রাত ১:৫৫, রবিবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ রাজশাহী / উন্নয়নের বার্তা নিয়ে রাজশাহী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
চাওয়া পাওয়া ও প্রত্যাশার অপেক্ষায় লাখ লাখ মানুষ
উন্নয়নের বার্তা নিয়ে রাজশাহী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

রাজশাহী প্রতিনিধি : উন্নয়নের বার্তা নিয়ে রাজশাহী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর এই সফরকে ঘিরে উজ্জীবিত রাজশাহী আওয়ামী লীগ। আজ বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহী সফরে যাচ্ছেন। সকাল ১০টায় রাজশাহী সারদা পুলিশ একাডেমিতে ৩৪তম বিসিএস ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। পরে বেলা ২টায় প্রধানমন্ত্রী জেলার পবা উপজেলার হরিয়ান চিনিকল মাঠে জনসভায় ভাষণ দেবেন। ২০০৮ সালে ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজশাহীতে এটি চতুর্থ সফর। এর আগে ২০১১ সালের ২৪ নভেম্বর রাজশাহী সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদ্রাসা মাঠের জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে ভাষণ দেন। এরপর ২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর রাজশাহী সফরকালে প্রধানমন্ত্রী বাগমারায় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিয়ে প্রধান অতিথির ভাষণ দেন। ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি চারঘাটে আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দিয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর আগমন ও জনসভাকে সামনে রেখে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে চাওয়া পাওয়া ও প্রত্যাশার অপেক্ষায় রাজশাহী অঞ্চলের লাখ লাখ মানুষ। প্রধানমন্ত্রী রাজশাহী সফর সফল করতে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ইউনিট পৃথকভাবে নানা কর্মসূচি পালন করেছে। এবারের জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত করতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে আওয়ামী লীগ। এ কারণে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সব নেতা এখন মাঠে নেমেছেন একযোগে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, এ অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য রাজশাহী আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ১৫টি দাবি প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করা হবে। এর মধ্যে রাজশাহীতে অর্থনৈতিক জোন স্থাপন, রাজশাহী শাহ মখদুম বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের বিমানবন্দরে উন্নীত করা, রাজশাহী-কলকাতা সরাসরি ট্রেন চলাচল, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা এবং বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে সোনামসজিদ পর্যন্ত মহাসড়ক চার লেনে উন্নীত করা উল্লেখযোগ্য বলে জানান আসাদুজ্জামান আসাদ।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সব ধরনের প্রস্তুতি প্রায় শেষ পর্যায়ে। জনসভায় প্রায় পাঁচ লাখ মানুষের সমাগমের টার্গেট নেয়া হয়েছে। আবহাওয়া ভাল থাকলে জনসভায় মানুষের সমাগমের টার্গেট পূরণ হবে বলে আশা কারছেন তিনি।

সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, জাতীয় রাজনীতিতে রাজশাহীর অবদান সবসময় অনেক বেশি থাকলেও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে কম সংখ্যক নেতা রয়েছেন বা কেন্দ্রীয় নেতা নেই বললেই চলে। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর রাজশাহী সফরের মধ্য দিয়ে এই অঞ্চলের ভবিষ্যৎ ত্যাগী ও মেধাবী নেতাদের কেন্দ্রীয় সংসদে জায়গা করে দেবেন। তাই প্রধানমন্ত্রীর রাজশাহীর এবারের সফরকে গুরুত্বপূর্ণ ও ঐতিহাসিক মনে করছেন রাজশাহীর নেতারাও।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এই সফর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে আসন্ন রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচন ও রাজশাহীর উন্নয়নে নেতাকর্মীদের অরাও ঐক্যবদ্ধকরণ। ইতিমধ্যে দলীয় নেতাকর্মীরা এখন অনেক সক্রিয়। প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে নতুন করে প্রাণচাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে।

তিনি বলেন, রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত করতে সব নেতাকর্মী মাঠে নেমেছেন। তারা নিরলসভাবে কাজ করছেন।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী এমপি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর রাজশাহী আগমনকে কেন্দ্র করে নেতাকর্মী ছাড়াও সাধারণ মানুষের মধ্যে জোয়ার সৃষ্টি করা হচ্ছে। রাজশাহীবাসী অনেক খুশি। প্রধানমন্ত্রীকে দেখার জন্য ও রাজশাহীতে উন্নয়ন প্রতিশ্রুতির প্রত্যাশায় রয়েছেন।
রাজশাহী সফরকালে প্রধানমন্ত্রী ২৩টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এর মধ্যে ছয়টি প্রকল্প উদ্বোধন ও ১৭টির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন বলে জানিয়েছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক হেলাল মাহমুদ শরীফ।

তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজশাহী সফরকালে পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজিত হরিয়ান চিনিকল মাঠে জনসভায় প্রধান অতিথি থেকে ভাষণ দেবেন। সেখান থেকে তিনি রাজশাহীর ২৩টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন করবেন। এর মধ্যে সদর দফতর ও জেলা কার্যালয় স্থাপনের মাধ্যমে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতর শক্তিশালী শীর্ষক প্রকল্প (শিক্ষা প্রকৌশল অধিদফতর অফিস নির্মাণ), উপজেলা কমপ্লেক্স সম্প্রসারণ প্রকল্পের আওতায় বাগমারা উপজেলা কমপ্লেক্স সম্প্রসারিত প্রশাসনিক ভবন ও হলরুমের নির্মাণ কাজ, রাজশাহীর পবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ কাজ, নগরীর টিকাপাড়ায় আরবান প্রাইমারি হেলথ কেয়ার সার্ভিসেস ডেলিভারি প্রকল্পের আওতায় রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নামক স্থানের ৬তলা বিশিষ্ট সিআরএইচসিসি (কম্প্রিহেনসিভ রিপ্রোডাক্টিভ হেলথ কেয়ার সেন্টার) নির্মাণ কাজ, তানোর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ কাজ ও নগরীর বনলতা বাণিজ্যিক এলাকা সম্প্রসারণ ও আবাসিক এলাকা উন্নয়নের ছয়টি প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

একই সময় প্রধানমন্ত্রী আরও ১৭টি প্রকেল্পর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। এগুলো হচ্ছে পদ্মা নদীর ভাঙন এলাকা থেকে নগরীর অন্তর্ভুক্ত সোনাইকান্দি থেকে বুলনপুর পর্যন্ত এলাকা রক্ষা প্রকল্প, চারঘাট টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপনের জন্য পয়ঃনিষ্কাশন, পানি সরবরাহ ও বৈদ্যুতিক কাজসহ একাডেমিক কাম (৫তলা), প্রশাসনিক ভবন (৪তলা) নির্মাণসহ ওয়ার্কসপ ও সার্ভিস এরিয়া (১তলা) একই সাথে পানি সংরক্ষণ ভূমি উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, সীমানা প্রাচীর, গেট ও গভীর নলকূপ স্থাপন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

রাজশাহী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইকেট পার্কের মূল ভবন ছাড়াও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নগরীর রাজপাড়া থানা এলাকার সোনাইকান্দি হতে বুলনপুর পর্যন্ত ২৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মা নদীর পাড় রক্ষা প্রকল্প, রাজশাহী নগরীর তালাইমারী মোড়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্কয়ার নির্মাণ, ‘তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে নির্বাচিত বেসরকারি কলেজ (আইসিটি) সমূহের উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় বাগমারার মাড়িয়া কলেজ, মোহনপুরের পাকুড়িয়া কলেজ, গোদাগাড়ীর গুরগোফুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, তানোরের ডা. আবুবকর হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজের চারতলা একাডেমিক ভবন নির্মাণ কাজ, মহানগরীর কোর্ট থেকে রাজশাহী বাইপাস রোড পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্তকরণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

অন্য প্রকল্পগুলোর মধ্যে রুয়েট থেকে রাজশাহী সিটি বাইপাসের খড়খড়ি পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ প্রকল্প, মোহনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ, বারনই আবাসিক এলাকা উন্নয়ন প্রকল্প, প্রান্তিক আবাসিক এলাকা উন্নয়ন প্রকল্প, পরিবার পরিকল্পনা রাজশাহী জেলা ও বিভাগীয় উপ-পরিচালকের অফিস ভবন নির্মাণ প্রকল্প, রাজশাহী শিশু হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্প, চারঘাট টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপনের জন্য পয়ঃনিস্কাশন, পানি সরবরাহ ও বৈদ্যুতিক কাজসহ পাঁচতলা একাডেমিক, চারতলা প্রশাসনিক, একতলা ওয়ার্কসপ ও সার্ভিস ভবন, পানি সংরক্ষণ ভূমি উন্নয়ন, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, সীমানা প্রাচীর, গেট ও গভীর নলকূপ স্থাপন, গোদাগাড়ী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ, পবায় বেসরকারি বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাস নির্মাণ এবং রাজশাহী মেট্রোপলিটন ডেভেলপমেন্ট প্লান দুর্যোগ ঝুঁকি সংবেদনশীলকরণ প্রকল্প মিলে মোট ১৭টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

এদিকে রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় মানুষ নতুন দর্শন পাবেন। এদিন প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর মানুষকে আগামীর দিকনির্দেশনা দেবেন বলে জানিয়েছেন  আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা-১৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। বুধবার বিকেলে রাজশাহী নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় দলের পক্ষ থেকে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নানক এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, আজ প্রধানমন্ত্রী রাজশাহীর জনসভায় আসবেন। সেই জনসভা এই রাজশাহী বিভাগকে কেন্দ্র করেই। রাজশাহীকে ঘিরে তিনি কী ভাবছেন, কী পরিকল্পনা, কী স্বপ্ন তা জনসভায় তুলে ধরবেন প্রধানমন্ত্রী।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষে ইতিমধ্যে এসএসএফ থেকে শুরু করে আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্বে থাকা বিভিন্ন সংস্থার সাথে আলোচনা করা হয়েছে। জনসভাস্থলের মঞ্চ ও আশপাশের এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে এসএসএফ। মাঠের আশপাশে পুলিশ, র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যাপ্ত সদস্যের উপস্থিতি থাকবে। পুরো রাজশাহীজুড়ে নেয়া হবে নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

 

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top