সন্ধ্যা ৬:০৪, রবিবার, ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / উন্নয়নশীল দেশের পথে বাংলাদেশ
উন্নয়নশীল দেশের পথে বাংলাদেশ
ডিসেম্বর ৩০, ২০১৬

 


২০২৪ সাল নাগাদ বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকা থেকে বের হয়েছে বলে মনে করছে জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন বিষয়ক সংস্থা আংকটাড। আংকটাডের এলডিসি রিপোর্ট -২০১৬ তে এ প্রাক্কলন করা হয়েছে। গত সোমবার আংকটাড এ রিপোর্ট প্রকাশ করেছে।

বর্তমানে ৪৮টি দেশ এলডিসি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।  জাতিসংঘ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশকে স্বল্পোন্নত, উন্নয়নশীল ও উন্নত এ তিন ক্যাটাগরিতে ভাগ করে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে বাংলাদেশ ২০১৮ সালের মধ্যে এলডিসি থেকে বের হওয়ার প্রাথমিক যোগ্যতা অর্জন করবে।

২০২১ সালের মধ্যে এলডিসি থেকে বের হওয়ার জন্য যে তিনটি বিষয়ে একটি নির্দিষ্ট মানদন্ড  বিবেচনা করা হয়, তা সন্তোষজনকভাবে বজায় রাখতে সক্ষম হবে। ২০২৪ সালে চূড়ান্তভাবে এলডিসি থেকে বের হতে সক্ষম হবে বাংলাদেশ। মাথাপিছু আয়, মানব সম্পদ ও আর্থিক ভঙ্গুরতা সূচক- এ তিনটি বিষয়ে নির্দিষ্ট মানদন্ড অর্জনের ওপর বিশ্লেষণ করে একটি দেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়ে থাকে।

 বাংলাদেশ ১৯৭৫ সাল থেকে স্বল্পোন্নত দেশের তালিকায় রয়েছে। ১৯৭১ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ৪২ বছরে তালিকা থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছে মাত্র তিনটি দেশ। ১৯৯৪ সালে বতসোয়ানা, ২০০৭ সালে কেপভার্দে এবং ২০১১ সালে মালদ্বীপ এই তালিকা থেকে বেরিয়ে এসেছে। বাংলাদেশ এরই মধ্যে মানব সম্পদ উন্নয়নে জোর দিয়েছে। আর্থিক ভঙ্গুরতা সূচকে ইতিমধ্যে বাংলাদেশ প্রয়োজনীয় সক্ষমতা অর্জন করেছে। মাথাপিছু আয়ে বাংলাদেশ লক্ষ্য অর্জনের কাছাকাছি রয়েছে। মাথাপিছু আয়ের হিসাবে বিশ্বব্যাংক ইতিমধ্যে নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছে। এটা দেশের ক্রমবর্ধমান শক্তির পরিচায়ক। বাংলাদেশ ইতিমধ্যে প্রতিযোগিতা সক্ষমতার শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়ে গেছে।

 



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top