরিহার্য। এ লক্ষ্য বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর ও অন্যান্য সংস্থার অংশগ্রহণে কৌশল পত্র প্রণয়নের কাজ এপ্রিলে শেষ হবে। সার্বজনীন শিক্ষার মানোন্নয়ন না হলে এসডিজি অর্জন সম্ভব হবে না- তা কাগজেই থেকে যাবে।

 

 এসডিজির জন্য শিক্ষার মান বাড়ানো বড় চ্যালেঞ্জ। সরকারকে এ বিষয়ে এখনই পদক্ষেপ নিতেহবে। সরকার বড় চিন্তা করছে অবকাঠামো নিয়ে। এর পাশাপাশি সামাজিক উন্নয়নে সরকারি বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। দেশে যে মডেলে উন্নয়ন হচ্ছে, সেখানে বৈষম্য সৃষ্টির সুযোগ রয়েছে। এ জন্য এসডিজিতে সরকারি-বেসরকারি খাত ও এনজিওগুলোকে এক সঙ্গে কাজ করার পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।


 এসডিজি বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জগুলো ব্যবসায় নতুন নতুন খাত তৈরির সম্ভাবনা জাগিয়েছে। বৈষম্য রেখে সমাজ এগোবে না। এসডিজি বাস্তবায়নে প্রধান লক্ষ্য হতে হবে বৈষম্য দূর করা। অভ্যন্তরীণ সম্পদ ব্যবহারের সক্ষমতা বৃদ্ধি ও বাস্তবায়ন, তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়ন এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে পারলেই বাংলাদেশ ২০২৭ সালে না হোক ২০৩১ সালের মধ্যে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে।


 তবে সুশাসনের অভাব থাকলে, দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ হলে আমাদের জন্য তা দুরূহ হয়ে উঠবে। রাষ্ট্র পরিচালনাকারী এবং দেশের নীতি নির্ধারকদের বিষয়টি গভীরভাবে ভাবতে হবে। আমরা প্রত্যাশা করি এই সব সমস্যাকে উতরিয়ে বাংলাদেশ একটি মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হোক।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top