দুপুর ১:৪৬, রবিবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / এলডিসি থেকে বের হবে বাংলাদেশ
এলডিসি থেকে বের হবে বাংলাদেশ
December 26th, 2016

 

স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকা থেকে বাংলাদেশ ২০২৪ সালের মধ্যে বের হতে পারবে। তবে এলডিসির সুবিধা পাবে ২০২৭ সাল পর্যন্ত। অর্থনীতির গুণগত ও কাঠামোগত পরিবর্তন না হওয়া এবং মানব সম্পদের অনুন্নয়ন তালিকা থেকে বের হওয়া ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

 এ ছাড়া রেমিট্যান্স প্রবাহ ও স্থিতিশীল বিনিময় হার বাংলাদেশের পক্ষে নাও থাকতে পারে। এ তালিকা থেকে বের হলে রফতানি আয় সর্বোচ্চ সাড়ে ৬ শতাংশ পর্যন্ত কমে যেতে পারে। এলডিসি থেকে বেরোনোর জন্য তিনটি লক্ষ্যমাত্রায় দুটি অর্জন করলেই চলে। এর মধ্যে অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সম্পর্কিত লক্ষ্যটি এরই মধ্যে বাংলাদেশ অর্জন করেছে। বাকি দুটি হলো মাথাপিছু আয় ও মানব সম্পদ উন্নয়ন।

এ ক্ষেত্রে মাথাপিছু আয় ১ হাজার ২৪২ ডলার হলে এলডিসি থেকে বের হওয়ার যোগ্যতা অর্জন হবে। সে হিসেবে বাংলাদেশ ২০১৮ সালের মধ্যেই এলডিসি থেকে বের হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করবে। মানব সম্পদ সূচকে উন্নয়ন এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। এটি উন্নয়ন করা গেলে মাথাপিছু আয়ও বাড়বে। ফলে ২০২১ সালের মধ্যে এলডিসি থেকে বের হওয়ার নির্দিষ্ট তিন মানদন্ডেই ২০২৪ সালে চূড়ান্তভাবে এলডিসি থেকে বের হতে সক্ষম হবে বাংলাদেশ। তারপরও ২০২৭ সাল পর্যন্ত এলডিসি হিসেবে প্রাপ্ত সুবিধা ভোগ করবে বাংলাদেশ।

 এরপর আর এ ধরনের কোন সুযোগ সুবিধা বাংলাদেশ ভোগ করতে পারবে না। এতে বলা হয়, নির্দিষ্ট এ সময়ে এলডিসির তালিকায় থাকা দেশগুলোর মধ্যে শুধু বাংলাদেশ বের হলে এর প্রভাব পড়বে রফতানি আয়ে। প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৯৭১ সালে বিশ্বের ২১টি দেশ এলডিসির অন্তর্ভূক্ত ছিল। বর্তমানে ৪৮টিতে উন্নীত হয়েছে। এলডিসি থেকে বের হতে হলে অর্থনৈতিক উন্নয়নকে টেকসই ও গতিশীল করতে হবে। টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হলে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি, সমতা, মানবাধিকার ও আইনের শাসন নিশ্চিত করতে হবে।  

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top