রাত ১১:১৬, বৃহস্পতিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৭ ইং
/ সম্পাদকীয় / উদ্বৃত্ত জমিতে পাট শিল্প
উদ্বৃত্ত জমিতে পাট শিল্প
এপ্রিল ১৮, ২০১৭

বিনিয়োগের ক্ষেত্রে জমির সংকটকে অন্যতম প্রধান বাধা হিসেবে মনে করা হয়। নতুন বিনিয়োগে এবার জমির একটা সংস্থান হচ্ছে। রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের প্রয়োজনীয় জমি ও অবকাঠামো অক্ষত রেখে উদ্বৃত্ত জমি শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন উপযোগী করে প্লট আকারে বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। দীর্ঘ মেয়াদে ইজারার মাধ্যমে এসব প্লট পাবেন উদ্যোক্তারা।


তবে অব্যবহৃত এসব জমিতে শুধু পাটকলই স্থাপন করার শর্ত থাকছে। দ্রুত এসব জমি বিনিয়োগে নিয়ে আসতে কাজ করছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়। প্রাথমিক হিসাবে বর্তমানে রাষ্ট্রায়ত্ত ২৬টি পাটকলে ৭৫ একর উদ্বৃত্ত জমি রয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের অব্যবহৃত জমি বিনিয়োগে বেসরকারি খাতে নিয়ে আসার প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটি কমিটি করে দেওয়া হয়েছে।

 

সরকারের পক্ষ থেকে প্লট করে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের মাঝে বিভিন্ন মেয়াদে বরাদ্দ দেওয়া হবে। বাকি অবকাঠামো উন্নয়ন করতে হবে উদ্যোক্তাদেরই। তবে পাট ছাড়া অন্য কোনো শিল্প স্থাপন করা যাবে না এসব প্লটে। অন্য আরো শর্ত সহ বরাদ্দ এবং ব্যবহার প্রক্রিয়া নিয়ে একটি খসড়া নীতিমালা তৈরিতে কাজ করছেন তারা।


 নীতিমালা অনুমোদনের জন্য যথাসম্ভব দ্রুততম সময়ে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। গত জানুয়ারিতে পাট সংক্রান্ত জাতীয় উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের অব্যবহৃত  জমি বেসরকারি খাতে বিনিয়োগে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত হয়। পাট খাতকে চাঙ্গা করতে পাট উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়।

 

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের প্রয়োজনীয় জমি ও অবকাঠামো বিদ্যমান রেখে উদ্বৃত্ত জমিতে খুব সহজে নতুন বিনিয়োগে শিল্পায়ন সম্ভব। অন্যান্য খাতের মতো পাট খাতেও জমির সংকটে বিনিয়োগ বাড়ছে না। এ পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের উদ্বৃত্ত জমি পাওয়া গেলে বিনিয়োগের জন্য সেটা বড় সহায়তা হিসেবে কাজ করবে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :




Go Back Go Top