বিকাল ৩:১১, রবিবার, ৩০শে এপ্রিল, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / এসডিজি অর্জনে বাধা দুর্নীতি
এসডিজি অর্জনে বাধা দুর্নীতি
এপ্রিল ১৩, ২০১৭

টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) বাস্তবায়নে দেশে বিদ্যমান আর্থ-সামাজিক ও উন্নয়ন বৈষম্য হ্রাস করতে হবে। সেই সঙ্গে গণতন্ত্র শক্তিশালী ও উন্নয়ন বৈষম্য হ্রাস করতে হবে। একই ভাবে গণতন্ত্র শক্তিশালী করে এই প্রক্রিয়ায় সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছে ইক্যুইটিবিডিসহ ২২টি নাগরিক সংগঠন। গত শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি জানান, সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সভাপতি সৈয়দ আমিনুল হক। এসডিজি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান সমস্যা হলো দুর্নীতি।


 দুর্নীতির কারণে দেশের শতকরা ২ ভাগ জিডিপি কম অর্জিত হচ্ছে। দুর্নীতি এবং জনগণের সম্পদের অপচয় বন্ধ করতে হবে। অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন, মুক্ত গণমাধ্যমে স্বাধীন বিচার বিভাগ, আইনের শাসন, স্বায়ত্বশাসিত শক্তিশালী স্থানীয় সরকার এবং গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বাধীনতা নিশ্চিত করা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনে আবশ্যকীয় শর্ত।

 

সরকারের অনেক প্রশংসনীয় উদ্যোগ দুর্নীতির কারণে নস্যাৎ হয়ে যাচ্ছে।  সরকার কর্মসংস্থান তৈরির চেষ্টা করছে, কিন্তু বর্তমান সময়ে ঘুষ ছাড়া পাওয়া প্রায় অসম্ভব। এ ছাড়া বাংলাদেশের অর্থনীতি এখনো কৃষি নির্ভর, অথচ কৃষকরা তাদের কৃষি পণ্যের ন্যায্য মূল্য পাননা। কৃষি ভিত্তিক শিল্প গড়ে তুলতে হবে। ধনী-দরিদ্র এবং শহর-গ্রামের মধ্যে বিদ্যমান উন্নয়ন বৈষম্য হ্রাস করতে হবে।


 শ্রমিক শ্রেণির কার্যকর অংশগ্রহণ ছাড়া এসডিজিসহ কোনো উন্নয়ন পরিকল্পনাই বাস্তবায়ন সম্ভব নয় এবং শ্রমিকের মজুরি বাড়ানোর কথাও বলেন তারা। এসডিজি বাস্তবায়নে ধনী দেশগুলো তাদের প্রতিশ্রুত সহায়তা দেয়নি। এসডিজিতেও তারা উন্নয়ন সহায়তার প্রতিশ্রুতি রাখবে না। তাই আমাদেরকে নিজের উন্নয়নের জন্য নিজস্ব সম্পদের ওপর নির্ভর করতে হবে। এজন্য অবৈধ অর্থ পাচার বন্ধ করতে হবে। প্রতি বছর জিডিপির ১ দশমিক ২ ভাগ চলে যায় অর্থ পাচারের মাধ্যমে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top